গর্ভপাতের পরে পিরিয়ড বা মাসিক- লক্ষণ, পরিবর্তন এবং স্ব-যত্নের পরামর্শ

গর্ভপাতের পরে পিরিয়ড বা মাসিক- লক্ষণ, পরিবর্তন এবং স্ব-যত্নের পরামর্শ

কিছু মহিলা গর্ভপাতের পরে তাদের পরবর্তী পিরিয়ডের বা মাসিকের কথা ভেবে কিছুটা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন। প্রতিটি মহিলার আরোগ্যের প্রক্রিয়া আলাদা হতে পারে কারণ এটি কিছু বিষয়ের উপর নির্ভর করে, যেমন গর্ভপাতের পরে তাদের দেহ কীভাবে মানিয়ে নেয়, গর্ভপাতের পরে তারা তাদের স্বাস্থ্যের যত্ন কতটা ভাল করে নেন এবং গর্ভপাতের আগে পর্যন্ত তাদের গর্ভাবস্থা কতটা এগিয়ে গিয়েছিল।

aniview

তবে গর্ভপাতের পরে ঐ কারণে রক্তপাত এবং প্রক্রিয়াটির পরে নিয়মিত পিরিয়ড শুরুর মধ্যে পার্থক্যটি বোঝা গুরুত্বপূর্ণ। অস্ত্রোপচারের গর্ভপাতের ক্ষেত্রে, প্রক্রিয়াটির পরে রক্তপাত হওয়া স্বাভাবিক, তবে এটি ঋতুস্রাব বলে যেন ভুল না হয়।

অধিকন্তু, গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে হওয়া গর্ভপাতগুলি শারীরিক এবং মানসিক উভয় দিক থেকেই স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সমস্যা তৈরীকরতে পারে। মোট কথা, বেশিরভাগ মহিলার সাধারণত গর্ভপাতের পরে অনিয়মিত বা বিলম্বিত পিরিয়ড বা মাসিক হয়ে থাকে।

মেডিকেল গর্ভপাত বনাম সার্জিকাল গর্ভপাত

সার্জিকাল এবং মেডিকেল গর্ভপাতের মধ্যে পার্থক্য কী? আমাদের কাছে আপনার জন্য উত্তর আছে।

সার্জিকালগর্ভপাত

মেডিকেল গর্ভপাত

·এটি এমন একটি প্রক্রিয়া যেখানে ডাক্তার জরায়ু খালি করতে একটি সাকশন পদ্ধতি ব্যবহার করেন · ওষুধের সংমিশ্রণ ব্যবহার করা এমন একটি পদ্ধতি যা জরায়ুর আস্তরণকে খসিয়ে দিতে সহায়তা করে
· আপনার শেষ পিরিয়ড শুরু হওয়ার 14 সপ্তাহ পর পর্যন্ত করা যেতে পারে · আপনার শেষ পিরিয়ড শুরু হওয়ার 9 সপ্তাহ পর পর্যন্ত করা যেতে পারে
· প্রক্রিয়াটির জন্য সাধারণত একবার মাত্র ডাক্তার বাবুর সাথে সাক্ষাৎ করলেই হয় · প্রক্রিয়াটির জন্য সাধারণত একাধিকবার ডাক্তারবাবুর সাথে সাক্ষাৎ করতে হয়
· 98% কার্যকর · 95-97% কার্যকর
· আপনার হালকা খিঁচুনি অনুভব হতে পারে · আপনার জোরালো খিঁচুনি এবং বমি বমি ভাব অনুভব হতে পারে

মেডিকেল গর্ভপাতের চেয়ে সার্জিকাল গর্ভপাতগুলি সাধারণত বেশি নিরাপদ এবং কার্যকর। মেডিকেল গর্ভপাতগুলি দুর্বল হৃদয়ের মানুষদের জন্য নয়; এগুলি ভারী রক্তপাত এবং অপ্রীতিকর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে যা কিছুক্ষণ স্থায়ী হতে পারে। আপনি কোন পথে যাবেন সে সম্পর্কে আপনার চিকিৎসক আপনাকে সঠিক পরামর্শ দিতে সক্ষম হবেন।

গর্ভপাতের পরে পিরিয়ড কখন শুরু হয়?

গর্ভপাতের পরে পিরিয়ড কখন শুরু হয়?

গর্ভপাতের পরে, 2 থেকে 6 সপ্তাহের জন্য কিছু রক্তপাতকে স্বাভাবিক বলে মনে করা হয়। গর্ভপাত পরবর্তী রক্তক্ষরণ শুরুতে সাধারণত প্রচুর পরিমাণে হয় তবে শেষ পর্যন্ত এর পরিমাণকম হয়ে যায়। আরোগ্যে লাভের পর রক্তপাত কমে যায়, গর্ভপাতের পরে দেহ প্রথম পিরিয়ডের জন্য প্রস্তুত হতে শুরু করে যা কয়েক সপ্তাহ সময় নিতে পারে।

যেসব মহিলাদের গর্ভাবস্থার প্রথম ত্রৈমাসিকের সময় গর্ভপাত হয় তাদের গর্ভপাতের পরে 4 থেকে 8 সপ্তাহের মধ্যে প্রথম পিরিয়ড হতে পারে। তবে, আরোগ্যে লাভের জন্য রক্তপাত 8 সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে চললে এবং আপনার পিরিয়ড শুরু না হলে, আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

এটাও মনে রাখা জরুরী যে গর্ভপাতের পরেও শরীরে গর্ভাবস্থার জন্য প্রয়োজনীয় হরমোনের মাত্রা বেশি থাকতে পারে, যা মাসিক চক্রের পরিবর্তনের কারণ হতে পারে। এছাড়াও, গর্ভপাত হওয়া প্রজনন ক্ষমতার উপর প্রভাব ফেলে না। সুতরাং গর্ভপাতের পরে অনিরাপদ যৌনমিলনের ক্ষেত্রে আপনি আবার গর্ভবতী হতে পারেন।

সার্জিকাল / মেডিকেল গর্ভপাতের পরে রক্তপাত সম্পর্কে মনে রাখার বিষয়গুলি

সার্জিকাল / মেডিকেল গর্ভপাতের পরে রক্তপাত সম্পর্কে মনে রাখার বিষয়গুলি

গর্ভপাত হওয়ার পরে রক্তক্ষরণ সম্পর্কে এখানে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মনে রাখা দরকার:

  • একটি সার্জিকাল গর্ভপাত পদ্ধতির পরে, বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে প্রচুর পরিমাণে রক্তপাত, কোনো রক্তপাত না হওয়া বা অনিয়মিত রক্তক্ষরণ হওয়া স্বাভাবিক।
  • মেডিকেল পদ্ধতির মাধ্যমে গর্ভপাত হওয়ার পরে, সার্জিকাল গর্ভপাতের চেয়ে বেশী রক্তপাতকে স্বাভাবিক বলে মনে করা হয়।
  • রক্তপাতের সময় আপনার কিছু টিস্যু বা কলা বেরোতে পারে এবং এটি সাধারণত কয়েক দিন স্থায়ী হয়।
  • আপনার নিয়মিত পিরিয়ড শুরু হতে কিছুটা সময় লাগতে পারে। আপনার শরীর গর্ভপাত প্রক্রিয়া থেকে নিরাময় করতে বা আপনার শরীর থেকে গর্ভাবস্থার হরমোনগুলি বের করে দিতে আরও সময় নিতে পারে। আপনি যদি মানসিক চাপ এবং হতাশায় ভোগেন তবে আপনার পিরিয়ডে বিলম্ব হতে পারে।

গর্ভপাতের পরে মাসিক চক্রের পরিবর্তনগুলি

গর্ভপাতের পরে আপনার ঋতুচক্রের কিছু পরিবর্তন হতে পারে এবং সেগুলি হ’ল :

১. প্রবাহে পরিবর্তন

যদি আপনি কোনও সার্জিকাল প্রক্রিয়ার মাধ্যমে গর্ভপাত করে থাকেন তবে আপনার প্রথম পিরিয়ডে হালকা বা লঘু প্রবাহ হতে পারে। এটি আপনার সাধারণ পিরিয়ডের সময়ের চেয়ে কম দিনের জন্য স্থায়ী হতে পারে। তবে যদি আপনার প্রচুর রক্তপাত হয় যা পরপর কয়েক দিন ধরে অস্বাভাবিকভাবে চলতে থাকে তবে অবশ্যই আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন। যদি আপনার গর্ভপাত মেডিকেল উপায়ের মাধ্যমে করা হয় তবে আপনার একটি ভারী পিরিয়ড হতে পারে।

২. কিছু নতুন লক্ষণ

আপনি দেখতে পেতে পারেন যে গর্ভপাতের পরে আপনার পিরিয়ডগুলি আপনার নিয়মিত পিরিয়ডের থেকে কিছুটা আলাদা প্রকৃতির হয়ে থাকে। আপনি এখন বেদনাদায়ক খিঁচুনি, জমাট রক্তের বড় ডেলা বা গর্ভাবস্থার কিছু উপসর্গ যেমন পিঠের নিচের দিকে ব্যথা, ফোলা স্তন এবং ক্লান্তি অনুভব করতে পারেন। এই পরিবর্তনগুলি কয়েকটি মাসিক চক্রের জন্য স্থায়ী হতে পারে।

৩. অনিয়মিত পিরিয়ড

গর্ভপাতের পরে,সম্ভবত আপনার ঋতুস্রাবের সময়ের অনিয়ম হতে দেখবেন। উদাহরণস্বরূপ, আপনি আপনার পিরিয়ডের 2 সপ্তাহ পরে হালকা রক্তপাত লক্ষ্য করতে পারেন। অস্বাভাবিকতাগুলি শরীরে গর্ভাবস্থাকালীণ হরমোনগুলির উপস্থিতির কারণে ঘটতে পারে।

আপনার যদি কোনও অস্বাভাবিক পিরিয়ড হয় তাহলে?

হঠাৎ করে গর্ভাবস্থার সমাপ্তি আপনার দেহকে বিভ্রান্ত করতে পারে এবং গর্ভাবস্থার হরমোনগুলি থেকে মুক্তি পেয়ে এর আবার নিয়মিত চক্রে ফিরে আসতে কিছুটা সময় নিতে পারে। গর্ভপাতের পরেও শরীরে গর্ভাবস্থার হরমোনের উপস্থিতি ঋতু চক্রের নির্দিষ্ট পরিবর্তন বা বিলম্ব আনতে পারে বা অনিয়মিত পিরিয়ডের কারণ হতে পারে।

আপনার গর্ভপাতের পরে প্রথম পিরিয়ডে রক্তের ডেলা এবং খিঁচুনি সহ, আপনার গর্ভপাতের ধরনের উপর নির্ভর করে প্রচুর বা কম পরিমাণে রক্তপাত হতে পারে। গর্ভাবস্থার সমস্ত অবশিষ্ট টিস্যু বা কলা এবং উৎপন্ন বস্তুগুলি বের করার জন্য দেহ এই পদ্ধতি অবলম্বণ করে।আপনি পরবর্তী কয়েকটি মাসিক চক্রের ক্ষেত্রেও এটি অনুভব করতে পারেন।

মাসিকের সময়কার খিঁচুনির জন্য ওষুধ

আপনার ডাক্তার হালকা মাসিকের খিঁচুনির জন্য আইবুপ্রোফেন, অ্যাসিটামিনোফেন বা নেপ্রোক্সেনের মতো ওভার-দ্য কাউন্টার ব্যথা উপশমকারী গ্রহণের পরামর্শ দিতে পারেন। খিঁচুনি বা রক্তপাত শুরু হওয়ার সাথে সাথে এই ওষুধগুলি গ্রহণ কার্যকর হিসাবে প্রমাণিত হতে পারে। তোয়ালে জড়িয়ে গরম বোতল বা হিটিং প্যাড আপনার পিঠের নিচে বা পেটে রাখলে তা ব্যথা থেকে মুক্তি আনতে পারে। আপনি নিজের পা-কে ঠেসান দিয়ে রাখতে পারেন বা জন্ম নিয়ন্ত্রণের বড়িগুলি গ্রহণের কথা বিবেচনা করতে পারেন, তবে কেবল ডাক্তারবাবুর সাথে পরামর্শের পরেই এটি করুন।

গর্ভপাতের পরে স্ব-যত্নের জন্য পরামর্শ

শারীরিক এবং মানসিক উভয় ভাবেই গর্ভপাত যেকোনও মহিলার উপর আঘাত হানতে পারে। সুতরাং, সম্পূর্ণ আরোগ্যের জন্য গর্ভপাত হওয়ার পরে স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়া জরুরী। কিছু সহায়ক পরামর্শ নিচে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে :

  • পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন এবং একটি স্বাস্থ্যকর ডায়েট বজায় রাখুন।
  • পরিস্থিতির মোকাবিলায় মানসিকভাবে এবংআবেগগত দিক দিয়ে সহায়তার জন্য আপনার পরিবার এবং বন্ধুদের সাথ কথা বলুন।
  • আপনার সঙ্গীর সাথে অসুরক্ষিত মিলন এড়িয়ে চলুন।
  • আপনার ডাক্তারের সাথে নিয়মিত চেক-আপ এবং তার নির্দেশ অনুসরণ করার মাধ্যমে নিজের যত্ন নেওয়া নিশ্চিত করুন।
  • ভারী কোনো জিনিস তোলা এড়িয়ে চলুন।
  • কিছুদিনের জন্য ভারী ব্যায়াম করবেন না।

আপনার ডাক্তারকে কখন ফোন করবেন?

আপনার যদি ভারী রক্তক্ষরণ হয় – এক ঘন্টার মধ্যে দুটি বা আরও বেশি প্যাড ভিজে যায় – বা বেদনাদায়ক খিঁচুনির সাথে বড় রক্তের ডেলা দেখতে পান, তবে দ্রুত আপনার ডাক্তারবাবুর সাথে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। যদি আপনার বেদনাদায়ক খিঁচুনির সাথে টিস্যু বা কলা বের হতে থাকে, যোনি স্রাব দুর্গন্ধযুক্ত হয় বা উচ্চ তাপমাত্রা সাথে জ্বর হতে থাকে, তবে আপনার চিকিৎসকের হস্তক্ষেপের প্রয়োজন হতে পারে। কিছু মহিলার গর্ভপাতের পরে পিরিয়ড হতে দেরী হতে পারে। তবে, যদি গর্ভপাতের পরে পিরিয়ড হওয়ার কোনো লক্ষণ না থাকে তবে এটি উদ্বেগের কারণ হতে পারে। এছাড়াও, গর্ভপাতের পরে আরোগ্যের জন্য রক্তপাত 8 সপ্তাহ বা তারও বেশি সময় ধরে চললে চিকিৎসাজনিত নজরদারি প্রয়োজন। এমনও হতে পারে যে কোনও কোনও মহিলার গর্ভপাতের পরে তাদের প্রথম পিরিয়ড হয় কিন্তু তাদের দ্বিতীয় পিরিয়ডটি হয় না। সেক্ষেত্রে তারা গর্ভাবস্থার পরীক্ষা বা প্রেগনেন্সি টেষ্ট করিয়ে নিতে বা ডাক্তারের পরামর্শ নিতেপারেন।

গর্ভপাতের পরে ঋতুস্রাবের সময়ের কিছু বিচ্যুতি অনুভব করা স্বাভাবিক।তবুও, কোনও সন্দেহের ক্ষেত্রে, প্রয়োজনীয় নির্দেশ এবং সময়মতো চিকিৎসার জন্য সর্বদা চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করার উপদেশ দেওয়া হয়। অহেতুক দুশ্চিন্তা না করা এবং ভাল বিশ্রাম নেওয়া ও স্বাস্থ্যকর খাওয়ার পাশাপাশি মানসিক চাপ মুক্ত থাকা আপনার শরীরকে গর্ভপাতের আঘাত থেকে আরোগ্যে লাভের ক্ষেত্রে অনেকাংশে সাহায্য করতে পারে।