গর্ভাবস্থায় মূত্রনালীর সংক্রমণের (ইউটিআই) জন্য 8টি ঘরোয়া প্রতিকার

গর্ভাবস্থায় মূত্রনালীর সংক্রমণের (ইউটিআই) জন্য 8টি ঘরোয়া প্রতিকার

গর্ভাবস্থায় প্রস্রাবের সংক্রমণের ক্ষেত্রে ঘরোয়া প্রতিকারগুলি অনেকটা অব্যাহতি দিতে পারে। ইউটিআই, সাধারণত, তলপেটে ব্যথা, ঘন ঘন প্রস্রাব এবং রক্তাক্ত প্রস্রাবের কারণ হয়। অবিলম্বে চিকিৎসা করা দরকার যাতে সংক্রমণটি কিডনির কোনও ক্ষতি না করে। প্রথাগত চিকিৎসা ছাড়াও বেশ কিছু প্রাকৃতিক প্রতিকার রয়েছে যা গর্ভাবস্থায় সবচেয়ে সাধারণ একটি মেডিকেল জটিলতা UTI বা মূত্রনালীর সংক্রমণকে প্রতিরধ করতে এবং সেটির চিকিৎসায় সাহায্য করতে পারে।

aniview

ইউ টি আই এর লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি

যদি আপনি ইউ টি আই দ্বারা আক্রান্ত হন এবং নিচের উল্লেখিত উপসর্গগুলির মধ্যে একটি বা একাধিক উপসর্গ আপনার মধ্যে প্রকাশ পায় তাহলে অবিলম্বে আপনি ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

১. প্রস্বাবে যদি মিউকাস বা রক্ত দেখা যায়
২. প্রস্বাব করার সময় যদি জ্বালা অনুভব করেন
৩. তলপেটে যন্ত্রণা হয়
৪. জ্বর এবং সংযমের অভাব
৫. ঘোলাটে এবং বিশ্রী ঘন্ধযুক্ত প্রস্বাব
৬. বার বার মুত্রত্যাগের ইচ্ছা

গর্ভাবস্থায়ইউটিআইয়েরচিকিৎসারপ্রাকৃতিকপ্রতিকারসমূহ

নিম্ন মূত্রনালীর সংক্রমণ বেশিরভাগ ক্ষেত্রে নিজে নিজেই কমে যায়। শরীরের প্রাকৃতিক প্রতিরোধ সত্ত্বেও, কিছু নির্দিষ্ট ধরনের ছত্রাক, ব্যাকটিরিয়া এবং ভাইরাস মূত্রনালীর সাথে নিজেদেরকে সংযুক্ত করে এবং মূত্রাশয়, ইউরেথ্রা এবং মূত্রনালীতে বসবাস শুরু করে। চিকিৎসার প্রথম ধাপ হিসাবে অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয়, তবে গর্ভাবস্থায় এগুলি কঠোরভাবে এড়ানো উচিত। অ্যান্টিবায়োটিক ছাড়াই গর্ভবতী অবস্থায় ইউটিআইয়ের চিকিৎসা করার জন্য সর্বোত্তম বিকল্পটি হ’ল প্রাকৃতিক এবং নিরাপদ ঘরোয়া প্রতিকার অবলম্বন করা।

গর্ভাবস্থায় ইউটিআইয়ের ঘরোয়া প্রতিকারের মধ্যে রয়েছে:

১. তরল গ্রহণ বাড়ান

সারা দিন ধরে প্রচুর পরিমাণে জল এবং তরল পান করা হল শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়ার মাধ্যমে দেহ তন্ত্র থেকে ব্যাকটিরিয়া বের করে দেওয়ার সেরা উপায়। শরীরকে হাইড্রেটেড রাখতে, আপনাকে প্রতিটি খাবারের পরে এক গ্লাস জল পান করতে হবে যাতে ব্যাকটিরিয়াগুলি দৈহিক তন্ত্রের বাইরে বেরিয়ে যেতে পারে, ফলে সংক্রমণের সম্ভাবনা হ্রাস পায়।

তরলগ্রহণবাড়ান

২.ঘন ঘন মূত্রত্যাগ

গর্ভাবস্থায়, আপনাকে প্রায়শই প্রস্রাব করতে হবে যাতে মূত্রাশয়ের অভ্যন্তরে ব্যাকটিরিয়া বৃদ্ধি না পায়। যদি কোনও ব্যক্তি দীর্ঘ সময়ের জন্য প্রস্রাব ধরে রাখে তবে ব্যাকটিরিয়া মূত্রনালীতে বহুগুণ বেড়ে যেতে যেতে পারে, যার ফলে সংক্রমণ হয়।

৩. শরীর পরিষ্কার শুকনো রাখুন

আপনার হালকা এবং ঢিলেঢালা পোশাক এবং অন্তর্বাস পরার চেষ্টা করা উচিত যা বায়ু চলাচল করতে দেবে এবং মূত্রনালী শুষ্ক রাখতে সহায়তা করবে। ব্যাকটিরিয়া ইউরেথ্রাতে যাতে প্রবেশ না করে তা নিশ্চিত করার জন্য মলত্যাগের পরে আপনাকে সামনে থেকে পিছনের দিক পর্যন্ত মুছে শুকিয়ে নিতে হবে।

৪.স্পার্মিসাইডের ব্যবহার এড়িয়ে চলুন

আপনার লুব্রিকেটেড কনডোম ব্যবহার করা উচিত যার মধ্যে স্পার্মিসাইড থাকে না। ইউটিআইয়ের প্রবণতা এমন মহিলাদের মধ্যে বেশি যারা যৌনতার দিক থেকে খুব বেশি সক্রিয় এবং ইউটিআই হওয়ার সম্ভাবনাগুলি সম্প্রতি যৌনসঙ্গম করা মহিলাদের সাথে বেশি সম্পর্কিত।

স্পার্মিসাইডের ব্যবহার এড়িয়ে চলুন৫. প্রোবায়োটিক

প্রোবায়োটিকগুলি মানব দেহের ফ্লোরাগুলিকে সমর্থন করে যেগুলি শরীরের প্রতিরক্ষা হিসাবে ব্যবহৃত হয়। কিমচি(এটি বিভিন্ন সবজি,আচার এবং তীব্র মশলা সহযোগে সেগুলিকে গাঁজিয়ে নিয়ে প্রস্তুত একটি খাবারের রেসিপি যা দক্ষিণ করিয়ার ভীষণ জনপ্রিয় একটি খাদ্য), প্রোবায়োটিক দই এবং কাঁচা পনিরের মতো গাঁজানো খাবার হল সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর প্রোবায়োটিক খাবার। গাঁজানো খাবার খেলে কোনও রোগ সৃষ্টি না করেই শরীরের ব্যাকটেরিয়া উপাদানকে পুনরুদ্ধার করে।

৬.ক্র্যানবেরি

ক্র্যানবেরির রস এক বছর সময়ের মধ্যে কোনও ব্যক্তির মোট যতবার ইউটিআই হতে পারে সেই সংখ্যা কমাতে সহায়তা করে। ক্র্যানবেরিকে ইউটিআই প্রতিরোধের কৌশল হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। ক্র্যানবেরি পণ্যগুলি সংক্রমণ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি কমাতে সহায়তা করে।

৭.রসুন

কাঁচা রসুন যা সদ্য পেষা হয়েছে, তাতে অনেক ধরণের অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল গুণ রয়েছে। রসুনের অ্যান্টি ফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য ঈস্ট সংক্রমণেরে কারণ হতে পারে।

রসুন

৮. ভিটামিন সি

ভিটামিন সি ই-কোলাইয়ের বৃদ্ধির সম্ভাবনা হ্রাস করে। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং প্রস্রাবকে আরও অ্যাসিডিক বা আম্লিক করে তোলে। যদি তিন মাসের জন্য ভিটামিন সি এর চিকিৎসা নেওয়া হয় তবে গর্ভবতী মহিলাদের স্বাস্থ্য উন্নত হয় এবং মূত্রনালীর সংক্রমণ হ্রাস পায়।

৯.লবঙ্গ তেল

লবঙ্গ তেল অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল , অ্যান্টিভাইরাল এবং অ্যান্টিফাঙ্গাল কার্যকলাপের জন্য পরিচিত। লবঙ্গ তেলের প্রদাহ বিরোধী গুণ হল একটি অতিরিক্ত সুবিধা। তবে আপনার শরীরে কিছু প্রতিকূল প্রতিক্রিয়াও হতে পারে তাই আপনার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর তত্ত্বাবধানে এগুলি গ্রহণ করুন।

১০.ওরেগানো তেল

ব্যাকটিরিয়া সংক্রমণ থেকে নিরাময়ের উপায় হিসাবে ওরেগানো অপরিহার্য তেল সফলভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। এটি ইউটিআই এর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি দেখতে পাওয়া ব্যাকটিরিয়া- ই-কোলাইয়ের বৃদ্ধি রোধ করে। এটি স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে পরামর্শের পরে রোগীকে দেওয়া উচিত।

ইউটিআই সাধারণত ব্যাকটিরিয়া দ্বারা সৃষ্ট হয় যা মূত্রজনননালীর মাধ্যমে প্রবেশ করে ব্যথা এবং অস্বস্তি সৃষ্টি করে। এই রোগের বার বার ঘটার ফলে ব্যাকটিরিয়াগুলির ওষুধ প্রতিরোধের ক্ষমতা গড়ে ওঠার ঝুঁকি বাড়ায়। এগুলি অনাকাঙ্ক্ষিত পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে, সুতরাং সকলের অবশ্যই ঘরোয়া প্রতিকারগুলি প্রয়োগ করার চেষ্টা করা উচিত।