গর্ভাবস্থায় স্তন এবং স্তনবৃন্তের যত্ন নেওয়া

Breast and nipple care during pregnancy

গর্ভাবস্থা হল সেই সময়টি, যখন আপনার শরীর বিভিন্ন পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যায় এবং নতুন বাচ্চার জন্য খাপ খাইয়ে নিতে থাকে। স্তন এবং অ্যারিয়োলাতে পরিবর্তন বা স্তনের চারপাশের অঞ্চলের পরিবর্তন গর্ভাবস্থার একটি নির্দিষ্ট অংশ। তবে, যদি যথাযথ যত্ন না নেওয়া হয় তবে এই পরিবর্তনগুলি অস্বস্তির কারণ হতে পারে বা গর্ভাবস্থার পরে আপনার স্তনের আকারকে উল্লেখযোগ্যভাবে পরিবর্তন করতে পারে।

aniview

যদিও আপনার গর্ভাবস্থায় অনেক ব্যস্ত সময় থাকতে পারে, আপনার বাচ্চাকে বাড়িতে স্বাগত জানানোর জন্য প্রস্তুতির মতো বেশ কিছু দায়িত্ব থাকতে পারে; কয়েকটি ছোট টিপস ও রুটিন আপনার দেহের যত্ন নিতে, আপনার দেহের পরিবর্তনের কারণে যে কোনো অস্বস্তি রোধ করতে এবং একই সাথে গর্ভাবস্থা উপভোগ করতে সহায়তা করবে।

গর্ভাবস্থায় স্তনের সাধারণ পরিবর্তন

গর্ভাবস্থা বিভিন্নভাবে আপনার স্তনের উপস্থিতি এবং অনুভূতি পরিবর্তন করতে থাকে, যার মধ্যে অনেকগুলি অস্বস্তিও তৈরি করতে পারে। গর্ভাবস্থায় স্তনের কিছু সাধারণ পরিবর্তন আপনি লক্ষ্য করতে পারেন তা নিচে বর্ণনা করা হল।

১. বৃদ্ধি এবং কোমলতা

আপনার স্তন গর্ভাবস্থায় মাপে ১.৫ গুণ বেশি আকারে বড় হতে পারে এবং স্বাভাবিকের চেয়ে কোমল, ব্যথাযুক্ত এবং সংবেদনযুক্ত বোধ করবেন।

২. গাঢ় রঙের স্তনবৃন্ত এবং অ্যারিয়োলা

গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তনের ফলে স্তনের স্তনবৃন্ত এবং অ্যারিয়োলাগুলির ত্বকের রঙ গাঢ় হয়ে যায়।

৩. কোলোস্ট্রাম লিকেজ

আপনি স্তন থেকে কোলাস্ট্রোম লিক হওয়া অনুভব করতে পারেন, যা হল ঘন, হলুদ বর্ণের তরল।

৪. গাঢ় রঙের শিরা

স্তনগুলিতে রক্ত ​​সরবরাহ বাড়ার কারণে আপনার স্তনের শিরাগুলি গাঢ় রঙের হয়ে যেতে পারে এবং বেশ স্পষ্ট হতে পারে।

৫. স্তনবৃন্তের বৃদ্ধি

স্তনবৃন্ত এবং অ্যারিয়োলাগুলি গর্ভাবস্থায় আরও বড় হয়ে উঠবে।

গর্ভাবস্থায় স্তন এবং স্তনবৃন্ত যত্নের টিপস

বেশিরভাগ মহিলারা গর্ভাবস্থায় স্তনের যত্নকে অগ্রাহ্য করার ঝোঁক রাখেন, গর্ভাবস্থায় স্তনের যত্নের জন্য এখানে কয়েকটি টিপস রয়েছে যা আপনি আপনার প্রতিদিনের স্বাস্থ্যবিধিতে অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন।

১. সঠিক ব্রা পরুন

যেহেতু আপনার স্তনগুলি প্রথম ত্রৈমাসিক থেকে শুরু করে আকারে বাড়তে থাকে, তাই আপনাকে ব্রায়ের আকার কয়েকবার পরিবর্তন করতে হতে পারে। দম বন্ধ হওয়ার অনুভূতি এবং অস্বস্তি এড়াতে সর্বদা সঠিক আকারের ব্রা পরতে ভুলবেন না। আন্ডারওয়্যারের সাথে টাইট ব্রা এড়িয়ে চলুন। পরিবর্তে, হালকা প্যাডেড সুতির ব্রা বেছে নিন। আন্ডারওয়্যার ব্রা দুধের নালীগুলি ব্লক করে দুধের উত্পাদনকে বাধাগ্রস্থ করে। আপনি এমন ব্রায়ের সন্ধান করতে পারেন যা আপনার পিঠকে সঠিকভাবে সহায়তা দেয় যা আপনার ক্রমবর্ধমান স্তনের জন্য প্রয়োজনীয়।

২. ম্যাসাজ

আপনার স্তনবৃন্ত শুকিয়ে যেতে পারে এবং গর্ভাবস্থায় ফাটল ধরতে পারে। অতএব, স্তনবৃন্তের চারপাশে আর্দ্রতা বজায় রাখা গুরুত্বপূর্ণ। আপনি অলিভ তেল বা নারকেল তেল ব্যবহার করে এবং স্নানের আগে স্তনবৃন্তকে আলতোভাবে ম্যাসাজ করে এটি করতে পারেন। নারকেল তেল দিয়ে স্তন ম্যাসাজ করা রক্ত ​​সঞ্চালনে সহায়তা করতে, এগুলিকে উপরে তুলতে, দৃঢ় রাখতে এবং গর্ভাবস্থায় সাধারণত স্তন লিক হয়, তা রোধ করতে পারে।

৩. স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন

স্তনবৃন্ত থেকে বিশেষত শেষ ত্রৈমাসিকে, হলুদ বর্ণের গাঢ় দুধ কোলোস্ট্রাম লিক করে। এটি প্রায়শই ঘটতে পারে এবং স্তনবৃন্ত যাতে খুব বেশি সময় ভিজে না থাকে তার জন্য আপনার ব্রা পরিবর্তন করা গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটি ফাটল এবং সংক্রমণের কারণ হতে পারে। আপনার স্তনবৃন্তগুলি শুকনো রাখতে আপনি ব্রেস্ট-প্যাডগুলিও ব্যবহার করতে পারেন। এছাড়াও, আপনার স্তনবৃন্তগুলি নিয়মিত ধুয়ে ফেলতে ভুলবেন না, যাতে তার চারপাশে তরল জমা হতে বাধা দেয়।

৪. স্তনবৃন্তে কোনো সাবান দেবেন না

আপনার প্রতিদিনের স্নানের সময় স্তনবৃন্তে কোনো সাবান ব্যবহার না করার বিষয়টি সর্বদা নিশ্চিত করুন। সাবান স্তনবৃন্তকে শুষ্ক করে দেয় এবং এটি স্তনবৃন্তের অঞ্চলটিতে ফাটল তৈরি করে।

৫. ময়শ্চারাইজিং ক্রিম

স্নান করার পরে, স্তনবৃন্তগুলি খুব শুষ্ক লাগলে কিছু ময়শ্চারাইজিং ক্রিম লাগানো ভাল ধারণা।

৬. নিপল প্রোটেক্টর

কিছু মহিলা স্তনবৃন্তে কালশিটে ব্যথায় ভুগতে পারেন যা সহ্য করা শক্ত হতে পারে। আপনি কিছু নিপল প্রোটেক্টর কিনতে পারেন, যা কালশিটে বা ব্যথাকে আরও খারাপ হওয়া থেকে বিরত রাখতে পোশাক এবং স্তনের মাঝে প্যাড হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

যে সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত

স্তনের কিছু পরিবর্তন গর্ভাবস্থার অংশ হিসাবে আসে, অন্যদিকে এমন কিছু রয়েছে যা যথাযথ যত্ন এবং সতর্কতার সাথে এড়ানো যায়। নিম্নলিখিত সতর্কতামূলক ব্যবস্থাগুলি আপনাকে গর্ভাবস্থায় আপনার স্তনের যত্নের রুটিনে সহায়তা করতে পারে।

  • আপনার স্তন ধুতে সর্বদা হালকা গরম জল ব্যবহার করুন। তবে ক্ষতি এড়াতে ৪৫ ​​ডিগ্রি সেলসিয়াসের নীচে গরম জল ব্যবহার নিশ্চিত করুন।
  • আপনার ব্রা নিয়মিত পরিবর্তন করুন, দিনে অন্তত একবার। এটি স্তনবৃন্ত থেকে ঘাম এবং লিকেজজনিত কারণে হওয়া অস্বস্তি প্রতিরোধ করে।
  • যে কোনো পরিবর্তনের জন্য প্রতিদিন আপনার স্তনের পরীক্ষা করুন। যদি আপনি এমন কোনো অস্বাভাবিক পরিবর্তন দেখতে পান যা আপনার উদ্বেগের কারণ হয়, তবে আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে দ্বিধা করবেন না।
  • গর্ভাবস্থায় স্তনগুলিকে ঝুলে যাওয়া থেকে রোধ করার জন্য আর্ম রোটেশন (হাত ঘোরানো)-র মতো সাধারণ ব্যায়াম করুন।

গর্ভাবস্থা নতুন মায়েদের জন্য বেশ সমস্যার হতে পারে এবং অনেক মহিলার ক্ষেত্রে তাদের শরীরের যত্ন নেওয়ার জন্য খুব কমই সময় থাকে। তবে, আপনার শরীরের অংশগুলি যেমন স্তনগুলিকে উপেক্ষা করা এই সময়ে এগুলিকে ঝুলিয়ে দিতে এবং সঠিক আকারের বাইরে দেখাতে পারে। আপনার স্তন এবং স্তনবৃন্তগুলির যত্ন নেওয়ার জন্য প্রতিদিন কিছুটা সময় বরাদ্দ করা গর্ভাবস্থায় অনেক উপকারী হতে পারে এবং আপনার গর্ভাবস্থার পরে আসা সময়ে শরীরকে অনেক বছর ধরে আরও ভাল আকারে রাখতে পারে।