সাধারণ প্রসব বনাম সিজারের মাধ্যমে প্রসব – সুবিধা এবং অসুবিধা

সাধারণ প্রসব বনাম সিজারের মাধ্যমে প্রসব - সুবিধা এবং অসুবিধা

আপনি কি গর্ভবতী এবং সেই বিশেষ দিনটির জন্য অপেক্ষা করছেন? সব হবু বাবা মায়েরা এই বড় প্রশ্নটির সম্মুখীন হন যে শিশুর জন্মের জন্য বহুদিন ধরে চলে আসা প্রথাগত পদ্ধতিতে যাওয়া উচিৎ না সম্প্রতি জনপ্রিয় হওয়া সিজারিয়ান বা সি-সেকশন প্রসব বেছে নেওয়া উচিৎ।

aniview

যোনির মাধ্যমে জন্ম বনাম সি-সেকশন প্রসব

যখন কোনও আল্ট্রাসাউন্ড মেশিন বা এমনকি হাসপাতালও ছিল না সেই সময় থেকেই মায়েরা জন্ম দিয়ে আসছেন। এখন প্রযুক্তির অগ্রগতির সাথে মায়েদের সন্তান জন্মের আরেকটি উপায় বেছে নেওয়া এবং দীর্ঘ ও বেদনাদায়ক প্রসব শ্রম এড়িয়ে চলার বিকল্প রয়েছে। সি-সেকশন বনাম স্বাভাবিক প্রসবের তুলনা করলে তা পিতামাতাদেরকে সন্তানের জন্মের জন্য যে বিকল্পগুলি আছে সেগুলি সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ অন্তর্দৃষ্টি দেয়।

যোনির মাধ্যমে জন্ম

প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে প্রসব বা যোনির মাধ্যমে জন্ম সবসময় সুপারিশ করা হয়। এই প্রথাগত পথের মাধ্যমে একটি শিশুকে জন্ম দিলে, মা এবং সন্তান উভয়ের জন্য বেশ কয়েকটি স্বাস্থ্য উপকারিতা পাওয়া যায় বলে মনে করা হয়। কোনো বিকল্প বেছে নেওয়ার আগে বিবেচনা করার মতো কিছু পয়েন্ট এখানে দেওয়া হল:

1. যোনিপ্রসবেরসুবিধাগুলি

প্রাকৃতিক পদ্ধতি হওয়ার কারণে এটি একটি পছন্দসই পদ্ধতি এবং এতে অনেকগুলি ইতিবাচক পয়েন্ট রয়েছে যা আপনাকে মা এবং শিশুর উভয়ের জন্য বিবেচনা করতে হবে।

মায়ের জন্য

  • এই প্রক্রিয়াটিতে মা সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন, যা তাকে আরও ইতিবাচক ও ক্ষমতাময়ী হওয়ার অভিজ্ঞতা প্রদান করে।
  • প্রক্রিয়া চলাকালীন শিশুর এবং মায়ের ত্বকের স্পর্শমাওশিশুরমধ্যেআরওভালবন্ধনতৈরিকরে।
  • আরোগ্যলাভ দ্রুত হয়, মায়েরা সাধারণত একই দিনে কোনো ব্যথা ছাড়াই হাঁটতে সক্ষম হন, যেখানে অস্ত্রোপচার পদ্ধতির পরে অন্তত একটি দিনের বিশ্রামের প্রয়োজন হয়। যোনির মাধ্যমে জন্ম দেওয়া মায়েরা সাধারণত এক সপ্তাহের মধ্যে সম্পূর্ণরূপে আরোগ্য লাভ করেন।
  • কোন ক্ষতচিহ্ন থাকে না বা সেলাইয়ের যত্ন নেওয়ার প্রয়োজন হয় না। এছাড়া হাসপাতালে যেতে কম হয়।
  • স্বাভাবিকভাবে প্রসব করা বেছে নিলে আপনি কখনও কখনও হাসপাতালের পরিবর্তে বাড়ীতে প্রসব করা চয়ন করতে পারেন। এটি শুধুমাত্র আপনার ডাক্তারের সঙ্গে সঠিক পরামর্শর পরেই চিন্তা করা উচিৎ।

শিশুর জন্য

  • যোনি প্রসববেছেনিলে, শিশুওগর্ভথেকেবেরিয়েআসতেপ্রস্তুতহয়।
  • যোনি থেকে ঠেলে বেরিয়ে যাওয়ার সময়, শিশুর ফুসফুসগুলি তাদের মধ্যে ভরা অ্যামনিয়োটিক তরল ফেলে দেয়, যার ফলে স্বাভাবিক শ্বাসপ্রশ্বাস হয় এবং শ্বাসযন্ত্রের সমস্যাগুলি কম থাকে।
  • যোনি প্রসবের মাধ্যমে জন্ম নেওয়া শিশুদের কম জটিলতা থাকে। অ্যালার্জির ঘটনা কম ঘটে এবং তারা আরো আগে থেকে বুকের দুধ খেতে শুরু করে।
  • শিশু গর্ভ থেকে বেরিয়ে আসার সময় ভালো ব্যাকটেরিয়া শ্বাসের মাধ্যমে গ্রহণ করে যা ইমিউন সিস্টেম উন্নত করতে সাহায্য করে।

2. যোনিপ্রসবেরঅসুবিধা

যদিও উপরের সমস্ত উপকারগুলি আছে, তবুও যোনি প্রসব বেছে নেওয়ার সময় কিছু ঝুঁকি থেকে যায় যা জানা উচিত:

মায়ের জন্য

  • প্রাকৃতিক প্রসবের ক্ষেত্রে, সন্তানের জন্মের সময় অনিশ্চিত থাকে এবং এটি নির্ধারণ করার কোনো উপায় নেই। প্রসব সম্পূর্ণরূপে মায়ের শরীরের উপর নির্ভরশীল।
  • প্রসব শ্রমের মধ্যে দিয়ে যাওয়ার সময় ব্যথা এবং মানসিক চাপ থাকে। প্রসবের শ্রমের নির্দিষ্ট সময়কাল থাকে না। এটি সংক্ষিপ্ত হতে পারে বা এমনকি কয়েক ঘন্টার জন্য চলতে পারে। তবে, কয়েকটি ওষুধ রয়েছে যা শ্রমে সাহায্য করতে পারে এবং ডাক্তারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দেওয়া হয়।
  • কখনও কখনও কিছু জটিলতা হয় যা শিশুর হৃৎস্পন্দনের হার কমিয়ে দেয়। এই পরিস্থিতিতে, মাকে হয়তো অ্যানাস্থেশিয়া দিয়ে জরুরী সি-সেকশনের জন্য নিয়ে যাওয়া হতে পারে।
  • প্রসব করার পরে, মা হয়ত কিছু যৌন সমস্যার মুখোমুখি হতে পারে কারণ প্রসবের সময়কার কিছু আঘাত থেকে যেতে পারে।

শিশুর জন্য

  • কখনও কখনও যখন শিশুর আকার বড় হয় তখন সাকশন কাপ বা সাঁড়াশি দিয়ে প্রসবে সহায়তার প্রয়োজন হতে পারে।
  • যোনি প্রসবের ক্ষেত্রে শিশুটির কোনো রকম আঘাত পাওয়ার ঘটনা খুব কমই ঘটেছে।

সিজারিয়ান সেকশন

সিজারিয়ান সেকশন

সিজারিয়ান বা সি সেকশন প্রসব হল শিশুর জন্মের জন্য অস্ত্রোপচার পদ্ধতি। পেট অঞ্চলে একটি ছোট ফুটো করে তা জরায়ু পর্যন্ত এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় যার মাধ্যমে শিশুকে বের করে নেওয়া হয়। ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার পর সি-সেকশন পরিকল্পনা করা যেতে পারে এবং মায়ের স্বাস্থ্যের উপর নির্ভর করে। মায়ের যখন উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, বা এইচআইভি সংক্রমণের মতো স্বাস্থ্যের অবস্থা থাকে, তখন শিশুর জন্মের জন্য একটি সি-সেকশন হল পছন্দসই বিকল্প। এছাড়াও যদি প্রাকৃতিক প্রসবের সময় কিছু সমস্যা থাকে যেমন শিশু অক্সিজেন পাচ্ছে না বা প্রসব শ্রম খুব বেশি সময় নিচ্ছে, তখন জরুরি সি-সেকশন সম্পন্ন করা হয়।

1. সি-সেকশনেরসুবিধা

সিজারিয়ানের বেশ কয়েকটি সুবিধা আছে তাই এটি একটি জনপ্রিয় বিকল্পতে পরিণত হয়ে গেছে। সি-সেকশন জন্মের এই সুবিধাগুলি আছে:

মায়ের জন্য

  • যখন এটি পরিকল্পিতভাবে করা হয়, তখন এটি পিতামাতাকে শিশুর জন্মের জন্য পরিকল্পনা করার সুবিধা দেয়।
  • একটি সি-সেকশন বেছে নেওয়ার মাধ্যমে মা দীর্ঘ সময় ধরে প্রসব শ্রমের মধ্যে দিয়ে যাওয়া এড়িয়ে যেতে পারেন। এটি মাকে সব মানসিক চাপ এবং শ্রমের ব্যথা এড়াতে দেয়।
  • সি-সেকশন জন্মের পরে মায়ের কোনও যৌন সমস্যার সম্মুখীন হওয়ার কথা নয়।

শিশুর জন্য

  • মায়ের থেকে কোনও সংক্রমণ দ্বারা শিশুর প্রভাবিত হওয়ার সম্ভাবনা কম।
  • জন্মের সময় বাচ্চার আহত হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে।

2. সি-সেকশনেরঅসুবিধা

উপরে তালিকাভুক্ত সুবিধাগুলি ছাড়াও, কয়েকটি অসুবিধা রয়েছে যেগুলির মূল্যায়ন করা উচিত:

  • মার জন্য
  • অন্য যে কোনও বড় অস্ত্রোপচারের মতো, সি-সেকশনও কিছু ঝুঁকি বহন করে।
  • অ্যানেস্থেশিয়ার ব্যবহার জটিলতার ঝুঁকি বাড়ায়।
  • বেশী রক্তক্ষয়ও হয়।
  • এছাড়াও সংক্রমণের ঝুঁকি আছে। অতএব নিরাময় প্রক্রিয়া সহজতর করার জন্য ক্ষতর যত্ন নিশ্চিত করা প্রয়োজন। তার মানে রুটিন চেক-আপের জন্য হাসপাতালে বেশী যেতে হবে।
  • আরোগ্যলাভের সময়কাল প্রাকৃতিক ভাবে সন্তানের জন্মের তুলনায় দীর্ঘ।
  • বুকের দুধ খাওয়ানোর প্রক্রিয়া বিলম্বিত হতে পারে। এটি মা এবং শিশুর মধ্যে বন্ধনের উপর প্রভাব ফেলতে পারে।
  • সি-সেকশনে শিশু ও মা উভয়ের মৃত্যুর হার বেশী। অ্যানেস্থেশিয়াতে রাখার ফলে এই ঝুঁকি বাড়ে।

শিশুর জন্য

যেহেতু এটি একটি প্রাকৃতিক জন্ম নয়, বরং শল্য চিকিৎসক এবং বাবা-মায়ের দ্বারা সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, তাই কিছু বাচ্চা মায়ের গর্ভ থেকে বেরিয়ে আসতে প্রস্তুত না হতে পারে।

কিছু ক্ষেত্রে শিশুর জন্মের পরে শ্বাসের সমস্যা হয়।

একটি সিজারিয়ান জন্ম এড়াতে প্রস্তাবিত উপায়সমূহ

সাবধানে আপনার স্বাস্থ্য সেবা প্রদানকারীকে চয়ন করুন। কোনো ডাক্তার কতগুলি সি-সেকশন করেছেন তার পরিসংখ্যান, যোনি এবং সি-সেকশনের মাধ্যমে শিশুর জন্ম সম্বন্ধে তাঁর মতামত এবং তাঁর করা অস্ত্রোপচারে মৃত্যুর হার, ইত্যাদি জানতে পারলে ভালো হয় এবং এই তথ্যগুলি ডাক্তার বাছতে সহায়তা করে।

গর্ভাবস্থা এবং সন্তানের জন্মের সময় পেশাদার ধাত্রী নিয়োগ করলে, আপনার গর্ভাবস্থায় অতিরিক্ত সহায়তা পেতে পারেন এবং প্রসব শ্রমের মধ্যে দিয়ে যাওয়ার সময় জটিলতা কিভাবে কম রাখা যাবে সে বিষয়ে তাঁরা আপনাকে নির্দেশনা দিতে পারেন।

শ্বাস নেওয়ার ব্যায়ামগুলিশেখারজন্যএবংকোনওঔষধছাড়াইপ্রাকৃতিকভাবেকিভাবেপ্রসবশ্রমপারকরাযায়সেবিষয়েসূত্রপাওয়ারজন্যকোনোজন্মদেওয়াসংক্রান্তক্লাসেযোগদেওয়াএকটিভালধারণা।

সুস্থ সুষম খাদ্য খেলে এবং নিয়মিত ব্যায়াম করলে আপনার যোনি প্রসবের জন্য প্রস্তুত হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ায়।

সন্তানের জন্মের এই উভয় পদ্ধতিরই সুবিধা ও অসুবিধা রয়েছে এবং কোনো বিকল্প বেছে নেওয়ার আগে বাবা-মাকে সমস্ত বিষয় বিবেচনা করে তাদের স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে পরামর্শ করতে হবে। প্রাকৃতিক জন্ম একটি কম আক্রমণাত্মক এবং ঐতিহ্যগত উপায়, যদিও, প্রসব শ্রম ভোগ করা একটি বেদনাদায়ক এবং চাপপূর্ণ প্রক্রিয়া হতে পারে। এছাড়াও যোনি প্রসবের সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরেও, পরিকল্পনা অনুযায়ী সবকিছু না চলতেও পারে এবং ডাক্তারকে জরুরী সি-সেকশন করতে হতে পারে। প্রাকৃতিক প্রসব এবং সি-সেকশন উভয় কৌশলই বেশ কিছুকাল ধরে চলছে এবং ভালো ভাবে পরীক্ষিত ও ব্যবহৃত হয়েছে। অবশেষে, সব দিক মূল্যায়ন করার পরে বাবা-মাকেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে হয়।