বাচ্চাদের কোলিক বা পেট ব্যথার ঘরোয়া প্রতিকার

বাচ্চাদের কোলিক বা পেট ব্যথার ঘরোয়া প্রতিকার

বাচ্চাদের পেট ব্যথা হলে তারা দীর্ঘ সময় ধরে কাঁদে সাধারণত, যদি সপ্তাহে তিন দিন কোনও শিশু তিন ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে কান্নাকাটি করে, তবে আপনার বাচ্চার পেট ব্যথা থাকার সম্ভাবনা রয়েছে পেট ব্যথায় আক্রান্ত শিশুরা কাঁদতে কাঁদতে পিঠ ধনুকের মতো বেঁকিয়ে দেয় এবং তাদের হাঁটু মুড়ে ফেলে তাদের তলপেটের পেশীগুলি সাধারণত টান টান হয়ে যায় এবং শিশুটি খুব বেশি বায়ু নির্গমন করতে পারে

aniview

কোলিক সাধারণত শিশুর 2-3 সপ্তাহ বয়সে শুরু হয় এবং শিশুটির 4-6 মাস বয়স হলে চলে যায় কোলিকের সঠিক কারণ জানা যায়নি, তবে এটি গ্যাস বা বদহজমের কারণে হতে পারে অনেক বাচ্চাদের মায়ের দুধে থাকা উপাদানে অসহিষ্ণুতা থাকতে পারে কিনা তা ভেবেও অনেকে আশ্চর্য হন

শিশুদের কোলিকের চিকিৎসার 25টি কার্যকর প্রাকৃতিক প্রতিকার

নিচে কয়েকটি ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে যা আপনি ব্যবহার করতে পারেন:

1. উষ্ণ জলে স্নান

আপনার বাচ্চাকে উষ্ণ জলে স্নান করানো বাচ্চাদের কোলিকের একটি প্রাকৃতিক প্রতিকার, যা যুগ যুগ ধরে ব্যবহৃত হয়ে আসছে আপনার বাচ্চাকে গরম জলে স্নান করান যাতে তার উদ্বেগ কিছুটা দূর হতে পারে এবং এটি তার মনকে কোনওরকম ব্যথার থেকেও বিক্ষিপ্ত করে

  • কিছুটা গরম জল দিয়ে বাথটাবটি ভর্তি করুন
  • আপনার বাচ্চা স্নানের সময় শুয়ে থাকা অবস্থায় পেটের উপর হালকাভাবে মালিশ করুন যাতে গ্যাস থেকে মুক্তি পাওয়া যায়

2. উষ্ণ কম্প্রেস

একটি উষ্ণ কম্প্রেস আটকা পড়া গ্যাস থেকে কিছুটা স্বস্তি দেয় এবং একটি প্রশমিতকারী প্রভাব দেয়

  • গরম জলে একটি তোয়ালে ডোবান এবং অতিরিক্ত জল নিংড়ে বের করে নিন
  • কাপড়টি শিশুর পেটের উপর রাখুন; আপনি আস্তে আস্তে পেটে সেটি ঘষতেও পারেন

3. তেল মালিশ

মালিশ আপনার শিশুর জন্য অত্যন্ত প্রশান্তিদায়ক হয় এবং সঠিক হজমেও সহায়তা করে

  • জলপাই তেল বা নারকেল তেল আপনার হাতের তালুতে ঘষে নিলে তেলটি একটু উষ্ণ হয়ে যাবে
  • এই তেল দিয়ে শিশুর পুরো শরীরকে মালিশ করুন এবং ঘড়ির কাঁটার দিকের গতিতে পেটের উপর এটি ঘষুন

4. হাঁটু ঠেলার ব্যায়াম

এই সাধারণ ব্যায়ামটি শিশুর গ্যাস উপশম করতে পারে

  • বাচ্চাকে চিৎ করিয়ে শোওয়ান
  • শিশুর হাঁটু দুটিকে একসাথে চেপে ধরুন এবং পা দুটিকে আলতো করে পেটের দিকে ঠেলে নিয়ে যান
  • এইভাবে কয়েক সেকেন্ডের জন্য পা দুটিকে ধরে রাখুন
  • শিশুর মালিশ করার সময়ও আপনি এই ব্যায়ামটি করতে পারেন
  • যদি বাচ্চা খুব বাধা দেয় তবে তাকে জোর করবেন না

5. আপনার বাচ্চাকে ঢেঁকুর তোলান

আপনার বাচ্চাকে খাওয়ানোর পরে তার ঢেঁকুর তোলানো খুব গুরুত্বপূর্ণ এটি গ্যাস উপশম করতে সহায়তা করে এবং পেটে বাতাসের পকেট গঠনে বাধা দেয়

  • আপনি বাচ্চাকে খাওয়ানোর পরে, তাকে আপনার কাঁধের উপরে শোওয়ান
  • তার ঘাড় এবং কাঁধে সাবধানে অবলম্বন দিন
  • ধীরে ধীরে তার পিঠে ঘষুন বা চাপড় দিন যতক্ষণ না আপনি তার ঢেঁকুরের শব্দ শুনতে পান
  • প্রতিবার খাওয়ানোর পরে এটি করুন

আপনার বাচ্চাকে ঢেঁকুর তোলান

6. হিং

হিংএর পেট ফাঁপা রোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে, হজমে সহায়তা করে এবং গ্যাসকে মুক্তি দেয় এটি শিশুদের কোলিকের জন্য একটি ভারতীয় ঘরোয়া প্রতিকার

  • এক চিমটি হিং নিয়ে এক চা চামচ জলে মিশিয়ে গরম করুন
  • এখন এই উষ্ণ মিশ্রণটি শিশুর নাভির চারপাশে ঘষুন
  • যেসব বাচ্চারা শক্ত খাবার খেতে শুরু করেছে, তাদের জল বা খাবারে কিছু হিং মিশ্রিত করুন

7. প্রতিটি স্তনে দীর্ঘ সময় ধরে খাওয়ানো

নিশ্চিত করুন যে আপনার বাচ্চাকে স্তন বদল করে খাওয়ানোর পরিবর্তে প্রতিটি স্তনে আরও বেশি সময় ধরে খাওয়ানো হচ্ছে শিশু স্তন কিছুক্ষণ চুষে খাওয়ার পরে স্তনের পশ্চাৎ অংশের যে দুধ বের হয় তা শুরুতে বেরোনো সামনের অংশের দুধের চেয়ে বেশি পুষ্টিকর পশ্চাৎ অংশের দুধে বেশি চর্বি থাকে, এটি হজমকে উন্নত করে এবং পেটকে শান্ত করে অত্যধিক সামনের দুধ বদহজমের কারণ হতে পারে

8. ঘনিষ্ঠতা তৈরি করুন

এই কৌশলটি আপনার বাচ্চাকে একটি অন্ধকার, উষ্ণ গর্ভ থেকে পরিষ্কার, উন্মুক্ত বিশ্বে নিজেকে মানিয়ে নিতে সহায়তা করে বেবিওয়্যারিংএর মাধ্যমে সর্বদা আপনার শিশুর সাথে শারীরিক যোগাযোগ বজায় রাখার চেষ্টা করুন তাকে একটি শিশুর বাহক, শিশুর স্লিং বা শিশুর মোড়কে বহন করুন এটি নিশ্চিত করে যে শিশুটি আপনার সাথে অবিচ্ছিন্ন যোগাযোগ বজায় রাখে এবং তাই কান্নার সম্ভাবনা কম হয় আপনি যখন শিশুটিকে ঘুম পাড়ান তখন আপনি তাকে কাপড়ে মুড়েও দিতে পারেন এটি নিশ্চিত করে যে বাচ্চা দীর্ঘ সময় ধরে ঘুমাবে

9. বাচ্চাকে চুষতে দিন

আঙ্গুল চোষা হল একটি প্রাকৃতিক রিফ্লেক্স যা বাচ্চারা নিজেদের শান্ত করার জন্য করে সুতরাং কোলিক চলাকালীন তাদের চুষি চুষতে দিন যা তাদের মনকে বিক্ষিপ্ত করতে সহায়তা করতে পারে অথবা যদি আপনার শিশু স্তন চুষতে স্বাচ্ছন্দ বোধ করে তবে তা করতে দিন

10. শিশুকে নড়াচড়া করান

বাচ্চাকে আপনার কোলে বা দোলনা চেয়ারে নিয়ে দোল দেওয়া, একটি স্লিং করে বাচ্চাটিকে বাড়ির চারপাশে ঘোরানো, এই সমস্ত ক্রিয়াকলাপ শিশুর নড়াচড়া ঘটায় এই নড়াচড়াগুলি একটি বিচলিত শিশুকে শান্ত এবং প্রশমিত করতে পারে

11. বাচ্চাকে শান্ত করার শব্দ

প্রশান্তিদায়ক শব্দগুলি বার বার করলে একটি শিশুর মনকে বিক্ষিপ্ত করতে পারে এবং তাকে উদ্বেগ থেকে মুক্তি দিতে পারে অতএব জল, হেয়ার ড্রায়ার বা ভ্যাকুয়ামের প্রশান্তিদায়ক শব্দ বাজানো একটি ভাল আইডিয়া এই শব্দগুলির মধ্যে কোনটি আপনার শিশুর জন্য কাজ করে তা পরীক্ষা করে দেখুন

12. তুলসী

তুলসী পাতাগুলিতে ইউজেনল থাকে, যা খিঁচুনি বিরোধী এবং ঘুম পাড়ানি বৈশিষ্ট্যযুক্ত তাই তুলসী গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সমস্যাগুলি মোকাবিলায় সহায়তা করতে পারে

  • কয়েকটি তুলসী পাতা নিয়ে জলে যোগ করুন
  • এটিকে ফোটান এবং ঠান্ডা করুন
  • আপনার বাচ্চাকে এটির কয়েক চা চামচ পান করতে দিন
  • বিকল্পভাবে, পাতার একটি পেস্ট তৈরি করুন এবং নাভির চারপাশে লাগান, শুকানো পর্যন্ত এটি রেখে দিন এবং তারপরে জল একটি কাপড় দিয়ে মুছে ফেলুন

13. মৌরি

মৌরির গ্যাস এবং অন্যান্য অনেক গ্যাস্ট্রোনমিক সমস্যা মোকাবিলার আশ্চর্যজনক বৈশিষ্ট্য রয়েছে

  • এক কাপ গরম জলে এক চা চামচ মৌরি বীজ যোগ করুন
  • এটি 10 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপরে ছেঁকে নিন
  • বাচ্চাকে এই জলের কয়েক চা চামচ খেতে দিন

14. ক্যামোমিল চা

ক্যামোমিলে খিঁচুনি বিরোধী এবং ঘুম পাড়ানি বৈশিষ্ট্য রয়েছে অতএব কিছু ক্যামোমিল চা আপনার কান্নাকাটি করা কোলিকযুক্ত শিশুটিকে ঘুম পাড়াতে পারে

  • কিছু শুকনো ক্যামোমিল ফুল নিন এবং এক কাপ গরম জলে রাখুন
  • এটি 10 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপরে ছেঁকে নিন
  • পর্যাপ্তভাবে ঠান্ডা হয়ে যাওয়ার পরে আপনার শিশুকে এই পানীয়টির কয়েক চা চামচ দিন

15. প্রোবায়োটিকস

প্রোবায়োটিকস

আটকে থাকা গ্যাস, ধীরগতির পরিপাক নালী এবং অ্যাসিড রিফ্লাক্সের কারণে কোলিক হতে পারে ল্যাক্টোব্যাসিলাস রিউটারি নামক প্রোবায়োটিকের একটি বিশেষ প্রকার কোলিক মোকাবিলায় কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে এটি অন্ত্রের প্রদাহ হ্রাস করতে সাহায্য করে, ব্যাকটিরিয়াকে মেরে ফেলে এবং কোলাই ব্যাকটিরিয়াকে বাধা দেয় যা কোলিকবিহীন শিশুদের তুলনায় কোলিকযুক্ত শিশুদের মধ্যে বেশি উপস্থিত থাকে আপনার বাচ্চাকে প্রোবায়োটিক দেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য একজন চিকিৎসকের পরামর্শ নিন

16. মেন্থল

মেন্থলের শান্ত করার এবং খিঁচুনি রোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে

  • এক চা চামচ শিশুর মালিশের তেলের সাথে এক ফোঁটা এই তেল যোগ করুন এবং এটি গরম করার জন্য আপনার তালুর মাঝে ঘষুন
  • এবার আলতো করে বাচ্চার পেটে এই তেল দিয়ে মালিশ করুন

17. আপনার ডায়েট লক্ষ্য করুন

মা যা খায় তা বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় শিশুর কাছে যায় সুতরাং আপনার ডায়েট যথাযথভাবে নিয়ন্ত্রণ করা গুরুত্বপূর্ণ আপনার শিশুর কোলিক হলে দুগ্ধজাত পণ্য, গ্লুটেন, সাইট্রাস ফল, ক্যাফিন এবং মশলাদার খাবার এড়ানো উচিত

18. শান্ত সময়

কোনও বাচ্চার সাথে উচ্চস্বরে কথা বলার মাধ্যমে বা উচ্চস্বরে গান করে তাকে প্রশান্ত করার চেষ্টা করার ভুল করবেন না সম্ভাবনা যে এতে শিশুটি আরও কাঁদবে সর্বদা শান্ত এবং স্নিগ্ধ পরিবেশ তৈরি করার চেষ্টা করুন

19. কমলালেবুর ফুলের জল

কমলালেবুর ফুলের জল কোলিকযুক্ত বাচ্চাকে শান্ত করার জন্য বহু বছর ধরে মধ্য প্রাচ্যে ব্যবহৃত হয়ে আসছে গ্যাস উপশম করতে এই জলের কয়েক চা চামচ আপনার শিশুকে দিন

20. ফিডিং বোতল পরিবর্তন করুন

সলে, আপনাকে এটি এখন তাড়াতাড়ি করতে হবে খাওয়ানোর বোতলটি পরিবর্তন করা শিশুকে প্রশান্ত করতে সহায়তা করতে পারে এছাড়াও, খাওয়ানোর বোতলের মাধ্যমে শিশুর শরীরে যে পরিমাণ বায়ু প্রবেশ করে তা পরিবর্তন হতে পারে, এটি শিশুর দেহে থাকা গ্যাসকেও প্রভাবিত করতে পারে

21. গ্রাইপ জল

100% প্রাকৃতিক গ্রাইপ জল কোলিক চিকিৎসায় কার্যকর হয়েছে জলটি সাধারণত ক্যামোমিল, মৌরি, আদা এবং লেবু নির্যাসের মিশ্রণ জল কেনার সময় নিশ্চিত হয়ে নিন যে এটি সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক এবং এতে কোনও প্রিজারভেটিভ নেই এছাড়াও, আপনার ডাক্তারকে সুপারিশের জন্য জিজ্ঞাসা করুন

22. ফরমূলা পরিবর্তন করুন

যদি আপনার শিশু ফরমূলা খাচ্ছে, তবে সে হয়তো ফরমূলাতে থাকা কোনও কিছুতে প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছে সুতরাং ফরমূলা পরিবর্তন করলে সহায়তা হতে পারে এছাড়াও, জৈব উপলভ্য পুষ্টি সমৃদ্ধ এবং সহজে হজমযোগ্য বাড়িতে তৈরি ফরমূলাগুলি ব্যবহার করে দেখুন

23. আপেল সাইডার ভিনিগার

আপেল সাইডার বুকজ্বালা হ্রাস করতে সহায়তা করে ঈস্ট সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করে, সুতরাং আপেল সাইডার ব্যবহার করলে আপনার শিশুর কোলিকের সমাধান করতে পারে

  • এক কাপ উষ্ণ জলে প্রায় এক চা চামচ আপেল সাইডার ভিনিগার দিন
  • শিশুকে এই পানীয় কয়েক চাচামচ খাওয়ান

24. পুদিনা চা

পুদিনা অন্ত্রের খিঁচুনি থেকে মুক্তি দেয়

  • এক কাপ গরম জলে এক চা চামচ পুদিনা যোগ করুন
  • এটি 10 মিনিটের জন্য রেখে দিন, তারপরে ছেঁকে নিন
  • এই চায়ের কয়েক চা চামচ আপনার বাচ্চাকে খাওয়ান

25. সহায়তা নিন

কোলিক এমন একটি অবস্থা যার কোনও নির্দিষ্ট কারণ বা চিকিৎসা নেই, আপনার সর্বোত্তম প্রচেষ্টা সত্ত্বেও শিশুটি কান্নাকাটি করতে পারে এটি যেন আপনাকে হতাশ না করে আপনার সন্তানকে সামলানোর জন্য আপনার সঙ্গী বা অন্য কারও সাহায্য নিন

কোলিক এমন কোনো পরিস্থিতি নয় যার জন্য পিতামাতার কোনও ধরণের উদ্বেগ সৃষ্টি হওয়া উচিত অবিরাম ক্রন্দন সামলানো কঠিন হতে পারে, তবে এটি প্রথম ছয় মাসের বেশি খুব একটা স্থায়ী হয় না যদি আপনি মনে করেন যে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে তবে সর্বদা আপনার ডাক্তারের পরামর্শ নিন