গর্ভাবস্থায় কুমড়ো খাওয়া

গর্ভাবস্থায় কুমড়ো খাওয়া

গর্ভাবস্থা একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ সময়, এবং এই সময়ে একটি স্বাস্থ্যকর ডায়েট বজায় রাখা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি গর্ভবতী হন, তবে আপনার শিশুর সঠিক বিকাশের জন্য আপনার দেহের অতিরিক্ত পুষ্টি উপাদান (ভিটামিন এবং খনিজ অন্তর্ভুক্ত) প্রয়োজন। আপনি যদি স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করেন তবে আপনার প্রতিদিনের ডায়েটে আপনাকে বড় কিছু পরিবর্তন করতে হবে না (আপনার স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ অনুযায়ী পরিপূরক এবং খাবারের তালিকা ছাড়া)। তবে এটি আপনাকে এই প্রশ্ন করা থেকে বিরত রাখবে না যে আপনি যা খান তা নিরাপদ কিনা। এই নিবন্ধে, আমরা একটি বিশেষ সবজি – কুমড়ো – সম্পর্কে বলব, আপনি গর্ভাবস্থায় এগুলি খেতে পারবেন কিনা তা আমরা আপনাকে জানাব।

aniview

কুমড়ো পুষ্টিকর ফলগুলির মধ্যে একটি। হ্যাঁ, কুমড়ো একটি ফল, কমপক্ষে বৈজ্ঞানিকভাবে, কারণ এতে বীজ রয়েছে। তবে কুমড়োর পুষ্টিকর উপাদানগুলি অনুযায়ী ফলের চেয়ে সবজি সাথে এর বেশি মিল। তবে প্রশ্নটি হল, কোনো গর্ভবতী মহিলার খাওয়ার জন্য এটি নিরাপদ কিনা। আসুন জানা যাক!

কুমড়োর পুষ্টির মান

কুমড়ো অত্যন্ত পুষ্টিকর এবং ভিটামিন এ, ভিটামিন বি-৬, ভিটামিন সি এবং লোহা ও জিঙ্ক জাতীয় খনিজগুলির মতো প্রয়োজনীয় উয়াপাদানগুলির একটি দুর্দান্ত উত্স। এগুলি অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলিতে পূর্ণ থাকে। কুমড়োর বীজ গর্ভবতী মহিলার জন্য প্রচুর স্বাস্থ্যকর উপকারিতাও দেয়। এগুলিতে ভিটামিন, খনিজ, প্রোটিন এবং ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে। ১০০ গ্রাম কুমড়োতে প্রায় ২৬ ক্যালোরি থাকে এবং প্রায় কোনো কোলেস্টেরল বা স্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে না। এটি গর্ভবতী মহিলাদের জন্য একটি বিস্ময়কর ফল, নাহ সবজি!

গর্ভাবস্থায় কুমড়ো খাওয়ার স্বাস্থ্যকর উপকারিতা

উপরে যেমনটা বলা হয়েছে, কুমড়ো বিভিন্ন পুষ্টি সরবরাহ করে, তাই আপনি এই সবজিটি আপনার গর্ভাবস্থার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। বিভিন্ন প্রাণবন্ত পুষ্টির ভাণ্ডার, কুমড়ো কেবল আপনাকেই নয় আপনার শিশুর জন্যও পর্যাপ্ত পুষ্টি সরবরাহ করে। এটি প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট, ভিটামিন এবং খনিজগুলি দিয়ে পূর্ণ হয়। এর কিছু উপকারিতা নীচে উল্লেখ করা হয়েছে:

  • রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে

গর্ভাবস্থায় আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা ধরে রাখতে কুমড়ো খুব কার্যকর। তবে কুমড়ো থেকে সর্বোচ্চ উপকারিতা নেওয়ার জন্য আপনার অতিরিক্ত চিনি যুক্ত না করে এগুলি শুধু খাওয়া উচিত।

  • কোষ্ঠকাঠিন্য দূরে রাখে

অনেক মহিলা গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের অভিযোগ করেন। গর্ভাবস্থায় হরমোনীয় পরিবর্তনগুলি আপনার পাচনতন্ত্রে বাধা সৃষ্টি করতে পারে এবং আপনার কোষ্ঠকাঠিন্যের অভিজ্ঞতা হতে পারে। এই সমস্যার প্রতিকারের জন্য কুমড়ো খান। যেহেতু কুমড়ো প্রোটিন এবং ফাইবারের উত্স, তাই এই এটি আপনার হজম ব্যবস্থার ঠিকঠাক কাজ করা নিশ্চিত করবে এবং এভাবে আপনি কোষ্ঠকাঠিন্য বোধ করবেন না।

  • পেটের ক্র্যাম্পগুলিতে সাহায্য করে

কুমড়ো গর্ভাবস্থার ক্র্যাম্পগুলি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য সত্যিই ভাল কাজ করে। গর্ভাবস্থার ক্র্যাম্প থেকে মুক্তি পেতে আপনি যে কোনো আকারের কুমড়ো সেবন করতে পারেন।

  • গর্ভাবস্থায় কুমড়োর বীজ খাওয়ার উপকারিতা

কুমড়োর মতো, কুমড়োর বীজও বিভিন্ন স্বাস্থ্যকর উপকারিতা সরবরাহ করে। গর্ভাবস্থায় কুমড়োর বীজ খাওয়ার মাধ্যমে আপনি কি কি উপকার পেতে পারেন তা পড়ুন।

  • মুড সুইংগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে

গর্ভবতী মহিলার জন্য জিঙ্ক খুব উপকারী এবং কুমড়োর বীজ জিঙ্কের একটি ভাল উত্স। কুমড়োর বীজ খাওয়া আপনার মেজাজের পরিবর্তনগুলি ধরে রাখতে এবং এমনকি আপনার রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা শক্তিশালী করতে সহায়তা করবে।

  • আপনার হার্টকে স্বাস্থ্যকর রাখতে পারে

কুমড়োর বীজ খাওয়া আপনার হার্টের পক্ষে খুব ভাল। আপনার গর্ভাবস্থার ডায়েটে এইগুলি অন্তর্ভুক্ত করা আপনার হার্টকে সঠিকভাবে রক্ত ​​পাম্প করতে সহায়তা করবে। এছাড়াও এগুলি আপনার শিশুর হাড় এবং দাঁত গঠনেও সহায়তা করবে।

  • আপনাকে আরও ভালভাবে ঘুমাতে সহায়তা করতে পারে

গর্ভাবস্থায় ঘুমাতে সমস্যা হলে কুমড়োর বীজ খান। শোবার আগে কয়েকটি কুমড়োর বীজ খাওয়া আপনাকে আরও ভালভাবে ঘুমাতে সহায়তা করতে পারে। কুমড়োর বীজের একটি অ্যামিনো অ্যাসিড ট্রিপটোফান, মেলোটোনিনে রূপান্তরিত হয়, এটি একটি ঘুমের হরমোন এবং এভাবে একজন ব্যক্তিকে আরও ভালভাবে ঘুমাতে সহায়তা করে। তাই আপনার যদি রাতে ঘুমাতে সমস্যা হয় তবে এই কৌশলটি ব্যবহার করে দেখুন।

  • গর্ভকালীন ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে

কুমড়োর বীজ শরীরের ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে এবং এইভাবে গর্ভাবস্থায় গর্ভকালীন ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের জন্য দুর্দান্ত। যদি আপনার গর্ভকালীন ডায়াবেটিস হয় – কুমড়োর বীজ খাওয়া এটি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করতে পারে।

  • ভ্রূণের মস্তিষ্ক বিকাশে সহায়তা করে

কুমড়োর বীজ ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড এবং অসম্পৃক্ত ফ্যাটগুলির একটি ভাল উত্স। এগুলি ভ্রূণের মস্তিষ্কের বিকাশে সহায়তা করে। তো খেতে শুরু করুন কুমড়োর বীজ!

গর্ভবতী অবস্থায় কুমড়ো খাওয়ার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

গর্ভাবস্থায় কুমড়ো খাওয়া আপনার স্বাস্থ্যের জন্য প্রচুর উপকার করতে পারে, সন্দেহ নেই, তবে অন্য যেকোনো ফল বা সবজির মতো এটিও প্রচুর পরিমাণে খাওয়া হলে কিছু জটিলতা সৃষ্টি করতে পারে। কুমড়ো যখন প্রচুর পরিমাণে খাওয়া হয় তখন, প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকার কারণে পেটে ব্যথা হতে পারে। কখনো কখনো, কুমড়ো থেকে অ্যালার্জি প্রতিক্রিয়া হতে পারে যা শ্বাসকষ্ট, ব্যথা, বমি বমিভাব বা পেটের খিঁচুনির কারণ হতে পারে, যদিও গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে এই ধরনের প্রতিক্রিয়া সমর্থন করার মতো পর্যাপ্ত বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই। অতএব, এই সবজিটিকে আপনার ডায়েটে পরিমিত পরিমাণে অন্তর্ভুক্ত করার এবং গর্ভাবস্থায় সম্ভাব্য স্বাস্থ্যগত জটিলতাগুলি এড়ানোর পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

গর্ভাবস্থায় চেষ্টা করতে পারেন এমন কুমড়ো রেসিপি

এখানে কয়েকটি সহজ এবং সুন্দর কুমড়োর রেসিপি রয়েছে, যা আপনি গর্ভাবস্থায় চেষ্টা করতে এবং উপভোগ করতে পারেন।

১. কুমড়ো এবং মুসুর ডালের স্যুপ

আপনি যদি ক্ষুধার্ত হন, তাহলে কুমড়োর স্যুপের মতো আর কিছুই নেই! এছাড়াও যখন মুসুর ডালের সাথে কুমড়ো যুক্ত হয়, তখন এটি আরও স্বাস্থ্যকর হবে! আপনি কিভাবে কুমড়ো এবং মসুরের স্যুপ তৈরি করতে পারেন তা এখানে রয়েছে!

উপকরণ

  • তেল ১ টেবিল চামচ
  • ২-৩টি রসুনের কোয়া কুচি করা
  • ২টি মাঝারি আকারের পেঁয়াজ কুচি
  • ১টি ছোট কুমড়ো (প্রায় ৭০০-৮০০ গ্রাম), খোসা এবং বীজ ছাড়ানো
  • ১ কাপ বা ১০০ গ্রাম লাল মুসুর ডাল
  • সবজির স্টক ১ লিটার
  • স্বাদ মতো নুন এবং এক চিমটি চিনি
  • আধ কাপ ফ্রেশ ক্রিম।

কুমড়ো এবং মুসুর ডালের স্যুপ

কিভাবে তৈরী করবেন

  • কড়াইতে কিছুটা তেল গরম করে নিন। পেঁয়াজ যোগ করুন এবং সোনালি বাদামী হওয়া পর্যন্ত ভাজুন।
  • এর পরে, রসুন কুচি, কুমড়োর শাঁস এবং মুসুর ডাল যোগ করুন ও ভালভাবে নাড়ুন।
  • সবজির স্টক যোগ করুন, এটিকে সুন্দরভাবে নাড়াচাড়া করুন, এবং একটি ঢাকনা দিয়ে প্যানটি ঢেকে দিন। এটি প্রায় ২০-২৫ মিনিট ধরে রান্না হতে দিন। মাঝে মাঝে নাড়তে থাকুন!
  • কিছু সময় পরে কুমড়োর টুকরো কোমল হবে। গ্যাসটি বন্ধ করে ঠান্ডা হতে দিন।
  • একবার ঠান্ডা হয়ে গেলে কুমড়োর মিশ্রণটি ব্লেন্ড করুন, তারপরে কিছু ক্রিম যুক্ত করুন এবং আবার মিশ্রিত করুন, তারপরে ছেঁকে নিন।
  • একটি বাটিতে স্যুপ নিন এবং কিছু টাটকা ক্রিম দিয়ে সাজান।

২. মশলাদার কুমড়োর বীজ

আপনি যদি খুব স্বাস্থ্যকর কুমড়োর বীজ খেতে পছন্দ করেন, তবে আমরা নিশ্চিত যে সেগুলিকেও খানিকটা মশলাদারভাবে খেতে পছন্দ করবেন। আপনি কিভাবে মশলাদার কুমড়োর বীজ বানাতে পারেন তা এখানে রয়েছে!

উপকরণ

  • কাঁচা কুমড়োর বীজ ১ কাপ
  • ওরচেস্টারশিয়ার সস ২-৩ চামচ
  • এক চিমটি রসুন নুন (গারলিক সল্ট)
  • ১ চামচ মাখন
  • লবন।

কিভাবে তৈরী করবেন

  • ওভেনকে ১৪০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডে প্রিহিট করুন
  • সমস্ত উপাদান ভালভাবে মেশান এবং একটি বেকিং ট্রেতে ভালভাবে রাখুন।
  • এক ঘন্টা বা সম্পন্ন হওয়া পর্যন্ত বেক করুন।

প্রায়শ জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন

১. আপনার কখন কুমড়ো খাওয়া উচিত নয়?

যদি আপনার কুমড়ো থেকে অ্যালার্জি থাকে তবে গর্ভাবস্থায় এগুলি খাওয়া এড়ানো ভাল।

২. গর্ভাবস্থায় কুমড়োভিত্তিক কোন খাবারগুলি আপনার এড়ানো উচিত?

কুমড়ো খুব স্বাস্থ্যকর, তবে আপনি যদি কুমড়োর চিপস বা কুমড়োর পাই খান, তবে এটি আপনার স্বাস্থ্যের পক্ষে বিশেষত গর্ভধারণের সময় খুব ভাল নাও হতে পারে। তাই কুমড়ো ভিত্তিক জাঙ্ক ফুড, যেমন- কুমড়োর পাই, কুমড়োর ক্যান্ডি বা কুমড়োর কেক খাওয়া এড়িয়ে চলুন।

আপনার গর্ভাবস্থার ডায়েটে কুমড়ো অন্তর্ভুক্ত করা আপনার কিছু পুষ্টির প্রয়োজনীয়তা মেটাতে সহায়তা করতে পারে। তবে পরিমিত পরিমাণে কুমড়ো খাওয়া উচিত, কারণ খুব বেশি কুমড়ো খাওয়ার ফলে পেটের সমস্যা হতে পারে। সুষম ডায়েট বজায় রাখুন – গর্ভাবস্থায় যা নিরাপদ শুধু সেগুলিই খাবেন – এটি আপনার এবং আপনার শিশুর পক্ষে উপকারী হবে। আপনার গর্ভাবস্থার ডায়েটে এই ফল বা সবজিটি অন্তর্ভুক্ত করার আগে আপনার ডাক্তার বা পুষ্টিবিদের কাছে পরামর্শ নিন!