গর্ভাবস্থায় বুকজ্বালার (অম্লতা) 15টি সেরা ঘরোয়া প্রতিকার

গর্ভাবস্থায় বুকজ্বালার (অম্লতা) 15টি সেরা ঘরোয়া প্রতিকার

গর্ভাবস্থা একটি সুন্দর অভিজ্ঞতা হতে পারে, কিন্তু এর অর্থ এই নয় যে এটিতে কোনো অসুবিধা থাকে না তাদের মধ্যে প্রধান কোনগুলি? অম্লতা! প্রতিটি খাবারের হজম হওয়ার প্রক্রিয়াকেই একটি চড়াইউতরাই পথ পার হতে হয়,কারণ খাবারের স্বাদটি আহার শেষ হয়ে যাওয়ার পরেও আপনার সাথে থেকে যায় এবং ঘন্টার পর ঘন্টা ধরে আপনাকে বিরক্ত করতে থাকে আপনি সম্ভবত ভাবছেন যে গর্ভবতী থাকাকালীন কী করলে তা অ্যাসিড রিফ্লাক্স থেকে আপনাকে বাঁচাতে পারে আচ্ছা, গর্ভবতী অবস্থায় বুকজ্বালা থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার অনেক প্রাকৃতিক উপায় আছে অন্য যে কোনও অবস্থার মতোই, গর্ভাবস্থায় অ্যাসিড রিফ্লাক্সের জন্যও অনেকগুলি ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে যার সাহায্যে আপনার মধ্যস্থ অস্বস্তি হ্রাস করা যায়

aniview

গর্ভাবস্থায় অম্লতার কারণ কী কী?

যখন আপনি গর্ভবতী হন, তখন আপনার শরীর বাড়তি পরিমাণে প্রোজেস্টেরণ হরমোন তৈরি করে, যা অন্যান্য জিনিসের মধ্যে, আপনার শরীরের নির্দিষ্ট পেশীকে শিথিল করে এই পেশী শিথিলের প্রভাব সেই সমস্ত ভালভ বা কপাটিকাগুলিকেও প্রভাবিত করে যেগুলি পেটের সামগ্রীকে ইসোফেগাসে ফিরে যেতে বাধা দেয় ফলস্বরূপ, ভালভগুলি আপনার পেটের অ্যাসিডকে কখনও কখনও আপনার ইসোফেগাসের দিকে ফিরে যেতে দেয়, যা আপনার ইসোফেগাসের আস্তরণে জ্বালা সৃষ্টি করে এবং বুকজ্বালা সৃষ্টি করে বুকজ্বালা আপনার তৃতীয় ত্রৈমাসিকে বৃদ্ধি পেতে পারে, কারণ আপনার বর্ধিত জরায়ু আপনার পেটে চাপ দেয় এর ফলে পেটের সামগ্রীকে নিয়ন্ত্রণে রাখা ভালভগুলির উপর বেশি চাপ পড়ে, যার ফলে রিফ্লাক্স এবং বুকজ্বালা হয় ভাল খবরটি হল যে আপনি কিছু সাধারণ কৌশল অনুসরণ করে এটির চিকিৎসা করতে পারেন এবং এটি হওয়ার সংখ্যা কমাতে পারেন

গর্ভাবস্থায় অম্লতার 15টি প্রাকৃতিক প্রতিকার

1. চর্বিযুক্ত, মশলাযুক্ত, এবং ডুবিয়ে ভাজা খাবার খাবেন না

দুর্ভাগ্যবশত, আপনার গর্ভাবস্থার খাবারের বিষয়ের ক্ষেত্রে, চর্বি এবং মসলাযুক্ত, এবং বেশি তেলে ডুবিয়ে ভাজা সব খাবারে একটি বড় না বলতে হবে আপনার খাদ্যের প্রতি আকাঙ্ক্ষা আপনাকে এই ধরনের এক মুঠো সুস্বাদু খাবার খেতে উৎসাহিত করতে পারে, কিন্তু আপনাকে পরে এটির জন্য মূল্য দিতে হবে! গর্ভাবস্থায় এই নিরাময়টি আসলে একটি নিরাময় নয় বরং একটি পরামর্শ এই ভীষণ সুস্বাদু খাবার থেকে দূরে থাকুন কারণ এটি আপনার পেটে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে যা অ্যাসিড উৎপাদন বৃদ্ধি করে কিছু কিছু খাবার আবার আপনার স্ফিঙ্কটারকেও ক্ষয় করে ফলে অ্যাসিডের বিপরীত পথে গলাতে ফিরে যাওয়া সহজ করে দেয় আপনি হয়তো মাঝে মধ্যে একবার এই খাবার খেতে পারেন যাতে আপনার আকাঙ্ক্ষা তৃপ্ত হয়, তবে ধরনের খাবার কখনই অতিরিক্ত খাবেন না!

2. ক্যাফিনযুক্ত এবং কার্বনেটেড পানীয়, এবং চকোলেট ছেড়ে দিন

ভাজা, চর্বিযুক্ত, এবং মশলাদার খাবারের মতোই, এই উপাদানগুলিও আপনার পেটে অ্যাসিড উৎপাদনকে উৎসাহিত করে এবং বুকজ্বালা সৃষ্টি করে এবং চকোলেট ছেড়ে দিতে খুব খারাপ লাগলেও,এটা করতে পারলে আপনি এবং আপনার শিশু উভয়েই অনেক বেশি ভাল থাকবেন একইভাবে, গর্ভবতী মহিলাদের জন্য ক্যাফিন (অত্যধিক পরিমাণে) এবং কার্বনেটেড পানীয়গুলি খারাপ বলে প্রমাণিত হয়েছে, তাই আপনি তাদের থেকে দূরে থাকলে ভাল হবে!

3. মাধ্যাকর্ষণের ব্যবহার করুন!

আপনার শরীর এমনভাবেই তৈরি যাতে সবকিছু নিচের দিকে প্রবাহিত হয়, এবং আপনি এই মাধ্যাকর্ষণ থেকে সুবিধা নিতে পারেন ঘুমের সময় বালিশে ঠেসান দিয়ে শোন যাতে আপনার মাথা আপনার পেট এবং পা থেকে উপরে থাকে এটি অ্যাসিডকে জোর করে নিচের দিকে পাঠাবে যাতে সেটি আপনার গলা এবং আপনার অন্ত্র থেকে দূরে থাকে এটি গর্ভাবস্থায় অ্যাসিড রিফ্লাক্সের অন্যতম চটজলদি ঘরোয়া প্রতিকার

4. কম খান

গর্ভবতী থাকাকালীন বুকজ্বালার আরেকটি প্রতিকার অল্প অল্প পরিমাণে ঘন ঘন খাবার খাওয়া আপনাকে যা করতে হবে তা হল বার বার খেতে হবে তিনটি বড় আহারের পরিবর্তে, সহজে হজমযোগ্য উপাদানগুলি দিয়ে তৈরি অল্প পরিমাণে খাবার বার বার খান এটি মর্নিং সিকনেশকে প্রতিহত করতেও সাহায্য করে

5. রাতের খাবার তাড়াতাড়ি সেড়ে ফেলুন

আপনার মনে রাখার মতো একটি মূল জিনিস হল রাতের খাবার তাড়াতাড়ি সেড়ে নেওয়া, তার ফলে আপনি রাতের বেলা শুয়ে পড়ার সময় আপনার পেট খুব খুব পূর্ণ থাকবে না এটি অ্যাসিডকে ফিরে যেতে বাধা দেবে এবং বুকজ্বালা বা অ্যাসিড রিফ্লাক্সের ঝুঁকি কমাবে বিছানায় যাওয়ার 3 ঘন্টা আগে রাতের খাবার খেয়ে নেওয়ার চেষ্টা করুন

6. খাওয়ার পর কিছুক্ষণের জন্য শোবেন না

খাওয়া হয়ে গেলে, তার 60 মিনিটের মধ্যে শুয়ে পড়বেন না আপনার খাদ্যকে হজম হওয়ার সুযোগ দিন যাতে এটি আপনার বুকজ্বালা সৃষ্টির তাগিদ না অনুভব করে আপনি বিছানায় গেলে, আপনার বাম পাশে ফিরে শোন এর ফলে অ্যাসিডটি অন্ত্রে চলে যায় এবং আরো বেশি পুষ্টি শিশুর কাছে এবং প্ল্যাসেন্টায় যায়

খাওয়ার পর কিছুক্ষণের জন্য শোবেন না

7. আঁটসাট পোশাক পরবেন না

সব ফ্যাশনদুরস্ত মায়েরা, অস্থির হবেন না মাতৃত্বের পরিধানের মাধ্যমে এটি একটি অদ্ভুত, আকৃতিবিহীন পথে চলার ডাক নয় শুধু কোনো ভাবে আপনার পেটে চাপ দেয় এমন আঁটসাঁট জামাকাপড় এড়িয়ে যান আপনার জীবনের এই মুহুর্তে এই ধরনের পোশাকগুলি পরিধান করা শুধু অস্বস্তিকরই হবে না, তার সাথে এটি আপনার গর্ভের উপর চাপ দিয়ে জ্বালা ধরানো অ্যাসিড আপনার গলাতে ফিরে যেতে বাধ্য করবে, যা আপনার পাকস্থলীর পেছনে ধাক্কা দেয়

8. ভঙ্গিই হল মূল চাবি

এটি তেমন গুরুত্বপূর্ণ না মনে হতে পারে, তবে আসলে এটাই দাঁড়ায় যে, গর্ভাবস্থা হল এমন একটি সময়, যখন সঠিক ভঙ্গি আপনাকে সত্যিই সাহায্য করতে পারে সোজা হয়ে বসুন এটি নিশ্চিত করবে যে সবকিছু ঠিক দিকে চলছে অর্থাৎ আপনার গলা থেকে দূরে এটি পিঠ ব্যথার মতো অন্য কোনো অস্বস্তিও কমিয়ে দেবে যা আপনাকে শিথিল হতে সাহায্য করবে এবং একজন সুখী মা হয়ে ওঠার বিষয়টিকে নিশ্চিত করবে

9. তরল পদার্থ হল আপনার বন্ধু

আপনার ব্লাডারকে ট্রাম্পোলিন হিসাবে ব্যবহার করা একটি শিশু থাকার ফলে আপনি অনেক জল পান করতে উৎসাহিত না হতে পারেন, তবে বিশ্বাস করুন, জল আপনার পেটে আগুন জ্বালানো অস্বাভাবিক রিফ্লাক্সকে গুলে বের করে দেবে এটি অ্যাসিডকে উপরের দিকে যেতে কার্যকরভাবে বাধা দেবে এবং আপনার অভ্যন্তর প্রশমিত হয় তা নিশ্চিত করবে জল পান করুন কিন্তু একবারে অনেকটা নয় আপনি সারা দিন ধরে অল্প করে তরলে চুমুক দিন

10. চিউইং গামও খুব সাহায্য করতে পারে!

চিউইং গাম আকর্ষণীয় না লাগতে পারে এবং এটি খাওয়ার ইচ্ছা না হতে পারে কিন্তু এটি লালা উৎপাদনকে বাড়িয়ে তোলে যা সেই বিরক্তিকর অ্যাসিড রিফ্লাক্সকে থামাতে সহায়তা করে আপনার লালাতে থাকা বাইকার্বোনেট কার্যকরভাবে এই অতিরিক্ত অ্যাসিড উৎপাদনকে বন্ধ করে এবং আপনার অস্বস্তি দূর করে

11. চামচ ভরে দই খান

মায়ের স্বভাবের মধ্যেই থাকে অন্য মাকে সাহায্য করার কিছু ছোট ছোট কৌশল,, এবং সেগুলির মধ্যে দই হল প্রধান এর মানে এই নয় যে আপনি পুরো এক কৌটো দই খেয়ে ফেলবেনআপনার রিফ্লাক্স হলে, প্রতিটি খাবারের আগে বা পরে বা এক চামচ দই খান সবকিছু ঠান্ডা হয়ে যাবে

চামচ ভরে দই খান।12. আপনি পেঁপেও খেয়ে দেখতে পারেন

এই ছোট্ট সাহায্যকারীটি গর্ভবতী থাকার সময় বুকজ্বালা থেকে পরিত্রাণ দেওয়ার অন্যতম সেরা একটি প্রাকৃতিক উপায় বলে প্রমাণিত হয়েছে এই ফলের মধ্যে থাকা পাচক এনজাইম আপনার অভ্যন্তরকে প্রশমিত করতে পারে এটি যে কোনও রূপে খান চৌকো করে কাটা, শুকনো, রস বা ট্যাবলেট, এবং কিছু আরাম উপভোগ করুন, কারণ এটি হজমকে সহায়তা করবে এবং বুকজ্বালা কমাবে তবে, সতর্কতার এই শব্দটিতে মনোযোগ দিন গর্ভধারণের সময় অতিরিক্ত পরিমাণে পেঁপে খেতে বারণ করা হয় সে বিষয়ে আপনাকে ভালভাবে সচেতন থাকতে হবে এবং এটি ভাল কারণে করা হয় যদিও অল্প পরিমাণে পেঁপে আপনাকে প্রয়োজনীয় ত্রাণ সরবরাহ করতে পারে, তবে কলা, তরমুজ, বা ফুটির মতো ফলের উপর নির্ভর করা বেশি নিরাপদ

13. জল এবং বেকিং সোডার একটি মিশ্রণ ব্যবহার করে দেখুন

গর্ভাবস্থায় অ্যাসিড রিফ্লাক্সের আরেকটি কার্যকরী ঘরোয়া প্রতিকার হল জল এবং বেকিং সোডা মেশানো এবং যখন আপনি যন্ত্রণা ভোগ করেন তখন মিশ্রণটিকে এক গ্লাস পান করুন এটি আপনার পেটে অম্লীয় পরিবেশকে প্রশমিত করে, এইভাবে আপনাকে ত্রাণ সরবরাহ করে

14. এর সাথে বুকজ্বালার জন্য অন্যান্য অনেক প্রাকৃতিক প্রতিকার আছে

গর্ভবতী থাকাকালীন বুকজ্বালা থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার প্রাকৃতিক উপায়গুলির কয়েকটির মধ্যে রয়েছে তাজা আদা কাঁচা খাওয়া আপনি নির্ভর করতে পারেন এমন আরেকটি প্রতিকার হল অ্যাপেল সীডার ভিনিগার প্রায় 250 মিলিলিটার জলে 1 চা চামচ ভিনিগার মেশান; সারা দিন জুড়ে এবং খাবারের এক ঘণ্টা আগে এটিতে চুমুক দিন এই সহায়ক উপাদানগুলি দ্রুত আপনার অস্বস্তি দূর করতে সাহায্য করবে একই জিনিস লেবু দিয়েও করা যায়! কমপক্ষে 250 মিলিলিটার জলে 1-2টি তাজা লেবুর রস মিশিয়ে নিন স্টিভিয়া বা মধু যোগ করুন চা বানাতে এটিকে গরম করুন অথবা লেবুর / রস বানাতে এটিকে ঠান্ডা রেখে দিন

15. একজন পেশাদারের কাছে যান

অন্য সবকিছু ব্যর্থ হলে, একজন পেশাদারের কাছে যান কাইরোপ্রাক্টিক অনুশীলনে কিছু কার্যকলাপ ইসোফেগাসের ভালভকে আরও উত্তম কার্যকর অবস্থানে স্থানান্তরিত করে গর্ভবতী হওয়া একটি বিস্ময়কর অভিজ্ঞতা হতে পারে কিন্তু এটির সাথে কিছু অসুবিধাও আসে আপনার শরীর যে পরিবর্তনগুলির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে সেগুলিকে আলিঙ্গন করুন এবং নিরাপদ আরামদায়ক থাকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগুলি গ্রহণ করুন আমরা আশা করি যে এই চটপটে উপায়গুলি গর্ভাবস্থায় অ্যাসিড রিফ্লাক্স থেকে পরিত্রাণ পেতে আপনাকে সহায়তা করবে!