গর্ভাবস্থায় আঁখের রস – স্বাস্থ্যে উপকারিতা এবং সতর্কতা

গর্ভাবস্থায় আঁখের রস – স্বাস্থ্যে উপকারিতা এবং সতর্কতা

মহিলারা গর্ভাবস্থায় বিভিন্ন জিনিস কামনা করেন। হঠাৎ করে আপনি এমন কিছু খেতে চাইবেন যা আপনি আগে কখনো পছন্দই করেননি। গর্ভাবস্থায় আপনি যা খান তা আপনার শিশুর স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব ফেলে; অতএব, গর্ভাবস্থায় আপনার একটি স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া বজায় রাখা গুরুত্বপূর্ণ। আপনার যদি মিষ্টি খেতে ভালবাসেন, তবে আপনি সম্ভবত তাজা ফলের রস পান করে উপভোগ করবেন, তবে গর্ভবতী হওয়ার সময় আপনি কি আঁখের রস পান করতে পারেন? অন্যান্য সমস্ত রস গর্ভাবস্থাকালে সুপারিশ করা হয়, তবে গর্ভাবস্থায় আঁখের রস খাওয়া যায় কিনা তা অনেকেরই জানা নেই। গর্ভাবস্থায় আঁখের রস খাওয়া যায় কিনা, এর স্বাস্থ্যের উপকারিতা এবং এটি পান করার সময় কি কি সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত তা এখানে আমরা আলোচনা করব।

aniview

আঁখে কি কি থাকে?

আঁখের রস আঁখ থেকে তৈরি করা হয় যা বহুবর্ষজীবী লম্বা ঘাসজাতীয় গাছ। আঁখ সাধারণত উষ্ণ জলবায়ুতে জন্মায় এবং বেশিরভাগ দক্ষিণ পূর্ব এশিয়াতে পাওয়া যায়। এই উদ্ভিদটি মূলত চিনি তৈরির জন্য উৎপাদন করা হয়। তবে এটি খাওয়ার অন্যতম সেরা উপায় হল আঁখের রস সতেজভাবে খাওয়া। আঁখ ভিটামিন এ, বি১, বি২, বি৩, বি৫, বি৬ এবং ভিটামিন সিতে পরিপূর্ণ, এটিতে ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং আয়রনও রয়েছে। আঁখের রস গর্ভবতী মহিলাদের পক্ষে নিরাপদ এবং চরম স্বাস্থ্যকর। তবে আপনি যদি ডায়াবেটিস বা গর্ভকালীন ডায়াবেটিসে ভুগছেন, তবে আপনাকে গর্ভাবস্থায় আঁখের রস পান করা থেকে বিরত থাকতে হবে। অন্যথায় গর্ভাবস্থায় আঁখের রস পান করা বেশ ভাল এবং নিরাপদ।

আঁখের রস কিভাবে প্রস্তুত হয়?

আঁখের রস কেবল দারুণ স্বাস্থ্যকর এবং আনন্দদায়কই নয়, তবে এটি প্রস্তুত করাও খুব সহজ। আঁখের ডাল ম্যানুয়ালি পরিচালিত জুসিং মেশিনের মাধ্যমে পিষ্ট করা হয়। প্রাপ্ত রস ছাঁকা হয়। এর স্বাদ বাড়াতে পুদিনা, লেবুর রস, আদা এবং বরফ যোগ করা হয়।

গর্ভাবস্থায় আঁখের রস পান করার স্বাস্থ্যকর উপকারিতা

আঁখ ভিটামিন ও খনিজগুলির একটি পাওয়ার হাউস, এবং এইভাবে গর্ভাবস্থায় আপনার জন্য খুব উপকারী। এই সুস্বাদু পানীয়টি গ্রহণ থেকে আপনি পেতে পারেন এমন কিছু উপকার এখানে রয়েছে:

. কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়তা করে

কোষ্ঠকাঠিন্য বেশিরভাগ গর্ভবতী মহিলাদের মুখোমুখি হওয়া অন্যতম প্রধান সমস্যা; এই সমস্যায় আঁখের রস খাওয়া সাহায্য করতে পারে। গর্ভাবস্থায় আঁখের রস পান করলে কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পাওয়া যায় এবং এটি আপনার প্রতিদিনের ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করে পেটের বিভিন্ন সংক্রমণ থেকেও বাঁচাতে পারে।

. সংক্রমণের সাথে লড়াই করে

আপনার গর্ভাবস্থার ডায়েটে ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ খাবার অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। আঁখের রস পান করা আপনাকে কেবল পুষ্টি সরবরাহই করে না, তবে এতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টও রয়েছে, যা গর্ভাবস্থায় ব্যাকটেরিয়া, ছত্রাক এবং ভাইরাল সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সহায়তা করে।

. ঠান্ডা লাগা এবং কাশি দূরে রাখে

আপনি যদি গর্ভাবস্থায় কাশি বা সর্দিতে ভুগছেন তবে আঁখের রস সেবন করা সাহায্য করতে পারে। কাউন্টার থেকে অতিরিক্ত ওষুধ খাওয়ানোর চেয়ে এটি অবশ্যই একটি ভাল প্রতিকার।

. বিলিরুবিন স্তরের ভারসাম্য বজায় রাখে

আপনার লিভারের আরও ভাল কাজ করার জন্য সঠিক পরিমাণে বিলিরুবিন মাত্রা অপরিহার্য। প্রতিদিন আঁখের রস খাওয়ার ফলে বিলিরুবিনের মাত্রা ঠিক থাকে।

. অনাক্রম্যতা বাড়ায়

গর্ভাবস্থা আপনার হরমোনগুলির ক্ষতি করে এবং আপনি অসুস্থ ও ক্লান্ত বোধ করতে পারেন। আপনি গর্ভবতী হলে আঁখের রস পান করা আপনার প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতে এবং আপনাকে সুস্থ রাখতে পারে।

. ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে

অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধি গর্ভবতী মহিলাদের একটি প্রধান উদ্বেগ। আঁখের মধ্যে পলিফোন রয়েছে, যা বিপাকের গতি বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে এবং আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে। তবে এটি বেশি পরিমাণে পান করলে এর বিপরীত প্রভাব পড়তে পারে।

ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে

. সকালের অসুস্থতা মোকাবেলায় সহায়তা করে

আঁখের রস সকাল অসুস্থতা থেকে কিছুটা মুক্তি দেয়। সকালের অসুস্থতার লক্ষণগুলি কাটিয়ে উঠতে আপনি এতে কয়েক ফোঁটা আদা রস যোগ করতে পারেন।

. ইউটিআই এর সাথে ডিল করায় সাহায্য করে

ইউটিআই বা মূত্রনালীর সংক্রমণ গর্ভাবস্থায় একটি সাধারণ সমস্যা এবং এটি একটি অত্যন্ত বেদনাদায়ক ও অস্বস্তিকর অভিজ্ঞতা হতে পারে। আঁখের রস পান করা আপনার গর্ভাবস্থায় মূত্রনালীর সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করতে পারে।

. নিম্ন গ্লাইসেমিক

আঁখের রসে গ্লাইসেমিক কম পরিমাণে থাকে, যা গর্ভাবস্থায় খাওয়ার জন্য এটিকে আদর্শ করে তোলে। গর্ভাবস্থা আপনাকে শুষে নিতে পারে এবং আপনাকে ক্লান্ত ও দুর্বল করতে পারে। আঁখের রস খাওয়া আপনাকে তাত্ক্ষণিক শক্তি দেয় এবং ক্লান্তি কাটিয়ে উঠতেও সহায়তা করে।

১০. আপনার ত্বককে উজ্জ্বল করে তোলে

আঁখের রসে রয়েছে রাইবোফ্লাভিন যা স্বাস্থ্যকর ত্বকের জন্য উপকারী। আঁখের রসে থাকা ভিটামিন বি আপনাকে লম্বা ও সুন্দর চুলও দিতে পারে।

১১. ব্রণ নিরাময়ে সহায়তা করে

গর্ভাবস্থায় হরমোন ভারসাম্যহীনতার কারণে আপনার মাঝে মাঝে ব্রণ হতে পারেন। নিয়মিত আঁখের রস পান করা ব্রণ নিরাময়ে সহায়তা করতে পারে। ব্রণ নিরাময়ের জন্য আপনি আঁখের রস এবং ফুলার আর্থের (মুলতানি মাটির) ফেস প্যাকটি প্রয়োগ করতে পারেন।

১২. দাঁতের স্বাস্থ্যের জন্য ভাল

গর্ভাবস্থা আপনাকে দাঁতের সমস্যা এবং মাড়ির সমস্যার ঝুঁকিতে ফেলতে পারে। আঁখের রসে ক্যালসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম থাকে যা গর্ভাবস্থায় দাঁতের স্বাস্থ্যের জন্য ভাল এবং দাঁতের যেকোন সমস্যা উপশম করে রাখবে।

গর্ভাবস্থায় আঁখের রস খাওয়ার সময় সাবধানতা অবলম্বন করুন

গর্ভাবস্থায় আঁখের রস খাওয়া নিরাপদ। তবে, আঁখের রস পান করার সময় নিম্নলিখিত সতর্কতা অবলম্বন করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে:

  • গর্ভাবস্থায় সব সময় এবং আওব কিছুতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা প্রয়োজনীয়। নিশ্চিত করুন যে আপনি কোন স্বাস্থ্যকর জায়গা থেকে আঁখের রস কিনেছেন। রাস্তার বিক্রেতাদের কাছ থেকে আঁখের রস পান করা থেকে বিরত থাকুন, কারণ এটি খাবারে বিষক্রিয়া বা পেটের সংক্রমণ হতে পারে।
  • আপনি মাঝারি পরিমাণে আঁখের রস গ্রহণের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। আঁখের রসতে চিনির পরিমাণ বেশি থাকে এবং প্রয়োজনীয় পরিমাণের চেয়ে বেশি পরিমাণে সেবন করলে বিভিন্ন স্বাস্থ্যসংক্রান্ত জটিলতা তৈরি করতে পারে।
  • ডায়াবেটিস বা গর্ভকালীন ডায়াবেটিস হলে আঁখের রস খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।
  • আপনার প্রতিদিনের ডায়েটে আঁখের রস অন্তর্ভুক্ত করার আগে আপনার প্রসূতি বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করুন।

গর্ভাবস্থায় আঁখের রস আপনার জন্য স্বাস্থ্যকরভাবে প্রচুর উপকারী। তবে এর অর্থ এই নয় যে আপনি এটির বেশি পরিমাণে পান করবেন। আপনার গর্ভাবস্থার ডায়েটে এই সুস্বাদু এবং সতেজকর পানীয় যুক্ত করার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।