গর্ভাবস্থায় কাজুবাদাম খাওয়া – উপকারিতা এবং পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

গর্ভাবস্থায় কাজুবাদাম খাওয়া - উপকারিতা এবং পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

আপনি যদি গর্ভবতী হন তবে আপনি যে খাবারটি খাবেন সে সম্পর্কে আপনি প্রচুর সদর্থক পরামর্শ পাবেন। এবং এত তথ্য মনে রাখতে গিয়ে, আপনি অভিভূত হতে বাধ্য! আপনার মুখে কিছু দেওয়ার আগে আপনি দু’বার ভাববেন এবং গর্ভাবস্থায় এটি খাওয়ার জন্য নিরাপদ কিনা তা নিয়ে চিন্তা করবেন। কিছু নির্দিষ্ট খাবার রয়েছে যা গর্ভাবস্থায় এড়ানো উচিত, তবে তারপরেও এমন অনেক কিছুই রয়েছে যা আপনি খেতে পারেন! গোটা শস্য, সবজি ও ফল খাওয়া ব্যতীত আপনি শুকনো ফল এবং বাদামের উপর ভরসা করতে পারেন। এই নিবন্ধটি আপনাকে গর্ভাবস্থায় কাজু বাদাম খাওয়ার বিষয়ে সমস্ত কিছু জানাবে। কাজু বাদাম পুষ্টিকর ও মুচমুচে হয় এবং দারুণ সুস্বাদু – তবে এগুলি কি গর্ভবতী মহিলাদের জন্য নিরাপদ? জেনে নিন!

aniview

গর্ভাবস্থায় কাজু বাদাম খাওয়া কি নিরাপদ?

হ্যাঁ, যতক্ষণ আপনি প্রয়োজনীয় সাবধানতা অবলম্বন করেন ততক্ষণ গর্ভাবস্থায় কাজু বাদাম খাওয়া নিরাপদ। কাজু বাদামের ভরপুর স্বাদ এবং লোভনীয় গন্ধ প্রতিরোধ করা অত্যন্ত কঠিন। এগুলি পুষ্টিকর এবং জিভে জল আনার মতো স্বাদের এমন দুর্দান্ত মিশ্রণ সরবরাহ করে, এগুলি তাদের আরও লোভনীয় করে তোলে। আপনি যদি গর্ভাবস্থায় কাজু বাদাম খাওয়ার সময় কিছুটা সতর্কতা অবলম্বন করেন তবে এই পুষ্টিকর বাদামগুলির পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি নিয়ে চিন্তা না করে নিরাপদে খাওয়া যেতে পারে। শিশুর সুস্থ বিকাশের জন্য গর্ভবতী মহিলার ক্যালসিয়াম, ভিটামিন, জিংক, প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট, ফাইবার, আয়রন এবং ভিটামিন গ্রহণ করা প্রয়োজন। এবং কাজু বাদাম আপনাকে এই সমস্ত প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহ করতে পারে। মাঝারি পরিমাণে কাজু বাদাম খান এবং আপনি ভাল থাকবেন।

গর্ভাবস্থায় কাজু বাদাম খাওয়ার পুষ্টিকর উপকারিতা

কাজু বাদাম হল প্রকৃতির নিজস্ব ভিটামিন বড়ি, কারণ কাজু বাদামের প্রতি আউন্সে (২৮ গ্রামে) ৯ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট বা শর্করা, ৪.৩ গ্রাম প্রোটিন এবং ১৩ গ্রাম ফ্যাট থাকে। পুষ্টির দৃষ্টিকোণ থেকে কাজুগুলির কয়েকটি উপকারিতা এখানে রয়েছে:

  • কাজুতে শিশুর বৃদ্ধি ও বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত ভিটামিন থাকে এবং গর্ভাবস্থায় দুপুরে সময় কাটানোর জন্য আদর্শ স্ন্যাক।
  • কাজু বাদামের অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল বৈশিষ্ট্যগুলি সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে।
  • গর্ভাবস্থা অনেক মহিলার পক্ষে একটি কঠিন সময় হতে পারে, তবে কাজু বাদাম খাওয়া তাত্ক্ষণিক শক্তি সরবরাহ করতে পারে।
  • কাজু বাদামে থাকা উচ্চ ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্য এবং ডায়রিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে।
  • প্রতি আউন্স কাজু বাদামে ১.৭ মিলিগ্রাম আয়রন থাকে। সুতরাং কাজু বাদাম আয়রন সমৃদ্ধ খাবারগুলির মধ্যে একটি হতে পারে যা অন্যান্য খাবারের সাথে খাওয়ার সময় ২৭ মিলিগ্রাম/দিন আয়রন গ্রহণে সহায়তা করতে পারে। গর্ভবতী মহিলারা আয়রনের ঘাটতিজনিত রক্তস্বল্পতার ঝুঁকিতে বেশি থাকে। এবং গর্ভাবস্থায় তাদের আরও আয়রনের প্রয়োজন হয়, যা গর্ভাবস্থায় ডায়েটে কাজু বাদাম যুক্ত করে পূরণ করা যেতে পারে। কাজু বাদাম এভাবে রক্তাল্পতার সাথে লড়াই করতে সহায়তা করে।
  • কাজু বাদাম ম্যাগনেসিয়ামের সমৃদ্ধ উত্স, যা ক্যালসিয়ামের পাশাপাশি হাড়ের স্বাস্থ্যের প্রচার করে। এগুলি পেশীর কোষ, উচ্চ রক্তচাপ, ক্লান্তি এবং মাইগ্রেন থেকে মুক্তি দেয়।
  • এক আউন্স কাজু বাদামে ৯.৮ এমসিজি (মাইক্রোগ্রাম) ভিটামিন কে রয়েছে। গর্ভবতী মহিলাদের এই পর্যায়ে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ যাতে না হয় তার জন্য গর্ভবতী মহিলাদের প্রতিদিন ৯০ এমসিজি পরিমাণ এই ভিটামিন প্রয়োজন হয়।
  • গর্ভাবস্থায় কাজু বাদাম (কপারের একটি ভাল উত্স) খাওয়া গেলে ভ্রূণের রক্ত ​​কণিকার বিকাশও ত্বরান্বিত হয়। এক আউন্স কাজুতে ০.৬ মিলিগ্রাম কপার থাকে এবং গর্ভবতী মহিলার প্রতিদিন ১ গ্রাম কপার গ্রহণের প্রয়োজনীতা পূরণ করতে সহায়তা করতে পারে।

গর্ভবতী অবস্থায় কাজু বাদাম খাওয়ার উপকারিতা

গর্ভাবস্থায় কাজু বাদাম খাওয়ার কিছু স্বাস্থ্যকর উপকারিতা এখানে রয়েছে –

  • কাজু বাদাম আপনার শিশুর বৃদ্ধির পর্যায়ে প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং অন্যান্য পুষ্টি সরবরাহ করবে।
  • কাজু বাদাম গর্ভাবস্থায় মাড়ি এবং দাঁতের ক্ষয় রোধ করতে পরিচিত।
  • আপনার গর্ভাবস্থার ডায়েটে কাজু বাদাম খেয়ে আপনার লিপিড প্রোফাইলের মাত্রা বজায় রাখতে সহায়তা করতে পারে, বিশেষত যদি আপনি গর্ভকালীন ডায়াবেটিসের ঝুঁকিতে থাকেন।

আপনার গর্ভাবস্থা ডায়েটে কাজু বাদাম অন্তর্ভুক্ত করার উপায়

গর্ভাবস্থায় কাজু বাদাম খাওয়া আপনার পুষ্টির প্রয়োজনীয়তায় অবদান রাখতে পারে। সুতরাং আপনি কিভাবে এগুলিকে আপনার গর্ভাবস্থার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন তা এখানে রয়েছে!

কাজুবাদাম খাওয়ার একটি আদর্শ উপায় হল এগুলিকে অন্যান্য শুকনো ফলের সাথে মিশিয়ে এবং একটি স্বাস্থ্যকর স্ন্যাক তৈরি করা।

আপনি একটি ব্লেন্ডারে কাজু বাদাম যুক্ত করতে পারেন এবং কাজু বাদামের মাখন তৈরি করতে পারেন, যা ফল ও শাকসবজির সাথে সুস্বাদু ডিপ হিসাবে খাওয়া যেতে পারে।

বাদামের স্বাদের জন্য আপনি একেবারে আপনার সটে করা সবজিগুলিতে কাজু বাদাম যুক্ত করতে পারেন বা আপনার ব্রেকফাস্ট সিরিয়ালে এগুলি যুক্ত করতে পারেন।

এগুলি ভারতীয়, থাই ও ভূমধ্যসাগরীয় খাবারের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ এবং চকোলেট ও মিষ্টি খাবারগুলিতেও যুক্ত হতে পারে।

আপনি একটি সিরাপে কাজু বাদাম যোগ করতে পারেন যা সকালে সেই ব্রেকফাস্ট প্যানকেকের জন্য দুর্দান্ত টপিং তৈরি করে।

গর্ভাবস্থায় আপনার জৈব কাজু বাদাম কেন বেছে নেওয়া উচিত?

জৈব কাজু বাদাম, আকারে ছোট হলেও পুষ্টিতে এবং স্বাদে ভরপুর! যেহেতু এগুলি প্রাকৃতিক উপায়ে জীবাণুনাশক, কীটনাশক এবং পতঙ্গনাশক ব্যবহার না করে পুষ্ট হয়, তাই তাদের আসল স্বাদ ধরে রাখা যায় এবং সেগুলি স্বাস্থ্যকরও। জৈব কাজুগুলি কপার, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, ম্যাঙ্গানিজ, শর্করা এবং ভিটামিনগুলির একটি উচ্চ ঘনত্বের সাথে ভরপুর হয়, এইভাবে এগুলি গর্ভবতী মহিলাদের জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্য হিসাবে তৈরি হয়।

এগুলি ভ্রূণের সর্বাত্মক বৃদ্ধিতে সহায়তা করে এবং গর্ভাবস্থায় প্রয়োজনীয় পুষ্টিগুলির সাথে মায়ের দেহের পরিপূরক হয়। এই বহুমুখী এবং স্বাস্থ্যকর খাবার গর্ভবতী মহিলাদের জন্য একটি আবশ্যক জিনিস।

গর্ভাবস্থায় কাজু খাওয়ার কি কোন ক্ষতিকারক প্রভাব রয়েছে?

কাজু বাদাম পুষ্টিকর উপকারিতায় পূর্ণ হলেও কিছু মহিলারা অতিরিক্ত পরিমাণে কাজু বাদাম খেলে কিছু নির্দিষ্ট পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া অনুভব করতে পারেন। যদি আপনি প্রস্তাবিত পরিমাণের চেয়ে বেশি পরিমাণে সেবন করেন তবে আপনার ওজন অতিরিক্ত বেড়ে যেতে পারে, কারণ কাজুতে ক্যালোরির পরিমাণ যথেষ্ট বেশি। গর্ভবতী মহিলারা কিডনি এবং পিত্তথলির সমস্যার মুখোমুখি হতে পারেন, যদি ব্যবহার সাধারণ মাত্রা অতিক্রম করে। এর কারণ কাজু বাদামে অক্সালেট রয়েছে যা আপনার শারীরিক তরলে ঘনীভূত হতে পারে এবং গর্ভাবস্থার জটিলতাগুলিকে ট্রিগার করতে পারে।

কাজু বাদাম খাওয়ার সময় সাবধানতা অবলম্বন করুন

গর্ভাবস্থায় কাজু বাদাম খাওয়ার সময় আপনার কিছু সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।

  • নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনি মশলাদার নয় বরং সরল সাধারণ কাজু ব্যবহার করেছেন। নোনতা এবং মশালাদার কাজুগুলির মধ্যে উচ্চ মাত্রার সোডিয়াম থাকে, যা গর্ভাবস্থায় উচ্চ পরিমাণে গ্রহণ না করা উচিত।
  • গর্ভাবস্থায় প্রতিদিন এক আউন্সের বেশি কাজু বাদাম না খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় কারণ এটি আরও কিছু অস্বস্তির কারণ হতে পারে।
  • কাজু বাদামের অ্যালার্জি থাকলে আপনি নিশ্চিত করে কাজু বাদাম খাবেন না। কাজু বাদামের অ্যালার্জির লক্ষণগুলির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে হাঁচি, কাশি, ত্বকে র‍্যাস, ত্বকের প্রদাহ এবং বদহজম অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। এই লক্ষণগুলির জন্য সতর্কতা অবলম্বন করুন!
  • গর্ভাবস্থায় আপনার প্রতিদিনের ডায়েটে কাজু বাদাম অন্তর্ভুক্ত করা ঠিক কিনা তা সর্বদা আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলে আলোচনা করে দেখুন।

উপসংহার

কাজু বাদাম যতক্ষণ পরিমিতভাবে খাওয়া হয় ততক্ষণ গর্ভবতী মহিলাদের জন্য দারুণ উপকার সরবরাহ করতে পারে। আপনার গর্ভাবস্থার যাত্রা আপনার জীবনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পর্যায় হতে চলেছে, তাই আপনি যা কিছু করেন তাতে সাবধান হন। আপনার খাদ্যাভাসের সাথে সমস্ত প্রয়োজনীয় সতর্কতা অবলম্বন করুন; স্বাস্থ্যকর গর্ভাবস্থার জন্য, আপনার সন্তানের ক্ষতি হতে পারে এমন এমন যে কোন কিছু এড়িয়ে যান!