গর্ভাবস্থায় কনজাঙ্কটিভাইটিস (রক্তবর্ণ চক্ষু)

গর্ভাবস্থায় কনজাঙ্কটিভাইটিস (রক্তবর্ণ চক্ষু)

রক্তবর্ণ চক্ষু ‘কনজাঙ্কটিভাইটিস’ নামে পরিচিত এবং একটি সংক্রামক ব্যাধি,যা গর্ভাবস্থায় হয়ে থাকে।চোখের মধ্যে লালচে ভাব এবং অস্বস্তি হওয়ার পাশাপাশি রক্তবর্ণ চক্ষু আবার যৌন সংক্রমণ অথবা শারীরিক সংস্পর্শের কারণেও হয়ে থাকতে পারে।গর্ভাবস্থায় ‘রক্তবর্ণ চক্ষু’ অথবা ‘কনজাঙ্কটিভাইটিস’ সম্পর্কে আপনার যা কিছু জানা প্রয়োজন এখানে তার সব কিছু দেওয়া হল।

aniview

কনজাঙ্কটিভাইটিস কি?

কনজাঙ্কটিভাইটিস হল এমন একটি অবস্থা যা আপনার চোখের বহির্ভাগের সাদা অংশ সহ চোখের পাতার অভ্যন্তরে নিচের অংশকে প্রভাবিত করে।গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে এটি অত্যন্ত সাধারণ একটি সংক্রমণ হওয়ার কারণে এবং দীর্ঘ সময় ব্যাপী দৃষ্টি ব্যহত হওয়া অথবা চোখে ক্ষতি হওয়ার মত কোনও কারণ না থাকার জন্য কনজাঙ্কটিভাইটিসে সাধারণত কোনও উদ্বেগ সৃষ্টি হওয়ার কারণ নেই। কনজাঙ্কটিভাইটিসকে আবার ‘রক্তবর্ণ চক্ষু’ হিসেবেও উল্লেখ করা হয় এবং মোটামুটি এক সপ্তাহের মধ্যে সেরে যায়।

গর্ভাবস্থায় কনজাঙ্কটিভাইটিসের কারণগুলি কি?

গর্ভাবস্থায় কনজাঙ্কটিভাইটিসের কারণগুলি কি?গর্ভাবস্থায় কনজাঙ্কটিভাইটিসের সহিত নিম্নলিখিত কারণগুলি সম্পর্কিত-

1.ব্যাকটেরিয়া

যদি আপনার চোখ হলুদ পিচুটির সাথে লালচে দেখায় এবং তার সাথে ফুলে থাকে,তবে এটি ব্যাকটেরিয়াজনিত কনজাঙ্কটিভাইটিসের উদাহরণ।

2.ভাইরাস

ভাইরাল কনজাঙ্কটিভাইটিস হয়ে থাকে চোখে ভাইরাসসমূহের সংক্রমণের কারণে।এটি উভয় চোখকেই প্রভাবিত করতে পারে এবং তার সাথে যুক্ত হয় লালচে ভাব এবং চুলকানি।এই ক্ষেত্রে চোখ থেকে কিছুটা পিচুটি নির্গত হতে পারে।

3.ঋতুজনিত অ্যালার্জি

ঋতুজনিত অ্যালার্জি হওয়া হল একটি সাধারণ ঘটনা এবং গর্ভাবস্থায় কনজাঙ্কটিভাইটিস হওয়ার জন্য এটি দায়ী হয়ে উঠতে পারে।এটি সাধারণত বসন্ত কালে হয়ে থাকে এবং আপনি লক্ষ্য করবেন যে আপনার চোখগুলি লাল হয়ে ওঠে,চুলকায় এবং বিনা কারণেই জল পড়তে থাকে।

4.বহিরাগত বস্তু

যদি বালি,ময়লা,ধূলো অথবা যেকোনও বহিরাগত ধূলিকণা আপনার চোখের পাতার ভিতরে প্রবেশ করে,তবে এই কারণে আপনার চোখ চিঁড়ে যেতে,যন্ত্রণা হতে,জল পড়তে এবং লালচে হয়ে যেতে দেখতে পারেন।

5.রগড়ানো

আপনার নিজের চোখ খুব বেশী রগড়াণর ফলে সেটি চিঁড়ে যেতে পারে এবং লাল হয়ে ওঠে।সাধারণত একটা চোখেই প্রভাব পড়ে এবং প্রকৃতই যন্ত্রণা দায়ক হয়ে ওঠে।

6.সেক্সচুয়াল ট্রান্সমিটেড ইনফেকশন (STI) বা যৌনবাহিত সংক্রমণগুলি

যৌনবাহিত সংক্রমণগুলি(STI) ব্যক্তিদের মধ্যে কনজাঙ্কটিভাইটিস সংক্রমণটিকে প্রেরণ করে।

7.শারীরিক সংস্পর্শ

কারুর ঘনিষ্ঠ হলে অথবা এমনকি কনজাঙ্কটিভাইটিসে সংক্রামিত ব্যক্তিকে স্পর্শ করার ফলেও সংক্রমণটি অন্যদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে।

8.ক্ল্যামাইডিয়াল

এটি মহিলাদের মধ্যে হয়ে থাকা কনজাঙ্কটিভাইটিসের একটি বিরল কারণ,যা অন্তঃকোষীয় অঙ্গাণু ক্ল্যামাইডিয়াল ট্র্যাকোম্যাটির সাথে সম্পর্কিত।চোখের লালচে ভাব অন্যান্য কারণের থেকে গভীর হয় এবং নিম্ন টার্সেল কনজাঙ্কটিভিটার উপর ফলিক্যলগুলিকে উত্থিত হতে দেখা যায়।

রক্তবর্ণ চক্ষুর সাধারণ উপসর্গগুলি

গর্ভাবস্থায় রক্তবর্ণ চক্ষুর সাধারণ উপসর্গগুলি হলঃ

  • চোখের ভিতরে পুঁজ
  • লালচে ভাবের সাথে জল পড়তে থাকে অথবা হলুদ পিচুটি নির্গত হয়,
  • চোখ ফুলে ওঠে
  • উজ্জ্বল আলোয় সংবেদনশীলতা বেড়ে যায়
  • চোখের পাতার চারপাশে খড়ি ফুটে ওঠে
  • চোখ কড়কড় করতে থাকে
  • চুলকায় এবং যন্ত্রণা হয়

গর্ভবতী থাকালীন কীভাবে কনজাঙ্কটিভাইটিসের চিকিৎসা করবেন?

গর্ভাবস্থায় কনজাঙ্কটিভাইটিসের চিকিৎসা বিকল্পগুলি হল-

1.প্রাসঙ্গিক অ্যান্টিবায়োটিকস

আপনার ডাক্তারবাবু কনজাঙ্কটিভাইটিসের ধরণ নির্ধারণ করতে এবং উপযুক্ত অ্যান্টিবায়োটিকগুলি নির্বাচন করার জন্য আপনার চোখ পরীক্ষা করবেন। প্রেসক্রিপশনে লেখা হয় এমন অ্যান্টিবায়োটিকগুলি ডাক্তারবাবুর দ্বারা সুপারিশ করা উচিত যেহেতু এমন কিছু ধরনের অ্যান্টিবায়োটিক আছে যেগুলি ভ্রূণের ক্ষতি করতে পারে,সেই কারণে আপনি অবশ্যই আপনার ডাক্তারবাবুকে জানান যে আপনি গর্ভবতী।যদি আপনি গর্ভধারণের জন্য চেষ্টা চালান তবে সেক্ষেত্রেও এটি প্রযোজ্য।

2.আইড্রপ

এগুলি সাধারণত ব্যাকটেরিয়াজনিত কনজাঙ্কটিভাইটিসের চিকিৎসাতে ব্যবহার হয়ে থাকে।ক্ল্যামাইডিয়া কনজাঙ্কটিভাইটিসের বিরুদ্ধে খুব বেশী কার্যকর নয়।তবে আইড্রপগুলিকে সর্বদা ডাক্তারের পরামর্শের ভিত্তিতেই ব্যবহার করা উচিত।

3.অকুলার বা দৃষ্টি সংক্রান্ত চিকিৎসা

অকুলার বা দৃষ্টি সংক্রান্ত ওষুধগুলিকে গর্ভাবস্থায় কনজাঙ্কটিভাইটিসের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়ে থাকে।এ সম্পর্কে আরও তথ্যের জন্য,আপনার ডাক্তারবাবুকে জিজ্ঞাসা করে নিন কারণ অকুলার বা দৃষ্টি সংক্রান্ত চিকিৎসাগুলি করা হয়ে থাকে পরিস্থিতির ভিত্তির উপর নির্ভর করে।

গর্ভাবস্থায় রক্তবর্ণ চক্ষুর জন্য প্রাকৃতিক প্রতিকারসমূহ

গর্ভাবস্থায় রক্তবর্ণ চক্ষুর প্রাকৃতিক প্রতিকারগুলি হল-

1.উষ্ণ কমপ্রেস

উষ্ণ কমপ্রেস চোখ শুষ্ক হয়ে যাওয়ার উপসর্গগুলি দূর করে এবং রক্ত সঞ্চালনের উন্নতি ঘটায়।এটি প্রদাহ হ্রাস করে এবং গর্ভাবস্থায় রক্তবর্ণ চক্ষুর চিকিৎসায় উচ্চ মাত্রায় কার্যকর।

2.গোলাপ জল

আপনার চোখ পরিষ্কার করতে এবং যেকোনও ধূলিকণা অথবা চোখের পক্ষে উত্তেজক পদার্থকে অপসারিত করতে আপনি গোলাপ জলকে একটি প্রতিষেধক আইড্রপ হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।

3.ম্যাচা গ্রিন টি

ফুটন্ত জলের মধ্যে বেশ কিছু ম্যাচা গ্রিন টি ব্যাগ ডুবিয়ে রাখুন,এরপর সেগুলিকে ঠাণ্ডা হতে দিন এবং সংক্রমিত চোখের উপর প্রয়োগ করুন।

4.যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি

যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুশীলনের দ্বারা সর্বদা আপনার হাতগুলিকে পরিষ্কার রাখুন।এই সংক্রমণের প্রাদুর্ভাব এবং বিস্তারকে প্রতিরোধ করতে প্রতিদিন নিজেকে শারীরিকভাবে পরিষ্কার রাখার বিষয়টিকে নিশ্চিত করুন।

5.মধুর সহিত গোল মরিচ গুঁড়ো

হাফ চিমটে গোলমরিচ গুঁড়ো নিয়ে সেটিকে কিছুটা মধুর সাথে ভাল ভাবে মিশ্রিত করুন এবং সেটিকে আপনার চোখে প্রয়োগ করুন।আপনি একটা পার্থক্য বোধ করবেন।

6.হোমিওপ্যাথিক প্রতিকার

গর্ভবতী মহিলাদের ব্যবহারযোগ্য একটি হোমিওপ্যাথিক প্রতিকার হল ইউফ্র্যাসিয়া 30. এটি বড়ি রূপে পাওয়া যায় এবং বেশ কার্যকর হয় যখন এটির 5 টি করে বড়ি দিনে দুই বার করে 10 দিন সময় ব্যাপী খাওয়া হয়।

7.বুকের দুধ

বুকের দুধে একটি বিশেষ ধরনের অ্যান্টিবডি উপস্থিত থাকে যেটি রক্তবর্ণ চক্ষুর ব্যাকটেরিয়াকে আপনার চক্ষু শ্লেষ্মার উপরিতলে প্রসারিত হওয়া থেকে বাধা সৃষ্টি করে।এটি বিশেষ করে কনজাঙ্কটিভাইটিসের বিরুদ্ধে কার্যকর।

8.কলয়ডীয়াল সিলভার

সিলভার বা রূপার দ্রবণ অথবা কলয়ডীয়াল সিলভার গর্ভাবস্থায় চোখের সংক্রমণগুলির চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করা হয়।এর অয়েনমেন্ট বা মলম সংস্করণটি বেশীরভাগ মা এবং চিকিৎসকরা পছন্দ করে থাকেন।

9.আইব্রাইট টি

আইব্রাইট টি-এর মত ভেষজ চা-টি কনজাঙ্কটিভাইটিস নিরাময়ে বিশেষভাবে কার্যকর।যারা এই চা পান করতে পছন্দ করেন না তাদের জন্য আইব্রাইট ক্যাপসুলগুলি সহজলভ্য।

10.লবণ জলের দ্রবণ দ্বারা চোখ ধুয়ে নেওয়া

আপনার চোখগুলিকে সামান্য লবণ জলের দ্রবণ দ্বারা ধুয়ে নেওয়া হল কনজাঙ্কটিভাইটিসের জন্য অন্য আরেকটি কার্যকর ঘরোয়া প্রতিকার।

11.কাঁচা আলু

শুনতে অদ্ভুত লাগতে পারে কিন্তু তাজা কাঁচা ঠাণ্ডা আলু কনজাঙ্কটিভাইটিসের কারণে হয়ে থাকা যন্ত্রণা প্রশমনের ক্ষেত্রে কার্যকর।

12.ঠাণ্ডা কমপ্রেস

কনজাঙ্কটিভাইটিসের চিকিৎসায় একটি ঠাণ্ডা কমপ্রেস বেশ কার্যকর।এই সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়াকে প্রতিরোধ করতে প্রতিটি চোখের জন্য পৃথক পৃথক ওয়াশক্লথ ব্যবহার করার ব্যাপারটিকে সুনিশ্চিত করুন।

13.তুলসী

তুলসী-এর নিরাময় বৈশিষ্ট্যাবলী এবং ছত্রাক, ব্যাকটিরিয়া এবং ভাইরাল কনজাঙ্কটিভাইটিসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য পরিচিত।তুলসী পাতাগুলিকে পরিষ্কার জলে ভাল করে ধুয়ে নিয়ে ফোটানো জলের মধ্যে 10 মিনিটের জন্য ভিজিয়ে রাখুন এবং এই জলটিকে এবার একটি আই ওয়াশ বা চক্ষু পরিষ্কারক হিসেবে ব্যবহার করুন অথবা একটি পরিষ্কার তুলোর বলকে এর মধ্যে ভিজিয়ে নিয়ে সেটিকে চোখের উপর প্রয়োগ করুন।

14.অ্যালোভেরা জেল

আপনার চোখে কনজাঙ্কটিভাইটিস লক্ষ্য করার পর প্রদাহ হ্রাস করার জন্য আপনার চোখ এবং চোখের পাতায় অ্যালোভেরা জেল প্রয়োগ করুন।

15.হলুদ

দুই টেবল-চামচ হলুদ গুঁড়ো নিয়ে সেটিকে এক কাপ ফুটানো জলের মধ্যে ঢেলে সেটিকে ভাল করে মিশিয়ে নিন।এবার একটি ওয়াশক্লথ বা তুলোর প্যাডের সাহায্যে এই মিশ্রণটিকে আপনার চোখে ধীরে ধীরে প্রয়োগ করুন।

গর্ভাবস্থায় রক্তবর্ণ চক্ষু কীভাবে প্রতিরোধ করবেন?

আপনি গর্ভাবস্থায় রক্তবর্ণ চক্ষু প্রতিরোধ করতে পারেন নিম্নলিখিত ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে-

  • অন্যদের সাথে আইড্রপ,চোখ মোছার রুমাল এবং প্রসাধনীগুলি ভাগ করে নেওয়া থেকে বিরত থাকুন।
  • সংক্রামিত ব্যক্তির সহিত শারীরিক সংস্পর্শ এড়িয়ে চলুন।
  • STI আছে এমন ব্যক্তিদের সহিত যোগাযোগ এড়িয়ে চলুন।
  • চোখে ধূলো-বালির কণা প্রবেশ প্রতিহত করতে চক্ষু সুরক্ষিত বর্ম বা চশমা পরিধান করুন।
  • হাত পরিষ্কার করে ধোন এবং নিয়মিত যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুশীলন করুন।
  • নিয়মিত আপনার চোখ ধুয়ে নিন এবং সম্পূর্ণরূপে শুকনো করে নিন।

কনজাঙ্কটিভাইটিস কি গর্ভাবস্থাকে প্রভাবিত করতে পারে?

কনজাঙ্কটিভাইটিসের চিকিৎসায় অ-ফার্মোকলজিক্যাল চিকিৎসা পদ্ধতিগুলির ব্যবহার পছন্দ করা হয় কারণ এগুলি গর্ভাবস্থায় কনজাঙ্কটিভাইটিসের বিপপদগুলিকে প্রতিরোধ করে।সুতরাং হ্যাঁ,যদি আপনি এর চিকিৎসার জন্য অ্যান্টিবায়োটিকস অথবা প্রেসক্রিপশনে নির্ধারিত ওষুধগুলি ব্যবহার করে থাকেন,কোন রাসায়নিকগুলি আপনার ভ্রূণে প্রবেশ করছে তার উপর নির্ভর করে এটি আপনার গর্ভাবস্থায় প্রভাব ফেলতে পারে।

সময় পেলে কনজাঙ্কটিভাইটিস স্বাভাবিকভাবেই চলে যায় এবং সাধারণত এটি কোনও উদ্বেগের কারণ নয়।যদি এক সপ্তাহের বেশী সময় ধরে সেটি একইভাবে হয়ে থাকতে লক্ষ্য করে থাকেন,তবে আপনার ডাক্তারবাবুর সাথে যোগাযোগ করুন এবং চিকিৎসাজনিত পরামর্শের জন্য কথা বলুন।