সি-সেকশনের পরে পিঠে ব্যথা – কারণ এবং প্রতিকার

সি-সেকশনের পরে পিঠে ব্যথা

যদি কোনও গর্ভবতী মহিলা কোনও নির্দিষ্ট চিকিৎসাগত অবস্থাতে ভোগেন বা যদি শিশু এমন কোনও অবস্থানে থাকে যা প্রাকৃতিক জন্মপদ্ধতির পক্ষে কার্যকর নয়, তাহলে বেশিরভাগ চিকিৎসক শিশুকে প্রসবের জন্য সিজারিয়ান সার্জারির দিকে এগিয়ে যান এটি বাচ্চাকে সুরক্ষিত রাখলেও, অনেক মহিলাই সি সেকশনের পরে নিম্ন পিঠের ব্যথা এবং সেইসাথে সেলাই সাধারণ সার্জারির ব্যথায় ভোগেন যদিও এই ব্যথা প্রসব এবং গর্ভাবস্থার শেষের সাথে শরীরের মানিয়ে নেওয়ার অঙ্গ হিসাবে আসতে পারে, তবে এমন কিছু দিক রয়েছে যা নির্দিষ্ট চিকিৎসাগত কারণকেও নির্দেশ করে

aniview

সিজারিয়ান প্রসবের পরে পিঠে ব্যথার কারণ কী?

সিজারিরিয়ান প্রসবের প্রক্রিয়াটি অ্যানেস্থেশিয়া দিয়ে করা হয় এটি মহিলাদের সুষুম্না কান্ডে একটি ইনজেকশনের মাধ্যমে দেওয়া হয় সুষুম্না কান্ডের এলাকাটি এবং আশেপাশের অংশটি অত্যন্ত সংবেদনশীল ইনজেকশনটি যেহেতু ত্বক, পেশী, লিগামেন্ট এবং স্নায়ুগুলিকে ফুটো করে এগোয়, তাই অ্যানেস্থেশিয়ার প্রভাব চলে গেলে, এই সমস্ত অংশগুলিতে ব্যথা লাগতে শুরু করে

আবার, অ্যানেস্থেটিক ইনজেকশনের পরবর্তীপ্রভাব থেকে আরেকটি কারণ শুরু হয় ইনজেকশন দেওয়ার পরে সেরিব্রোস্পাইনাল তরল অল্প পরিমাণে লিক করতে থাকে এটি খুব মাথাব্যথা এবং ঘাড়ে প্রচন্ড ব্যথা সৃষ্টি করে, বিশেষত যদি মা বসে থাকেন বা দাঁড়িয়ে থাকেন তিনি শুয়ে পড়লে ব্যথা কমে যায় বলে মনে হয়

সিসেকশন প্রসবের পরে কখন পিঠে ব্যথা শুরু হয়?

সি-সেকশন প্রসবের পরে কখন পিঠে ব্যথা শুরু হয়?

সিজারিয়ান প্রসবের ক্ষেত্রে, সি সেকশনের সুষুম্না অ্যানাস্থেটিক দেওয়ার পরে পিঠের ব্যথা তার অস্তিত্ব অনুভব করানো শুরু করায় যে মুহুর্তে অ্যানাস্থেসিয়ার প্রভাবগুলি বন্ধ হওয়া শুরু করে এটি প্রায় 3-6 ঘন্টা পরে ঘটে যখন অ্যানাস্থেশিয়ার ইনজেকশন দেওয়া অংশটিতে ব্যথা লাগতে শুরু করে মাথা ব্যথা এবং ঘাড়ের ব্যথা যা সেরিব্রোস্পাইনাল তরল ফুটো হওয়ার ফলস্বরূপ ঘটে, তা সাধারণত প্রসবের 12 ঘন্টা পরে বা শিশুর জন্মের 3-4 দিন পর শুরু হয়

সিসেকশনের পরে কত সময় ধরে পিঠ ব্যথা থাকে?

সঠিকভাবে সম্পন্ন করা বেশিরভাগ চিকিৎসা পদ্ধতিগুলির মতো, সুষুম্না কান্ডের অ্যানেস্থেশিয়ার কারণে হওয়া ব্যথা কয়েক দিন বা এক সপ্তাহের মধ্যে ম্লান হয়ে যায় কিছু দুর্ভাগ্যজনক ক্ষেত্রে, ব্যথা একাধিক সপ্তাহ পর্যন্ত থাকে, এমনকি এক মাস অবধি থাকে এর প্রাথমিক কারণটি হল ইনজেকশন প্রবেশের কারণে সুষুম্না অঞ্চলের স্নায়ুতে আঘাত লাগা অনেক সময় মাথা ব্যথা এবং ঘাড়ে ব্যথা অসহনীয় হয়ে উঠতে পারে এই ধরনের ক্ষেত্রে, চিকিৎসকরা সাধারণত রক্তের প্যাচ ব্যবহার করেন ক্ষেত্রে আপনার নিজের দেহ থেকে কিছু রক্ত নেওয়া হয় এবং অ্যানাস্থেশিয়া দেওয়া জায়গায় সেটিকে আবার ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে ঢুকিয়ে দেওয়া হয় এটি প্রায় তাৎক্ষণিকভাবে ব্যথা থেকে মুক্তি দেয়

সিজারিয়ান পরবর্তী পিঠ ব্যথা কোথায় হয়?

যখন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে কোনও মহিলার সন্তান প্রসবের জন্য সিজারিয়ান পদ্ধতির প্রয়োজন, তখন অ্যানেস্থেশিয়া ইনজেকশনের জন্য প্রস্তুত করা হয় এটি সাধারণত একটি সুষুম্নার সূঁচ ব্যবহার করে দেওয়া হয়, যা পিঠের নীচের অঞ্চলে স্থাপন করা হয়, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সেই অঞ্চলের আশেপাশে যেখানে কটিদেশীয় অঞ্চলের প্রথম মেরুদণ্ডের হাড় অবস্থিত কারণেই অ্যানেস্থেশিয়া চলে যাওয়ার পরে অনুভূত পিঠের ব্যথা তীব্র হয় তরল লিক করার কারণে হওয়া মাথাব্যথা ঘাড়ের ব্যথা মাথা থেকে ঘাড়ের নীচের দিকে যাচ্ছে বলে মনে হয়

কিভাবে সিসেকশনের পর পিঠে ব্যথা মোকাবিলা করতে হয়?

যখন পিঠের ব্যথা খুব শীঘ্রই অস্বস্তি দিতে শুরু করে এবং মাথা ব্যথা ঘাড়ের ব্যথা আরও বেড়ে যায়, এর সাথে শিশুকে নার্সিং করা এবং আপনার শরীরকে আরোগ্য করার নতুন চ্যালেঞ্জও যুক্ত হয়, তখন প্রতি ভুক্তভোগী মহিলাই এটি জানতে চান কীভাবে সি সেকশনের পরে পিঠে ব্যথা কমাতে হয়, যেহেতু ওষুধ গ্রহণ কোনও বিকল্প হতে পারে না

1. উষ্ণ জলে স্নান

উক্তিটি সম্ভবত সত্য এই পৃথিবীতে এমন কোনও কিছুই নেই যা একটি সুন্দর গরম জলের স্নান দিয়ে নিরাময় করা যায় না এটি পিঠে ব্যথা থেকে, বিশেষত এই ধরণের ব্যথা থেকে দুর্দান্ত স্বস্তি আনতে আশ্চর্য কাজ করে স্নানের জলে কিছুটা নুন যুক্ত করা এবং সেটি গুলে নেওয়া একটি দুর্দান্ত আইডিয়া এগুলি পিঠের ব্যথায় প্রভাব ফেলে এবং আপনাকে সহজেই পুনরায় প্রাণবন্ত বোধ করায়

2. সাধারণ ব্যায়াম

প্রসবের আগে এবং পরে আপনার দেহ যে প্রচুর শারীরিক পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যায় সে কারণেও ব্যথা আরও বেড়ে যায় কয়েকটি ব্যায়াম আপনার শরীরকে আরও শক্তিশালী হতে এবং দুর্বলতাগুলি আরও ভালভাবে মোকাবেলা করতে সক্ষম করতে পারে পাইলেট ব্যামগুলি ক্ষেত্রে অত্যন্ত উপকারী হয়, যেহেতু তারা সরাসরি পেটের পেশীগুলিতে কাজ করে আপনি এটি শুরু করার আগে আপনার ডাক্তারের সম্মতি নিন, কারণ কিছু ব্যায়ামের ফলে আপনার সেলাই ফেটে যেতে পারে এবং আরও জটিলতা দেখা দিতে পারে সাধারণ যোগব্যায়াম বা শ্বাস প্রশ্বাসের অনুশীলনগুলিও আপনার শরীরের মধ্যে শান্তভাব আনতে সহায়তা করে

3. সঠিক ভাবে ঘুমানো

আপনার পিঠকে ব্যথার প্রসবের যন্ত্রণা থেকে আরোগ্য করতে সঠিক ধরণের অবস্থান অবলম্বনের প্রয়োজন হতে পারে এটি যেন সমতল হয় এবং খুব নরম না হয় তা নিশ্চিত করুন কিছু নির্দিষ্ট গদির ভিতরে বিশেষ ফোম থাকে বা বাতাস দিয়ে ফোলানো যায়, যার ফলে সেগুলি আপনার দেহের আকারের সাথে মানিয়ে নেয় কোন গদি সবচেয়ে স্বস্তি এনে দেবে এবং আপনার স্বাস্থ্যের জন্যও উপযুক্ত হবে তা জানতে আপনার ডাক্তার বা চিকিৎসকে সাথে কথা বলুন

4. গরম এবং ঠাণ্ডা

উষ্ণ চিকিৎসার সাথে শীতল চাপ অদলবদল করে প্রয়োগ করলে পেশীগুলি শিথিল করতে এবং ব্যথার জায়গায় রক্ত সঞ্চালন বাড়াতে সহায়তা করে এটি করার জন্য একটি সাধারণ হিটিং প্যাড এবং এক প্যাক বরফ ব্যবহার করুন

সিসেকশনের পরে পিঠের সমস্যাগুলি মাঝে মাঝে বেশ বিরক্তিকর হয়ে উঠতে পারে, আপনাকে সন্তানের যত্ন নেওয়া এবং নার্সিংয়ে মনোযোগ দেওয়ার থেকে দূরে সরিয়ে দিতে পারে প্রাকৃতিক প্রতিকারের ব্যবহার করলে এবং খুব গুরুতর ক্ষেত্রে রক্তের প্যাচ ব্যবহার করলে, দ্রুত স্বস্তি নিয়ে আসতে পারে এবং আপনাকে মা হওয়ার যাত্রা শুরু করতে সহায়তা করতে পারে