আপনার 38 সপ্তাহ বয়সী শিশু – বিকাশ,মাইলস্টোন এবং যত্ন

আপনার 38 সপ্তাহ বয়সী শিশু - বিকাশ,মাইলস্টোন এবং যত্ন

38 সপ্তাহ বা নয় মাস বয়সী একটি শিশুর মধ্যে দেখা যায় জীবন পরিবর্তনকারী উন্নয়ন মাইলস্টোনগুলিএই পর্যায়ে ঘটে নির্দিষ্ট কিছু বিকাশ যেমন মাতৃ স্তনদুগ্ধ ত্যাগ করানোর মাধ্যমে অন্য খাবার খাওয়ানোর অভ্যেসে প্রবেশ করানোর প্রয়াস,বিস্ময় সৃষ্টি হওয়াএখানে আমরা 38 সপ্তাহ বয়সী শিশুর সম্ভাব্য বিকাশ এবং তার যত্ন নেওয়ার কিছু উপায় ও পরামর্শ নিয়ে আলোচনা করব

aniview

একজন 38 সপ্তাহ বয়সী শিশুর বিকাশ

বয়সের এই পর্যায়ে শিশুদের বিকাশ পুরোপুরি স্পষ্টভাবেই দৃষ্টিগোচর হয়ে থাকে,38 সপ্তাহ বয়সী শিশুর মাইলস্টোনগুলি অর্জন করাটা পুরোপুরি নির্ভর করে প্রতিটা শিশুর বৃদ্ধির হারের উপরএগুলি কিছু শিশুর মধ্যে সুস্পষ্ট ভাবে হতে দেখা যায় কিন্তু বাকিদের ক্ষেত্রে আবার সেরকম স্পষ্ট ভাবে নাও ঘটতে পারে এটা একটা প্রাকৃতিক পদ্ধতি আপনার বাচ্চা এই সকল মাইলস্টোনগুলি অর্জন করবে হয় খুব শীঘ্র নতুবা কিছুটা দেরীতে

এই বয়সে আপনার শিশুর বিকাশের দৌড় সম্পর্কে ভালোভাবে অবহিত হতে আমাদের পরামর্শের পাশাপাশি আপনার ডাক্তারবাবুর সাথেও এ বিষয়ে একটু আলোচন সেরে নেবেন

উন্নয়নের এই মাইলস্টোন গুলিকে বিভিন্ন সেটে ভাগ করা যেতে পারেসেগুলির মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ গুলি আমরা চিহ্ণিত করেছি

আটত্রিশ সপ্তাহ বয়সী শিশুর উন্নয়ন মূলক মাইলস্টোনগুলি

আটত্রিশ সপ্তাহ বয়সী শিশুর উন্নয়নমূলক মাইলস্টোনগুলিকে ভাগ করা যেতে পারে শারীরিক, মানসিক, সামাজিক উন্নয়ন এবং ডাক্তারী প্রয়োজনীয়তায়

1.শারীরিক এবংমানসিক উন্নয়ন

  • শিশু তার আরো গতিশীলতা দেখাবেসে চেষ্টা করবে কয়েক মিনিটের জন্য বসা থেকে উঠে দাঁড়াবার,হামাগুড়ি দেওয়ার,পেটের উপর ভড় দিয়ে শুয়ে থাকা অবস্থা থেকে উঠে বসতে চেষ্টা করবে,হতে পারে সে কোনো কিছুকে আঁকড়ে ধরে একটুখানি নেচেও নিতে পারেআবার শিশুরা কোনো কিছু অবলম্বন ছাড়াই উঠে দাঁড়াবার মত ঝুঁকি নেওয়ার চেষ্টাও করতে পারেএই পর্যায়ে তাদের আঙ্গুলের সাহায্যে কোনো বস্তুকে তুলে ধরার ক্ষমতারও বিকাশ ঘটবে
  • বাচ্চারা ভয় পেতে পারে অধিক উচ্চতায়,জায়গার পরিবর্তনে এবং অবস্থান বিশেষে যেমন যদি আপনি তাকে খেতে বসার উঁচু চেয়ারের একদম শীর্ষে রাখেন,আপনার কাঁধের মধ্যে তাকে রেখে হাঁটেনকারণ তারা উঠে দাঁড়িয়ে হাঁটার প্রচেষ্টা করে এবং অবশেষে এই প্রক্রিয়ারই অংশ হিসেবে তারা পড়ে যায়একবার শিশুটি দাঁড়াতে ও হাঁটতে শিখলেই এই পড়ে যাওয়ার অবস্থাটা কেটে যাবে
  • এই পর্যায়ে পৌঁছিয়েও বাচ্চা ঠিক মত কথা বলতে নাও পারতে পারেকিন্তু তারা এই সময়ে অনেক বেশী শব্দই বুঝতে পারে এবং কিছু সহজ শব্দ যেমনমামা‘,’বাবাএইগুলি বলা শুরু করতে পারেতারা কিছু নির্দেশ অনুসরণ করতে সক্ষম হবে এবং তাদের প্রয়োজনীয়তা গুলোকে তাদের নিজস্ব ইশারার ভাষার দ্বারা বোঝাতে পারে।
  • শিশুরা তাদের স্মৃতিশক্তির বৃদ্ধি পরিদর্শন করাতে পারে কোনো নির্দিষ্ট বস্তুকে মনে রাখার মাধ্যমে, যেমন কোথায় আপনি তার টিথারটিকে রেখেছেন ইত্যাদি এই ধরণের কিছুএক সপ্তাহ আগে লক্ষ্য করা বিষয়গুলোকে তারা মনে রেখে অনুকরণও করতে পারে
  • যদি আপনি তাদের পছন্দের কোনো জিনিস নিয়ে নিতে যান তবে তা্রা তাতে বাধা দেবে
  • তারা খাওয়ার নতুন নতুন অভ্যাস ও পদ্ধতি শুরু করতে পারেমাঝে মধ্যেই লক্ষ্য করা যায় শিশু তার খাদ্যগুলির সাথে খেলতে শুরু করে
  • শিশুদের এই সময়েই দাঁত ওঠা শুরু হয়প্রথমে তাদের সামনের দুটো দাঁতের দেখা পাওয়া যায়।
  • এই সময় তাদের ঘুমানোর অভ্যাসটাও পরিবর্তিত হবেএবং আমরা নিচে একটি নিবেদিত বিভাগে এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি

2. সামাজিক উন্নয়ন

  • মানুষের সাথে সংযুক্তি ঘটাতে পারে এবং সহমর্মিতা লাভ করতে পারে এবং তাদের জিনিসগুলোর সাথেও, যেমন একটা টিথার,খেলনা, আপনার মাথার চুল ইত্যাদিতারা নিরাপত্তা এবং সুবিধার জন্য এগুলোকে ধরে রাখে
  • তাদের মধ্যে আবেগ সংবেদনশীলতার প্রকাশ পায়এই ক্ষেত্রে যদি আপনি কোনো কারণে কেঁদে ওঠেন, তারাও আপনার সাথে কেঁদে উঠবে
  • ভাইবোনেদের প্রতিও তার আবেগ ক্রমশ বৃদ্ধি পেতে থাকেকারণ এই সময়ে বাচ্চারা ঘুরে বেড়াতে পারে এবং সে আপনার অন্যান্য বাচ্চাদের মাঝে ঢুকে পরে এবং যার ফলে তাদের সাথে এই বিবাদ ঘটতে পারে
  • তারা আবার কিছু প্রসংশাও পেতে পারে তাদের কিছু কাজের জন্য
  • কারুর সাথে তারা জিনিস ভাগ করতে শুরু করে যেমন খেলনা, খাবার,তাদের পোষা প্রাণী গুলোকে ইত্যাদি
  • তাদের খেলাধূলা এবং অন্যান্য ক্রিয়াকলাপের উপরেও সামাজিক উন্নয়ণ প্রভাব বিস্তার করবেএই বয়সে শিশুরা লুকোচুরি খেলাটিকে উপভোগ করবে

3.ডাক্তারী প্রয়োজনীয়তা

  • ডাক্তারবাবু তার দেহ পরীক্ষা করবেন
  • রোগ নির্ধারণের জন্য নানান পরীক্ষা করাবেন
  • টিকা দেবেন

উপরের সবগুলিই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিকাশ এবং শিশুর 38 সপ্তাহ বয়সে তার বৃদ্ধির দৌড়ের সময় তাকে দুধ খাওয়ানোর কৌশল,তার খাওয়া এবং ঘুম এই সকল বিষয়েই বাবামায়ের অগ্রাধিকার বেশী থাকেএখন প্রথমেই আলোচনা করা যাক তাদের খাওয়ানো এবং ঘুমানোর বিকাশের পরিবর্তনগুলো সম্পর্কে

খাওয়ানো

এটা হল সেই সময় যখন শিশুরা তাদের ছোট ছোট আঙ্গুলের সাহায্যে কোনো কিছু তুলতে চেষ্টা শুরু করেসুতরাং আপনি এমন খাবার তাকে দেওয়া শুরু করতে পারেন যেগুলো সহজে ধরে আঙ্গুলে তুলে খাওয়া যায়, এবং সহজে তাদের হজম হয়,যেমন নরম পাউরুটির টুকরোবিশেষ, ভালো করে সিদ্ধ করা ডিমের সাদা অংশের টুকরো, সেদ্ধ করা আলুর টুকরো ইত্যাদি

এটা আবার বাচ্চাকে সেই সকল খাবার গুলো দেওয়ার সেরা সময় যেগুলো তাদের মুখে সহজেই গলে যায়,যেমন নানা রকম ফলের যেমন কলা, পেঁপে, আভোকাডো দাঁত দিয়ে ভাঙ্গা যায় এরকম বিস্কুট এবং কিছু কুড়মুড়ে খাবার যেগুলো সহজেই দ্রবীভূত হতে পারে এরকম নরম পিউরি বা মন্ড

এটা আবার শিশুদের উপর নতুন খাবার প্রয়োগ করে পরীক্ষা করারও ভালো সময়এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে আপনি আপনার বাচ্চার সাথে পাস্তা, মাছ ,মাংস ইত্যাদি ধরণের খাবারের সাথে পরিচয় করানো শুরু করাতে পারেনএমন কিছু তত্ত্ব আছে যেখানে পরামর্শ দেওয়া হয় যে, খাবারের প্রতি এলার্জি কমাবার জন্য প্রতি 3-5 দিনের মধ্যে আপনার বাচ্চার সাথে নতুন খাবারের পরিচয় করানো উচিতআবার অন্য এক গবেষণায় পরামর্শ দেওয়া হয় প্রতি 1-3 দিনে নতুন খাবারের সাথে পরিচয় করানোটা ঠিক

বাচ্চারা আপনার সাথে তাদের খাবার ভাগ করে নিতে পছন্দ করবেযেহেতু এই সময় বাচ্চারা তাদের পছন্দের কথা জানাতে পারে তাই সেই অনুযায়ী খাবার নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত থাকুন

এই সমস্ত রকম খাবার নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষার পাশাপাশি আপনি এখনো আপনার সন্তানকে বুকের দুধ খাইয়ে যেতে পারেনযাইহোক, শিশুদের খাবার চাহিদা নির্ভর করে তাদের অন্যান্য ক্রিয়াকলাপের উপর, যেগুলির উপর তাদের উৎসাহ থাকে, বিশেষ করে ঘুমানোর সময়অর্থাৎ তাদের ঘুম যদি ঠিকমত হয় তবে তাদের খাবার চাহিদাটাও ঠিক থাকবেএইসময় তাদের ঘুম চক্রটিও পরিবর্তিত হয়ে যাবে

ঘুমানো

এই সময় শিশু নতুন নতুন কার্যে পূর্ণ হয়ে ওঠে,এবং তাদের ঘুম কমে যেতে পারে এবং দিনে রাতে উভয় সময়েই সে বিরক্ত হতে পারেযা তাদের খিটখিটে ও ক্লান্ত করে তোলেএমনকি সেক্ষেত্রে তাদের মধ্যে রাতের ভয় অথবা দুঃস্বপ্নও দেখা দিতে পারে

তাদের মধ্যে আবার নিরাপত্তার অভাবও দেখা দিতে পারেবাচ্চা তার মা কিম্বা তার তত্ত্বাবধায়কের সঙ্গে ছাড়া আর কারুর সাথেই ঘুমাতে না চাইতে পারেএই কারণে ব্যাস্ত দিনগুলোর জন্য আপনার প্রয়োজন হতে পারে বেবি ক্যারিয়ারের

একটি গবেষণাঅনুযায়ী, “8% শিশু তাদের 6-12 মাস বয়স পর্যন্ত নিয়মিত ভাবেই রাত্রে অন্তত একবার জেগে ওঠে, এবং 61% শিশুকে রাত্রিবেলায় কম করে অন্তত একবার দুধ খাওয়াতে হয়এই বয়সে শিশুদের বুকের দুধ খাওয়ানোটা একান্ত জরুরী নয়তাদের কাছে একটা গল্পের বই পড়ে কিম্বা তাদের গল্প শুনিয়েও ঘুম পাড়ানো যেতে পারে

তাদের শারীরিক ও মানসিক দ্রুত বিকাশের কারণে এই সমস্ত কিছুই ভীষণ স্বাভাবিক হয়ে থাকে

একজন 38 সপ্তাহ বয়সী শিশুর যত্নের পরামর্শ

এই পর্যায়ে শিশুদের বিশেষ কিছু যত্ন নেওয়া প্রয়োজন

  • বিপজ্জনক সকল বস্তু সমূহ তাদের নাগালের বাইরে রাখুন কারণ এই সময়ে শিশুদের অঙ্গপ্রত্যঙ্গীয় সঞ্চালন দক্ষতা বৃদ্ধি পায়
  • সব রকম সাবধানতা অবলম্বনের চেষ্টা করুন, যেমনঘুমানোর জন্য নিচু খাট নির্বাচন করুন,বেঁধে বসানোর ব্যবস্থা করুন,তাদের সঞ্চালন নিরীক্ষণ করতে তাদেরকে বেবিসিটারের মধ্যে বসান ইত্যাদিকারণ তাদের সচলতা তাদের আরও বিপত্তিপ্রবণ করে তোলে
  • তাদের সচলতা বৃদ্ধির কারণে তারা আহত হতে পারে সেই কারণে সবসময়ে প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা রাখুন
  • শিশুর দাঁতের যত্ন নেওয়া সাধারণভাবে শুরু করতে পারেন
  • ছোট ছোট টুকরোর খেলনাগুলোকে এড়িয়ে চলুন যেগুলি সে মুখে ঢুকিয়ে চিবিয়ে ফেলতে পারে
  • শিশুর অনুভূতির প্রতি সংবেদনশীল হন,এই সময় থেকে তাদের আবেগ, মতামত বৃদ্ধি পেতে শুরু করে
  • তারা কোনো জিনিসকে অপরের সাথে ভাগ করে নিতে শেখে তাই তারা যা কিছুই আপনাকে দেবে সেটা গ্রহণ করুন
  • এই সময়ে তাদের খাওয়া ও ঘুমের অভ্যাসগুলির উপর বেশী মনযোগ দেওয়া প্রয়োজন

বয়সের এই পর্যায়ে শিশুর বিকাশের ক্ষেত্রে ডাক্তারী প্রয়োজনীয়তাগুলোও সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ,যেগুলো সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হল

পরীক্ষা নিরীক্ষা এবং টিকাকরণ

ভারত সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রক দ্বারা সুপারিশ করা হয় শিশুর নয় মাস বয়সে হামের টিকার প্রথম ডোজ দেওয়ার জন্যতাদের 12 মাস বয়সে এটা দেওয়া হয় ভিটামিন A ভ্যাক্সিনের প্রথম ডোজ মুখে খাওয়ানোর সাথে জাপানিস এনসিফ্যালাইটিস ভ্যাক্সিনের প্রথম ডোজটিও বিবেচনার মধ্যে ধরা হয়

ইন্ডিয়ান একাডেমি অফ পেডিয়াট্রিক্স দ্বারাও সুপারিশ করা হয় শিশুদের নয় মাস বয়সে মুখে খাওয়ার পোলিওভাইরাস ভ্যাক্সিন IPV 2, হামের টিকা, মাম্পসের টিকা এবং রুবেলা ভ্যাক্সিন MMR-1 দেওয়ারএছাড়াও তাদের 9-12 মাস বয়সের মধ্যে টাইফয়েড কনজুগেট ভ্যাক্সিন দেওয়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা বা WHO এর নির্দেশিকা অনুযায়ী সুপারিশ করা হয় যে শিশুদের 9 মাস বয়স থেকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তাদের হিউম্যান প্যাপিলমা ভাইরাস ভ্যাক্সিন ( HVP ) দেওয়ানো উচিত 9-12 মাসের মধ্যে তাদের হামের টিকার পাশাপাশি ইয়ালো ফিভার ভ্যাক্সিনটিও দেওয়ানো প্রয়োজন 9-18 মাসের মধ্যে দেওয়ানো দরকার মেনিনজোকক্কাল MenA কঞ্জুগেট ভ্যাক্সিন এবং 9-23 মাসের মধ্যে প্রয়োজন কোয়াড্রিভ্যালেন্ট কঞ্জুগেট দেওয়ানোর

অন্যান্য সুপারিশ অনুযায়ী, শিশুদের 6-18 মাস বয়সের মধ্যে দেওয়ানো যেতে পারে তৃতীয় হেপাটাইটিস B এর টিকা (HBV) এবং তৃতীয় পোলিও ভ্যাক্সিন (IPV) এবং বার্ষিক ফ্লুটিকাটিকা দেওয়ানো উচিত

এই টিকাকরণের জন্য কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যেতে পারে, তাই এই টিকাগুলো আপনার শিশুকে দেওয়ানোর আগে দয়া করে আপনার ডাক্তারবাবুর সাথে আলোচনা করে নিন

যে সকল পরীক্ষা নিরীক্ষাগুলিও করানোর প্রয়োজন

  • শিশুর দৈর্ঘ্য,উচ্চতা,ওজন,মাথার পরিধির পরিমাপ
  • বৃদ্ধি চার্ট অনুযায়ী শিশুর বৃদ্ধির পরিমাপ
  • সম্পূর্ণরূপে শারীরিক পরীক্ষা নিরীক্ষা
  • শিশুর বিকাশের মূল্যায়ন

খেলাধূলা এবং অন্যান্য ক্রিয়াকলাপ

বিভিন্ন ধরণের খেলা ও অন্যান্য ক্রিয়াকলাপের সাথে শিশুদের পরিচয় করানোর জন্য এটি মোক্ষম সময় এই সময় যেগুলি তার জন্য আদর্শ সেগুলি হল

  • তার বুদ্ধি উদ্দীপিত করতে—শ্রেণী নির্বাচন করতে, জমায়েত করতে, গড়াতে এবং অপরের সাথে কোনো কিছু ভাগ করে নিতে উৎসাহ যোগায় এমন খেলার কিট তাদের দেওয়া ভালো
  • চারপাশের বস্তু গুলোর প্রতি শিশুর আলোকপাত করতে—বেশ কিছু রঙীন ব্লক নিয়ে শিশুকে দিন যেগুলো সহজেই একটা বড় বাক্সের ভিতরে ঢোকানো ও বের করা যায়নিশ্চিত করুন যেন সেই ব্লকগুলো এতটাও ছোট না হয় যে শিশুরা সেগুলোকে তাদের মুখে ঢুকিয়ে চিবিয়ে ফেলতে পারে
  • মনযোগ বাড়ানোর আকর্ষণীয় বস্তু প্রদান—বিভিন্ন ধরণের শব্দ উৎপাদন কারী খেলনা তাদের দিন যেমনমিউজিকাল গাড়ি,কিবোর্ড,বাচ্চাদের বাজানোর ড্রাম কাঠি সহযোগে তাদের দিন
  • সচলতার বিকাশে সাহায্যকারী খেলনা প্রদান—খোলা এবং বন্ধ করা যেতে পারে এমন ধরণের খেলনা শিশুকে দিন( যেমন একটা খেলনা বাড়ি, যার দরজা খোলা ও বন্ধ করা যায় ),লিভার যুক্ত খেলনা,রিমোট কন্ট্রোল গাড়ি এগুলি তাকে দিতে পারেনএছাড়াও একটি বলকে গড়িয়ে দিয়ে অথবা একজনের থেকে অন্যজনের কাছে বলটিকে প্রদানের মাধ্যমেও তার সাথে খেলতে পারেন, যা তার সচলতাকে আরো বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করবে
  • নানারকম পশুপাখির ছবি সমৃদ্ধ বই প্রদান করতে পারেন অথবা তাদের সামনে রঙীন গল্পের বই পড়াও তাদের বিকাশে সাহায্যকারী অন্যতম একটা মজাদার খেলা হয়ে উঠতে পারে

কখন ডাক্তারের সাথে আলোচনা করা প্রয়োজন

যদি আপনি আপনার বাচ্চাকে দুধ খাওয়াতে ব্যাস্তও থাকেন,আপনি অবশ্যই ডাক্তারের সাথে নিয়মিত ব্যবধানে আলোচনাও করবেনএবং আলোচনার জন্য আপনি যেগুলো অবশ্যই করবেন

  • আশানুরূপ মাত্রায় শিশুর শারীরিক ও মানসিক বিকাশ ঘটছে কিনা লক্ষ্য রাখবেন
  • পূর্ববিদ্যমান কোনোরকম শারীরিক সমস্যার উন্নতি ঘটছে কিনা
  • টিকাকরণ
  • নতুন শারীরিক সমস্যা দেখা দিয়েছে কিনা
  • গুরুতর অসুস্থতা অথবা আঘাত পেলে,যদিও আদর্শগতভাবে এক্ষেত্রে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া উচিৎ যেহেতু সেখানে ডাক্তারবাবুরা উপস্থিত থাকেন

38 সপ্তাহ বয়সী শিশুরা নতুন নতুন বিকাশে পরিপূর্ণ হয়ে ওঠেতাদের পাশাপাশি আপনারও যত্ন নেওয়া প্রয়োজন, সুতরাং যখন আপনি আপনার শিশুর যত্ন নেবেন দয়া করে নিজেরও খুব ভালোভাবে পরিচর্যা করুনআপনার শিশুকে ভালো করে বড় করে তোলার জন্য প্রয়োজন হবে আপনার সবরকমের শক্তি ও ভালো স্বাস্থ্যের