শিশুদের ডিহাইড্রেশন – লক্ষণ, কারণ এবং প্রতিরোধ

শিশুদের ডিহাইড্রেশন - লক্ষণ, কারণ এবং প্রতিরোধ

আপনার শিশু যদি চরম তাপমাত্রার সংস্পর্শে আসে অথবা বমি বমিভাব বা ডায়রিয়ার কারণে তার শরীরে জলের পরিমাণ কমে যায়, তবে তার ডিহাইড্রেশন হওয়ার ঝুঁকিতে থাকে। এই নিবন্ধটিতে থাকা এমন লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি পড়ে আপনার শিশুকে এই সমস্যাটি থেকে রক্ষা করতে পারে এমন ব্যবহারিক উপায়গুলি এবং এখনও হালকা অবস্থায় ডিহাইড্রেশনের চিকিত্সা করা সম্পর্কে যানতে পারবেন।

aniview

ডিহাইড্রেশন কি?

ডিহাইড্রেশন কি?

আমদের সকলেই দিনের বেলা বিভিন্ন রূপে ঘাম, প্রস্রাব, মল এবং অশ্রুর মাধ্যমে আমাদের শরীর থেকে জল বেরিয়ে যেতে থাকে। শরীর থেকে বেরিয়ে যাওয়া তরল ও লবণ, আমরা যে তরল পান করি এবং সারা দিন আমরা যে ডায়েট অনুসরণ করি তার মাধ্যমে প্রতিস্থাপন করা হয়, এইভাবে আমাদের দেহকে প্রয়োজনীয় স্তরে হাইড্রেট করতে সহায়তা করে। বাচ্চারা বাড়ির বাইরে বা ভিতরে উভয় ক্ষেত্রে দীর্ঘায়িত শারীরিক ক্রিয়াকলাপের মাধ্যমে ঘামের মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণে তরল এবং লবণ হারাতে পারে। যদি আপনার বাচ্চা অসুস্থ থাকে এবং জ্বর, ডায়রিয়া বা বমি হয় তবে এটি ডিহাইড্রেশনের কারণ হতে পারে। এছাড়াও, কিছু অসুস্থতা বাচ্চাদের জন্য জল বা অন্যান্য তরল পান করা কঠিন করে তোলে যা জলশূন্যতার দিকে নিয়ে যেতে পারে।

শিশুদের ডিহাইড্রেশন কতটা সাধারণ?

যখন কোন শিশু বেরিয়ে যাওয়া তরলের জন্য ক্ষতিপূরণ দিতে পর্যাপ্ত তরল গ্রহণ করে না, তখন জলশূন্যতা দেখা দিতে পারে। প্রাপ্তবয়স্কদের তুলনায় বাচ্চাদের ডিহাইড্রেশনের ঝুঁকি বেশি হয়, বিশেষত যখন তারা ভাইরাস বা গ্যাস্ট্রোএন্টেরাইটিসে আক্রান্ত হন। যেহেতু শিশুর ক্ষুদ্র দেহ প্রচুর পরিমাণে তরল সঞ্চয় করতে অক্ষম, এটি দ্রুত ডিহাইড্রেশনের দিকে নিয়ে যেতে পারে। ডিহাইড্রেটেড বাচ্চা বাবা-মায়ের জন্য অনেক উদ্বেগ এবং চিন্তার কারণ হতে পারে, তবে যদি এটিকে হালকা অবস্থায়ই মনোযোগ দেওয়া হয়, তবে এটি সহজেই সংশোধন করা যায় এবং একটি গুরুতর পরিস্থিতি এড়ানো যায়।

নবজাতক শিশুদের জলশূন্যতার লক্ষণ ও উপসর্গ

নবজাতক শিশুদের ডিহাইড্রেশনের একটি নিশ্চিত লক্ষণ হল শিশুর ভেজা ডায়পার এবং ন্যাপির সংখ্যা কমে যাওয়া। ডিহাইড্রেশন পুরো শরীরকে প্রভাবিত করে, তাই আপনার শিশুর ক্রিয়াকলাপের স্তরে নিবিড়ভাবে নজর রাখুন, কারণ সে সাধারণত আগের চেয়ে বেশি ঘুমাতে চায়। ডিহাইড্রেশনের সাধারণ লক্ষণ ও উপসর্গগুলি নিম্নরূপ:

  • গাঢ় রঙের ও দুর্গন্ধযুক্ত প্রস্রাব
  • ঘুম ঘুম ভাব
  • প্রস্রাব না করে ছয় ঘন্টা বা তার বেশি থাকা
  • শুকনো ঠোঁট এবং একটি খসখসে মুখ
  • তৃষ্ণা বাড়ে।

নবজাতক শিশুদের জলশূন্যতার লক্ষণ ও উপসর্গ

  • কম বা একদমই না থাকা অশ্রু
  • মাথা ব্যথা এবং মাথা ঘোরা।

নিম্নলিখিতগুলি মারাত্মক ডিহাইড্রেশনের লক্ষণ:

  • জল ছাড়া শুকনো চোখ
  • অতিরিক্ত রাগ ও নিদ্রাভাব
  • সাঙ্কেন ফন্টানেলস (শিশুর মাথায় নরম দাগ)
  • ঠান্ডা এবং ছাপযুক্ত হাত ও পা।

শিশুদের ডিহাইড্রেশনের কারণগুলি

আপনার বাচ্চাকে ডিহাইড্রেটেড করতে পারে এমন অনেকগুলি কারণ রয়েছে এবং সেগুলি নিম্নরূপ:

১. ডায়রিয়া এবং বমি বমি ভাব

গ্যাস্ট্রোএন্টেরাইটিসের মতো পেটের ভাইরাস আপনার শিশুর শরীর তরল হারাতে পারে যা ডায়রিয়া এবং বমি হওয়ার মাধ্যমে ঘটে। ডায়রিয়া আপনার বাচ্চাকে তার অন্ত্রে কোনও তরল ধরে রাখতে বাধা দেয় এবং তরলগুলি বেরিয়ে যায়, যা দ্রুত শিশুকে ডিহাইড্রাইড্রেট করে।

২. জ্বর

জলশূন্যতার অন্যতম সাধারণ কারণ হল জ্বর। জ্বরে আপনার শিশুর প্রচুর ঘাম হবে যা শরীর শীতল হয়ে যাওয়ার সাথে সাথে বাষ্পীভূত হয়। স্বাভাবিক শ্বাস প্রশ্বাসের চেয়ে দ্রুত শ্বাসের মাধ্যমে আরও তরল বেরিয়ে যেতে পারে।

জ্বর

৩. দুধ এবং অন্যান্য তরল গ্রহণ কমে যাওয়া

যদি আপনার বাচ্চার গলা খারাপ হয় বা তার দাঁত গজাচ্ছে, তবে সে বুকের দুধ খেতে অস্বীকার করতে পারে। এমনকি বন্ধ নাকও তাকে তরল গ্রহণ থেকে বিরত রাখতে পারে এবং এটি ডিহাইড্রেশনের কারণ হতে পারে।

৪. দেহের অতিরিক্ত তাপ

যদি আপনার শিশুটি অনেকগুলি স্তরযুক্ত পোশাক পরে থাকে বা কোনও বদ্ধ ঘোরে রাখা থাকে তবে, ঘামের মাধ্যমে তরল হ্রাস হতে পারে এবং এটি জলশূন্যতার কারণ হয়ে উঠতে পারে।

একটি শিশুর কতটা তরল প্রয়োজন?

নবজাতক হিসাবে, আপনার শিশুটি তার প্রয়োজনীয় সমস্ত তরল বুকের দুধ বা ফর্মুলা দুধের মাধ্যমে পাবে। এই সময়ে (তাদের বয়স ৬ মাস বয়স পর্যন্ত), তাদের ক্রিয়াকলাপের স্তরটি বেশ সীমিত হয়। তারা যখন এই প্রান্তিক সময়টি অতিক্রম করবে তখনই আপনি শক্ত বা আধা-শক্ত আকারে খাবারের সাথে পরিচয় করিয়ে দেবেন এবং একটি কাপ থেকে অল্প অল্প করে জল খাওয়ানো যেতে পারে। পাতলা রস (রসের ১ অংশ ও জলের ১০ অংশ) তাদের তরল গ্রহণের ক্ষেত্রে যোগ করতে সহায়তা করে। সুগার ড্রিংক, হট ড্রিংক এবং যে কোনও ধরণের পানীয় যাতে কৃত্রিম মিষ্টি যুক্ত থাকে, তাদের কমপক্ষে এক বছর বয়স পর্যন্ত বাচ্চাদের থেকে দূরে রাখা উচিত।

শিশুদের ডিহাইড্রেশন নির্ণয়ের জন্য কি কোনও পরীক্ষা আছে?

ডিহাইড্রেশন নির্ণয়ের জন্য টেস্টগুলিকে পরীক্ষাগারের বাইরে মূল্যায়ন এবং পরীক্ষাগারে পরীক্ষায় দুই ভাগে ভাগ করা যায়:

  • পরীক্ষাগারের বাইরেন মূল্যায়নের মধ্যে প্রস্রাবের আউটপুট, শ্বাস এবং হার্টবিটের হার, চেতনা পরীক্ষা করা, ত্বকের শুষ্কতা এবং চোখের অবস্থা আছে কিনা তা পরীক্ষা করাও অন্তর্ভুক্ত।
  • ডিহাইড্রেশন গুরুতর হলে ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষাগুলি সাধারণত পরিচালিত হয় এবং এতে সিবিসি-সম্পূর্ণ রক্ত ​​গণনা, প্রস্রাব বিশ্লেষণ, ডায়রিয়ার মলের গঠন এবং বেসিক মেটাবলিক প্যানেল (বিএমপি) অন্তর্ভুক্ত থাকে।

শিশুদের ডিহাইড্রেশন নির্ণয়ের জন্য কি কোনও পরীক্ষা আছে?

আপনি কিভাবে আপনার ডিহাইড্রেটেড শিশুর চিকিত্সা করতে পারেন?

ডিহাইড্রেশন দমন করার প্রাথমিক লক্ষ্যটি হল শরীরে হ্রাসপ্রাপ্ত তরলের স্তরের দ্রুত প্রতিস্থাপন করা এবং এগুলি স্বাভাবিক স্তরে পুনরুদ্ধার করা উচিত। নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি গ্রহণ করা উচিত:

  • আপনার শিশুকে একটি শীতল জায়গায় নিয়ে যান এবং যতটা সাধারণ জল সে সেবন করতে পারে সেই হিসাবে তাকে দিন।
  • গ্যাস্ট্রোএন্টেরাইটিস থেকে ডায়রিয়ার কারণে আপনার বাচ্চা যদি হালকা বা মাঝারি ডিহাইড্রেশন থেকে সেরে উঠছে তবে হারানো তরলগুলি প্রতিস্থাপন করা উচিত।
  • ওআরএস – ওরাল রিহাইড্রেশন সলিউশন হল ডিহাইড্রেশনের জন্য শিশুর আদর্শ পানীয় যা ৩ থেকে ৪ ঘন্টা অন্তর দেওয়া উচিত। এটি হল লবণ এবং শর্করার সংমিশ্রণ, যা শিশুকে দ্রুত পুনরায় হাইড্রেটেড হতে সহায়তা করতে পারে।

আপনি কিভাবে আপনার ডিহাইড্রেটেড শিশুর চিকিত্সা করতে পারেন?

কিভাবে আপনার বাচ্চাকে ডিহাইড্রেশন থেকে রক্ষা করবেন?

যেহেতু প্রতিরোধই সর্বোত্তম নিরাময়, আপনি যত্ন নিতে পারেন যাতে আপনার শিশু অসুস্থ না হয়ে পড়ে (যা ডিহাইড্রেশনের কারণ হতে পারে) এবং অতিরিক্ত গরম অবস্থার সংস্পর্শে না আসে। কিভাবে করবেন তা এখানে দেওয়া হল:

১. অসুস্থতার কারণে হওয়া ডিহাইড্রেশন কিভাবে প্রতিরোধ করবেন?

শিশুরা অসুস্থ হলে তাদের দেহ দ্রুত প্রচুর পরিমাণে তরল হারাতে পারে, কারণ এটি বমি এবং ডায়রিয়ার কারণ হতে পারে। এই ভাইরাসগুলির হাত থেকে আপনার শিশুকে দূরে রাখতে, শিশুকে পরিচালনা করার সময় এবং বন্ধুবান্ধব ও আত্মীয়স্বজন যখন সেখানে আসেন তখন তাদের ভাল করে হাত ধোওয়ার অভ্যাস করানো ভাল। আপনার ডাক্তারের কোন অ্যাপয়েন্টমেন্টই মিস করবেন না এবং ভ্যাকসিনগুলি দেওয়ার সময়সূচি পুরোপুরি অনুসরণ করুন।

কিভাবে আপনার বাচ্চাকে ডিহাইড্রেশন থেকে রক্ষা করবেন?

২. বাইরে গরম থাকলে ডিহাইড্রেশন কিভাবে রোধ করবেন?

গ্রীষ্মের সময়, নিশ্চিত করুন যে আপনার বাচ্চা হালকা, হাওয়া খেলে এমন পোশাক দিয়ে মধ্যে উপযুক্তভাবে সজ্জিত। তাকে রোদ থেকে দূরে রাখুন এবং ঘুমন্ত অবস্থায় তাকে কখনই কম্বল বা সোয়েটারে জড়িয়ে রাখবেন না।

ডিহাইড্রেশন একটি সাধারণ সমস্যা যা নবজাতক শিশুদেরকে প্রভাবিত করে এবং যদি লক্ষণগুলির উপরে নিবিড়ভাবে নজর রাখার মাধ্যমে এটি সঠিকভাবে মোকাবেলা করা হয় তবে আপনি এটি প্রতিরোধ করতে পারেন এবং এটির চিকিত্সাও করতে পারেন।