গর্ভাবস্থায় গ্লুকোজ চ্যালেঞ্জ টেস্ট (জিসিটি) এবং গ্লুকোজ টলারেন্স টেস্ট (জিটিটি)

গর্ভাবস্থায় গ্লুকোজ চ্যালেঞ্জ টেস্ট (জিসিটি) এবং গ্লুকোজ টলারেন্স টেস্ট (জিটিটি)

In this Article

গর্ভাবস্থায় গর্ভকালীন ডায়াবেটিস সাধারণ ঘটনা। এটি ঘটে যখন মায়ের অগ্ন্যাশয় মা শিশুর প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী পর্যাপ্ত ইনসুলিন তৈরি করতে সক্ষম হয় না। শিশুর জন্মের পরে এটি স্বাভাবিক হয়ে যায়, তবে ভ্রূণ মায়ের প্রতি কোন ক্ষতিকারক প্রভাব এড়াতে এই রোগের প্রাথমিক পর্যায়ে সনাক্ত করা এবং যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

aniview

গর্ভাবস্থায় গ্লুকোজ স্ক্রিনিং টেস্ট কী?

গর্ভাবস্থায় গ্লুকোজ পরীক্ষা গর্ভবতী মহিলাদের গর্ভকালীন ডায়াবেটিসের উপস্থিতি বা অনুপস্থিতি সনাক্ত করতে রক্তের গ্লুকোজ স্তর পরীক্ষা করার জন্য করা একটি সাধারণ পরীক্ষা। গ্লুকোজ স্ক্রিনিং টেস্ট দুই ধরণের হয়, গ্লুকোজ চ্যালেঞ্জ টেস্ট এবং গ্লুকোজ টলারেন্স টেস্ট। এই পরীক্ষাগুলি গর্ভাবস্থার ২৪তম সপ্তাহ থেকে ২৮তম সপ্তাহের মধ্যে পরিচালিত হয়।

গ্লুকোজ চ্যালেঞ্জ পরীক্ষা কার করানোর দরকার

যদি একটি রুটিন প্রস্রাব পরীক্ষা গ্লুকোজের উচ্চ স্তর প্রদর্শন করে, খুব শীঘ্রই একটি গ্লুকোজ চ্যালেঞ্জ পরীক্ষা করা হয়। কিছু ক্ষেত্রে, এটি ২৪তম সপ্তাহের আগেও করা হয়ে থাকে। মহিলাদের, বিশেষত, উচ্চ বিএমআই (বডি মাস ইনডেক্স) যুক্ত বা যাদের ডায়াবেটিসের পারিবারিক ইতিহাস রয়েছে তাদের গ্লুকোজ চ্যালেঞ্জ পরীক্ষা নেওয়া উচিত। বেশি বয়সে গর্ভবতী হওয়া মহিলাদের, ৩৫এর পরে হলে, পরীক্ষা নেওয়া উচিত।

গর্ভাবস্থায় আপনার কেন জিসিটি করানো দরকার?

গর্ভবতী মহিলার গর্ভকালীন ডায়াবেটিস আছে কিনা তা নির্ধারণ করতে জিসিটি বা গ্লুকোজ চ্যালেঞ্জ পরীক্ষা করা হয়। গর্ভবতী মহিলাদের গর্ভকালীন ডায়াবেটিস গর্ভাবস্থার বিভিন্ন জটিলতার কারণ হতে পারে, যেমন ভ্রূণের অতিরিক্ত বৃদ্ধি বা প্রিক্ল্যাম্পিয়া হিসাবে পরিচিত একটি অবস্থা যা উচ্চ রক্তচাপ এবং প্রস্রাবে প্রোটিনের উপস্থিতি দ্বারা চিহ্নিত হয়। এটি জন্মগত আঘাতের দিকে নিয়ে যেতে পারে এবং কিছু ক্ষেত্রে সিজারিয়ান করার প্রয়োজন হবে। তাই পরীক্ষার সর্বাধিক গুরুত্ব রয়েছে।

গ্লুকোজ চ্যালেঞ্জ পরীক্ষাটি কীভাবে করা হয়?

গ্লুকোজ চ্যালেঞ্জ পরীক্ষা বা জিসিটি হল চিনি বা গ্লুকোজ থেকে আপনার শরীরের প্রতিক্রিয়া পরিমাপ করার প্রক্রিয়া। পরীক্ষার আগে একটি শর্করাযুক্ত পানীয় গ্রহণ করতে হয়, যা সাধারণত একটি গ্লুকোজ পানীয় হতে পারে। এটি একটি উপোষহীন পরীক্ষা, যার অর্থ পরীক্ষা করানোর আগে আপনাকে উপোষ করে থাকতে হবে না। আপনাকে এক ঘন্টা বিশ্রাম নিতে বলা হয় এবং তারপরে রক্তে শর্করার মাত্রাটি মূল্যায়নের জন্য একটি রক্ত ​​পরীক্ষা করা হয়। ফলাফলগুলি কম, স্বাভাবিক বা উচ্চ মাত্রার চিনির মাত্রা দেখাতে পারে। উচ্চ স্তরের অর্থ হল ব্যক্তি গর্ভকালীন ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। সেক্ষেত্রে রোগ নির্ণয়ের বিষয়টি নিশ্চিত করতে গ্লুকোজ সহনশীলতা পরীক্ষা করা হয়।

পরীক্ষার ফলাফলকে কীভাবে ব্যাখ্যা করা হয়?

রক্তের গ্লুকোজের স্তরগুলি মাইক্রো/ডিএল বা মিলিগ্রাম প্রতি ডেসিলিটর অথবা মিমোল/লি অথবা মিলিমোলে/লিটারে পরিমাপ করা হয়। গ্লুকোজ চ্যালেঞ্জ পরীক্ষার উদ্দেশ্য রক্তে চিনির মাত্রা নির্ধারণ করা। পরীক্ষার ফলাফলগুলি সাধারণ স্তর থেকে বিচ্যুততার ভিত্তিতে মূল্যায়ন করা হয়। কোন ব্যক্তির রক্তের স্বাভাবিক চিনির স্তর ১৪০ মিলিগ্রাম/ডিএল বা ৭. মিমি/এল হয়। যদিও এই সাধারণ পরিমাপটি সর্বত্র গৃহীত হয়, তবে কিছু ল্যাবে এই মানের থেকে সামান্য কম মানকেও সাধারণ বলে মনে করা হয়। গর্ভাবস্থায় সাধারণ জিসিটি পরীক্ষায় স্বাভাবিক পরিমাপের বেশি মাপের কোন মানই গর্ভকালীন ডায়াবেটিসের বিষয়টি নিশ্চিত করে।

গর্ভাবস্থায় জিটিটি পরীক্ষা কী?

গ্লুকোজ সহনশীলতা পরীক্ষা বা জিটিটি গর্ভাবস্থার জন্য ওজিটিটি বা ওরাল গ্লুকোজ সহনশীলতা টেস্ট হিসাবেও পরিচিত, এটি শরীর রক্তের চিনির মাত্রার প্রতি কীভাবে প্রতিক্রিয়া জানায় তা জানতে করা হয়। গর্ভকালীন ডায়াবেটিসের উপস্থিতি নির্ণয়ের জন্য এই পরীক্ষা করা হয়। কিছু ক্ষেত্রে, জিটিটি দিয়ে টাইপ ডায়াবেটিসেরও নির্ণয় করা যেতে পারে।

গ্লুকোজ সহনশীলতার পরীক্ষার জন্য কীভাবে প্রস্তুতি নেবেন

পরীক্ষার একদিন আগে পর্যন্ত আপনি নিজের স্বাভাবিক ডায়েট বজায় রাখতে পারেন। পরীক্ষার জন্য আপনার প্রয়োজনীয় কিছু জিনিস এখানে দেওয়া হল:

  • এটি একটি উপোষে ভিত্তি করা পরীক্ষা এবং এর আগে আপনাকে আট ঘন্টা উপোষ করে থাকতে হবে।
  • পরীক্ষার আগে আপনাকে পর্যাপ্ত পরিমাণে জল পান করতে হবে।
  • পরীক্ষার অংশ হিসাবে প্রস্রাবের নমুনা সংগ্রহ করতে বলা হয়, পরীক্ষার কয়েক ঘন্টা আগে থেকে বাথরুমে যাওয়া এড়ানো উচিত।
  • কিছু ওষুধ পরীক্ষার ফলাফলগুলিকে প্রভাবিত করতে পারে, তাই আপনার নিয়মিত নেওয়া কোন ওষুধ সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন।
  • নিজের জন্য আপনি বইয়ের মতো কিছু জিনিস সঙ্গে বহন করতে পারেন। কারণ পরীক্ষার জন্য আপনাকে আরও এক বা দুই ঘন্টা অপেক্ষা করতে হতে পারে।
  • আপনি কিছু স্ন্যাক্স আপনার সাথে বহন করতে পারেন, যাতে পরীক্ষাগুলি হয়ে যাওয়ার পরে আপনি এটি খেতে পারেন।
  • শান্ত এবং খুশি থাকুন। রক্তের শর্করার মাত্রা বাড়াতে স্ট্রেস লেভেলেরও ভূমিকা রয়েছে।

গর্ভাবস্থায় গ্লুকোজ সহনশীলতা বা টলারেন্স পরীক্ষা কীভাবে করা হয়?

ল্যাব বা ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী পরীক্ষা করার পদ্ধতিতে কিছু ভিন্নতা থাকবে। গর্ভাবস্থার রক্তের গ্লুকোজ পরীক্ষা বা জিটিটি একটি উপোষ ভিত্তিক পরীক্ষা। সুতরাং, আপনাকে পরীক্ষার আগে প্রায় ৮ ঘন্টা ধরে কোন খাবার না খাওয়া বা উপোস করা প্রয়োজন। এই পরীক্ষাটি সাধারণত সকালে করা হয়, তাই আপনাকে সকালে পরীক্ষার আগে ৮ ঘন্টা না খেয়ে থাকা নিশ্চিত করার জন্য গভীর রাত্রে খাবার খাওয়ার জন্য বলা হতে পারে। প্রথমে একটি উপবাস পরবর্তী রক্তের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। রক্তের নমুনা নেওয়ার পরে আপনাকে গ্লুকোজ পানীয় বা অন্য কোন চিনিযুক্ত পানীয় দেওয়া হবে। এক ঘন্টা পরে, আবার রক্তের নমুনা নেওয়া হয় এবং এই পদ্ধতিটি আবার অন্তত দুইবার পুনরাবৃত্তি হতে পারে।

জিটিটি পরীক্ষার ফলাফল কীভাবে ব্যাখ্যা করা হয়?

জিটিটি পরীক্ষার ফলাফলগুলি তিনটি স্তরে ব্যাখ্যা করা হয়: প্রাকডায়াবেটিস, ডায়াবেটিস এবং গর্ভকালীন ডায়াবেটিস। এই মুহুর্তে টাইপ ডায়াবেটিসের কেসটি মূল্যায়ন করা হয় না, তবে ডাক্তার আপনাকে অন্য কোন দিন আবার পরীক্ষা করানোর জন্য বলতে পারে। গণনা করার জন্য রক্তের গ্লুকোজের একক হল মিলিগ্রাম/ডিএল বা মিলিগ্রাম/ ডেসিলিটার।

জিটিটি পরীক্ষার ফলাফল কীভাবে ব্যাখ্যা করা হয়?

নীচে একটি চার্ট রয়েছে যা জিটিটির ফলাফল বোঝায়:

রক্তে শর্করার বিন্যাস
রক্তের স্বাভাবিক শর্করার পরিসর ৬০-১০০ এমজি/ডিএল
প্রাক-ডায়াবেটিক পরিসর ১০১-১২৬ এমজি/ডিএল
ডায়াবেটিক পরিসর
১২৬ এমজি/ডিএল-এর থেকে বেশি

উচ্চ গ্লুকোজ স্তরের কারণ

হবু মায়ের গ্লুকোজ স্তর কেন উচ্চ হতে পারে তার কয়েকটি কারণ এখানে রয়েছে।

  • সাধারণত, প্লাসেন্টা দ্বারা উৎপাদিত কিছু হরমোনের কারণে গর্ভাবস্থায় রকে শর্করার স্তরের বৃদ্ধি ঘটে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এটি কোন সমস্যা সৃষ্টি করে না, কারণ অগ্ন্যাশয় ইনসুলিন প্রকাশ করে, যা চিনির বর্ধিত মাত্রা পরিচালনা করতে পারে।
  • গর্ভকালীন ডায়াবেটিস তখন হয় যখন অগ্ন্যাশয় প্রয়োজনীয় পরিমাণ ইনসুলিন প্রকাশ করে না।

নিম্ন গ্লুকোজ স্তরের কারণ

হবু মায়ের কন নিম্ন গ্লুকোজ স্তর থাকতে পারে তার কয়েকটি কারণ এখানে রয়েছে।

  • অতিরিক্ত পরিশ্রম বা অপর্যাপ্ত ডায়েটের কারণে নিম্ন গ্লুকোজ স্তর হতে পারে।
  • যদি কেউ প্রায়শই দেরিতে খান বা কখনও কখনও খাবার খাওয়া এড়িয়ে যাওয়া অভ্যাসে পরিণত হয়, তবে এটি তার ফলাফলও হতে পারে।
  • যারা বেশি শারীরিক অনুশীলন করেন তাদেরও রক্তে চিনির মাত্রা কম থাকে।
  • ডায়াবেটিক মহিলারা যদি গর্ভবতী অবস্থায় বেশি পরিমাণ ইনসুলিন গ্রহণ করে থাকেন, তবে তাঁরা নিম্ন গ্লুকোজ স্তরে ভুগতে পারেন।

গর্ভাবস্থায় ওজিটিটির ঝুঁকি বা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

এখানে কিছু উল্লেখ করা হল যা আপনি নজর রাখতে পারেন:

  • কিছু মহিলার ওরাল গ্লুকোজ টলারেন্স পরীক্ষার সময় তাদের রক্তে চিনির মাত্রা মারাত্মকভাবে হ্রাস পেতে পারে। এই ক্ষেত্রে তারা দুর্বল, উদ্বেগ বা অস্বস্তি বোধ করতে পারেন।
  • টেকনিশিয়ান যদি রক্ত গ্রহণের সময় নির্বীজন না করে থাকেন তবে ত্বকের যে অঞ্চল থেকে রক্ত নেওয়া হয়েছে সেখানে সংক্রমণ হতে পারে।
  • বিরল ক্ষেত্রে, সেই অঞ্চল থেকে অতিরিক্ত রক্তপাত হতে পারে, তবে কেবল বিরল ক্ষেত্রে দেখা যায়।
  • রক্ত নেওয়ার অংশে ঘা বা ফোলা দেখা দিতে পারে।
  • চরম এবং খুব বিরল ক্ষেত্রে ত্বকের নিচে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হতে পারে বা রক্ত জমাট বাঁধতে পারে।

যদি আপনার ফলাফল অস্বাভাবিক হয়?

যখন আপনার প্রতিবার রক্ত নেওয়ার পর পরীক্ষার ফলাফলগুলি পৃথক হয়, তখন সেই ফলাফলগুলিকে অস্বাভাবিক বলে অনুধাবন করা হয়। যদি কেবলমাত্র একটি অস্বাভাবিক ফলাফল স্বাভাবিক সীমার উপরে থাকে, তবে আপনার ডাক্তার কেবল আপনার খাদ্যাভাসের পরিবর্তনের পরামর্শ দিতে পারেন। তবে, যদি একাধিক অস্বাভাবিক ফলাফল স্বাভাবিকের ওপরের হয়, তবে এর অর্থ আপনি গর্ভকালীন ডায়াবেটিসে ভুগছেন।

যদি আপনার ফলাফল অস্বাভাবিক হয়?

আপনার রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা কীভাবে হ্রাস করবেন?

এখানে কিছু টিপস রয়েছে যার মাধ্যমে স্বাভাবিকভাবেই রক্তের গ্লুকোজ হ্রাস করা যেতে পারে:

  • শারীরিক অনুশীলন শরীরকে রক্তের অতিরিক্ত শর্করাকে দক্ষতার সাথে পরিচালনা করতে সাহায্য করে।
  • কার্বোহাইড্রেটযুক্ত খাবারগুলি এড়িয়ে চলুন, কারণ এগুলি দেহে ইনসুলিনের কার্যক্রমে হস্তক্ষেপ করতে পারে।
  • আপনার ডায়েটে দ্রবণীয় ফাইবার যুক্ত করা প্রাকৃতিকভাবে রক্তে শর্করার মাত্রা হ্রাস করতে সহায়তা করে। এর কারণ এগুলি শরীরে চিনির শোষণকে ধীর করতে সহায়তা করে।
  • ভাল পরিমাণে জল পান করলে কিডনি রক্তের অতিরিক্ত চিনি দূর করতে সহায়তা করে।
  • গর্ভকালীন ডায়াবেটিসের জন্য ডায়েট পরিকল্পনা অনুসরণ করা খুব সহায়ক হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় গ্লুকোজ টলারেন্স টেস্ট (জিটিটি) এবং গ্লুকোজ চ্যালেঞ্জ টেস্ট (জিসিটি) নেওয়ার অর্থ এই নয় যে আপনার ডায়াবেটিস রয়েছে। গর্ভাবস্থায় গ্লুকোজের মাত্রাগুলি পরীক্ষা করা এবং গর্ভাবস্থায় গর্ভকালীন ডায়াবেটিসের কোন লক্ষণ দেখা দিলে নিজের চিকিৎসা করা সর্বদা ভাল ধারণা।