গর্ভাবস্থায় করলা খাওয়া – এটি কি নিরাপদ?

গর্ভাবস্থায় করলা খাওয়া – এটি কি নিরাপদ?

গর্ভাবস্থা একটি মহিলার দেহে প্রচুর পরিবর্তন হয় এবং এই পরিবর্তনগুলি (শিশুর সঠিক বৃদ্ধি নিশ্চিত করতে) মোকাবেলা করার জন্য মহিলাদেরকে নির্দিষ্ট ডায়েটরি ও লাইফস্টাইল পরিবর্তন করতে হয়। আপনি যদি গর্ভবতী হন তবে আপনি বুঝে যাবেন আমরা কী বলছি। আপনার ডায়েটে ইতিমধ্যে অবশ্যই কিছু পরিবর্তন হয়ে যাওয়া উচিত। আপনার ডায়েটে এখন সম্ভবত সমস্ত ধরণের স্বাস্থ্যকর খাবার যেমন গোটা শস্য, সবুজ শাকসবজি ও ফলগুলি রয়েছে, কারণ এটি আপনার পুষ্টির প্রয়োজনীয়তা পূরণ করবে এবং আপনার শিশুর স্বাস্থ্যকর বিকাশও নিশ্চিত করবে। বেশিরভাগ শাকসবজি শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য ভাল, তবে করলার মতো কিছু শাকসবজি এবং ফল আপনার শিশুর পক্ষে একেবারেই স্বাস্থ্যকর নাও হতে পারে। গর্ভাবস্থায় এটি খাওয়া যেতে পারে কিনা তা জানতে পড়ুন।

aniview

গর্ভাবস্থায় করলা খাওয়া কি নিরাপদ?

করলা পুষ্টিতে সমৃদ্ধ যা কোন শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য ভাল। তবে, আপনার গর্ভাবস্থায় করলা খাওয়ার সাথে সম্পর্কিত ঝুঁকির কারণে এই সম্পর্কে কয়েকটি বিতর্ক রয়েছে। এই বিষয়ে যেহেতু এখনও অবধি অনেক বিতর্ক থেকে গেছে, তাই আপনার ডায়েটে করলা যুক্ত করা বা এগুলি পুরোপুরি এড়ানো আপনার সিদ্ধান্ত।

গর্ভাবস্থায় করলা খাওয়া কি নিরাপদ?

গর্ভাবস্থায় করলা খাওয়ার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

করলা খাওয়া শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে। গর্ভাবস্থায় করলা খাওয়ার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি নীচে উল্লেখ করা হল।

  • সংবেদনশীলতা

কিছু মহিলারা গর্ভাবস্থায় করলা খাওয়ার ক্ষেত্রে ফ্যাভিজম অনুভব করতে পারেন। ফ্যাভিজম হল লোহিত রক্তকণিকার ধ্বংস হওয়া, যা করলায় উপস্থিত ভাসিনা অণুর কারণে ঘটে। এটি রক্তাল্পতার কারণ হতে পারে এবং আপনার গর্ভাবস্থায় বিপর্যয়কর প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে। তাই গর্ভাবস্থায় করলা খাওয়া এড়ানো ভাল। তবে আপনি যদি এখনও এটি খেতে চান, আপনার এটির বিষয়ে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলা উচিত। যদি তিনি অনুমতি দেন তবে অল্প পরিমাণে এটি গ্রহণ করুন।

  • বিষক্রিয়া

করলা কুইনাইন, মোমোর্ডিকা এবং গ্লাইকোসাইডের মতো অণু থাকে বলে জানা যায়। এই পদার্থগুলি শরীরে বিষাক্ততা হতে পারে, যার ফলে অন্ত্রের ব্যথা হয়, দৃষ্টিশক্তি, বমিভাব, ক্লান্তি, পেশির ক্লান্তি, বমি বমি ভাব এবং অতিরিক্ত লালা উত্পাদন হয়।

  • পেটের সমস্যা

করলা খাওয়ার ফলে পেটের ব্যথা, বদহজম, ডায়রিয়া ইত্যাদি হতে পারে। করলার বীজ খাওয়া থেকেও এই প্রভাবগুলি আসতে পারে।

গর্ভাবস্থায় আপনি কতটা করলা খেতে পারেন?

গর্ভাবস্থায় করলা খাওয়া অনিরাপদ আপনি এখন জানেন। আপনি যদি করলা পছন্দ করেন তবে আমরা জানি যে আপনি গর্ভাবস্থায় একবার হলেও এটি খেতে চাইবেন এবং আপনি যতক্ষণ এটি পরিমিত পরিমাণে এটি খাচ্ছেন ততক্ষণ আপনি এটি খেতে পারেন। আপনি এক সপ্তাহে এক কাপ করলা একবার বা দুইবার খেতে পারেন, তবে নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনি পরিমাণটি অতিক্রম করছেন না। গর্ভাবস্থায় তরকারি বা অন্যভাবে সর্বাধিক ২ কাপ করলা খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়, তবে একবারে বসেই খাওয়া যাবে না। মধ্যাহ্নভোজ ও রাতের খাবারের সময় অল্প পরিমাণ করে খেতে পারেন। আরও ভাল হয়, যদি এটি আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করার আগে আপনার পুষ্টিবিদের সাথে পরামর্শ করুন। যদি আপনি আগে কখনও এটি না খেয়ে থাকেন তবে আমরা প্রস্তাব দিই যে আপনি গর্ভবতী অবস্থায় এটি খাওয়া শুরু করবেন না।

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

. গর্ভাবস্থায় আমি কি করলার রস খেতে পারি?

গর্ভাবস্থায় করলার রস পান করা সংকোচনের কারণ হতে পারে এবং রক্তপাতও হতে পারে। তাই গর্ভাবস্থায় করলার রস এড়ানো ভাল। তবে আপনি যদি এটি পান করতে চান তবে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার পরে এটি অল্প পরিমাণে গ্রহণ করুন।

. গর্ভাবস্থায় করলার বীজ কি ভোজ্য?

গর্ভাবস্থায় করলার বীজ এড়ানো সবচেয়ে ভাল, বিশেষত যদি আপনার জি৬পিডির ঘাটতি থাকে। এই বীজে একটি রাসায়নিক যৌগিক ভাসাইন থাকে, যা ফ্যাভিজম তৈরি করতে পারে। এবং এটির সাথে আরও জ্বর, বমি বমি ভাব, রক্তাল্পতা এবং পেটের ব্যথার কারণ হতে পারে।

সব জৈব এবং প্রাকৃতিক জিনিসই কিন্তু খাওয়া উচিত নয়, বিশেষত যখন এটি আপনার শিশুকে ঝুঁকিতে ফেলতে পারে। গর্ভাবস্থায় করলা খাওয়ার জন্য সত্যই নিরাপদ নয়। আপনি যদি এটি খেতে চান তবে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।