বাচ্চাদের কানের ব্যথা – কারণ, লক্ষণ এবং প্রতিকার

বাচ্চাদের কানের ব্যথা

বাচ্চাদের মধ্যে কানের ব্যথা খুব সাধারণ এবং এটি সাধারণত আপনার বাচ্চার কানের সংক্রমণের ইঙ্গিত দিতে পারে। কানের ব্যথা সাধারণত বাচ্চার কানের মাঝের বা বাইরের অংশের উপর প্রভাব ফেলে এবং বিভিন্ন কারণে এটি হতে পারে। আপনার বাচ্চার যে কোনও অসুস্থতার চিকিৎসার জন্য সর্বদা বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়ার উচিত, তবে কিছু ঘরোয়া প্রতিকার বাচ্চাদের কানের ব্যথার লক্ষণগুলি হ্রাস করতে সহায়তা করে।

aniview

বাচ্চাদের মধ্যে কানের ব্যথার কারণগুলি

বাচ্চাদের মধ্যে কানের ব্যথা বা কানের সংক্রমণ হতে পারে এমন কয়েকটি কারণ এখানে রয়েছে:

১. বাইরের কারণ

ছোট বাচ্চারা সাধারণত তাদের মুখ, নাক এবং এমনকি কানের অভ্যন্তরে বিভিন্ন ছোট ছোট জিনিস ঢোকায়। সুতরাং, যখন কোনও বাইরের জিনিস দুর্ঘটনাক্রমে বা ইচ্ছাকৃতভাবে কানে প্রবেশ করানো হয় তখন এটি কানের ব্যথার কারণ হতে পারে।

২. কানের খোল জমা

কখনও কখনও যখন আপনার দেহ খুব বেশি কানের খোলা বা ময়লা তৈরি করে বা আপনার বিদ্যমান কানের ময়লা কানের খালের গভীরে খুব বেশি ধাক্কা দেয়, আপনি কানের ব্যথা অনুভব করতে পারেন। এমনকি আপনি গুঞ্জন বা রিং বেজে ওঠার শব্দ শুনতে পারেন, আপনার কানটি পূর্ণ অনুভূত হতে পারে এবং কানের তীব্র ব্যথা অনুভব করতে পারেন।

৩.সাইনাস বা সাইনোসাইটিসের সংক্রমণ

আপনার সাইনাস বা নাকের পথ যখন স্ফীত হয়ে যায় তখন আপনার সংক্রমণ হতে পারে। সাইনাসাইটিসে মিউকাস তৈরি করা খুব সাধারণ এবং এটি ব্যাকটিরিয়া বা ভাইরাল সংক্রমণের কারণ হতে পারে। এ জাতীয় সংক্রমণে কানের তীব্র ব্যথা হতে পারে।

৪. মধ্য কানে সংক্রমণ

ভাইরাল বা ব্যাকটিরিয়া সংক্রমণের কারণে আপনার বাচ্চার কানের মাঝের অংশটি সংক্রামিত হলে এটি প্রচণ্ড ব্যথার কারণ হতে পারে। বাচ্চাদের মধ্যে এটি খুব সাধারণ।

৫. ঠান্ডা লাগা এবং কাশি

সর্দিজনিত কারণে বাচ্চাদের মধ্যে কানের ব্যথা হওয়াও খুব সাধারণ। সাধারণত যখন কোনও বাচ্চা দীর্ঘস্থায়ী থান্ডায় ভোগে বা ঘন ঘন সর্দি বা কাশি হয় তখন এটা হয়।

৬. কানের চাপ পরিবর্তন

কানের চাপে পরিবর্তনেরও কারণে আপনার বাচ্চা কানের ব্যথা অনুভব করতে পারে। এটি উচ্চ উচ্চতার কারণে ঘটে, যেমন আপনার বাচ্চা বিমানে ভ্রমণ করে। এটি বিমানের কারণে কানের ব্যথা নামেও পরিচিত।

৭. কানের সংক্রমণ

যদি আপনার বাচ্চার কানের দীর্ঘস্থায়ী সংক্রমণ ঘটে তবে সে তীব্র কানের ব্যথা অনুভব করতে পারে।

বাচ্চা কানের ব্যথার লক্ষণ ও উপসর্গ

আপনার সন্তানের নিম্নলিখিত লক্ষণ এবং উপসর্গগুলির মাধ্যমে আপনি কানের ব্যথা সনাক্ত করতে পারেন:

  • আপনার বাচ্চার শুনতে অসুবিধা হতে পারে।
  • আপনার বাচ্চা শুয়ে থাকা, কিছু চোষা বা চিবানোর সময় কানের ব্যথা অনুভব করতে পারে।
  • আপনার বাচ্চা স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি তার কান টানতে বা ঘষতে পারে।

বাচ্চা কানের ব্যথার লক্ষণ ও উপসর্গ

  • আপনার বাচ্চার জ্বর, বমি বমি ভাব বা মাথা ব্যথা হতে পারে।
  • আপনার বাচ্চার কান থেকে তরল বের হতে পারে।
  • আপনার পুচকেটি ঘ্যানঘ্যানে আচরণ করতে পারে।

যদি উপরে বর্ণিত কোনও লক্ষণ লক্ষ্য করা যায়, তবে আপনি ব্যথা প্রশমিত করার জন্য বিভিন্ন ঘরোয়া প্রতিকারের চেষ্টা করতে পারেন।

বাচ্চা কানের ব্যথার ঘরোয়া প্রতিকার

আপনার বাচ্চার কানের ব্যথা কমাতে আপনি বেছে নিতে পারেন এমন কয়েকটি ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে এখানে:

১. গরম এবং ঠান্ডা কমপ্রেস

আপনি আপনার সন্তানের কানের ব্যথা প্রশমিত করতে একটি হিটিং প্যাড বা একটি আইস প্যাক ব্যবহার করতে পারেন। গরম এবং ঠান্ডা চাপ বা কমপ্রেস বাচ্চাদের জন্য খুব নিরাপদ। ব্যথা উপশমের সর্বোত্তম উপায় হল প্রায় ১০ মিনিটের ব্যবধানের সাথে কম্প্রেসের এই দুই পদ্ধতিগুলি ব্যবহার করা। তবে, যদি আপনার পুচকেটি উভয়ই সংকোচনে অস্বস্তিকর হয় তবে আপনি তাকে সে যেটিতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে তা ব্যবহার করতে পারেন।

২. ব্যথা-নিরাময়ের ওষুধগুলি

বাজারে আইবুপ্রোফেনের মতো প্রচুর ওভার-দ্য কাউন্টার ব্যথা-উপশমের ওষুধ পাওয়া যায়। ব্যথা থেকে মুক্তি দেওয়ার জন্য আপনি এ জাতীয় ব্যথা-নিরাময়কারী ওষুধ দিতে পারেন তবে নির্ধারিত ডোজটি অতিক্রম করবেন না। তবে, আপনার ডাক্তারের পরামর্শের পরেই কোনও ওষুধ দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

৩. কানের ব্যথার জন্য চা-গাছের তেল

চা গাছের তেল বা টি-ট্রি অয়েল বাচ্চার জন্য কানের ব্যথার ত্রাণ সরবরাহে খুব কার্যকর। এই তেলটি অ্যান্টি-ফাঙ্গাল, অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং এন্টিসেপটিক বৈশিষ্ট্যযুক্ত। সংবেদনশীলতা নিয়ে উদ্বিগ্ন হলে আপনি এই তেলের সাথে কয়েক ফোঁটা অলিভ তেলও যুক্ত করতে পারেন।

৪. কিরোপ্রাকটিক সামঞ্জস্য

শুনতে যতটা অদ্ভুত লাগছে কিরোপ্রাকটিক সামঞ্জস্যতা ততটাই কানের ব্যথা থেকে মুক্তি দেওয়ার ক্ষেত্রেও কার্যকর। একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণায় দেখা গেছে যে কিরোপ্রাকটিক সামঞ্জস্য প্রাপ্ত ৯০ শতাংশেরও বেশি রোগী কান ব্যথা থেকে মুক্তি পান।

৫. ভেষজ কানের ড্রপস

ভেষজ বা প্রাকৃতিক চিকিৎসার কানের ড্রপগুলি যা আপনি সহজেই একটি প্রাকৃতিক চিকিৎসার স্টোর বা এমনকি অনলাইনে সংগ্রহ করতে পারেন, বাচ্চাদের কানের ব্যথার লক্ষণগুলি হ্রাস করতে খুব কার্যকর।

৬. অলিভ তেল ব্যবহার করুন

কয়েক শতাব্দী ধরে অলিভ অয়েল কানের ব্যথা উপশমের জন্য ব্যবহৃত হয়। এটি গরম করুন এবং সন্তানের আক্রান্ত কানে কয়েক ফোঁটা ঢেলে দিন। তেল খুব গরম যেন না হয় তা নিশ্চিত করুন। এমনকি আপনার সন্তানের কানে তেল দেওয়ার আগে আপনি আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে পারেন।

৭. ঘুমানোর অবস্থান

কিছু ঘুমের অবস্থান কানের ব্যথা কমাতে খুব কার্যকর। আক্রান্ত কানের উপর চাপ না দেওয়া এবং আপনার বাচ্চাকে অন্যদিকে পাশ ফিরে ঘুমানো উচিত। আপনি আপনার বাচ্চাকে মাথা উঁচু করে রেখে ঘুমাতে দিতেও পারেন, এবং এই অবস্থানটি পুঁজ বের করে দিতে সহায়তা করতে পারে।

৮. আদা ব্যবহার করুন

আদাতে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে এবং এটি কানের ব্যথা কমাতে খুব কার্যকর। আপনি আদার রস ব্যবহার করতে পারেন (আদা কুঁচি করা, চটকে নিয়ে রস বের করা এবং ছেঁকে দিয়ে যেটা পাওয়া যায়) বা কানের ব্যথা কমাতে আপনি তেলও ব্যবহার করতে পারেন, যে তেলে আদা গরম করা হয়েছে। আপনি আপনার বাচ্চার কানের বাইরের অংশে আদার রস বা তেল লাগাতে পারেন এবং এটি সরাসরি কানে ঢোকানো থেকে বিরত থাকতে পারেন।

৯. ঘাড়ের ব্যায়াম অনুশীলন করা

কানের চাপের কারণে যখন কানের ব্যথা হয় তখন ঘাড়ের ব্যায়াম করা চাপ কমাতে এবং সহজে ব্যথা কমাতে অত্যন্ত উপকারী হতে পারে। আপনি আপনার বাচ্চাকে সাধারণ ঘাড় ঘোরানোর অনুশীলন করতে সহায়তা করতে পারেন। ঘাড়ের ব্যায়াম করার সঠিক উপায় শিখতে কোনও বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করা ভাল ধারণা।

১০. হাইড্রোজেন পারক্সাইড ব্যবহার করুন

হাইড্রোজেন পারক্সাইড দীর্ঘদিন ধরে কানের ব্যথার জন্য কার্যকর ঘরোয়া উপায় হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। আপনি আপনার সন্তানের আক্রান্ত কানে কিছু ফোঁটা হাইড্রোজেন পারক্সাইড লাগাতে পারেন এবং কয়েক মিনিটের পরে বের করতে পারেন। ডিস্টিল্ড বা পরিষ্কার জলে কান পরিষ্কার করুন।

১১. কানের ব্যথার জন্য রসুন

রসুনের অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি ও অ্যান্টি-ফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে এবং তাই এটি কানের ব্যথায় চিকিৎসা করতে খুব কার্যকর। আপনি রসুনের কয়েকটি কোয়া কেটে অলিভ তেল বা তিলের তেলে ভিজিয়ে রাখতে পারেন। এই তেলটি ছাঁকুন এবং আক্রান্ত কানের খালে এই সংক্রামিত তেলের কয়েক ফোঁটা দিন।

কানের ব্যথার জন্য রসুন

১২. মন ভোলানো সাহায্য করে

আপনার বাচ্চা যখন কানের ব্যথার সাথে লড়াই করছে তখন সবচেয়ে ভাল একটি প্রতিকার হল একটি বিভ্রান্তি তৈরি করা। আপনি আপনার বাচ্চাকে একটি ভাল সিনেমা দেখাতে পারেন, তাকে একটি নতুন খেলনা উপহার দিতে পারেন বা কেবল তার প্রিয় স্ন্যাক তৈরি করতে পারেন।

কখন আপনার ঘরোয়া প্রতিকার ব্যবহার করা উচিত?

ঘরোয়া প্রতিকারের প্রতিকার কানের ব্যথার লক্ষণগুলি হ্রাস করতে খুব কার্যকর; তবে এগুলি কখন ব্যবহার করা উচিত তা জানা খুব গুরুত্বপূর্ণ। ডেন্টাল ক্যাভিটির কারণে হওয়া কান ব্যাথা ঘরোয়া প্রতিকারের সাথে ভাল হবে না। কানের ব্যথা যা একরকম ভাইরাল বা ব্যাকটেরিয়াল সংক্রমণের কারণে হয় তা ঘরোয়া প্রতিকার দ্বারা ভাল বা নিরাময় হতে পারে। কানের ব্যাথা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এক বা দুই সপ্তাহের মধ্যে ভাল হতে পারে। তবে যদি আপনার বাচ্চাটির বয়স দুই বছরের কম হয় তবে আপনার ডাক্তারের সাহায্য নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। এছাড়াও, যদি আপনার সন্তানের জ্বর হয় এবং এটি এক দিনের চেয়ে বেশি স্থায়ী হয় তবে অবিলম্বে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

বাচ্চার কানের ব্যথা প্রতিরোধ

  • ধারালো বস্তু বা সুতির কাপড় দিয়ে আপনার সন্তানের কান পরিষ্কার করা থেকে বিরত থাকুন।
  • আপনার বাচ্চাকে শুয়ে থাকা অবস্থায় খাওয়ানো থেকে বিরত থাকুন (বিশেষত বোতল দিয়ে)
  • আপনার বাচ্চা অন্যান্য বাচ্চাদের সাথে খেলতে বা বাইরে খেলার পরে তার হাত ধুয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করুন।
  • আপনার বাচ্চা যদি নিয়মিত সাঁতার কাটে তবে কানের প্লাগগুলি ব্যবহার করুন।
  • ঘন ঘন ঠাণ্ডা ও কাশিকে হালকা ভাবে নেবেন না।
  • আপনার বাচ্চা ফ্লু এবং পিভিসি শট পেয়েছে তা নিশ্চিত করুন, এটি মধ্য কানের সংক্রমণ হওয়ার সম্ভাবনা হ্রাস করতে পারে।

কখন ডাক্তার দেখাবেন?

  • কানের পিছনে লালভাব এবং ফোলাভাব থাকলে।
  • আপনার বাচ্চার একটি উচ্চ জ্বর থাকলে (১০৪ ডিগ্রি বা তারও বেশি)
  • কানে যদি কোনও বস্তু ঢোকানো হয়েছে তা জানতে পারলে।
  • আপনি বাচ্চাটি যদি সত্যিই অসুস্থ বোধ করে
  • আপনার বাচ্চাটির প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হলে।
  • রাতে আপনার সন্তানের কানের ব্যথা থাকে, ব্যথানাশক দেওয়ার পরেও কমে না।

কানের ব্যথা বাচ্চাদের মধ্যে সাধারণ এবং ঘরোয়া প্রতিকারের ব্যবস্থাগুলি ব্যবহার করে কার্যকরভাবে পরিচালনা করা যায়। তবে আপনার বাচ্চার লক্ষণগুলি উন্নত না হলে এবং আপনার ছোট্টটি দু’বছরের চেয়ে কম বয়সী হলে আপনাকে অবশ্যই একজন বাচ্চা বিশেষজ্ঞের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।