কীভাবে গর্ভধারণ প্রতিরোধ করবেনঃ জন্মনিয়ন্ত্রণ বিকল্পগুলি, সতর্কতা এবং আরো অন্যান্য বিষয় সমূহ

কীভাবে গর্ভধারণ প্রতিরোধ করবেনঃ জন্মনিয়ন্ত্রণ বিকল্পগুলি, সতর্কতা এবং আরো অন্যান্য বিষয় সমূহ

গর্ভবতী হওয়া হল একটি উপহার স্বরূপ যা বেশীর ভাগ মহিলার বা অন্যদের জীবনের কিছু ক্ষেত্রে অনেকটা অংশ পরিব্যাপ্ত করে রাখেযাইহোক,গর্ভাবস্থার অনেকগুলি ধাপ থাকে, তাই চিকিৎসার ক্ষেত্রে সেটি কখনই হালকা ভাবে নেওয়া উচিত নয়ভালো খবর হল এটিই যে, গর্ভাবস্থা হল এমন একটি বিষয় যেটি থাকে আপনার নিয়ন্ত্রণের মধ্যে এবং সেটি এড়িয়ে যেতেও পারেন যদি আপনি অনুভব করেন যে, আপনি এই ব্যাপারের জন্য এখনই প্রস্তুত নন

aniview

প্রতিরোধ পরিমাপ করুন যখন সঙ্গমে লিপ্ত হবেন ,কিছু দায়িত্ববান দম্পতি কিছু সাধারণ গর্ভনিরোধ পদ্ধতি সাধারণত ব্যবহার করে থাকেনআসুন,পুরুষ এবং মহিলা উভয়ের জন্য গর্ভাবস্থা এড়িয়ে চলতে কিছু সার্বিক পদক্ষেপ নেওয়া যাক

পুরুষ এবং মহিলাদের জন্য গর্ভনিরোধের পদ্ধতি গুলি

পুরুষ এবং মহিলাদের জন্য গর্ভনিরোধের পদ্ধতি গুলি

গর্ভবতী হওয়া হল একটি সম্ভাবনা,যা শুধুমাত্র সেই সকল দম্পতিদের জন্যই নয় যারা কিছুটা ঘনিষ্ঠ হন বা অন্তরঙ্গ, কিন্তু এটি নতুন মায়েদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্যযেসকল মহিলাদের পিরিয়ড হচ্ছে তাদের ও নতুন মায়েদের মত গর্ভবতী হবার সমান সম্ভবনা থাকে

এর পরিবর্তে অনেকগুলি বিকল্প ব্যবস্থাও গ্রহণ করা হয় গর্ভধারণ না করার ক্ষেত্রেসেগুলির মধ্যে কিছু বিকল্প ব্যবস্থা নিচে তালিকাভূক্ত করা হল

মহিলাদের জন্য জন্মনিয়ন্ত্রণের বিকল্প গুলি

এবার বিশ্লেষণ করা যাক জন্ম নিয়ন্ত্রণের জন্য মহিলাদের জন্য কিছু সবচেয়ে নিরাপদ বিকল্প

1) ইন্ট্রাউটেরিয়ান ডিভাইস অথবা কয়েল হল জন্ম নিয়ন্ত্রণে মহিলাদের জন্য ভালো একটি বিকল্প অসুরক্ষিত সঙ্গম করার পাঁচ দিনের মধ্যে আপনার ডাক্তারবাবু এটিকে লাগিয়ে দিতে পারবেনঅন্য যেকোন পদ্ধতির তুলনায় এটি একটি নিরাপদ পদ্ধতি হতে পারে যা আপনার পরবর্তী দশক পর্যন্ত একই ভাবে আপনাকে গর্ভাবস্থা থেকে রক্ষা করবে

2) মর্নিং আফটার পিল হল অন্য আরেকটি পদ্ধতি যা ব্যবহৃত হয় আপনার গর্ভাবস্থাকে কোণঠাসা করে রাখতেএটি 72 ঘন্টার মধ্যে ব্যবহার করা যেতে পারে,যা আপনাকে দেয় যথেষ্ট সময় এটি ব্যবহারের জন্য

3) বর্তমানে ডিপোপ্রোভেরার ব্যবহার কিছুটা জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেএটি হল একটি হরমোন নির্ভর গর্ভনিরোধক,যা আপনার পেশীতে প্রতি তিন মাসে সূচের দ্বারা প্রয়োগ করা হয় সাধারণত, হাতের অথবা পশ্চাদদেশের পেশীতেই এটি ব্যবহার করা হয়,কিন্তু বেশী গুরুত্বপূর্ণ হল কোনও রকম ব্যর্থতা ছাড়া প্রতি তিন মাস অন্তর এটির পুনরাবৃত্ত করতে হয়

4) স্টেরিলাইজেশন হল অন্য আরেকটি সাধারণ পদ্ধতি যেটি অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে করা হয়ে থাকেএটি স্থায়ী, এবং সেই কারণে গর্ভাবস্থা রোধে এটি নির্বাচন করার আগে যথেষ্ট চিন্তা করার সুপারিশ করা হয়

5) স্পার্মিসাইডের সাথে যৌথভাবে ডায়াফ্রাম হল আরেক ধরণের ডিভাইস যা একজন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারবাবুর দ্বারাই লাগানো হয়এই ডিভাইসটি সার্ভিক্স অঞ্চলকে ঢেকে রাখে এবং কমপক্ষে 6 ঘন্টার জন্য গর্ভাবস্থা হ্রাস করতে সাহায্য করেতবে 24 ঘন্টার জন্য এটিকে না রেখে দেওয়ার জন্যই পরামর্শ দেওয়া হয়

6) খাওয়ার গর্ভনিরোধক বড়ি হল সুরক্ষার জন্য আরেকটি অন্য দূর্দান্ত বিকল্পকৌতুক হল এক্ষেত্রেও আপনার পিল বা বড়ি বাদ দেওয়া যাবে না এ ব্যপারে আপনাকে নিশ্চিত হতে হবেসেক্ষেত্রে কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও থাকতে পারে

7) ট্যাবলেট ছাড়াও গর্ভধারণ এড়াতে মহিলাদের জন্য অন্য বিকল্প হল ইমপ্ল্যানন বা নরপ্ল্যান্টএই ইমপ্ল্যান্টগুলি বাহুর উপরের অংশে আটকানো হয় রাবারের রড রূপে

8) গর্ভধারণের ক্ষেত্রে টিউবেক্টমি হল সব থেকে স্থায়ী সমাধানএটি আবার টিউবাল স্টেরিলাইজেশন নামেও পরিচিত,এটি হল একটি অস্ত্রোপচার পদ্ধতি যার দ্বারা মহিলাদের ফ্যালোপিয়ান টিউবটিকে কেটে দেওয়া হয় এবং সিল করে বন্ধ করে দেওয়া হয়এটি নিরপেক্ষভাবে একটি নিরাপদ পদ্ধতি এবং কিছুটা কার্যকরি হয় সেই সব দম্পতির জন্য যাদের ইতিমধ্যেই শিশু আছে

পুরুষদের জন্য জন্মনিয়ন্ত্রণ বিকল্পগুলি

গর্ভাবস্থা রুখতে পুরুষদের জন্য জন্মনিয়ন্ত্রণ বিকল্প রূপে যে পদ্ধতি গুলি ব্যবহার করা হয় সেগুলির সম্পর্কে জানতে পড়ুন নিম্নলিখিত অংশটি

1) সঙ্গমের সময় সুরক্ষার জন্য পুরুষদের ব্যবহারের ক্ষেত্রে কন্ডোম হতে পারে সবচেয়ে সহজ এবং ভালো একটি পদ্ধতি

2) ভ্যাসেক্টমি হল পুরুষ গর্ভনিরোধকের আরো বেশি স্থায়ী একটি রূপএটি অস্ত্রপচারের মাধ্যমে করা হয়, ঋজুতা এবং নিঃসরণে বাধার সৃষ্টি করে না

3) পুরুষদের জন্য জন্মনিয়ন্ত্রণের আরেকটি প্রচলিত হস্তচালিত পদক্ষেপ হল নিঃসরণের আগের মুহূর্তে বাইরে নির্গমন করানোএটি সুপারিশ করা হয় না যেহেতু এক্ষেত্রে সফলতার সম্ভাবনা কিছুটা কম হয়,এবং এটি নির্ভরযোগ্য পদ্ধতি নয়

পুরুষদের জন্য জন্ম-নিয়ন্ত্রণ বিকল্পগুলি

গর্ভনিরোধকের কার্যকারিতার হার

যখন উপরে তালিকা ভুক্ত সকল বিকল্পগুলি পছন্দের সারণীতে পড়ে,যেগুলি গর্ভনিরোধের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা যেতে পারে, হ্যাঁ, এটা করা হয়, অবশ্যই, বুঝতে হবে যে এগুলির মধ্যে কিছু পদ্ধতি বেশী কার্যকরি অন্যগুলোর তুলনায়নিচে তথ্য নিক্ষেপ করা হল হালকা কিছু সাহায্যের জন্য

গর্ভনিরোধের পদ্ধতি সঠিক কার্যকারীতা %
পুরুষদের জন্য কন্ডোম 85-87 %
মহিলাদের জন্য কন্ডোম 77-80 %
স্পার্মিসাইডের সাথে ডায়াফ্রেম দলবদ্ধ ভাবে 78-81 %
খাওয়ার গর্ভনিরোধক 95 % এবং তার বেশী
ডেপো প্রভেরা 99 % এবং তার বেশী
নরপ্ল্যান্ট / ইমপ্ল্যান্ট 99 % এবং তার বেশী
ইন্ট্রাউটেরিয়ান ডিভাইস প্রায় 99 % এর কাছাকাছি
অস্ত্রপচারের মাধ্যমে নির্বীজন / স্থায়ী নির্বীজন 99 % এবং তার বেশী
মর্নিং আফটার পিল /জরুরী অবস্থাকালীন গর্ভনিরোধক 74-76 %

গর্ভধারণ এড়ানোর সাবধানতা গুলি নিম্নরূপ

প্রতিরোধ নিরাময়ের চেয়ে ভালো এর উপর ভিত্তি করে,গর্ভধারণ এড়ানোর জন্য সেরা কিছু পদক্ষেপ নিচে আলোচনা করা হলআরও নথিভূক্ত করুন যে,এটি হতে পারে একটি সারাংশ যা ইতিমধ্যেই আলোচনা করা হয়েছেপাশাপাশি,আসুন কিছু নতুন বিকল্পের সন্ধান করা যাক যা আপনাকে সাহায্য করতে পারে গর্ভাবস্থা প্রতিরোধের সেরা উপায়গুলি খুঁজে বের করতে

1) সুরক্ষা ছাড়া কখনও যৌনসঙ্গমে লিপ্ত হবেন না

2)পুরুষ ও মহিলা উভয়ের জন্য একটি আশানুরূপ গর্ভনিরোধ পদ্ধতি পছন্দ করুন

3)কোনও রকম সুরক্ষা ছাড়া আপনার মাসিক ঋতুচক্রের সময় সঙ্গম করা এড়িয়ে চলুন

4) যথাযথ উদ্যোগ নিন গর্ভাবস্থাকে কোণঠাসা করে রাখতে এবং উদ্যম দমনের অনুশীলন করুন যেমন,নিঃসরণের আগে নির্গমন করানো,যদিও সেক্ষেত্রে কোনও নিশ্চয়তা নেই যে শুক্রাণু ইতিমধ্যেই আপনার ডিম্বানুর কাছে পৌঁছে গিয়েছে কিনা

5) আপনার নিরাপদ সময়েকোনওরকম সুরক্ষা ছাড়া সঙ্গমও প্রমাণ করতে পারে তার অসার্থকতাযেকোনও রকম ভুল গণনাও এর জন্য দায়ী হতে পারে যার পরিণতি হিসেবে আপনি অবশ্যই গর্ভবতী হয়ে উঠবেন

6) সঙ্গমের সময় কোনোরকম সুরক্ষা ছাড়া যৌন সংসর্গ থেকে বিরত থাকুন যেহেতু সেক্ষেত্রে কিছু শুক্রাণু শেষ পর্যন্ত আপনার ডিম্বাণুকে নিষিক্ত করার একটি উচ্চ সম্ভাবনা থাকে

7) যদি আপনি ইতিমধ্যেই জন্মনিরোধক বড়ি খাওয়া শুরু করে থাকেন তবে পরামর্শ দেওয়া হয় সেটিকে অনিয়মিত অভ্যাসে পরিণত না করার জন্য

8) সঙ্গমের ঠিক আগে, লিঙ্গ থেকে সাধারণত কিছু স্রাব নির্গত হয়, যা প্রিকাম (পূর্বনিঃসরণ)নামে পরিচিতযা সঙ্গমে উত্তম রূপে ক্রিয়াশীলপাশাপাশি,এই স্রাবে থাকতে পারে উন্নতমানের কিছু শুক্রাণু,তাই গর্ভধারণ রুখতে এই সময়ে আপনার সঙ্গীটি তার লিঙ্গ স্পর্শের ঠিক পরেই আপনার যোনি স্পর্শ করবেন নাএই বিষয়টি নিশ্চিত করুন

9) অনুরূপভাবে,কন্ডোম স্পর্শ বা ব্যবহারের পর যোনি স্পর্শ করলে সেক্ষেত্রে আপনার গর্ভধারণের একটি ঝুঁকি থেকে যায়, যদি কোনও শুক্রাণু কন্ডোমের মধ্যে সংযুক্ত হয়ে থাকে তবে আপনার জরায়ুর মধ্যে ডিম্বাণুর কাছে পৌঁছানোর পথ তৈরি করে নিতে পারে

10) বীর্যপতনের পর খুব দীর্ঘ সময় ধরে জড়িত থাকবেন না সেটি নিশ্চিত করুন (এমনকি যদি কন্ডোম পরিধান করে থাকেন সেক্ষেত্রেও)এমন কিছু ঘটনা রয়েছে যেখানে কন্ডোমের মধ্যস্থ উপাদানটি যোনির ভিতরে ঝরে পড়ে যেহেতু নিঃসরণের পর লিঙ্গ বীর্যহীন হয়ে পড়ে

11) এক্ষেত্রে এমন কিছু ফল ও ভেষজ আছে যেগুলি আপনি গ্রহণ করতে পারেন নিয়মিত ভাবে যেগুলি আপনাকে নিশ্চিত করবে যে, আপনি কখনই গর্ভবতী হবেন না এমনকি যদি আপনি সুরক্ষার ব্যাপারে অথবা জন্ম নিয়ন্ত্রক ডিভাইস ব্যবহারের প্রতি অসতর্কও হন সেক্ষেত্রেওপেপে হল সেইরকমই সাহায্য কারী একটি ফল

গর্ভধারণ এড়ানোর সাবধানতা গুলি নিম্নরূপ

12) যতক্ষন না আপনি পরিবার গঠনের পরিকল্পনা শুরু করেন, আগে থেকে চিন্তা করুন এবং উপরিল্লিখিত যেকোনো মহিলা গর্ভনিরোধক ডিভাইস ব্যবহার করুন

13) সবচেয়ে সেরা ও সহজ গর্ভনিরোধক হল কন্ডোমের ব্যবহারগর্ভধারণ রুখতে মহিলা এবং পুরুষের মধ্যে একজন এটি ব্যবহার করবেন সেটি নিশ্চিত করুন

14) সংকটের মুহূর্তে যেমন ফাটা বা কোকড়ানো বা খারাপ মানের কন্ডোম ব্যবহারের ক্ষেত্রে অথবা পিল বা বড়ি মিস করার ক্ষেত্রে আপনাকে মর্নিং আফটার পিল অথবা এমার্জেন্সি পিল গ্রহণ করা নিশ্চিত করতে হবে যা বন্ধ করলেই আপনি গর্ভবতী হয়ে পড়বেন

প্রাকৃতিক ভাবে গর্ভধারণ এড়ানোর ধাপগুলি

যদি আপনি গর্ভাবস্থাকে কোণঠাসা করতে অস্ত্রোপচার পদ্ধতি বা ডাক্তারি পদ্ধতির খুব বেশী অনুরাগী না হন,সেক্ষেত্রে কিছু প্রাকৃতিক বিকল্প আছে যার দ্বারা আপনি গর্ভবতী হওয়ার থেকে বিরত থাকতে পারেন প্রাকৃতিকভাবে গর্ভাবস্থা এড়ানোর মূখ্য উপাদান হল আপনার শরীরকে ভালো ভাবে বুঝতে পারাএর পাশাপাশি,মাসের সবচেয়ে উর্বর প্রজননের সময় আপনার সংযত থাকা ও সঙ্গম থেকে বিরত থাকা উচিত, আপনার জনন চক্রের একটি চার্ট বানান এবং পূর্ণ ফলাফল পাওয়ার জন্য হিসাব রাখুন যখন প্রাকৃতিক ভাবে জন্মনিয়ন্ত্রণ পরিমাপ করবেন

1.প্রজনন সক্ষমতার পরিমাপ

প্রজনন সক্ষমতার মূল্যায়নের ক্ষেত্রে বিভিন্ন পরিমাপ পদ্ধতি আছেনতুনদের জন্য,প্রজনন সক্ষমতার অর্থ কি সেটি আগে আপনার বোঝা উচিতকোনও রকম সুরক্ষা ছাড়াই ওভুলেশনের পূর্বে পাঁচ দিন আগে থেকে পুনরায় ওভুলেশন শুরু হওয়া পর্যন্ত মাঝের যেকোনও দিনে সঙ্গম করলে আপনি গর্ভবতী হতে পারেনবিপরীতে বলা ভালো, এই সময় পর্বে আপনার কখনই কোনও রকম সুরক্ষা ছাড়া সঙ্গম করা উচিত নয়,যদি গর্ভধারণ না করতে চানএকবার প্রজনন সক্ষমতার অর্থ বোঝার পর ওভুলেশন মানে কি এটিও আপনার জানা উচিতছোট্টকথায় বলা যায়,এর অর্থ হল ডিম্বাশয় একটি উর্বর ডিম্বাণুকে আপনার ফ্যালোপিয়ান টিউবের মধ্যে উন্মুক্ত করে যার সাথে একটি পুরুষ শুক্রাণু মিলিত হয় এবং পরিণাম স্বরূপ আপনি গর্ভবতী হতে পারেনপরিশেষে, আপনার বোঝা উচিত এক্ষেত্রে কীভাবে প্রাকৃতিক ধারণা কাজ করেআপনি সকল গুরুত্বপূর্ণ দিনলিপির গণনা করবেন এবং সেই সময় পর্ব যখন আপনি কোনোরকম ভয় ছাড়াই সঙ্গম করতে পারেন এই সকল হিসেব সঠিক ভাবে সম্পন্ন হলে প্রাকৃতিক উপায়ে গর্ভনিরোধ চমৎকার ভাবে কাজ করে

2.আপনার ব্যাসাল বডি টেম্পারেচর পর্যবেক্ষণ করুন

এই পদ্ধতি গ্রহণ করতে, যেটা প্রথমেই করা দরকার তা হল একটি ব্যাসাল বডি থার্মোমিটার কেনাএটি খুব গুরুত্বপূর্ণ আপনার ব্যাসালের অথবা 24 ঘন্টা সময়ের মধ্যে আপনার দেহের নিম্ন তাপমাত্রার একটি চার্ট বানানো এইভাবে একমাসের তাপমাত্রার চার্ট বানালে তা সবচেয়ে ভালো ফল দেয়ওভুলেশনের সময় আপনার শরীরে সামান্য বেশী উচ্চতাপমাত্রার প্রবণতা থাকে যেটি আপনার প্রজনন উর্বরতার সেরা সময়কে চিহ্ণিত করার একটি লক্ষণআপনার শরীরের তাপমাত্রা নেওয়ার সময় কিছু বিষয় মনে রাখা উচিত, প্রথম বিষয় হল সেটি নিতে হবে ভোরবেলায় এবং প্রতিদিন একই সময়ে অনুসরণ করতে হবেআপনার ব্যাসাল বডি টেম্পারেচারের নিখুঁত ভাবে চার্ট হওয়া উচিত যা আপনাকে সঠিক ফল দেবে কেবল মাত্র কমপক্ষে তিনমাস এই পদ্ধতির পুনরাবৃত্তির পরেইযেই দিনে আপনার শরীরের তাপমাত্রা বেশী মনে হবে অন্যান্য সাধারণ দিনের তুলনায় সেইদিন পুরোপুরি সুরক্ষা নিয়ে আপনার সঙ্গম করা উচিত

3.সার্ভিক্যাল মিউকাসের পরীক্ষা

গর্ভাবস্থা এড়ানোর এটি একটি চতুর পদ্ধতি, কিন্তু সঠিক ভাবে প্রয়োগ করলে আপনি প্রত্যাশিত ফল পাবেনসার্ভিক্যাল মিউকাস কিছুই নয় কিন্তু আপনার স্বাভাবিক যোনির স্রাব যার পরিবর্তন ঘটে মাসের মধ্যে বিভিন্ন সময়ে,আপনার একজোড়া আঙ্গুলকে আপনার যোনির ভিতরে প্রবেশ করিয়ে সেটিকে সরিয়ে বের করে দেওয়া উচিতআপনি এই একই কাজ করার জন্য তুলোর উলও ব্যবহার করতে পারেনআপনার এই মিউকাস চেক করা উচিত কেবল মাত্র আপনার পিরিয়ড বা মাসিক শেষ হওয়ার পরেইরঙ,গঠন,ঘনত্ব লিপিবদ্ধ করা উচিৎ এবং সঠিকভাবে চার্টের পরিবর্তন করুন আপনি কখন প্রজনন সক্ষম তা জানার জন্য

4.ক্যালেন্ডারে আপনার চক্র লিপিবদ্ধ করুন

সম্ভবত এটি সবচেয়ে সাধারণ ব্যবহৃত একটি পদ্ধতি,আপনার মাসিক চক্র জানার সাথে এটি শুরু করা হয়যদি আপনার চক্র 28-30 দিনের মধ্যে যেকোনও সময়ে হয়,আপনার চক্র যত দিন ধরে চলে তার দিনসংখ্যা হিসাব করুনএটি গুরুত্বপূর্ণ যে, আপনি কমপক্ষে 8-9 টি চক্রের সঠিক দিন সংখ্যার চার্ট করবেন এই প্যাটার্নের একটি ধারণা পাওয়ার জন্যএই প্যাটার্ন ব্যবহারের মাধ্যমে আপনার ছোট চক্রের দিন সংখ্যা থেকে 18 বিয়োগ করে অথবা আপনার বড়চক্র থেকে 11 বাদ দিয়ে আপনি আপনার উর্বর প্রজননের দিনগুলি বলতে পারবেনএই পদ্ধতি ব্যব্যহার করে যেদিন গুলির হিসাব পাওয়া যায় সেগুলি হওয়া উচিত যখন আপনার উর্বর সময় শুরু হয় সেই দিনগুলির হিসাব সংখ্যাএটা বলা অপ্রয়োজনীয় যে কোনওরকম গর্ভনিরোধক ছাড়াই এই সময় পর্বে সঙ্গম আপনাকে গর্ভবতী করে তোলে

ক্যালেন্ডারে আপনার চক্র লিপিবদ্ধ করুন

5.প্রয়োগ করুন আপনি যা খুঁজছেন

গর্ভনিরোধের প্রাকৃতিক উপায়গুলির মধ্যে একটি পদ্ধতির ব্যবহারে কখনই ফল পাওয়া যায় নাএটি সব থেকে ভালো ও সঠিক ফল পাওয়া যায় যদি উপরে উল্লেখিত পদ্ধতি গুলির সবগুলি একসাথে প্রয়োগ করা যায়এটি অবশ্যই এখানে উল্লেখ করা হয় যে,যদি আপনি গণনা নিয়ে বিভ্রান্তিতে পড়েন,নিশ্চিত করুন সুরক্ষার জন্য নিরাপত্তার জাল হিসেবে আপনি অন্য পদ্ধতি ব্যবহার করবেন,কন্ডোম হল সেগুলির মধ্যে একটিউপরে বর্ণিত প্রয়োগের সম্পূর্ণ ধারণাটি আপনার প্রজননের সবচেয়ে উর্বর সময় নির্বাচনের জন্য প্রযোজ্য আপনার গণনার উপর নির্ভর করে নিশ্চিত করুন যে আপনি বিজ্ঞতার সাথে নির্বাচন করবেন যে, কোন দিনগুলিতে আপনি কোনও রকম সুরক্ষা ছাড়াই সঙ্গম করতে পারবেন এবং প্রজননের উর্বরতার সময়, যখন আপনি গর্ভধারণ এড়িয়ে চলার জন্য বাড়ির প্রতিকার গুলি থেকেও বিরত থাকবেন বা অবলম্বন করবেন

গর্ভাবস্থা এড়াতে 20 টি ঘরোয়া প্রতিকার ব্যবস্থা

আপনাদের মধ্যে যারা গর্ভাবস্থা এড়িয়ে চলার জন্য এই সকল কৃত্রিম বা ডাক্তারি পদ্ধতিগুলি ববহার করতে চান না তাদের জন্য এখানে রইল কিছু প্রাকৃতিক উপায়ে গর্ভনিরোধের পদ্ধতি যেগুলি কেবল কার্যকরিই নয় এটি বাড়িতেও সঠিক ভাবে প্রয়োগ করা যায়

অবাঞ্ছিত ভবিষ্যৎ গর্ভাবস্থা প্রতিরোধে ভেষজ,মশলা এবং উদ্ভিদগুলি কোনও রকম পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ছাড়াই কীভাবে কার্যকরি হয়ে ওঠে সেইসকল বিষয়ে জেনে নেওয়া যাক

1. নিম

এই সুপার ঔষধিতে সম্ভবত জীবনের সকল দৃষ্টিভঙ্গীর বৈশিষ্ট্য গুলি বিদ্যমান,এটি হতে পারে ত্বক অথবা গর্ভাবস্থার জন্য আদর্শএমন কি,নিম কে গণনা করা হয় এমন এক প্রতিকার রূপে, যা শুক্রাণুর গতিশীলতা কে কমানোর মাধ্যমে নিষেকের সম্ভাবনাকেও কমিয়ে দেয়গর্ভাবস্থা নিয়ন্ত্রণে নিম বিভিন্ন রূপে ব্যবহার করা যেতে পারেপুরুষরা নিমের ট্যাবলেট গ্রহণ করে তাদের বন্ধাত্য বৃদ্ধি করে যার ফলে গর্ভাবস্থা দমন করা যায়গর্ভাবস্থার ক্ষেত্রে বাড়ির প্রতিকার রূপে নিমপাতা ভীষণ কার্যকরি হয় যখন এটি ব্যবহার করা হয় নির্যাস বা তেল রূপে

2. পেপে

এই সুপার ফলটি হল অন্য আরো বহুমুখী প্রাকৃতিক প্রতিকার যা গর্ভাবস্থা দমনে সাহায্য করেযে কোনও ভাবেই পেপে খাওয়া যেতে পারে, আস্ত ফল, জুস অথবা এমনকি এর শাঁসটি কমপক্ষে 4-5 দিন খেলে নিশ্চিত করবে যে আপনি গর্ভবতী হবেন না

3. শুকনো অ্যাপ্রিকট বা খুবানি

শুকনো খুবানির জন্য খরচ করা হল সঙ্গমের পরবর্তী সময়ের জন্য একদম সঠিক যা গর্ভাবস্থা দমনে দুর্দান্ত ফল দিতে পারে শুকনো খুবানি মধু এবং জলের মধ্যে ভিজিয়ে খাওয়া সবচেয়ে ভালো ভালো ফল পাওয়ার জন্য এই মিষ্টি স্বাদের পানীয়টি কমপক্ষে এক সপ্তাহের জন্য গ্রহণ করা উচিত

4. বাজরা

এটি পাস্তা তৈরির একটি অন্যতম উপাদান যেমন কার্বোহাইড্রেট এর এক দূর্দান্ত রূপ,যা খেলে গর্ভাবস্থাকে কোণঠাসা করতে সাহায্য করেবাজরায় উপস্থিত রুটিন গর্ভাবস্থাকে প্রতিরোধ করে নিষেকে ফাঁকি দেওয়ার মাধ্যমে, যদি জলের সাথে এটি সঠিক ভাবে খাওয়া হয়ভালো ফল পাওয়ার জন্য প্রতিদিন নূন্যতম 500 গ্রাম করে বাজরা গরম জলের সাথে গ্রহণ করা নিশ্চিত করুন

5. শুকনো ডুমুর

এটি এমন একটি ভেষজ যা শরীরের রক্ত সঞ্চালন কে উন্নীত করে,এবং সঙ্গমের সময় থেকে যত দিন না আপনি আপনার মাসিক বা পিরিয়ড ফিরে পান প্রতিদিন গ্রহণ করা উচিত

6. ভিটামিন C

আপনার ত্বকের জন্য বিস্ময়কর কাজটি যে উপাদান করে সেটি আবার গর্ভাবস্থাকেও কোণঠাসা করে রাখতে সাহায্য করে আপনি গর্ভধারণ রোধ করা নিশ্চিত করতে 1500 গ্রামের কাছাকাছি ভিটামিন D ক্যাপসুল রূপে গ্রহণ করুন

7. কালো কোহশ

এটি পেনিরয়ালের সাথে গ্রহণ করুন, যদি আপনি কোনওরকম কার্যকর গর্ভাবস্থা সতর্কতা অবলম্বন না করেন তবে সেক্ষেত্রে এই ভেষজটি সঠিক পছন্দ রূপে কাজ করে গর্ভপাত ঘটানোর জন্য

8. দারুচিনি

এই মশলাটি শুধুমাত্র আপনার খাবারের স্বাদই বাড়ায় না, এটি গর্ভাবস্থা দমনে বাড়ির একটি প্রতিকার রূপেও কাজ করে বিস্ময়কর ভাবে দারুচিনির জল জরায়ুকে উদ্দীপিত করে তাই এটি খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় সঙ্গমের পরেদারুচিনির কাঠিগুলিকে সারা রাত জলে ভিজিয়ে রাখার সুপারিশ করা হয়এই জলটি পান করার আগে কাঠি গুলি সরিয়ে ফেলা নিশ্চিত করুন

দারুচিনি

9. বিশেষ ধরণের আগাছা (গাঁজা) পাতা

এই ছোট্ট বিস্ময়করটি ব্যবহারের জন্য সব জায়গাতেই সহজে পাওয়া যায়এই পাতা গুলিতে থাকে কুয়ারসেটিন,রুটিন এবং গ্যালিক অ্যাসিডের মত উপাদানগুলি যেগুলি নিয়মিত ঋতুচক্রে সাহায্য করেপাতাগুলিকে ফুটন্ত জলের সাথে যোগ করুন,সর্বোত্তম ফল পেতে ছেঁকে নিয়ে তরলটি পান করুন

10. সতর্কতা

গর্ভাবস্থাকে এড়ানোর ক্ষেত্রে কিছু সতর্কতা রয়েছে যেগুলি ঘরোয়া প্রতিকার হিসাবেও গণনা করা হয়শুরু করার জন্য আপনি সময় দিতে পারেন নির্গমনে এবং সেটি কাজ করার ঠিক আগের মুহূর্তে সেটিকে বের করে দিনআপনি গর্ভবতী হবেন না এই ভেবে আপনার মাসিক চক্রের সময় কোনওরকম সুরক্ষা ছাড়া সঙ্গম করা বন্ধ করুনঘনিষ্ঠ যৌন যোগাযোগ থেকে বিরত থাকুন

11. পার্সলে

এই অসাধারণ ভেষজটির কিছু পাতা নিয়ে গরম জলে দিন এবং তাকে ফুটিয়ে নিনএরপর সেই তরলটি শুধু শুধুই কিম্বা তাতে অতিরিক্ত কিছু স্বাদ আনার জন্য সামান্য চিনি মিশিয়ে পান করুন

12. অ্যাঞ্জেলিকা (রান্না ও ঔষধিতে ব্যবহৃত লতা বিশেষ)

এটি আবার ডংকুয়াই নামেও পরিচিতএটি গ্রহণ করুন কমপক্ষে 15 দিনের জন্য আপনার জরায়ুর প্রসারণ ও সংকোচনকে উদ্দীপিত করার জন্য

13. গাজর বীজ

গর্ভবতী হওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য এটি বহুকাল থেকে চলে আসা পুরানো একটি পদ্ধতি এটি পরামর্শ দেওয়া হয় যে,আপনি বীজগুলিকে চূর্ণ করে জলের সাথে মিশিয়ে পান করুনআরও ভালো ফল পাওয়ার একটি পরামর্শ হল পরবর্তী কিছু দিনের জন্য এই এই তরল পানের মাত্রা কিছুটা বাড়িয়ে দিন

14. তুলা মূলের ছাল

ভীষণ কার্যকারী এই মূলটি শুকিয়ে নিন এবং গরম চা বা উষ্ণ জলের সাথে মিশিয়ে এটি পান করুনভালো ফল পাওয়ার জন্য এটি নূন্যতম সাত দিনের জন্য পান করার পরামর্শ দেওয়া হয়

15. রু

ঘরোয়া প্রতিকার রূপে পাওয়া এই উপাদানগুলি রুটিন এবং পাইলোকারপিন দ্বারা গঠিত হয়এটি ব্যবহারের সবচেয়ে ভালো উপায় হল চা অথবা জলের সাথেএটি না ঝাঁকিয়ে গ্রহণ করতে ভুলবেন না

16. মগ ওর্ট

এটি গর্ভধারণ থেকে বিরত থাকার আরেকটি ভালো পছন্দএটির শুকনো রূপেই খাওয়া ভালোএর শুকনো পাতাগুলি চিবানোর সময় এক গ্লাস জল খেতে ভুলবেন নাঅতিরিক্ত পাতা গ্রহণ এড়িয়ে চলুন যেহেতু এটিতে মূত্রের সংক্রমণ হওয়ার সম্ভাবনা থাকেযাদের কিডনির সমস্যা আছে তাদের যতটা সম্ভব এটির ব্যবহার সীমিত রাখা উচিত

17. আদার মূল

দুকাপ জলে আদার মূল থেঁতো করে সেটিকে ফুটিয়ে নিন, এরপর সেই জল উষ্ণ অবস্থায় পান করলে সেটি গর্ভাবস্থা এড়াতে সাহায্য করে

18. শিয়ালকাঁটা

এটি কুইনাল্ট ভারতীয়দের দ্বারা ব্যবহৃত একটি প্রতিকার,শিয়ালকাঁটা কে গর্ভনিরোধক রূপে বিশ্বাস করা হয়এটিকে জলের মধ্যে ফুটাতে থাকুন যতক্ষণ না এর তেঁতো স্বাদটি বেরিয়ে আসে,এবং এরপর এটি পান করুন

19. পালপিট মূলের জ্যাঁক

এটি আবার ভারতীয় শালগম বা জংলী শালগম নামেও পরিচিত,এটি একটি ওষধি গাছ,যার মূলগুলি ব্যবহৃত হয় গর্ভাবস্থা নিয়ন্ত্রণেএইমূলের শুকনো পাউডার ½ কাপ গরম জলের সাথে মিশিয়ে মজুত করা হয়প্রত্যাশিত ফল পেতে এটি দুইবার করে পান করুন

20. কুইন অ্যানের লেস

এটি আবার বুনো গাজর নামেও পরিচিত, গর্ভনিরোধের জন্য এই উদ্ভিদের বীজগুলি গ্রহণ করা যেতে পারে চা রূপে অথবা সম্পূর্ণ রূপেযাইহোক,এগুলি এড়িয়ে চলা ভালো যদি আপনার কিডনির রোগ থাকে বা পিত্ত থলিতে পাথর অথবা আপনি যদি বাচ্চাকে বুকের দুধ খাওয়ান

ছোট্ট কথায় বলা যায়,সঙ্গম করার সময় সুরক্ষা নিন,অথবা ভালো জন্মনিয়ন্ত্রক পরিমাপক গুলি ব্যবহার করুন যা সফল ভাবে আপনার গর্ভাবস্থা এড়াতে সাহায্য করবেপাশাপাশি মাথায় রাখবেন এমন কোনও চিকিৎসাগত উপাদান নেই যা সুরক্ষার জন্য ব্যবহার করে পুরোপুরি 100% ফল পাওয়া যায়,সেরা হল ঘরোয়া পদ্ধতি এবং ব্যবহারিক পদ্ধতি উভয় প্রকারই একই সাথে প্রয়োগের মাধ্যমে গর্ভাবস্থাকে দূরে ঠেলে রাখার ক্ষেত্রে নিশ্চিত হওয়া