বাচ্চাদের জন্য শীর্ষ 15টি সংক্ষিপ্ত নৈতিক গল্প

বাচ্চাদের জন্য শীর্ষ 15টি সংক্ষিপ্ত নৈতিক গল্প

আজকের ব্যস্ত সময়সূচীতে এবং সর্বজনীন প্রযুক্তিতে, আমরা ইন্টারনেটে আমাদের শিশুদেরকে বিনোদন পাওয়ার সুযোগ দিয়েছি। যাইহোক, কিছু গল্পের সাহায্যে আপনার ছোট্টের সাথে সামান্য গুণমানের সময় কাটাতে এবং তার সাথে কিছু জ্ঞান বিতরণ করার সমতূল্য আর কিছুই হয় না। আপনি আপনার সন্তানকে আপনার নৈতিক মূল্যবোধগুলির সাথে মিলিয়ে একটি গল্প বলতে পারেন।

aniview

আপনার সন্তানের জন্য মজাদার এবং আনন্দদায়ক নৈতিক কিছু গল্প

1. সূঁচ গাছসূঁচ গাছ

একবার দুই ভাই বনের প্রান্তে বসবাস করত। বড় ভাই তার ছোট ভাইয়ের প্রতি খুব নীচ মনোভাব জ্ঞাপন করত এবং সমস্ত খাবার খেয়ে ফেলতো ও তার সমস্ত ভাল কাপড় নিয়ে নিত। একদিন, বড় ভাই বাজারে বিক্রি করার জন্য কিছু কাঠের সন্ধানে বনে গিয়েছিল। সে বৃক্ষের পরে বৃক্ষের ডালপালা কাটতে কাটতে ঘুরে বেড়াতে বেড়াতে, একটি যাদুকর গাছের সামনে এল। গাছটি তাকে বলল, ‘ওহে মহাশয়, দয়া করে আমার শাখা কাটবেন না। আপনি যদি আমাকে ছেড়ে দেন, আমি আপনাকে আমার সোনার আপেল দেব। বড় ভাই রাজি হল কিন্তু গাছ যে কটা আপেল দিল তাতে সে হতাশ হল। সে লোভে কাবু হয়ে গেল, এবং গাছকে হুমকি দিল যে আরো আপেল না দিলে সে গোড়া থেকে গাছটি কেটে ফেলবে। তার পরিবর্তে গাছটি বড় ভাইয়ের উপর শত শত ক্ষুদ্র সূঁচ বর্ষণ করল। যখন সূর্য দিগন্তের নিচে নেমে গেল, বড় ভাই বেদনায় মাটির উপর শুয়ে পড়ল।

ছোট ভাই চিন্তিত হয়ে বড় ভাইয়ের সন্ধানে গেল। সে তাকে চামড়ার উপর শত শত সূঁচ ফোটা অবস্থায় দেখতে পেল। সে তার ভাইয়ের কাছে দৌড়ে গেল এবং যন্ত্রনা সহ্য করেও ভালোবাসার সাথে প্রতিটি সূঁচ তুলে ফেলল। শেষ হওয়ার পর, বড় ভাই তার সাথে খারাপ ব্যবহার করার জন্য ক্ষমা চাইল এবং এবার থেকে ভালো হওয়ার অঙ্গীকার করল। গাছটি বড় ভাইয়ের অন্তরের পরিবর্তন দেখল এবং তাদের যত সোনার আপেলের প্রয়োজন ছিল সব দিল।

গল্পের নীতিকথা

সদয় এবং ক্ষমাশীল হওয়া গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটির জন্য সবসময় পুরস্কৃত করা হবে।

2. বুদ্ধি দিয়ে গণনাবুদ্ধি দিয়ে গণনা

একবার আকবর তার আদালতে এমন একটি প্রশ্ন রেখেছিলেন যে সবাই অবাক হয়ে গিয়েছিল। যখন তারা সবাই উত্তর বের করার চেষ্টা করছিল, বীরবল এগিয়ে গিয়ে জিজ্ঞেস করলেন যে কি ব্যাপার। আর তাই তারা তাঁকে প্রশ্নটি বলল।

শহরে কতগুলো কাক আছে?’

বীরবল সঙ্গে সঙ্গেই হাসলেন, আকবরের কাছে গিয়ে ঘোষণা করলেন যে তাঁর প্রশ্নের উত্তর হল, একুশ হাজার পাঁচশো তেইশটি। যখন জানতে চাইলেন তিনি কিভাবে উত্তরটি জানলেন, তখন বীরবল উত্তর দিলেন, ‘আপনার লোকেদের কাকেদের সংখ্যা গণনা করতে বলুন। যদি আরো থাকে, তাহলে শহরের বাইরে থেকে কাকেদের আত্মীয়রা তাদের পরিদর্শন করতে এসেছে। যদি কম থাকে, তবে কাকেরা শহরের বাইরে তাদের আত্মীয়স্বজনের সাথে দেখা করতে গেছে। উত্তর পেয়ে খুশী হয়ে, আকবর বীরবলকে একটি রুবি এবং মুক্তার হার উপহার দিলেন।

গল্পের নীতিকথা

আপনার উত্তরের একটি ব্যাখ্যা থাকা একটি উত্তর থাকার সমান গুরুত্বপূর্ণ।

3. যে ছেলেটি নেকড়ে বলে চিৎকার করত

যে ছেলেটি নেকড়ে বলে চিৎকার করত

একসময় এক ছেলে ছিল, যার বাবা একদিন তাকে বলল যে সে যথেষ্ট বড় হয়েছে এবং এখন ভেড়াদের যত্ন নিতে পারে। প্রতিদিন তাকে ঘাসের মাঠে ভেড়া নিয়ে যেতে হত এবং ঘন উলওয়ালা শক্তিশালী ভেড়া হয়ে যাওয়ার জন্য তাদের চড়তে দেখতে হত। ছেলেটি তবুও অসুখী ছিল। সে দৌড়াতে এবং খেলতে চাইত, বিরক্তিকর ভেড়া পাহারা দিতে চাইত না। তাই, সে পরিবর্তে কিছু মজা করার সিদ্ধান্ত নিল। সে চিৎকার করে বলল, ‘নেকড়ে! নেকড়ে!’ যতক্ষণ না পুরো গ্রামের লোক নেকড়েকে তাড়ানোর জন্য পাথর নিয়ে দৌড়ে এল, যাতে সেটি একটিও ভেড়াটি না খেয়ে ফেলতে পারে । যখন তারা দেখল যে কোন নেকড়ে নেই, ছেলেটি তাদের সময় নষ্ট করছে এবং এ সময় তাদের ভয় দেখিয়েছে দেখে তাদের বিড়বিড় করতে করতে চলে গেল। পরের দিন, ছেলেটি আবার চিৎকার করে বলল, ‘নেকড়ে! নেকড়ে! আর গ্রামবাসীরা আবার নেকড়ে তাড়াতে দৌড়ে এল।

ছেলেটি তাদের ভয় দেখে যখন হেসে উঠল, গ্রামবাসীরা চলে গেল, কেউ কেউ বেশী রেগে গেল। তৃতীয় দিন, ছেলেটি ছোট্ট একটা পাহাড়ে উঠল, তখন হঠাৎ সে দেখল যে একটা নেকড়ে তার ভেড়াটার উপর আক্রমণ করল। সে যত জোরে সম্ভব চিৎকার করল নেকড়ে! নেকড়ে! নেকড়ে! ‘, কিন্তু গ্রামবাসীরা ভাবল যে সে আবার তাদের বোকা বানানোর চেষ্টা করছে এবং ভেড়া উদ্ধার করতে এল না। সেই ছোট্ট ছেলেটি সেই দিন তিনটি ভেড়া হারাল, কারণ সে আগে বড্ড বেশী বার নেকড়ে বলে চিৎকার করেছিল।

গল্পের নীতিকথা

মনোযোগ পাওয়ার জন্য কাহিনী বানিও না, কারণ যখন এটির আসল প্রয়োজন হবে কেউ তোমাকে সাহায্য করবে না।

4. সোনার স্পর্শসোনার স্পর্শ

এটি একটি খুব লোভী ধনী মানুষের গল্প, যে একটি পরীর দেখা পেয়েছিল। পরীর চুল কিছু গাছের শাখায় আটকে যায়। তাঁর আরো অর্থ উপার্জন করার সুযোগ রয়েছে বুঝতে পারে, তিনি পরীকে সাহায্য করার বদলে তার একটি ইচ্ছা পূরণ করতে বললেন। তিনি বললেন, ‘যা আমি স্পর্শ করব তাই যেন সোনা হয়ে যায়‘, এবং তার এই ইচ্ছা কৃতজ্ঞ পরী মেনে নিল।

লোভী লোকটি তার স্ত্রী ও মেয়েকে তার নতুন বর সম্পর্কে বলার জন্য বাড়িতে ছুটলেন, পথে সব পাথর ও নুড়ি স্পর্শ করে সোনায় রূপান্তরিত করতে করতে চললেন। বাড়ি ফেরার পর তাঁর মেয়েটি তাঁকে অভিবাদন করার জন্য দৌড়ে এল। যেই তিনি ঝুঁকে তাকে কোলে নিলেন, সে একটি সোনার মূর্তিতে পরিণত হল। তিনি তাঁর মূর্খতা বুঝতে পারলেন এবং তাঁর বাকি দিনগুলোতে তার ইচ্ছাকে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য পরীর অনুসন্ধান করেছিলেন।

গল্পের নীতিকথা

লোভ সবসময় একটি পতন ডেকে আনে।

5. দুধওয়ালী ও তার বালতিদুধওয়ালী ও তার বালতি

প্যাটি দুধওয়ালী সবে তার গরুর দুধ দোওয়া শেষ করেছে এবং দুইটি বালতি তাজা ক্রিমযুক্ত দুধে ভরা ছিল। সে একটি লাঠিতে দুটি বালতি আটকালো এবং বাজারে বালতি ভর্তি দুধ বিক্রীর জন্য বেরোলো। পথে যেতে যেতে সে ভাবতে শুরু করল তার বালতি ভর্তি দুধের কথা এবং কত টাকা সে পাবে।

একবার আমি টাকা পেলে, আমি একটি মুরগি কিনবো‘, সে ভাবলো। মুরগি ডিম দেবে আর আমি আরো মুরগি পাব। তারা সবাই ডিম দেবে এবং আমি তাদের আরো অর্থের জন্য বিক্রি করতে পারি। তারপর আমি পাহাড়ে একটি বাড়ি কিনবো এবং গ্রামের প্রত্যেকে আমাকে হিংসা করবে। তারা আমাকে মুরগির খামার বিক্রি করতে বলবে, কিন্তু আমি এইভাবে আমার মাথা নাড়াব এবং অস্বীকার করবো।’ এই বলে, প্যাটি, দুধওয়ালী মাথা নাড়াল এবং তার বালতি পড়ে গেল। প্যাটি চিৎকার করে উঠল যখন সব দুধ মাটিতে ছড়িয়ে গেল।

গল্পের নীতিকথা

ডিম পাড়ার আগে মুরগির সংখ্যা গুণো না।

6. যখন বিপত্তি দরজায় ধাক্কা দেয়যখন বিপত্তি দরজায় ধাক্কা দেয়

এটি একটি গল্প যা বিভিন্ন মানুষ কিভাবে আলাদা আলাদাভাবে বিপত্তির মোকাবিলা করে তা ব্যাখ্যা করে। আশার বাবা একটি ডিম, একটি আলু, এবং কিছু চা পাতা তিনটি পৃথক পাত্রের মধ্যে ফুটন্ত জলে রেখেছিলেন। তিনি আশাকে দশ মিনিটের জন্য পাত্রগুলির উপর নজর রাখতে বললেন। এই দশ মিনিট শেষ হলে, তিনি আশাকে আলুর খোসা ছাড়াতে, ডিমের খোসা ছাড়াতে এবং চা পাতাগুলো ছেঁকে নিতে বললেন। আশা অবাক হয়ে গেল!

তার বাবা ব্যাখ্যা করলেন, ‘এই জিনিসগুলির প্রত্যেকটিই উষ্ণ জলের পাত্রের মধ্যে একই অবস্থায় রাখা হয়েছিল। তারা কিভাবে ভিন্নভাবে সাড়া দিয়েছে দেখো। আলু এখন নরম, ডিম এখন কঠিন, এবং চা জলকেই পরিবর্তন করে দিয়েছে। আমরা সবাই এই জিনিসগুলির মতো। যখন বিপত্তি আসে, আমরা ঠিক তাদের মতো করেই প্রতিক্রিয়া জানাই। এখন তুমি কি আলু, ডিম, না চা চা পাতা? ‘

গল্পের নীতিকথা

আমরা একটি কঠিন পরিস্থিতিতে কিভাবে সাড়া দেব তা বেছে নিতে পারি।

7. গর্বিত গোলাপগর্বিত গোলাপ

একসময় এমন একটি গোলাপ ছিল যে তার সুন্দর চেহারা নিয়ে গর্বিত ছিল। তার একমাত্র হতাশা ছিল যে সে কুৎসিত ক্যাকটাসের পাশে বেড়ে উঠেছিল। প্রতিদিন, গোলাপ ক্যাকটাসকে তার চেহারা নিয়ে অপমান করত, কিন্তু ক্যাকটাস চুপ করে থাকত। বাগানের অন্যান্য সমস্ত গাছপালা গোলাপকে বোঝানোর চেষ্টা করেছিল, কিন্তু সে তার নিজের ভালো চেহারা নিয়ে খুব প্রভাবিত ছিল।

এক গ্রীষ্মে, বাগানে উপস্থিত কুয়োটি শুকিয়ে গেল এবং গাছগুলির জন্য জল রইল না। গোলাপ নিস্তেজ হতে শুরু করল। সে দেখল একটি চড়ুই ক্যাকটাসের মধ্যে ঠোঁট ডুবিয়ে জল খাওয়ার চেষ্টা করছে। লজ্জিত হলেও, সে ক্যাকটাসকে জিজ্ঞেস করল, যদি সেও কিছু জল পেতে পারে। সদয় ক্যাকটাস সহজেই সম্মত হল এবং তারা উভয়ই কঠিন গ্রীষ্ম বন্ধু হিসাবে পার করে দিল।

গল্পের নীতিকথা

চেহারা দিয়ে কাউকে বিচার করবে না।

8. পেনসিলের গল্পপেনসিলের গল্প

রাজের মন খারাপ ছিল কারণ সে ইংরেজি পরীক্ষায় খারাপ ফল পেয়েছে। তার ঠাকুমা তার সাথে বসলেন এবং তাকে একটা পেন্সিল দিলেন। রাজু অবাক হয়ে ঠাকুমার দিকে তাকাল এবং বলল যে, পরীক্ষায় এরকম করার পর সে পেন্সিল পাওয়ার যোগ্য নয়। তার ঠাকুমা ব্যাখ্যা করলেন, ‘তুমি এই পেন্সিল থেকে অনেক কিছু শিখতে পার, কারণ এটি তোমারই মতো। এটিকে ধারালো করার সময় এটি যন্ত্রণা অনুভব করে, ঠিক যেমনভাবে তোমার পরীক্ষায় ভাল না করায় তুমি ব্যথা পেয়েছ। তবে, এটি তোমাকে একজন ভালো ছাত্র হতে সাহায্য করবে। ঠিক যেমন পেন্সিল থেকে যে ভালো জিনিস আসে তা এটির নিজের মধ্যে থেকেই আসে, তেমনি তুমিও এই বাধা অতিক্রম করার শক্তি পাবে। এবং অবশেষে, ঠিক যেমন এই পেন্সিলটি কোনো পৃষ্ঠায় তার চিহ্ন তৈরি করে, তেমনি তুমিও তোমার পছন্দ করা কোনো কিছুতে তোমার চিহ্নটি ছেড়ে যাবে। রাজ সঙ্গে সঙ্গেই সান্ত্বনা পেল এবং সে নিজের কাছে প্রতিজ্ঞা করল যে আরও ভালো করবে।

গল্পের নীতিকথা

আমাদের সকলেরই মধ্যেই আমরা যা হতে চাই তা হওয়ার শক্তি আছে।

9. স্ফটিক বলস্ফটিক বল

নাসির তার বাগানে একটি কলা গাছের পিছনে একটি স্ফটিকের বল পেল। যখন গাছটি তাকে বলল যে সে তার একটা ইচ্ছা পূরণ করবে, সে অনেক ভাবল, কিন্তু সে চায় এমন কিছুর কথা ভাবতে পারল না। তাই সে তার ব্যাগের মধ্যে স্ফটিক বলটি রাখল এবং তার ইচ্ছা স্থির করতে অপেক্ষা করল। কোনো ইচ্ছা প্রকাশ না করেই দিন কেটে চলল, কিন্তু তার সবচেয়ে ভালো বন্ধু তাকে স্ফটিক বলের দিকে তাকিয়ে থাকতে দেখল। সে নাসিরের কাছ থেকে সেটি চুরি করে গ্রামের সবাইকে দেখাল। তারা সবাই প্রাসাদ ও সোনা চাইল কিন্তু একটির বেশী ইচ্ছা চাইতে পারল না। শেষ পর্যন্ত, সবাই রেগে উঠল, কারণ কেউই সবকিছু পেতে পারল না। তারা খুব অখুশী হয়ে নাসিরকে সাহায্যের জন্য বলার সিদ্ধান্ত নিল। নাসিরের এই ইচ্ছা করল যে, গ্রামবাসীরা তাদের লোভ পূরণ করার চেষ্টা করার আগে সবকিছু যেমন ছিল সেরকম হয়ে যাক। প্রাসাদ ও সোনা অদৃশ্য হয়ে গেল এবং গ্রামবাসীরা আবারও সুখী ও পরিতৃপ্ত হয়ে উঠল।

গল্পের নীতিকথা

অর্থ এবং সম্পদ সুখ আনে না।

10. লাঠির বান্ডিললাঠির বান্ডিল

তিন প্রতিবেশী তাদের ফসল সঙ্গে সমস্যায় পড়েছিল। তিনটি ক্ষেতেই ফসল ছিল এবং কীটপতঙ্গে ছেয়ে গিয়ে নিস্তেজ হয়ে পড়ছিল। প্রতিদিন তারা তাদের ফসল বাঁচানোর জন্য বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা করত। প্রথম জন একটি কাকতাড়ুয়া ব্যবহার করল, দ্বিতীয় জন কীটনাশক দিল, এবং তৃতীয় জন তার ক্ষেতের চারদিকে একটি বেড়া লাগাল, কিন্তু কিছুতেই লাভ হল না। একদিন গ্রামের প্রধান এসে তিনজন কৃষককেই ডাকলেন। তিনি তাদের প্রত্যেককে একটি করে লাঠি দিলেন এবং লাঠিগুলি ভাঙতে বললেন। কৃষকরা সহজেই সেগুলি ভেঙে দিল। তখন তিনি তাদের তিনটি লাঠির একটি বান্ডিল দিলেন এবং এটিকে ভাঙতে বললেন। এই বার, কৃষকরা লাঠি ভাঙার জন্য খুব পরিশ্রম করল। গ্রামের প্রধান বললেন, ‘একা একা কাজ করার চেয়ে আপনারা একসাথে বেশী শক্তিশালী। কৃষকরা তাদের সম্পদ একত্রিত করল এবং তাদের ক্ষেতের কীটপতঙ্গ থেকে মুক্তি পেল।

গল্পের নীতিকথা

ঐক্যে শক্তি আছে।

11. এক গ্লাস দুধএক গ্লাস দুধ

একদিন হরি স্কুল থেকে বাড়ি যাওয়ার সময় হঠাৎ অত্যন্ত ক্ষুধার্ত হয়ে পড়ল এবং জানত তার মায়ের কাছে বাড়িতে এখন তার জন্য কোনো খাবার প্রস্তুত থাকবে না। সে মরিয়া হয়ে উঠল এবং ঘরে ঘরে গিয়ে খাবার চাইতে থাকল। অবশেষে, একটি মেয়ে তাকে একটি বড় গ্লাসভর্তি দুধ দিল। সে যখন তাকে পরিশোধ করার চেষ্টা করল, তখন সে প্রত্যাখ্যান করল এবং তাকে তার পথে পাঠিয়ে দিল। অনেক বছর পর, মেয়েটি, এখন একটি বয়স্ক মহিলা, খুব অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং তাকে নিরাময় করতে পারে এমন কাউকে খুঁজে পেলেন না। অবশেষে, তিনি একটি বড় হাসপাতালে গেলেন যেখানে শহরের সর্বশ্রেষ্ঠ ডাক্তাররা আসেন। ডাক্তারটি মহিলাটি নিরাময় না হওয়া পর্যন্ত তাঁকে অনেক মাস ধরে চিকিৎসা করলেন। মহিলাটি খুশী ছিলেন, কিন্তু ভীতও ছিলেন যে তিনি বিল পরিশোধ করতে পারবেন না। হাসপাতাল যখন তাঁর হাতে বিলটি দিল, তিনি এটি পড়তে শুরু করলেন, ‘এক গ্লাস দুধ দিয়ে পূর্ণ পরিশোধ

গল্পের নীতিকথা

একটি ভালো কাজ কখনও অপুরস্কৃত থাকে না।

12. খেঁকশিয়াল এবং আঙুরখেঁকশিয়াল এবং আঙুর

একটি খেঁকশিয়াল একবার খুব ক্ষুধার্ত হয়েছিল এবং কিছু খাবারের সন্ধানে গিয়েছিল। সে সর্বত্র খুঁজল, কিন্তু কোথাও খাবার মতো কিছু পেল না। অবশেষে, তার পেট যখন ছিঁড়ে যাওয়ার অবস্থা হল, তখন সে একটি কৃষকের প্রাচীরের উপর এসে দাঁড়াল। প্রাচীরের উপরে এত বড়, রসালো আঙুর ছিল যা খেঁকশিয়াল আগে কখনও দেখেনি। গাঢ় বেগুনী রঙ শিয়ালকে বলছিল যে তারা খাওয়ার উপযুক্ত। শিয়াল তার মুখের মধ্যে আঙ্গুর ধরতে হাওয়ায় জোরে লাফ দিল, কিন্তু ব্যর্থ হল। সে আবার চেষ্টা করল এবং আবার ব্যর্থ হল। সে আরো কয়েক বার চেষ্টা করল, কিন্তু প্রতি বার ব্যর্থ হল। অবশেষে, খেঁকশিয়াল বাড়ি ফেরার সিদ্ধান্ত নিল এবং বিড়বিড় করতে লাগল, ‘আমি নিশ্চিত যে আঙুরের রস এখনও টক ছিল

গল্পের নীতিকথা

যা পেতে পারেন না সেটাকে ঘৃণা করা সহজ।

13. পিপীলিকা এবং ফড়িংপিপীলিকা এবং ফড়িং

দুটি ভাল বন্ধু ছিল একটি পিঁপড়ে এবং একটি ফড়িং। ফড়িং সারাদিন আরামে কাটাতে এবং তার গিটার বাজাতে পছন্দ করত। পিঁপড়েটি, কিন্তু, সমস্ত দিন কঠোর পরিশ্রম করত। সে বাগানের সব কোণ থেকে খাবার সংগ্রহ করত, যেখানে ফড়িংটি আরাম করত বা তার গিটার বাজাত বা ঘুমাত। ফড়িংটি প্রতিদিনই পিঁপড়েকে একটি বিরতি নিতে বলত, কিন্তু পিঁপড়ে শুনত না এবং তার কাজ চালিয়ে যেত। শীঘ্রই, শীত এল। দিন ও রাত ঠান্ডা হয়ে গেল এবং খুব কম প্রাণী বাইরে বেরোত। ফড়িং কোনো খাবার পেত না এবং সব সময় ক্ষুধার্ত থাকত। কিন্তু, পিঁপড়েটির কাছে সারা শীত নিরুদ্বেগে কাটানোর মতো যথেষ্ট পরিমাণে খাবার সঞ্চিত ছিল।

গল্পের নীতিকথা

সময় ভালো থাকতে থাকতে কাজকর্ম গুছিয়ে নাও।

14. ভেজা প্যান্টভেজা প্যান্ট

অজয় একটি ছোট ছেলে যে তার স্কুল এবং তার সহপাঠীদের পছন্দ করত। একদিন, সে যখন তার ডেস্কে বসেছিল, তখন সে হঠাৎ ভেজা অনুভব করল এবং বুঝতে পারল সে তার প্যান্ট ভিজিয়ে ফেলেছে! মনঃক্ষুণ্ণ অজয় জানত না কি করতে হবে বা বলতে হবে, কারণ সে জানত যে ক্লাসে সবাই তার প্যান্ট ভিজানোর জন্য তাকে নিয়ে মজা করবে। সে তার ডেস্কে বসে যে কোন সাহায্যের জন্য প্রার্থনা করছিল। দীক্ষা ক্লাসের গাছপালাকে জল দেওয়ার জন্য একটি জগে করে জল নিয়ে যাচ্ছিল। অজয়ের ডেস্কের কাছে গিয়ে সে হঠাৎ হোঁচট খেয়ে জগের পুরো জল তার কোলে ফেলে দিল। অজয়কে সাহায্য করার জন্য সবাই দৌড়ে গেল। শিক্ষক দীক্ষাকে বকলেন এবং অজয়কে একটি অতিরিক্ত সেট শর্টস দিলেন। দিনের শেষে, অজয়ের সাথে বাসে দীক্ষার দেখা হলো। সে জিজ্ঞাসা করল, তুমি ইচ্ছে করে ওই কাজ করলে, তাই না? দীক্ষা উত্তর দিল, ‘আমিও আগে আমার প্যান্ট ভিজিয়ে ফেলেছিলাম।

গল্পের নীতিকথা

অন্যদের প্রয়োজনে সাহায্য করো।

15. ভাল্লুক এবং দুই বন্ধুভাল্লুক এবং দুই বন্ধু

দুই সেরা বন্ধু একটি জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে একটি নির্জন এবং বিপজ্জনক পথ দিয়ে হাঁটছিল। সূর্য় অস্ত যেতে শুরু করলে, তারা ভয় পেয়ে গেল, কিন্তু একে অপরকে ধরে থাকল। হঠাৎ, তারা তাদের পথে একটি ভাল্লুক দেখল। ছেলেদুটির একজন নিকটতম গাছের দিকে দৌড়ে গেল এবং এক মুহুর্তের মধ্যে গাছে উঠে পড়ল। অন্য ছেলেটি জানত না যে কিভাবে গাছে উঠতে হয়, তাই সে মাটিতে শুয়ে পড়ে মারা যাওয়ার ভান করল। ভাল্লুকটি মাটিতে ছেলেটির কাছে এসে তার মাথার চারপাশে শুঁকল। ছেলেটি মারা গেছে ভেবে, ভাল্লুক তার পথে চলে গেল। গাছের ছেলেটি গাছ থেকে নেমে বন্ধুকে জিজ্ঞাসা করল যে, ভাল্লুকটি তার কানে চুপিচুপি কী বলল। সে উত্তর দিল, ‘তোমার খেয়াল রাখে না এমন বন্ধুদের বিশ্বাস করো না।

গল্পের নীতিকথা

প্রয়োজনের সময় যে বন্ধু পাশে থাকে সেই প্রকৃত বন্ধু।

উপসংহার: নৈতিক মূল্যবোধ যুক্ত এই ছোট গল্পগুলি আপনাকে আপনার সন্তানদের সাথে গুণমানযুক্ত সময় কাটানোয় সহায়তা করার সাথে সাথে তাদের গুরুত্বপূর্ণ পাঠগুলি শেখাবে। পরের বার আপনি শিশুদের আনন্দ দান করতে চাইলে, নীতিযুক্ত গল্প সবসময় একটি ভাল বিকল্প।