গর্ভাবস্থায় বুকে ব্যথা – এর কারণ ও প্রতিকার

গর্ভাবস্থায় বুকে ব্যথা

গর্ভাবস্থার 9 মাসের যাত্রা সম্ভবত কোনও মহিলার জন্য সবচেয়ে সুন্দর অভিজ্ঞতা। এর সাথে প্রচুর উত্তেজনা, চ্যালেঞ্জ, ঝুঁকি আসার সাথে ও মায়ের উত্তম অবস্থায় থাকা নিশ্চিত করার সাথে, একটি সুস্থ বাচ্চা প্রসবে সক্ষম হওয়ার মূল লক্ষ্যটি সামনে রাখার জন্য, এই সময়কালটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

aniview

গর্ভাবস্থায়, শরীরের অবিরাম পরিবর্তনের জন্য অস্বস্তিকর হয়, দেহে ব্যথা হয় এবং মাথা ঘোরে। এ জাতীয় পরিবর্তনের কারণগুলি, তাদের সাথে সম্পর্কিত উপসর্গগুলি, তীব্রতা এবং প্রতিকারগুলি বোঝা বেশ কার্যকর হতে পারে। গর্ভবতী মহিলারা সবচেয়ে বেশি যে সাধারণ সমস্যার মুখোমুখি হন তা হ’ল বুকে ব্যথা।

গর্ভাবস্থায় বুকে ব্যথা হওয়ার কারণ এবং ব্যথা উপশম করতে সহায়তা করতে পারে এমন প্রতিকারের জন্য এখানে কিছু পয়েন্টার রয়েছে।

গর্ভাবস্থায় বুকে ব্যথা হওয়া কি স্বাভাবিক?

গর্ভাবস্থায় বুকের ব্যথা অনুভব করা অস্বাভাবিক কিছু নয়, এবং গর্ভাবস্থার শুরুর দিকে বুকের ব্যথা শরীরে সংঘটিত দ্রুত পরিবর্তনগুলির প্রতিচ্ছবি হয়। শারীরিক পরিবর্তনের পাশাপাশি আপনার জীবনযাত্রার পরিবর্তনগুলিও স্ট্রেসের মাত্রা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারে। এর ফলে মানসিক ও শারীরিক স্ট্রেস তৈরি হয়। গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে বুকে ব্যথার একটি প্রাথমিক কারণ হল বদহজম। গর্ভাবস্থায় প্রাক-গর্ভাবস্থাকালীন সময়ের নিয়মিত ডায়েট একইভাবে কাজ করতে পারে না এবং গ্যাস তৈরি করে বুক ব্যথার কারণ হতে পারে। দেহের কাঠামোর পরিবর্তনের সাথে সম্পর্কিত অন্যান্য কয়েকটি কারণ হতে পারে জরায়ুর বেড়ে যাওয়া, স্তন প্রসারিত হওয়া এবং পাঁজরের খাঁচা প্রশস্ত হওয়া; যা বুকের উপর আরও চাপ ফেলে, যার ফলে ভারীভাব অনুভূত হয় এবং অবশেষে ব্যথা হয়। এখানে যে উপসংহারটি টানা যেতে পারে তা হল গর্ভবতী থাকার সময়ে বুকের ব্যথা অনুভব করা স্বাভাবিক এবং সাধারণ ঘরোয়া প্রতিকারগুলি ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে বা অন্তত সাময়িক স্বস্তি পেতে সাহায্য করতে পারে।

গর্ভাবস্থায় বুকে ব্যথার কারণগুলি

গর্ভবতী থাকার সময় কেন কেউ বুকে ব্যথা অনুভব করতে পারে তার বিভিন্ন কারণ রয়েছে। কিছু কারণ নীচে ব্যাখ্যা করা হয়েছে:

1. বদহজম

বুকের ব্যথার সর্বাধিক সাধারণ কারণ হ’ল সম্ভবত বদহজম। বদহজমের সমস্যাগুলি দেখা দেয় যখন পেট ও বুকের মধ্যে গ্যাস আটকে থাকে এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে বা গর্ভাবস্থার 27তম সপ্তাহের মধ্যে এটি গুরুতর হতে পারে।

2. বুকজ্বালা

বুকজ্বালা অনুভবের প্রধান কারণ হল প্রজেস্টেরন হরমোন। হরমোনটি ইসোফেগাল স্পিঙ্কটারকে শিথিল করে, যার ফলে পেটের অ্যাসিডগুলি উপরে উঠে যায়, ফলে প্রচন্ড বুকজ্বালা এবং বুকের ব্যথা হয়।

3. বুকের পেশীর ব্যথা

শিশুর ক্রমবর্ধমান আকারের (এবং পেটের ও পাঁজরের খাঁচার) কারণে, বুকের অঞ্চলের পেশী এবং লিগামেন্টগুলির উপর চাপ বাড়ার কারণে বুকের ব্যথা অনুভব করা স্বাভাবিক।

4. মানসিক চাপ বা স্ট্রেস

মাংসপেশীর উত্তেজনা সৃষ্টির পাশাপাশি, স্ট্রেস বুকের ব্যথাও সৃষ্টি করতে পারে।

5. স্তনের আকার পরিবর্তন

স্তনের আকারের পরিবর্তন বুকের প্রাচীরের পেশী এবং জয়েন্টগুলিতে চাপ দেয় যা ব্যথার দিকে পরিচালিত করে। এটি শ্বাসকষ্টও ঘটাতে পারে।

6. হাঁপানি বা শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত সমস্যা

গর্ভাবস্থার আগে যদি আপনার হাঁপানি থেকে থাকে, তবে এর থেকে শ্বাসকষ্ট এবং বুকে ব্যথা হতে পারে।

7. ডিপ ভেইন থ্রম্বোসিস (ডিভিটি)

ডিভিটি হ’ল শিরা বা ধমনীতে রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়া এবং সাধারণত পা বা পেলভিসে এটি ঘটে। জমাট বাঁধা রক্ত আপনার দেহ ঘুরে ফুসফুসে চলে যেতে পারে, যার ফলস্বরূপ পালমোনারি এম্বোলিজম হয় যা একটি প্রাণঘাতী অবস্থা এবং এটি গর্ভবতী মহিলাদের বুকে তীব্র ব্যথা সৃষ্টি করতে পারে ও মাঝে মাঝে মৃত্যু ঘটাতে পারে। ধূমপায়ী, 35 বছরের বেশি বয়সের মহিলারা, স্থূলকায় মহিলারা অথবা হার্ট বা ফুসফুসের রোগের ইতিহাস আছে এমন মহিলারা বেশি ঝুঁকিতে থাকেন।

8. হৃদপিন্ডে হঠাৎ আক্রমণ

আপনি যদি গর্ভাবস্থায় বুকের বাম দিকে ব্যথা অনুভব করেন বা তীব্র অস্বস্তি বোধ করেন, তবে এটি হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ হতে পারে। অন্যান্য লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে অঙ্গ অবশ হয়ে যাওয়া, ত্বকে শীতল ঘাম এবং মাথা হালকা বোধ হওয়া। যদি আপনি এই লক্ষণগুলির মুখোমুখি হন তবে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

9. জন্মগত হৃদরোগ

জন্মগত হৃদরোগও গর্ভাবস্থায় বুকে ব্যথার কারণ হতে পারে। হৃদরোগের পারিবারিক ইতিহাস জানা থাকা আবশ্যক এবং অবিরত বুকে ব্যথা উপেক্ষা না করা উচিত।

10. করোনারি হৃদরোগ

ধমনীতে প্লেক (চর্বি জমা) তৈরি হলে ধমনীগুলি সংকীর্ণ হয়ে রক্তের প্রবাহকে সীমাবদ্ধ করতে পারে এবং এর ফলে বুকে ব্যথা হতে পারে। এটি আপনাকে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিতে ফেলতে পারে।

11. মহাধমনীর ব্যবচ্ছেদ

মহাধমনীর প্রাচীরে ছিঁড়ে যাওয়ার ফলে, মহাধমনীর স্তরগুলির মধ্যে রক্ত জমে যাওয়ার ফলে মহাধমনীর ব্যবচ্ছেদ ঘটতে পারে যা গর্ভাবস্থায় বুকের তীব্র ব্যথা সৃষ্টি করে। গর্ভাবস্থা এই অবস্থার ঝুঁকি বাড়ায়।

12. পেরিপার্টাম কার্ডিওমিওপ্যাথি

এই স্বাস্থ্যের অবস্থা দুর্বল এবং অসুস্থ হৃদপিণ্ডের পেশী দ্বারা চিহ্নিত করা হয়। এর অন্যতম লক্ষণ হ’ল বুকে ব্যথা। এটি গর্ভাবস্থার চূড়ান্ত মাসে শুরু হয় এবং প্রসবের পর পাঁচ মাস অবধি চলতে পারে।

13. গলস্টোনগুলি

আপনি যদি গর্ভাবস্থায় দেরীতে বুকে এবং ডানদিকে তলপেটে ব্যথা অনুভব করে থাকেন তবে এটি পিত্তথলির কারণে হতে পারে, গর্ভাবস্থায় ইস্ট্রোজেন হরমোনের বাড়তে থাকা উৎপাদন গর্ভবতী মহিলাদের এই অবস্থার জন্য সংবেদনশীল করে তোলে।

গর্ভাবস্থায় বুকে ব্যথার চিকিৎসা করা

এখন যেহেতু আপনি গর্ভাবস্থায় বুকের ব্যথার প্রাথমিক কারণগুলি জানেন, এটির থেকে কীভাবে মুক্তি পাওয়া যায় সে সম্পর্কে এখানে কয়েকটি পরামর্শ দেওয়া হল:

গর্ভাবস্থায় বুকে ব্যথার চিকিৎসার জন্য কয়েকটি পরামর্শ নিম্নে দেওয়া হল:

  • নিশ্চিত হয়ে নিন যে বসার সময় বা দাঁড়ানোর সময় আপনার ভঙ্গিটি সোজা হয় যাতে ফুসফুসে অক্সিজেনের অবাধ প্রবাহ থাকতে পারে।
  • দেহের উপরের অংশ সামান্য উচুতে রাখতে শুয়ে থাকার সময় কুশন ব্যবহার করা সহায়ক হতে পারে।
  • ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন এবং আয়রন সমৃদ্ধ একটি ডায়েট গ্রহণ করুন।
  • চিটচিটে বা মশলাদার খাবার গ্রহণ থেকে বিরত থাকুন এবং অ্যালকোহল ও ক্যাফিন খাওয়া সীমাবদ্ধ করুন।
  • কিছুসময় পর পর অল্প করে খাবার খান এবং খাওয়ার পর সঙ্গে সঙ্গে শুয়ে পড়বেন না।
  • জরায়ুটি রক্তনালীগুলি এবং অন্যান্য অঙ্গগুলির উপর চাপ তৈরি যাতে না করে, সেজন্য আপনার বাম দিক ফিরে ঘুমান।
  • স্ট্রেস থেকে মুক্তি পেতে ধ্যান ও যোগা অনুশীলন করুন।

ব্যথা নিরাময়ের ঘরোয়া প্রতিকার

বুকের ব্যথার চিকিৎসার জন্য ওষুধ পাওয়া গেলেও ঘরোয়া প্রতিকারের চেষ্টা করা আরও ভাল, কারণ গর্ভাবস্থায় যে কোনও ওষুধের ফলেই শিশুর উপর প্রভাব পড়ার ভাল সম্ভাবনা থাকে। এখানে কিছু ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে:

  • প্রতিদিন এক গ্লাস গরম দুধের সাথে এক চামচ মধু খান।
  • ক্যামোমিল বা আদা চা পান করুন।
  • হজমে সহায়তা করে বলে বাদাম খান
  • নিয়মিত ডাবের জল পান করুন, কারণ এটি প্রাকৃতিক অ্যাসিড প্রশমনকারী হিসাবে কাজ করে।
  • পেটের অ্যাসিড উৎপাদন কমাতে আপেল সাইডার ভিনিগার নিন।
  • গর্ভাবস্থায় পিচ্ছিল এলম ব্যবহার করতেও পরামর্শ দেওয়া হয় এবং এটি নিরাপদ হিসাবে বিবেচিত হয়।

মেডিকেল চিকিৎসা

যদিও প্রতিরোধ নিরাময়ের চেয়ে ভাল, তবে গর্ভাবস্থায় স্বাস্থ্যের সমস্যার নিরাময়ের জন্য যোগ্য পেশাদারদের সাথে পরামর্শ করা ভাল। বুকের ব্যথার তীব্রতা নির্বিশেষে, সর্বদা একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার উপদেশ দেওয়া হয়। চিকিৎসাতে আপনার খাদ্যের পরিপূরক হিসাবে এবং বুকের ব্যথা এড়াতে আয়রন, ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম গ্রহণের পরিমাণ বাড়ানো হতে পারে।

কখন সাহায্য চাইতে হবে?

বুকে ব্যথা হওয়ার ক্ষেত্রে কখন সাহায্য চাইতে হবে তা জানা গুরুত্বপূর্ণ। নিম্নলিখিতগুলি হল এটির কয়েকটি সূচক:

  • বুকে ব্যথা যা রাতে শুয়ে থাকার সময় হয় এবং তীব্র হয়। এটি করোনারি হার্ট ডিসঅর্ডারের ইঙ্গিত হতে পারে।
  • হৃৎপিন্ডের বাম দিকে অসহ্য, ছুরিকাঘাতের মতো অনুভূতি। এটি গুরুতর হার্ট অ্যাটাকের ইঙ্গিত হতে পারে।
  • বুকে ব্যথার পাশাপাশি বাহুতে অসাড়তা, মাথা ঘোরা, ঘন ঘন শ্বাস, ঠান্ডা ঘাম, অবিরত বমি হওয়া এবং শ্বাসকষ্ট হওয়া।
  • গভীর শ্বাস নেওয়ার সময়, হাঁচি বা কাশির সময় বুকে ব্যথা প্লুরাইটিসকে নির্দেশ করতে পারে। যেটি হল ফুসফুসের আস্তরণের প্রদাহ এবং তাৎক্ষণিক চিকিৎসার মনোযোগ নেওয়া প্রয়োজন।
  • উপরের বুকে তীব্র জ্বলনের অনুভূতি, যা শরীরকে বাঁকানোর সময় তীব্র হয়ে ওঠে। এটি হায়াটাল হার্নিয়ার কেস হতে পারে।
  • বুকে তীক্ষ্ণ ব্যথা সহ এক বা উভয় পায়ে ফোলা ভাব ডিভিটি ডিসঅর্ডারকে নির্দেশ করতে পারে।
  • বুকের মাঝের অংশে তীব্র ব্যথা যা প্রতিবার কয়েক মিনিট স্থায়ী হয় এবং তারপরে ঠিক হয়। এটি হার্ট অ্যাটাকের ইঙ্গিতও হতে পারে।এগুলি এমন কিছু নির্দেশক পরিস্থিতি যা জরুরি হিসাবে বিবেচনা করা উচিত এবং এই সব ক্ষেত্রে অবিলম্বে চিকিৎসার যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। তবে, ব্যথা তীব্র না হলেও এবং মাঝে মাঝে হলেও ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা ভাল।