গর্ভাবস্থায় টাইফয়েড: কারণ, লক্ষণ এবং চিকিৎসা

গর্ভাবস্থায় টাইফয়েড

গর্ভবতী হওয়া কোনও মহিলার জীবনের সেরা সময়। আপনার নিজের দেহে আরেকটি ছোট্ট মানুষকে গড়ে তোলা এবং তারপর একটি নতুন ‘জীবন’-কে জন্ম দেওয়ার মতো উত্তেজনাপূর্ণ অনুভূতি আর কিছু নেই। তবুও, গর্ভবতী মহিলাদের সাধারণত গর্ভাবস্থায় অনেক যত্ন নিতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে কারণ বেশিরভাগ রোগই নয় মাসে সংক্রমিত হতে পারে।

aniview

এই রোগগুলির মধ্যে একটি হল টাইফয়েড। জীবনের যে কোন পর্যায়ে টাইফয়েড ক্ষতিকর। তবে গর্ভাবস্থায় এটি বিশেষভাবে ক্ষতিকর। যেহেতু গর্ভাবস্থায় শরীর সাধারণত স্বাভাবিকের তুলনায় কম শক্তিশালী হয়, তাই টাইফয়েড হবু মায়ের কাছে আরও ক্ষতিকর এবং এটি বাচ্চারও ক্ষতি করে।

নীচের একটি বিস্তারিত তালিকা রয়েছে যেখানে টাইফয়েডকে কীভাবে দূরে রাখা যায়, টাইফয়েডের কারণ এবং সেইসঙ্গে চিকিৎসার কার্যকর উপায়গুলি রয়েছে, যাতে মা বা শিশুর ক্ষতি না হয়, তাই সেগুলির একটি সামগ্রিক তালিকা অনুসরণ করা যাবে।

টাইফয়েড কি?

আন্ত্রিক জ্বর যা সাধারণত টাইফয়েড নামে পরিচিত, সালমানেলা টাইফি দ্বারা সৃষ্ট একটি জ্বর। এটি আসলে একটি ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ যা সহজেই ছড়িয়ে পড়ে। এই ব্যাকটেরিয়া সাধারণত অন্ত্র থেকে ছড়িয়ে পড়ে, রক্তের প্রবাহে বৃদ্ধি পায় এবং ধীরে ধীরে বিভিন্ন অঙ্গকে প্রভাবিত করে।

দুই শয়তানের মধ্যে তুলনামূলক কম প্রভাবশালী হল প্যারাটাইফয়েড। এটি একই ধরণের ফলাফলযুক্ত অন্য একটি রোগ, যদিও এটি সাধারণত কম ক্ষতিকারক। একই ব্যাকটেরিয়া স্যালোমেনেলা টাইফি দ্বারা হয়, যা টাইফয়েড সৃষ্টি করে, সেগুলিও খাদ্যে বিষাক্ততার কারণ হয়।

টাইফয়েড সংক্রমণ কিভাবে ছড়িয়ে পড়ে?

এই গুরুতর ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে কিভাবে তা খুঁজে বের করতে পড়ুন।

  • ত্রুটিপূর্ণ জীবনযাত্রাযুক্ত অবস্থা: ঘরের মধ্যে বন্যা, নর্দমা নিষ্কাশনের ব্যাবস্থা ত্রুটিপূর্ণ হওয়া একত্রিত হয়ে সম্ভবত টাইফয়েড ছড়িয়ে দিতে পারে। দূষিত পানীয় জল যা সঠিকভাবে জীবাণুমুক্ত করা হয় না তার জন্য দায়ী।
  • কাঁচা খাবার এবং দুগ্ধজাত পণ্য: নর্দমার জলযুক্ত এবং বিষাক্ত সার ব্যবহার করা হয় এমন কৃষিক্ষেত্র থেকে আসা কাঁচা ফল এবং সবজি, যদি খাওয়ার আগে সঠিকভাবে ধুয়ে না নেওয়া হয়, তাহলে টাইফয়েড ছড়িয়ে পড়তে পারে। কাঁচা দুগ্ধজাত পণ্য টাইফয়েডের কারণ সালমানেলা ব্যাকটেরিয়ার বংশবৃদ্ধি ঘটায়।
  • ত্রুতিযুক্ত স্বাস্থ্যবিধি অনুশীলন: টাইফয়েড ফিকেল-ওরাল সংক্রমণের মাধ্যমে সহজেই ছড়িয়ে পড়ে। বাথরুম ব্যবহার করে হাত না ধোয়া এবং নোংরা পাবলিক টয়লেটগুলি ব্যবহার করার মতো পরিচ্ছন্নতাহীন অভ্যাস অবশ্যই আপনাকে এই রোগে ফেলতে পারে।

টাইফয়েড কি সংক্রামক? হ্যাঁ! টাইফয়েড একটি অত্যন্ত সংক্রামক রোগ। টাইফয়েড সহজে হাত থেকে মুখে ছড়িয়ে পরতে পারে। এর মানে হল যে যদি আপনি সংক্রামিত ব্যক্তির সাথে কিছু ভাগ করে নেন, তবে আপনি এই রোগটিতে সংক্রমিত হতে পারেন এমন একটি বড় আশঙ্কা রয়েছে।

যেহেতু টাইফয়েড ত্রুতিযুক্ত জীবনযাত্রার অবস্থার সাথে ছড়াতে পারে, তাই বিপুল সংখ্যক লোকের মৃত্যু হতে পারে, এটি মহামারীর আকার ধারণ করতে পারে।

কিভাবে গর্ভাবস্থায় টাইফয়েড ভ্যাকসিন নেওয়া হয়?

আগে উল্লেখ করা হয়েছে, গর্ভাবস্থা স্বাভাবিকভাবেই একটি মহিলা শরীরের শক্তিকে হ্রাস করে। এছাড়াও, যদি আপনি প্রকৃতপক্ষে উন্মুক্ততা থেকে টাইফয়েডের সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে চান তবে এটিকে রোধ করার জন্য টিকা পাওয়া যায়।

হবু মায়েদের নিষ্ক্রিয় পলিস্যাকারাইড ভ্যাকসিনের টাইপ Vi দেওয়া হয়

আপনার শিশুর কাছে ক্ষতিকর হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে এমন সরাসরি টিকার পরিবর্তে, মায়েদেরকে নিষ্ক্রিয় পলিস্যাকারাইড ভ্যাকসিনের টাইপ Vi নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। উন্মুক্ততার হুমকির অন্তত দুই সপ্তাহ আগে মাকে টিকা নিতে পরামর্শ দেওয়া হয়।

কারণগুলি কি কি?

আগে যেমনটা আলোচনা করা হয়েছে, টাইফয়েড এমন এক ধরনের জ্বর যা বেশিরভাগই ত্রুটিযুক্ত স্বাস্থ্যবিধি এবং স্যানিটেশনের অভাবের কারণে ঘটে। অস্বাস্থ্যকর পানীয় জল সম্ভবত ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের প্রধান কারণগুলির মধ্যে একটি।

ব্যাকটিরিয়া সংক্রামিত হলে মানব বর্জ্যও টাইফয়েডের কারণ হতে পারে। কোনও স্যানিটেশন না থাকার কারণে পাবলিক টয়লেট ব্যবহার করেও টাইফয়েড হতে পারে। মূলত, সংক্রামিত ব্যক্তির সাথে যেকোন ফর্মে যোগাযোগ বা স্বাস্থ্যের অভাব যেখানে আছে সেই এলাকায় যাওয়া এই অত্যন্ত সংক্রামক রোগের সাথে সংক্রমিত হওয়ার নিশ্চিত হুমকি দেয়।

লক্ষণ ও উপসর্গ

আপনি কয়েকটি লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি বুঝে নিতে পারেন যা আপনি টাইফয়েডে সংক্রামিত হয়েছেন কিনা তা বুঝতে সহায়তা করতে পারে।

  • উচ্চ জ্বর ও বমি
  • দুর্বলতা এবং ক্লান্তি
  • দ্রুত এবং গুরুতর ওজন কমা
  • ক্ষুধা কমে যাওয়া
  • সাংঘাতিক পেটে ব্যথা
  • মাথা ব্যাথা, মাথা ঘোরা
  • কোষ্ঠকাঠিন্য বা ডায়রিয়া
  • বুকে ভারী ভাব
  • ঘুম ঘুম ভাব

রোগ নির্ণয়

উপরে বর্ণিত স্বাভাবিক লক্ষণগুলি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই একটি মানব শরীরে ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতি সনাক্ত করার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে, আরো জটিল ক্ষেত্রে, স্বাভাবিক লক্ষণগুলি কোনও ব্যক্তির সিস্টেমে টাইফয়েডের সূচনা হয়েছে কিনা তা বলতে সক্ষম হয় না।

রোগ নির্ণয়

এই কারণেই একজন ব্যক্তির টাইফয়েড আছে কিনা তা নির্ধারণের জন্য রক্ত ​​পরীক্ষা ব্যবহার করা হয়। কখনও কখনও পরীক্ষা প্রস্রাব বা মলের নমুনা ব্যবহার করে পরিচালিত হয়। সঠিকভাবে রোগ নির্ণয় করার জন্য আপনার ডাক্তার আপনাকে হিমোগ্লোবিন, হাড়ের মজ্জা বা মল পরীক্ষা করাতে বলতে পারেন।

টাইফয়েডের চিকিৎসা

সাধারণত, উপযুক্ত এন্টিবায়োটিকগুলির একটি ভাল ব্যবহার টাইফয়েডের কার্যকরভাবে চিকিৎসা করতে সাহায্য করতে পারে। টাইফয়েড চিকিৎসার স্বাভাবিক সময়কাল ৭-১৪ দিন। কখনও কখনও, বেশিরভাগই সময় জ্বর থাকে যা আপনি আসলেই ওষুধ দিয়ে সারাতে পারেন।

অন্যান্য উপসর্গগুলির জন্য, সঠিক গর্ভাবস্থার খাদ্যের সাথে বাড়ীতে ভাল যত্ন, প্রচুর তরল পান করা এবং প্রচুর বিশ্রাম সাধারণত টাইফয়েড নিরাময় করে। এই সংক্রমণে সংক্রামিত ব্যক্তির সংস্পর্শে না আসার চেষ্টা করুন, যাতে সংক্রমণ বিস্তার না হয়।

তবুও, এই রোগের সংক্রমণের সাথে গর্ভবতী হওয়া জিনিসগুলিকে জটিল করে তোলে। টাইফয়েডের চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত স্বাভাবিক অ্যান্টিবায়োটিক সাধারণত গর্ভবতী মহিলাদের জন্য দেওয়া হয় না কারণ এটি শিশুর জন্য আশঙ্কার কারণ হতে পারে। এ রকম পরিস্থিতিতে, তৃতীয়-প্রজন্মের সিফালোস্পরিন এবং অ্যাম্পিসিলিন / অয়ামোক্সিলিন দিয়ে টাইফয়েডের চিকিৎসা করা সর্বোত্তম। যাইহোক, এটি রোগ প্রতিরোধের জন্য রোগ সংক্রমণের আগে গর্ভাবস্থায় টাইফয়েডের টিকা গ্রহণ করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

গর্ভবতী অবস্থায় টাইফয়েডের জটিলতা

গর্ভাবস্থায় টাইফয়েডের সঙ্গে জড়িত একাধিক জটিলতা রয়েছে। প্রারম্ভিকদের জন্য, যদি টাইফয়েডের চিকিৎসা না করা হয় তবে আপনার শিশুকে হারানোর ঝুঁকি বেশি থাকে। টাইফয়েডের প্রভাব আপনাকে কিছু সময়ের জন্য দুর্বল এবং তরল খাবারের উপর রেখে দিতে পারে, যা আপনার এবং আপনার বাচ্চার প্রয়োজনীয় পুষ্টি পাওয়ার ক্ষেত্রে ক্ষতি করে।

টাইফয়েডযুক্ত গর্ভাবস্থায় দেখা দেয় এমন অন্য এক জটিলতা হল যে আপনার শিশুর সঠিক সময়ের আগে জন্ম হতে পারে বা কম ওজন নিয়ে জন্ম হতে পারে। উপরন্তু, মৌখিক সক্রিয় টিকাগুলি আপনার শিশুর জন্য মারাত্মকভাবে বিপজ্জনক প্রমাণ হতে পারে।

কিভাবে টাইফয়েড থেকে নিজেকে রক্ষা করবেন

দুটড়ি শব্দ হয়েছে যা টাইফয়েডে সংক্রমিত হওয়া আটকানোর জন্য আপনার কাছে জাদুমন্ত্রের মতো কাজ করবেঃ স্যানিটেশন এবং ভালো স্বাস্থ্যবিধি। খাবার রান্না বা খাওয়ার সময় হাত ধোয়ার মতো সহজ সতর্কতা আপনাকে এটি প্রতিরোধ করতে সহায়তা করতে পারে।

প্রচুর পরিমাণে তরল পান করুন

অন্যান্য সুরক্ষা পদ্ধতিতে অন্তর্ভুক্ত:

  • ভাল এবং পরিষ্কার খাবার খান।
  • প্রচুর পরিমাণে তরল পান করুন এবং নিরাপদ পানীয় পান করুন।
  • সংক্রামিত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন।
  • সংক্রামিত ব্যক্তি এবং দূষিত পৃষ্ঠতলের সঙ্গে যোগাযোগ কমান।

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

টাইফয়েড ভ্যাকসিন কি জন্মগত ত্রুটির কারণ হবে?

কোনও প্রমাণিত পরীক্ষা নেই যা নিশ্চিত করে যে টাইফয়েড ভ্যাকসিন জন্মগত ত্রুটির কারণ হতে পারে, যতক্ষণ না আপনি পলিস্যাকারাইড ভ্যাকসিনের পরিবর্তে সক্রিয় টিকা নির্বাচন করেন – এটি করলে আপনার শিশুর জন্মগত ত্রু থাকার ঝুঁকি থাকবে।

টাইফয়েড ভ্যাকসিন কি গর্ভপাতের কারণ হতে পারে?

বিশেষ করে যদি আপনি এই রোগটিকে চিকিৎসা না করান তবে এরকম একটি সম্ভাবনা থাকতে পারে। প্রস্তাবিত ভ্যাকসিন শিশুর জন্য হুমকি সৃষ্টি করে না।

কিভাবে টাইফয়েড মা এবং শিশুকে প্রভাবিত করে?

টাইফয়েডযুক্ত একজন গর্ভবতী মহিলা এই রোগের কারণে খুব দুর্বল হয়ে ওঠার বিশাল ঝুঁকি থাকে। মায়ের দেহটির পক্ষে গর্ভাবস্থা সম্পূর্ণ করা অসম্ভব হয়ে পড়ে তাই পরবর্তীতে আরও দুর্বল হয়ে উঠতে পারে। এছাড়াও, চিকিতসায় বেশিরভাগ তরল খাবার অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় দেখা যায় যে, মা এবং শিশুর উভয় সঠিক পুষ্টি হারাতে পারে।

বাচ্চার ক্ষেত্রে, গর্ভপাতের ঝুঁকি বেশি থাকে যদি রোগ নিরাময় না করা হয়। যদি ব্যাকটেরিয়া শিশুর কাছে পৌঁছে যায়, তবে জন্মের সময়ে কিছু বিকৃতি হতে পারে বা বাচ্চাটি অকালে জন্মগ্রহণ করতে পারে অথবা কম ওজন নিয়ে জন্মাতে পারে।

টাইফয়েডের টিকা কি শিশুর শেখার এবং আচরণগত সমস্যার কারণ হতে পারে?

একে সুপারিশ করে এমন কোন প্রমাণ নেই।

টাইফয়েডের বিরুদ্ধে সতর্কতা

টাইফয়েড স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে প্রতিরোধ করা যেতে পারে। হাত ধুয়ে নিন, নিরাপদ উৎস থেকে বা উষ্ণ জল পান করুন, সবজি ও ফল ভালো করে ধুয়ে নিন, ভালভাবে রান্না করা খাবার খান এবং টয়লেট পরিষ্কার করুন।

বাবাকে জডি টাইফয়েড টিকা দেওয়া হয়, তবে কি কোন ঝুঁকি আছে?

বাবা যদি টাইফয়েড জ্বরে সংক্রমিত হন তবে আপনার সন্তানের প্রায় কোন ঝুঁকি নেই। তবুও, যোগাযোগ সর্বনিম্ন না রাখলে মা প্রভাবিত হতে পারেন।

গর্ভাবস্থার প্রথম মাসের মধ্যে টিকা দেওয়া হলে এবং টাইফয়েড সম্পূর্ণভাবে নিরাময় করা হলে, যে কোনও উপায়ে শিশুর সংক্রামিত হওয়ার সম্ভাবনা নেই।

উপরের তথ্যটি টাইফয়েড কি, কীভাবে আপনি এটির প্রতি ঝুঁকিপূর্ণ, এর নিরাময় এবং টিকা, বোঝার ক্ষেত্রে সহায়ক হওয়া উচিত। ভাল স্বাস্থ্যবিধি অনুশীলন করা ভাল, যা অবশ্যই আপনাকে এমন সংক্রামক রোগের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করবে।