গর্ভাবস্থায় লিচু ফল সেবন করা- এটি কি নিরাপদ?

গর্ভাবস্থায় লিচু ফল সেবন করা- এটি কি নিরাপদ?

গর্ভদশা হল এমন একটি সময় যখন গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে সচরাচর পাওয়া যায় না এমন সব অদ্ভুত অদ্ভুত খাওয়ার বাসনা উদিত হয়।আপনি যদি গর্ভবতী হয়ে থাকেন, তবে এমন কয়েকটি দিন এসে উপস্থিত হবে, যখন হয়ত আপনি কিছু নির্দিষ্ট খাবার খাওয়ার প্রতি তীব্রভাবে ব্যাকুল হয়ে উঠবেন, যেগুলি আপনার স্বাস্থ্যের পক্ষে ঠিক যথার্থ নাও হয়ে থাকতে পারে।আপনি যাই খান না কেন সে ব্যাপারে আপনাকে ভীষণভাবে যত্নশীল হয়ে উঠতে হবে কারণ আপনি যাই খাবেন তা আপনার সন্তানের স্বাস্থ্যের উপরেও প্রভাব ফেলবে।আপনার ডায়েটের মধ্যে কিছু নির্দিষ্ট ফল এবং শাক-সবজি অন্তর্ভূক্ত করার দ্বারা আপনার পুষ্টি গ্রহণের পরিমাণকে আপনি বাড়াতে পারেন এবং আপনার গর্ভস্থ শিশুর যথাযথ বৃদ্ধি এবং বিকাশকে আপনি নিশ্চিত করতে পারেন।তবে আপনার খাওয়া সকল ফলই আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ভাল হবে না।এমন কয়েকটি নির্দিষ্ট ফল আছে যেমন ধরুন লিচু, যা আপনার স্বাস্থ্যের পক্ষে যথার্থভাবে ভাল নাও হতে পারে।আর আপনি যদি লিচু খেতে ভালবাসেন, তবে সেগুলি কেন আপনার গর্ভাবস্থাকালীন ডায়েটের একটি অংশ হয়ে ওঠার জন্য উপযুক্ত নয় তা জানতে এই নিবন্ধটি পড়ুন।

aniview

গর্ভাবস্থায় লিচু ফলটি খাওয়া কি নিরাপদ?

লিচু, যা আবার ‘লিচি বা লিচ্চি’ নামেও সুপরিচিত- হল একটি ক্রান্তীয় ফল যার একটি মিষ্টি স্বাদ ও সুবাস আছে।এটি স্বাদে অতীব উত্তম কিন্তু স্পষ্টতই এটি গর্ভাবস্থায় খাওয়ার পক্ষে নিরাপদ নয় যেহেতু এটি রক্ত শর্করার মাত্রা বৃদ্ধি এবং গর্ভাবস্থাকালীন ডায়াবেটিসকে বাড়িয়ে তোলার জন্য সুপরিচিত।লিচু আবার গর্ভবতীর মধ্যে সংক্রমণ হওয়ার ক্ষেত্রেও অবদান রাখতে পারে এবং পরিণাম হিসেবে রক্তক্ষরণও হতে পারে।সুতরাং গর্ভদশায় লিচু সেবন করা পরিহার করে চলাই উচিত।তবে আপনি তা সত্ত্বেও যদি সেগুলিকে খেতে চান, তবে সেক্ষেত্রে এ ব্যাপারে আপনার ডাক্তারবাবু কিম্বা পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিয়ে নেওয়ার পরামর্শই আমরা আপনাকে দিই।

গর্ভাবস্থায় লিচু সেবনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলি

গর্ভাবস্থায় লিচু সেবন করা বাঞ্ছনীয় নয় যেহেতু এগুলি গর্ভবতী মহিলাদের স্বাস্থ্যের উপর কিছু বিশেষ বিরূপ প্রভাব ফেলে।গর্ভদশায় খুব বেশি লিচু খাওয়ার নেতিবাচক প্রভাবগুলির উল্লেখ এখানে করা হলঃ

1.এটি শরীরের মধ্যে তাপমাত্রাকে বাড়িয়ে তোলে

গর্ভাবস্থায় খুব বেশি মাত্রায় লিচু খেলে তা আপনার দেহের মধ্যে তাপমাত্রাকে বাড়িয়ে তুলতে পারে যা আবার আপনার গর্ভাবস্থায় হয়ত বিভিন্ন জটিলতার সৃষ্টি করতে পারে।

2.রক্তক্ষরণ

খুব বেশি লিচু খেলে তা গর্ভাবস্থায় রক্তক্ষরণ ঘটাতে পারে, যা এটি ঘটার জন্য সম্ভাব্য কারণ হয়ে উঠতে পারে।

3.ডায়াবেটিস বা মধুমেহ

লিচু আবার রক্তে শর্করার মাত্রাকে বাড়িয়ে তোলে যা গর্ভাবস্থায় ডায়াবেটিস বা মধুমেহ-এর প্রবণতাকে বাড়িয়ে তুলতে পারে।

4.মৃত সন্তানের জন্মদান

মৃত সন্তানের জন্মদান করা হল গর্ভাবস্থায় অতিরিক্ত মাত্রায় লিচু খাওয়ার আরেকটি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া।আপনি যদি খুব বেশি লিচু খান সেক্ষেত্রে আপনার গর্ভস্থ সন্তান বেশ কিছু নির্দিষ্ট সংক্রমণে আক্রান্ত হয়ে উঠতে পারে, অতএব সেগুলি এড়িয়ে চলাই হল সবচেয়ে ভাল।

5.অ্যালার্জি

খুব বেশি পরিমাণে লিচু খেলে সেগুলি থেকে বিভিন্ন অ্যালার্জিও হয়ে থাকতে পারে। অস্বাভাবিক বেশি মাত্রায় লিচু খেলে তা থেকে চুলকানি, ঠোঁট ফুলে যাওয়া, আমবাত ইত্যাদি হতে পারে।

একজন গর্ভবতী মহিলা একদিনে কটি লিচু খেতে পারেন?

খুব বেশি লিচু খেলে তা গর্ভাবস্থায় নানাবিধ জটিলতার সৃষ্টি করতে পারে, সুতরাং সেগুলিকে এড়িয়ে চলাই উচিত।কিন্তু অন্তঃসত্ত্বাকালে আপনি যদি সেগুলি খেতে চান, তবে আপনার সেগুলি সংযমের সাথে খাওয়া উচিত, সবচেয়ে ভাল হয় আপনার পুষ্টিবিদের সাথে এ ব্যাপারে আলোচনা করার পরেই সেগুলি গ্রহণ করা।

লিচুগুলি হল গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টিকর উপাদান এবং খনিজগুলির একটি শক্তিঘর, কিন্তু গর্ভাবস্থায় সেগুলিকে এড়িয়ে চলাই হল সবচেয়ে ভাল।তবে আপনি যদি এর পরেও এই সুস্বাদু রসালো ফলটিকে উপভোগ করতে চান, আমরা আপনাকে প্রস্তাব দিই যে এ ব্যাপারে প্রথমে আপনার ডাক্তারবাবুর সাথে কথা বলে নিতে।স্বাস্থ্যকর আহার গ্রহণ করুন, নিরাপদ ও সুরক্ষিত থাকুন আর তার সাথেই একটি স্বাস্থ্যকর গর্ভাবস্থা বজায় রাখুন!