10 টি কার্যকর ঘরোয়া প্রতিকার শিশুর কানে সংক্রমণের চিকিৎসার জন্য

10 টি কার্যকর ঘরোয়া প্রতিকার শিশুর কানে সংক্রমণের চিকিৎসার জন্য

শিশুরা তাদের চারপাশের প্রতি অত্যন্ত সূক্ষ্ম এবং সংবেদনশীল হয়ে থাকে এবং এইভাবেই,তারা আরও সহজেই তাদের চারপাশের রোগ এবং সংক্রমণগুলির ঝুঁকির মধ্যে পড়ে।কানে সংক্রমণ হল এই ধরনেরই একটি সংক্রমণ যা শিশুদের মধ্যে প্রচলিত এবং সাধারণত ঠাণ্ডা লেগে অথবা অন্য কোনও ENT জনিত সমস্যার কারণে হয়ে থাকে বলে জ্ঞাত।

aniview

কান সংক্রমণের প্রাথমিক কারণ হল ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া।কান সর্বক্ষণ তরল প্রস্তুত করে,আর এই তরল কর্নপটহ বা কানের পর্দার পিছনের অংশে গঠিত হয় এবং সংক্রামিত হয়।এটি সেখানে জমা হতে শুরু করে যেখানে ব্যাকটেরিয়ার জন্ম হয়।এই ব্যাকটেরিয়াগুলিই কানের মধ্য অঞ্চলে প্রদাহ সৃষ্টি করে।

শিশুদের কানে সংক্রমণের জন্য অন্যান্য আরও অনেক কারণ আছে,যেমন-

  • ইউস্টাচিয়ান টিউবের অনুভূমিক কোণযুক্ত স্থান নির্ধারণ, যেহেতু এটি এখনও একটি বিকাশের পর্যায়ে থাকে।
  • বিভিন্ন ধরনের খাদ্য অ্যালার্জি
  • অন্ত্রে সংক্রমণ
  • মাথা এবং ঘাড় অংশ ভুলভাবে রাখা

ছোট শিশুদের কান সংক্রমণের 10 টি সেরা প্রাকৃতিক প্রতিকার

নিম্নলিখিতগুলি শিশুদের জন্য কান সংক্রমণের কিছু প্রাকৃতিক প্রতিকার যেগুলি আপনি ডাক্তার দেখানো ছাড়াই ব্যবহার করতে পারেন।

1. রসুন/মুল্লিন ড্রপ

ব্যাকটেরিয়া হত্যায় অ্যান্টিবায়োটিকগুলির তুলনায় রসুন অত্যন্ত কার্যকর বলে প্রমাণিত, এবং রসুন যখন আবার মুল্লিনের সহিত একত্রিত হয়,এটি শিশুদের কানে যন্ত্রণার সবচেয়ে সেরা ঘরোয়া প্রতিকার রূপে গড়ে ওঠে।রসুন তার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সরবরাহের সামর্থ্যের জন্য এবং মুল্লিন তার যন্ত্রণা লাঘব করার ক্ষমতার জন্য পরিচিত।আপনার সন্তানের কানে 2-3 ফোঁটা রসুন এবন মুল্লিন তেল প্রতিস্থাপন করুন এবং আরও ভাল উপশমের জন্য এটিকে দিনে 3 বার পুনরাবৃত্তি করুন।

2. তরল

শিশুদের কানে সংক্রমণের চিকিৎসায় তরলও সাহায্য করে থাকে।আপনার বাচ্চা যদি এখনও স্তনদুধ পানের পর্যায়ে অবস্থান করে,তবে স্বাভাবিকের তুলনায় আরও ঘন ঘন স্তন পান করানো পরিচালনা করুন,কারণ বুকের দুধে উপস্থিত অ্যান্টিবডিগুলি কানের সংক্রমণ থেকে আপনার সন্তানকে রক্ষা করতে পারে।

3. উষ্ণ কমপ্রেস

কানের বাহিরাংশের উপর উষ্ণ কমপ্রেস কান সংক্রমণের কারণে হয়ে থাকা কান যন্ত্রণার উপশমে সাহায্য করতে পারে।শিশুদের কানে ব্যথা দূর করতে একটা গরম জলের বোতল,একটা হিটিং প্যাড অথবা এমনকি একটি কাপড়কে গরম জলের মধ্যে ডুবিয়ে নিয়ে সেটিকে ধীরে ধীরে তার কানের বাইরের অংশের উপর প্রয়োগ করা যেতে পারে।যেহেতু বাচ্চাদের ত্বক সংবেদনশীল হয়ে থাকে,সেই কারণে তাদের কানের উপরে প্রয়োগের আগে জল অথবা প্যাকের তাপমাত্রার ব্যাপারে যন্তশীল হওয়া প্রয়োজন।

উষ্ণ কমপ্রেস

4. হাইড্রোজেন পারক্সাইড

উষ্ণ জল এবং হাইড্রোজেন পারক্সাইড সম পরিমাণে নিয়ে ভাল ভাবে মিশ্রিত করুন।এবার তার থেকে 2-3 ফোঁটা আপনার সন্তানের কানে দিয়ে সেটিকে 15 সেকেণ্ডের জন্য রেখে দিন।এরপর আপনার ছোট্টটির মাথাটিকে কাৎ করে দিন তরলটি বেরিয়ে আসতে সাহায্যের জন্য।উত্তম ফল লাভের জন্য দৈনিক ভিত্তিতে এই প্রক্রিয়াটির দু’বার পুনরাবৃত্তি করুন।

5. মালিশ

শিশুর কান থেকে তরল নিষ্কাশনের এবং স্বাভাবিক সঞ্চালনা নিশ্চয়তার জন্য আরেকটি সহজ এবং সুবিধাজনক বিকল্প হল মালিশ। আপনার তত্ত্বাবধানে থাকা ছোট্টটির কানের বহিরাঞ্চলে অথবা তাদের ঘাড়ে নিম্নগামী অভিমুখে ধীরে ধীরে মালিশ করুন এবং ঐ অঞ্চলের পিছন দিক থেকে তাদের গালের সামনের অংশের দিকে অন্তর্মুখী চাপ প্রয়োগ করুন। রোজমেরি, ল্যাভেন্ডার, চা গাছ অথবা এমনকি ইউক্যালিপটাস তেলের মতো উপযোগী তেল ব্যবহার করে দিনে কমপক্ষে দু’বার করে মালিশের পুনরাবৃত্তি করুন।

6. বেকিং সোডা দিয়ে ধোওয়া

বেকিং সোডা দিয়ে আপনার বাচ্চার কান ধুয়ে দেওয়া প্রভাবশালী কান সংক্রমণের চিকিৎসা করতে পারে।জলের মধ্যে কয়েক ফোঁটা বেকিং সোডা মিশিয়ে নিন এবং একটি সিরিঞ্জের সাহায্যে বাচ্চার কর্নপৃষ্ঠের উপর এই তরলটি সামাণ্য স্প্রে করে দিন।বেকিং সোডা দিয়ে এভাবে ধুয়ে নেওয়ার পরে রসুন অথবা ল্যাভেন্ডার তেলের মত কিছু অপরিহার্য তেলের কয়েক ফোঁটা কানের মধ্যে দিয়ে দিন।

7. ইচিন্যাসিয়া এবং গোল্ডেন্সিল

ইচিন্যাসিয়া এবং গোল্ডেন্সিল হল দুটি ভেষজ যা কানের সংক্রমণ প্রতিরোধে দুর্দান্তভাবে সহায়তা করে।কান সংক্রমণের চিকিৎসার জন্য এবং অনাক্রম্যতা গড়ে তুলতে দিনে অন্তত 3 বার 2 মিলি করে এই ভেষজগুলির মিশ্রণের ব্যবহার শিশুদের জন্য সুপারিশ করা হয়।এই দুটি ভেষজ ব্যাকটেরিয়াজনিত সংক্রমণগুলির বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে।

8. সংক্রামিত কান ধুতে ক্যামোমাইল তেল

শিশুদের কান সংক্রমণের চিকিৎসার জন্য ক্যামোমাইল তেল হল একটি ভাল বিকল্প।একটি ড্রপারের সাহায্যে 2-3 ফোঁটা ক্যামোমাইল তেল বাচ্চার কানের মধ্যে দিন এবং এটিকে 5-10 মিনিটের জন্য স্থির হতে দিন।এরপর বাচ্চার মাথাটিকে কাৎ করে কানের ভিতরের তেলটিকে বেরিয়ে যেতে দিন।

সংক্রামিত কান ধুতে ক্যামোমাইল তেল

9. পিঁয়াজ এবং রসুন

পিঁয়াজে আছে ব্যাকটেরিয়া বিরোধী বৈশিষ্ট্যগুলি এছাড়াও বলা হয় এটি আবার একটি যন্ত্রণা উপশমকারীও বটে এবং এমনকি সঞ্চালন উন্নত করে।পিঁয়াজকে ঝিরিঝিরি করে কেটে নিয়ে সেটিকে মাইক্রোওভেনের মধ্যে দিয়ে গরম ও নরম করে নিন।পিঁয়াজটি গরম হয়ে গেলেই সেটিকে একটি কাপড়ের মধ্যে জড়িয়ে নিন এবং ধীরে ধীরে বাচ্চার কানের উপরে প্রতিস্থাপিত করুন 10-15 মিনিটের জন্য।প্রক্রিয়াটির পুনরাবৃত্তি করুন, এবং যদি ব্যথাটা যাচ্ছে না বলে মনে হয়,তবে ভাল স্বস্তির জন্য একটি ড্রপারের সাহায্যে 2-3 ফোঁটা রসুন তেল বাচ্চার কানের ভিতরে দিন।

10. ওটিটিস এক্সটার্না

জলের সহিত কানের যোগাযোগের কারণে ওটিটিস এক্সটার্না বা কর্ণ গহ্বরের প্রদাহ হয়ে থাকে।এই সংক্রমণটি আবার সাঁতারুর কান হিসেবেও পরিচিত এবং এটি সাধারণত হয়ে থাকে কর্ণ গহ্বরের মধ্যে অতিরিক্ত আদ্রতার উপস্থিতির কারণে।হাইড্রোজেন পারক্সাইড অথবা লঘু অ্যালকোহল দিয়ে শিশুর কান ভালভাবে ধুয়ে দেওয়ার মাধ্যমে এটির চিকিৎসা করা যেতে পারে।

শিশুদের কানের সংক্রমণের জন্য তালিকাবদ্ধ ঘরোয়া প্রতিকারগুলি তাকে সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে এবং প্রচুর মাত্রায় স্বস্তি আনতে সহায়তা করবে।যদি সমস্যাটি অব্যাহত থেকে যায় তবে আরও চিকিৎসা সহায়তার জন্য ডাক্তারের সাথে আলোচনা করার বিষয়টিকে অবশ্যই বিবেচনা করুন।