গর্ভাবস্থায় যোনিতে চুলকানি

গর্ভাবস্থায় যোনিতে চুলকানি

সকালের অসুস্থতা, মাথাব্যথা, মেজাজ পরিবর্তন এবং ক্লান্তি গর্ভাবস্থার সাধারণ লক্ষণ আপনি যদি গর্ভবতী হন তবে আপনি জানেন যে আমরা কী বিষয়ে কথা বলছি বেশিরভাগ মহিলা গর্ভবতী হওয়ার সময় এই লক্ষণগুলি অনুভব করেন তবে কখনও কখনও তাদের গর্ভাবস্থার কোনও সময় যোনি চুলকানির অভিজ্ঞতাও হয়ে থাকতে পারে যোনিতে চুলকানি, যদিও সবার হয় না,তবে গর্ভাবস্থায় এটি হওয়া সাধারণ ব্যাপারআপনি যদি যোনি চুলকানির মত অভিজ্ঞতার শিকার হন তবে আপনার আতঙ্কিত হওয়ার দরকার নেই এটি বিভিন্ন কারণে ঘটতে পারে এবং এটি মোকাবিলা করার জন্য প্রথমে আমাদের সঠিক কারণটি সনাক্ত করা প্রয়োজন

aniview

যোনিতে চুলকানি কী?

গর্ভাবস্থায় যোনিতে চুলকানি এমন একটি অবস্থা যেখানে যোনি এবং এর আশেপাশের ত্বকে জ্বালা করে এবং চুলকানি হয় ও তার সাথে ফুলে যায় কোনও মহিলা যখন গর্ভবতী হন, তখন তিনি যোনি স্রাবের বৃদ্ধি অনুভব করতে পারেন যা ভালভার ত্বকে জ্বালা সৃষ্টি করতে পারে তবে গর্ভাবস্থায় কোনও ডিটারজেন্ট, লোশন বা সাবান ব্যবহারের কারণে সংক্রমণ বা অ্যালার্জিজনিত প্রতিক্রিয়ার ফলেও চুলকানি হতে পারে

গর্ভাবস্থায় যোনিতে চুলকানোর কারণগুলি কী কী?

গর্ভাবস্থায় যোনিতে চুলকানির সবচেয়ে সাধারণ কারণগুলি নীচে উল্লেখ করা হয়েছে

1. ঈস্ট সংক্রমণ

পেলভিক অঞ্চলটিতে গর্ভাবস্থায় রক্ত প্রবাহ বেড়ে যায় এবং এটি যোনি অঞ্চলকে ফুলিয়ে তোলে, ফলে এটির সংক্রামিত হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায় ঈস্ট সাধারণত যোনিতে অল্প পরিমাণে পাওয়া যায় গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তন যোনিপথের পিএইচ ভারসাম্যকে ব্যাহত করতে পারে, যা এটিকে সংক্রমণের ঝুঁকিপূর্ণ করে তোলে ফলস্বরূপ, ঈস্ট যোনি অঞ্চলে বহুগুণ বেড়ে যেতে পারে, তীব্র চুলকানি, গন্ধযুক্ত কটেজ চীজের মতো স্রাব এবং ব্যথা সৃষ্টি করে ওভারদ্যকাউন্টার ওষুধের মাধ্যমে এটি সহজে চিকিৎসা করা যেতে পারে প্রস্তাবিত ওষুধগুলি অ্যান্টিফাঙ্গাল ক্রীম, মলম বা ট্যাবলেট তবে, কোনও ওষুধ ব্যবহার করার আগে আপনাকে অবশ্যই প্রথমে আপনার ডাক্তারের সাথে আলোচনা করে পরামর্শ নিতে হবে

2. যোনি স্রাব বৃদ্ধি

গর্ভাবস্থায় হরমোনগত পরিবর্তন, পিএইচ মাত্রার পরিবর্তন এবং যোনি প্রাচীর পুরু হয়ে যাওয়ার কারণে যোনি স্রাব বৃদ্ধি পেতে পারে গর্ভাবস্থায় যোনি স্রাব এবং সার্ভিকাল মিউকাস বৃদ্ধি চুলকানির কারণ হতে পারে যদি স্রাবটি পরিষ্কার বা সাদা হয় এবং দুর্গন্ধযুক্ত না হয় তবে এর অর্থ হল চুলকানিটি গর্ভাবস্থার হরমোনগুলির কারণে ঘটছে যদিও যোনি স্রাব যোনিকে রক্ষা করে, কিন্তু কখনও কখনও, এটি বেশ ভালভাবে ত্বকে জ্বালা সৃষ্টি করে, এটিকে লাল এবং চুলকানিযুক্ত করে তোলে যদি আপনি কোনও যোনি স্রাবের বৃদ্ধি অনুভব করে থাকেন তবে এটিকে আলতো করে মুছে দিন এবং আপনার যোনি অঞ্চলটি যতটা সম্ভব শুকনো এবং পরিষ্কার রাখুন এমনকি আপনি আক্রান্ত স্থানে একটি শীতল কম্প্রেস ব্যবহার করতে পারেন বা জল দিয়ে এলাকাটি ধুতে পারেন

3. ব্যাকটিরিয়াল ভ্যাজিনোসিস

গর্ভাবস্থায় যোনিতে চুলকানোর এটি খুব সাধারণ একটি কারণ ব্যাকটিরিয়া সাধারণত যোনিতে পাওয়া যায় তবে যদি যোনিতে ভাল এবং খারাপ ব্যাকটেরিয়ার মধ্যে ভারসাম্যের পরিবর্তন হয় তবে এটি গর্ভাবস্থায় ব্যাকটিরিয়াল ভ্যাজিনোসিসের কারণ হতে পারে ব্যাকটিরিয়াল ভ্যাজিনোসিসের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে চুলকানি, বেদনা হওয়া, প্রস্রাব করার সময় জ্বলে যাওয়ার মতো ব্যথা অনুভূত হওয়া, দুর্গন্ধযুক্ত স্রাব এবং প্রদাহ এই অবস্থাটি একজন ডাক্তার দ্বারা নির্ণয় এবং চিকিৎসা করতে হবে ব্যাকটিরিয়া সংক্রমণ দূর করতে সাধারণত চিকিৎসক অ্যান্টিবায়োটিক লিখে দেন

4. পণ্য দ্বারা প্ররোচিত জ্বলন

গর্ভাবস্থাকালীন, আপনার ব্যবহার করা কঠোর সাবান, ডিটারজেন্ট বা লোশনের কারণে যোনিটির সংবেদনশীল ত্বকে প্রদাহ বা জ্বালা হতে পারে আপনার অন্তর্বাসে ব্যবহৃত ফ্যাব্রিক সফ্টনার এবং ডিটারজেন্টগুলি, সুগন্ধযুক্ত সাবান, লোশন, ডুশ এবং কনডোমগুলি যোনির ত্বকে জ্বালা ধরাতে পারে এটি প্রতিরোধ করতে সুগন্ধযুক্ত সাবান এবং লোশন ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন মৃদু, সুগন্ধমুক্ত সাবান এবং লোশন ব্যবহার করুন এবং হাইপোঅ্যালার্জেনিক ডিটারজেন্ট এবং ফ্যাব্রিক সফ্টনারগুলি বেছে নিন

5. যৌন সংক্রামিত রোগ (এসটিডি)

যৌন সংক্রামিত রোগ (এসটিডি) দ্বারাও যোনিতে চুলকানি এবং জ্বালা হতে পারে এসটিডির উদাহরণগুলির মধ্যে রয়েছে সিফিলিস, গনোরিয়া, ক্ল্যামিডিয়া, ট্রাইকোমোনিয়াসিস এবং হার্পিস চুলকানির পাশাপাশি এই রোগগুলি দুর্গন্ধযুক্ত স্রাব এবং ব্যথাও ঘটায় এসটিডি এর ক্ষেত্রে একজন মহিলাকে অবশ্যই তাৎক্ষণিক চিকিৎসার সহায়তা নিতে হবে আপনার যদি কোনও এসটিডি থাকে, তবে ডাক্তার উপযুক্ত চিকিৎসার পরামর্শ দেবেন যৌন মিলনের সময়, অবশ্যই কনডোম ব্যবহার করা উচিত এবং মনোগোমাস নয় এমন সঙ্গীদের সাথে যৌনতা এড়ানো উচিত

6. পেডিকুলোসিস (কাঁকড়া উকুন)

আপনার পিউবিক বা গুপ্ত লোমাঞ্চলের চারপাশে যদি তীব্র চুলকানি থাকে তবে এটি পেডিকুলোসিস বা কাঁকড়া উকুনের কারণে হতে পারে কাঁকড়া উকুন এক ধরনের ক্ষুদ্র কীট যা মানুষের রক্ত খায় এগুলি খুব সংক্রামক এবং এগুলি পাবলিক টয়লেট থেকে বা যৌন সংক্রমণের মাধ্যমে আপনার মধ্যে আসতে পারে।পেডিকুলোসিস ঘরে বসে চিকিৎসা করা যায় না এবং এর জন্য অবশ্যই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে কাঁকড়া উকুনের ক্ষেত্রে, বিছানাপত্র এবং জামাকাপড়গুলি সম্পূর্ণ সংক্রমণমুক্ত করা প্রয়োজনীয় হয়ে পড়ে কোনও ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া উকুনের রাসায়নিক চিকিৎসা ব্যবহার করার পরামর্শ কখনই দেওয়া হয় না

7. মূত্রনালীর সংক্রমণ (ইউটিআই)

গর্ভাবস্থায় যোনিতে চুলকানোর কারণগুলি কী কী

মূত্রনালীর সংক্রমণ (ইউটিআই) থেকেও যোনিতে চুলকানি হতে পারে এটি মূলত মূত্রনালীতে ব্যাকটিরিয়া থাকার কারণে, প্রস্রাবের সময় চুলকানি, ব্যথা এবং জ্বলনের সংবেদন সৃষ্টি করে এটির সাথে জ্বর, সর্দি এবং বমিও হতে পারে যদি আপনি এই লক্ষণগুলি অনুভব করেন তবে আপনাকে অবশ্যই একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে কারণ এটির জন্য অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে চিকিৎসার প্রয়োজন হবে

গর্ভাবস্থায় যোনিতে চুলকানি কিভাবে রোধ করা যায়

আপনি যদি গর্ভাবস্থায় যোনি চুলকানির অভিজ্ঞতার শিকার হন তবে আপনার স্বনির্ধারিত ওষুধ খাওয়ার চেষ্টা করা উচিত নয় ওভারদ্য কাউন্টার ওষুধগুলি শুধুমাত্র ডাক্তারের সাথে পরামর্শের পরে গ্রহণ করা উচিত তবে, আপনি যদি এই সমস্যাটি না অনুভব করেন তবে এটিকে প্রতিরোধের জন্য আপনার করার মতো বেশ কিছু জিনিস রয়েছযেগুলি গর্ভাবস্থায় আপনার চিন্তার আরও একটি বিষয়কে কমতে সাহায্য করবে। গর্ভাবস্থায় যোনি চুলকানির সম্ভাবনা হ্রাস করার জন্য কয়েকটি পরামর্শ এখানে রইল

1. সুতীর অন্তর্বাস পরুন

আলগা সুতীর প্যান্টি পরুন এবং গর্ভাবস্থায় আঁটসাঁট পোশাক এড়িয়ে চলুন লাইক্রা এবং স্প্যানডেক্স ফাইবারজাত অন্তর্বাসগুলি বেছে নেবেন না কারণ এগুলি ত্বকের গায়ে আর্দ্রতা ধরে রাখতে পারে এবং চুলকানির কারণ হতে পারে

2. ভিজা ওয়াইপগুলি ব্যবহার করুন

বাথরুম ব্যবহারের পরে বা সারাদিনের বিভিন্ন সময়ে আপনার যোনি অঞ্চল মুছতে মৃদু, সুগন্ধিমুক্ত এবং অ্যালকোহল মুক্ত ভিজা ওয়াইপগুলি ব্যবহার করুন

3. পরিষ্কার এবং শুকনো থাকুন

যতটা সম্ভব পরিষ্কার এবং শুকনো থাকুনঘাম এবং স্রাব থেকে মুক্তি পেতে আপনার অন্তর্বাস দিনে 2-3 বার পরিবর্তন করুন এছাড়াও, মিলনের পরে, ভালভাবে সেই জায়গাটি পরিষ্কার করুন

4. বেকিং সোডা ব্যবহার করুন

আপনার স্নানের জলে বেকিং সোডা যুক্ত করুন এবং চুলকানি প্রদাহ প্রশমিত করতে আপনার যোনি অঞ্চলটি ধুয়ে ফেলুন

5. হাইপোঅ্যালার্জেনিক পণ্যগুলি বেছে নিন

মৃদু সাবান, লোশন এবং শাওয়ার জেলগুলি ব্যবহার করুন আপনার অন্তর্বাস ধোয়ার জন্য হাইপোঅ্যালার্জেনিক ফ্যাব্রিক সফ্টনার এবং ডিটারজেন্ট ব্যবহার করুন

6. একটি ঠান্ডা কম্প্রেস ব্যবহার করুন

চুলকানি থেকে মুক্তি পেতে প্রভাবিত স্থানে একটি ঠান্ডা কম্প্রেস ব্যবহার করা যেতে পারে যোনি ত্বক যদি সংবেদনশীল হয় তবে এটি ধুতে ঠাণ্ডা জল ব্যবহার করুন কারণ গরম জল জ্বলনকে বাড়িয়ে তুলতে পারে

7. দই খান

দই শরীরে সুষম পিএইচ মাত্রা বজায় রাখতে সহায়তা করে আপনার প্রতিদিনের ডায়েটে দই অন্তর্ভুক্ত করুন তবে আপনার দেহের পিএইচ মাত্রার ভারসাম্য বজায় রাখতে মিষ্টি ছাড়া, কম ফ্যাটযুক্ত দই বেছে নিন

8. চুলকানিরোধী ক্রীম বা কর্নস্টার্চ ব্যবহার করে দেখুন

আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে একটি ওভারদ্য কাউন্টার, চুলকানিরোধী ক্রীম ব্যবহার করতে পারেন যাতে নিশ্চিত করা যায় যে এটিতে আপনার বাচ্চার ক্ষতি করতে পারে এমন কোনও উপাদান নেই চুলকানির জায়গাটি শুকনো রাখতে এবং চুলকানি উপশম করতে আপনি কোনও সুগন্ধবিহীন, কর্নস্টার্চ ভিত্তিক গুঁড়া ছিটিয়ে দেওয়ারও চেষ্টা করতে পারেন

9. ভাল স্বাস্থ্যবিধি অনুশীলন করুন

সহবাস করার বা বাথরুমে যাওয়ার পরে, আপনার যোনি অঞ্চল পরিষ্কার করা নিশ্চিত করুন সর্বদা সামনে থেকে পিছনে মুছুন

কখন কোনো ডাক্তারের সাথে দেখা করতে হবে

যদি আপনি গর্ভাবস্থায় যোনির জ্বালা অনুভব করেন যার সাথে দুর্গন্ধযুক্ত স্রাব এবং ব্যথার মতো উপসর্গগুলি থাকে, তবে এসটিডি এবং অন্যান্য সংক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য আপনার সঙ্গে সঙ্গে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা উচিত গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে যোনিতে চুলকানোর প্রধান কারণ হরমোনগত পরিবর্তন বা সংক্রমণ চুলকানি দীর্ঘকাল ধরে চলতে থাকলে এবং আপনার ব্যথা বা দুর্গন্ধযুক্ত স্রাব থাকলে, আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা উচিত যদি আপনি যোনি অঞ্চলে আলসার, কাটা, ঘা বা উত্থিত ফোড়ার মতো অস্বাভাবিক কিছু লক্ষ্য করেন তবে আপনার ডাক্তারকে কল করুন একবার কোনও স্বাস্থ্যসেবা পেশাদার সমস্যার কারণটি খুঁজে পেলে, তিনি গর্ভাবস্থায় যোনি চুলকানির জন্য উপযুক্ত চিকিৎসার পরামর্শ দিতে পারেন

গর্ভাবস্থায় যোনিতে চুলকানি খুব সাধারণ এবং এর সঠিক কারণ নির্ধারণের পরে কোনও চিকিৎসকের মাধ্যমে চিকিৎসা করা যেতে পারে তবে এটি সর্বদা সুপারিশ করা হয় যে এই সমস্যাটিকে দূরে রাখার জন্য আপনি ভাল স্বাস্থ্যবিধি অনুশীলন করুন জ্বালা এড়াতে আপনার যোনি পরিষ্কার এবং শুকনো রাখুন প্রথমে আপনার ডাক্তারবাবুকে জিজ্ঞাসা না করে যোনি চুলকানির চিকিৎসার জন্য কোনও ওষুধ ব্যবহার করবেন না