গর্ভাবস্থায় আম খাওয়া: নিরাপদ না অনিরাপদ?

গর্ভাবস্থায় আম খাওয়া: নিরাপদ না অনিরাপদ?

একটি পরিবার শুরু করা এবং বিশ্বে একটি নতুন জীবনের আনয়ন সত্যিই যেন অসম্ভব সুন্দর ও আনন্দের অনুভূতি। আপনি আপনার চারপাশে শত শত নতুন জিনিসের অভিজ্ঞতা পাবেন এবং আপনার কাছে অগ্রাধিকার পাবে নিজেকে ও আপনার ক্রমবর্ধমান শিশুকে সুস্থ অবস্থায় রাখা। অবশ্যই, এই নয়টি গুরুত্বপূর্ণ মাসে, আপনার গর্ভাবস্থা জুড়ে আপনার কি ধরনের খাবার খাওয়া উচিত সে সম্পর্কে আপনার বন্ধু এবং আত্মীয়দের কাছ থেকে প্রচুর অর্থপূর্ণ এবং অযাচিত পরামর্শ পাবেন। গর্ভাবস্থায় গর্ভধারণকারী মহিলারা নির্দিষ্ট ধরণের খাবার খাওয়া এবং কাঁচা আম খাওয়ার সময় প্রায়ই দ্বিধাগ্রস্ত হন।

aniview

গর্ভাবস্থার সময় আম খাওয়া কি নিরাপদ?

গর্ভাবস্থায় পাকা আম খাওয়ার নিজস্ব সুবিধা রয়েছে

গর্ভাবস্থায় পাকা আম খাওয়ার নিজস্ব সুবিধা রয়েছে, তবে খবার পরিমাণগুলি যথাযথভাবে পর্যবেক্ষণ করা উচিত যাতে আপনি এটি কখনোই এটা বেশি খেয়ে না ফেলেন। ভিটামিন এ, বি৬ ও সি সমৃদ্ধ হওয়ার ফলে, গর্ভাবস্থায় প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহ করে, ফোলিক অ্যাসিড, পটাসিয়াম এবং লোহার উপস্থিতিও ভুলে যাওয়া উচিত না।

গর্ভধারণের সময় আম খাওয়া শরীরের তাপ বাড়ায় এমন একটি সাধারণ শ্রুতিকথা আছে, যা অন্যথায় খাদ্যের থার্মোজেনেসিস হিসাবে পরিচিত। মশলা, আদা, মরিচ এবং শক্তিশালী হার্বাল পণ্যগুলির মতো খাবারগুলি হজম ও প্রক্রিয়া করার শক্তি প্রয়োজন এবং শরীরের তাপ বৃদ্ধি করার জন্য দায়ী। তবে কোন প্রমাণ নেই যে আম তাপ বৃদ্ধি করে এবং শিশুর ক্ষতি করে।

আম শক্তি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলির একটি দুর্দান্ত উৎস যা গর্ভাবস্থার এই প্রচেষ্টার সময় অপরিহার্য। যাইহোক, এই সুবর্ণ খাবার ক্রয় করার সময়, নিশ্চিতভাবে আপনি বাজারে জুড়ে ছড়িয়ে থাকা রাসায়নিকভাবে পাকানোগুলি থেকে দূরে থাকুন। অন্যান্য ফলগুলির মতোই, যখন এরা সঠিক ঋতুতে থাকে তখনই খান, এর আগে বা পরে না, যাতে আপনি ফলটি যে প্রাকৃতিকভাবে পেকেছে তা নিশ্চিত করতে পারেন। এছাড়াও, আপনার ডায়েটের অন্তর্ভুক্তি এবং খাওয়ার পরিমাণ সম্পর্কে পরীক্ষা করার জন্য আপনার ডাক্তারই সেরা ব্যক্তি।

আমের পুষ্টির মান

ফলের রাজা, এইভাবেই আম সাধারণত পরিচিত, পুষ্টিকর এবং ভিটামিনগুলির সাথে পূর্ণ, যা গর্ভবতী মহিলার শরীরের পুষ্টির চাহিদাগুলি সম্পূরক হবে। আমের পুষ্টিগুণ সহজে বোঝার জন্য নিচে চার্টে দেখানো হয়:

তত্ত্ব পুষ্টির মান
শক্তি ৭০ ক্যালোরি
কার্বোহাইড্রেট ১৭ গ্রাম
প্রোটিন ০.৫ গ্রাম
মোট ফ্যাট ০.২৭ গ্রাম
কোলেস্টেরল ০ মিলিগ্রাম
ডায়েটরি ফাইবার ১.৮০ গ্রাম
ভিটামিন
ফোলেটস ১৪ µg মাইক্রোগ্রাম
নিয়াসিন ০.৫৮৪ মিলিগ্রাম
প্যান্টোথেনিক অ্যাসিড ০.১৬০ মিলিগ্রাম
পায়রিডক্সিন(ভিটামিন বি-৬) ০.১৩৪ মিলিগ্রাম
রাইবোফ্লোবিন ০.০৬৫৭ মিলিগ্রাম
থিয়ামিন ০.০৫৮ মিলিগ্রাম
ভিটামিন সি ২৭.৭ মিলিগ্রাম
ভিটামিন এ ৭৬৫ IU
ভিটামিন ই ১.১২ মিলিগ্রাম
ভিটামিন কে ৪.২ µg মাইক্রোগ্রাম
ইলেক্ট্রোলাইটস
সোডিয়াম ২ মিলিগ্রাম
পটাশিয়াম ১৫৬ মিলিগ্রাম
মিনারেল
ক্যালসিয়াম ১০ মিলিগ্রাম
কপার ০.১১০ মিলিগ্রাম
আয়রন ০.১৩ মিলিগ্রাম
ম্যাগনেসিয়াম ৯ মিলিগ্রাম
ম্যাঙ্গানিজ ০.০২৭ মিলিগ্রাম
জিঙ্ক ০.০৪ মিলিগ্রাম
ফায়টো-নিউট্রিয়েন্ট
ক্যারোটিন-ß ৪৪৫ µg মাইক্রোগ্রাম
ক্যারোটিন-α ১৭ µg মাইক্রোগ্রাম
সায়টো-জ্যান্থিন-ß ১১ µg মাইক্রোগ্রাম
লিউটেনিন-জ্যিয়াজ্যান্থিন ০ µg মাইক্রোগ্রাম
লায়কোপেন ০ µg মাইক্রোগ্রাম

 

  • আম ভিটামিন এ-এর একটি সমৃদ্ধ উৎস
  • এটি আলফা এবং বিটা ক্যারোটিন এবং বিটা-ক্রিপটোক্স্যান্টিনের মতো ফ্ল্যাভোনিয়েডগুলির সাথে পূর্ণ
  • প্রি-বায়োটিক ফাইবারও আমে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়
  • আম ভিটামিন সি-তে পূর্ণ, যা শরীরের প্রয়োজন একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট
  • এতে ভাল পরিমাণে পটাসিয়াম, ফোলেট এবং কপার আছে

গর্ভবতী মহিলাকে কতগুলি আম খেতে হবে?

আম শক্তির একটি মহান উৎস এবং ক্যালোরিতে সমৃদ্ধ, উভয়ই তৃতীয় ত্রৈমাসিক সময়এ প্রচুর পরিমানে প্রয়োজন হয়। আপনার ডাক্তার আপনাকে আপনার ক্যালোরি খাওয়ার পরিমাণ বাড়ানোর পরামর্শ দিলে, আপনার ডায়েটের আম যোগ করা ভাল ধারণা। যাইহোক, সংযম এখানেও চাবিকাঠি, তাই প্রতিদিন একটি আমোর বেশি খাওয়া উচিত না।

গর্ভাবস্থায় আম খাওয়ার স্বাস্থ্যের উপকারিতা

একটি অনন্য মিলিত মিষ্টি এবং টক স্বাদের কারণে, গর্ভবতী মহিলাদের কাছে আম প্রিয় হয় কারণ বমিভাবের অনুভূতির পরিমাণ হ্রাস পায়। তার পুষ্টিকর উপাদানগুলির উপর ভিত্তি করে, গর্ভাবস্থায় আম খাওয়ার উপকারিতাগুলি হল নিম্নলিখিত:

১) গর্ভাবস্থায় গর্ভবতী নারীদের অ্যানিমিয়া প্রতিরোধের জন্য লোহার সম্পূরকগুলি খাওয়া উচিত। যদি আপনি প্রতিদিন ১-২টি আম খেতে পারেন তবে আম লোহা সরবরাহ করে যা অ্যানিমিয়ার সাথে লড়াইয়ের জন্য লাল রক্তের কোষ বৃদ্ধি করে।

২) আমে প্রচুর পরিমাণে ফোলিক অ্যাসিড থাকে যা গর্ভাবস্থায় ভ্রূণের বিকাশকে সহায়তা করে। গর্ভাবস্থায় প্রথম ত্রৈমাসিকে আমে ফোলিক অ্যাসিড খাওয়ার মাধ্যমে স্নায়ুতন্ত্রের বিকাশ এবং ভ্রূণের মস্তিষ্কেরও বিকাশ হয়। প্রাথমিক গর্ভাবস্থায় যে নিউরোল টিউব ত্রুটিগুলি ঘটতে পারে তাও সঠিক পরিমাণে আম খেয়ে এড়ানো যায়।

৩) আমে একটি উচ্চ স্তরে ডায়েটরি ফাইবার থাকে যা পাচক সিস্টেমকে একটি শক্তিশালী অবস্থানে রাখার জন্য প্রয়োজন। কোষ্ঠকাঠিন্য কাটিয়ে ওঠার জন্য, গর্ভাবস্থায় আম খেতে হবে যাতে সকালে মলত্যাগ প্রক্রিয়া মসৃণ হয় এবং ব্যথামুক্ত হয়। পরিমাণের উপর নজর রাখুন কারণ অত্যধিক খাওয়ার কারণে গ্যাস এবং একটি অস্বস্তিকর অনুভূতি হতে পারে।

৪) আম ভিটামিন সি সমৃদ্ধ, তাই এটি একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসাবে কাজ করে, মানুষের দেহে ক্রমবর্ধমান রেডিকেলগুলিকে প্রতিরোধ করে। তামাক, বিকিরণ বা কোনও রাসায়নিক পদার্থ রেডিকাল তৈরি করতে পারে যার কারণে ক্যান্সার হতে পারে এবং ভ্রূণের বৃদ্ধিকেও প্রভাবিত করে। আমে ভিটামিন সি কিছু ক্ষেত্রে প্রাক-মেয়াদী প্রসবের ঝুঁকি কমিয়ে দিতে পারে।

৫) আম ভিটামিন বি৬-তে সমৃদ্ধ হয় যা ফোলিক অ্যাসিডের মত ভ্রূণের মস্তিষ্ক এবং স্নায়ুতন্ত্রের বিকাশের জন্য আদর্শ।

৬) আমে ভিটামিন এ রয়েছে যা চোখ ও স্নায়ুতন্ত্রকে সমৃদ্ধ করার সময় ক্রমবর্ধমান শিশুর হাড় ও দাঁত উন্নয়নে সহায়ক। আপনি যদি ইতিমধ্যে ভিটামিন এ সম্পূরক গ্রহণ করেন তবে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন, কারণ এই ভিটামিনের অতিরিক্ত মাত্রা শিশুর মধ্যে লিভার বিষাক্ততার কারণ হতে পারে।

৭) ম্যাগোনেসিয়াম সমৃদ্ধ হওয়ায় উচ্চ রক্তচাপের জন্য প্রাকৃতিক নিরাময় এবং পিক্ল্যাম্পসিয়া নামক হাইপারটেনসিভ অবস্থা প্রতিরোধ করে। যেহেতু প্রিক্ল্যাম্প্সিয়া গর্ভাবস্থায় জীবাণুর সংক্রমণের কারণ হতে পারে, তাই আপনার ডায়েটে আম যোগ করে এটিকে প্রতিরোধ করতে সহায়তা করতে পারে।

৮) আমের মিষ্টি-অম্ল স্বাদ সকালে অসুস্থতা কমানোর জন্য পরিচিত, গর্ভবতী নারীর এটি সাধারণ অবস্থা, এতে সাহায্য করার জন্য বিস্ময়কর কাজ করে। আমে ভিটামিন বি৬ আপনার সকালের অসুস্থতার জন্য উপযুক্ত।

৯) পটাসিয়াম হল এমন পদার্থ যা আমাদের শরীরের তরলের ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে, যা গর্ভাবস্থায় বিশেষত গুরুত্বপূর্ণ। নিচের অঙ্গে তরল সংশ্লেষে বাধা সৃষ্টি করতে পারে এবং অতিরিক্ত তরল খুব বিপজ্জনক হতে পারে।

১০) আমে উপস্থিত প্রাকৃতিক শর্করা নিশ্চিত করে যে আপনি যেন মিষ্টি খাওয়ার প্রবল ইচ্ছায় ডুবে না যান এবং সিন্থেটিক শর্করা ও প্রিজারভেটিভ খেয়ে না ফেলেন।

আম পুষ্টিকর উপাদানগুলিতে ভরপুর

গর্ভাবস্থায় আমের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

যদিও প্রাকৃতিকভাবে পাকা আমের কোনো বড় পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই তবে কৃত্রিমভাবে পাকানো আমের মধ্যে ক্যালসিয়াম কার্বাইড, রাইজিং এজেন্ট ব্যবহৃত হয় এবং আর্সেনিক ও ফসফরাসের অস্বাস্থ্যকর প্রভাবগুলি মা এবং শিশুর মধ্যে প্রকাশ হয়। এখানে কৃত্রিমভাবে পাকা আম খাওয়ার কয়েকটি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে-

  • ডায়রিয়া
  • মেজাজের দোলাচল বা মুড সুইং
  • মাথা ঘোরা
  • মাথাব্যাথা
  • হঠাৎ রোগের আক্রমণ
  • বিহ্বলতা বা গুলিয়ে ফেলা,
  • ঘুম ঘুম ভাব
  • হাত এবং পায়ে শিরশিরানি অনুভূতি

আমকে বিষাক্ততা থেকে এড়ানোর টিপস

আপনি যে আমাগুলি কিনছেন তা কৃত্রিমভাবে পাকানো হয়েছে কিনা তা বলা সবসময় সহজ নয়, কিছু সহজ সতর্কতাগুলি প্রতিকূল প্রভাবগুলির ঝুঁকিগুলিকে হ্রাস করতে সহায়তা করবে। এতে অন্তর্ভুক্ত:

  • ভালোভাবে ভাবে ধুয়ে পরিষ্কার করা: আম খাওয়ার আগে ভালোভাবে ধুয়ে নেওয়া যে কোন অবশিষ্ট রাসায়নিক অপসারণ করা হয় তা নিশ্চিত করে
  • আমের খোসা ছাড়ানো: আম খাওয়ার আগে খোসা অপসারণ করলেও বিষাক্ততার ঝুঁকি হ্রাস পায়
  • স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখা: নিশ্চিত করুন যে আপনি আপনার ছুরি, কাটার বোর্ড পরিষ্কার করেন এবং আম ছাড়ানো ও কাটার পরে আপনার হাত ধুয়ে পরিষ্কার করুন

আরেকটি দরকারী টিপ হল কাঁচা আম ক্রনা এবং তারপর বাড়িতে রেখে পাকান। এগুলি ক্যালসিয়াম কার্বাইড এবং তার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া মুক্ত হয় তা জানার এটি নিশ্চিত উপায়।

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

১) গর্ভাবস্থায় কোন আম নিরাপদ – পাকা না কাঁচা?

আম, কাঁচা বা পাকা, যেকোন অবস্থায় গর্ভাবস্থায় খাওয়া যায় এবং নিরাপদ। পাকা আম ক্ষুধা উদ্দীপিত করে, হজমে সাহায্য করে এবং আপনার রঙ উন্নত করার একটি প্রাকৃতিক উপায়। আমের মধ্যে উপস্থিত প্রাকৃতিক শর্করাগুলির কারণে, এটি অন্যান্য উচ্চ-ক্যালোরিযুক্ত মিষ্টিগুলি থেকে দূরে থাকার জন্য সাহায্য করে। কাঁচা আমে সেই ভিটামিনগুলি থাকে যা অম্লতা এবং সকালে অসুস্থতার সাথে লড়াই করে, এটি গর্ভাবস্থায় ব্যবহারের জন্য সম্পূর্ণ নিরাপদ।

২) গর্ভাবস্থার শেষ দিকে আম খাওয়া কি নিরাপদ?

আপনার গর্ভাবস্থার শেষ ত্রৈমাসিক সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ এবং এই সময়ে ফলের রাজা খাওয়ার সময় আপনাকে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। আমের অতিরিক্ত ব্যবহার গর্ভাবস্থায় ডায়াবেটিসের কারণ হতে পারে, তাই নিশ্চিত করুন যে আপনি সীমিত পরিমাণে খান। যদি আপনি আগে এই ফলে কোন অ্যালার্জি প্রতিক্রিয়ার সম্মুখীন হন, আপনার গর্ভাবস্থার শেষ কয়েক সপ্তাহে আম খেয়ে পরিস্থিতিটি বাড়িয়ে তুলবেন না।

৩) সেগুলি পাকা কিনা কিভাবে আমি জানবো?

আপনি যদি পুরোপুরি পাকা আম খেতে আগ্রহী হন তবে নিশ্চিত করুন যে আপনি খাওয়ার আগে নিম্নলিখিতগুলি পরীক্ষা করেছেন:

  • টেক্সচার: একটি পাকা আম সবসময় স্পর্শ করলে সামান্য নরম মনে হবে। আপনি একটি শক্ত আম কিনতে পারেন এবং এটি পাক্তে ছেড়ে দিন তবে, এটি পচে যাওয়ার আগে খাওয়া উচিত।
  • গন্ধ: আম হল একটি মিষ্টি ফল এবং আপনি একটি মিষ্টি সুগন্ধি পাওয়ার চেষ্টা করুন, একটি আনারস এবং একটি তরমুজের গন্ধের সমন্বয়ের মত কিছু খুঁজে দেখুন।

উপসংহার

আম খাওয়ার পরিমাণ অনুমতিযোগ্য সীমার মধ্যে থাকলে, আপনি গর্ভাবস্থায় ভয় ছাড়াই এটা খেতে পারেন। আপনার দৈনিক খাবারের মধ্যে ম্যাঙ্গো মিল্কস্যেক এবং আমের টুকরো রাখার বিষয়ে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন এবং গর্ভাবস্থায় তাজা আমের টক-মিষ্টি স্বাদ উপভোগ করুন।