গর্ভাবস্থায় স্তন এবং স্তনবৃন্তের সাধারণ পরিবর্তন

গর্ভাবস্থায় স্তন এবং স্তনবৃন্তের সাধারণ পরিবর্তন

গর্ভাবস্থার প্রথম পরীক্ষা করার আগেই, অনেক লক্ষণ এবং উপসর্গ দেখা যায় যা থেকে আপনার গর্ভবতী হওয়ার আভাস পাওয়া যেতে পারে, তার মধ্যে একটি হল স্তনের ব্যথা। গর্ভাবস্থা একজন মহিলার জন্য একটি জীবন পরিবর্তনকারী অভিজ্ঞতা, এটি শুধুমাত্র একটি নতুন জীবন সৃষ্টি করে না, সাথে এটি নয় মাস ধরে বাড়তে থাকা শিশুটিকে জায়গা দেওয়ার জন্য জন্য এবং তার পরিচর্যার জন্য সেই মায়ের শরীরকে পরিবর্তিত করে এবং জন্মের পরে শিশুকে পুষ্টি সরবরাহ করতে পারার জন্য প্রস্তুত করে। এমনকি আপনার পেশীগুলি আলগা হয়ে যায়, আপনার বক্ষপিঞ্জর প্রশস্ত হয়, পেট প্রসারিত হয় এবং আপনার অভ্যন্তরীণ অঙ্গগুলি সরে যায়, আপনার স্তনগুলি আকারে বৃদ্ধি পায় এবং জন্মের পর আপনার শিশুকে খাওয়ার জন্য আপনাকে প্রস্তুত করতে পরিবর্তিত হয়।

aniview

হবু পিতারা প্রায়ই গর্ভাবস্থায় স্তনবৃদ্ধির বিষয়ে মনোযোগ দেন, যেটি সবসময় একটি মনোরম অভিজ্ঞতা নয়। বেশিরভাগ মহিলারা ব্যথা নিয়ে অভিযোগ করেন, কিন্তু অস্বস্তির মাত্রা বিভিন্ন হয়। সন্তানের জন্য প্রত্যাশা করার সময় আপনি স্তনে কী কী পরিবর্তন আশা করতে পারেন সে সম্বন্ধে একটি দ্রুত এক ঝলক জানার জন্য পড়ুন!

গর্ভাবস্থায় স্তনের পরিবর্তন

গর্ভাবস্থার অন্যান্য প্রতিটি উপসর্গের মতো, বুকের কোমলতার জন্যও ইস্ট্রোজেন এবং প্রজেস্টেরোনকেই দুটি প্রধান অপরাধীকে হিসাবে দায়ী করা হয়। এই একই হরমোনগুলি আপনার যৌবন-পুর্ববর্তী কালে আপনার স্তন গঠন করেছিল, এখন এগুলি আপনার দুধ নিঃসরণের জন্য কাজ শুরু করে। এগুলি আপনার স্তনের নালীগুলিকে প্রশস্ত করে এবং স্তনে যেন প্রচুর রক্ত সরবরাহ হয় তা নিশ্চিত করে।  প্রারম্ভিক গর্ভাবস্থায় স্তন ব্যথা সাধারণ, যেহেতু প্রথম ত্রৈমাসিকেই বেশিরভাগ পরিবর্তনগুলি ঘটে, অর্থাৎ, গর্ভধারণের দুই থেকে চার সপ্তাহের মধ্যে।

প্রারম্ভিক গর্ভাবস্থায় প্রথম 12 সপ্তাহের মধ্যে, সপ্তাহে সপ্তাহে স্তনের পরিবর্তিতগুলি এখানে দেওয়া হল:

  • 1- 3 সপ্তাহে পরিবর্তনগুলি

গর্ভরোপণের সাথে সাথে স্তনের পরিবর্তন শুরু হয়। 2য় সপ্তাহে বড় আকারের পরিবর্তন ঘটে, এবং আপনার সংবেদনশীলতা বেড়ে যায়, বিশেষ করে যে পাশের দিকগুলিতে যেখানে আভ্যন্তরীণ স্তন্য ধমনী থাকে। এই সময়ে দুধের নালীগুলি এবং অ্যালভিওলার বাডগুলি দ্রুত বৃদ্ধি পায়।

  • 4- 6 সপ্তাহে পরিবর্তনগুলি

স্তনবৃন্তে পরিবর্তন এই সময়ের মধ্যে লক্ষনীয়। রক্ত সরবরাহ বৃদ্ধির কারণে স্তনবৃন্তে কাঁটার মতো অনুভূতির সাথে স্তনবৃন্তের চারপাশে চিনচিনে বেদনা অনুভূত হয়। তাপমাত্রার পরিবর্তনের ফলেও চিনচিনে অনুভূতি শুরু হতে পারে। এই পর্যায়ের শেষে, এরিওলাগুলির রঙের গাঢ়ত্ব বৃদ্ধি পাওয়ায় সেগুলিকে আরো কালো দেখায়, এবং স্তনবৃন্তগুলি আরও সুস্পষ্ট হবে।

  • 7-9 সপ্তাহে পরিবর্তন

7ম সপ্তাহে, স্তনগুলির ওজন বৃদ্ধি পায় কারণ চর্বি জমা হয় এবং দুধের নালীগুলি আরও বাড়তে থাকে। বাড়তে থাকা অ্যালভিওলাই দ্বারা ছোট ছোট খন্ড গঠিত হয়, ফলে স্তনগুলি ব্যথাযুক্ত এবং নমনীয় বোধ হয়। প্রায় 8 সপ্তাহের মধ্যে, এরিওলার চারপাশে মন্টগোমারি-র টিউবারকলস বা ছোট ব্রণ দেখা দেয়। 12 সপ্তাহের মধ্যে, গাঢ় রঙের এরিওলাগুলির চারপাশে অপেক্ষাকৃত হালকা রঙের টিস্যু দিয়ে তৈরি দ্বিতীয় এরিওলা দেখা যায় এবং উল্টানো স্তনবৃন্ত ঠিক হয়ে যায়।

  • 10- 12 সপ্তাহে পরিবর্তনগুলি

এই সময় স্তনবৃন্তগুলি সম্পূর্ণরূপে সামনের দিকে প্রসারিত হয়, এবং আপনি অবশ্যই পার্থক্যটি লক্ষ্য করতে পারবেন, বিশেষ করে যদি এটি আপনার প্রথম গর্ভাবস্থা হয়।

প্রথম বারো সপ্তাহের মধ্যে প্রধান পরিবর্তনগুলি ঘটলেও, স্তনের বৃদ্ধি গর্ভাবস্থা জুড়ে চলতে থাকে এবং নিম্নলিখিতপরিবর্তনগুলি দ্বারা চিহ্নিত হয়:

গর্ভাবস্থায় স্তন বৃদ্ধি

স্তন বৃদ্ধি গর্ভাবস্থায় সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন, কিন্তু বৃদ্ধির প্যাটার্ন এক নারী থেকে অন্য নারীতে ভিন্ন হতে পারে। যদিও কিছু নারীর ক্ষেত্রে ধীরে ধীরে এবং স্থিরভাবে স্তনের বৃদ্ধি ঘটে, অন্যদের হঠাত করে বেশী বৃদ্ধি ঘটে থাকে। যদি এটি আপনার প্রথম গর্ভাবস্থা হয় তবে আপনি দেখতে পাবেন যে আপনার ব্রা-র আকার এক কাপ বৃদ্ধি পেয়েছে এবং আপনার স্তনগুলি পূর্ণ ও ভারী মনে হচ্ছে। আকৃতির আকস্মিক বৃদ্ধি আপনার ত্বককে প্রসারিত করে এবং এটি চুলকানির কারণ হতে পারে। প্রসারণ চিহ্ন দেখা দেওয়া অস্বাভাবিক নয়, তবে এইগুলি বেশিরভাগই অস্থায়ী, এবং আপনার এগুলির সম্পর্কে খুব বেশি উদ্বিগ্ন হওয়ার প্রয়োজন নেই।

গর্ভাবস্থায় স্তনের কোমলতা

প্রথম ত্রৈমাসিকের সময় স্তনে ব্যথা বা কোমলতা সবচেয়ে বেশি লক্ষণীয় হয় এবং সাধারণত দ্বিতীয়-ত্রৈমাসিক শুরু হওয়ার সাথে সাথে কমে যায়। হরমোনগুলির বৃদ্ধির কারণে সৃষ্ট, ব্যথা প্রতিদিনের নিয়মিত কাজ করা, বা অতি সাধারণ স্পর্শকেও অস্বস্তিকর করে তুলতে পারে।

  • দৃশ্যমান শিরা

গর্ভাবস্থায় শরীরের বর্ধিত রক্ত প্রবাহ আপনার স্তনের সূক্ষ্ম ত্বকে শিরাগুলিকে দৃশ্যমান করতে পারে। এই অবস্থাটি অস্থায়ী, এবং সাধারণত আপনি জন্ম দেওয়ার পরে বা বুকের দুধ খাওয়ানো বন্ধ করে দেওয়ার পরে শিরা স্বাভাবিক আকারে ফিরে আসে।

  • ডেলা এবং ফুলে ওঠা

কিছু মহিলা স্তনের মধ্যে ডেলা তৈরি হতে লক্ষ্য করতে পারে। এগুলির মধ্যে বেশিরভাগই ক্ষতিকারক নয়, তবে পরিবর্তন বা নতুন ডেলা লক্ষ্য করলে সেটি পরীক্ষা করে নেওয়া ভালো। বেশিরভাগ ডেলাগুলি গ্যালাক্টোসিলস (দুধ ভর্তি সিস্ট), ফাইব্রোঅ্যাডেনোমাস (তন্তুযুক্ত টিস্যু) দ্বারা সৃষ্ট।

  • গর্ভাবস্থায় স্তনবৃন্তের পরিবর্তন

গর্ভাবস্থা আপনার স্তনবৃন্তের চারিদিকে, যাকে এরিওলা বলে, রঙ বৃদ্ধি করে। তৃতীয় ত্রৈমাসিকের পরিবর্তনগুলির মধ্যে রয়েছে স্তনবৃন্তের আকার বৃদ্ধি পাওয়া এবং মন্টগোমারি-র টিউবারকুল বা গুটিকা দেখা দেওয়া।

  • মন্টগোমারি-র টিউবারকুল (গুটিকা)  

এরিওলার চারপাশে ছোট ব্রণ দেখা দেওয়া, এই ফোলাগুলিকে আইরিশ ওবেস্ট্রিশিয়ানের নাম অনুযায়ী নামকরণ করা হয়, যিনি এগুলিকে প্রথম লক্ষ্য করেছিলেন। বিভিন্ন মহিলার ব্রণ বা ফোলার সংখ্যা ভিন্ন হয়। এই গুটিকাগুলি একটি প্রতিরক্ষামূলক কাজ করে বলে মনে করা হয়, কারণ এগুলি তেল নিঃসরণ করে যা এরিওলাকে ময়শ্চারাইজ করে এবং গর্ভাবস্থায় কালশিটে পড়া স্তনবৃন্তকে আরাম দেয়। তাদের খুঁটে দেওয়ার আকাঙ্ক্ষা প্রতিরোধ করুন, নাহলে আপনার সংক্রমণ হয়ে যেতে পারে।

  • স্তন থেকে লিক করা – গর্ভাবস্থা ঝরনা

গর্ভাবস্থায় 16 সপ্তাহ হলে স্তন থেকে লিক করা একটি সাধারণ ঘটনা। দুধের নালীগুলি প্রসবের পর তাদের কাজের জন্য প্রস্তুত হয়, তারা কোলোস্ট্রাম, একটি খড়-রঙের তরল, লিক করে। কোলস্ট্রমটি আপনার শিশুর জন্মের ঠিক পরেই তার পান করা উচিত, কারণ এটি আপনার নবজাতকের সুরক্ষার জন্য অ্যান্টিবডি সমৃদ্ধ।

স্তনের ব্যথা উপশম করার কৌশল

স্তনের ব্যথা উপশম করার কৌশল

স্তনের পরিবর্তন এবং তার সাথে যুক্ত অস্বস্তি অনিবার্য, এই প্রক্রিয়াটি চলাকালীন আপনি নিজের সুবিধা করার জন্য অনেকগুলি জিনিস করতে পারেন:

1. একটি সঠিক মাপের প্রসূতি ব্রা পরুন

একটি সঠিক মাপের প্রসূতি ব্রা পরুন

যখনই আপনি গর্ভাবস্থায় স্তনের আকার পরিবর্তনের কারণে আঁটসাঁট বোধ করেন, তখন একটি নতুন ব্রা-এর জন্য নিজের মাপ দিন। প্রথম ত্রৈমাসিকের শেষে মাপ নিলে, এবং আর একবার তৃতীয় ত্রৈমাসিকের শেষে মাপ নিলে এবং ভাল ফিট করা ব্রা কিনলে আপনার স্তনগুলি সর্বদা ভাল অবলম্বন পাবে। মাতৃত্বকালীন ব্রা নির্বাচন করুন যেগুলি আপনি জন্ম দেওয়ার পরেও ব্যবহার করতে পারবেন এবং এইভাবে প্রতিটি ক্রয়ের খরচকে সাশ্রয়ী করুন। গর্ভাবস্থায় পরিবর্তনশীল স্তনের আকারের সাথে সামঞ্জস্য করা বুকের কোমলতা এড়ানোর নিশ্চিত উপায়।

2. ময়েশ্চারাইজ করা

আপনার ত্বক ময়েশ্চারাইজ করে গর্ভাবস্থায় স্তনের চুলকানি থেকে পরিত্রাণ পান। ত্বক আপনার ক্রমবর্ধমান স্তনের উপর প্রসারিত হওয়ার জন্য, এটিকে পুষ্ট করা প্রয়োজন যাতে এটি নরম এবং নমনীয় থাকে।

3. নীচে তার যুক্ত অন্তর্বাস দূরে রাখুন

আগে এটি বিশ্বাস করা হত যে নীচে তার যুক্ত ব্রা রক্ত প্রবাহ এবং দুধ উৎপাদনে বাধা দিতে পারে, কিন্তু গবেষণা এই তত্ত্ব ধূলিসাৎ করেছে। যাইহোক, বেশিরভাগ মহিলারা ব্যথাযুক্ত স্তনের জন্য নীচে তার যুক্ত ব্রাতে অস্বস্তিকর বোধ করেন। আপনার ব্রা যদি আপনার অস্বস্তি বাড়ায়, তবে আপনি নীচে তার যুক্ত ব্রা ছেড়ে অন্য ব্রা ব্যবহার করুন।

4. আরামের জন্য সুতী চয়ন করুন

সুতী, যা হল একটি হাইপোঅ্যালার্জেনিক (কম অ্যালার্জি প্রতিক্রিয়া যুক্ত) ফ্যাব্রিক, কেবল জ্বালা এবং ত্বকের সংক্রমণের বিরুদ্ধেই সুরক্ষা দেয় না, এটি নিশ্চিত করে যে আপনার ত্বক শ্বাস নিতে পারে। এই নরম ফ্যাব্রিক ঘাম শোষণ করে, আপনার ত্বক পরিষ্কার এবং শুষ্ক রাখে। সুতীর ব্রা প্রয়োজনীয় আরাম দেয়।

5. জিনিস এবং মানুষের সাথে ধাক্কা খাওয়া এড়িয়ে চলুন

আপনি যাতে কখনও ব্যথা না পান না তা নিশ্চিত করার সেরা উপায় হল ব্যথা প্রতিরোধ করা। আপনি ঘরে বা বাইরে থাকলে আপনি কোথায় যাচ্ছেন তা খেয়াল রাখুন যাতে আপনি শারীরিক সংস্পর্শের দ্বারা আঘাত না পান।

6. আপনার সঙ্গীকে আপনার চারপাশে থাকার সময় হাত নাড়াচাড়া না করতে বলুন

গর্ভাবস্থায় ব্যথাযুক্ত স্তন শারীরিক অন্তরঙ্গতার পথে বাধা হয়ে আসতে পারে। আপনি আপনার সঙ্গীকে আপনার সমস্যার কথা জানান এবং আপনারা একসাথে থাকার সময় আপনার স্তন স্পর্শ না করার জন্য তাকে বলুন।

7. একটি উষ্ণ কম্প্রেস ব্যবহার করুন

গর্ভাবস্থায় স্তনের ব্যথা উপশম করার একটি ভালো উপায় হল একটি উষ্ণ এবং ভিজা তোয়ালে দিয়ে আপনার স্তনগুলি আবৃত করা। একটি উষ্ণ কম্প্রেস রক্ত সঞ্চালন উন্নত করে ব্যথা এবং কোমলতা কমাতে সাহায্য করে।
গর্ভাবস্থায় স্তনের অস্বস্তি হ্রাসে খাদ্যতালিকাগত পরিবর্তনগুলি অনেক সাহায্য করে।

8. হাইড্রেটেড থাকুন

স্তনের ব্যথার কারণগুলির মধ্যে একটি হল জল ধরে রাখা, এবং যদি আপনি প্রতিদিন প্রচুর জল পান করেন তবে এটি এড়াতে পারেন। এটি ব্যথার কারণ হওয়া অতিরিক্ত হরমোন এবং তরল ঠেলে বের করে দিতে সাহায্য করে।

9. কম লবণ খাওয়া

কিছু মহিলারা মনে করেন যে লবণ খাওয়া হ্রাস করলে গর্ভাবস্থায় স্তনের ব্যথা কমিয়ে দেয়।

10. শণ(ফ্ল্যাক্স) বীজ

জল, ফলের রস বা দই-এর সাথে সম্পূরক হিসাবে এক চামচ করে শণ বীজের গুঁড়া খান। পুষ্টিতে সমৃদ্ধ এবং ফাইবাড়ের উৎস, শণ বীজ স্তনের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে।

11. খাদ্য এবং পুষ্টি

একটি সুস্থ শরীর স্তনের ব্যথা ভালোভাবে মোকাবিলা করতে বেশী প্রস্তুত থাকে। স্তনের কোমলতা কমাতে, বীজ এবং বাদাম, পাতাযুক্ত সবুজ শাক, শুটি এবং খাদ্যশস্য সহ ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ খাবার খান।

স্তন পরীক্ষা – কখন একজন ডাক্তারকে দেখাতে হবে

গর্ভাবস্থার সময় স্তনের অস্বস্তি স্বাভাবিক এবং ক্ষণস্থায়ী, অন্য সব উপসর্গের মতো, কিন্তু এটি এমন একটি জিনিস যেটি সম্পর্কে সচেতন হওয়া আবশ্যক। আপনি কোনো অস্বাভাবিক ব্যথা বা স্রাব লক্ষ্য করলে, আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন যদি:

  • আপনি ডেলাগুলির মধ্যে দ্রুত পরিবর্তন দেখেন বা ডেলার সংখ্যা বৃদ্ধি লক্ষ্য করেন
  • আপনি কোলোস্ট্রামের সঙ্গে রক্ত লিক করতে লক্ষ্য করেন
  • আপনি ফুসকুড়ি লক্ষ্য করেন

স্তন পরিবর্তনের সাথে মোকাবিলা করতে শেখা হল গর্ভাবস্থায় আপনার শরীরের অনেক পরিবর্তনকে আলিঙ্গন করার একটি অংশ। প্রথম এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে সর্বাধিক পরিবর্তন দেখা গেলেও, দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকেও পরিবর্তন থেকে হালকা অস্বস্তির জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।  যতক্ষণ না তারা স্বাস্থ্যের ঝুঁকি সৃষ্টি করে, ততক্ষণ এই পরিবর্তনগুলি থেকে আপনার উদ্বিগ্ন হওয়ার কোনো কারণ নেই এবং গর্ভাবস্থার অগ্রগতির সাথে সাথে এগুলি চলে যায়।