২১ মাস বয়সী শিশুর খাদ্য – ধারণা, তালিকা এবং রেসিপি

২১ মাস বয়সী শিশুর খাদ্য

পুষ্টিকর ভোজনের এবং খাওয়ানোর বিষয় যখন আসে তখন হাঁটতে শেখা শিশুরা একটি চ্যালেঞ্জ হতে পারে। এই সময় তারা স্বতন্ত্রতা এবং তারা কি খাবে তা নিয়ন্ত্রণ করার প্রচেষ্টার বিকাশ শুরু করে। এই ধরনের উন্নয়নমূলক মাইলফলকে তাদের সঠিক খাবার খাওয়ানো পিতামাতার জন্য সংগ্রাম হতে পারে। নিয়ন্ত্রিত খাবারের সাথে শিশুর সমর্থন করা গুরুত্বপূর্ণ এবং নিয়ন্ত্রণে থাকা সীমানা নির্ধারণ করা গুরুত্বপূর্ণ।

aniview

২১ মাস বয়সী শিশুর জন্য পুষ্টির প্রয়োজনীয়তা

নীচে কয়েকটি পুষ্টি তালিকাভুক্ত রয়েছে যা ২১ মাস বয়সের শিশুদের জন্য অপরিহার্য:

১) কার্বোহাইড্রেট

মস্তিষ্কের জ্বালানি হিসাবে কার্বোহাইড্রেট থেকে পাওয়া গ্লুকোজ ব্যবহার করা হয়। ২১ মাস বয়সী শিশুর প্রয়োজনীয় কার্বোহাইড্রেটের পরিমাণ ১৩০ গ্রাম। প্রাপ্তবয়স্ক মস্তিষ্কের সঠিকভাবে কাজ করার জন্য এটি একই পরিমাণ লাগে।

২) প্রোটিন

বাচ্চাদের একটু কম প্রোটিনযুক্ত খাদ্য প্রয়োজন। একটি বাচ্চার প্রতি দিন মাত্র ১৩ গ্রাম প্রোটিনের প্রয়োজন।

৩) চর্বি বা ফ্যাট

বাচ্চাদের জন্য ফ্যাট একটি অপরিহার্য পুষ্টি। এগুলি শরীরে প্রয়োজন, কারণ ফ্যাটে দ্রাব্য ভিটামিন শোষণ, কোষ গঠন, পেশীর আন্দোলন এবং রক্ত জমাট বাঁধতে এটি প্রয়োজন হয়।

৪) সোডিয়াম

সোডিয়াম শরীরের একটি ইলেক্ট্রোলাইট হিসাবে কাজ করে, এবং স্নায়ুর ক্রিয়াকলাপ, পেশীর সংকোচনের জন্য এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করার জন্য এটি অপরিহার্য। সর্বোত্তম কাজ করার জন্য একটি শিশুর প্রতি দিনে অন্তত ১ গ্রাম প্রয়োজন।

সোডিয়াম ইলেক্ট্রোলাইট হিসাবে কাজ করে

৫) লোহা

রক্তের মাধ্যমে অক্সিজেন বহন করে যে লাল রক্তের কোষ, তা তৈরির জন্য লোহা প্রয়োজন। আয়রন অপূর্ণতায় ঘন ঘন সংক্রমণ, ক্লান্তি, এবং ফ্যাকাশে ত্বক হতে পারে। হাঁটতে শেখা বাচ্চাদের প্রতিদিন ৭ এমজি লোহা প্রয়োজন।

৬) ক্যালসিয়াম

ক্যালসিয়াম হাড়, দাঁত এবং এমনকি হৃদয়ের ক্রিয়াকলাপের বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয় একটি গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টিকর উপাদান। ৩ বছর বয়সের বাচ্চার প্রতিদিন ৭০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম প্রয়োজন।

৭) ভিটামিন ডি

শরীর দ্বারা ক্যালসিয়াম শোষণ এবং ব্যবহারের জন্য ভিটামিন ডি অতীব গুরুত্বপূর্ণ। শিশুদের প্রতিদিন ৩০০-৩০০ ইউনিট ভিটামিন ডি প্রয়োজন।

৮) জল

২১ মাস বয়সের বাচ্চাদের ১.৩ লিটার জল দরকার যা বিভিন্ন উৎস থেকে আসা উচিত, যেমন পানীয়, খাদ্য থেকে এবং দুধের মধ্যে থাকা জল। আপনার শরীরের ওজনের ৭০-৭৫% জল গঠন করে এবং বড় অণু গঠন, অন্যান্য পুষ্টি পরিবহন, অঙ্গগুলিকে পিচ্ছিল ও নরম করা এবং শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দেওয়ার জন্য প্রয়োজন।

একটি ২১ মাস বয়সী বাচ্চার করটা খাদ্য প্রয়োজন?

বৃদ্ধি হ্রাসের কারণে সদ্যজাতদের তুলনায় এই বাচ্চাদের কম ক্যালোরির প্রয়োজন। তাদের আকার, শারীরিক কার্যকলাপ স্তর এবং বয়সের উপর নির্ভর করে, হাঁটতে শেখা বাচ্চাদের প্রতি দিন ১০০০ থেকে ১৪০০ ক্যালোরি প্রয়োজন। এটি প্রায় অর্ধেক কাপ চাল, ১ টি ছোট ফল, ১ কাপ মশলা দেওয়া বা রান্না করা সবজি, ১টি ডিম এবং ১ কাপ দুধ প্রতি দিন পূর্ণ করে। এই বাচ্চাদের এছাড়াও তাদের খাবারে একটি স্বাস্থ্যকর পরিমাণে তেল প্রয়োজন।

২১মাসবয়সী শিশুর জন্য সেরা খাবার

বাড়িতে তৈরি খাবার যা যথা সম্ভব কম প্রক্রিয়াকরণে করা হয়। সেগুলি পুষ্টিকর চাহিদা মেটাতে শিশুদের জন্য সবচেয়ে ভাল উপায়। ২১-মাস-বয়সী শিশুদের জন্য সেরা খাবারের কিছু নীচে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে:

১) রান্না করা ডিম

ডিমগুলি সিদ্ধ করে বা ভুজিয়া করা যায় এবং মাখন বা চীজ দিয়ে পরিবেশন করা যেতে পারে।

২) ব্রেড রোলস

ব্রেডের একটি স্লাইস সমান করে কাটুন এবং মাখন লাগান। রোল করে ফিঙ্গার সুড হিসাবে দিন।

৩) রাভা বা সুজির ডোসা

এক মুঠো মতো রাভা বা সুজি যোগ করে এটি আপনার নিয়মিত ডোসাটি তৈরি করুন।

৪) ইডলি

আপনার বাচ্চাকে শুধু ইডলি খাওয়ান বা একটি মসলাহীন চাটনির সঙ্গে এটি পরিবেশন করুন।

৫) উপমা

মটরশুটি এবং গাজর দিয়ে তৈরি রাভা বা সুজির উপমা তৈরি করা যায় এবং ঘি ছড়িয়ে পরিবেশন করা যায়।

রাভা বা সুজির উপমা

৬) পনির পরোটা

নরম, পনির ভরা পরটাগুলি আপনার বাচ্চাকে আরো খাওয়ার জন্য অপক্ষা করাতে পারে!

৭) টমেটো স্যুপে ক্রিম

ক্রিমের ড্যাশ দিয়ে বিশুদ্ধ টমেটো স্যুপ আপনার সন্তানের জন্য স্বাস্থ্যকর এবং সুস্বাদু খাবার তৈরি করবে।

৮) কলার প্যানকেক

প্যানকেকের উপর চটকানো কলাতে তার খাওয়ার ইচ্ছা বাড়ানোর জন্য একটু মধু ছড়িয়ে পরিবেশন করা যেতে পারে।

৯) ফল

মরশুমের যেকোন ফলের একটি মিশ্র বাটি আপনার বাচ্চাদের পুষ্টিকর ভোজনের উন্নতি করতে সাহায্য করবে।

১০) মুসুর ডালের ডোসা

এটি একটি স্বাস্থ্যকর ডোসার বিকল্প, এটি সুস্বাদু করতে দই বা মাখন দিয়ে পরিবেশন করা যেতে পারে।

২১ মাস বয়সী শিশুর খাবারের তালিকা / পরিকল্পনা

তাদের দেওয়া সমস্ত নতুন খাবারে একটি কামড় দিতে আপনার বাচ্চাদের উৎসাহিত করুন। এখানে ২১ মাস বয়সী ভারতীয় শিশুর জন্য একটি প্রস্তাবিত খাদ্য তালিকা রয়েছে।

দিন / MEAL প্রাক ব্রেকফাস্ট ব্রেকফাস্ট সকালের স্ন্যাক দুপুরের খাবার সন্ধ্যার স্ন্যাক রাতের খাবার
সোমবার ১ গ্লাস দুধ + ৪টি ভেজানো আমন্ড রাভা বা সুজির পায়েস পেঁপের টুকরো সবজির খিচুড়ি ২টো আটার লাড্ডু ডালিয়ার উপমা
মঙ্গলবার স্বাদযুক্ত দুধ নরম ডোসা বা ইডলির সঙ্গে সাম্বার খরমুজ লুবু দিয়ে ভাত জ্যাম দিয়ে ব্রেডের টুকরো দই দিয়ে ছাতুর পরোটা
বুধবার খরমুজ চটকানো ভেজানো পোহার সঙ্গে দই চিকু বা সবেদার শ্যেক সবজির পোলাও ৪টি বিস্কুটের সঙ্গে গরম দুধ সাম্বার ভাত
বৃহস্পতিবার পোচ করা আপেলের সঙ্গে দুধ ছোট ছোট করে কাটা গাজরের সঙ্গে রাভা উপমা রাগির ফ্লেক্স রুটির সঙ্গে ভিবিন্ন সবজির তরকারি শুকনো ফলের চিক্কি নরম রুটির সঙ্গে পালং শাক
শুক্রবার আমন্ড দিয়ে দুধ ঘন কুচি করা গাজর ও পালং শাক দিয়ে মুগ ডালের চিল্লা ৩টি আটার বিস্কুট দই ভাত এক বাটই মিশ্র ফল রাভা উপমা
শনিবার গাজরের পিউরি ও দুধ দই সহ চাপাটি ছোট কলা ঘি দিয়ে মটরশুঁটির পরোটা রাগির পোরিজ সবজি সহ সাদা সসে পাস্তা
রবিবার সোয়া দুধ রাভা ইডলি কমলা লেবু সবজি ভাত ডাল দিয়ে মিল্ক শ্যেক পনির ও ডাল দিয়ে রুটি

২১ মাস বয়সী শিশুর জন্য খাবারের রেসিপি

এখানে আপনি আপনার ২১ মাসের শিশুর জন্য চেষ্টা করতে পারেন এমন কিছু স্বাস্থ্যকর এবং পুষ্টিকর রেসিপি রয়েছে:

১) আলুর পরোটা

আলুতে উচ্চ কার্বোহাইড্রেট উপাদান থাকে এবং একটি স্টাফযুক্ত পরোটা তেল, কার্বোহাইড্রেট এবং প্রোটিনগুলির একটি ভাল মিশ্রণ সরবরাহ করে।

উপকরণ

  • ১/২ আলু
  • ১/২ কাপ গমের আটা
  • ১ চামচ ঘি বা মাখন
  • ১/২ চামচ তেল
  • প্রয়োজন হিসাবে জল
  • নুন

আলুর পরোটা

কিভাবে তৈরী করতে হবে

আলু ধুয়ে খোসা ছাড়িয়ে সিদ্ধ করে নিন। সেটি চটকে নিন এবং একটি চিম্টি নুন যোগ করুন। একপাশে রাখুন। আটার একটি নরম এবং নমনীয় ডো তৈরি করুন। ডো থেকে একটি ছোট বল নিন এবং এটি রোল করুন। মাঝখানে একটু মাখনযুক্ত আলু রাখুন এবং ঢেকে ফেলে মুড়িয়ে নিন। এখন আবার এটি বেলে নিন । একটি উত্তপ্ত প্যানে তেল দিয়েপরোটা রাখুন এবং উভয় দিক রান্না করে নিন। খাওয়ার আগে উভয় পক্ষের ঘি প্রয়োগ করুন।

২) মধু সঙ্গে আটার প্যানকেক

আটার প্যানকেকগুলি আপনার বাচ্চাটি ভালোবাসবে এমন একটি নরম এবং সুষম খাদ্য আইটেম।

উপকরণ

  • ১ কাপ গমের আটা
  • ১ চা চামচ লবণ
  • ১ টেবিল চামচ চিনি
  • ১ কাপ দুধ
  • ১টি ডিম
  • ১ চামচ গলিত মাখন

মধু সঙ্গে আটার প্যানকেক

কিভাবে তৈরী করতে হবে

একটি মিশ্রণ বাটির মধ্যে, একসঙ্গে আটা, বেকিং পাউডার, নুন, চিনি যোগ করুন এবং ভালভাবে মিশ্রিত করুন। কেন্দ্রে একটি গর্ত করুন এবং দুধ, ফেটানো ডিম ও গলিত মাখন ঢালুন। আপনি একটি মসৃণ ব্যাটার তৈরি না হওয়া পর্যন্ত ভাল করে মাখুন। একটি প্যান গরম করুন এবং এক হাতা ব্যাটার ঢালুন। উভয় দিক বাদামী করে ভাজুন এবং মধু দিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

৩) পোঙ্গাল

পোঙ্গালটি স্বাস্থ্যকর কারণ এতে প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট এবং ফ্যাট থাকে।

উপকরণ

  • ১ কাপ চাল
  • ১/২ কাপ মুগ ডাল
  • ১ চা চামচ জিরা
  • ৫-৭টি কাড়ি পাতা
  • ১/৪ ইঞ্চি আদা কুচি
  • ১ চা চামচ ঘি

পোঙ্গাল স্বাস্থ্যকর

কিভাবে তৈরী করতে হবে

১/২ ঘন্টার জন্য চাল ভিজিয়ে রাখুন। শুকনো খোলায় মুসুর ডাল ভেজে নিন এবং একপাশে রাখুন। কুকারের মধ্যে জিরা ফোড়ন দিন। কাড়ি পাতা ও আদা দিয়ে নাড়াচাড়া করুন। ৫ কাপ জল দিয়ে চাল ও ডাল যোগ করুন এবং 5 টি সিটি পর্যন্ত রান্না করুন। ৫ মিনিটের জন্য অল্প আঁচে রাখুন। গ্যাস বন্ধ করুন। ঠান্ডা করুন এবং মিশ্রণটি চটকে নিন। শিশুর খাওয়ার আগে পাতাগুলি সরিয়ে নিন।

৪) চিকেন স্যুপ

চিকেন স্যুপের একটি উষ্ণ কাপ স্বাস্থ্যের জন্য ভাল, তেমনই আত্মার তুষ্টির জন্যও ভাল বলা হয়।

উপকরণ

  • হাড় সহ ১/৪ কেজি চিকেন
  • ১টি ছোট তেজ পাতা
  • ১টি মাঝারি মাপের দারুচিনি
  • ২টি লবঙ্গ
  • ১/৪ চা চামচ জিরা
  • ১/৪ চা চামচ আদা বাঁটা
  • ৪ কোয়া রসুন ছোট্ট করে কুচি করা
  • ১টি মাঝারি পেঁয়াজ ছোট্ট করে কাটা
  • ১ চা চামচ ধনে পাতা
  • নুন
  • ১ চা চামচ ঘি
  • ২ কাপ জল

চিকেন স্যুপ

কিভাবে তৈরী করতে হবে

মুরগির মাংস পরিষ্কার করুন এবং ছোট ছোট টুকরো করে কেটে নিন। আদা, রসুন এবং পেঁয়াজ ছোট্ট ছোট্ট করে কেটে নিন। একসঙ্গে জিরা, অর্ধেকটা পেঁয়াজ এবং ধনে পাতা পেস্ট করুন। একটি কুকারে গরম ঘি, জিরা দিয়ে নাড়াচাড়া করুন এবং দারুচিনি ও লবঙ্গ দিন। অবশিষ্ট পেঁয়াজ, আদা ও রসুন কুচি দিন এবং পেস্টে যোগ করুন। এটার কাঁচা গন্ধ না যাওয়া পর্যন্ত ভাজুন। এখন কয়েক মিনিটের জন্য অবশিষ্ট উপাদান যোগ করুন এবং নাড়াচাড়া করুন। জল যোগ করুন এবং ৪টি সিটি পর্যন্ত কুকারে রান্না করুন। ২-৩ মিনিটের জন্য সিদ্ধ করুন এবং গ্যাস বন্ধ করুন। শিশুর খাওয়ার আগে একটি ছাকনি দিয়ে স্যুপ ছেঁকে নিন।

৫) ক্রিম সসে পাস্তা

ক্রিম সস দিয়ে রান্না করা সমগ্র গমের পাস্তা আপনার বাচ্চার জন্য একটি স্বাস্থ্যকর এবং সুস্বাদু খাবার।

উপকরণ

  • ১ কাপ ম্যাকরনি বা ফুসিলি
  • ১/২ কাপ তাজা ক্রিম
  • ১/২ কাপ চীজ
  • ১ টেবিল চামচ আটা
  • ১ চা চামচ মাখন
  • ১/২ কাপ দুধ
  • ডাল
  • নুন
  • ১ চা চামচ জলপাই বা অলিভক্রিম সসে পাস্তা

কিভাবে তৈরী করতে হবে

পাস্তা নুন ও ১ চামচ তেল দিয়ে সিদ্ধ করে নিন। ঠান্ডা জল দিয়ে পাস্তা শুয়ে নিন এবং একপাশে রাখুন। একটি প্যানে মাখন যোগ করুন এবং এটি গলিয়ে নিন। আটা যোগ করুন এবং নাড়াচাড়া করুন। এটা যেন পুড়ে না যায়। ময়দায় দুধ যোগ করুন এবং যাতে কোন ডেলা না তাকে ততক্ষণ নাড়াচাড়া করুন। এটিকে ফুটতে দিন এবং ঘন হওয়ার জন্য ও সস কমানোর জন্য হালকা আঁচে ফুটতে দিন। মটরশুটি, নুন, গ্রেট করা চীজ ও তাজা ক্রিম যোগ করুন এবং মটরশুটি নরম না হওয়া পর্যন্ত এটি গরম করুন। পাস্তা যোগ করুন এবং সসের মধ্যে এটি নাড়াচাড়া করুন। ঠাণ্ডা হতে দিন এবং সুবাস দিতে কয়েকটি জলপাই বা অলিভ যোগ করুন।

খাওয়ানো টিপস

খাবারের সময়ের লড়াইকে হ্রাস করতে সাহায্য করার জন্য এখানে কিছু খাওয়ানো টিপস রয়েছে:

  • একটি বাচ্চা নিয়ন্ত্রণ খোঁজে, তারা নিজে নিজে খেতে পারে এমন খাবার চায়। তাদের কামড় দিতে সুবিধা হয় এমন খাবার বা আঙুল দিয়ে ধরে খাওয়ার খাবার দিন।
  • লোহা শোষণ সক্ষম করতে খাদ্য যেন ভিটামিন সি সমৃদ্ধ হয় তা নিশ্চিত করুন।
  • খাবার সময় একটি যুদ্ধক্ষেত্র না। যখন আপনি খাওয়ার জন্য আপনার বাচ্চাদের জোর করার চেষ্টা করলে, এটি একটি প্রাকৃতিক প্রতিরোধ হবে।
  • ফলের রস খাওয়া সীমিত করুন এবং পরিবর্তে তাদের ফল খেতে দেওয়া উচিত।
  • খাদ্য শেষ করার জন্য পুরস্কার হিসাবে আপনার বাচ্চাদের তাদের মিষ্টি ঘুষ দেওয়ার প্রলোভন দেখাবেন না।
  • ৩ বার বড় খাবারের পরিবর্তে কয়েকবার অল্প অল্প খাবার দেওয়ার চেষ্টা করুন। এটি বিভিন্ন পুষ্টি সরবরাহ করে এবং আপনার বাচ্চা যেন ক্ষুধার্ত বোধ না করে তাও দেখে।
  • নরম খাবার দিয়ে শুরু করুন এবং ধীরে ধীরে মাংসের মতো শক্ত খাবার যোগ করুন।
  • আপনার সন্তানের খাবার সময় বসতে দিন এবং ঘুরে বেড়াতে উৎসাহিত করবেন না।
  • গল্প বলার দ্বারা তাদের খাবার সময়টাকে মজার করুন। একটি টেলিভিশনের সামনে খাওয়ায় উৎসাহিত করবেন না কারণ এটি স্বাদ এবং টেক্সচার বোঝার প্রক্রিয়ায় বাধা দেয়।
  • নতুন খাবার চেষ্টা করার জন্য আপনার বাচ্চাদের প্রশংসা করুন কিন্তু তারা যা পছন্দ করে না তা জোর করে খেতে দেবেন না।

২১ মাস বয়সী বাচ্চারা পরীক্ষামূলক এবং কঠিন হতে পারে। এটাকে আপনার উপর চাপ দিতে দেবেন না। বুঝতে হবে যে সব শিশু একই রকম নয়, এবং তাদের ক্ষুধা ও স্বাদ তাদের মেজাজ অনুযায়ী পরিবর্তিত হয়। আপনি কিছু যুদ্ধে হেরে যাবেন, কিন্তু ধৈর্যের সঙ্গে, আপনাকে একটি বাচ্চার লালনপালন করতে হবে, যারা খাদ্যের মধ্যে বিভিন্ন আগ্রহ আছে এবং একটি অভিযোজিত স্বাদবোধের সঙ্গে বড় হচ্ছে।