৭ম সপ্তাহের গর্ভবতী: কি আশা করা যায়

৭ম সপ্তাহের গর্ভবতী: কি আশা করা যায়

৭ম সপ্তাহের মধ্যে, আপনার শিশুর দ্রুত আপনার শরীরের ভিতরে বাড়ছে; তবে, এই মুহুর্তে আপনার পেট থেকে এটি খুব স্পষ্ট বোঝা যাবে না । এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়নমূলক পরিবর্তনগুলির সময়, কারণ আপনার শরীর ক্রমবর্ধমান ভ্রূণের যত্ন নিচ্ছে । বেশিরভাগ মহিলারা এই সময় তাদের গর্ভাবস্থা সম্পর্কে জানতে পারেন । যদিও আপনি ওজন অর্জন করতে শুরু নাও করতে পারেন, তবে আপনি ফোলাভাব অনুভব করতে পারেন । আপনি সকালের অসুস্থতা অনুভব করতে শুরু করতে পারেন ।

aniview

গর্ভাবস্থায় আপনার শিশুর বৃদ্ধি – ৭ম সপ্তাহ

আপনার শিশুর পা এবং হাত এই সময় আবির্ভূত হতে শুরু করে । আপনার শিশুর একটি ছোট লেজ থাকে, যা একটি এক্সটেনশনের মতো । যাইহোক, এই গর্ভাবস্থা অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে অদৃশ্য হয়ে যাবে । গত সপ্তাহের তুলনায় এই সপ্তাহে ভ্রূণ প্রায় দ্বিগুণ হয় । আপনার শিশুর দ্রুত উন্নয়নশীল ও পরিবর্তিত হয় । মস্তিষ্কের উভয় গোলার্ধ গঠিত হয় । হাড়ের মজ্জা গঠিত না হওয়া পর্যন্ত ক্ষুদ্র লিভার লাল রক্ত কোষ গঠন করে কাজ শুরু করে । অগ্নাশয় এবং অ্যাপেন্ডিক্স-এর মতো পাচক অঙ্গ গঠন শুরু হয় । এই পর্যায়ে, আপনার শিশুকে টেকনিক্যালি একটি ভ্রূণ বলা হতে পারে ।

শিশুর আকার কি হবে

এই সময়ে আপনার শিশুর আনুমানিক ব্লুবেরির আকারের হয় । ৭ম সপ্তাহের গর্ভবতী শিশুর আকার এক ইঞ্চির প্রায় এক চতুর্থাংশ হবে । গর্ভাবস্থার সময় থেকেই আপনার অত্যাবশ্যক উন্নয়ন হয়েছে যেহেতু আপনার শিশু তখন থেকেই প্রায় ১০,০০০ বার বেড়েছে । এই সময়ে, বৃদ্ধি মস্তিষ্কের কোষের প্রজন্মের মধ্যে বেশিরভাগ ঘনীভূত হয় ।

সাধারণ শারীরিক পরিবর্তন

আপনার বাহ্যিক শরীরটি আপনি গর্ভবতী তা নাও দেখাতে পারে, তবে আপনার শরীরের ভিতরে অনেক কিছু হবে ।

আপনি এই সময় বমিভাব এবং খাবারে অরুচির সম্মুখীন হতে পারেন

আপনার শরীর গর্ভাবস্থাজুড়ে পরিবর্তিত হয় এবং আপনি গর্ভাবস্থার ৭ সপ্তাহের আশেপাশে নিম্নলিখিত পরিবর্তনগুলি অনুভব করতে পারেন:

  • বমি বমি ভাব এবং খাবারে অরুচি: আপনি এই সময় বমিভাব এবং খাবারে অরুচির সম্মুখীন হতে পারেন । কিছু দুর্গন্ধে বা গন্ধে বমি বমি ভাব সৃষ্টি করতে পারে । অন্যদিকে, আপনি নিজেও আখরোটের মতো খাবারের জন্য তৃষ্ণার্ত হতে পারেন ।
  • অতিরিক্ত লালা গঠন: আপনি আপনার মুখের মধ্যে অতিরিক্ত লালা গঠন লক্ষ্য করতে পারেন । আপনার মুখে অতিরিক্ত লালা এড়াতে চিনিবিহীন গাম চিবানোর চেষ্টা করুন ।
  • স্তনের পরিবর্তন: আপনার স্তনের আকার এই সপ্তাহে বৃদ্ধি হতে পারে । এই কারণে আপনার স্তনের চারপাশে রক্ত প্রবাহ বৃদ্ধি এবং চর্বি বৃদ্ধি পাবে ।
  • ঘন ঘন প্রস্রাব: এইচসিজি হরমোনের কারণে আপনার পেলভিক অঞ্চলে রক্ত প্রবাহ বৃদ্ধি পায়, যার ফলে ঘন ঘন প্রস্রাব হয় ।
  • চামড়া ফাটা বা ব্রণ: আপনি আপনার মুখের ব্রণ দেখতে পারেন । এটি আপনার শরীরে ঘটছে হরমোন পরিবর্তনের কারণে ।

৭ম সপ্তাহে গর্ভাবস্থার লক্ষণ

গর্ভাবস্থার ৭ম সপ্তাহের মধ্যে স্পষ্ট শারীরিক লক্ষণ নাও থাকতে পারে, তবে আপনি এই সপ্তাহে নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি লক্ষ্য করতে পারেন:

  • আপনি সকালের অসুস্থতা বোধ করতে পারেন (বমি ভাব এবং বমি হওয়া) । আপনি মাথাব্যাথা এবং অন্যান্য যন্ত্রনা ভোগ করতে পারেন । ক্লান্তি এবং ওসুস্থতাও লক্ষ্য করা যেতে পারে ।
  • আপনার স্তন টনটনে হয়ে যাবে এবং স্তনবৃন্তের চারেপাশ স্বাভাবিকের চেয়ে গাঢ় হয়ে যাবে ।
  • আপনি কিছু খাবারের জিনিসের প্রতি খাবার ইচ্ছা এবং কিছুর প্রতি বিতৃষ্ণা বিকাশ হতে পারে ।
  • আপনি আপনার প্রিয় প্যান্ট বা জিন্স মধ্যে খুব ভাল মাপসই থাকবেন না আর । এই ওজন বৃদ্ধির কারণে হয় না, ফোলাভাবের কারণে হয় ।
  • আপনি হালকা পেলেভিক খিঁচ অনুভব করতে পারেন । মাঝে মাঝে স্পটিং বা হালকা ছাপ দেখা যেতে পারে ।
  • এই সময় আপনার শরীরের গুরুত্বপূর্ণ বিকাশের মধ্যে একটি হল আপনার মিউকাশ প্লাগ বৃদ্ধি ।
  • মিউকাশ প্লাগ সার্ভিক্সকে সিল করতে সাহায্য করে এবং আপনার শিশুর জন্ম পর্যন্ত গর্ভাশয়কে খুলে যাওয়া থেকে সুরক্ষা দেয় ।
  • আপনাকে নিজেকে পরিবর্তিত মুডের সঙ্গে লড়াই করতে হতে পারে । এই শরীরের পরিবর্তন হরমোন কারণে হয় ।

গর্ভাবস্থার ৭ম সপ্তাহে পেটের অবস্থা

৭ সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় আপনার পেট আপনাকে গর্ভবতী দেখবে না, যদিও আপনার শরীরের মধ্যে অনেক পরিবর্তন হতে পারে । আপনার শিশু এই পরিস্থিতিতে খুবই ছোট, যার কারণে আপনি আপনার শিশুর ঠেলা দেওয়া অনুভব করতে পারবেন না । আপনি আপনার গর্ভকালীন ৭ সপ্তাহের মধ্যে আপনার পেট ফোলাভাব ছাড়া কিছু বুঝতে পারবেন না । বেশিরভাগ মায়েরা তাদের দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকের মাঝামাঝি শিশুর ঠেলা অনুভব করতে বা বড় পেট দেখাতে শুরু করে । যাইহোক, যদি আপনি যমজ বা আরো বেশি শিশুদের বহন করেন, তাহলে আপনার পেটের আকার সময়ের চেয়ে আগে দেখাতে শুরু করতে পারেন ।

৭ম সপ্তাহে আল্ট্রাসাউন্ড

আপনার শিশু আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যানে নির্দেশ করার জন্য খুব ছোট

৭ সপ্তাহের মধ্যে, আপনি আপনার প্রথম আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যানের জন্য প্রস্তুত হতে পারেন । অনেক ডাক্তার স্ক্যান করার জন্য গর্ভাবস্থার ৮ থেকে ১০ সপ্তাহ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে পারেন । এটি মূলত আপনার চিকিৎসার ইতিহাস এবং আপনার ডাক্তারের সুপারিশের উপর নির্ভর করে । একটি আল্ট্রাসাউন্ড ডাক্তারকে আপনার শিশুর বিভিন্ন পরিমাপ নিতে সহায়তা করবে এবং ভ্রূণের বিকাশ নির্ধারণ করবে । যদিও আপনার শিশু আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যানে নির্দেশ করার জন্য খুব ছোট, তবে প্রতি মিনিটে প্রায় একশত মস্তিষ্কের কোষ তৈরি হয় । ভ্রূণ তার হৃদয়, কিডনি, হাত এবং পায়ের জয়েন্টগুলোতে উন্নতি করছে । আপনি যমজ বহন করলে, আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যান দুটি গর্ভাশয়ের স্যাক প্রদর্শন করবে । বিভিন্ন পরীক্ষার জন্য আপনাকে মূত্র, রক্ত এবং সার্ভিকাল কোষের নমুনা দিতে হবে । যমজ বা একাধিক বাচ্চা বহনকারী মায়ের রক্তের নমুনা বাড়তি স্তরের এইচসিজি হরমোন দেখাতে পারে, এই হরমোনের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার ফলে আরো সকালের অসুস্থতা দেখা দিতে পারে ।

কি খেতে হবে

গর্ভাবস্থায় স্বাস্থ্যকর এবং সুষম খাবার খাওয়া আপনার পক্ষে খুবই গুরুত্বপূর্ণ । আপনার ৭ম সপ্তাহের গর্ভাবস্থার খাবারের মধ্যে নিম্নলিখিতগুলি অন্তর্ভুক্ত হওয়া উচিত:

  • একদিনে ৩ থেকে ৫ বার সবজি খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় । সবুজ, লাল, হলুদ এবং কমলা সবজির একটি সুস্থ মিশ্রণ আপনার শরীরের জন্য ভালো । পালিং, ব্রোকলি, টমেটো, লাল মরিচ, কুমড়ো, গাজর, হলুদ মরিচ, এবং ভুট্টা কিছু তাজা শাকসবজি আপনার ডায়েটগুলিতে অন্তর্ভুক্ত করুন ।
  • টিনজাত ফল বা সংরক্ষিত খাবারের বদলে তাজা ফল নির্বাচন করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, কারণ সংরক্ষিত খাবারে ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া থাকতে পারে, যা আপনার এবং শিশুর জন্য ক্ষতিকর হতে পারে । একদিনে আপনাকে তাজা ফলের ৩ থেকে ৪টি সারি নিতে হবে ।

তাজা ফল ও সবজি খেতে হবে

  • আপনার শরীরের ক্যালসিয়াম চাহিদা মেটাতে আপনি দুধ, পনির, দই, এবং অন্যান্য দুগ্ধজাত পণ্যগুলি খেতে পারেন । দিনে তিনবার খাওয়ার সুপারিশ করা হয় ।
  • আপনার ডায়েটগুলিতে ডিম, মাংস এবং পোলট্রি জিনিসের মধ্যে ২-৩টি প্রোটিন সরবরাহ করা উচিত । মরিচ, মটরশুটি, বীজ, এবং বাদাম নিরামিষ প্রোটিন জন্য প্রোটিন চমৎকার উত্স ।
  • পরিমার্জিত খাদ্যপণ্যের পরিবর্তে আপয়ানার গোটা শস্য নির্বাচন করা উচিত । গোটা শস্য আপনার শরীরকে ফাইবার প্রদান করে । একটি দিনের মধ্যে সমগ্র শস্য খাবার জিনিসের ৩টি পরিবেশন খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় ।

টিপস এবং যত্ন

এই সময়কালে সকালের অসুস্থতা ও বমিভাব আপনার স্বাস্থ্যের উপর গুরুতর প্রভাব ফেলতে পারে । কি কি করতে হবে এবং কি কি করা উচিত না, সেই সম্পর্কে নিম্নলিখিত টিপস এবং যত্ন এই সময় আপনাকে সাহায্য করতে পারে:

করণীয়

  • হালকা খাবার খাওয়া এবং সহজপাচ্য সহজ খাবার খাওয়া উচিত ।
  • নিজেকে হাইড্রেটেড রাখুন ।
  • বমিভাব কমাতে লেবুর সরবত পান করুন বা তরমুজ খান ।
  • সারা দিন পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন ।
  • স্তনের যন্ত্রণা সহজ করার জন্য একটি ভাল ব্রা পরুন ।
  • নির্ধারিত ভিটামিন পরিপূরক নিন ।

কী করা উচিত না

  • মসলাযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন ।
  • কঠোরভাবে মদ এবং ধূমপান এড়িয়ে চলুন ।
  • খাবার না খাওয়া এড়িয়ে চলুন ।

আপনাকে কি কি কেনাকাটা করতে হবে

৭ সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় আপনার কেনাকাটা তালিকাটিতে নিম্নোক্তগুলি অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন:

  • গর্ভাবস্থা সংক্রান্ত জার্নাল: গর্ভধারণের সময় আপনার অনুভূতি এবং আবেগকে লেখার জন্য ।
  • ভালো লোশন: আপনার ত্বককে ময়শ্চারাইজ করার জন্য আপনি ভালো লোশন বা তেল কিনতে পারেন, কারণ আপনার ত্বক আগের তুলনায় শুকনো হতে পারে ।
  • আরামদায়ক ব্রাসিয়ার: আপনার স্তন এখন আরও কোমল এবং ফোলা, একটি আরামদায়ক ব্রা পরা সহায়ক হতে পারে ।

গর্ভধারণের সময় আপনার অনুভূতি এবং আবেগকে লেখার জন্য গর্ভাবস্থা সংক্রান্ত জার্নাল কিনুন

  • নিচের দিকের আরামদায়ক পোশাক: আপনি আপনার নিচের অংশের জন্য আরামদায়ক পরিধান কিনতে হবে । আপনার আকার ক্রমাগত পরিবর্তন হবে, সেই হিসাবে প্রসারিত ফ্যাব্রিক নির্বাচন করার সুপারিশ করা হয় ।
  • ভাল গর্ভাবস্থা সংক্রান্ত বই: আপনি গর্ভাবস্থা সম্পর্কে আরও জানতে ভাল গর্ভাবস্থা সংক্রান্ত বই কিনতে পারেন ।

উপসংহার:

গর্ভাবস্থার ৭ম সপ্তাহের মধ্যে আপনার শরীর এবং আপনার শিশুর মধ্যে অনেক পরিবর্তন ঘটছে । আপনার গর্ভাশয়ের আকার গর্ভধারণের সময় থেকে আকারে দ্বিগুণ হয়েছে । আপনি বিরক্তিকর বমি বমি ভাব, ক্লান্ত এবং অলস মনে হতে পারে । আপনি কোন অস্বস্তি বা অস্বাভাবিক উপসর্গ লক্ষ্য করলে, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন ।