একজন দয়ালু শিশু বড় করে তোলার ৯টি উপায়

একজন দয়ালু শিশু বড় করে তোলার ৯টি উপায়

“বাচ্চারা বাচ্চাই হবে” কিছু প্রাপ্তবয়স্করা বলেন, যখন তারা তাদের সন্তানদের বেপরোয়া, দুষ্টু হতে, বা খেলনার জন্য বায়না করতে দেখেন । সত্যিটা, প্রকৃতপক্ষে, বাচ্চারা ঠিক তেমনই হয়ে উঠবে আমরা যেভাবে তাদের বড় করে তুলব! আমরা প্রায়ই আমাদের সন্তানের সুখ – তার শিক্ষা, তার স্বাস্থ্য, তার কর্মজীবনের জন্য তাকিয়ে থাকি । বেশিরভাগ বাবা-মা তাদের সন্তানের একাডেমিক পারফরম্যান্সের দিকে এতটাই মনোযোগ দিয়ে থাকেন, যে তারা তার বিকাশের মানসিক দিকটাকে উপেক্ষা করে ফেলেন ।

aniview

যখন সে ভাল গ্রেড পায় তখন আপনি আপনার সন্তানের পিঠে তাকে অভিনন্দন জানানোর জন্য চাপড় মারতে পারেন । কিন্তু যদি সে আপনাকে বলে যে সে তার বন্ধুর সাথে তার খাবার ভাগ করে নিয়েছে, তখন? বা সে যখন তার অভিনব স্টেশনারিটি তাকে দিয়ে দেয় যে এটা পেতে চেয়েছিল, তখন? যখন আপনি এটা কল্পনা করছেন তখন নিজের প্রতি সৎ হতে হবে; আপনার প্রথম প্রতিক্রিয়া সম্ভবত এটা হতে পারে – “কেন তুমি এটি নিজে খাওনি, অথবা তুমি কি জানো ওই পেন্সিলের দাম কতটা?” এভাবেই এটি শুরু হয়!

বেশিরভাগ বাবা-মা ইতিবাচক ভাবে ‘দয়ার গুণমান’ প্রকাশ করেন না । তারা এটি অপ্রয়োজনীয় বলে মনে করেন, যা অবশেষে সন্তানের মনে হয় যে দয়া করে, ‘দুঃখিত,’ ‘দয়া করে’ এবং ‘ধন্যবাদ’ ছাড়িয়ে উদারতার কোন অর্থ নেই । তবে আপনি আজকেই এটি পরিবর্তন করতে পারেন – আগামীকাল না, আপনার বাচ্চা এটার মানে কি তা বুঝতে পারার থেকে বেশি বড় হয়ে যাওয়ার পরেও নয় । এখন আপনার সন্তানের এই গুণটি বাড়ানোর সঠিক সময়, কারন সে অল্প বয়সে যা শিখবে তা চিরকালের জন্য তার সাথে থাকবে ।

একজন দয়াবান শিশু বড় করে তোলার ৯টি উপায়

আপনার মনে হতে পারে যে উদারতা একটি ফলপ্রসূ গুণ না, কিন্তু আমরা ভিন্নভাবে ভাবতে অনুরোধ করছি । এটা, আসলে, বৃহত্তর সুখের জন্য নিশ্চিত পথ । তাই যদি আপনি একটি সন্তানকে আরও দয়ালুভাবে বড় করার উপায় খুঁজছেন, এখানে কয়েকটি টিপস রয়েছে:

১) মডেল দয়ালুতা

আপনি আপনার সন্তানের প্রথম শিক্ষক! সে এখন এমন একটি বয়সে যেখানে, নিশ্চিতরূপে, সে আপনার কর্ম এবং আচরণের প্রতিচ্ছবি । আপনি যে বিষয়গুলি বা তার চারপাশে যে কাজগুলি করেন সেগুলিতে সেই গুণমান থাকা উচিত, যেগুলি নিয়ে আপনি তাকে বড় হতে দেখতে চান । আপনি যদি একটি দয়ালু সন্তানকে বড় করতে চান তবে আপনাকে অবশ্যই আপনার কথা ও কাজের মধ্যে তা বের করতে হবে । আপনি যখন আপনার বাড়িতে কাজে সাহায্যকারী বা একজন দোকানদারকে সম্বোধন করছেন বা কথা বলছেন, তখন দয়াশীল এবং বিনয়ী হতে হবে । যত বেশি সে আপনার সদয় আচরণের সাক্ষী হবে, তত বেশি সে সেই মূল্যবোধের দিকে থাকবে । আপনাকে যা করতে হবে তা হল সব কিছুতে তার জন্য একটি উদাহরণ স্থাপন করতে হবে । তাই যখন আপনি আপনার সন্তানের কাছাকাছি থাকেন তখন আপনার শব্দগুলি বিজ্ঞতার সাথে নির্বাচন করুন । মনে রেখো – সে যা শোনে তাই শোষণ করে, শব্দের জন্য শব্দ ।

২) ভুলগুলি স্বীকারে উৎসাহিত করাতে লক্ষ্য রাখুন

ভুলগুলি স্বীকারে উৎসাহিত করুন

আপনি যদি আপনার সন্তানদের আপনার কাছ থেকে শিখতে দিতে চান, তবে আপনাকে সঠিক থাকতে হবে এমনকি কঠিন সময়েও । তর্ক হল প্রাকৃতিক; এগুলি একটি সুস্থ পরিবারের একটি অংশ । কিন্তু এখানে আসল ব্যাপার হল এই অর্থহীন লড়াইয়ের পর আপনারা কিভাবে মিটমাট করে নেন । আপনার বাচ্চারা যখন অল্পবয়সী থাকে তখন তারা অনেক কিছু শিখতে পারে এবং যদি তারা আপনাকে আপনার ভুলগুলি স্বীকার করতে ও আপনার সঙ্গীর সাথে মিটমাট করতে দেখতে পায়, তবে তাদের সিস্টেম উচ্চ রাস্তা গ্রহণেও মানিয়ে নেবে! এছাড়াও, আপনার সন্তানকে প্রতিটি সময় তার ভুল স্বীকার করতে উত্সাহিত করা উচিত কারণ অবশেষে, এটি তাকে নম্র থাকতে সাহায্য করবে ।

৩) প্রশংসা সম্পর্কে নির্দিষ্ট হতে হবে

এটি চেষ্টা করে দেখুন – শুধুমাত্র আপনার বাচ্চার প্রশংসা করুন যখন আপনি সত্যি অর্থে তার কোন কথা বা কাজ দ্বারা মোহিত হয়েছেন । আমরা প্রায়ই তাদের ভাল লাগার জন্য আমাদের শিশুদের প্রশংসা করি, কিন্তু এই প্রক্রিয়ার মধ্যে, আমরা তার নির্যাসটিকে চটকাতে থাকি । বিভ্রান্ত? আসলে, যদি আপনি ছোট্ট ছোট্ট কাজে কৃতিত্বের জন্য আপনার সন্তানের প্রশংসা করতে থাকেন তবে সে হয়তো এটি একটি বড় কিছু হিসাবে মনে করবে না । কিন্তু আপনি যদি সত্যি অর্থে তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন, তবে সে সত্যিই অর্জনের অনুভূতি অনুভব করবে । সে তার উপার্জন যাতে অনুভব করে তেমন করুন, এবং সে তবে প্রায়ই এটা করতে চাইবে । কিন্তু হেই, এটা জানুন – বেশি প্রশংসা এবং কম প্রশংসা উভয়েরই নিজস্ব পরিণতি আছে ।

৪) সহানুভূতি সম্পর্কে কথা বলুন

সহানুভূতি সহজই আসে

সহানুভূতি সহজই আসে; কাউকে সহানুভূতি জানাতে আপনার সন্তানকে ‘শেখানো’ দরকার নেই । সহানুভূতি হল এমন জিনিস যার উপর আপনার নজর রাখা আবশ্যক । কারও কারও বর্তমান পরিস্থিতির প্রতি শ্রদ্ধা বজায় রাখা এবং কাউকে দয়া করার মধ্যে এটি মৌলিক পার্থক্য । কিভাবে সহানুভূতিশীল হতে হয় তা তাকে শেখান । এমন প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করুন যা আপনার সন্তানের সহানুভূতি গড়ে তোলার জন্য সাহায্য করবে । বিশ্বের বাস্তবতার সাথে তার খুব ঘনিষ্ঠতা আনুন যাতে সে বুঝতে পারে যে এটি কেমন । সে যদি কিছু সম্পর্কে আবদার করে এবং বলে, ‘আমার যা চাই, তার কিছুই কি আমি কখনও পেতে পারি না’ এমন কিছু বলে, তাহলে এই বাস্তবতাটি ব্যবহার করুন যে সে কীভাবে সবচেয়ে বেশি ভাগ্যবান কাআরন তার কাছে যা থাকার দরকার তার থেকে বেশি আছে!

৫) উদারতাকে ‘হিরো’-এর গুণমানের মতো তুলে ধরুন

প্রতিটি সন্তানের একটি নায়ক আছে – এমন কোন কাল্পনিক চরিত্র, যাকে সে দেখে । আচ্ছা, তাকে বলুন যে সেও একজন হিরো হতে পারে, কোন সুপারপাওয়ার ছাড়া, শ্বাসের মাধ্যমে আগুন ফেলা বা খারাপ লোকেদের সাথে যুদ্ধ করা ছাড়াও । সে একজন হিরো হতে পারেন যে সদয় এবং সহানুভূতিশীল । নিশ্চিত করুন যে আপনি তাকে এমন ব্যক্তিদের যথেষ্ট উদাহরণ দিন যে দয়াবান এবং প্রায়ই অন্যদের সাহায্য করে । তাকে তেমন মানুষদের দিকে দেখতে এবং তাদের পদাঙ্ক অনুসরণ করতে উৎসাহিত করুন । সাহায্যের আচরণকে অনুপ্রাণিত করুন । যখন সে আপনাকে কোন উদার কিছুর কথা বলে যেটা সে করেছে বা করতে যাচ্ছে, তাকে আটকাবেন না ।

৬) একত্রে স্বেচ্ছাসেবক হোন

পরিবেশের জন্য কাজ করা বা আশপাশটা পরিস্কার করা নিশ্চিত করুন

কম ভাগ্যবানদের সাহায্য করার পক্ষে কাজ করে এমন যথেষ্ট সংস্থান আছে । আপনি স্বেচ্ছাসেবী হওয়া এবং এমন একটি প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগ দেওয়া নিশ্চিত করুন । খাদ্য পরিবেশন করা, বা পরিবেশের জন্য কাজ করা বা আশপাশটা পরিস্কার করা নিশ্চিত করুন, অন্তত একটি স্বতঃস্ফূর্ত কর্ম সম্পাদন করার জন্য আপনার সন্তানের সাথে জড়িত থাকুন । এটি তার প্রাথমিক অভিজ্ঞতা এবং দায়িত্বের একটি ধারনা দিতে পারে । একজন সাধারণ কারণে অজানা ব্যক্তিদের সাথে কাজ করার ফলে অন্যদের সাহায্য করার সাথে সাথে তার ইতিবাচক মনোভাবের সত্যিকারের আত্মবিশ্বাসকে দেখাতে সহায়তা করবে ।

৭) একটি পোষা প্রাণী নিন

একটি গবেষণা দেখায় যে একটি পোষা প্রাণী থাকা শিশুদের দয়ালু এবং সহানুভূতিশীল করে তোলে । একটি পোষা প্রাণীর যত্ন নেওয়া একজন বাচ্চাকে সমবেদনাশীল করে তোলে এবং তার দায়িত্বের একটি ধারনা দেয় । সে পশুর যত্ন নেওয়ার দায়িত্ব নেবে, এবং এটি, তারপরে, তাকে দয়ালু এবং সমবেদনাশিল করে তুলবে । যতদিন পর্যন্ত এটি তাকে নিজেকে দায়িত্বশীল মনে করাইয় ততদিন পর্যন্ত আপনি আপনার বাচ্চাকে কুকুরের ছানা বা এমনকি হ্যামস্টার উপহার দিতে পারেন । যারা পোষা প্রাণীদের সাথে বড় হয়ে উঠছে তারা সুখী এবং অন্যদের চেয়ে বেশি সমবেদনাপূর্ণ হতে পারে!

৮) একটি ইতিবাচক মনোভাব গ্রহণ করুন

ইতিবাচক মনোভাব গ্রহণ করুন

আমরা এতই ব্যস্ত যে আমরা ইতিবাচকতা, সুখ এবং উদারতা যে ঘনিষ্ঠভাবে সংযুক্ত তা বুঝতে পারি না । আপনি যদি আপনার সন্তানকে কৃতজ্ঞতাপূর্ণ দেখতে চান তবে আপনার দৈনন্দিন কর্মকাণ্ডে এটি আনতে হবে এবং ইতিবাচক মনোভাব গ্রহণ করাই হল একমাত্র ধাপ! বাড়িতে একটি ‘ অর্ধ গ্লাসপূর্ণ’ পরিবেশ তৈরি করুন । আপনার সন্তানকে থামাতে এবং আকাশের দিকে দেখার জন্য উত্সাহিত করুন, পাখিদের ডাক, গোলাপের গন্ধ, ঘাসে খালি পায়ে হাঁটতে এবং এমন আরও কিছু করতে উৎসাহিত করুন । এর মাধ্যমে আপনি আপনার সন্তানকে প্রকৃতির এক ধাপ কাছাকাছি আনতে পারেন, যা তাকে জীবনের অনেক কিছুতে কৃতজ্ঞ হতে শেখাবে ।

৯) আরো ঘন ঘন প্রার্থনা করুন

প্রার্থনা আপনার সন্তানকে নম্র করবে । সে উপলব্ধি করতে পারবে যে সেখানে এমন এক শক্তি রয়েছে যা তার কল্পনার থেকে অনেক বড় । যাইহোক, আপনার সন্তানের উপর এই বিষয়ে জোর করা উচিত নয়, এবং তাকে অন্ধের মতো অনুসরণ করতে দেবেন না । প্রক্রিয়ার সময় তার গাইড হয়ে উঠুন । এটা ইতিবাচকতার সঙ্গে সংযুক্ত । প্রার্থনা তাকে সুখী শেষ সসময়কে বিশ্বাস করতে সাহায্য করবে । এটা তাকে কৃতজ্ঞ হতে সাহায্য করবে এবং অবশেষে, তার হৃদয় মধ্যে উদারতা আনবে ।

“এই বিশ্বের যা প্রয়োজন তা হল একটি নতুন ধরনের সেনাবাহিনী – দয়ালুদের সেনাবাহিনী ।” – ক্লেভল্যান্ড আমোরে । যখন সন্তানরা উদারতাপূর্ণ একটি কাজ সম্পাদনের জন্য পদক্ষেপ নেয়, তখন আপনি তাদের সম্পূর্ণরূপে অন্তর থেকে উত্সাহিত করতে পারেন না কারণ মানুষজন আর বিশ্বাসযোগ্য নয় । আমরা ভয় করি যে তাদের সর্বোত্তম উদ্দেশ্য সত্ত্বেও আমাদের সন্তানরা (শারীরিক বা মানসিকভাবে) আঘাত পেতে পারে । কিন্তু এটা পরিবর্তন করার সময় । ভেবে দেখুন সেই আনন্দটা যেটা আপনি তখন অনুভব করেন যখন কোন অচেনা ব্যক্তি আপনার দিকে কোন উদারতাপূর্ণ কোন কাজ সঞ্চালিত করেন । আচ্ছা, সেই অপরিচিত ব্যক্তি আপনার ছোট্ট মেয়েও হতে পারে; সে সর্বত্র আনন্দ ছড়াচ্ছে ।