কিভাবে একটি দ্বিতীয় শিশুর জন্য পরিকল্পনা করবেন

দ্বিতীয় শিশুর জন্য পরিকল্পনা

আপনি একটি শিশু যত্ন নেওয়ার দিনে ফিরে যেতে আগ্রহী? আপনার দ্বিতীয় সন্তানের জন্য পরিকল্পনাটি বিভ্রান্তিকরভাবে সহজ হতে পারে, কারণ শিশুকে বর করার প্রক্রিয়া দিয়ে আপনি আগেই একবার গিয়েছেন। যাইহোক, আপনার জৈবিক ঘড়ি, আর্থিক অবস্থা এবং আপনার প্রথম সন্তানের মতো নতুন জটিলতাগুলি ছবিতে আসে। এখানে আমরা আপনার দ্বিতীয় শিশুর জন্য পরিকল্পনা করার সময় বিবেচনা করা বিষয়কে স্পর্শ করেছি।

aniview

কখন দ্বিতীয় সন্তান নেওয়ার শ্রেষ্ঠ সময়?

অনেক দম্পতির মধ্যে একটি দ্বিধা থাকে যে কখন দ্বিতীয় সন্তান নিতে হবে? এর জন্য কোনও সঠিক উত্তর নেই কারণ স্বাস্থ্য, আর্থিক অবস্থা এবং ব্যক্তিগত পছন্দগুলির মতো জড়িত অনেকগুলি কারণ রয়েছে। ৪০ বছর বয়সী মহিলারা যারা গর্ভবতী হয়ে উঠেছে এবং পরিবারে সামান্য সম্পদ নিয়েই সফলভাবে দুটি বাচ্চাকে বড় করেছে। নীচে ১১টি কারণ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে যা আপনাকে কখন গর্ভবতী হতে হবে তা নির্ধারণ করতে সহায়তা করবে। একবার এই কারণগুলি পূরণ হলে, এটি আপনার দ্বিতীয় শিশু নেওয়ার আদর্শ সময় হয়ে উঠবে।

একটি দ্বিতীয় গর্ভাবস্থার জন্য পরিকল্পনা করার সময় বিবেচ্য বিষয়

এখানে কয়েক পয়েন্ট যা বিবেচনা করতে হবে তা আলোচনা করা হল:

১) আপনার শারীরিক স্বাস্থ্য

গর্ভবতী হওয়া মানে আপনার শরীরের মধ্যে বড় পরিবর্তন ঘটছে এবং আপনার স্বাস্থ্য যদি এর জন্য একটি অনুকূল স্তরে থাকে তবেই তা হতে পারে। এমনকি যদি আপনার প্রথম গর্ভাবস্থা খুব বেশি আগে না হয়, আপনি যদি শারীরিকভাবে পুনরুদ্ধার করেন এবং ভাল স্বাস্থ্যে থাকেন, তবে আপনি দ্বিতীয় সন্তান পেতে পারেন।

২) আপনার বয়স

যেহেতু মহিলারা আরো বয়স্ক হয়ে ওঠে, তাদের মাসিক চক্র ও ডিম্বানু উৎপাদন পরিবর্তিত হতে শুরু করে। এর কারণ হল, মহিলারা সীমিত সংখ্যক ডিম্বানু নিয়ে জন্মায় যা অবশেষে শেষ হয়ে যাবে। বয়সের বৃদ্ধির সাথে, কমতে থাকা ডিম্বানুগুলির গুণমান গর্ভপাত বা জেনেটিক ত্রুটিগুলির সম্ভাবনা বাড়ায়।

৩) পিতার বয়স

একটি দ্বিতীয় সন্তানের পরিকল্পনা করার সময়, আপনার সঙ্গীর বয়স বিবেচনা করতে হয়। গবেষণায় দেখা গেছে যে ৩৫ বছর বয়সের পর পুরুষদের শুক্রাণু গুণমানের মধ্যে উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস দেখা যায়।

৪) লিঙ্গ

দ্বিতীয় সন্তান ছেলে হওয়ার আশা থাকলে বাবার বয়সও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে। পরিচালিত এক গবেষণায় দেখা গেছে যে এক্স ক্রোমোসোম বহনকারী শুক্রাণুগুলির কারণে বয়স্ক বাবার কন্যা সন্তান হতে পারে।

৫) আর্থিক অবস্থা

দ্বিতীয় সন্তানের পরিকল্পনায় আর্থিক অবস্থা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, কারণ খরচ দ্বিগুণ হবে। আপনি এবং আপনার সঙ্গী উভয়ই কাজ করছেন? উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে আপনার সন্তানকে পাঠানোর পরিকল্পনা করছেন? এই ধরনের প্রশ্ন আপনার আর্থিক পরিকল্পনার অগ্রিম ভাল চিন্তা করা প্রয়োজন।

৬) একটি পরিবার হিসাবে লক্ষ্য

একটি দ্বিতীয় সন্তানের উত্থাপন মানে আপনি এবং আপনার সঙ্গীকে একই পৃষ্ঠায় হতে হবে। আপনাদের উভয়ের মতামত ভিন্ন হতে পারে, এমন ঘটনাও হতে পারে। কেউ কিছু সময় অপেক্ষা করতে বা শিশু না নিতে চাইতে পারেন। আপনার লক্ষ্য কী এবং কীভাবে আপনারা উভয়ে আপোস করতে পারেন সে সম্পর্কে একে অপরের সাথে কথা বলুন।

৭) পেশা

আপনি আপনার নবজাতকের জন্য সময় দেবেন, তাই আপনার কর্মজীবন পিছনে চলে যেতে পারে।

৮) বয়সের ব্যবধান

দ্বিতীয় সন্তানের জন্য পরিকল্পনা করার সময়, আপনার প্রথম সন্তানের সাথে সমীকরণ করতে হবে। আপনি আপনার সন্তানদের খেলার সঙ্গী হতে দিতে চান? তবে একই বয়সীদের গ্রুপের হওয়ার জন্য অল্প ব্যবধান থাকা ভাল এবং ভালভাবেই চলবে।

৯) সাহায্যকারী হাত

যখন আপনি দ্বিতীয়বার গর্ভবতী হন, অতিরিক্ত সাহায্য গুরুত্বপূর্ণ হয়ে যায় কারণ আপনার প্রথম সন্তানের যত্ন নেওয়া দরকার। আপনার কি এমন একজন ব্যক্তি আছে যাকে আপনার সন্তানের জন্ম দেওয়ার সময় আপনি বিশ্বাস করতে পারেন? আপনার বাবা-মা কি কাছাকাছি বাস করেন যাতে তারা আপনাকে আপনার বাচ্চার সাথে সাহায্য করতে পারে?

১০) আবাসন

পরিবারের একটি নতুন সন্তান আসার মানে আপনার বাসস্থানের মধ্যে স্থান বৃদ্ধি করতে হবে । বাচ্চা বড় হলে বা বাচ্চাদের একটি রুমে রাখার প্রয়োজন হলে আপনাকে বড় বাড়িতে যেতে হবে।

১১) প্রসব

আপনার জ্যেষ্ঠটির জন্য যদি আপনার সিজারিয়ান সেকশন হয়ে থাকে, তবে মাঝে যদি দুই বছরের কম ব্যবধান থাকে তবে আপনাকে প্রক্রিয়াটি পুনরাবৃত্তি করতে হবে।

কিভাবে দ্বিতীয় সন্তানের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করবেন?

নীচে দ্বিতীয় গর্ভধারণ পরিকল্পনা জন্য কিছু টিপস রয়েছে:

১) একটি চেক আপ-এর জন্য যান

যখন আপনি এবং আপনার সঙ্গী সিদ্ধান্ত নেন যে এটি একটি দ্বিতীয় শিশুর জন্য সময়, আপনি রক্ত ​​পরীক্ষা সম্পন্ন করেছেন তা নিশ্চিত করুন। প্রারম্ভিকদের জন্য, যদি আপনি ইতিমধ্যে চেষ্টা করা শুরু করেন তবে রক্ত ​​পরীক্ষা গর্ভাবস্থাকে নিশ্চিত করতে সহায়তা করতে পারে। এছাড়া, এটি আপনার শরীরের লোহার পরীক্ষা করতে সহায়তা করে। গর্ভাবস্থায় বেশিরভাগ মহিলারা অত্যাধিক রক্তপাতের কারণ অ্যানিমিক হয়ে দাঁড়ায় এবং আপনার ও শিশুর বজায় রাখার জন্য প্রচুর পরিমাণে রক্তের প্রয়োজন হয়। রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে, আপনি আপনার লোহার পরিমান উন্নত করতে এবং শিশু অ্যানিমিয়া সম্পর্কিত জটিলতাগুলি এড়ানোর জন্য একটি ভাল পরিকল্পনা খুঁজে বের করতে পারেন।

২) আপনার মাসিক চক্র উপর নজর রাখুন

এমনকি যদি আপনি জন্ম নিয়ন্ত্রণ ব্যবহার না করেন তবে এর অর্থ এই নয় যে গর্ভাবস্থা কোণার কাছাকাছি। প্রথম শিশুর পরে, আপনার মাসিক চক্র সঙ্কুচিত হতে পারে। গর্ভাবস্থার জন্য সর্বোত্তম সময় নির্ধারণ করার জন্য আপনাকে আপনার ডিম্বস্ফোটনের দিনগুলি লেখার প্রয়োজন হবে। এটি ঠিক করতে কয়েক সপ্তাহ সময় লাগতে পারে তাই ধৈর্য ধরুন এবং চেষ্টা চালিয়ে যান!

৩) জিমে যান

আপনার প্রথম গর্ভাবস্থার পরে আগের শারীরিক আকৃতি ফিরে পাওয়া চ্যালেঞ্জিং কিন্তু অর্জনযোগ্য। বেশিরভাগ মায়ের কঠোর অনুশীলনের পরে তাদের পায়ের আগের অবস্থায় ফিরে যায় তবে আপনি যদি তাদের মধ্যে না হন তবে আপনাকে এখনই শুরু করতে হবে। ওজন বৃদ্ধি প্রজনন প্রতিরোধ করতে পারে এবং কখনও কখনও হরমোনের ভারসাম্যহীনতা সৃষ্টি করতে পারে, এটি আপনা ডিম্বস্ফোটন ট্র্যাক করা কঠিন করে তোলে।

৪) পুরুষ বন্ধ্যাত্ব সম্পর্কে পড়ুন

গর্ভাবস্থা একা একটি মহিলার কাজ নয়। আপনি এবং আপনার সঙ্গী দুজনেই পুরুষ প্রজনন ক্ষমতার নানান দিকের সঙ্গে পরিচিত হন তা নিশ্চিত করুন। ধূমপান, গাঁজা এবং অ্যালকোহল পানের মত অভ্যাস পুরুষদের মধ্যে শুক্রাণু গণনা গুরুতরভাবে কমাতে পারে। স্থূলতাকে পুরুষ বন্ধ্যাত্বের সাথে যুক্ত করা হয়েছে যার অর্থ আপনি এবং আপনার সঙ্গী উভয়ই জিমে যেতে পারেন।

৫) গর্ভবতী হওয়ার সেরা সময় বুঝুন

যদি আপনার বয়স ৩০-এর মধ্যে এবং আপনার প্রজনন ক্ষমতা প্রভাবিত হতে পারে বলে চিন্তিত হলে, আপনার যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আপনার দ্বিতীয় শিশু নেওয়ার কথা বুঝতে হবে। তবে, আপনার প্রথম সন্তানের কথা ভাবাও গুরুত্বপূর্ণ। অনেক দম্পতি তাদের দ্বিতীয় সন্তানের গর্ভধারণের আগে প্রায় তিন বছর অপেক্ষা করে, যেহেতু প্রথম সন্তানটি তখন থেকেই যথেষ্ট স্বাধীন হয়ে যায় এবং গর্ভাবস্থাকে প্রথম প্রাধান্য দেওয়া যেতে পারে।

৬) বিকল্পের জন্য সন্ধান করুন

আপনি অর্ধেক বছরেরও বেশি সময় ধরে গর্ভধারণ করার চেষ্টা করেও যদি দেওয়ালে পিঠ ঠিকে যায় তবে আইভিএফ বিশেষজ্ঞের দিকে তাকান। বাড়তে থাকা বয়স, স্বাস্থ্যগত সমস্যা, জীবনধারার পরিবর্তন ইত্যাদি কারণে প্রথমবারের মত বন্ধ্যাত্ব ঘটতে পারে।

দ্বিতীয় শিশুর জন্মের আগে প্রথমটিকে তার জন্য প্রস্তুত করুন

আপনার দ্বিতীয় শিশুর জন্মের আগে করার জিনিসগুলি – দ্রুত চেকলিস্ট

আপনি আপনার দ্বিতীয় শিশুর স্বাগত জানানোর জন্য আগাম পরিকল্পনা করুন। এখানে ইভেন্টের আগে আপনাকে অবশ্যই যা কিছু জিনিস করতে হবে, তার তালিকা রইল:

  • আপনার প্রথম সন্তানের যাতে অবহেলা না হয়, তাই প্রসব শ্রম ও প্রসবের সময় বেবিসিটারের ব্যবস্থা করুন। এই একটি সময় যখন আপনাদের উভয়কে পৃথক করা হবে এবং আরপনা বিশ্বস্ত অন্য কাউকে আপনার ভূমিকা নিতে হবে। সেই ব্যক্তি এমনকি আপনার স্বামী, পিতামাতা বা আপনার নিকটস্থ ঘনিষ্ঠ আত্মীয় হতে পারেন।
  • একটি শিশুকে বড় করা ব্যয়বহুল হতে পারে, তাই আপনি গর্ভবতী হওয়ার সময় যেন গত বারের থেকে যাওয়া সরবরাহগুলি ঠিক থাকে, যা কাজে লাগবে, তা খরচ কমাতে পারে। আপনার পুরানো গর্ভাবস্থার গাউন, শিশু কাপড় এবং বুটিজ। দাগ লাগা পুরানো শীট ধোয়া এবং পুনরায় ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • আপনি হাসপাতালে থাকতে যাচ্ছেন এবং আপনার প্রথমজাতের আপনার কাছাকাছি নাগালের মধ্যে নেই, তাদের জন্য একটি ব্যাগ প্যাক করুন। এতে তাদের প্রিয় খেলনা এবং কার্যকলাপের বইয়ের মতো আইটেম থাকতে পারে যা তারা হাসপাতালে আপনার সাথে দেখা করার সময় তাদের সাথে বহন করতে পারে।
  • প্রতিদিন অনুসরণ করার জন্য আপনার বাচ্চাদের জন্য একটি সময়সূচী সেট করুন। আপনার অনুপস্থিতিতে যে আপনার সন্তানের যত্ন নিতে যাচ্ছেন তার সঙ্গে এগুলির একটি অনুশীলন করুন। এইভাবে, যে কোন সন্দেহ উদ্বিগ্ন হয়ে হাসপাতালে একটি অসুবিধার ফোন কল পাওয়ার পরিবর্তে সেই ব্যক্তিকে স্পষ্ট করা যেতে পারে।
  • আপনার প্রথম শিশুর জন্য ছোট বিবরণ সহ একটি জার্নাল রাখুন। এটি এমন কার্টুন হতে পারে যা তাদের আনন্দ দেয়, এমন কার্যকলাপ যা তাদের আটকে রাখতে পারে, তাদের প্রিয় খাবার, ইত্যাদি। এটি বেবিসিটারের সাথে ভাগ করা যেতে পারে।
  • আপনার প্রথমজাত এখনও ছোট, আপনি সুবিধাজনক ভ্রমণের জন্য একটি ডবল স্ট্রোলারে বিনিয়োগ করতে পারেন।
  • ডায়পার, নার্সিং ব্রা, স্তনের পাম্প, শিশুর মনিটর ইত্যাদি শিশুর প্রয়োজনীয়তাগুলিতে স্টক আপ করুন।
  • আপনার সমস্ত ঘনিষ্ঠ বন্ধু এবং আত্মীয়দের সঙ্গে একটি সাধভক্ষণের অনুস্থান করুন। আপনি আপনার সাহায্য করতে পারেন এমন মানুষদের নিতে পারেন, সময় কাটানোর জন্য এটি একটি দুর্দান্ত সময়।
  • আপনি যাওয়ার আগে খাবারের ব্যবস্থা করে যান। এটি আগাম রান্না করার মাধ্যমে, আপনার লোকজনদের, বন্ধুদের নিয়োগ করা বা বাইরে থেকে রেডিমেড খাবার কিনে নেওয়া মাধ্যমে করা যেতে পারে। আপনি আপনার প্রথম সন্তানকে খুশি রাখতে তার প্রিয় খাবারগুলির স্টক আপ নিশ্চিত করুন।
  • ঘরের সেই অবস্থানের জন্য সন্ধান করুন যেখানে আপনি আপনার বাচ্চাকে রাখতে পারেন এবং দুটি ভাগে বিভক্ত করতে পারেন। প্রথম অঞ্চলটি এমন স্থান হতে পারে যেখানে আপনার প্রথমজাত তার ভাই বাবোনের কাছে পৌঁছাতে না পারে এবং তাদের ‘ভালোবাসতে’ পারে। দ্বিতীয় অঞ্চলটি এমন এলাকা হতে পারে যেখানে আপনার প্রথমজাত তার ভাই বা বোনের কাছে পৌঁছাতে পারে তবে শুধুমাত্র আপনার সতর্ক নজরদারিতে।
  • আপনার ওজন এবং নিয়মিত ব্যায়াম দ্বারা আপনি প্রাকৃতিক জন্মের জন্য প্রস্তুত হোন। কেগেল এবং পেলেভিক ব্যায়ামগুলি নিয়মিত করণীয় কারণ এটি শ্রম প্রক্রিয়াটিকে মসৃণ করতে সহায়তা করতে পারে।
  • একবার আপনি নিজের বাড়িতে নিয়ে এলে আপনার দ্বিতীয় সন্তানকে কোথায় রাখতে চান তা নির্ধারণ করুন। এর অর্থ হল তাদের বড় ভাইবোনদের সাথে বাঙ্কিং, অস্থায়ীভাবে আপনার রুমে সেট আপ করা বা একটি নতুন রুম দেওয়া।
  • ঘরবাড়ি পরিষ্কার ও গুছিয়ে রাখা স্বাভাবিকভাবে গর্ভবতী মহিলাদের কাছে আসে এবং তাকে ‘নেস্টিং’ বলা হয়। শিশুর সুরক্ষা দ্বারা এই সুবিধা নিন এবং আপনার দ্বিতীয় শিশুর জন্মের আগে বাড়ির সবকিছু ঠিক আছে তা নিশ্চিত করুন। একবার আপনি প্রসব থেকে ফিরে এলে, আপনার বাচ্চাদের এবং তাদের বিবিধ প্রয়জনের জন্য সময় পরিচালনা করতে হবে।
  • ওয়াইপস, ডায়পার, ক্রিম, ইত্যাদি সব প্রয়োজনীয়তা সঙ্গে একটি ডায়পার স্টেশন সেটআপ করুন।
  • আপনি যদি মনে করেন যে বুকের দুধ খাওয়ানো বেশ ক্লান্তিকর, আপনি একটি ওয়েট নার্স নিয়োগ করতে পারেন যাতে আপনি আপনার প্রথমজাতের সাথে সময় কাটাতে পারেন।

একজন নতুন ভাই/বোনের জন্য আপনার সন্তানকে প্রস্তুত করার টিপস

  • অবিলম্বে আপনার গর্ভাবস্থা সম্পর্কে আপনার বাচ্চাদের অবহিত করার কোন প্রয়োজন নেই। গর্ভাবস্থা এবং সন্তানের জন্মের মত ধারণাগুলি হ্যান্ডেল করার জটিল বিষয় এবং পরবর্তী পর্যায়ে প্রতিহত করা যেতে পারে।
  • ছোট বাচ্চাদের সময় সম্পর্কে একটি খারাপ ধারণা থাকে, এমনকি কয়েক মাস তাদের কাছে একটি অনন্তকাল হতে পারে এবং তারা প্রতিদিন নতুন আগমন সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করে আপনার মাথা খেতে পারে। তাদের শীঘ্রই আস্তে চলা ভাই/বোন সম্পর্কে তাদের বলার আগে একটু অপেক্ষা করুন।
  • বুকের দুধ খাওয়ানোর সময়, এমন একটি জায়গা বাছুন যেখানে আপনার বড় সন্তান আসতে পারে এবং আপনার পাশে বসতে পারে।
  • ভাগ করে নেওয়া এমন জিনিস যার সঙ্গে আপনার প্রথম সন্তান অভ্যস্থ নয় এবং একটি উপহার দেওয়ার অনুষ্ঠান তাদের এর জন্য প্রস্তুত করতে সহায়তা করবে।
  • বাচ্চাদের তাদের নিজে নিজে করতে পারা ছোট ক্রিয়াকলাপগুলির মাধ্যমে স্বাধীন করার জন্য কাজ করুন। এটি কেবল তাদেরকে বড় করেই তুলবে না বরং তারা আপনার নবজাতক শিশুর উপর মনোযোগ দেবে।
  • আপনার দ্বিতীয় সন্তানের জন্ম হওয়ার আগে, আপনার প্রথমজাতের সাথে খুব বেশি উদাসীন হওয়ার চেষ্টা করবেন না। কারণ শিশুর জন্মের পরে অবিলম্বে আপনার মনোযোগের পরিবর্তন আপনার প্রথমজাতটির মনে ঈর্ষা তৈরি করতে পারে।
  • আপনি ধীরে ধীরে তাদের পুতুলের যত্ন নিতে বলে আপনার বড়টির মধ্যে একটি যত্নশীল অভ্যাস নির্মাণ শুরু করতে পারেন।
  • শুধুমাত্র আপনি এবং আপনার বাচ্চা বুঝতে পারেন এমন একটি গোপন কোড তৈরি করুন। এইভাবে, যদি আপনার প্রথমজাতটি মন খারাপ করে বসে থাকে, তবে তার সঙ্গে সেই কোডে কথা বলে তাকে উৎসাহিত করতে পারেন। পরে, আপনি এমনকি আপনার দ্বিতীয় সন্তানকেও এটি শেখাতে পারে।
  • আপনার বাচ্চাদের জানতে সাহায্য করার জন্য স্মৃতিগুলির একটি স্ক্র্যাপবুক তৈরি করুন যেটা তাদের বুঝতে সাহায্য করবে যে তারা যখন ছোট ছিল, তখন তাদেরও বিশেষ যত্ন গ্রহণ করা হয়েছিল। এতে তাদের মনের ঈর্ষা বা বিরক্তির অনুভূতি হ্রাস পাবে।
  • সারাহ সুল্লিভানের ‘আই অ্যাম আ বিগ ব্রাদার’ এবং জোয়ানা কোলের ‘আই অ্যাম আ বিগ সিস্টার’-এর মতো বইগুলি ভাইবোনদের ধারণার সাথে তাদের পরিচয় দিতে সাহায্য করতে পারে। এই বইগুলি পড়ার মাধ্যমে ভাইবোনদের কীভাবে যত্ন নিতে হবে সে সম্পর্কে তাদের শিক্ষা দিতে সহায়তা করতে পারে। উপরন্তু, তারা গল্পগুলিকে এত ভালোবাসতে পারে যে তারা খুব শীঘ্রই তাদের নিজের ভাইবোনকে চাইতে পারে।

বড়টির মধ্যে একটি যত্নশীল অভ্যাস গড়ে তুলুনদ্বিতীয় শিশুর পরিকল্পনা গর্ভবতী অবস্থায় আপনার প্রথমজাত সন্তানের যত্ন নেওয়ার চ্যালেঞ্জগুলির উত্তর দিতে সহায়তা করে। দুটি বাচ্চাকে বড় করায় দ্বিগুণ চেষ্টার প্রয়োজন, তাই আপনার অ্যাকাউন্টে আপনার ভবিষ্যৎ-কে রাখতে হবে। যাইহোক, পুরষ্কারও দ্বিগুণ ভালো পাবেন এবং অনেক পরিবার একটির পরিবর্তে দুটি সন্তান পাওয়ার জন্য খুব খুশি।