যমজ অথবা ততোধিক সন্তান সহ 35 সপ্তাহের গর্ভবতী

যমজ অথবা ততোধিক সন্তান সহ 35 সপ্তাহের গর্ভবতী

আপনি গর্ভে যমজ সন্তানের সাথে 35 সপ্তাহের গর্ভবতী হয়ে ওঠা মানে আপনার গর্ভদশার প্রান্তিক রেখাটিও আপনার খুব কাছাকাছিই এসে পড়ে।এই অত্যাশ্চার্যজনক যাত্রা পথটি অবশেষে তার সমাপ্তির পথে এসে উপনীত হয় আর খুব শীঘ্রই আপনি মাতৃত্বের যাত্রাপথে প্রবেশ করবেন।পরিসংখ্যান অনুযায়ী যমজ কিম্বা ততোধিক সন্তান সহ অসংখ্য গর্ভবতী মহিলাকেই এই সপ্তাহে সফলতার সাথে প্রসব করতে দেখা গেছে।এটি আপনার গর্ভে সংঘটিত ক্ষুদ্রতম লক্ষণগুলির বিষয়ে আপনি সতর্ক থেকেও আপনার অনুভূতিগুলিকে উচ্চ মাত্রায় রাখতে পারেন।উচ্চ সংবেদনশীল মায়েরা আবার তাদের গর্ভস্থ শিশুদের হালকা পদাঘাত, সামাণ্যতম যন্ত্রণা বা ভীষণই সামান্য ক্র্যাম্প বা খিঁচ লাগার মত ব্যাপারগুলিতেও নিজেদের উত্তেজিত হয়ে উঠতে লক্ষ্য করে থাকতে পারেন, যা তাদের মনে সেই মুহূর্তেই তাদের সন্তানদের বেরিয়ে আসার মত অনুভূতি গড়ে তোলে।অভ্যন্তরে তাদের বৃদ্ধি এখনও অব্যহত থাকে, তবে হ্যাঁ, তারা এখন যেকোনও দিনই বেরিয়ে আসতে পারে।    35 তম সপ্তাহে শিশুদের বৃদ্ধি  এটি হতে পারে আপনার গর্ভদশার 35 তম সপ্তাহ এবং এই সময় আপনার শিশুদের জন্মনালীর দিকে তাদের চলাচলগুলি শুরু করার জন্য প্রস্তুত হয়ে ওঠার প্রত্যাশা আপনি করতে পারেন।হ্যাঁ, এখন আপনি তাদের আগমনের আশা করতে পারেন,কিন্তু তার মানে এই নয় যে, তারা পুরোপুরি এর জন্য প্রস্তুত, আপনার বাচ্চারা এখনও বেড়ে চলে, যদিও তা খুব বেশি নয়, কিন্তু তাদের প্রস্তুত হতে দিন। যদি আপনি যমজ কিম্বা সন্তান ত্রয়ীকে পেতে চলেন যারা অভিন্ন বলে বিবেচিত, তারা প্রায় অবিকল হয়ে থাকে যেখানে তাদের চেহারা একে অপরের সাথে মিলতে শুরু করবে।এই পর্যায়ে সংঘটিত যেকোনও প্রসবের ক্ষেত্রে তা এই মুহূর্তেই আপনার কাছে স্পষ্ট নাও হয়ে উঠতে পারে যে তারা একে অপরের অভিন্ন বা একদমই অনুরূপ। তাদের কয়েক সপ্তাহ সময় দিন এবং তাদের অভিন্ন প্রকৃতি অদ্ভুত বলে মনে হতে শুরু করবে। এই পর্যায়ে শিশুদের যে অগ্রগতি হয়ে চলে তা মূলত তাদের চলাচল এবং অবস্থানের দিকে।এই মুহূর্তে আর যেকোনও ধরণের বৃদ্ধির তুলনায় এটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ কারণ জন্ম নালী থেকে তাদের যথাযথ বহির্গমনটিই এগিয়ে চলার পথে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য পেয়ে থাকে।আর এক্ষেত্রে সবচেয়ে আদর্শগত অবস্থানটি হবে যখন বাচ্চাদের মাথাগুলি থাকবে নিম্নাভিমুখী এবং তাদের পাগুলি আপনার মাথা বরাবর।এই অবস্থানে আসতে কিছু বাচ্চা আবার তাদের নিজেদের মত সময় নিয়ে থাকতে পারে আর যমজ শিশুদের সেটি করানোতে উৎসাহিত করতে মায়েদের কিছু ছোট খাটো প্রচেষ্টা করা প্রয়োজন।বিভিন্ন ব্যায়ামগুলি যেমন নিতম্বগুলিকে চারপাশে সঞ্চালনা করা,একটি ব্যায়াম করার বলের উপর হালকা বাউন্স করা বা দোলা দেওয়াগুলি অপর অনেকগুলির মধ্যেই এটিকে ভালভাবে কার্যকরী করে তুলতে পারে। যদিও আপনার বাচ্চাদের ওজন আরও বাড়া উচিত এবং বৃদ্ধি পেয়ে এমন এক উচ্চতায় পৌঁছানো উচিত যা চিকিৎসাগত পরিভাষায় পূর্ণ বিকশিত শিশু হিসেবে অভিহিত,তারা সাধারণত কোনও চিকিৎসা সহায়তা ছাড়াই বেঁচে থাকার জন্য একটা বেশ ভাল অবস্থানে থাকে,আপনি তাদের এই সপ্তাহেই জন্ম দিতে পারেন।তারা আপনার মতই একই ঘরে থাকতে পারে এবং কোনওরকম সাহায্য ছাড়াই সহজে শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে সক্ষম হয়।তা সত্ত্বেও, ডাক্তার এবং নার্সরা বারে বারে আপনার বাচ্চাদের পর্যবেক্ষণ করবেন,গর্ভের বাইরে তাদের বৃদ্ধির একটি ট্র্যাক বা পরিমাপ রাখার জন্য।আর সেই কারণেই ডাক্তাররা মায়ের গর্ভের ভিতরে শিশুদের আরও এক সপ্তাহ কাটানোর পক্ষপাতিত্ব করেন তাদের যথাযথ উচ্চতা এবং ওজন লাভের সঠিক মানে পৌঁছানো না পর্যন্ত।

aniview

শিশুদের আকার কি রকম হবে?

গর্ভদশার 35 সপ্তাহের মধ্যে, আপনার যমজ কিম্বা সন্তান ত্রয়ীর আকার হয়ে উঠবে একটি মাঝারি মাপের তরমুজের ন্যায়।তাদের ওজন এবং উচ্চতা বৃদ্ধি অব্যহত থাকবে এবং তা তাদের গর্ভের বাইরে বহির্বিশ্বে বেঁচে থাকার সম্ভাবনাকে যথেষ্ট বাড়িয়ে তুলবে।আপনি যদি আপনার বাচ্চাদের মাথা থেকে পায়ের পাতা পর্যন্ত পরিমাপ করে থাকেন, এখনের মধ্যে তারা দৈর্ঘ্যে বেড়ে দাঁড়াবে মোটামুটি প্রায় 43-45 সেন্টিমিটার মত দীর্ঘ।অনুরূপভাবে আবার তাদের ওজনও একটি বৃহৎ মানেতে পৌঁছায়,যা মোটামুটি 2.2-2.5 কিলোগ্রামের মধ্যে যেকোনও জায়গায় থাকতে পারে।

সাধারণ শারীরিক পরিবর্তনগুলি

আপনার গর্ভাবস্থার এই সপ্তাহে আপনার দেহে অনুভব করা পরিবর্তনগুলির অধিকাংশই হল একটি গর্ভদশার কেবল দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব যা অতিক্রান্ত সপ্তাহগুলির মধ্য দিয়ে ভারী হয়ে উঠেছে এবং এর পরিণতি হিসেবে আপনার শরীরের উপর বেশ ভালই একটি শুল্ক চেপে বসে।

  • এখন আপনার পেটটি আকারে ভীষণ বড় হয়ে উঠবে।তার উপর আবার, এর ভিতরে থাকা বেড়ে ওঠা আকারে বৃহৎ যমজ কিম্বা সন্তান ত্রয়ীর ওজনের সাথে এর নিজের ওজনটিও হিসেব করা প্রয়োজন।শুরু থেকেই এই প্রচুর বোঝার চাপ আপনার পা দুটিকে সমগ্র যাত্রাপথ জুড়েই বহন করে চলতে হয়।কখনও কখনও আবার এই অতিরিক্ত চাপটি মাত্রাতিরিক্ত হয়ে উঠতে পারে, যা পায়ের পাতায় রক্তবাহী শিরা এবং স্নায়ুগুলির উপর অতিরিক্ত চাপ দিতে শুরু করে।এই শিরাগুলি আঘাত পেতে শুরু করতে পারে এবং ত্বকের আরও কাছাকাছি ফুটে উঠতেও পারে, যা আপনার সারা পা জুড়েই গাঢ় নীলচে শিরা হিসেবে দেখা যায়।ভেরিকোজ শিরা হিসেবে অভিহিত এগুলি বহু গর্ভবতী মহিলাদেরই করে থাকা একটি সাধারণ অভিযোগ, বিশেষ করে সেই সকল মহিলাদের যারা তাদের গর্ভে যমজ কিম্বা ততোধিক সন্তান ধারণ করে থাকেন।আপনার পায়ের পাতাগুলিকে কিছুটা বিশ্রাম দেওয়া এবং সেগুলিকে উঁচু করে রাখা এই অবস্থাটি হ্রাস করতে সহায়তা করতে পারে।
  • আপনার শিশুরা এখন অবশ্যই প্রসবের জন্য প্রস্তুত, কিন্তু তার মানে এই নয় যে আপনার গর্ভের ভিতরে তাদের বাঁচিয়ে রাখার বিভিন্ন প্রক্রিয়াগুলি হ্রাস পাওয়া শুরু হয়ে যায়।এর বিপরীতে, তারা আবার এই সময়ে তাদের সক্রিয়তার চূড়ান্ত পর্যায়ে থাকে, যা এইসকল চূড়ান্ত পর্যায়গুলিতে আপনার বাচ্চাদের প্রয়োজনীয় সকল প্রকার সাহায্য পাওয়াকে নিশ্চিত করে।রক্ত সঞ্চালন এবং জরায়ুতে পাম্প হওয়া ভীষণ মাত্রায় বেড়ে যায় যা কার্যকরভাবে শিশুদের পূর্ণ বিকাশে সাহায্য করে থাকে।রক্তের একটা বড় অংশ আবারও আপনার মাড়িতে ফিরে আসে যার ফলে মাড়ি থেকে আবার রক্ত পড়া শুরু হয়।এই সময় যথাযথ দাঁতের স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখা নিশ্চিত করা প্রয়োজন।তাছাড়াও আবার আপনার ডায়েটে ভিটামন c সমৃদ্ধ খাদ্যগুলিকেও অন্তর্ভূক্ত করা উচিত।
  • এটি জানা উচিত যে আপনি এখন যে শিশুদের বহন করে চলেছেন তারা প্রত্যেকেই মোটামুটি প্রায় 2 কিলোগ্রাম করে হয়ে থাকে এবং এর পাশাপাশি আবার আপনার জরায়ু এবং অমরার ওজনও যুক্ত হয়, যার সবটাই হয় আপনার দেহের একটি ক্ষুদ্র অংশের মধ্যে।ভারকেন্দ্রটি এক বিশাল পরিমাণে পরিবর্তিত হয় যা বেশ সহজেই আপনার চলাফেরায় প্রভাব ফেলে।এর ফলে এমন সময় আসতে পারে যখন আপনি নিজের পদক্ষেপগুলি সঠিকভাবে ফেলতেও ব্যর্থ হন যেহেতু আপনার বৃহৎ পেটটি আপনার পা থেকে আপনার দৃষ্টির রেখায় অন্তরায় হয়ে উঠতে পারে।জিনিসপত্রগুলি এলোপাথারিভাবে আপনার হাত থেকে পড়ে যেতে থাকা, টেবিল কিম্বা দরজায় দুর্ঘটনাক্রমে আঘাত লেগে যাওয়া এখন প্রায়ই হয়ে থাকা ঘটনা হয়ে উঠতে পারে।এই সময় পর্বে নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে অতিরিক্ত সাবধানতা এবং যত্ন নেওয়া অবশ্যই প্রয়োজন।

35 সপ্তাহে যমজ সন্তান গর্ভধারণের লক্ষণগুলি

আপনার জ্ঞাত গর্ভাবস্থার সকল পূর্ববর্তী লক্ষণগুলিকে গ্রহণ করুন, আর তার সাথে সেগুলির প্রবলতা গুণ করুন, এবার যেটি দাঁড়ায় সেটিই হল যমজ কিম্বা ততোধিক সন্তানের সাথে আপনার গর্ভদশার 35 তম সপ্তাহে আপনি যে অভিজ্ঞতা লাভ করবেন তার একেবারে অবিকল।

  • আপনার হেলেদুলে চলার হংস গমন প্রকৃতিটি এবং নিজেকে অপটুভাবে নড়াচড়া করতে দেখার প্রবণতাটি আপনার মধ্যে এক ভাবে থাকার এবং শান্তাবস্থায় বিশ্রাম নেওয়ার মত বোধ জাগিয়ে তুলবে।এটি সত্যি যতটা উপকারী তার মধ্যে আবার কিছু বিরল মুহূর্তও থাকবে।বাকি সময়ের জন্য আপনার অনবরত টয়লেটে যাওয়ার প্রয়োজনীয়তা বোধ হবে।বৃহৎ জরায়ুটি থেকে আপনার মুত্রাশয়ের উপর প্রচুর চাপ পরবে।আপনার মুত্রাশয়ে খুব সামাণ্য পরিমাণে মুত্র সঞ্চিত হওয়ার ক্ষেত্রেও আপনার ঘন ঘন শৌচালয়ে যাওয়ার মত অনুভূতি গড়ে উঠবে।
  • এই সময়ের আশেপাশে আপনার সঙ্কোচনগুলি বেশ সহজেই দেখা দেওয়া শুরু হবে।পুনরায় এটি জানা প্রয়োজন হয়ে পড়বে যে এই সঙ্কোচনগুলি ব্র্যাক্সটন হিক্সের সঙ্কোচনেরই কিছু কিনা, নাকি আপনার প্রসবের প্রকৃত সঙ্কোচনের সঙ্কেত।আপনার শরীরটি প্রসব পদ্ধতিটি অনুশীলনের পাশাপাশি আসল বিষয়গুলির জন্য নিজেকে প্রস্তুত করার খুব কাছাকাছি পর্যায়ে এসে উপস্থিত হয়।অতএব, সঙ্কচনগুলির তীব্রতাটি প্রকৃতিতে একইরকম হতে পারে।এক্ষেত্রে মনে রাখার মূল বিষয়টি হল এই যে, শ্রমের সঙ্কোচনগুলি হবে নিয়মিত, তীব্র প্রকৃতির এবং একটি প্রতিষ্ঠিত পুনরাবৃত্তিতে তা হয়ে চলবে।

যমজ সন্তান সহ গর্ভাবস্থার পেট- 35 সপ্তাহে

এই সপ্তাহের আশেপাশে আপনার পেটটি এক অদ্ভুত আকারের হয়ে উঠবে।যা এখনও প্রকৃতিতে বেশ গোলাকার।যখন জরায়ুটি আবার এমনকি আপনার বক্ষপিঞ্জরে পৌঁছাতে পারে,শিশুরা প্রাথমিকভাবে নিম্নাঞ্চলে থাকবে।বর্ধিষ্ণু পেটের এই প্রসারণটি পেটের উপরের চামড়াকেও ব্যাপকভাবে প্রসারিত করবে, যার ফলে সেখানে এক চুলকানি বোধ হবে অথবা আবার এমনকি তার উপর র‍্যাশও বেরতে পারোত, যেগুলি লালচে ফুসকুড়ির মত দেখায়।এগুলি সম্পূর্ণরূপে স্বাভাবিক এবং আপনার যমজ কিম্বা সন্তান ত্রয়ীর ক্ষেত্রে তা কোনওরকম ক্ষতিকারক নয়।

35 সপ্তাহে যমজ সন্তান গর্ভধারণের-আলট্রাসাউন্ড

এই সপ্তাহে পরিচালিত আল্ট্রাসাউন্ড পরীক্ষাগুলি আপনার যোনিতে কোনও ব্যাকটিরিয়া সংক্রমণের উপস্থিতি সন্ধানকারী পরীক্ষাগুলির সাথে করা হবে। আপনার বাচ্চাদের নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণের জন্য সমস্ত সাধারণ চেক-আপগুলি অব্যহত থাকবে।ভ্রূণের আকার,  হৃদস্পন্দনের হার,  রক্ত ​​প্রবাহ, অ্যামনিয়োটিক তরলের পরিমাণ,  জরায়ুর অবস্থা, আম্বেলিক্যাল কর্ড বা নাড়ির স্থান নির্ণয়- এগুলি সবই হল কেবল কিছু পরিমাপক যেগুলি ডাক্তারবাবু স্ক্যানের সাথে গভীর মনোযগে পর্যবেক্ষণ করেন।এই সপ্তাহের মধ্যে আপনার বাচ্চারা উচ্চতর শব্দে সাড়া দিতে শুরু করবে।

কি খেতে হবে

এই সপ্তাহে আপনার ওজনকে নিয়ন্ত্রণে রাখা ভীষণ মাত্রায় জরুরি এবং আপনার ডাক্তারবাবু সেই অনুযায়ী আপনার ডায়েটে কিছু বিশেষ পরিবর্তন আনার সুপারিশ করবেন।এটি ছাড়াও, আপনার খাদ্য তালিকায় কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন এবং ফ্যাটের সংযোজন করা অব্যহত রাখা উচিত।ক্যালসিয়াম এবং আয়রণে ভরপুর খাবারগুলিকেও অন্তর্ভূক্ত করা জরুরি।তার সাথে আপনি আবার ভিটামিনের পরিপূরকগুলিও গ্রহণ করা চালিয়ে যেতে পারেন, তবে সেক্ষেত্রে আপনার ডাক্তারবাবুর মত নিয়ে নেওয়া ভাল।  গর্ভাবস্থার যত্ন নেওয়ার পরামর্শ বা টিপস এখানে এমন কয়েকটি টিপস দেওয়া হল যেগুলি আপনি আপনার সন্তানদের প্রসব করার সময় ঘনিয়ে আসার সাথে এই পর্যায়ে প্রয়োগের চেষ্টা করতে পারেনঃ করণীয় ·        আপনার মধ্যে দেখা দেওয়া বিভিন্ন ধরণের সঙ্কোচনগুলির মধ্যস্থ পার্থক্যগুলিকে বুঝতে চেষ্টা করুন এবং যদি যন্ত্রণা মারাত্মক আকারে হয়ে থাকে একজন ডাক্তারকে দেখিয়ে নিন। ·        আপনার যোনি স্রাব পরীক্ষা করুন এটি জানতে যে সেটি স্বাভাবিকের একটি কিনা নাকি সেটি গর্ভাবস্থায় জল ভেঙ্গে যাওয়ার কারণ। করণীয় নয় ·        এই সপ্তাহে সমুদ্রজাত খাবারগুলি থেকে দূরে থাকুন, কারণ এর মধ্যস্থ মার্কারি উপাদানটি বাচ্চাদের উপর সহজেই প্রভাব ফেলতে পারে।·        ঘন্টার পর ঘন্টা ধরে জেগে থাকা এড়িয়ে চলুন কারণ অনিদ্রা আপনার শক্তির মাত্রা হ্রাস করতে পারে।  35 সপ্তাহে জন্ম নেওয়া যমজ সন্তানের সম্পর্কে জানার কিছু বিষয় এই সপ্তাহে জন্ম নেওয়া যমজ কিম্বা সন্তান ত্রয়ীর জন্য সাধারণত কোনওরকম চিকিৎসাজনিত বিশেষ মনোনিবেশের প্রয়োজন পড়ে না।যা করা দরকার তা হল এটি নিশ্চিত করা যে, তাদের ওজন বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।তারা অবিলম্বে স্তন পান করতে সক্ষম হয়ে উঠতে পারে অথবা তার জন্য এক থেকে দু সপ্তাহ মত সময় নিতে পারে।এই ক্ষেত্রে আপনার প্রথম বুকের দুধকে সংরক্ষণ করে রাখা একটি ভাল সিদ্ধান্ত হয়ে উঠতে পারে।  আপনার কি কি কেনাকাটি করার প্রয়োজন পড়বে

এখন যেহেতু যেকোনও দিন আপনার সন্তানরা আপনার গর্ভ থেকে বাস্তব দুনিয়ায় বেরিয়ে আসতে পারে, তাই তাদের প্রয়োজন মত সবকিছু তাদের পাওয়ার ব্যাপারটি নিশ্চিত করুন, যেমনঃ

  • শক্তি বৃদ্ধিকারী উপাদানে সমৃদ্ধ বেবি ফরমূলা বা কৌটার দুধ
  • নবজাতকদের জন্য ফি্ডিং বোতল

গর্ভদশার 35 সপ্তাহে, গর্ভের অভ্যন্তরে যমজ সন্তানের অবস্থানটি একটি নিরাপদ এবং জটিলতা মুক্ত প্রসব প্রক্রিয়ার নিশ্চিতকরণে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা গ্রহণ করে। আপনার প্রসবের ব্যাপারে আপনার ডাক্তারবাবুর নেওয়া সঠিক সিদ্ধান্তটির উপর আস্থা রাখুন এবং আনন্দের সাথে আপনার ছোট্ট সোনাদের এই বাস্তব জগতে স্বাগত জানান।