হাত-পা-মুখের রোগ (HFMD)-এর ২০টি কার্যকারী ঘরোয়া প্রতিকার

হাত-পা-মুখের রোগ (HFMD)-এর ২০টি কার্যকারী ঘরোয়া প্রতিকার

হাত,-পা-মুখের রোগ (এইচএফএমডি) একটি সংক্রামক ভাইরাল রোগ, যা দশ বছরের কম বয়সী শিশুদের প্রভাবিত করে । এটি ‘কক্সস্যাকি’ নামক এক ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট হয় । আধোয়া হাতের সংস্পর্শে এলে, পৃষ্ঠদেশ মলে কলুষিত হলে, সংক্রামিত ব্যক্তির মল থেকে অথবা শ্বাসপ্রশ্বাসের মাধ্যমে তরল বা মল প্রবেশ করলে এই ভাইরাল সংক্রমণ হয়ে থাকে । এই রোগের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে জ্বর, গলায় ব্যাথা, ক্লান্তি, বেদনাদায়ক আলসার, মুখ এবং জিহ্বার ভিতর ব্যাথা, এবং হাত-পা-নিতম্ব, কনুই এবং হাঁটুর পিছনে ফোস্কা বা র‍্যাসও অন্তর্ভুক্ত । এই রোগটি নিজেই কমে যায় এবং এক সপ্তাহ থেকে দশ দিনের মধ্যে নিজেই চলে যায় । এটি কোন টিকা বা ঔষধে নিরাময় করা যাবে না । তবে, কিছু ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে, যা আপনার সন্তানকে এই রোগের উপসর্গগুলির মোকাবিলা করতে সহায়তা করতে পারে । যখন আপনার সন্তানের নিরাময় হয়, এই রোগটির আর ফিরে আসার সম্ভাবনা বিরল হয়, কারণ তার দেহটি এই ভাইরাসটির বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষা বিকশিত করেছে । এই সংক্রমণ ছড়াতে বাধা দেওয়ার জন্য শিশুদের ভাল স্বাস্থ্যবিধি শেখানো উচিত । বাথরুম ব্যবহার করে তাদের হাত সাবান দিয়ে ধোয়াতে উত্সাহিত করা উচিত । খাবার আগে তাদের হাত ভালোভাবে ধোয়া উচিত ।

aniview

শিশুর হাত-পা-মুখের রোগের ঘরোয়া প্রাকৃতিক প্রতিকার

হাত, পা এবং মুখের রোগের চিকিৎসার জন্য কিছু ঘরোয়া প্রতিকার নীচে উল্লেখ করা হয়েছে

হাত, পা এবং মুখের রোগের চিকিৎসার জন্য কিছু ঘরোয়া প্রতিকার নীচে উল্লেখ করা হয়েছে:

১) নরম নারকেল বা ডাবের জল

ডাবের জল শরীরকে শীতল করে এবং পেটকে নম্র করে । এটি ভিটামিন, খনিজ, ইলেক্ট্রোলাইট এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলিতে ভরপুর । এতে লরিক এসিড রয়েছে, যা ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করে । HFMD- যুক্ত সন্তানকে ডাবের জল দেওয়ার মাধ্যমে মুখের মধ্যে ব্যথা থেকে পরিত্রাণ দেওয়া যায় এবং তার শরীরকে হাইড্রেটেড রাখা যায় । আপনি ডাবের জলকে ফ্রিজে ঠান্ডা করতে পারেন এবং আপনার সন্তানকে মুখের ত্বকের ব্যাথা হ্রাস করার জন্য বরফের কিউবগুলিকে চুষতে দিতে পারেন ।

২) তেলের কুলকুচি

এটি মুখের স্বাস্থ্য বজায় রাখার জন্য একটি পুরনো আয়ুর্বেদিক পদ্ধতি । এটি এইচএফএমডি দ্বারা সৃষ্ট মুখের ফুসকুড়ি ও ব্যাথাকে শান্ত করতে সহায়তা করে । চিনাবাদাম, তিল বা নারকেলের মতো তেলের এক টেবিল চামচ নিন এবং আপনার বাচ্চাকে ৫ থেকে ১০ মিনিটের জন্য তার মুখের মধ্যে এদিক ওদিক (কুলকুচি) করতে দিন এবং তারপর থুথু ফেলে দিতে বলুন । কুলকুচির পর সে যেন তেল গিলে না ফেলে, তা নিশ্চিত করুন ।

৩) কড-লিভার তেল

কড-লিভার তেলে ভিটামিন এ, ডি, এবং ই রয়েছে । এটি দেহের অনাক্রম্যতাকে বাড়িয়ে তোলে এবং এতে মাইক্রোবায়ালের বৈশিষ্ট্য রয়েছে । এটা এইচএফএমডি-র জন্য একটি ভাল প্রতিকার । এই তেল ক্যাপসুলের আকারে অথবা একটি রস বা দইতে মিশিয়ে দেওয়া যেতে পারে ।

৪) একেনেশিয়া

একেনেশিয়া একটি ঔষধি, জেটি ডেজি পরিবারের অন্তর্গত । এটি মাইক্রোবায়োলের বৈশিষ্ট্য আছে । এই ঔষধি অনাক্রম্যতার প্রক্রিয়াকে দ্রুততর করে এবং জ্বর, ঠান্ডা, এবং এইচএফএমডি-র মতো অন্যান্য সংক্রমণের উপসর্গ হ্রাস করে । একেনেশিয়াকে ক্যাপসুলের আকারে বা জলে ফুটিয়ে চা বানিয়ে এবং এতে মধু যুক্ত করে খাওয়া যেতে পারে ।

৫) ল্যাভেন্ডার তেল

ল্যাভেন্ডার তেল একটি খুব ভাল জীবাণুনাশক এবং ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করে । এতে শান্তিদায়ক ও আরামদায়ক বৈশিষ্ট্য আছে এবং আপনার সন্তানের ভাল ঘুম হতে সাহায্য করতে পারে । আপনি আপনার সন্তানের স্নানের জলে ল্যাভেন্ডার তেলের কয়েকটি ড্রপ যোগ করতে পারেন অথবা তার ঘরে এটি একটি এসেনশিয়াল তেল ডিফিউজার দিয়ে ছড়িয়ে দিতে পারেন ।

৬) লেবুর এসেনশিয়াল তেল

লেবুর এসেনশিয়াল তেল অন্য একটি জীবাণুনাশক । আপনি ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করতে সাহায্য করতে, এই তেলের কয়েকটি ড্রপ আপনার সন্তানের বডি ওয়াসের সাথে যুক্ত করতে পারেন এবং এতে তার ত্বকেও পুষ্টি হয় । আপনি নারকেল বা জলপাই তেলের মতো সংবাহক তেলে কয়েক ড্রপ মেশাতে পারেন এবং এটি র‍্যাসগুলিতে প্রয়োগ করতে পারেন ।

৭) যষ্টিমধুর শিকড়

যষ্টিমধুর শিকড়ে ভাইরালবিরোধী বৈশিষ্ট্য থাকে এবং বিভিন্ন ভাইরাল সংক্রমণের চিকিত্সায় একটি ঘরোয়া প্রতিকার হিসাবে ব্যবহার করা হয় । এতে টিটারপেনয়েড নামে একটি রাসায়নিক রয়েছে, যা অনাক্রম্যতা বাড়ায় । এটি গলা এবং খাদ্যনালীর অভ্যন্তরে শ্লেষ্মার একটি পাতলা স্তর গঠন করে, এইভাবে ফোসকা প্রশমিত করতে সাহায্য করে । জলে কিছু যষ্টিমধুর শিকড় ফোটান, ছেঁকে চা বানান, তাতে মধু যোগ করুন, তারপর তা আপনার সন্তানকে দিন । তবে, সতর্কতার সাথে এটি ব্যবহার করুন, কারণ, অত্যধিক পরিমাণে যষ্টিমধু তার কাছে ক্ষতিকর হতে পারে ।

৮) লবন জল দিয়ে ধোয়া এবং স্নান করা

আপনার সন্তানকে দিনে তিন থেকে চার বার উষ্ণ লবণের জল দিয়ে মুখ ধুতে বলুন, কারণ এটি তাকে বেদনাদায়ক ফোস্কা এবং মুখের ঘা থেকে পরিত্রাণ দেয় । আপনি এতে সাধারণ লবন বা হিমালয়ের গোলাপী লবণ ব্যবহার করতে পারেন । গোলাপী লবণটি বেশি কার্যকরী, কারণ এটি মুখের ভিতরে পিএইচ স্তরের ভারসাম্য বজায় রাখে । এছাড়াও, স্নানের জলে এপসম লবণ যোগ করলে শরীরের উপরের র‍্যাসগুলি প্রশমিত করতে পারে এবং এইচএফএমডি-র উপসর্গগুলির থেকে দ্রুত একটি শিশুকে নিরাময় করতে সহায়তা করে । আপনি এপসম লবণ দেওয়া স্নানের জলে ল্যাভেন্ডার বা লেবুর এসেনশিয়াল তেলের কয়েকটি ড্রপ যোগ করতে পারেন, আপনার সন্তানের প্রচুর পরিমাণে অব্যহতি পাবে ।

৯) রসুন

রসুন একটি শক্তিশালী অ্যান্টিমাইক্রোব্যায়োল, কারণ, এতে সালফার যৌগগুলি উচ্চ মাত্রায় রয়েছে । আপনি খাবারের মধ্যে রসুন অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন, ক্যাপসুলের আকারে আপনার সন্তানকে দিতে পারেন, অথবা জলে রসুনের ৩টি কোয়া দিয়ে একটি ভেষজ চা বানিয়ে নিন এবং একবার ঠান্ডা হলে তাকে পান করান ।

১০) এল্ডারবেরি

এল্ডারবেরি তার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যের জন্য বেশ পরিচিত, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উন্নতি করে এবং বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ করে । এটি ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করতে শরীরকে শ্লেষ্মা তৈরি করতে সাহায্য করে । এটি শরীরের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি করে, ফলে ভাইরাসগুলি বৃদ্ধি পেতে এবং ছড়াতে পারে না । একটি এল্ডারবেরি এবং মধুর সিরাপ তৈরি করুন এবং আপনার ছোট্ট দেবদূতকে ঘন ঘন দিন, এটি HFMD থেকে দ্রুত নিরাময় করতে সাহায্য করবে ।

১১) আদা

আদাতে বেশ কয়েকটি ভাইরাল-বিরোধী রাসায়নিক রয়েছে । এটির ঘুমের ওষুধের মতো এবং ব্যথা-প্রশমনের প্রভাব রয়েছে । চূর্ণ, কাটা আদা জলে মিশিয়ে ফোটাতে হবে যতক্ষণ না জল ঘন হয়ে আসে, এইভাবে আদা-চা তৈরি করুন । এটি ঠাণ্ডা করে এবং মধু দিয়ে আপনার সন্তানকে দিন ।

১২) অ্যাস্ট্রাগ্যালেস

অ্যাস্ট্রাগ্যালেস লেবু পরিবারের একটি উদ্ভিদ এবং শতাব্দী ধরে ঐতিহ্যগত চীনা ওষুধ হিসাবে ব্যবহার করা হয়েছে । এটি তার রোগপ্রতিরোধ প্রক্রিয়াকে দ্রুত করার বৈশিষ্ট্যের জন্য পরিচিত । এটি শরীরের মধ্যে ভাইরাসের সংখ্যাবৃদ্ধি বন্ধ করে । আপনি টপিক্যাল অ্যাপ্লিকেশনের জন্য অ্যাস্ট্রাগ্যালেস মলম কিনতে পারেন । আপনি অ্যাস্ট্রাগ্যালেস টি-ব্যাগ কিনতে পারেন অথবা নিয়েই তৈরি করতে পারেন, এক চাচামচ অ্যাস্ট্রাগ্যালেস মূলের কুচি জলে দিয়ে গ্যাস সিমে করে গরম করে নিন । HFMD-এর উপসর্গগুলি শান্ত করার জন্য, এটি ছেঁকে নিয়ে মধু যোগ করার পরে আপনার সন্তানকে এই পানীয় দিন ।

১৩) নারকেল তেল

নারকেল তেলে অ্যান্টিভাইরাল বৈশিষ্ট্য আছে । আপনার সন্তানের গায়ে যেখানে র‍্যাস এবং ফোসকা রয়েছে, সেই জায়গাগুলিতে নারকেল তেল প্রয়োগ করতে পারেন এবং শীঘ্রই সেগুলি অদৃশ্য হয়ে যাবে । কেউ কেউ, মুখের ভিতর এক টেবিল চামচ নারকেল তেল ব্যবহার করে কুলকুচি করতে এবং তারপর সেটি ফেলে দিতে পরামর্শ দেন, এতে মুখের ফোসকা ঠাণ্ডা হয় । যদি আপনার সন্তান এটিকে আরামদায়ক মনে করে, তবে আপনি এই প্রতিকারের চেষ্টা করতে পারেন ।

১৪) নিম

নিম বা ইন্ডিয়ান লিলাকের বেশ কয়েকটি অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে এবং শত শত বছর ধরে ভাইরাল রোগের চিকিৎসার জন্য এটি ব্যবহার হয়ে আসছে । আপনি আপনার সন্তানের শরীরের র‍্যাসগুলির উপর নিম তেল প্রয়োগ করতে পারেন । এছাড়াও আপনি নিমের পাতা শুকিয়ে গুঁড়ো করে জল মিশিয়ে পেস্ট করতে পারেন । দ্রুত নিরাময় জন্য র‍্যাস এবং ফোসকায় এই পেস্ট প্রয়োগ করুন । আপনি এমনকি নিম তেলকে নারকেল তেল এবং ল্যাভেন্ডার তেলের কয়েক ড্রপের সাথে মিশিয়ে টপিক্যাল অ্যাপ্লিকেশনের জন্য ব্যবহার করতে পারেন ।

১৫) আমলা বা আমলকী

আমলকী (বৈজ্ঞানিক নাম এমব্লিকা অফিসিয়ানালিস) ভিটামিন সি সমৃদ্ধ, এটি অনাক্রম্যতার জন্য প্রয়োজনীয় একটি গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন । এটি হজম সমস্যার সমাধান করে এবং রক্ত পরিশোধ করতে সাহায্য করে । আমলকী বা আমলা রস আকারে খাওয়া যেতে পারে । আপনি শুকনো আমলকীর গুঁড়ো তৈরি করে এবং এটিতে জল যোগ করে আপনার সন্তানকে দিতে পারেন ।

১৬) ডালিম

ডালিমে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসমূহ এবং যন্ত্রণারোধী যৌগ রয়েছে যা HFMD-এর উপসর্গকে প্রশমিত করতে সাহায্য করে । আপনার সন্তানকে ডালিমের রস পান করান বা দ্রুত নিরাময় জন্য ডালিমের দানা ও বীজ খাওয়ান ।

১৭) আপেল সিডার ভিনেগার

অ্যাপল সাইডার ভিনেগারে ভিটামিন বি এবং সি রয়েছে । এতে ইনুলিন নামক একটি রাসায়নিক রয়েছে, যা আমাদের স্বেত রক্তকণিকা (ডব্লিউবিসি)–এর সংখ্যা বাড়ায় । ডব্লিউবিসি আমাদের শরীরের ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করতে সাহায্য করে । উষ্ণ জলে ২ চা-চামচ আপেল সাইডার ভিনেগার মেশান এবং আপনার সন্তানের গলায় আরাম দিতে তাকে এটা দিয়ে গারগেল করতে বলুন ।

১৮) ক্যালেনডুলা

ক্যালেনডুলা গাঁদার পরিবারের অন্তর্গত একটি ঔষধি । এই গাছে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিভাইরাল বৈশিষ্ট্য আছে । তারা যন্ত্রণা কম করতে, দ্রুত নিরাময় করতে এবং মুখের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সাহায্য করে । আপনি ক্যালেন্ডুলা ফুলের পাপড়ি থেকে চা তৈরি করতে পারেন, এতে মধু যোগ করতে পারেন এবং আপনার সন্তানকে এটি দিতে পারেন । আপনি তাদের র‍্যাসের জ্বালা ঠাণ্ডা করার জন্য সেগুলির উপর আবেদন করতে ক্যালেন্ডুলার ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন ।

১৯) তুলসী

তুলসী একটি ঔষধি, যার বেশ কয়েকটি ঔষধি বৈশিষ্ট্য রয়েছে । এটি ক্ষতিকারক জীবাণুগুলির বিরুদ্ধে লড়াই করে, যন্ত্রণা হ্রাস করে এবং ব্যথা থেকে পরিত্রাণ দেয় । আপনার শিশুকে তুলসীর পাতা চিবোতে দিন বা পাতাগুলির রস তৈরি করুন, জল দিয়ে পাতলা করুন এবং এইচএফএমডি থেকে দ্রুত ত্রাণ পেতে দিনে কয়েকবার পান করতে বলুন ।

২০) অ্যালোভেরা

অ্যালোভেরায় অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বিশিষ্ট আছে । এটি অনাক্রম্যতা বৃদ্ধি করে । অ্যালোভেরাতে খনিজ, ভিটামিন এবং ত্বকের জন্য উপকারী অন্যান্য কয়েকটি যৌগ রয়েছে । আরামদায়ক উপশমের জন্য র‍্যাস এবং ফোসকায় অ্যালোভেরা জেল প্রয়োগ করুন । আপনি এইচএফএমডি থেকে দ্রুত নিরাময় করতে সাহায্য করার জন্য আপনার সন্তানকে অ্যালোভেরা রসও দিতে পারেন ।

হাত, পা, এবং মুখের রোগের উপসর্গগুলি শিশুকে খুব অস্বস্তিকর এবং উত্তেজিত করে তুলতে পারে । র‍্যাস এবং ফোসকাগুলি শিশুদের জন্য খুব বেদনাদায়ক হতে পারে । সুতরাং, উপসর্গগুলি শান্ত করতে এবং আপনার সন্তানকে যতটা সম্ভব আরাম দেওয়ার জন্য এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলি চেষ্টা করুন ।