৩৯ সপ্তাহের গর্ভবতী: কি আশা করা যায়

৩৯ সপ্তাহের গর্ভবতী: কি আশা করা যায়

৩৯ সপ্তাহে, শিশু সম্পূর্ণরূপে বিকশিত এবং বিশ্বে পদক্ষেপ নিতে প্রস্তুত । এই সময়ের মধ্যে আপনার অস্বস্তি এবং যন্ত্রণার অভিজ্ঞতা হওয়া বেশ সাধারণ । আপনার শরীরের কিছু ছোটখাট কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন ঘটবে যেমন নিয়মিত সংকোচন যা আপনাকে প্রসবের জন্য প্রস্তুত করবে ।

aniview

গর্ভাবস্থায় আপনার শিশুর বৃদ্ধি – ৩৯ সপ্তাহ

গর্ভাবস্থার ৩৯তম সপ্তাহের মধ্যে শিশুটি তার জন্মের আকার ও ওজনে পৌঁছে যাবে । এই শিশুকে এখন পূর্ণকালীন ভ্রূণ হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে । এই সপ্তাহের মধ্যে আপনার শিশু যে পদক্ষেপগুলি তৈরি করছে তা এখানে দেওয়া হল:

শিশুর পর্যাপ্ত শরীরের চর্বি জমা হবে

  • এই পর্যায়ে, শিশুর মস্তিষ্ক এখনও দ্রুত উন্নয়নশীল । মস্তিষ্কের বিকাশের এই হারটি প্রথম তিন বছর ধরে চলবে ।
  • শিশুর পর্যাপ্ত শরীরের চর্বি জমা হবে যা তাকে জন্মের পরে উষ্ণ রাখতে সাহায্য করবে ।
  • এই সময়ে, পুষ্টি ও অ্যান্টিবডিগুলি মায়ের প্লেসেন্টা দ্বারা শিশুর কাছে সরবরাহ হওয়া অব্যাহত থাকে যা শিশুকে অসুস্থতার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সহায়তা করবে ।
  • ত্বকের বাইরের স্তরগুলি ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে শিশুর নতুন ত্বককে বাড়ায় ।

শিশুর আকার কি হবে

৩৯ সপ্তাহের গর্ভস্থ শিশুর আকার প্রায় ৩.১ থেকে ৩.৬ কিলোগ্রাম এবং মাথা থেকে পায়ের আঙুলের দৈর্ঘ্য প্রায় ১৯ ইঞ্চি থেকে ২১ ইঞ্চি হয় ।

সাধারণ শারীরিক পরিবর্তন

৩৯তম সপ্তাহটি আপনার গর্ভাবস্থার প্রায় শেষ দিক । গর্ভাবস্থার অভিজ্ঞতার এই দিনগুলি চূড়ান্ত কয়েক দিন হবে । ৩৯তম সপ্তাহে গর্ভাবস্থায় সাধারণ শারীরিক পরিবর্তনে, একটি ভারী গর্ভাশয় অন্তর্ভুক্ত যার ফলে আপনার অস্বস্তি হতে পারে ।

৩৯ সপ্তাহে গর্ভাবস্থার লক্ষণ

বেশিরভাগ লক্ষণগুলি হল প্রসবের লক্ষণ যা শীঘ্রই ঘটতে পারে। এইগুলি হল:

ব্রাক্সটোন হিক্স সংকোচন

প্রসবের এই ধরনের মিথ্যা সতর্কতা শরীরের সামনের দিকে শুরু হয়

  • এই সময়কালে, সমস্ত যত্ন নেওয়া সত্ত্বেও, গর্ভাশয়ের শক্ত শক্ত হয়ে যাওয়া বা খিঁচ ধরা প্রায়শই ঘটবে । প্রসবের এই ধরনের মিথ্যা সতর্কতা শরীরের সামনের দিকে শুরু হয় এবং অবস্থানের পরিবর্তনের ফলে উপশম হয়ে যায় । প্রকৃত প্রসব যন্ত্রণাটি গর্ভাশয়ের উপরের অংশে শুরু হয়, ক্রমশ ঘন ঘন এবং নিয়মিত ঘটে ।

পেলেভিক অঞ্চলে চাপ

  • এই চূড়ান্ত কয়েক দিনে, শিশুটি কমপক্ষে পেলভিসে নেমে আসতে পারে, যা আপনার দেহের নিম্নভাগে ধাক্কার ফলে অস্বস্তিকর ও ভারী অনুভূতি দেয় ।

উরুর সন্ধি এলাকায় বিদ্যুতের মতো সংবেদন অনুভূতি

  • শিশু নিম্ন অবস্থানে থাকার কারণে শিশুর দ্বারা যে কোনও আন্দোলন বিভিন্ন সংবেদনশীল স্নায়ুকে আঘাত করতে পারে । এই কারণে, আপনি পেলভিস অঞ্চলে একটি বিদ্যুৎ চমকানোর মতো ধারালো সংবেদন অনুভব করতে পারেন ।

পাখির মতো বাসার দিকে একটি বাধ্যতামূলক অনুভূতি

  • আপনাদের মধ্যে কয়েক জন হবু মায়েরা শিশুর জন্মের আগে ঘরটি পরিষ্কার করার তীব্র আকাঙ্ক্ষা হতে পারে ।

শ্লেষ্মা বা মিউকাস এবং / অথবা রক্ত নির্গমন

  • গর্ভাবস্থার ৩৯তম সপ্তাহে, আপনি একটি মিউকাস বা শ্লেষ্মা প্লাগ বিকাশ করতে পারে । এটি একটি পুরু স্রাব যা কিছু রক্তের সঙ্গে হতে পারে । যদিও কিছু লোক মনে করে এটি একটি চিহ্ন যে গর্ভবতী মহিলারা শীঘ্রই প্রসবের মধ্যে যাবেন, এই তত্ত্ব সমর্থন করার কোনো বিজ্ঞানসম্মত যুক্তি নেই ।

প্রসবের লক্ষন কি কি

প্রসবের লক্ষণগুলি জানা অপরিহার্য

শিশুর আগমন সম্পর্কে সচেতন থাকার শরীরের উপায় হসাবে কিছু লক্ষণ আছে । এই লক্ষণগুলি জানা অপরিহার্য, যদিও তা বোঝার পরে প্রসবে যাওয়ার বিষয়ে কোন চাপ নেই । সাধারণত, এই গর্ভাবস্থার লক্ষণগুলির বিভিন্ন ক্ষেত্রে ভিন্ন হয় এবং বেশ শক্তিশালী হবে ও এভাবে আপনার দ্বারা সহজেই স্বীকৃত হয় । আপনি যদি নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি অনুভব করেন তবে আপনার ধাত্রীবিদ্যাবিশরদ বা প্রসববিশারদকে ফোন করতে বা হাসপাতালে যেতে হবে:

জল ভাঙা

  • আপনি আপনার পা দিয়ে নিচের দিকে ধীর গতিতে জল গড়াতে অনুভব করতে পারেন । এর অর্থ হতে পারে যে আপনার অ্যামনিওটিক স্যাকটি ভেঙে গেছে এবং কয়েক ঘণ্টার মধ্যে প্রসবে প্রবেশের সম্ভাবনা বেশি ।

নিয়মিত সময়ের ঘন সংকোচন

  • আপনি যদি ঘন ঘন সংকোচন অনুভব করেন তবে আপনাকে এই সংকোচনের সময় এবং তাদের মধ্যে ব্যবধান হ্রাস হচ্ছে কিনা চেক করতে হবে । যদি এগুলি নিয়মিত হয় তবে এর অর্থ হল আপনি প্রসবের প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছেন । এটি যদিও অনিশ্চিত, এই পর্যায় কতক্ষণ স্থায়ী হবে । ৩৯তম সপ্তাহে, কিছু গর্ভবতী মহিলারা কোনো প্রসবের লক্ষণ অনুভব করেন না, যা ভালই ।

যদিও কিছু গর্ভবতী মহিলা সার্ভিক্সের প্রসারণ, ঘন ঘন সংকোচন ইত্যাদি সহ বিভিন্ন প্রসবের অনুভূতি উপসর্গগুলি ভোগ করেন, কিছু দিন বা এমনকি কয়েক সপ্তাহ আগেও, অনেকে কয়েক ঘন্টার মধ্যে ০ থেকে ১০ সেমি পর্যন্ত বিস্তৃত হয় ।

৩৯ সপ্তাহে প্রসবের প্ররোচনা

গর্ভাবস্থার এই সময়ে, আপনি হয়তো এমন প্রাকৃতিক পদ্ধতিগুলি জানতে চাইতে পারেন যাকে আপনি প্রসব প্ররোচিত করতে বাড়িতে চেষ্টা করতে পারেন । চেষ্টা করার জন্য কয়েকটি নিরাপদ পদ্ধতি রয়েছে:

হাঁটা

  • একটি দীর্ঘ হাঁটা কাজ করতে পারে । এই পদ্ধতির কোনো বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই, তবে বিশেষজ্ঞরা বিশ্বাস করেন যে মাধ্যাকর্ষণটি শিশুকে মায়ের সার্ভিক্সে ঠেলে দেওয়ার ক্ষেত্রে সহায়তা করে এবং এই চাপটি সার্ভিক্সকে প্রসারিত করবে ।

আকুপাংচার পদ্ধতি

  • এটিও একটি পদ্ধতি যার বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই । এই দীর্ঘ দিনের পুরোনো অভ্যাসটি রক্ত প্রবাহ নিয়ন্ত্রন করে বলে ধরা হয়, যার ফলে সার্ভিক্সের বিস্তারকে উত্তেজিত করে ।

যৌন সহবাস

  • বিশেষজ্ঞরা বিশ্বাস করে যে একটি প্রচণ্ড উত্তেজনা সম্মুখীন হওয়া প্রসবের সংকোচন শুরু করতে সাহায্য করতে পারে । এটি একবার চেষ্টা করলে আঘাত করবে না!

ডাক্তার আপনাকে কিছু পিটোসিন দিয়ে চিকিৎসার মাধ্যমে যেতে পরামর্শ দিতে পারেন । এর কারণগুলির মধ্যে গর্ভাবস্থা ডায়াবেটিস, বুকজ্বালা, প্রিক্লাম্পসিয়া, প্লাসেন্টাল সমস্যা এবং গর্ভাশয় সংক্রমণের মতো বিভিন্ন জটিলতা অন্তর্ভুক্ত । ডাক্তাররা গর্ভাবস্থার ৩৯তম সপ্তাহে গর্ভবতী এবং যমজ বহন করেন বা গর্ভবতী মহিলা যদি জল ভাঙার পরেও প্রসবে প্রবেশ না করেন এমন মহিলাকে মেডিক্যাল ইনডাকশন দেওয়ার সুপারিশ করেন ।

গর্ভাবস্থার ৩৯ সপ্তাহে পেটের অবস্থা

গর্ভাবস্থার ৩৯তম সপ্তাহে, আপনার পেটে শিশুর ক্রমাগত বৃদ্ধির কারণে ভিতরে প্রায় কোন স্থানই অবশিষ্ট থাকবে না । পেটের উপরের ত্বক সম্পূর্ণ প্রসারিত হবে । অস্বস্তি হ্রাস করার জন্য, বিড়ালের মতো শরীরকে প্রসারিত করা (হাত ও হাঁটু) পাশাপাশি পেলেভিস সংক্রান্ত ক্রিয়াকলাপগুলি করার পরামর্শ দেওয়া হয় ।

৩৯তম সপ্তাহে আল্ট্রাসাউন্ড

একটি আল্ট্রাসাউন্ড চেক-আপ সাধারণত স্বাভাবিক এবং নিরাপদ প্রসবের জন্য শিশুর সর্বোত্তম সম্ভাব্য অবস্থানে আছে কিনা তা নিশ্চিত করার জন্য সুপারিশ করা হয় । এটা হল সেই অবস্থা যখন শিশুর মাথা নিচে অবস্থান করে । এই সপ্তাহে, সোনোগ্রাফার শিশুর মুখের ৭৫% দৃশ্য দেখতে পাবে এবং শিশুর চোখের পাতা সাধারণত এতে দৃশ্যমান হবে ।

কি খেতে হবে?

৩৯তম সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় খাবারগুলি সেই জিনিসগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করে যা সহজেই হজম করা যায়

খাবার প্রসব প্ররোচিত করতে পারে, এর কোন বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই । ৩৯তম সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় খাবারগুলি সেই জিনিসগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করে যা সহজেই হজম করা যায় । ফ্যাটি খাবার, দুগ্ধজাত পণ্য, এবং মাংস থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয় ।

টিপস এবং যত্ন

এখানে এই সময়ের মধ্যে অনুসরণ করার জন্য কয়েক টিপস রয়েছে ।

করণীয়

  • পাচকতন্ত্র সহজে হজম করতে পারে এমন খাবার খান, যেহেতু অন্যথায় পাচকতন্ত্রের উপর অত্যাধিক চাপ পড়বে ।
  • হাসপাতালে আপনার পরিবহন ব্যবস্থা যেন খুব ভালো অবস্থায় থাকে এবং একটি মুহূর্তের নোটিশের জন্য প্রস্তুতি নিশ্চিত করুন ।

কী করা উচিত না

  • এই সময়কালে দুগ্ধজাত দ্রব্য, মাংস, এবং ফ্যাটি খাবার খাবেন না কারণ এটি পাচকতন্ত্রকে বারতি চাপ দেয় ।

দুগ্ধজাত দ্রব্য, মাংস, এবং ফ্যাটি খাবার খাবেন না

  • আপনাদের মধ্যে অনেকেই তারিখটি আসার আগে ‘নেস্টিং’ নামক একটি উপসর্গের অভিজ্ঞতা পেতে পারেন এবং নিজেদেরকে অতিরিক্ততর করে তুলবে । ঘরটি সুশোভিত করায় কোনও ভুল নেই, তবে নিশ্চিত হোন যে আপনি আপনার পরিবারের কাছ থেকে সাহায্য চাইবেন বা একজন পরিস্কার করে এমন ব্যক্তিকে ভাড়া করেন ।

আপনাকে কি কেনাকাটা করতে হবে

এখানে গর্ভাবস্থার ৩৯তম সপ্তাহের জন্য আপনি কি কি কেনাকাটা করতে পারেন এমন কিছু জিনিস হল:

শিশুর জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসগুলি কিনে রাখুন

  • স্তন-পাম্প
  • বাচ্চার ওয়াইপস
  • ডায়পার
  • স্তনের দুধের স্টোরেজ ব্যাগ

উপসংহার

নির্দিষ্ট তারিখের দিকে এগিয়ে যাওয়া কিছু উদ্বেগ সৃষ্টি করতে পারে এবং গর্ভাবস্থার শেষ কয়েক সপ্তাহ পরিচালনা করার জন্য কী কী আশা করা যায় তা পড়া হল প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহের সেরা উপায় । আপনার সন্তানের সাথে দেখা করার জন্য সময় প্রায় এসেই গেছে, তাই স্বচ্ছন্দে থাকুন এবং প্রস্তুত থাকুন ।