সিজার করে প্রসব – সি-সেকশন জন্ম সম্পর্কে বিশদ তথ্য

সিজার করে প্রসব - সি-সেকশন জন্ম সম্পর্কে বিশদ তথ্য

সম্ভবত আপনার সন্তানকে এই জগতে আনার এই উপায়টি আপনি ভাবেননি, তবে মনে রাখবেন যে আপনার ডাক্তার যখন আপনাকে বলে দিচ্ছেন যে আপনার সিজার করে প্রসবের প্রয়োজন, তার অর্থ  আপনার শিশুর আপনার কাছ থেকে ঠিক এটিই দরকার।

aniview

একটি সি-সেকশন ডেলিভারি কি?

মেরিরাম-ওয়েবস্টার অভিধানটি সি-সেকশনের (সিজারিয়ান সেকশন) সংজ্ঞা দিয়েছে: “সন্তান প্রসবের জন্য পেট এবং জরায়ুর গায়ে ছেদ করে অস্ত্রোপচার পদ্ধতি।” এই সংজ্ঞা আজও ভালোভাবে চলে। সি সেকশন 2টি বিভাগে শ্রেণিবদ্ধ করা যেতে পারে:

1. নির্বাচনী সি-সেকশন

যখন সি-সেকশন আগে থেকে নির্ধারিত করা থাকে, তখন এটিকে একটি নির্বাচনী সি-সেকশন বলে। অনেক প্রথমবারের মা এখন সি-সেকশন ডেলিভারি বেছে নিচ্ছেন যদিও তাদের কাছে এটি করার কোনো ডাক্তারি কারণ নেই। কেউ কেউ মনে করেন যে প্রসব আগে থেকে পরিকল্পিত থাকলে, ছুটির পরিকল্পনা করা বা অবলম্বনের ব্যবস্থা করা সহজ, অন্যরা বিশ্বাস করে যে এটি তাদের যোনির মাধ্যমে প্রসব সম্পর্কিত ব্যথা এবং জটিলতাগুলি এড়াতে সহায়তা করবে। শিশুর কোনো সঙ্কটপূর্ণ অবস্থা তৈরি হলে যেখানে স্বাভাবিক প্রসব ঝুঁকিপূর্ণ, সেখানে একজন ডাক্তার জরুরি সি-সেকশনের সুপারিশ করতে পারেন।

2. জরুরী সি সেকশন

যখন একটি অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতির প্রতিক্রিয়া হিসাবে সি-সেকশন সম্পন্ন করা হয়, তখন সেটিকে একটি জরুরি সি-সেকশন বলে। প্রসব বেদনা শুরু হওয়ার পরে জটিলতা দেখা দিলে এটির বেশি প্রয়োজন পড়ে।

এই প্রক্রিয়া এবং জন্ম-পরবর্তী সময়ের সতর্কতা সম্পর্কে তথ্যসহ বিস্তৃত বিবরণের জন্য পড়ুন।

একটি সি-সেকশন করার কারণগুলি কী কী?

আমাদের মা-ঠাকুমারা বলেছেন যে, জন্ম দেওয়া একটি সবচেয়ে স্বাভাবিক জিনিস, গ্রামগুলিতে এমন মহিলারা আছেন যারা মাঠে কাজ করাকালীন কাজ বন্ধ করে গাছের পিছনে গিয়ে সন্তান প্রসব করেন, এবং শালের মধ্যে বেঁধে নিয়ে তৎক্ষণাৎ কাজে ফিরে যান! যত সহজই শোনাক না কেন এটি আসলে একটি বিরল ঘটনা। বেশিরভাগ মানুষের স্বাভাবিক প্রসবের পর সুস্থ হতে কয়েক দিন সময় লাগে। যদিও স্বাভাবিক প্রসব (যোনি প্রসব) পছন্দ করা হয়, সি-সেকশনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় কতকগুলি পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে।

উদাহরণস্বরূপে, যদি আপনি পূর্বে গর্ভাবস্থায় জটিলতার অভিজ্ঞতা লাভ করে থাকেন, অথবা বর্তমানের গর্ভাবস্থায় ইতিমধ্যেই জটিলতার সম্মুখীন হয়ে থাকেন, তবে আপনাকে একটি নির্বাচনী সি-সেকশন বা ‘পরিকল্পিত পুনরাবৃত্ত সিজারিয়ান’ বেছে নিতে হবে। এখানে কয়েকটি পরিস্থিতি দেওয়া রয়েছে যেখানে আপনার একটি পরিকল্পিত সি-সেকশনের প্রয়োজন থাকতে পারে:

  • আপনার আগের প্রসবটি একটি সি-সেকশন ছিল
  • আপনার শিশুটি ব্রিচ অবস্থানে রয়েছে (যার মানে তার পা নীচের দিকে)
  • আপনার শিশুটি আড়াআড়ি অবস্থানে রয়েছে (পাশের দিক করে), অথবা ঘন ঘন তার অবস্থান পরিবর্তন করে – যাকে অস্থির শয়নও বলা হয়
  • আপনার প্লাসেন্টা প্রেভিয়া বা নিম্নবর্তী প্লাসেন্টা আছে
  • আপনার ডায়াবেটিস বা হৃদরোগ আছে
  • অতীতে আপনার প্রসবকালীন অবস্থায় বা প্রসবের পূর্বে আপনার শিশুর মৃত্যু হয়েছে
  • আপনি একাধিক শিশু প্রসবের আশা করছেন
  • আপনার গর্ভে শিশুর বৃদ্ধি ও বিকাশ প্রত্যাশিত প্যাটার্নে হচ্ছে না
  • আপনার এমন একটি শারীরিক অবস্থার উৎপত্তি হয়েছে যা প্রসবে বিলম্বের ক্ষেত্রে বিপজ্জনক হতে পারে, যেমন তীব্র সন্ন্যাস রোগ বা তার পূর্বাবস্থা

কিছু মা আবেগজনিত বা শারীরিকভাবে আঘাতমূলক অভিজ্ঞতার কারণে সিজার করে প্রসবের অনুরোধ করেন। একজন মায়ের প্রসব যন্ত্রণায় ভীতি থাকতে পারে। বেশিরভাগ চিকিৎসকরা মায়েদের উপদেশ দিতে পছন্দ করেন এবং এই সকল ক্ষেত্রে তাকে যোনিপথে প্রসবের জন্য উৎসাহিত করেন।

কখনও কখনও, প্রসব প্রত্যাশিত পথে অগ্রগতি না হলে, আপনার চিকিৎসক জরুরী সি-সেকশনের দ্বারা আপনার বাচ্চার প্রসব করতে পারেন। যে গতিতে একটি জরুরি সি-সেকশন করা হয় তা পৃথক ক্ষেত্রের জরুরি প্রয়োজন অনুযায়ী নির্ধারিত হয়।

জরুরী প্রয়োজনের প্রতিক্রিয়ায় একটি জরুরি সিজারিয়ান সম্পন্ন হলেও, কারণটি সর্বদা জীবনহানিকর না-ও হতে পারে। কিছু পরিস্থিতি যেগুলি জরুরি সি-সেকশনের দিকে পরিচালিত করে, সেগুলি হল :

প্রসব শ্রমের ধীর অগ্রগতি। এর কারণ হতে পারে, প্রসব শ্রম শুরু হওয়ার সময় হয় আপনার সার্ভিক্স যথেষ্ট পরিমাণে প্রসারিত হচ্ছে না, অথবা যোনিপথ দিয়ে শিশুকে ঠেলে বের করার সময় কোনও সমস্যা হচ্ছে

শিশুটি পীড়িত থাকতে পারে বা আপনার স্বাস্থ্য ক্রমশ খারাপ হতে থাকতে পারে

আপনার শিশু ব্রিচ অবস্থানে থাকতে পারে যা যোনি প্রসব হওয়াকে কঠিন করে তোলে

খুব কম সংখ্যক জরুরী সি-সেকশন জরুরীভাবে পরিচালিত হয় কারণ মা বা শিশুর জীবন বিপদে থাকতে পারে। এটি নিম্নলিখিত কারণগুলির মধ্যে এক বা একাধিক কারণে হতে পারে:

শিশুর অক্সিজেন মাত্রা বা হৃদস্পন্দন নির্দেশ করে যে তাকে অবিলম্বে প্রসব করা আবশ্যক।

আপনি গুরুতর প্রাক-সন্ন্যাস রোগে ভুগছেন।

প্লাসেন্টা ছেদনের ফলে প্রসবের সময় প্ল্যাসেন্টা ভাসমান অবস্থায় বেরিয়ে আসে। যেটি শিশুর বিপদ ডেকে আনতে পারে।

কর্ডের স্থানচ্যুতি হয়, যার মানে হল যে শিশুর আগে কর্ডটি সার্ভিক্স থেকে বেরিয়ে আসে। এটি একটি চিন্তার কারণ, কারণ প্রসবের সময় কর্ডটি চেপে যাওয়ার জন্য  শিশুর অক্সিজেন সরবরাহ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

জরায়ু ফেটে যাওয়া বলতে বোঝায় পূর্ববর্তী প্রসবের সময় তৈরি হওয়া ক্ষতস্থান ছিঁড়ে যায় এটি একটি বিরল সমস্যা যা 200টির মধ্যে মাত্র 1 জন মহিলার মধ্যে ঘটে।

প্রসবের সময় আপনার ভারী রক্তপাত হয়।

কিভাবে সিজারিয়ান ডেলিভারি সম্পন্ন হয়?

1. পদ্ধতির সময় কি ঘটে

অস্ত্রোপচারটি শেষ মিনিটের সিদ্ধান্ত বা নির্ধারিত সার্জারি যা-ই হোক না কেন, সি-সেকশন পদ্ধতিটি একটি পূর্ব নির্ধারিত প্যাটার্ন যুক্ত একটি সহজ প্রক্রিয়া। অস্ত্রোপচারটি শিশুটির প্রসবের জন্য প্রায় 10 মিনিট সময় নেয়, এবং অস্ত্রোপচারের ক্ষত সেলাইয়ের জন্য 30 মিনিট সময় নেয়। এখানে ধাপে ধাপে আসল সি-সেকশন পদ্ধতির সম্পর্কে তথ্য দেওয়া হল।

2. প্রস্তুতি এবং এনাস্থেসিয়া

সিজারিয়ান সেকশনের প্রথম ধাপটি হল আই ভি এবং এনাস্থেসিয়া। এটি সাধারণত মেরুদন্ডের ব্লক বা কোমরের নীচের অংশ অবশ করে হয়। শরীরের নীচের অর্ধেক অংশ অবশ করা হলেও আপনি সচেতন থাকবেন। তারপর আপনার পেটের ত্বক একটি অ্যান্টিসেপটিক দ্রবণ ব্যবহার করে চাঁচা হবে এবং পরিষ্কার করা হবে। তারপর একটি ক্যাথিটার আপনার মূত্রথলির মধ্যে ঢোকানো হয়, এবং এটি অস্ত্রোপচারের সময় জুড়ে সেখানেই থাকবে।

আপনার পেটের উপর আপনার দৃষ্টিকে একটি সংক্ষিপ্ত পর্দা দ্বারা অবরুদ্ধ করা হবে। এই পর্দাটি শুধুমাত্র স্থানটিকে জীবাণুমুক্তই রাখে না, সাথে অস্ত্রোপচারের ছেদন ও প্রসবের উপর আপনার দৃষ্টিকেও অবরুদ্ধ করে। আপনি কাটা দেখার ব্যাপারে শিহরণ বোধ করতে পারেন, আপনি সত্যি আপনার বাচ্চাকে দেখতে চান। আপনার শিশুর প্রসব হয়ে গেলেই সঙ্গে সঙ্গে তাকে দেখার জন্য আপনার ডাক্তারকে তাকে একটু উঁচুতে তুলে ধরার জন্য বলুন।

জরুরী সি-সেকশনের ক্ষেত্রে, কখনও কখনও, আপনাকে অসাড় করার জন্য পর্যাপ্ত সময় থাকবে না, এবং তার পরিবর্তে আপনাকে সাধারণ অ্যানেস্থেশিয়া দেওয়া যেতে পারে। এতে আপনার বমি ভাব এবং অস্থির বোধ হতে পারে, তবে অস্বস্তিটি কেটে যাবে। সি-সেকশন অস্ত্রোপচারের সময় যদি কোনও এন্ডোট্র্যাকিয়াল টিউব লাগানো  হয়, তবে আপনার কিছু সময়ের জন্য গলা ব্যাথা হতে পারে।

3. ছেদন

একবার আপনাকে অ্যানেস্থেশিয়া করা হয়ে গেলে, আপনার তল পেটে, পিউবিক চুলের ঠিক উপরে একটি ছোট জায়গা কাটা হবে। চিন্তা করবেন না, যদি ক্ষতচিহ্নটি সুন্দরভাবে সেলাই করা হয়, এটি প্রায় অস্পষ্ট হয়ে যাবে এবং ধীরে ধীরে মিলিয়ে যাবে। শিশুকে বের করার জন্য গর্ভের নীচের অংশে একটি দ্বিতীয় ক্ষত তৈরি করা হবে। দুই রকমের গর্ভাশয় ছেদন করা যেতে পারে, এবং ডাক্তার  দুটি ভিন্ন ধরনের ছেদন করা বেছে নিতে পারেন :

  • সি-সেকশন পদ্ধতিতে গর্ভাশয় ছেদনের ধরনগুলি
  • একটি লো-ট্রান্সভার্স ছেদন
  • বেশীরভাগ সি-সেকশনে ব্যবহৃত হয়, এই কাটাটি গর্ভের নীচের অংশে অপেক্ষাকৃত পাতলা পেশী জুড়ে করা হয়

4. একটি উল্লম্ব কাটা

যদি বাচ্চাটি গর্ভের নীচের দিকে থাকে, বা অস্বাভাবিক অবস্থানে থাকে, তবে গর্ভের মাঝের নীচের দিকে ক্ষতটি তৈরি করা হয়।

5. প্রসব

ছেদন করার পর, অ্যামনিওটিক তরল টেনে বের করা হয়, এবং শিশুর প্রসব করা হয়। বাচ্চাকে যখন বের করা হয়, তখন আপনার সামান্য টান-এর মতো অনুভূতি হতে পারে। তার শ্বাস পথে থাকা অতিরিক্ত মিউকাস টেনে বের করা হয়, এবং তখন আপনি আপনার শিশুর কান্না শুনতে পারবেন।

সি-সেকশন কি ব্যাথাজনক?

যে কোনো অস্ত্রোপচারের মতোই, সাধারণত সি-সেকশনের পরেও সাধারনত কিছু ব্যথা এবং অস্বস্তি থাকে। যোনি প্রসবের থেকে এই পদ্ধতির পর আরোগ্যের সময় একটু বেশি লাগে। অস্ত্রোপচারের ঠিক পরে, আপনার একটু বমিভাব, চুলকানি, এবং ব্যাথা বোধ হতে পারে; এগুলি অ্যানাস্থেশিয়া এবং অস্ত্রোপচারের পরের সব স্বাভাবিক প্রতিক্রিয়া এবং আপনার ডাক্তার এই প্রতিক্রিয়াগুলির জন্য ঔষধও নির্ধারণ করতে পারে। কাশি এবং হাঁচিতে কিছু সময় ধরে একটু কষ্ট হতে পারে।

সিজার করে জন্ম-  সি-সেকশন প্রসবের জন্য কিভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে

একটি প্রসবের সময়, সেটি স্বাভাবিক প্রসব  বা একটি সি-সেকশন যা-ই হোক না কেন, আপনার মনের অবস্থা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যত শান্ত থাকবেন ততো আপনার বাচ্চার এবং আপনার পক্ষে সহজ হবে।

1. একটি সি-সেকশনকে নিয়ে ইচ্ছা তালিকা তৈরি করুন

একজন প্রত্যাশিত মা হিসাবে, আপনি অস্ত্রোপচার সম্পর্কিত বিভিন্ন জিনিস নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন যা আপনার অভিজ্ঞতা ইতিবাচক করতে সাহায্য করবে। এখানে কয়েকটি বিকল্প রয়েছে যা আপনি বিবেচনা করতে পারেন:

অপারেটিং থিয়েটারে সঙ্গীত

যদি আপনার কোনো বন্ধু বা আত্মীয় আপনার সি-সেকশনের সময় পাশে থাকলে আপনি ভরসা পান তাহলে আপনি তাদের পাশে থাকতে অনুরোধ করতে পারেন।

2. একটি সি-সেকশন প্রসব হল জন্ম দেওয়ার আরেকটি উপায়।

স্বাস্থ্যকর খেয়ে, নিয়মিত ব্যায়াম করে এবং সর্বোত্তম ওজন বজায় রেখে অস্ত্রোপচারের জন্য প্রস্তুতি নিন। একটি সক্রিয় জীবনধারা আপনার শিশুর ভালো স্বাস্থ্য নিশ্চিত করে এবং আপনার একটি সমস্যা-মুক্ত অস্ত্রোপচার ও দ্রুত আরোগ্যের সম্ভাবনা বাড়ায়। সি-সেকশন জন্মের আগে আপনি যত ফিট থাকবেন, অস্ত্রোপচার পরবর্তী আরোগ্যের সময় মানিয়ে নেওয়া তত সহজ হবে। আপনি সহজভাবে হাঁটার মতো কাজগুলি এবং স্বাভাবিক রুটিন পুনরায় শুরু করা সহজে করতে পারবেন। অস্ত্রোপচারের পরে একটু নড়াচড়া করতে পারলে রক্তের জমাট বাঁধার ঝুঁকি কমায় এবং আপনার পাচন প্রক্রিয়া স্বাভাবিকভাবে কাজ করে।

3. নিয়ন্ত্রণ রাখুন

যদি আপনি সি-সেকশনের জন্য নির্ধারিত হন তবে অস্ত্রোপচারের 12 ঘন্টা আগে হালকা খাবার খাবেন। অন্ত্রের পেশীগুলির সংকোচন-প্রসারণের মাধ্যমে খাদ্য এবং বর্জ্য আপনার শরীরের মধ্যে দিয়ে বাহিত হয়। অস্ত্রোপচারের কারণে, অন্ত্রের পেশীগুলি অনেকটাই ধীর হয়ে পড়ে  যার ফলে শরীরে  খাদ্য ও জলের প্রবাহ কঠিন হয়ে পরে। হালকা, সহজপাচ্য খাদ্য খান যা গ্যাসের সম্ভাবনা হ্রাস করে এবং অন্ত্রকে দ্রুত স্বাভাবিক কাজ শুরু করতে সহায়তা করে।

4. একটি মন্ত্র নির্বাচন করুন

এমনকি যদি আপনার সি-সেকশন পরিকল্পিত না থাকে, সেক্ষেত্রেও আপনি এক মুহুর্ত সময় নিয়ে একটি সহজ মন্ত্র পাঠ করতে পারেন  – একটি শব্দ বা স্তবক বার বার পুনরাবৃত্তি করলে তা মনকে শান্ত করতে সাহায্য করবে। এটি মনকে শান্ত করতে, শ্বাস ঠিক রাখতে, স্ট্রেসের সাথে সম্পর্কিত হরমোনগুলি যেমন অ্যাড্রেনালিন ও কর্টিসলকে কমাতে সাহায্য করে, এবং শরীরের মধ্যে অক্সিজেনের প্রবাহ বৃদ্ধি করে।

একটি সিজারিয়ান প্রসবের ঝুঁকি

অন্যান্য প্রধান অস্ত্রোপচার পদ্ধতির মতো সিজারিয়ান অস্ত্রোপচারেও ঝুঁকি জড়িত আছে। সিজারিয়ান অস্ত্রোপচারের পদ্ধতি শুরু হবার আগে এই ঝুঁকিগুলি সম্পর্কে ভালোভাবে জানা এবং বোঝাটা হল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই সম্পর্কে ভালোভাবে বুঝতে পারলে আপনার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে আলোচনা করতে এবং আপনাকে জ্ঞাত সিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করবে।

মায়ের জন্য ঝুঁকি এবং জটিলতা

মনে রাখবেন, নিম্নোক্ত ঝুঁকিগুলোর মধ্যে বেশীরভাগগুলিই যেকোনো ধরনের পেটের অস্ত্রোপচারের সাথে যুক্ত থাকে।

সংক্রমণ

ছেদন স্থান, পেলভিক অঙ্গগুলি যেমন মূত্রাশয় এবং জরায়ু সহজেই সংক্রামিত হতে পারে।

রক্তস্রাব বা অত্যাধিক রক্তক্ষয়

একটি সিজারিয়ান প্রসবের সময় অত্যধিক রক্তক্ষয় হলে রক্ত দিতে হতে পারে।

অঙ্গের ক্ষতি

মূত্রাশয় বা অন্ত্রের মতো অঙ্গে আঘাতের সম্ভাবনা আছে।

সংলগ্নতা

পেলেভিক অঞ্চলের ভেতর ক্ষত কোষ গঠনের ফলে ব্যথা ও ব্লকেজ হতে পারে। সংলগ্নতা বা ক্ষত কোষ তৈরি হওয়ার কারণে, প্লাসেন্টার ছেদন বা প্ল্যাসেন্টা প্রেভিয়ার মতো জটিলতাগুলি ভবিষ্যতে গর্ভাবস্থায় হতে পারে।

বর্ধিত আরোগ্য সময়

একটি সি-সেকশন থেকে আরোগ্যে হতে কয়েক সপ্তাহ থেকে কয়েক মাস পর্যন্ত সময় লেগে যেতে পারে।

ওষুধের প্রতিক্রিয়া

অস্ত্রোপচারের সময় বা পরে ব্যবহৃত ব্যথার ওষুধ বা অ্যানেস্থেশিয়াতে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া হতে পারে।

অতিরিক্ত সার্জারির ঝুঁকি

একটি সি-সেকশন অতিরিক্ত অস্ত্রোপচারের কারণ হতে পারে যেমন মূত্রাশয় মেরামত, হিস্টেরেক্টমি বা অন্য সিজারিয়ান।

মাতৃমৃত্যু

সি-সেকশনে জন্মের ক্ষেত্রে মাতৃমৃত্যুর হার যোনির মাধ্যমে জন্মের ক্ষেত্রের চেয়ে বেশি।

মানসিক প্রতিক্রিয়া

কিছু মহিলার সি-সেকশনের মাধ্যমে জন্ম হওয়া শিশুর সাথে বন্ধন সৃষ্টি করতে সমস্যা হয় কারণ তারা তাদের জন্মদানের অভিজ্ঞতাতে অসন্তুষ্ট বোধ করেন।

শিশুর জন্য ঝুঁকি এবং জটিলতা

সময়ের পূর্বে জন্ম

পরিকল্পিতভাবে সিজারের মাধ্যমে প্রসব করালে কম ওজনের বাচ্চার জন্ম হতে পারে যদি সঠিক ভাবে গর্ভকালীন সময়ের হিসেব না করা হয়।

শ্বাসকষ্ট

একটি গবেষণায় দেখা গেছে সি-সেকশনের মাধ্যমে জন্মানো বাচ্চার শ্বাসকষ্টে ভোগার সম্ভাবনা বেশি।

ঘর্ষণ আঘাত

বিরল ক্ষেত্রে, সি-সেকশন অস্ত্রোপচারের জন্য তৈরি করা ক্ষততে শিশুটি আহত হতে পারে।

সি-সেকশন প্রসবের পরে মায়ের যত্ন:

আরোগ্য

আপনার নবজাতকের যত্ন নিতে শুরু করা স্বাভাবিক, কিন্তু এটি মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে সি-সেকশনের পরে মানসিক এবং শারীরিক অবস্থার উন্নতির জন্য প্রয়োজনীয় সময়টি একটি যোনি প্রসবের ক্ষেত্রের চেয়ে বেশি। আপনি সিজার পরবর্তী পর্যাপ্ত যত্ন পাওয়া নিশ্চিত করুন যাতে আপনার আরোগ্য দ্রুত হয়। স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাবার আগে আপনাকে তিন থেকে চার দিন হাসপাতালে থাকতে হবে এবং আরো চার থেকে ছয় সপ্তাহ বাড়িতে বিশ্রাম নিতে হবে।

আপনার ডাক্তার আপনাকে বিশ্রাম নিতে এবং কাজকর্মগুলোকে সীমাবদ্ধ করতে বলবেন যাতে ক্ষতের উপর অযথা চাপ না পড়ে। এই পরামর্শগুলো যাতে কোনোভাবে উপেক্ষিত না হয় সেই বিষয় সচেতন থাকতে হবে নাহলে আরোগ্যের সময় বর্ধিত হতে পারে।

সাবধান হন

আপনার ক্ষতটি কয়েক সপ্তাহ ধরে ফুলে থাকবে। আপনি শিশুকে ছাড়া অন্য কিছু বহন করা এবং ধরে রাখার থেকে বিরত থাকবেন। যখন শিশুকে দুধ খাওয়াবেন বা আদর করবেন, একটি নার্সিং বালিশ বা যে কোনো বালিশকে ক্ষত জায়গার ওপরে রেখে শিশুকে শোওয়ান।

মনটা হাল্কা করুন

সি-সেকশনে আরোগ্যের সময়টা গুরুত্বপূর্ণ। যদিও নবজাতকের যত্ন নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ, তবুও আপনার নিজের যত্ন নেওয়াটা সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ। সাহায্য চাইতে বিব্রত বোধ করবেন না। প্রতিবার উঠবার পরিবর্তে অন্যদেরকে আপনার কাছে শিশুকে দিতে বলুন। আপনার জীবনকে আরও সহজ করে তুলতে যা কিছু লাগে তা করুন এবং এতে অপরাধ বোধ করবেন না।

একটি সিজারিয়ান পরবর্তী ক্ষতের সংক্রমণ হচ্ছে কিনা তার উপর প্রখর নজর রাখুন

আপনি কয়েকটি সহজ পদ্ধতি গ্রহণ করে আপনার ক্ষতের নিরাময় প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করতে পারেন

ক্ষতটি পরিষ্কার রাখুন

আপনার পেটে যাতে জ্বালা না করে তার জন্য আলগা জামাকাপড় পরুন

ক্ষত স্থানের চারিপাশে ব্যথা, টান ভাব এবং চুলকানি হওয়া স্বাভাবিক এবং আস্তে আস্তে কমে যাবে। আপনার যদি ব্যাথা হয়, জ্বরে ভোগেন, অথবা যদি আপনার পেটের ক্ষতটি লাল হয়ে পুঁজ বেরোয় তবে আপনি আপনার ডাক্তারকে ফোন করুন। এটি একটি সংক্রমণের লক্ষণ হতে পারে। যদিও কিছু পরিষ্কার তরল স্রাব বেরনো স্বাভাবিক, তবুও এটি নিয়ে আপনার ডাক্তারের সাথে আলোচনা করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

চাপ সরিয়ে নিন

এমন খাবার বা পানীয় এড়িয়ে চলুন যাতে আপনার গ্যাস হতে পারে, কারণ গ্যাস তৈরি হলে অস্বস্তি সৃষ্টি করতে পারে। এটি কেবল ক্ষতটিতে চাপই দেয় না, এটি একটি বধহজমের চিহ্ন হতে পারে কারণ অ্যানেস্থেশিয়ার জন্য আপনার অন্ত্রের কার্যকলাপ ধীরে হয়ে যায়। আপনার যদি বদহজম হয়, তবে আপনি বাম পাশ ফিরে শুয়ে বা চিত হয়ে শুয়ে আপনার হাঁটু টেনে ধরতে চেষ্টা করুন এবং জোরে শ্বাস নিন। ক্ষত স্থানটিকে ঠেস দিয়ে রাখুন যাতে ওই স্থানটিতে কোনো আঘাত না লাগে।

নিয়মিত থাকুন

কোষ্ঠকাঠিন্য একটি সাধারণ সমস্যা, গর্ভাবস্থার পরে অনেক মহিলা যার মুখোমুখি হয়। টয়লেটে থাকার সময় খেয়াল রাখতে হবে যেন কোনো চাপ না পড়ে এবং আপনি শিথিলভাবে থাকবেন। ফাইবারের সমৃদ্ধ খাবার যেমন সবজি ও ফল খাওয়া এবং প্রচুর তরল পান করা হল সি-সেকশন প্রসবের পর নেওয়ার মতো সতর্কতাগুলির একটি। যদি আপনার কোনো সমস্যা হয় তবে আপনার ডাক্তার আপনাকে একটি হালকা ল্যাক্সেটিভ বা পায়খানা নরমকারী ওষুধের পরামর্শ দিতে পারেন।

নিজেকে পুষ্ট করা

একটি সি-সেকশনের পরে আপনার খাদ্যতালিকাটি গুরুত্বপূর্ণ; আপনার শক্তি এবং কর্মক্ষমতা  বজায় রাখার জন্য স্বাস্থ্যকর খাদ্য ও প্রচুর জল অপরিহার্য।

চলতে থাকা

যতক্ষণ না পর্যন্ত আপনার ক্ষত স্থানটি ভালো হচ্ছে ততক্ষণ আপনাকে নিয়মিত কাজকর্ম স্থগিত রাখতে হবে, তবে আপনার নড়াচড়া সীমাবদ্ধ হলেও নিয়মিত ব্যায়াম করলে আরোগ্যের কাজটি সহজ হবে। রক্ত সঞ্চালন, পেশীর দৃঢ়তা বাড়াতে হলে পায়ের গোড়ালি প্রসারিত করতে হবে, আপনার পায়ের পাতা নাড়াচাড়া করতে হবে এবং আপনার পা দোলাতে হবে যতটা আপনি আরামদায়কভাবে পারবেন। আপনার দৃঢ়তা বৃদ্ধি পেলে, ঘরের মধ্যে পায়চারি করুন এবং ঘন ঘন বিশ্রাম নিন। এটা  আপনার হজম শক্তিও বাড়িয়ে দেয়। হাঁটাচলা করুন এতে আপনার মনোবল বৃদ্ধি হবে এবং খুব শীঘ্রই আপনি আপনার সন্তানের সাথে বাইরে বেড়াতে যাওয়ার মতো জোর পাবেন।

যদিও আপনার সন্তানের ও আপনার বাড়ির দায়িত্ব নেওয়ার লোভ সামলানো খুব শক্ত হতে পারে, কিন্তু আপনাকে এটাও মাথায় রাখতে হবে যে আপনাকেও সুস্থ থাকতে হবে।