গর্ভাবস্থায় লো ব্লাড প্রেসার বা কম রক্তচাপ

গর্ভাবস্থায় লো ব্লাড প্রেসার বা কম রক্তচাপ

হার্ট পাম্প করার সময় ধমনীর দেয়ালগুলিতে রক্ত বাহিত হওয়ার সময় যে শক্তি প্রয়োগ করে তাকে ব্লাড প্রেসার বা রক্তচাপ হিসাবে মাপা হয়। নিম্ন রক্তচাপ এবং গর্ভাবস্থার সংযোগ রয়েছে। এই সময় রক্ত ​​সঞ্চালন ব্যবস্থার রক্তনালীগুলি আপনার শরীরে হরমোনের পরিবর্তনের কারণে স্ফীত হয়ে যায়, যা নিম্ন রক্তচাপের কারণ হতে পারে।

aniview

নিম্ন রক্তচাপ কি?

যদি রক্তচাপ ৯০ এমএমএইচজি / ৬০ এমএমএইচজি বা তার চেয়ে কম প্রতিফলন করে তবে আপনার রক্তচাপ কম বলে বিবেচিত হয়। একটি সাধারণ রক্তচাপ হল ১২০ ​এমএমএইচজি / ৮০ এমএমএইচজি।

গর্ভবতী মহিলার কখন রক্তচাপ কম থাকে?

আপনার রক্তচাপ গর্ভাবস্থার শুরুর দিকে কম হতে শুরু করতে পারে এবং দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকের মাঝামাঝি সময়ে এটি সর্বনিম্নে পৌঁছাতে পারে। নিয়মিত রক্তচাপ পরিমাপ গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এগুলি আপনার এবং আপনার শিশুর স্বাস্থ্যের ইঙ্গিত দিতে পারে। লো বিপি বা নিম্ন রক্তচাপ সাধারণত সব গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে দেখা যায় এবং এটি গর্ভধারণের ২৪ সপ্তাহ অবধি নীচের দিকে থাকতে পারে।

অস্থায়ী নিম্ন রক্তচাপের প্রকারগুলি

সাধারণত নিম্ন রক্তচাপ দুই ধরণের হয়। আসুন তাদের প্রত্যেকটিকে বুঝেনি।

  • দেহের অবস্থানগত নিম্ন রক্তচাপ

আপনার বসার বা ঘুমের অবস্থান থেকে হঠাৎ উঠে আসার পরে আপনার রক্তচাপ সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য কম থাকতে পারে। এই অবস্থা, যা অর্থোস্ট্যাটিক হাইপোটেনশন হিসাবেও পরিচিত, দীর্ঘ সময় ধরে বসে থাকা বা শুয়ে থাকার ফল। হঠাৎ আপনার অবস্থান পরিবর্তন করার পরে রক্ত ​​কিছুটা দেরিতে মস্তিষ্কে পৌঁছায়।

  • সুপারিন হাইপোটেনশন

যদি আপনি চিৎ হয়ে বা পিঠের উপর ভর দিয়ে ঘুমাচ্ছেন বা বিশ্রাম নিচ্ছেন, তবে চাপটি ভেনা কাভা, আওর্টা এবং অন্যান্য প্রধান রক্তনালীর উপর চাপ দেওয়া হয়, যার ফলে রক্তচাপ কমে যায়। এই হাইপোটেনশনটি প্রসারণকারী জরায়ুর কারণে ঘটে যার ফলে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে মাথা ঘোরা হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের কারণগুলি

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের কারণ হতে পারে এমন কয়েকটি কারণ নীচে উল্লেখ করা হয়েছে:

  • প্রথম ত্রৈমাসিকে নিম্ন রক্তচাপের পিছনে অন্যতম কারণ হল হরমোনের পরিবর্তন, যা রক্তনালীগুলি ফোলার কারণ হয়।
  • জল হ্রাসের কারণে ডিহাইড্রেশন রক্তচাপকে হ্রাস করে এবং মাথা ঘোরার কারণ হতে পারে।
  • জরায়ুর বৃদ্ধি রক্তনালীগুলির উপর চাপ সৃষ্টি করে এবং হাইপোটেনশনের কারণ হতে পারে। আপনি যখন পিঠে ভর দিয়ে শুয়ে থাকেন, তখন বেশিরভাগ ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় সুপারিন হাইপোটেনশনের অভিজ্ঞতা হয়।
  • অবস্থানগত হাইপোটেনশন পায়ে রক্ত ​​জমা হওয়ার কারণেও ঘটে যা মস্তিষ্কে রক্ত ​​প্রবাহকে প্রভাবিত করে। এটি সাধারণত বসার অবস্থান বা শোওয়ার অবস্থান থেকে উঠে যাওয়ার সময় ঘটে।
  • অ্যানিমিয়া এবং হাইপোগ্লাইসেমিয়া (এমন একটি শর্ত যা রক্তে শর্করার মাত্রা কমায়) গর্ভাবস্থায় কম রক্তচাপ হওয়ারও কারণ হতে পারে।
  • যদি আপনার হার্টের সাথে সম্পর্কিত কোনো পরিস্থিতি থাকে, তবে এগুলি আপনার রক্তচাপের স্তরে একটি উল্লেখযোগ্য হ্রাস করতে পারে।
  • অন্যান্য কারণগুলির মধ্যে রয়েছে ভিটামিন বি১২ এবং ফলিক অ্যাসিডের ঘাটতি। ভ্রূণ মা থেকে পুষ্টি গ্রহণ করে। অতএব, ভিটামিন বা ফলিক অ্যাসিড কম গ্রহণ করলে মা রক্তাল্পতায় আক্রান্ত হন, কারণ এই ঘাটতি রক্ত ​​সঞ্চালনকে কমিয়ে দিতে পারে এবং নিম্ন রক্তচাপের কারণ হতে পারে।

লক্ষণ ও উপসর্গ

  • শ্বাসকষ্ট, বুকের ব্যথা, বমি বমিভাব বা পালস রেট বৃদ্ধি।
  • নিম্ন রক্তচাপের কারণে মাথা ঘোরা হতে পারে এবং অজ্ঞান হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে।
  • হালকা মাথা ঘোরা এবং দৃষ্টি অন্ধকার হয়ে যাওয়া দেখা যায় যখন হঠাৎ শোওয়া বা বসার অবস্থান থেকে অবস্থান পরিবর্তন হয়।
  • রক্তাল্পতার কারণে অতিরিক্ত তৃষ্ণা দেখা যায় এবং মনোনিবেশ করতে অসুবিধা হয়।
  • তীব্র পেলভিক ব্যথা হলেও রক্তচাপ কমে যায়। এটি একটি অ্যাক্টোপিক গর্ভাবস্থা নির্দেশ করতে পারে, যা খুব বিপজ্জনক হতে পারে।
  • ক্লান্ত বা দুর্বল বোধ করা ছাড়াও ফ্যাকাশে, খসখসে এবং ঠান্ডা ত্বক।

উপরে উল্লিখিত কয়েকটি লক্ষণ হয়তো আপনার বিশ্রামের পরে বা পর্যাপ্ত পরিমাণে জল পান করার পরে দূর হয়ে যেতে পারে। নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনি এটি চিকিত্সকের সাথে আলোচনা করেছেন, কারণ এটি এখনও স্বাস্থ্যসংক্রান্ত কোন সমস্যার লক্ষণ হতে পারে যা সনাক্ত করা যায় নি।

গর্ভবতী হলে নিম্ন রক্তচাপ নির্ণয়

রক্তচাপ পরিমাপ করতে ব্যবহৃত একটি ডিভাইসের সাহায্যে সমস্যাটি সহজেই নির্ণয় করা যায়। এর জন্য, আপনার বাহুতে একটি প্রসারণযোগ্য কাফ রাখা হবে এবং রক্তচাপ গণনা করার জন্য একটি চাপ-পরিমাপের গেজ ব্যবহার করা হবে।

গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে নিম্ন রক্তচাপের ঝুঁকিগুলি

নিম্ন রক্তচাপে উচ্চ রক্তচাপের মতো ঝুঁকি না থাকলেও এটি গর্ভাবস্থায় উদ্বেগের কারণ হতে পারে। আপনার যদি নিম্ন রক্তচাপ ধরা পড়ে তবে নীচের ঝুঁকির বিষয়ে নজর রাখুন।

  • নিম্ন রক্তচাপের কারণে মাথা ঘুরতে পারে, অজ্ঞান হয়ে পরে যেতে পারেন, যা আপনার নিজের এবং অনাগত শিশুর ক্ষতি ও আঘাতের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলতে পারে।
  • যদি রক্তচাপের অনেকটা পতন হয়, তবে এটি আপনার দেহে অক্সিজেন সরবরাহ কমিয়ে আনতে পারে, এইভাবে আপনার দেহের গুরুত্বপূর্ণ ক্রিয়াকলাপকে বাধা দেয়। অক্সিজেনের কম সরবরাহ আপনার শিশুর পক্ষে ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে, যা শিশুর হার্ট এবং মস্তিষ্কের উল্লেখযোগ্য ক্ষতি করে।

গর্ভাবস্থায় কিভাবে নিম্ন রক্তচাপের চিকিত্সা করা যায়

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের চিকিত্সার জন্য এখানে কিছু তথ্য ও প্রতিকার রয়েছে।

চিকিৎসা

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য তেমন কোন নির্ধারিত চিকিত্সা নেই। এমনকি গর্ভাবস্থায় এর ওষুধগুলির পরামর্শ দেওয়া হয় না, যদি না লক্ষণগুলি গুরুতর হয় বা জটিলতার সম্ভাবনা থাকে। যাইহোক, রক্ত ​​প্রবাহকে উত্সাহিত করার জন্য শারীরিক অনুশীলন করা, বসার সময় বা শুয়ে থাকার সময় সাবধানতা অবলম্বন করা এবং আপনি উঠে দাঁড়ানোর আগে আপনার গোড়ালি ও পা স্ট্রেচ করার মতো জীবনযাত্রায় সাধারণ পরিবর্তনগুলি দিয়ে বিষয়টি নিয়ন্ত্রণ করা যেতে পারে। এটি লক্ষ করা যায় যে রক্তচাপটি শেষ ত্রৈমাসিকে নিজে থেকেই বাড়তে শুরু করে।

আত্ম-সহায়তার প্রতিকার

নীচে উল্লিখিত গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য ঘরোয়া প্রতিকারগুলি ব্যবহার করতে পারেন।

১. লবণ জল

এটি নিম্ন রক্তচাপযুক্ত রোগীদের জন্য সাধারণত পরামর্শ দেওয়া হয়, কারণ লবণের মধ্যে সোডিয়াম রক্তচাপ বাড়ায়। তবে বেশি পরিমাণে লবণ জল খাবেন না, কারণ এটি আপনার স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকারক হতে পারে। এক গ্লাস জলে কেবল আধ চা-চামচ লবণ যোগ করুন এবং এটি পান করুন বা আপনি ওআরএসও নিতে পারেন।

২. কিশমিশ

কিশমিশ হল হাইপোটেনশনের চিকিত্সার একটি ঐতিহ্যবাহী তবে দুর্দান্ত উপায় ও সর্বোত্তম প্রতিকার। সারারাত জলে কিছু কিশমিশ ভিজিয়ে রাখুন এবং সকালে খালি পেটে সেই জল পান করুন। আপনি ভেজানো কিশমিশগুলিও খেয়ে নিন। কয়েক সপ্তাহ বা এক মাসের জন্য এটি অনুসরণ করুন।

৩. তুলসী

তুলসীতে ভিটামিন সি, ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম এবং প্যান্টোথেনিক অ্যাসিড জাতীয় পুষ্টি থাকে যা কম রক্তচাপের জন্য ভাল। তাছাড়া এটি মানসিক চাপ কমাতেও সহায়তা করে। আপনি তুলসী পাতা থেকে রস বের করতে পারেন, এক চা চামচ মধু যোগ করতে পারেন এবং খালি পেটে প্রতিদিন এটি গ্রহণ করতে পারেন। আপনি যদি স্বাদ পছন্দ করেন তবে প্রতিদিন সকালে কেবল তুলসী পাতা খেতে পারেন।

৪. বিটরুটের রস

আপনি প্রায় এক সপ্তাহ ধরে প্রতিদিন এক কাপ বিটরুটের রস পান করতে পারেন।

৫. আদা

আদা নিম্ন ও উচ্চ রক্তচাপের সাথে মোকাবিলা করতে কার্যকর, কারণ এটিতে শোগল, জিঞ্জারল এবং জিঞ্জারোন জাতীয় রাসায়নিকে পূর্ণ, সাথে নির্দিষ্ট যৌগ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা রক্তচাপের মাত্রার ভিন্নতা এড়াতে পারে।

৬. মৌরী

এটিতে পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাঙ্গানিজ, কপার, জিঙ্ক এবং ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে, যা আয়রন ও পটাশিয়ামের মাত্রা বাড়ায়, যা রক্তচাপ বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করতে পারে। আপনার খাবার রান্না করার সময় আপনি কেবল কিছু পরিমাণ মৌরি যুক্ত করতে পারেন।

৭. লেবুর রস

আর একটি দুর্দান্ত ঘরোয়া প্রতিকার হল লেবুর রস, বিশেষত যদি ডিহাইড্রেশনের কারণে রক্তচাপ কম হয়। লেবুর রস শক্তি সরবরাহ এবং হজমের সহায়ক, পাশাপাশি লিভারের কার্যকারিতা বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে।

৮. টাটকা গাজরের রস

তাজা গাজরের রস রক্ত ​​সঞ্চালন উন্নত করতে সহায়তা করতে পারে এবং তাই রক্তচাপের মাত্রা বজায় রাখতে পারে। আপনি প্রতিদিন সকালে মধুর সাথে তাজা গাজরের রস খেতে পারেন।

৯. বাদামের পেস্ট এবং দুধ

এটি সবচেয়ে জনপ্রিয় নির্ধারিত প্রতিকার। এই সংমিশ্রণটি অ্যাড্রিনালিন গ্রন্থিতে কাজ করতে পারে যা রক্তচাপকে স্থিতিশীল করতে পারে। সারারাত পাঁচ বা ছয়টি বাদাম ভিজিয়ে রাখুন, ত্বকে খোসা ছাড়ান এবং মসৃণ পেস্টে পিষে নিন। ফুটন্ত দুধে বাদামের পেস্ট যুক্ত করে ভালো করে নাড়ুন। রক্তচাপের মাত্রা উন্নত করতে এক কাপ বাদামের দুধ পান করুন।

এই ঘরোয়া প্রতিকার ছাড়াও শর্তটি নিয়ন্ত্রণে রাখতে আপনার প্রচুর পরিমাণে তরল পান করা উচিত। কোনো ঘরোয়া প্রতিকার বেছে নেওয়ার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা ভাল।

গর্ভাবস্থায় কম রক্তচাপ কি আমার শিশুর উপর প্রভাব ফেলবে?

যদিও কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে গর্ভাবস্থায় কম রক্তচাপের অবস্থা শিশুর জন্মের সময় কম ওজন এবং মৃত শিশু প্রসবের মতো সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে, অন্যান্য গবেষণায় জানা গেছে যে এই জাতীয় সমস্যাগুলি কিছু অন্যান্য কারণের সাথে সম্পর্কিত রয়েছে এবং এটি কেবল কম রক্তচাপের ফলাফল নয়।

গর্ভাবস্থায় কম রক্তচাপের কারণে মাথা ঘোরার সাথে মোকাবিলা করার টিপস

নিম্ন রক্তচাপের প্রধান লক্ষণগুলির মধ্যে একটি হল মাথা ঘোরা এবং অজ্ঞান হওয়া বোধ করা। যদি আপনি অজ্ঞান হয়ে পড়েন এবং পরে যান তবে এটি আপনার বা আপনার সন্তানের স্বাস্থ্যের ক্ষতি করতে পারে। গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের কারণে মাথা ঘোরা পরিচালনা করার কিছু উপায় এখানে রয়েছে।

১. দীর্ঘ সময়ের জন্য দাঁড়াবেন না। সংক্ষিপ্ত বিরতি নিন এবং বসুন, বিশেষত কোনো রান্না, কাপড় কাচা বা পরিষ্কারের মতো কোনো ঘরের কাজ করার সময়।

২. খুব গরম জলে স্নান এড়িয়ে চলুন, কারণ গরম জল রক্তনালীতে রক্তের প্রভাবকে আরও কমিয়ে দেয়, রক্তচাপ কমিয়ে দেয় এবং আপনাকে ক্লান্তি অনুভব করেন।

৩. আপনার মন সচল এবং সতেজ রাখতে সারা দিন নিয়মিত অল্প অল্প করে জল পান করে হাইড্রেটেড থাকুন।

৪. নিজের অবস্থান খুব দ্রুত পরিবর্তন করা এড়িয়ে চলুন, যেহেতু আপনি মাথা ঘোরা অনুভব করতে পারেন। আপনার শরীরকে অবস্থানের পরিবর্তনের সাথে সামঞ্জস্য করার জন্য কিছুটা সময় দিতে আস্তে আস্তে উঠুন বা বসুন।

৫. ঢিলেঢালা পোশাক পরুন, যা আপনাকে সংকীর্ণের চেয়ে আরো বেশি মুক্ত মনে করায়। এটি মাথার ঘোরার অনুভূতি কমিয়ে আনতে সহায়তা করবে।

৬. বাম পাশে ঘুরে থাকা অবস্থানে ঘুমান, কারণ এটি শিশুর রক্ত ​​সঞ্চালন বৃদ্ধি করে এবং মায়ের সুপাইন হাইপোটেনশন সিনড্রোমকে বাধা দেয়।

কখন কোন চিকিৎসকের সহায়তা নেবেন?

গর্ভাবস্থায়, নিম্ন রক্তচাপ গুরুতর মাথাব্যথা, আবছা দৃষ্টি, দুর্বলতা, শরীরের একপাশে অসাড়তা এবং শ্বাসকষ্টের মতো গুরুতর লক্ষণগুলি দেখা দিতে পারে। আপনি যদি উপরে উল্লিখিত কোনো লক্ষণ অনুভব করেন তবে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

উপরে বর্ণিত ঘরোয়া প্রতিকার এবং আপনার ডাক্তারের যথাযথ পরামর্শের মাধ্যমে আপনি গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন।