নবজাতকের ওজন বৃদ্ধি – কী সাধারণ এবং কী সাধারণ নয়

নবজাতকের ওজন বৃদ্ধি - কী সাধারণ এবং কী সাধারণ নয়

যে কোন ব্যক্তির স্বাস্থ্য বোঝার জন্য সবচেয়ে সাধারণ উপায় হল তার বৃদ্ধি। যখন আমাদের শিশুরা বড় হয়, এটি আমাদের মধ্যে সান্ত্বনা জাগায়। ওজন বৃদ্ধি (উচ্চতার সাথে) নবজাত শিশুর বৃদ্ধির অন্যতম প্রধান সূচক হয়ে ওঠে। অতএব, বাবা-মা হিসাবে আমাদের পক্ষে শিশুর ওজন বৃদ্ধিকে ঘনিষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ এবং বিশ্লেষণ করা গুরুত্বপূর্ণ।

aniview

নবজাতকের ওজন কেন গুরুত্বপূর্ণ?

ওজন বাড়ানো শিশুর পক্ষে তাদের মাইলফলক অর্জনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বব্যাপী, চিকিত্সা বিশেষজ্ঞ এবং স্বাস্থ্যসেবা নার্সরা প্রসবের পর প্রথম ২৪ ঘন্টা শিশুদের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখতে পছন্দ করেন। এটি শিশুদের ওজন হ্রাস বা বৃদ্ধি নির্ধারণ করার জন্য করা হয়, যা তাদের সুস্থতার সুস্পষ্ট ইঙ্গিত হতে পারে। এর পর শিশুকে পরীক্ষা করার জন্য সাপ্তাহিক অ্যাপয়েন্টমেন্টগুলি অনুসরণ করতে হবে। আপনাকে ডাক্তার পরামর্শ দেবেন যে প্রতি সপ্তাহে শিশুকে হাসপাতালে আনতে হবে। এটি নিশ্চিত করবে যে সঠিক পরিমাণ ওজন বাড়ানোর জন্য শিশু যথেষ্ট পরিমাণ পুষ্টি গ্রহণ করছে কিনা।

নবজাতকের ওজনে অবদান রাখে এমন বিষয়গুলি

নবজাতকের বৃদ্ধির সময় ওজনের উপর অবদান রাখে এমন কিছু বিষয় এখানে রইল।

  • আপনার শিশুর ওজনে অবদান রাখে এমন বিষয়গুলি জন্মের বাইরেও অনেকটা প্রসারিত: সাধারণত যেভাবে আপনার বা অন্য অভিভাবকটির পরিবারে লম্বা শিশু নাকি বেঁটে শিশুর জন্ম হয়, তা শিশুটির বৃদ্ধির সাথে সম্পর্কিত।
  • সন্তানের ওজনে বাবা-মায়ের জিনগুলি প্রধান ভূমিকা পালন করে।
  • আপনার ডায়েট এবং গর্ভাবস্থার প্রতি সংবেদনশীলতাও ওজনকে প্রভাবিত করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, আপনার প্রথম ত্রৈমাসিকে খাবারের প্রতি তীব্র সংবেদনশীলতা থাকা শিশুর উপর প্রভাব ফেলতে পারে।
  • জনপ্রিয় বিশ্বাসের ঠিক উলটোটা, গবেষণায় দেখা গেছে যে অল্পবয়সী মায়েরা আকারে ছোট শিশুর জন্ম দেয় এবং ৩০-এর কোটায় থাকা মহিলারা আকারে বড় শিশুদের জন্ম দেয়।
  • শিশুর জন্মের মাস জন্মের ওজনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। একটি অকালজন্মা শিশুর ওজন গর্ভে পুরো নয় মাস থাকা একটি শিশুর চেয়ে কম হবে।
  • প্রথমে জন্মানো শিশুদের ওজন পরবর্তীতে জন্মানো শিশুদের চেয়ে কম হওয়ার ঝোঁক থাকে।
  • যমজ বা একাধিক জন্মের জন্য গর্ভে তাদের মধ্যে মায়ের থেকে আসা পুষ্টি বিভক্ত করতে হয়, ফলে প্রতিটি শিশুর জন্মের সময়ের ওজন হ্রাস পায়।

নবজাতকের গড় ওজন কত?

নবজাতক শিশুর গড় ওজন ২.৫ কেজি থেকে ৩.৫ কেজির মধ্যে হয়। এর চেয়ে কম বা বেশি যে কোন ওজনি অস্বাভাবিক এবং নার্সকে কাছ থেকে এটি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করতে হবে।

নবজাতকের গড় ওজন কত?

জন্মের পরের দিনগুলিতে সদ্যজাতের স্বাভাবিক ওজন হ্রাস

শিশুদের জন্মের পরে ওজন হ্রাস হওয়া স্বাভাবিক। চিকিত্সকরা শিশুদের জীবনের প্রথম কয়েক দিনের মধ্যে তাদের জন্মের ওজন ১০% পর্যন্ত হ্রাস করা স্বাভাবিক বলে মনে করেন। তবে, তারা দশ দিন থেকে দুই সপ্তাহের মধ্যে এটি আবার ফিরে পায়। বুকের দুধ খাওয়ানো শিশু এবং অকালজন্মা শিশুরা তাদের জন্মের ওজন ফিরে পেতে আরও বেশি সময় নিতে পারে।

জন্মের পরের প্রথম দিনগুলিতে সদ্যজাতের স্বাভাবিক ওজন বৃদ্ধি

শিশুর গড় ওজন বৃদ্ধি তাদের জন্মের পরবর্তী তিন মাসের জন্য প্রতিদিন ২৫ গ্রাম হয়। এটি পরের দুই ত্রৈমাসিকে কম হবে। ওজন বৃদ্ধির প্যাটার্নটি দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে যথাক্রমে ২০ গ্রাম এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে ১৫ গ্রাম হয়। এক মাসে নবজাত শিশুর গড় ওজন বৃদ্ধি প্রতি সপ্তাহে ১৭৫ থেকে ২০০ গ্রাম হয়। আপনি এটি মাসে ৭০০-৮০০ গ্রাম (আনুমানিক) হিসাবে গণনা করতে পারেন।

পর্যাপ্ত পুষ্টি পাওয়া গেলে শিশুর ওজন পাঁচ বা ছয় মাসে তার জন্মের সময়ের ওজনের দ্বিগুণ হয়। যে শিশুটি বোতলে খায় সে মায়ের দুধ খাওয়া শিশুর চেয়ে কম ওজন লাভ করতে পারে।

আপনার নবজাতককে পর্যাপ্ত পরিমাণে খাওয়ানোর লক্ষণগুলি

শিশুকে ভালভাবে খাওয়ানো হচ্ছে কিনা তা বাবা-মায়ের কাছে একটি দীর্ঘদিন ব্যাপী উদ্বেগ। প্রতিদিনের জন্য শিশুর ওজন যাচাই করতে হাসপাতালে দৌড়ানো সম্ভব নয়, তবে শিশুর ওজন মাপার স্কেল বাড়িতে কেনাও প্রয়োজনীয় নয়। এই লক্ষণগুলি শিশুকে ভালভাবে খাওয়ানো হচ্ছে তা নির্দেশ করে:

  • খাওয়ানোর পরে কাঁদে না
  • ভালভাবে ঘুমায়
  • আপনার স্তনগুলি খাওয়ানোর পরে হালকা বোধ হয় / খাওয়ানোর পরে বোতলটি খালি থাকে
  • দিনে ৮-১২ বার খাওয়ানো হয়
  • নিয়মিত মলত্যাগ করে
  • মলের রঙ হলুদ
  • ভারী ভেজা ন্যাপি (দিনে ৬-৮টি) ভাল সূচক
  • প্রতি সপ্তাহে ওজন বৃদ্ধি।

আপনার শিশু যদি যথেষ্ট পরিমাণ ওজন না বাড়ায় বা খুব বেশি ওজন হ্রাস করে, তবে আপনার কি করা উচিত

বাবা-মায়েরা মাঝে মাঝেই এই বিষয় নিয়ে উদ্বিগ্ন এবং চিন্তিত হন। শিশু কত দ্রুত বা দেরীতে তার বৃদ্ধির মাইলফলক অর্জন করছে, তা হল তার বৃদ্ধির সত্যিকারের সূচক। এর অর্থ হল, শিশু বিকাশের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ খাদ্য এবং পুষ্টি গ্রহণ করছে। তবে, শিশুর জীবনের প্রথম দিনগুলিতে জন্মের সময়ের ওজন ১০%-এর থেকে বেশি হ্রাস হওয়া উচিত নয়। এই ১০% ওজন হ্রাস হল সাধারণত গর্ভ থেকে শিশুর মধ্যে যে অতিরিক্ত তরল ছিল তা কমে যাওয়া। এবং, নবজাতক শিশুদের প্রাথমিক স্তরে স্তন্যপান (স্তন্যপান করানো) বা বোতলে খাওয়া শেখার সময়কালে ওজন বাড়ে না। যেহেতু তারা চুষতে অসুবিধার সম্মুখীন হতে পারে বা চোয়ালের সমন্বয়জনিত সমস্যা থাকতে পারে বলে এটা হয় এবং তারা পর্যাপ্ত পরিমাণে পানীয় পান করতে পারে না বলে কিছুটা ওজন হ্রাস করে।

আপনার নবজাতকের শিশুর অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধি বা ওজন হ্রাস পরিচালনা করা

আপনি যদি খেয়াল করেন যে আপনার শিশুটি খুব বেশি ওজন হারাচ্ছে বা অতিরিক্ত ওজন বাড়ছে, তবে এটিকে পরিচালনা করার জন্য আপনি নিম্নলিখিত জিনিসগুলি ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

  • খাওয়ানো বজায় রাখুন: ভারসাম্যহীনতা রোধ করতে খাওয়ানোর সংখ্যা হ্রাস করুন। তবে নিশ্চিত করুন যে দুইবার খাওয়ানোর মধ্যে তিন ঘন্টার বেশি সময়ের ব্যবধান না থাকে। এছাড়াও, নিশ্চিত হয়ে নিন যে শিশুটি শেষ অংশের দুধ পায় এবং সেটি পুরোটা শেষ করে, যেহেতু সেগুলি সর্বাধিক পরিমাণে চর্বিযুক্ত হয়।
  • সমন্বয়: শিশু যদি স্তনে ভালভাবে ল্যাচ করতে অক্ষম হয় এবং এইভাবে খুব কম দুধ গ্রহণ করে তবে স্তন্যদানের ক্লাসে ভর্তি হন। এই ধরণের ক্লাসগুলি মা ও শিশু উভয়কে কিভাবে সমন্বয় করতে হয় এবং বুকের দুধ খাওয়ানোর আরও ভাল অভিজ্ঞতা অর্জনে সহায়তা করবে। আরেকটি বিকল্প হল বোতল দিয়ে বুকের দুধ খাওয়ানো।
  • বিকল্প এড়িয়ে চলুন: শিশুরা যদি জল বা প্যাসিফায়ার চুষে নিজেকে সান্ত্বনা দেয়, তবে খাবারের সময় বা সেই সময়ের আশেপাশে এটি এড়াতে পারেন।
  • আপনার পুষ্টি এবং স্বাস্থ্য: আপনার পর্যাপ্ত দুধ উৎপাদন হচ্ছে কিনা তা নিশ্চিত করুন। ভাল খাবার খান এবং সঠিক ঘুম। একটি সাধারণ স্তন পাম্প আপনাকে দেখায় যে আপনার কততা দুধ উত্পাদন হয়। প্রকৃতপক্ষে, গবেষণা ব্যাখ্যা করেছে যে পাম্প মায়ের দুধের বৃদ্ধিকেও উদ্দীপিত করে।
  • অস্বাভাবিক ওজন বৃদ্ধি এড়ানো: আপনার যদি মনে হয় আপনার শিশুর ওজন অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে চলেছে এবং চিকিত্সক পরামর্শ দিয়েছেন যে অতিরিক্ত খাবার গ্রহণ করছে। তার মাথা ঘুরিয়ে দেওয়া বা স্তনবৃন্তকে মুখ থেকে বের করে দেওয়া এবং খাওয়া বন্ধ করার মতো লক্ষণগুলির সন্ধান করুন।

ডাক্তারকে কখন ফোন করবেন

কয়েকটি সাধারণ লক্ষণ রয়েছে যা বিকাশের ভারসাম্যহীনতার ইঙ্গিত দিতে পারে:

  • ঘুমের অভাব
  • দুই সপ্তাহের মধ্যে জন্মের সময় ওজনে ফিরে আসেনি
  • তাকে শান্ত করা কঠিন বলে মনে হয় এবং কান্না থামায় না।

ডাক্তারকে কখন ফোন করবেন

যদি এটি উদ্বেগের কারণ হয়ে থাকে, তবে দয়া করে আপনার স্বাস্থ্যের চেক আপ করাতে নার্সের কাছে যান এবং তাদের সাথে শিশুর খাবারের অভ্যাস ও ঘুমের অভ্যাসের সময়সূচীটি আলোচনা করুন। সম্ভাবনা হল এগুলি শিশুর ধরণ হতে পারে এবং সহজেই আরও ভাল ভারসাম্যের দিকে লালিত করা যায়।

তবে, কখনও কখনও নির্দিষ্ট লক্ষণগুলি আরও বেশি ঝুঁকি নির্দেশ করে। আসন্ন সপ্তাহগুলিতে কোনও অস্বাভাবিক ওজন হ্রাস জন্ডিস (হাইপারবিলিরুবিনেমিয়া) এবং লো ব্লাড সুগার (হাইপোগ্লাইসেমিয়া)-র মতো স্বাস্থ্য-এর সমস্যার দিকে নিয়ে যাবে।

ওজন হ্রাস যদি এর চেয়ে বেশি হয় বা আপনি যদি ওজনে গড় বৃদ্ধি দেখতে না পান তবে আপনি সূচকগুলি দেখতে পাবেন যেমন:

  • দিনে কম ন্যাপিজ ভেজে
  • শুকনো ঠোঁট বা ত্বক
  • ক্রমাগত বিরক্ত
  • আলগা ত্বক
  • তার মাথার নরম অংশটির অস্বাভাবিকতা।

জন্মের ওজন গুরুত্বপূর্ণ হলেও ওজন বৃদ্ধি বা হ্রাস হল বিকাশের সূচক। শিশুরা খুব শীঘ্রই বা পরে সেই গতিতে পৌঁছাবে। যদি কখনও সন্দেহ হয় তবে আপনার শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন, যিনি আপনাকে সাহায্য করবেন বা আপনাকে সব কিছু ঠিক আছে বলে আশ্বাস দেবে।

শিশুর অস্বাভাবিক আচরণের ধরণ সম্পর্কে উদ্বিগ্ন হওয়া বাবা-মায়ের স্বাভাবিক প্রবৃত্তি। ওজন হ্রাস তাদের মধ্যে অন্যতম দুশ্চিন্তা। তবে, দয়া করে মনে রাখবেন শান্ত থাকুন এবং সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর আগে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। সমস্ত কিছু স্বাভাবিক বলে মনে হয় এবং যথাযথ ভারসাম্য বজায় থাকলেও নির্ধারিত কোন অ্যাপয়েন্টমেন্ট মিস করবেন না। অভিভাবকত্বের অভিজ্ঞতা উপভোগ করার সর্বোত্তম উপায় হল শান্ত থাকা, উদ্বিগ্ন না হওয়া এবং সঠিক সময়ে সঠিক জিনিস সম্পর্কে অবহিত করা। শান্ত থাকুন এবং উপভাবকত্ব উপভোগ করার চেয়ে ভাল আর কোন কিছুই নেই!