গর্ভবতী হতে কত সময় লাগে?

গর্ভবতী হতে কত সময় লাগে

যখন আপনি গর্ভধারণের চেষ্টা করছেন তখন আপনি গর্ভবতী কিনা বা আপনি গর্ভবতী হয়ে উঠতে পারেন কিনা তা না জানা উদ্বেগের কারণ হয়, এটি গুরুতর মনস্তত্ত্বিক ও মানসিক সমস্যাগুলির সৃষ্টি করে, বন্ধ্যাত্ব কোন সম্পর্কের উপর বিশাল চাপ সৃষ্টি করে । গর্ভাবস্থা সম্পর্কে শেখা, গর্ভবতী হওয়ার জন্য কত সময় লাগতে পারে এবং বন্ধ্যাত্বকে বোঝায় এমন লক্ষণগুলি কিভাবে জানা যায় এবং বোঝা বয়ে নিয়ে যাওয়া খুব কঠিন হয়ে যাওয়ার তার সম্ভাব্য নিরাময় করা । সর্বদা মনে রাখবেন যে গর্ভধারণ করতে সক্ষম না হওয়ার মানে সব কিছু শেষ হয়ে যাওয়া নয় । দত্তক নেওয়ার, সারোগেটের এবং এমনকি আইভিএফ চিকিৎসার বিকল্প সবসময়ই রয়েছে যা আপনার প্রজনন উর্বরতার সম্ভাবনাকে উন্নত করার চেষ্টা করে ।

aniview

প্রজনন সমস্যা কতটা সাধারণ বা প্রচলিত?

বিশ্বজুড়ে অনেক দম্পতির জন্য বন্ধ্যাত্ব একটি সাধারণ সমস্যা, এটি পলিপস, জন্মগত ত্রুটি, ক্ষত, এবং ফাইব্রয়েডের মতো অনেক সমস্যাত কারণে হতে পারে । সিডিসি দ্বারা করা পরিসংখ্যানে দেখানো হয়েছে যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৬% থেকে ১২% মহিলাদের মধ্যে বন্ধ্যাত্বের সমস্যা রয়েছে । কিছু গবেষণায় দেখা হয়েছে যে বিশ্বব্যাপী দম্পতিদের মধ্যে এর সংখ্যা প্রায় ১৫%-এর কাছাকাছি থাকতে পারে ।

গর্ভধারণ করতে কত সময় লাগিতে পারে?

লোকেরা প্রায়শই জিজ্ঞেস করে গর্ভধারণ করতে কতদিন সময় লাগতে পারে? শিশুকে ধারণ করার সময়টি দম্পতির শরীরের ওজন, মানসিক স্বাস্থ্য, খাদ্য, যৌন মিলনের ফ্রিকোয়েন্সি এবং অন্যান্য জিনিসের উপর নির্ভর করে । এই কারণে কিছু দম্পতি প্রথম চেষ্টাতেই ধারণ করতে পারে এবং অন্যরা প্রায় দুই বছর সময় নিতে পারে ।

১) যৌন সঙ্গমের পর গর্ভবতী হতে কতক্ষণ সময় লাগে?

বেশিরভাগ দম্পতি এক বছরের মধ্যেই গর্ভবতী হয়ে ওঠে যদিও বেশ কয়েকজন দম্পতির জন্য এতে দুই বছর পর্যন্ত সময় লাগা অসম্ভব নয় । এই জন্য অনেক বিচার্য ধ্রুবক আছে এবং এতে আপনার বয়স ও শুক্রাণুর স্বাস্থ্যও অন্তর্ভুক্ত । কিছু দম্পতির উচ্চ মাসিক প্রজনন উর্বরতা আছে এবং তাদের দ্রুত গর্ভবতী হওয়ার একটি উচ্চ সম্ভাবনা আছে ।

২) ডেপোর পরে একটি শিশুর ধারণ করতে কত সময় লাগে?

ডেপো মহিলাদের দ্বারা ব্যবহৃত ইনজেকশনযোগ্য গর্ভনিরোধক ব্যবস্থার একটি প্রকার এবং ৯৯ শতাংশ সাফল্যের হার আছে । যেহেতু প্রতি ৩ মাসে এর শট প্রয়োজন হয়, এর প্রভাব সাধারণত একই সময়ের গণ্ডির মধ্যেই থাকে । যাইহোক, এর জন্য মহিলারা এক বছরের বেশি সময়ের জন্য গর্ভধারণ করতে অক্ষম হতে পারে বলে জানা গেছে, যার কারণটি অজানা ।

পরিসংখ্যান কি বলে?

যখন এটি প্রজনন এবং গর্ভধারণের কথা আসে তখন ইন্টারনেটে অনেকগুলি পরিসংখ্যান পাওয়া যায় । এখানে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি দেওয়া হল ।

প্রজনন এবং গর্ভধারণ সম্পর্কে ইন্টারনেটে অনেকগুলি পরিসংখ্যান পাওয়া যায়

  • প্রতি আট-এর মধ্যে এক দম্পতি একটি গর্ভধারণ পেতে বা বজায় রাখতে কষ্ট পায় ।
  • ৯% নারী তাদের জীবদ্দশায় কোন প্রজনন পরিষেবা বা চিকিত্সা পছন্দ করে না ।
  • এক তৃতীয়াংশ বন্ধ্যাত্বের ক্ষেত্রে মহিলা অংশীদার, পুরুষ অংশীদার এক তৃতীয়াংশ এবং বাকি এক তৃতীয়াংশটি উভয় অংশীদারকে দায়ী করা হয় বা অজানা রয়ে গেছে ।
  • ২০% দম্পতি চেষ্টা করার প্রথম মাসের মধ্যে গর্ভধারণ করতে পারে । ৭২% প্রথম ৬ মাসের মধ্যে গর্ভধারণ করতে পারে । ৮৪% এক বছরের মধ্যে গর্ভধারণ করতে পারে, সেখানে ৯২% দুই বছরের মধ্যে ধারণ করতে পারে ।
  • ৯% পুরুষ তাদের সমগ্র জীবনকালের মধ্যে বাচ্চার জন্য পরামর্শ বা চিকিত্সা বা পরীক্ষা চান ।

কেন গর্ভবতী হতে দীর্ঘ সময় লাগে?

একটি দম্পতির গর্ভাবস্থা বিলম্বিত করার জন্য অনেক কারণ আছে । কারণ মহিলা বা পুরুষ সঙ্গী যে কেউ হতে পারে । নিম্নলিখিত কারণগুলিতে মহিলা সঙ্গীকে দায়ী করা হয়:

  • পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিন্ড্রোম (পিসিওএস): এটি একটি শর্ত যেখানে প্রসারিত ডিম্বাশয়গুলির পাশাপাশি সিস্ট-এর বিকাশ ঘটে । এই অবস্থায় মহিলাদের এন্ড্রোজেনের উচ্চ মাত্রা তৈরি হয় যা শরীরের সুস্থ ডিম্বাণু উৎপাদনের ক্ষমতায় হস্তক্ষেপ করে ।
  • ডিমিনিশড ওভারিইয়ান রিজার্ভ (ডিওআর): ডিমগুলির রিজার্ভ কিছু নারীদের ক্ষেত্রে অন্যদের চেয়ে দ্রুততর হ্রাস পায় এবং ধারণ করা কঠিন করে তোলে ।
  • হাইপোথালামাস বা পিটুইটারি গ্রন্থির অনুপযুক্ত কাজ । এই গ্রন্থি গর্ভধারণ করার জন্য সর্বোত্তম শর্তের জন্য দায়ী ।
  • প্রিম্যাচিয়োর ওভারিয়ান ইনসাফিসিয়েন্সি (POI): ৪০ বছর বয়স হওয়ার আগে কিছু মহিলার ডিম্বাশয় ব্যর্থ হয় । এই অবস্থাটি প্রাথমিক মেনোপজ হিসাবে পরিচিত ।

বিলম্বিত গর্ভধারণের বিষয়ে নিম্নলিখিত অংশগুলিতে পুরুষ অংশীদারকে দায়ী করা হয়েছে:

  • ভ্যারিকোসিল বা শুক্রনালীর শিরাতে টিউমার: এটি এমন অবস্থা যেখানে শুক্রাশয় তাদের বৃহত আকার কারণে অত্যধিক গরম হয়ে যায় যা শুক্রাণুর উৎপাদন সংখ্যা এবং স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে ।

ভ্যারিকোসিল বা শুক্রনালীর শিরাতে টিউমার

  • শুক্রাশয়ে ট্রমা শুক্রাণুর সংখ্যা হ্রাস করতে পারে ।
  • কিছু ওষুধ এবং / অথবা সম্পূরক যেমন হৃদরোগের ওষুধ, স্টেরয়েড এবং অ্যান্টিডিপ্রেসেন্টস পুরুষদের মধ্যে শুক্রাণুর গণনা কমাতে পারে ।
  • ক্যান্সারের চিকিত্সা শুক্রাশয়ের স্বাস্থ্যকর শুক্রাণু উত্পাদন ক্ষমতাকে প্রভাবিত করতে পারে ।
  • হাইপোথালামাস বা পিটিউটিরি গ্রন্থির অনুপযুক্ত কাজ যা হরমোনের উৎপাদনের জন্য দায়ী যা শুক্রাণুকে সুস্থ ও কার্যকর করে তোলে তা নিশ্চিত করে ।
  • পুরুষ প্রজনন সিস্টেমের মধ্যে ছোট বা বড় টিউমার ।
  • আগে থেকেই বিদ্যমান জেনেটিক অবস্থাও পুরুষের বন্ধ্যাত্বের একটি কারণ হতে পারে ।

বয়স কিভাবে গর্ভাবস্থাকে প্রভাবিত করতে পারে?

অনেক নারী এখন সফল পেশাগত জীবনযাপন, আর্থিক কারণে এবং সুস্থ সম্পর্ক গড়ে তোলার মতো অনেক কারণে পরবর্তী জীবনে সন্তান জন্ম দেওয়া বেছে নিতে পছন্দ করে । যাইহোক, ৩৫ বছর বয়সের পর নারীদের সন্তান হওয়ার সম্ভাবনা হ্রাস পায় । এটি কেন ঘটে তার কারণগুলি নিচে দেওয়া হল:

  • গর্ভাশয় তার ডিম্বাণু মুক্ত করার ক্ষমতা হারাতে থাকে ।
  • কম সংখ্যক ডিম্বাণু প্রাপ্ত হয় ।
  • ডিম্বাণুর স্বাস্থ্যে আপোস করা হয় ।
  • এই বয়সে অন্যান্য স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সমস্যার সম্ভাবনা বেশি থাকে ।

প্রজনন চিকিত্সা

আপনার ডাক্তার উভয় অংশীদারদের মধ্যে বন্ধ্যাত্ব চিকিত্সার সুপারিশ করবে এমন অনেক উপায় আছে । হরমোনগুলিকে নিয়ন্ত্রিন করতে ওষুধগুলির সমন্বয়, যে কোন পূর্ব-বিদ্যমান অবস্থার সংশোধন করার পদ্ধতি এবং প্রজনন সক্ষম করার জন্য জীবনধারা পরিবর্তনগুলি আপনার ডাক্তার অনুসরন করতে বলবেন ।

ডাক্তার উভয় অংশীদারদের মধ্যে বন্ধ্যাত্ব চিকিত্সার সুপারিশ করবে

আপনাকে অবশ্যই আপনার ডাক্তারের সাথে এই আলোচনা করতে হবে এবং উপলব্ধ বিভিন্ন বিকল্পগুলি অন্বেষণ করতে এবং আপনার ও আপনার অংশীদারের উভয়ের জন্য যথাযথ প্রয়োজন এমন একটি পরিকল্পনা চয়ন করুন । জীবনধারার পরিবর্তন করা আপনার কাছে বেশ কঠিন মনে হতে পারে ।

গর্ভবতী হতে আপনার সম্ভাবনা উন্নত করার টিপস

যখন আপনি একটি শিশুর গর্ভধারণ করার চেষ্টা করছেন তখন এমন অনেক টিপস রয়েছে যেগুলিতে বেশিরভাগ প্রজনন বিশেষজ্ঞরা একমত হবেন । তাদের মধ্যে এগুলি অন্তর্ভুক্ত:

  • সপ্তাহে কমপক্ষে ২ থেকে ৩ বার, নিয়মিত অসুরক্ষিত যৌনসঙ্গম করা ।
  • যখন আপনার ডিম্বস্ফোটন হয় তখন আপনি যৌনসঙ্গম করছেন তা নিশ্চিত করার জন্য আপনার মাসিক চক্রের ট্র্যাক রাখুন ।
  • আপনার এবং আপনার সঙ্গীর স্ট্রেস-ফ্রি বা চাপমুক্ত থাকা গর্ভবতী হওয়ার চাবিকাঠি হতে পারে কারণ স্ট্রেস বা চাপ মহিলাদের মধ্যে ডিম্বস্ফোটনের চক্রকে প্রভাবিত করে এবং পুরুষের টেসটোস্টেরনের মাত্রাকে নিম্নমুখী করে দেয় ।

গর্ভধারণ করায় অবদান রাখে এমন অনেকগুলি কারণ রয়েছে ধৈর্যশীল থাকা এবং স্ট্রেস-মুক্ত বা চাপমুক্ত থাকা আপনার প্রচেষ্টার মূল অংশ । সমস্যাটির দিক নির্দেশনার জন্য আপনি ভাল প্রজনন বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করুন এবং এখন উপলব্ধ বিভিন্ন বিকল্পগুলি অন্বেষণ করুন ।