গর্ভাবস্থায় ফোলিক অ্যাসিড – খাবার, উপকারিতা এবং আরো অনেক কিছু

গর্ভাবস্থায় ফোলিক অ্যাসিড - খাবার, উপকারিতা এবং আরো অনেক কিছু

একটি সুস্থ মা একটি সুস্থ শিশুর জন্ম দেয় সেই জন্যই গর্ভাবস্থার বিস্ময়কর পর্যায়ে আপনাকে এত বেশি করে যত্ন নিতে হবে, যা কেবল নিজেকেই পুষ্টি দেয় না, সাথে আপনার ভিতরে ছোট্ট জীবনকেও পুষ্ট করে আপনি মাল্টিভিটামিন্সশব্দে উল্লিখিত ক্ষণস্থায়ী জিনিসগুলির মধ্যে ফোলিক অ্যাসিডের কথা শুনেছেন, তবে আপনার শরীরের কাছে এটি কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা নিয়ে কখনও ভাবেননি ডাক্তাররা বিশেষ করে গর্ভবতী মহিলাদের জন্য এটি লেখেন এবং অনেকে আপনাকে এটি খেতে সুপারিশ করবে আপনার গর্ভাবস্থায় আপনি এটি খাচ্ছেন কিনা তাও আপনাকে জিজ্ঞাসা করবে এমন অনেক লোকজন রয়েছে কিন্তু ঠিক কেন আপনার গর্ভাবস্থা পরিকল্পনার জন্য ফোলিক অ্যাসিড প্রয়োজন জানেন?

aniview

প্রথমে, আসুন মূল ধারণাগুলি দিয়ে শুরু করি ফোলিক অ্যাসিডকে বিনা কারণে গর্ভাবস্থার মহানায়ক বলা হয় না!

ফোলিক অ্যাসিড কি?

সহজ কথায় ফোলেট হিসাবে পরিচিত, ফোলিক অ্যাসিড হল বি ভিটামিন, বিশেষ করে ভিটামিন বি9 নামে পরিচিত প্রাকৃতিকভাবে, ফোলিক অ্যাসিড ফোলেটের আকারে পাওয়া যায় যা গাঢ় রঙের পাতাযুক্ত সবজি, গোটা শস্য, ডাল এবং কমলালেবুর মতো কিছু খাবারের মধ্যে উপস্থিত এটি গর্ভবতী মহিলাদের জন্য বিশেষভাবে উপকারী

ফোলিক অ্যাসিড এবং গর্ভবতী মহিলারা

তাহলে গর্ভবতী মহিলাদের জন্য ফোলিক অ্যাসিড এত গুরুত্বপূর্ণ কেন? এই নির্দিষ্ট ভিটামিনটিতে বিশেষ কি আছে যা গর্ভাবস্থার সময় বাকিগুলি থেকে একে পৃথক করে দেয়? আচ্ছা, এই নির্দিষ্ট ভিটামিন শুধু আপনার নিজের জন্য উপকারী নয়, এটি আপনার বাচ্চার জন্যও ভাল ফোলিক এসিড শুধু প্লাসেন্টার দ্রুত কোষ বৃদ্ধিতেই সহায়তা করে না, তবে অজাত শিশুকে গর্ভে থাকাকালীন জন্মগত ত্রুটির বিকাশ ঘটা থেকে রক্ষা করে, এটিই হল গর্ভবতী মহিলাদের জন্য এটিকে নির্ধারিত করার মূল কারণগুলির একটি কারণ আসলে, ফোলিক অ্যাসিড একটি দৈনিক প্রয়োজন এবং গর্ভবতী হওয়ার পরিকল্পনাকারী বা শিশুর জন্ম দেওয়ার বয়সী নারীদের জন্যও এটি সুপারিশ করা হয়

তাহলে শরীরের মধ্যে এটা কি করে? ফোলিক এসিড এবং ভিটামিন বি12 সুস্থ লাল রক্ত কোষ গঠনে কাজ করে যা স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য শরীরের ফোলিক অ্যাসিডের অভাব থেকে ফোলেটঅভাবের অ্যানিমিয়া হতে পারে

প্রাথমিক গর্ভাবস্থায় ফোলিক অ্যাসিড কেন নেওয়া উচিত?

ফোলিক অ্যাসিড বিশেষ করে প্রাথমিক গর্ভাবস্থায় সুপারিশ করা হয় কারণ এটি স্বাস্থ্যকর ভ্রূণের বিকাশের জন্য অপরিহার্য, বিশেষ করে যখন শিশুর মেরুদন্ডের বিকাশ ঘটে ফোলিক অ্যাসিড উল্লেখযোগ্যভাবে স্নায়ু টিউবের ত্রুটি বা NTDs-এর ঝুঁকি কমাতে পারে, যেগুলির মধ্যে সবচেয়ে সাধারণগুলি হল:

  • স্পাইনা বিফিডা, যখন সুষুম্না কান্ড এবং সুষুম্না কলাম অসম্পূর্ণভাবে বন্ধ হয়
  • অ্যানেনসেফালি, যখন মস্তিষ্কের মধ্যে গুরুতর অবিকশিত অংশ থাকে
  • এনসেফালোসিল, একটি অবস্থা যেখানে শিশুর করোটিতে একটি অস্বাভাবিক খোলা জায়গা থাকে যা থেকে মস্তিষ্কের টিস্যু বেরিয়ে আসে

এই গুরুতর স্নায়ু টিউবে ত্রুটিযুক্ত বাচ্চাদের জীবন সাধারণত দীর্ঘ হয় না, এবং স্পাইনা বিফিডা থেকে ভোগা শিশুরা স্থায়ীভাবে অক্ষম হয়ে যেতে পারে এখন এখানে লক্ষ্য করা দরকার যে এখানে উল্লেখিত সমস্ত জন্মগত ত্রুটি গর্ভধারণের প্রথম 28 দিনের মধ্যে ঘটে, যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই সময় হয়তো মহিলারা গর্ভবতী হওয়ার কথা জানেনও না! এই কারণেই শিশুর জন্মদানের বয়সের বেশিরভাগ মহিলাদের যথেষ্ট ফোলিক অ্যাসিড খাওয়া নিশ্চিত করতে হবে, বিশেষ করে যদি গর্ভধারণের পরিকল্পনা করা হয়

ছাড়াও, আরও জন্মগত ত্রুটি রয়েছে যার থেকে ফোলিক অ্যাসিড বাচ্চাকে রক্ষা করতে পারে:

  • টাকরায় ফাটল
  • সময়ের পূর্বে জন্ম
  • কম জন্মের ওজন
  • গর্ভে কম বৃদ্ধি

ফোলিক অ্যাসিড ভ্রূণের উপর এতো প্রভাব কেন ফেলে এবং সেটাও বিকাশের প্রক্রিয়ায় এত প্রাথমিক পর্যায়ে, বিজ্ঞানীরা সে বিষয়ে সত্যিই নিশ্চিত নন, কিন্তু তারা জানেন যে ফোলিক অ্যাসিড ডিএনএ বিকাশে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটি কোষ বৃদ্ধি এবং বিকাশের পাশাপাশি টিস্যু গঠনে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে

সবার উপরে, ফোলিক অ্যাসিড মায়ের জন্যও উপকারী, তার নিম্নোক্ত ঝুঁকি হ্রাস করে:

  • গর্ভাবস্থায় জটিলতা
  • গর্ভস্রাব
  • হৃদরোগ
  • স্ট্রোক
  • নির্দিষ্ট ধরনের ক্যান্সার
  • আলঝেইমার রোগ

ভারী দেহের মহিলাদের স্নায়ু টিউবের ত্রুটিযুক্ত শিশুর জন্ম দেওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে এবং এই কারণে গর্ভধারণের সময় উল্লেখযোগ্যভাবে অতিরিক্ত ওজনযুক্ত মহিলাদের বেশি যত্ন (এবং ফোলিক অ্যাসিডের উচ্চ মাত্রা) নিতে হবে

গর্ভধারণের আগে এবং সময় কতটা ফোলিক অ্যাসিড গ্রহণ করা উচিত?

দুর্ভাগ্যবশত, বেশিরভাগ মহিলাদের ক্ষেত্রেই, শুধুমাত্র ফরটিফায়েড খাবার থেকে ফোলিক এসিডের দৈনিক ডোজ পাওয়া সম্ভব নয়, এবং সেইজন্য ভিটামিন সম্পূরকেরও প্রয়োজন হতে পারে

গর্ভাবস্থার আগে এবং গর্ভাবস্থা জুড়ে মহিলাদের জন্য প্রয়োজনীয় ডোজটি বিস্তারিতভাবে দেখুন

  • গর্ভাবস্থার আগে ফোলিক অ্যাসিড

ফোলিক এসিড 400 এমসিজি একটি ডোজ সন্তানের জন্মদান বয়সের মহিলাদের জন্য, এমনকি গর্ভবতী হওয়ার আগেও, প্রস্তাব করা হয় সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন সুপারিশ করে যে 19 বছরের বেশী বয়সী প্রত্যেক নারী এবং বিশেষত যারা গর্ভধারণের পরিকল্পনা করছেন তাদের দৈনিক প্রয়োজন হিসাবে প্রায় 400 মাইক্রোগ্রাম বা 0.4 মিলিগ্রাম ফোলিক অ্যাসিড গ্রহণ করতে হবে

  • গর্ভাবস্থায় ফোলিক অ্যাসিড ডোজ:

এখানে গর্ভাবস্থার বিভিন্ন পর্যায়ে ডোজগুলির দ্রুত সংক্ষিপ্তসার দেওয়া হয়েছে যদিও মনে রাখবেন যে, যে কোনো সম্পূরক ব্যক্তিগত চাহিদাগুলিকে মনে রেখে নির্ধারিত করতে হবে এবং আপনার জন্য কী সঠিক তা খুঁজে বের করতে আপনাকে অবশ্যই আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে

  • প্রথম 3 মাসে: 400 এমসিজি

ডাক্তাররা গর্ভবতী মহিলাদেরকে 12 সপ্তাহ পর্যন্ত বা তাদের গর্ভাবস্থার প্রথম 3 মাস পর্যন্ত পর্যাপ্ত ফোলিক অ্যাসিড খাওয়ার সুপারিশ করেন অন্যথায় নির্ধারিত না হওয়া পর্যন্ত, এর জন্য প্রস্তাবিত ডোজ হল 0.4 মিলিগ্রাম

  • 4 থেকে 9 মাস পর্যন্ত: 600 এমসিজি

এইভাবে ফোলিক অ্যাসিডের উচ্চ মাত্রা নির্ধারণ করা হয় যখন শিশুটির মায়ের গর্ভের ভিতরে বিকাশ শুরু হয় ব্যক্তির প্রয়োজনের উপর নির্ভর করে, 400-800 মিগ্রার মধ্যে কোনো মাত্রার ফোলিক অ্যাসিড সুপারিশ করা হয়

  • বুকের দুধ খাওয়ানোর সময়: 500 এমসিজি (ফোলিক অ্যাসিড 5 মিলিগ্রাম)

বুকের দুধ খাওয়ানোর সময়ও ফোলিক অ্যাসিড খাওয়াকে সাধারণত নিরাপদ বলে মনে করা হয় এটা সক্রিয়ভাবে বুকের দুধের মধ্যে ক্ষরিত হয়ে মা থেকে সন্তানের মধ্যে চলে যায় ফোলিক অ্যাসিড খাওয়া নারীদের স্তনপ্রাপ্ত শিশুদের মধ্যে কোনও প্রতিকূল প্রভাব লক্ষ্য করা যায় নি

আপনি আপনার ডাক্তারের সাথে আলোচনা করার পরে বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় আপনার প্রসবকালীন ভিটামিন গ্রহণ চালিয়ে যেতে পারেন বা আপনি বুকের দুধ খাওয়ানো মায়েরদের জন্য বিশেষভাবে ডিজাইন করা ভিটামিন সম্পূরক ব্যবহার করতে পারেন

বিশেষ ক্ষেত্রগুলি যেখানে ফোলিক এসিডের উচ্চ মাত্রা গ্রহণের প্রয়োজনঃ

যে সব মহিলাদের গর্ভাবস্থা নার্ভ টিউব ত্রুটি দ্বারা প্রভাবিত হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে, তাঁদের বিশেষ করে গর্ভাবস্থার 12তম সপ্তাহ পর্যন্ত, ফোলিক অ্যাসিডের উচ্চ মাত্রা গ্রহণ করার পরামর্শ দেওয়া হয় এর অন্তর্ভুক্ত হল:

  • যেসব মহিলাদের পরিবারের বা তাদের সঙ্গীর পরিবারের এমন ত্রুটিগুলির ইতিহাস আছে
  • যে সব নারীদের একটি স্নায়ু টিউব ত্রুটি আছে, অথবা যার সঙ্গী এটিতে ভুগছেন
  • যেসব মহিলাদের পূর্ববর্তী গর্ভাবস্থা এটির দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন
  • ডায়াবেটিস থেকে ভুগছেন এমন গর্ভবতী মহিলারা

উল্লেখযোগ্যভাবে অতিরিক্ত ওজনযুক্ত মহিলাদেরও ফোলিক অ্যাসিডের উচ্চ মাত্রা খাওয়ার জন্য বলা যেতে পারে, কারণ স্নায়ু টিউবের ত্রুটি যুক্ত শিশুর জন্ম দেওয়ার সম্ভাবনা তাঁদের বেশি থাকে এই ধরনের মহিলাদের দিনে 400 এমসিজি বেশী ফোলিক অ্যাসিড খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া যেতে পারে

যদি কোনো মহিলা যমজ সন্তান বহন করেন তবে তার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী প্রতিদিন 1,000 এমসিজি পর্যন্ত ফোলিক অ্যাসিড (ফোলিক অ্যাসিড 800 পর্যন্ত) নেওয়ার সুপারিশ করতে পারেন

প্রতিদিন 1000 এমসিজি (ফোলিক অ্যাসিড 1 মিগ্রা)- বেশী খাওয়া সুপারিশ করা হয় না যদি না আপনার চিকিৎসক পরামর্শ দেন প্রকৃতপক্ষে, যে সব মহিলারা ভেগানিজম অনুসরণ করেন তাদের এটি মনে রাখতে হবে ভেগানরা ভিটামিন বি12-এর অভাবের ঝুঁকিতে থাকে এবং খুব বেশি ফোলিক অ্যাসিড গ্রহণ করলে এই অভাবের নির্ণয় করা কঠিন হয়ে উঠবে

এমন একটি ক্ষেত্রে যেখানে একজন মহিলার পূর্বেকার গর্ভাবস্থায় তার শিশু স্নায়ু টিউবের ত্রুটিতে ভুগেছে, তাকে প্রতিদিন 4,000 এমসিজি মতো উচ্চ পরিমাণে ফোলিক অ্যাসিডের ডোজ নিতে বলা হতে পারে, এই পরিস্থিতিতে মহিলাদের স্নায়ু টিউব ত্রুটির জটিলতা যুক্ত আর একটি গর্ভাবস্থা তৈরি হওয়ার 3 থেকে 5 শতাংশ সম্ভাবনা রয়েছে

মৃগীরোগপ্রতিরোধী ওষুধ গ্রহণকারী মহিলাদেরও ফোলিক অ্যাসিডের উচ্চ মাত্রার প্রয়োজন হতে পারে প্রতিদিন ধূমপান মদ পান করলে শরীরের ফোলিক অ্যাসিডের উপর প্রভাব ফেলে বলে প্রমাণিত হয়েছে, তাই গর্ভাবস্থায় এই দোষগুলি বাদ দেওয়ারও সুপারিশ করা হয়

আমার কখন ফোলিক অ্যাসিড গ্রহণ শুরু করা উচিত?

যেহেতু গর্ভাবস্থার প্রথম 3-4 সপ্তাহের মধ্যেই বেশীরভাগ ক্ষেত্রে জন্মগত ত্রুটিগুলি ঘটে থাকে, তাই এই গুরুত্বপূর্ণ সময়ে আপনার সিস্টেমে পর্যাপ্ত পরিমাণে ফোলিক অ্যাসিড থাকা জরুরী কারণেই প্রসবকালীন ভিটামিনগুলি খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কেননা এটি নিশ্চিত করে যে শরীরটি যথেষ্ট পরিমাণে ভিটামিন এবং খনিজ পদার্থগুলি পাচ্ছে যাতে নিশ্চিত করা যায় যে এটি শিশুর জন্য তৈরি!

সিডিসি সুপারিশ করে যে আপনি গর্ভবতী হওয়ার অন্তত একমাস আগে থেকে প্রতিদিন ফোলিক অ্যাসিড গ্রহণ করা শুরু করবেন এবং গর্ভবতী থাকাকালীনও প্রতিদন গ্রহণ করবেন আপনার যদি শিশুর জন্মদানের বয়স হয়ে থাকে, তবে আপনি এটি আগেও গ্রহণ করতে শুরু করতে পারেন

গর্ভবতী হওয়ার পরে, পুরো গর্ভাবস্থা জুড়ে এবং বুকের দুধ খাওয়ানোর প্রথম ছয় মাস ধরে আপনাকে ফোলিক অ্যাসিড এবং লোহার সম্পূরক গ্রহণ করতে হবে

এখানে উল্লেখ্য একটি বিষয় হল যে গর্ভাবস্থায় ফোলিক অ্যাসিড সম্পূরক গ্রহণ করার কথা বিবেচনা করলে, চিকিৎসা তত্ত্বাবধানে এটি করা ভাল যাতে যে কোনো অবাঞ্ছিত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া এড়ানো যায় এবং এই সুপার ভিটামিন থেকে সর্বাধিক পাওয়া যায় এটির আরেকটি কারণ হল গর্ভাবস্থায় ফোলিক অ্যাসিডের সম্পূরকগুলি আপনি ইতিমধ্যে যে ওষুধগুলি নিচ্ছেন তার সাথে বিক্রিয়া করতে পারে যাইহোক, আপনি ফোলিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ খাবার নিরাপদে এবং সংযমী পরিমাণে খাওয়া চালিয়ে যেতে পারেন

আপনি যখন গর্ভধারণ করার পরিকল্পনা করছেন, তখন আপনার পুষ্টিবিদদের সাথে কথা বলুন এবং গর্ভধারণের জন্য আপনার শরীরকে ভালভাবে প্রস্তুত করার জন্য পর্যাপ্ত ফোলিক অ্যাসিড যুক্ত উৎকৃষ্ট আদর্শ খাদ্য পরিকল্পনা ছকে ফেলুন ফোলেট প্রজনন ক্ষমতা এবং বিকাশকে উন্নত করে গর্ভধারণ করার পরিকল্পনা করার সময় এটি আপনার অগ্রাধিকার তালিকার শীর্ষ জিনিসগুলির মধ্যে একটি হওয়া উচিত

ফোলিক অ্যাসিডের ঘাটতি হওয়ার লক্ষণ এবং চিকিত্সা

ফোলিক অ্যাসিডের ঘাটতির লক্ষণগুলি সূক্ষ্ম হতে পারে, এবং এমনকি স্পষ্ট না হতে পারে হালকা ঘাটতির ক্ষেত্রে, আপনি কোনও লক্ষণ না দেখতে পেতে পারেন, তবে এর মানে হল আপনি আপনার শিশুর প্রাথমিক ভ্রূণের বিকাশের জন্য যথার্থ পরিমাণটি পাবেন না

ফোলিক অ্যাসিডের ঘাটতির সাধারণ কয়েকটি লক্ষণ হল:

  • দুর্বলতা
  • অবসাদ
  • মেজাজ অদলবদল এবং আচরণগত পরিবর্তন
  • খিটখিটেভাব
  • ডায়রিয়া
  • ক্ষুধামন্দ্য
  • মাথাব্যাথা
  • জিভে ঘা
  • অকারণে ওজন হ্রাস
  • বুক ধড়পড় করা
  • বিস্মৃতি

মনে রাখবেন যে এই লক্ষণগুলির অনেকগুলিই স্বাভাবিক প্রকৃতির এবং অন্যান্য চিকিৎসা অবস্থারও ইঙ্গিত দিতে পারে আরেকটি বিষয় যা এখানে উল্লেখ করা দরকার তা হলো ফোলেটের অভাবের লক্ষণগুলি লোহার ঘাটতির লক্ষনগুলির মতোই আপনি যদি উপরে তালিকাভুক্ত উপসর্গগুলির মধ্যে কোনোটি লক্ষ্য করেন, তবে ওভারদ্যকাউন্টার সম্পূরকগুলি বেছে নেওয়ার আগে সঠিক নির্ণয়ের জন্য আপনাকে একজন ডাক্তারকে দেখানোর পরামর্শ দেওয়া হয় একটি যথাযথ চিকিৎসা অনুসন্ধান দুটির মধ্যে পার্থক্য করতে সহায়তা করে এবং সঠিক মূল কারণ খুঁজে বের করে যাতে এটি ঠিক করা যেতে পারে

ফোলিক অ্যাসিডের ঘাটতির চিকিত্সা সাধারণত আপনার ডাক্তার দ্বারা প্রস্তাবিত ডোজ অনুযায়ী ফোলিক অ্যাসিডের পিল নেওয়ার মাধ্যমে করা হয় উপরন্তু, আপনি আপনার ডায়েটে ফোলিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ খাবার যোগ করে উপকার পেতে পারেন এর মধ্যে গাঢ় সবুজ শাক সবজি, সিরিয়াল, উতকর্ষবর্ধিত রুটি, এবং লেবুজাতীয় ফল অন্তর্ভুক্ত এগুলিকে আপনার ডায়েটের নিয়মিত অংশ বানালে, ঘাটতির পুনরাবৃত্তি না হওয়া নিশ্চিত করতে সাহায্য করবে

গর্ভাবস্থার জন্য ফোলিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ খাবার

ফোলিক অ্যাসিডের জন্য পর্যাপ্ত পরিপূরক থাকলেও, বি12 ফোলিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ খাবার খাওয়াও ভাল বুদ্ধি কোন পরিপূরকই একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্যের প্রতিস্থাপন করতে পারে না, তাই গর্ভাবস্থায়, আপনি নিশ্চিত করুন যে আপনার দুটির ভাল সমন্বয় গ্রহণ করছেন এটি আপনার সিস্টেমে এই গর্ভাবস্থার সুপারহিরোটির সুপারিশকৃত পরিমাণটি নিশ্চিত করবে!

এখানে কিছু ফোলিক অ্যাসিডসমৃদ্ধ খাবারের নাম দেওয়া রয়েছে যেগুলি গর্ভবতী মহিলাদের এবং গর্ভধারনের চেষ্টারত মহিলাদের উভয়ের জন্য উপকারী

ফোলিক অ্যাসিডের বিষয়ে একটি বিষয় মনে রাখা দরকার যে বেশী রান্না করা ফোলেটযুক্ত খাবারগুলিতে পুষ্টিগুণ নষ্ট হয়ে যেতে পারে, কারণ এটি তাপ সংবেদনশীল ফোলেট সমৃদ্ধ খাবার এবং সবজি হালকাভাবে রান্না করা উচিত, বাষ্পযুক্ত করে বা কাঁচা খাওয়া ভালো যদি না আর কোনো উপায় না থাকে; যেমন ভাতের ক্ষেত্রে হয়

1. বাদাম এবং শুকনো ফল

  • কাজুবাদাম
  • কাঠবাদাম
  • চিনাবাদাম
  • আখরোট
  • তিল বীজ

2. শুঁটি

  • সোয়াবিন
  • বরবটি
  • শিম
  • শুকনো মটরশুটি
  • চানা

3. দানাশস্য

  • রান্না করা সাদা চাল
  • গোটা শস্যের আটা
  • সুজি
  • ওটস
  • উৎকৃষ্ট ময়দা

4. মাংস

  • ডিমের সাদা অংশ
  • লিভারও খুব ফোলিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ, তবে গর্ভবতী হওয়াকালীন বা গর্ভবতী হওয়ার চেষ্টা করাকালীন এটি খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় না কারণ এটি ভিটামিন তে অত্যন্ত সমৃদ্ধ, এটি বেশি খেলে শিশুর জন্মগত ত্রুটি হতে পারে

ফোলিক অ্যাসিডযুক্ত ফল এবং সবজির তালিকা

গাঢ় সবুজ শাক সব্জী ফোলিক অ্যাসিডে সমৃদ্ধ হওয়ার জন্য বেশ খ্যাতি রয়েছে, তবে একই রকম গুণযুক্ত আরো অনেক ফল এবং সবজি রয়েছে, যদিও একই পরিমাণের ফোলিক অ্যাসিড যুক্ত না হতে পারে!

1. শাকসবজি

এইগুলির মধ্যে বেশিরভাগই হল গাঢ় সবুজ পাতাযুক্ত সবজি, যা সাধারণত ফোলেট সমৃদ্ধ বলে বিবেচনা করা হয়

  • পালংশাক
  • পাতা কপি
  • মেথির পাতা
  • মূলো পাতা
  • সবুজ মটরশুঁটি
  • ভূট্টা
  • ফুলকপি
  • ওলকপি পাতা
  • বীট
  • সরিষার সবুজ শাক
  • ঢেরস
  • ব্রোকলি
  • শতমূলী

2. ফল

আপনি জেনে অবাক হবেন যে আপনার অনেক প্রিয় ফলের মধ্যেই ভাল পরিমাণে ফোলিক অ্যাসিড রয়েছে!

  • কমলা লেবু
  • স্ট্রবেরি
  • ফুটি
  • তরমুজ
  • কলা
  • আনারস
  • রাস্পবেরি
  • পাকা পেপে
  • ডালিম
  • পেয়ারা
  • অ্যাভোকাডো

গর্ভবতী অবস্থায় ফোলিক অ্যাসিডের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

প্রাকৃতিক রূপে (অর্থাৎ খাদ্য থেকে) ফোলিক অ্যাসিড খাওয়া বেশিরভাগ ক্ষেত্রে নিরাপদ বলে মনে করা হয়, তবে নির্ধারিত পরিমাণের চেয়ে বেশী পরিমাণে খেলে এটি অনিরাপদ হতে পারে গর্ভাবস্থায় 300-400 এমসিজি ফোলিক অ্যাসিড গ্রহণ করা সাধারণত নিরাপদ পরিমাণ বলে মনে করা হয় ফোলিক অ্যাসিড উচ্চ মাত্রায় গ্রহণ করলে লক্ষনীয় কিছু উপসর্গ এখানে দেওয়া হল

  • পেটের খিঁচুনি
  • ডায়রিয়া
  • চামড়ার উপর ফুসকুড়ি
  • ঘুমের সমস্যা
  • খিটখিটেভাব
  • দ্বিধা
  • বমি বমি ভাব
  • পেট খারাপ
  • ত্বকে বিক্রিয়া
  • হৃদরোগের আক্রমণ
  • গ্যাস

সাম্প্রতিক মেডিক্যাল রিপোর্টগুলি খুব বেশী ফোলিক অ্যাসিড এবং শিশুদের মধ্যে অটিজমের মধ্যে একটি সংযোগের ইঙ্গিত দেয় এটির অটিজমের সাথে যুক্ত হওয়ার এই দাবিগুলির কারণে, গর্ভাবস্থায় ফোলিক অ্যাসিড খাওয়ার বিষয়ে মায়েরা সম্প্রতি খুব উদ্বিগ্ন তবে, যে কোনো কিছুই অতিরিক্ত পরিমাণে নিলে ক্ষতিকারক হতে পারে, তাই না? এছাড়া, ফোলিক অ্যাসিড অটিজমের দিকে পরিচালিত করে এমন কোনো দৃঢ় প্রমাণ নেই এছাড়াও, যেহেতু ফোলিক অ্যাসিড জলে দ্রবণীয় হয়, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আপনার শরীর এটিকে অতিরিক্ত পরিমাণে সঞ্চয় করে না পরিবর্তে, এটি আপনার প্রস্রাবের মাধ্যমে বেরিয়ে যায়

সুতরাং, উপসংহারে বলা নিরাপদ যে, ফোলিক অ্যাসিড সত্যিই গর্ভাবস্থার মহানায়ক! আসলে, সন্তানের জন্মদানের বয়সী সব মহিলাদের জন্যই এটি দুর্দান্ত এটি এমন কিছু যা মা শিশু উভয়ের জন্য উপকারী, এবং আপনার গর্ভাবস্থার আগে, মধ্যে পরে এই ভিটামিনের গুরুত্ব বোঝার ক্ষেত্রে এটি আপনার জন্য যথেষ্ট প্রেরণাদায়ী হওয়া উচিত!