যমজ অথবা ততোধিক সন্তান সহ গর্ভাবস্থার ষষ্ঠ সপ্তাহ

যমজ অথবা ততোধিক সন্তান সহ গর্ভাবস্থার ষষ্ঠ সপ্তাহ

যমজ সহ ষষ্ঠ সপ্তাহের গর্ভবতী হওয়া দেখে মনে হয় আপনি যেন কোনও নতুন ধরণের মাইলফলক উদ্ঘাটন করেছেন।নিয়মানুযায়ী আপনার এই যাত্রাপথটি শুরু হয়ে গিয়েছে, যদিও কিছু মহিলা আবার এই সময়েই সবেমাত্র অবগত এবং নিশ্চিত হতে পারেন তাদের গর্ভাবস্থা সম্পর্কে।এটি আবার সেই সকল চরম মুহূর্তগুলির মধ্যে একটি হয়ে উঠতে পারে যখন আপনার গর্ভে কেবল একটিই নয়, দুটি অথবা আবার এমনকি তার বেশি সংখ্যক শিশুর অবস্থানের কথাটিও আপনি জানতে পারেন!এই খবরটি একদিকে যেমন আপনাকে পরম আনন্দ দিতে পারে আবার তার পাশাপাশি একসাথে তাদের সকলের যত্ন নেওয়ার ব্যাপারে আপনাকে বেশ চিন্তিতও করে তুলতে পারে।এ ব্যাপারে শান্ত থাকাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং নিজেকে এই বলে আশ্বস্ত করুন যে আপনি কোনওরকম দুশ্চিন্তা ছাড়াই ঠিক তার উপায় বের করে নিতে পারবেন।

aniview

ষষ্ঠ সপ্তাহে শিশুদের বৃদ্ধি

6 সপ্তাহের চিহ্নটি গর্ভাবস্থার সম্পূর্ণ যাত্রাপথে একটি বিশেষ গুরুত্ব রাখে।এটি প্রাথমিকভাবে এই কারণে যে, গর্ভস্থ শিশুদের দেহ এই সময় আরও বেশি মানুষের মত দেখতে লাগার দিকে অগ্রসর হয়।নাক, কান এবং ঠোঁটের আদলের সামাণ্য আভাসের মত মুখাবয়বের বৈশিষ্ট্যগুলি গড়ে উঠতে শুরু করে এই সময়।একটি ভ্রূণের বৃদ্ধিতে সর্বশেষ গড়ে ওঠা একটি অন্যতম অঙ্গাণু হল তার ফুসফুস, তবে এক্ষেত্রে তাদের প্রাথকিক কলাগুলি নিজেরাই সমবেত হয়।অন্ত্রগুলি শিশুর মধ্যে গড়ে উঠতে শুরু করে এবং ক্ষুদ্র অভিক্ষিপ্ত অঙ্গগুলি দেখা দিতে শুরু করে, যা শেষ পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়ে বাহু এবং পায়ে পরিণত হয়।যমজ অথবা ততোধিক সন্তান সহ গর্ভাবস্থার ষষ্ঠ সপ্তাহটি আবার মস্তিষ্কের বাকি অংশের পাশাপাশি পিটুইটারি গ্রন্থির বৃদ্ধিকেও চিহ্নিত করে এবং যার সাথে আবার হাড়ের গঠণ কাঠামো এবং মাংস পেশীগুলিও সম্মিলিত হয়।এই দ্রুত বিকাশ আবার শিশুদের হৃদস্পন্দনের হারের গতিকে তাদের মায়ের গতির প্রায় দ্বিগুণ করে তোলা শুরু করে।

শিশুদের আকার কতটা হয়?

শিশুদের আকার কতটা হয়?

যদিও সকল মূখ্য বিকাশগুলিই এই সময়ে শিশুদের মধ্যে হওয়া শুরু হয়ে যায়, কিন্তু তারা এই সময়ের মধ্যে একটি কড়াইশুঁটির দানার তুলনায় আকারে বড় হয় নাযা দৈর্ঘ্যে মোটামুটি প্রায় আধ সেন্টিমিটার মত হয়ে থাকে।

সাধারণ শারীরিক পরিবর্তনগুলি

আপনার অভ্যন্তরে একটি উপযুক্ত গতিতে শিশুরা ক্রমশ বেড়ে উঠতে এবং বিকশিত হতে শুরু করার কারণে, দেহ সেটি উপলব্ধি করতে শুরু করে এবং তাদের বৃদ্ধি অনুসারে প্রতিক্রিয়া করে।

  • বিভিন্ন ধরণের হরমোনের উত্থানপতন কেবল আপনার মেজাজের দোলাচলেরই কারণ হয়ে উঠবে না, তার ফলে আবার একগুচ্ছ পরিবর্তনও হবে যা শারীরিকভাবে সুস্পষ্ট হয়ে উঠবে।ক্লান্তি, বমি বমি ভাব, ফোলাভাব, খিল ধরা এবং এরকম আরও অনেক অস্বস্তি উপস্থিত হতে পারে।
  • কিছু মায়ের মধ্যে এই পর্যায়ে আবার এমনকি দাগ দেখা দেওয়ারও প্রবণতা থাকে।বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এটি স্বাভাবিক, তবে কিছু সময় এটি আবার এমন এক গর্ভাবস্থাকে চিহ্নিত করতে পারে যা জরায়ুতে ঠিকমত ঘটে নি।যদি এই দাগটি অব্যহত থাকে বা খারাপ হতে থাকে, তবে সেটি আসন্ন গর্ভপাতের সঙ্কেত হতে পারে।
  • আপনার গর্ভে যমজ সন্তান ধারণের দরুণ আপনার প্রাতঃকালীন অসুস্থতার তীব্রতাটি আরও বেড়ে উঠবে।এর কারণ হল hCG (হিউম্যান কোরিওনিক গোনাডোট্রপিন)এর উচ্চ মাত্রার সাথে প্রাতঃকালীন অসুস্থতাটি সম্পর্কিত হওয়া, আর এই মাত্রাটি প্রচণ্ড মাত্রায় বেড়ে যায় সেই সকল গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে যারা গর্ভে যমজ বা ততোধিক সন্তান ধারণ করেন।
  • আপনি আরও বেশি ওজন লাভ করবেনসর্বোপরি আপনি দুজনের বেশি আহার করছেন! এটি স্বাভাবিক কারণ আপনার অভ্যন্তরস্থ জীবনগুলি লালনের জন্য আপনার দেহে অধিক পুষ্টির প্রয়োজন।

যমজ সন্তান গর্ভধারণের ষষ্ঠ সপ্তাহের লক্ষণগুলি

যমজ সন্তান গর্ভধারণের ষষ্ঠ সপ্তাহের লক্ষণগুলি

যদিও বেশিরভাগ মহিলারাই যমজ সন্তান ধারণের ষষ্ঠ সপ্তাহের লক্ষণগুলিকে তীব্র আকারে অনুভব করেন, কিন্তু আপনি যদি সেইভাবে তা অনুভব না করতে পারেন তবে অস্থির হওয়ার কোনও প্রয়োজন নেই।এখানে সেগুলির কিছু দেওয়া হলঃ

  • এই সময়ে বমি বমি ভাবটি আরও খারাপের দিকে যেতে পারে।আপনার দেহের অভ্যন্তরে দ্রুত পরিবর্তনগুলি সাধনের সাথে, সারাদিন ধরে প্রাতঃকালীন অসুস্থতাটি বজায় থাকবে।
  • যমজ সন্তান ধারণ করা গর্ভবতী মহিলারা আবার তাদের পেট ফেঁপে থাকা, ফুলোভাব এবং পেট পরিপূর্ণতা বোধের মত লক্ষণগুলিও অনুভব করেন।
  • বর্ধিত রক্ত সঞ্চালনের কারণে স্তনগুলিতে কিছুটা টানের সৃষ্টি হবে যাতে আপনার ব্যথা অনুভূত হবে।আঁটসাঁট বা অনুপোযুক্ত পোশাক পরিধানে সেখানে অস্বস্তি বোধ হবে এবং আপনার পক্ষে তা কষ্টকর হয়ে উঠবে।
  • শরীরের মধ্যে hCG হরমোন যথেষ্ট পরিমাণে বৃদ্ধি পেতে শুরু করবে, পরিণামস্বরূপ যা আপনার মুত্রেশয়ের উপর চাপ বৃদ্ধি করবে এবং বারংবার প্রস্রাব পাওয়ার মত অনুভূত হবে।এই পর্যায়ে পর্যাপ্ত পরিমাণে জল এবং তন্তু জাতীয় খাদ্য গ্রহণ না করা মহিলাদের কোষ্ঠকাঠণ্যে ভুগে থাকার প্রবল সম্ভাবনা থাকে।
  • এই সকল পরিবর্তনগুলির সাথে গর্ভে ক্রম বর্ধিত একাধিক শিশুর ভার যুক্ত হয়ে একত্রে আপনাকে ভীষণ মাত্রায় পরিশ্রান্ত করে তুলতে পারে এমনকি খুব সাধারণ সহজ একটি কাজ সম্পাদনের পরেও।

যমজ সন্তানের গর্ভাবস্থার ষষ্ঠ সপ্তাহেপেট

গর্ভাবস্থার ষষ্ঠ সপ্তাহে, আপনার গর্ভকালীন পেটটি খুব বেশি প্রকট নাও হয়ে উঠতে পারে।পেটটি খুব বেশি দৃশ্যমান হয়ে ওঠার ক্ষেত্রে এটি এখনও তার একদম প্রাথমিক পর্যায়েই থাকেসর্বোপরি, আপনার অভ্যন্তরস্থ শিশু এখনও যে ক্ষুদ্র মটরশুঁটির আকারের সমানই হয়ে থাকে।

যমজ সন্তানের গর্ভাবস্থার ষষ্ঠ সপ্তাহআল্ট্রাসাউন্ড

যে সকল মায়েরা একাধিক সন্তান সহ গর্ভধারণ করেছেন কিনা সে ব্যাপারে এখনও নিশ্চিত হয়ে উঠতে পারেন নি, 6 সপ্তাহের লক্ষ্য চিহ্নটি তাদের ক্ষেত্রে এর চূড়ান্ত উত্তরটি এনে দেওয়ার ব্যাপারে বেশ ফলপ্রসূ হয়ে উঠতে পারে।যদিও গর্ভধারণের ক্ষেত্রে একাধিক থলির উপস্থিতি গর্ভাবস্থার চতুর্থ সপ্তাহের মধ্যেই প্রতিষ্ঠিত হয়ে যেতে পারে, তবে বেশিরভাগ মহিলারাই এটি ভালো ভাবে দেখতে পেতে পারেন তাদের গর্ভাবস্থা 6 সপ্তাহ সম্পূর্ণ করার পর।এছাড়াও আবার এই সময়টি গর্ভস্থ শিশুদের বৃদ্ধি, আয়তন এবং এ ধরণের আরও কিছু সম্পর্কে আরও তথ্য আহরণে সহায়তা করে।এই পর্যায়ে শিশুদের হৃদস্পন্দনের হার সাধারণত হয়ে থাকে প্রতি মিনিটে 90-110 স্পন্দন,যদিও অনেক শিশুরই হৃদযন্ত্রটি এই পর্যায়ে সম্পূর্ণ রূপে গড়ে ওঠে না।স্ক্যান করার দ্বারা এই পর্যায়ে আপনার গর্ভস্ত শিশুগুলিকে দুটি বড় বিন্দুর মত দেখাতে পারে কিন্তু একজন অন্তঃসত্ত্বা মায়ের কাছে তার নিজ সন্তানের প্রথম দর্শনটি একটি অভূতপূর্ব আনন্দদায়ক মুহূর্ত হয়ে উঠতে পারে।

কি কি খেতে হবে

কি কি খেতে হবে

যমজ অথবা ততধিক সন্তান সহ গর্ভবতী মহিলাদের কাছে একটি অন্যতম বৃহৎ আশ্চর্য হল তাদের ক্ষুধার হঠাৎ পরিবর্তন এবং এর ফলে দেখা দেওয়া তাদের তীব্র ক্ষুধা যন্ত্রণা।নিগূঢ় বিকাশ চক্রে সমর্থনের জন্য যে পরিমাণ পুষ্টি গর্ভস্থ শিশুগুলি তাদের মায়ের দেহ থেকে গ্রহণ করে সম্ভবত সেই কারণের জন্যই মা সারাদিন ব্যপী তীব্র ক্ষুধার্থ বোধ করেন।স্বাস্থ্যকর খাবারগুলির দ্বারা আপনার ডায়েটকে সমর্থন করা এবং সেগুলি ভাল পরিমাণে গ্রহণ করা অপরিহার্য তবে মাত্রাতিরিক্ত না খেয়ে ফেলাও এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ।

উপরন্তু, গর্ভস্থ শিশুদের বৃদ্ধি এবং তাদের জন্য জায়গা তৈরীর সাথে জরায়ুটির প্রসারণ পাকস্থলীর উপরও প্রভাব ফেলতে পারে যা অ্যাসিডিটি, গ্যাস অম্বল, হৃদয় জ্বলনের প্রকোপকে বাড়িয়ে তুলতে পারে।আর তা কোষ্ঠকাঠিন্যের সাথে যুক্ত হয়ে এটি গর্ভবতী মহিলার পক্ষে প্রকৃতই বিরক্তিকর করে তুলতে পারে। সারাদিন ধরে পর্যাপ্ত তরল গ্রহণ এবং তন্তুযুক্ত ফল ও খাদ্যগুলি সেবন করলে তা এটিকে নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রাখতে সহায়তা করে।

গর্ভাবস্থার যত্ন নেওয়ার পরামর্শ বা টিপস

একবার আপনি গর্ভবতী হয়ে উঠলে আপনার দেহে হয়ে চলা একগুচ্ছ পরিবর্তনগুলির যত্ন নেওয়াকেই আপনার অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত।এক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি টিপস মাথায় রাখলে তা দীর্ঘ পরিসরে আপনার পক্ষে সহায়ক হয়ে উঠতে পারে।

করণীয়

  • আপনি যদি ইতিমধ্যে কিছু না করিয়ে থাকেন তবে আপনার প্রসবপূর্ব প্রথম চেকআপের জন্য যান।আপনার গর্ভাবস্থায় কোনওরকম প্রতিবন্ধকতার আঘাত না হানা এবং কোনওরকম জটিলতা না আসার ব্যাপারটিকে নিশ্চিত করার জন্য নানাবিধ পরীক্ষা নিরীক্ষা আপনার ডাক্তারবাবুর দ্বারা পরিচালনা করার এই পর্যায়টিই হল উপযুক্ত সময়।
  • আপনার শারীরিক সঞ্চালন দক্ষতা একটা ভাল মাত্রায় বজায় রাখতে সহায়তার জন্য হালকা কিছু যোগব্যায়াম অনুশীলনের সাথে যুক্ত থাকুন।চেষ্টা করুন আহার গ্রহণের পর সেগুলি করার, কারণ এটি গ্যাস অম্বল হওয়ার সম্ভাবনা হ্রাস করবে এবং এমনকি পাচন প্রক্রিয়াকে উদ্দীপ্ত করতেও সহায়তা করবে।
  • একবারে বেশি করে আহার করার নির্ধারিত 3 টি সময় অনুসরণ করার পরিবর্তে সেগুলিকে ভেঙ্গে ভাগ করে নিন বারে বারে কিন্তু অল্প পরিমাণে আহার গ্রহণের মধ্যে।আহার গ্রহণের সংখ্যাটা বাড়ানোর ফলে তা আপনার ক্ষিধে পাওয়ার প্রকোপটিকে নিয়ন্ত্রণে রাখবে এবং প্রতিবারে খাবারের পরিমাণটি কমানোর ফলে তা আপনার মধ্যে অ্যাসিডিটি বা অম্লতা এবং পেট ফাঁপা বা পূর্ণতা বোধের সম্ভাবনাটি হ্রাস করবে।

করণীয় নয়

  • আপনার ভিতরে বেড়ে ওঠা ছোট্টগুলির শত্রু হল মানসিক চাপ এবং উদ্বেগ। এরকম অনুভব করাটা আপনার পক্ষে স্বাভাবিক এবং জৈবিক কারণ আপনার হরমোনের মাত্রাগুলি সব জায়গায় পরিবর্তিত হওয়ার ফলে এই সকল পরিবর্তনগুলি আপনার মধ্যে দেখা দেয়।নিজেকে শান্ত এবং প্রশমিত রাখার জন্য ধ্যান, যোগব্যায়াম অনুশীলন, ভালো সঙ্গীত শোনা এবং এ ধরণের আরও অন্যান্য যেকোনও পন্থা অবলম্বন করুন।
  • পুষ্টির যে কোনও পরিপূরক বা প্রসবপূর্ব ভিটামিনের ব্যবহার বিলম্ব করলে তা শিশুর বৃদ্ধি এবং বিকাশের ক্ষেত্রে বিপর্যয়ের কারণ হয়ে উঠতে পারে।বিভিন্ন উপাদান যেমন ফলিক অ্যাসিড এবং ভিটামিনগুলি বিশেষ করে এই পর্যায়ে অপরিহার্য এবং অত্যন্ত প্রয়োজনীয় কারণ শিশুদের স্নায়ুবিক বিকাশ এই সময়ে শীর্ষ পর্যায়ে থাকে।এই পর্যায়ে কোনওরকম পুষ্টির ঘাটতির ফলে কোনও শিশু বিকাশজনিত ব্যাধি বা গুরুতর জন্মগত ত্রুটি সহ জন্মগ্রহণ করতে পারে।

আপনার কি কি কেনাকাটি করার প্রয়োজন পড়বে

আপনার দেহ এবং পেটের ক্রমবর্ধিত আকারের জন্য আপনার বড়সড় আরামদায়ক পোশাক পরিচ্ছদগুলি কেনাকাটা করার প্রয়োজন যেগুলি কোনও অনুষ্ঠান কিম্বা ফাংশানে পরা যেতে পারে।বাজারে উপলভ্য ব্যাপক সম্ভারের মাতৃত্বকালীন পোশাকগুলির দ্বারা ফ্যাশন এবং স্বাচ্ছন্দ্যের মধ্যে একটি ভারসাম্য বজায় রাখা সহজেই সম্ভবপর হয়ে ওঠে।

আপনার স্তনের আকার এই সময় ক্রমশ বেড়ে উঠতে শুরু করবে এবং আগের তুলনায় আরও বেশি ফুলে উঠবে, পূর্ণ এবং কোমল হয়ে উঠবে।সুতরাং আপনার স্তনগুলিকে ভালভাবে সমর্থন করতে একটি ভাল মানের ব্রা কেনার জন্য বিনিয়োগ করা এক্ষেত্রে একটা ভাল ধারণা হয়ে ওঠে।যখন হাঁটতে বেরোবেন, তখন কোনওরকম অহেতুক প্রখর ঝাঁকুনিগুলি এড়াতে যথাযথ গ্রিপ যুক্ত এবং নরম সোলের একটি জুতো ব্যবহার করুন।

গর্ভাবস্থার ষষ্ঠ সপ্তাহে একটি আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যান পরিচালনা করার দ্বারা যমজ সন্তানের দর্শন লাভ অধিকাংশ দম্পতির কাছেই প্রথমবার মাবাবা হওয়ার মত একটি আনান্দানুভূতি নিয়ে আসে।সেই ক্ষুদ্র মটরশুঁটির দানার মত কোনওমতে এক সেন্টিমিটার আকারের ভ্রূণদ্বয় দেখতে দেখতে কিছু সময়ের মধ্যেই শীঘ্রই বেড়ে পূর্ণ বিকশিত শিশুতে পরিণত হয়ে উঠবে।পরিবারের প্রত্যেকের দ্বারাই তাদের বিকাশ এবং সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে এইভাবে, যেন মা তার নিজের জন্য শান্ত এবং নিরাপদ স্থানে খুঁজে নিতে পারেন,আর একটি স্বাস্থ্যকর ডায়েট এবং পরিবারের সকলের থেকে ভালবাসা ও পূর্ণ সমর্থন যেন তিনি পান।