আপনার ৩৬ সপ্তাহ বয়সী শিশু – উন্নয়ন, মাইলস্টোন এবং যত্ন

৩৬ সপ্তাহ বয়সী শিশু - উন্নয়ন, মাইলস্টোন এবং যত্ন

৩৬ সপ্তাহের পর্যায়টিতে আপনার ছোট্টটির একাধিক বিকাশ ঘটে। ঘুরে বেড়ানোর এবং তার আশেপাশের পর্যবেক্ষণের সময়, আপনার বাচ্চা তার আশেপাশে অভ্যস্ত হতে শুরু করবে এবং প্রতিদিন নতুন অভিজ্ঞতা উপভোগ করবে। তার মানসিক, শারীরিক, মোটর এবং জ্ঞানীয় বিকাশ একসঙ্গে সঞ্চালিত হয়, আপনি সে প্রধান মাইলফলকগুলি সম্পন্ন করছে কিনা লক্ষ্য করবেন। আপনার যা যা জানা প্রয়োজন তা এখানে রয়েছে।

aniview

একটি ৩৬ সপ্তাহ বয়সী শিশুর উন্নয়ন

ঘরে একা থাকার ভয় বা বিচ্ছিন্ন হওয়ার উদ্বেগ তৈরি থেকে বিভিন্ন নতুন জিনিসের সংস্পর্শে আসা এবং কারণ ও প্রভাবের অন্বেষণ করায় আশ্চর্য হওয়া পর্যন্ত, আপনি খুব শীঘ্রই ৩৬ সপ্তাহের শিশুর বৃদ্ধির দৌড় দেখতে পাবেন। যখন-তখন ঘুমের বিশ্রামের জন্য প্রস্তুত হন, কারণ আপনার ছোট্টটি অপ্রত্যাশিতভাবে ঘুম থেকে উঠে পড়বে এবং আপনার জীবনধারা ও সময়সূচীতে পরিবর্তনগুলি করার জন্য প্রস্তুত থাকুন। আপনাকে এই পর্যায়ে নমনীয় এবং অভিযোজনশীল হতে হবে। খাওয়া থেকে ঘুমের বিশ্রাম, খেলা ও আপনার বাচ্চাকে মজা দেওয়ার জন্য বাইরে নিয়ে যাওয়া, এই সময় তারা অনেক কিছু শেখে এবং দ্রুত বিকাশ পায়। তাদের বৃদ্ধি ধীর বা দ্রুত কিনা, দেখার জন্য এখানে কয়েকটি উন্নয়ন মাইলফলক রয়েছে। খুঁজে বের করতে নীচে পড়ে চলুন।

একটি ৩৬ সপ্তাহ বয়সী শিশুর উন্নয়নমূলক মাইলস্টোন

তারা এই পর্যায়ে ঘটতে পারে এমন কিছু সম্ভাব্য কিছু মাইলফলকের জন্য নজর রাখুন। সবসময়ের জন্য, এগুলি কোন নির্দিষ্ট নিয়ম নয় এবং এগুলি সাধারণ মাইলফলক। ফলাফল বিভিন্ন শিশুর মধ্যে পরিবর্তিত হতে পারে-

  • প্রথম কথা- আপনার বাচ্চা একটি কম্বলকে নির্দেশ করে ‘ব্ল্যাঙ্কি’ বা উপরে বোঝাতে ‘উহ’-এর মতো শব্দ উচ্চারণ করে তার প্রথম কথা বলতে পারে। সে যখন তার প্রথম কথাগুলো উচ্চারণ করছে তখন তার উদ্দেশ্য এবং অঙ্গভঙ্গি লক্ষ্য করুন। এটি প্রথমে অস্পষ্ট হতে পারে, তবে সে স্পষ্টতই বোঝাতে চাইছে।
  • সহায়তা নিয়ে দাঁড়ানো – আপনার বাচ্চা আপনার নিকটবর্তী কফি টেবিল বা অটোমান ধরতে এবং এগুলির সমর্থনে দাঁড়াতে সক্ষম হবে। এমনকি সে সমর্থন নিয়ে নিজে নিজে একটি-দুটি বা তারও বেশি পদক্ষেপ নিতে পারে।
  • হামাগুড়ি দেওয়া এবং বসা – আপনি আপনার ছোট্টটিকে হামাগুড়ি দেওয়াতে দেওয়াতে এক ঘর থেকে অন্য ঘরে বা আসবাবের চারপাশে ঘুরতে খুব সহজেই লক্ষ্য করবেন। তার নিজে নিজে আরামদায়কভাবে বসতে এবং সমর্থন ছাড়া বসার অবস্থানের মধ্যে প্রবেশ করতে সক্ষম হওয়া উচিত।

শিশুর খাওয়া

তাকে বিভিন্ন ধরণের খাবার দেওয়ার চেষ্টা করুন

পুরাতন প্রবাদ ‘বাবা-মা প্রদান করে; বাচ্চারা সিদ্ধান্ত নেয়’-তে অনড় থাকুন যখন বিষয়টি কশিশুর খাওয়ার হয়। আপনি প্রথমে এটি দেখে মনে মনে হতাশ হবেন যে আপনার বাচ্চা এই পর্যায়ে আগে খাওয়া পুরানো খাবারগুলি আর উপভোগ করছে না। এই কারণেই কিছু নতুনত্ব তাদের জন্য রুটিন হয়ে ওঠে এবং জিনিসগুলি স্যুইচ করা গুরুত্বপূর্ণ। তাকে বিভিন্ন ধরণের খাবার দেওয়ার জন্য কঠিন, পিউরি ও মশালযুক্ত খাবারের মিশ্রন দিন এবং সে কী খেতে চান এবং কত ঘন ঘন চায় সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে দিন। আপনি তার ক্ষুধা মধ্যে অস্থিরতা বা উদ্বৃত্ততা লক্ষ্য করতে পারেন, এবং এর কারণ সে কেবল অন্বেষণ করে ও চারপাশে চলতে থাকায় ব্যস্ত থাকে। খাওয়া এখন দ্বিতীয় অগ্রাধিকার পায় কিন্তু এখনও একটি অগ্রাধিকারই থাকে। আপনার ছোট্টটিকে সে যা চায় না তা খেতে বাধ্য করবেন না এবং তাকে তার ক্ষুধাকে মন থেকে আবিষ্কার করতে দেবেন কারণ এটি স্বাস্থ্যকর খাওয়ার অভ্যাসকে উৎসাহিত কবে এবং গঠন করবে।

এছাড়াও দাঁত বেরনোর প্রক্রিয়া সঞ্চালিত হতে শুরু হবে, এবং এই প্রক্রিয়া চলতে থাকবে, আপনার শিশু যখন-তখন কঠিন খাবারের তুলনায় একটু নরম খাবার খেতে চাইবে। আপনি স্বাদ এবং টেক্সচার অন্বেষণ করার জন্য প্রতিদিন তাকে প্রচুর বিকল্প প্রদান নিশ্চিত করুন। এতে কুড়মুড়ে গাজর, মিষ্টি আপেল এবং নরম ওটস অন্তর্ভুক্ত হতে পারে। আপনি যদি যথেষ্ট পুষ্টি পাওয়ার বিষয়ে উদ্বিগ্ন হন তবে চিন্তা করবেন না। যতক্ষণ আপনি তাকে দিতে থাকবেন, ততক্ষণ সে খেতে থাকবে এবং নিজের খাদ্যের প্রয়োজনীয়তাগুলি পূরণ করবে।

বুকের দুধ খাওয়ানো তার প্রথম জন্মদিন পর্যন্ত চলবে এবং আপনার বাচ্চা গরুর দুধ না দেওয়ার বিষয়ে নিশ্চিত হবেন কারণ তার পাচকতন্ত্র এর জন্য প্রস্তুত নয় বা খুব শীঘ্রই হবে না।

ঘুমানো

আপনার ৩৬ সপ্তাহ বয়সী শিশুর ঘুমের ধরন এই পর্যায়ে নড়বড়ে হবে। বেশিরভাগ শিশুরা ‘জাঙ্ক স্লিপিং’ -এর পর্যায়ে প্রবেশ করে যেখানে তারা হঠাৎ ডিনারের আগে স্বপ্নভূমিতে চলে যায় বা ঘুমিয়ে পড়ে। আপনার বাচ্চাদের দিনের ঘুমকে এখন দুটি অংশে বিভক্ত করা যেতে পারে, এবং আপনি যেকোনো সময় কোন ঘুমের রুটিন প্যাটার্ন দেখতে পাবেন না। আপনার ছোট্ট ব্যক্তির সাথে একসাথে ঘুমের কথা বিবেচনা করুন এবং নিরাপদ বিছানা ভাগ করে নেওয়ার অনুশীলন করুন যাতে সে আরামদায়ক বোধ করে এবং ভালো ঘুম পায়। জেগে ওঠার পরে আপনার বাচ্চার ধাতস্থ হতে সমস্যা হলে, তাকে এপাশ-ওপাশে গড়াগড়ি খেতে দিন এবং তাকে মন খুলে খেলতে দিন যতক্ষণ না সে যথেষ্ট ক্লান্ত হয়। ঘুমানোর জন্য উৎসাহিত করার জন্য মৃদুভাবে ও ছন্দ নিয়ে বাচ্চার ক্যারিয়ারটিকে নাড়ানো অথবা তার ক্র্যাডেল / প্র্যামকে দোলানোর মতো ছান্দিক ঘুমের ইঙ্গিত স্থাপন করুন। শিশুরা ঘুমের সময় ঘুমানোর আগে এই বয়সে হালকা শব্দ এবং ঘুমের গান শোনা পছন্দ করে।

একটি ৩৬ সপ্তাহ বয়সী শিশুর যত্নের টিপস

  • বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় তাকে বিভ্রান্ত করুন – নয় মাস বয়সীরা কৌতূহলী ও অনুসন্ধানকারী প্রাণী হয় এবং দুধ খাওয়ার জন্য তারা নিশ্চিতভাবে থামতে চাইবে না। রাতে ঘুমিয়ে পড়ার আগে বা সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর বুকের দুধ খাওয়ানোটাই প্রথম কাজ করা নিশ্চিত করুন। বুকের দুধ খাওয়ানোর সময়ে লাইট বন্ধ করুন যাতে তাকে বিভ্রান্ত করা যায় ও সে বিচলিত হতে না পারে।
  • তাকে স্ন্যাকস দিন – আপনার শিশু সাঁড়াশির মতো ধরার দৃঢ়তা আয়ত্ত করবে, এবং এটিতে তাকে সাহায্য করার জন্য একটি দুর্দান্ত ধারণা। তাকে ক্র্যাকার এবং সহজ খাবার দিন যা সে তার বুড়ো আঙুল ও তর্জনীর সঙ্গে ধরতে পারে। এগুলির যেন গলায় আটকে যাওয়ার আশঙ্কা না না থাকে এবং খাওয়ার যোগ্য হয় তা নিশ্চিত করুন। তাকে বিভিন্ন স্বাদ / টেক্সচারগুলি অন্বেষণ করতে এবং সে যা পছন্দ / অপছন্দ করে তা আবিষ্কার করতে বিভিন্ন রকমের খাবার যোগ করুন।
  • টিথিং জেলি – দাঁত বেরনো চলবে, এবং তার মাড়িতে যন্ত্রণা হতে পারে। তাকে কিছু টিথার টিথিং জেলি দিন এবং তাকে নিজেকে সন্তুষ্ট করতে দিন।

পরীক্ষা এবং টিকা

আপনার সন্তানের এই বয়সে কোনও টিকা দরকার হবে না (যদি সে ছয় মাসের মধ্যে কয়েকটি মিস না করে) এবং যেখানে পরীক্ষাগুলির প্রয়োজন, তখন তারা স্বাভাবিকভাবেই করা হবে। আপনার শিশুর চিকিৎসক আপনার ছোট্টটিকে মেঝেতে হামাগুড়ি দিয়ে দেখানোর জন্য জিজ্ঞাসা করতে পারেন, তার সাঁড়াশির মতো ধরার স্পষ্টতা দেখবেন এবং মূল্যায়ন করবেন যে, সে কীভাবে চলাফেরা করে, কিছু জিনিস ধরে, খেলা করে এবং আরও অনেক কিছু দেখবেন। পরীক্ষা চলাকালীন আপনার বাচ্চার সম্পর্কে প্রশ্ন করা হবে, শিশুরা খাওয়া, ঘুমের প্যাটার্ন ও আরও অনেক কিছু সম্পর্কে, তাই পরীক্ষা গ্রহণ করার আগে সব কিছু মনে করে নোট করে রাখতে হবে।

খেলা এবং ক্রিয়াকলাপ

পর্যবেক্ষণ, শ্রবণ এবং সংবেদনশীলতার বিকাশের জন্য এই পর্যায়ে প্রধানত দুটি খেলা এবং ক্রিয়াকলাপ রয়েছে যা আপনি চেষ্টা করতে পারেন। সেগুলি হল-

  • ফলের মুখ – কিউই, আপেল, তরমুজ এবং কলার মতো ফলের টুকরো কাটুন এবং আপনার ছোট্টটিকে এগুলি দিয়ে কীভাবে মুখ তৈরি করতে হয় তা দেখান এবং আপনাকে অনুকরণ করতে উৎসাহিত করুন। একবার আপনি সম্পন্ন করলে, সেগুলি খান এবং উপভোগ করুন!
  • প্রকৃতিতে সময় ব্যয় করা- এটি একটি ভাল বয়স, যাতে মনোযোগ বজায় রাখা এবং তাদের পর্যবেক্ষণ দক্ষতাও বিকাশ করা যায়। আপনার বাচ্চাকে একটি পার্ক বা বাগানে নিয়ে যান এবং ঘাসে শুইয়ে রাখুন। আপনাদের চোখ বন্ধ করুন এবং সে কি শব্দ শুনতে পাচ্ছে তা বর্ণনা করতে বলুন (অবশ্যই তার চোখ বন্ধ থাকবে)। যখন সে বিরক্ত হবে, কেবল আপনাদের উভয়ের চোখ খুলুন এবং মেঘের দিকে তাকিয়ে উপভোগ করুন। আকাশে বিভিন্ন আকার এবং নিদর্শন বর্ণনা করতে তাকে উৎসাহিত করুন।

কখন একজন ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে

ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন, যদি-

  • আপনার শিশু বেশি চলাফেরা না করে
  • সমর্থন ছাড়া বা নিজ নিজে সঠিকভাবে বসতে অক্ষম হয়
  • কিছু খায় না বা ক্রমাগত কম ক্ষুধা থাকে
  • ১০০.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি জ্বর থাকে

আপনার বাচ্চা এই বয়সে হাঁটতে, কিছু কথা বলতে বা দক্ষতার সাথে হামাগুড়ি দিতে শুরু করতে পারে। কখনও কখনও জিনিসগুলি এমন গতিতে বিকাশ ঘটায় যে মনে হয় উন্নয়নমূলক বিলম্ব ঘটেছে বা অত্যাধিক বৃদ্ধির দৌড় রয়েছে, কিন্তু বাস্তবে সবকিছু ঠিক আছে। আপনার ছোট্টটিকে ঘুম পারানো থেকে খাওয়ানো, সব কিছু নিষ্পত্তি করতে ধৈর্য্য ধরুন। প্রকৃতপক্ষে, এটি ক্রমশ বৃদ্ধি ও অন্বেষণের কারণে কিছুটা সময় নিতে পারে এবং বাবা-মা হিসাবে করার সর্বোত্তম জিনিসটি হল নমনীয় থাকা এবং নতুন দৃষ্টিকোণগুলির উপযুক্ত হওয়া।