গর্ভাবস্থায় মাথা ব্যাথার 11টি কার্যকর ঘরোয়া প্রতিকার

গর্ভাবস্থায় মাথা ব্যাথার 11টি কার্যকর ঘরোয়া প্রতিকার

গর্ভাবস্থা হল সেই পর্যায় যখন নতুন মায়েরা তাঁদের এক গুচ্ছ আনন্দকে উপভোগ করার জন্য অপেক্ষা করার সময় উত্তেজনা, ভয় এবং আনন্দ অনুভব করেন এই সময়টি নারী শরীরে অনেক পরিবর্তন আনে যেমন উজ্জ্বল ত্বক এবং নরম বৈশিষ্ট্য চিহ্নযুক্ত অঙ্গ আকৃতি তবে, এর সাথে বমি বমি ভাব, বুকজ্বালা, এবং মাথাব্যাথার মত শারীরিক অসুবিধাও থাকে মাথাব্যাথা গর্ভাবস্থায় যে কোনো সময়ে ঘটতে পারে তবে প্রথম এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে বেশি হয়ে থাকে মাথাব্যাথা নিরাময়ের জন্য আপনাকে প্রাকৃতিক প্রতিকারগুলি বেছে নিতে হবে যাতে আপনি নিশ্চিত করতে পারেন যে আপনার শিশুর কোনো ক্ষতি হবে না

aniview

গর্ভাবস্থায় মাথা ধরার কয়েকটি সাধারণ কারণ

  • হরমোনের পরিবর্তন
  • চাপ
  • ভুল ভঙ্গিমা
  • কম ঘুম
  • রক্তে শর্করার পরিমাণ কম থাকা
  • সম্পূর্ণ রূপে ক্যাফিন এর অপসারন
  • জল বিয়োজন

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যাথার জন্য প্রাকৃতিক প্রতিকার

এই মাথাব্যাথার মোকাবিলা করার জন্য ঘরোয়া প্রতিকারের উপর নির্ভর করা যুক্তিযুক্ত, কারণ ডাক্তারদের সাথে পরামর্শের পরেই ঔষধ গ্রহণ করা উচিত উপরন্তু, শিশুদের উপর ওষুধের সম্ভাব্য পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া আছে যেগুলির বিষয়ে সতর্ক হওয়া দরকার সুতরাং, নিম্নলিখিত ঘরোয়া প্রতিকারগুলি প্রয়োগের চেষ্টা করুন, এবং আপনি কোনো ওষুধ ছাড়াই মাথা ব্যাথা থেকে নিজেকে মুক্তি দিতে সক্ষম হতে পারেন

১. পর্যাপ্ত ম্যাগনেসিয়াম গ্রহণ করুন

গর্ভাবস্থার সময়, ম্যাগনেসিয়াম পেশীকে শিথিল করতে সহায়তা করে এবং জরায়ুর অকাল সংকোচন প্রতিরোধ করে এটি শিশুর পেশী এবং দাঁতকে শক্তিশালীও করে অতএব, দিনে 400 মিগ্রা ম্যাগনেসিয়াম গ্রহণের সুপারিশ করা হয় এক কাপ পালং শাকে প্রায় 157 মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে, এবং তাই এটি একটি ভাল খাদ্য উপাদান গড়ে তোলে একটি সুস্বাদু মজাদার উপায়ে পালং খেতে হলে সেটিকে মোলায়েম বা স্মুথি বানিয়ে খাওয়া যায়

পালংএর স্মুথি তৈরির উপকরণ

  • 1 কাপ পালং শাক
  • 2 স্কুপ ভ্যানিলা আইসক্রীমপাঁচ মিনিট ধরে ফুটন্ত জলে পালং শাকটি ডুবিয়ে রেখে সাদা বা পাণ্ডুবর্ণ করে নিন

পালং শাক এবং আইসক্রিম একসাথে মিশ্রিত করুন, এবং আপনার স্মুথি প্রস্তুত
আপনার খাদ্যের মধ্যে আরও ম্যাগনেসিয়াম অন্তর্ভুক্ত করার আরেকটি উপায় হল আপনার ডায়েটে কাজুবাদাম যোগ করা

২. প্রচুর জল খান

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যাথার চিকিৎসা করার জন্য জল একটি দুর্দান্ত ঘরোয়া প্রতিকার গর্ভাবস্থার পর্যায়ে, আপনার শরীরে শক্তির যোগান ঠিক রাখার জন্য এবং এনজাইম প্রোটিনগুলির সঠিক সংবহন নিশ্চিত করার জন্য হাইড্রেটেড থাকা অপরিহার্য মাথাব্যাথা প্রতিহত করার জন্য প্রতিদিন 8 আউন্স করে জল পান করার চেষ্টা করুন

প্রচুর জল খান

৩. একটি ঠান্ডা কম্প্রেস ব্যবহার করুন

গর্ভাবস্থায়, মাথায় প্রসারিত রক্তবাহী নালীর কারণে মাইগ্রেণ হতে পারে একটি ঠান্ডা কম্প্রেস রক্তবাহী নালীগুলিকে আঁটসাঁট করতে এবং কোষগুলিকে সঙ্কুচিত করতে সহায়তা করে এবং এভাবে এটি ব্যথা কমাতে সাহায্য করে

একটি ঠান্ডা কম্প্রেসের জন্য, আপনার প্রয়োজন

  • একটি পরিচ্ছন্ন তোয়ালে
  • এক বাটি ঠাণ্ডা জল
  • জলে তোয়ালেটি ডোবান এবং অতিরিক্ত জল নিংড়ে বের করে নিন

একটি আরামদায়ক পৃষ্ঠতলের উপর শুয়ে পড়ুন এবং আপনার কপাল চোখের উপর তোয়ালেটি রাখুন আরাম পেতে, তোয়ালেটির উপর আস্তে আস্তে চাপ দিন একটি ঠান্ডা কম্প্রেস মাইগ্রেনের মতো সংবহনতান্ত্রিক মাথাব্যাথা থেকে মুক্তি প্রদান করার জন্য পরিচিত

৪. একটি গরম কম্প্রেস ব্যবহার করুন

রক্তনালী কুঁচকে গিয়ে রক্ত সঞ্চালন কম হলেও মাথা ব্যাথা সৃষ্টি করতে পারে একটি গরম কম্প্রেস রক্তনালীকে প্রসারিত করে এবং মস্তিষ্কে রক্ত প্রবাহ বৃদ্ধি করে ব্যথা কমিয়ে দিতে পারে একটি গরম কম্প্রেস দিয়ে উদ্বেগজনিত মাথাব্যাথার ভাল চিকিৎসা করা যায়

একটি গরম কম্প্রেসের জন্য প্রয়োজনীয় জিনিস

  • একটি পরিষ্কার তোয়ালে
  • এক বাটি গরম জল
  • জলের বাটিতে তোয়ালেটি ডোবান এবং অতিরিক্ত জল নিংড়ে বের করে নিন; আরাম পেতে, কপাল বা ঘাড়ের গোড়ায় প্রয়োগ করুন

৫. কিছু আদা চিবিয়ে খান

আদা বমি বমি ভাবের জন্য প্রাকৃতিক প্রতিকার হিসাবে ব্যবহার করা হয়ে থাকে এটি গর্ভাবস্থায় মাথাব্যাথা থেকে প্রাকৃতিক উপায়ে মুক্তিদাতা হিসাবেও কাজ করে কারণ এটি মাইগ্রেনের চিকিৎসা করে আদা প্রোস্ট্যাগ্ল্যান্ডিনকে ব্লক করে, যা পেশী সংকোচন এবং নিয়ন্ত্রণকে উৎসাহিত করে প্রোস্টাগ্ল্যান্ডিনকে ব্লক করে এটি মাথাব্যাথা প্রতিহত করতে সহায়তা করে, তাই আদা হল গর্ভাবস্থায় মাথাব্যাথার জন্য একটি দুর্দান্ত ঘরোয়া প্রতিকার আদাকে আবার চাএর আকারে গ্রহণ করা যেতে পারে

আদা চাএর উপকরণ

  • 1 ইঞ্চি লম্বা আদা মূল (3টি)
  • কিছু মেন্থল পাতা
  • অর্ধেক লেবু

2 কাপ জল আদার মূল এবং মেন্থল পাতা জলে ফোটান এবং তারপর পাঁচ মিনিট ধরে একভাবে ফেলে রাখুন জলটি ছেঁকে নিন এবং এতে লেবুর রস দিন এবং নেড়ে নিন মাথা ব্যাথা থেকে পরিত্রাণ পেতে এই চা খান

৬. একটি ছোট্ট দিবানিদ্রা দিয়ে নিন বা যোগা করুন

ঘুমের অভাবও মাঝে মাঝে মাথাব্যাথা এবং মাইগ্রেন শুরু হতে পারে, তাই যদি আপনি চাপ অনুভব করেন এবং ক্লান্ত বোধ করেন, তবে একটি শান্ত পরিবেশ তৈরি করুন এবং কিছুটা ঘুমিয়ে নিন আপনি যদি অতিরিক্ত চাপের সম্মুখীন হন, তবে কিছু যোগব্যায়াম করা একটি ভালো আইডিয়া কারণ এর থেকে অনেক উপকারিতা পাওয়া যায় যোগব্যায়াম চাপ কমানোতে সহায়তা করে এবং আপনার রাত্রিতে ভাল ঘুম হয়, এছাড়া এটি করার ফলে শরীর তার প্রয়োজনীয় ব্যায়াম পায় এমনকি গর্ভাবস্থাকালেও সেই বিষয়টিকে নিশ্চিত করে

একটি ছোট্ট দিবানিদ্রা দিয়ে নিন বা যোগা করুন

৭. একটি জন্মপূর্ব মালিশ নেওয়ার চেষ্টা করুন

কাঁধ, ঘাড়, এবং পিঠ থেকে চাপ উপশম করার জন্য একজন প্রিন্যাটাল ম্যাসাজ থেরাপিস্টের কাছে যান বাইরে থেরাপিস্টের কাছে যাওয়া যদি আপনার পক্ষে সম্ভব না হয়, তবে বাড়িতেই কিছু কিছু মালিশ করা যায় আপনার খুলির গোড়ায় কাঁধে এবং আপনার কব্জির নীচে ঘষার চেষ্টা করুন সংকোচন ঘটানোর ট্রিগার পয়েন্টগুলি সম্পর্কে সচেতন থাকুন যেমন বুড়ো আঙুল এবং তর্জনীর মধ্যেকার বিন্দু এবং এগুলিকে এড়িয়ে যান

৮. মেন্থল তেল ব্যবহার করুন

ত্বকের উপর মেন্থলের তেলের একটি শীতল প্রভাব আছে এবং উদ্বেগ হ্রাস করে এটি মাথা ব্যাথার অনুভূতিও কম করে আপনার হাতের তালুতে কয়েক ড্রপ মেন্থল তেল নিন এবং কয়েক সেকেন্ড ধরে আপনার তালুতে এটি ঘষুন কপালের চূড়ায় তেলটি লাগান এবং এক মিনিট ধরে মালিশ করুন ইতিবাচক ফলাফল দেখতে বিছানায় যাওয়ার আগে এটি করুন

৯. ওমেগা 3 তেল

আপনার ডায়েটের মধ্যে কিছু ধরনের তেল যোগ করলে প্রদাহ হ্রাস করতে সহায়তা করে চর্বিযুক্ত মাছে পাওয়া যায় যে ওমেগা 3 ফ্যাটি অ্যাসিড, তা মাথা ব্যাথার তীব্রতা এবং স্থায়িত্ব কমায় ডায়েটে সালমন, জলপাই তেল এবং ক্যানোলা তেল যোগ করলে, ওমেগা 3 তেল গ্রহণের পরিমাণ বাড়ায় অন্যথায়, ওমেগা 3 ফ্যাটি এসিড বড়িও গ্রহণ করা যেতে পারে

১০. লেবুর রস

লেবুর রসের অনেক উপকারিতা আছে, এবং মাথাব্যাথার বিরুদ্ধে লড়াই করা হল তাদের মধ্যে একটি এটি পেটের খিঁচুনিও হ্রাস করে এবং ইমিউন সিস্টেম বা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে উন্নত করে গর্ভাবস্থা শরীরের ভিটামিন সি মাত্রাকে কমাতে পারে, ফলে মাথা ব্যাথা সৃষ্টি হয় লেবু শরীর থেকে দূষিত পদার্থও বের করে দেয় করে এবং রক্ত সঞ্চালন উন্নত করে একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসাবে কাজ করে

একটি লেবুর পানীয় প্রস্তুত করার জন্য আপনার প্রয়োজন

  • অর্ধেক লেবু
  • কিছু আদা কুঁচি কুঁচি করে কাটা (ঐচ্ছিক)
  • এক গ্লাস জল

লেবুর রস

লেবু চিপে রস বের করে জলে মেশান এবং এতে আদা যোগ করে নেড়ে নিন এবং পান করুন গর্ভবতী অবস্থায় বাড়িতে মাথাব্যাথার চিকিৎসা করার এটি একটি কার্যকর পদ্ধতি

১১. ল্যাভেন্ডার তেল

ল্যাভেন্ডার তেল ত্বককে রিল্যাক্স করে এবং শীতল করে অতএব, কপালে কিছু তেল মালিশ করলে ব্যথা হ্রাস করতে সাহায্য করতে পারে

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যাথা উপশম করার অতিরিক্ত কৌশলসমূহ

  • একজন কাইরোপ্র্যাক্টরের কাছে যান; তাঁরা অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সঞ্চালনার সংশোধন করে যন্ত্রণা থেকে কিছুটা আরাম পেতে সাহায্য করতে পারেন
  • সারা দিন অল্প অল্প করে খাবার খান এবং যথেষ্ট প্রোটিন খাওয়াকে নিশ্চিত করুন
  • আপনার স্নানের জলে এপসম লবণ দিন এবং আরাম পাওয়ার জন্য একটি উষ্ণ স্নান নিন
  • আপনার শরীরের চাপের বিন্দুগুলিতে উপশম পাওয়ার জন্য আকুপাংচার ব্যবহার করুন
  • নিয়মিত কিন্তু মৃদুভাবে ব্যায়াম করুন
  • ক্যাফিন(যা কফিতে থাকে) এড়িয়ে চলুন, কারণ ক্যাফিন প্রত্যাহারও মাথাব্যাথাকে দূর করতে পারে

সাধারণত, এই মাথাব্যাথাগুলি ঘরেই সামলে নেওয়া যায়, তবে ডাক্তারের পরামর্শের প্রয়োজন হতে পারে যদি:

  • ব্যথা অসহনীয় হয় এর জন্য চূড়ান্তভাবে ওষুধের প্রয়োজন হয়ে ওঠে
  • মাথা ব্যথার সাথে যদি দৃষ্টি আবঝা হয়ে যায় এবং তলপেটের উপরে ডান পাশে ব্যথা থাকে এবং হাত মুখ ফুলে যায়
  • যদি ছয় মাসের গর্ভাবস্থার পরে মাথা ব্যাথা শুরু হয়, যা টক্সিমিয়া এবং প্রিইক্ল্যাম্পসিয়ার একটি লক্ষণ হতে পারে

মাথাব্যাথা এমন একটি জিনিস যা কোনও না কোনও সময়ে সকলেই ভোগ করে থাকেনতবে, এটি গর্ভাবস্থায় অসুবিধার একটি প্রধান উৎস হতে পারে এই সময়কালে, একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস গড়ে তুলে এবং একটি চাপ মুক্ত পরিবেশে বসবাসের মাধ্যমে এটিকে কমানোর জন্য আপনি অনেক কিছুই করতে পারেন