নবজাতকের জন্ডিস

নবজাতকের জন্ডিস

আপনি যখন আপনার নবজাত শিশুর আগমনের আনন্দে ভাসছেন,তখন আপনি লক্ষ্য করবেন শিশুর ত্বকটি হলুদ বর্ণিত হয়ে যেতে পারে। এটি আপনাকে ভয় এবং চিন্তা দিতে পারে। এই পরিস্থিতিতে, আপনার পারিবারিক ডাক্তার পরামর্শের জন্য সেরা ব্যক্তি হতে পারেন। যাইহোক, চিন্তা করার কোনো প্রয়োজন নেই কারণ এটি বাচ্চাদের জন্ডিস বা নবজাতকের জন্ডিস হতে পারে যা অপরিণত বাচ্চাদের এবং কিছু পূর্ণমেয়াদী বাচ্চাদের মধ্যে ঘটে। এটা অনেক নবজাত শিশুদের মধ্যে ঘটে। যদিও এটি ক্ষতিকারক নয় তবে এটির চিকিৎসা না করলে সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে। পড়ুন এবং নিজেকে যথেষ্ট তথ্য দিয়ে সজ্জিত করুন যাতে আপনি কার্যকরীভাবে এবং উদ্বিগ্নতা ছাড়াই এটি পরিচালনা করতে পারেন।

aniview

নবজাতকের জন্ডিস কী?

বিলিরুবিন হলো হলুদ রঙের পদার্থ যা মানুষের দেহ রক্তে পুরাতন লাল রক্তের কোষ প্রতিস্থাপন করার প্রক্রিয়ার সময় তৈরি করে। লিভার বিলিরুবিন ভেঙ্গে ফেলতে সাহায্য করে যাতে শরীরের মধ্য থেকে এটি মলদ্বারের মাধ্যমে বেরিয়ে যায়। নবজাতক শিশু যাদের নিওনেট বলে উল্লেখ করা হয়, তাদের তুলনায় বিলিরুবিনের মাত্রা বয়স্কদের মধ্যে কম। শিশুদের লাল রক্ত কোষের ঘনত্ব উচ্চ। অতএব, নবজাতক শিশুর ক্ষেত্রে বিলিরুবিনের স্বাভাবিক পরিসর বেশী হয়। নবজাতকের জন্ডিস শুরু হয় যখন বাচ্চাদের রক্ত উচ্চ মাত্রার বিলিরুবিন নির্দেশ করে। এই মাত্রার জন্য শিশুর ত্বকের রঙের একটি পরিবর্তন ঘটে এবং তার চোখের সাদা অংশ হলুদ হয়ে যায়। উচ্চ ভগ্ন বিলিরুবিন মাত্রার কারণে শিশুদের এই অবস্থাকে নবজাতক জন্ডিস বলা হয়।

নবজাতক হাইপারবিলিরুবিনেমিয়ার কারণে ত্বকের ও চোখের সাদা অংশের এই হলুদ রঙ একটি স্বাভাবিক পর্যায়ের পরিবর্তন নির্দেশ করে। যাইহোক, চিকিৎসা করা না হলে, কিছু বাচ্চাদের ক্ষেত্রে এটি মারাত্মক হতে পারে।

নবজাতক শিশুদের মধ্যে জন্ডিস কতটা সাধারণ?

পূর্ণমেয়াদে জন্মানো নবজাতকদের প্রায় ষাট শতাংশ এবং অপরিণত বাচ্চাদের আশি শতাংশের ক্ষেত্রে হলুদ রঙের ত্বক দেখা দেয়যাকে জন্ডিস বলা হয় প্রথম সপ্তাহ বা দ্বিতীয় সপ্তাহের মধ্যে। সাধারণত, সব নবজাত শিশুদের কিছুটা জন্ডিস থাকে, কিন্তু এটা সবসময় স্পষ্ট নয়। প্রায়শই, জন্ডিস হল শিশুর অপরিণত লিভারের একটি সাধারণ এবং ক্ষণস্থায়ী শারীরবৃত্তীয় পরিণতি। নবজাত শিশুদের জন্য পারদর্শী হাসপাতালগুলিতে জন্ডিস হওয়া বাচ্চাদের সামলানো একটি প্রত্যাশিত পরিস্থিতি। অনেক শিশুদের জন্য, এটি ক্ষতিহীন, তবে একটি অস্থায়ী অবস্থা যা নিজের থেকে বা সঠিক চিকিৎসায় অদৃশ্য হয়ে যায়। তবে, কিছু ক্ষেত্রে, এটি অত্যন্ত গুরুতর, তাই সতর্ক হওয়া জরুরি।

নবজাতকের জন্ডিস হওয়ার কারণগুলি কী কী?

মানুষের রক্তে বিলিরুবিন রয়েছে। যখন পুরাতন লাল রক্তের কোষগুলি ভেঙে যায়, তার ফলে তৈরি বস্তুগুলির মধ্যে বিলিরুবিন একটি। সাধারণত, রক্ত এবং শরীরের থেকে লিভারের মাধ্যমে বিলিরুবিন অপসারিত হয়। অপসারণের পরে যকৃত প্রস্রাব এবং মলত্যাগের মাধ্যমে এটি থেকে পরিত্রাণ পায়। রঞ্জক বিলিরুবিন রক্তে উচ্চমাত্রায় থাকলে চামড়া হলুদ লাগবে। নবজাতকদের মধ্যে যে পরিমাণ অপসারিত হতে পারে তার থেকে বেশি বিলিরুবিন থাকলে জন্ডিস ঘটে। বিভিন্ন কারণের উপর নির্ভর করে জন্ডিস বিভিন্ন রূপে দেখা যায়  :

  • শারীরবৃত্তীয় জন্ডিস
  • স্তনপান জন্ডিস
  • স্তন দুধ থেকে জন্ডিস
  • রক্তের গ্রুপের অসামঞ্জস্যে  জন্ডিস

1. শারীরবৃত্তীয় জন্ডিস

গর্ভাবস্থায়,শিশুর ভোজনের জন্য প্লেসেন্টা বৃদ্ধি পায়। যখন শিশুটি আপনার গর্ভে থাকে, আপনার শরীর প্লেসেন্টার মাধ্যমে শিশুর থেকে বিলিরুবিনকে সরিয়ে নেয়। শিশুর জন্মের পরে, শিশুর লিভারকে আবশ্যিক ভাবে বিলিরুবিন থেকে মুক্তি পেতে হবে। শিশুটির যকৃতেরদক্ষতার সাথে এই কাজটি করতে সময় লাগতে পারে। সুতরাং, শিশুর রক্তে বিলিরুবিন বৃদ্ধি পায় এবং জন্ডিস দেখা দেয়। এই ধরনের জন্ডিসকে শারীরবৃত্তীয় জন্ডিস বলা হয়। সাধারণত, এটি জন্মের দ্বিতীয় বা তৃতীয় দিনে দেখা যায় এবং দুই সপ্তাহের মধ্যে অদৃশ্য হয়। হলুদ রঙ ত্বকের সব অংশে প্রদর্শিত হয় এবং কিছু সময় পায়ের আঙ্গুল অবধি পৌঁছায়।

2. স্তনপান জন্ডিস

অপর্যাপ্ত তরল থাকলে রক্তে বিলিরুবিনের ঘনত্ব বেড়ে যায়। সুতরাং, আপনার বুকের দুধ খাওয়া শিশু স্তনপান জন্ডিস দ্বারা প্রভাবিত হবে যদি সে প্রচুর পরিমাণে বুকের দুধ না পায়। আপনার ডাক্তারের সাথে আপনার খাওয়ানোর সমস্যা নিয়ে আলোচনা করে বা ল্যাক্টেশন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে আপনি এই ধরণের জন্ডিসকে মোকাবিলা করতে পারেন। সঠিক দুধ খাওয়ানোর পদ্ধতির মাধ্যমে শিশু ঘন ঘন ও পর্যাপ্ত দুধ পান করলে জন্ডিস অদৃশ্য হয়ে যাবে।

3. বুকের দুধ থেকে জন্ডিস

প্রথম কয়েক সপ্তাহের মধ্যে, বুকের দুধ খাওয়া শিশুর স্তনদুধ জন্ডিস হতে পারে। সাধারণত, এই ধরনের জন্ডিস রোগ দেখা যায় যখন শিশুর প্রায় 7 থেকে 11 দিন বয়স হয়। শিশুটি প্রয়োজনীয় ওজন এবং যত্ন লাভ করবে, তবে মাতৃদুগ্ধ বিলিরুবিনের প্রক্রিয়াজাতকরণের জন্য দরকারী লিভারের ক্ষমতাকে প্রভাবিত করতে পারে। এটি অনেক সপ্তাহ বা এমনকি কয়েক মাস ধরে চলতে পারে। এটি মূলত বুকের দুধ খাওয়া বাচ্চাদের মধ্যে ঘটে। এটা অনপকারী; তবে, শিশুর বিলিরুবিনের মাত্রা খুব বেশি হলে ডাক্তাররা আপনাকে কয়েক দিনের জন্য শিশুকে বুকের দুধ না খাওয়ানোর পরামর্শ দিতে পারে। যখন বিলিরুবিন মাত্রা স্বাভাবিকতা ফিরে পায়, আপনি শিশুকে পুনরায় বুকের দুধ খাওয়াতে পারবেন।

4. রক্তের গ্রুপে অসামঞ্জস্য

মা ও শিশুর রক্তের গ্রুপে অসামঞ্জস্যতা থেকে জন্ডিস হতে পারে। এই মাতৃভ্রুণ রক্তের গ্রুপের অসামঞ্জস্যতা শিশুর লাল রক্তকণিকার ভাঙ্গন চলাকালীন বিলিরুবিনের মাত্রা বৃদ্ধি করে।

5. অপরিপূর্ণতা

গর্ভাবস্থার 37 সপ্তাহের আগে জন্মগ্রহণকারী বাচ্চাদের পূর্ণমেয়াদী শিশুর তুলনায় জন্ডিস হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। প্রাকমেয়াদী  শিশুদের মধ্যে, লিভার বিলিরুবিন অপসারণের জন্য সম্পূর্ণরূপে গঠিত হয় না। তাই, বাচ্চারা শেষ পর্যন্ত জন্ডিসে আক্রান্ত হয়।

নবজাতক জন্ডিসের অন্যান্য কারণ

কখনও কখনও, জন্ডিস অন্যান্য কারণ থেকে হয়, যেমন সংক্রমণ অথবা শিশুর পাচনতন্ত্রের সমস্যা কারণ হতে পারে। জন্ডিস নিম্নলিখিত অবস্থার জন্যও ঘটতে পারে:

  • রক্তে সংক্রমণ বা সেপ্সিস
  • লাল রক্ত কোষ এনজাইম বা লাল রক্ত কোষ ঝিল্লির ত্রুটি
  • অভ্যন্তরীণ রক্তপাত
  • মায়ের ডায়াবেটিস
  • পলিসাইথেমিয়া (উচ্চ লোহিত রক্তকণিকার সংখ্যা)
  • সন্তানের জন্মের সময় থেঁতলে যাওয়া
  • গ্যালাকটোসেমিয়া গ্যালাকটোস শর্করার পাচন সঠিক ভাবে সম্পন্ন হয় না
  • বিলিরুবিন নিষ্পত্তির জন্য অপরিহার্য উৎসেচক অপর্যাপ্ত থাকে
  • হাইপোথাইরয়েডিজম
  • সিস্টিক ফাইব্রোসিস
  • যকৃতের প্রদাহ
  • থ্যালাসেমিয়া (রক্তের ব্যাধির সাথে হিমোগ্লোবিনের ত্রুটিপূর্ণ উৎপাদন )
  • বিলিয়ারি এটরেসিয়া লিভারের এক বা একাধিক নল ব্লক হয়ে থাকে
  • ক্রিগলার নাজ্জার সিন্ড্রোম উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া ব্যাধি যা বিলিরুবিনের বিপাককে প্রভাবিত করে

নবজাতকদের মধ্যে জন্ডিসের লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি কী কী?

হাইপারবিলিরুবিনেমিয়ার লক্ষণগুলি নির্ভর করে জন্ডিসের কারণ এবং বিলিরুবিনের বৃদ্ধির মাত্রা অনুযায়ী নিম্নলিখিত কিছু লক্ষণ এবং উপসর্গ শিশুদের জন্ডিসকে ইঙ্গিত করতে পারে:

  • হলুদ রঙের চামড়া হল জন্ডিসের অন্যতম দৃশ্যমান লক্ষণ। নবজাতক জন্ডিসের চামড়ার উপসর্গ প্রথমে মুখে দেখা যায় এবং তারপর শরীরের অন্যান্য অংশে ধীরে ধীরে প্রদর্শিত হয়।
  • ঝিমুনিভাব তীব্র জন্ডিসের একটি উপসর্গ।
  • স্নায়বিক লক্ষণ যেমন খিচুনি , উচ্চ মাত্রার কান্না, পেশীর ধরনের পরিবর্তন ঘটতে পারে। জটিলতা এড়াতে এই লক্ষণ দেখলে অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়া আবশ্যক।
  • শিশু গাঢ় এবং হলুদ প্রস্রাব ত্যাগ করে।
  • শিশুর সঠিকভাবে খাচ্ছেনা বা চুষছে না।
  • হেপাটাইটিস এবং বিলিয়ারি এটরেসিয়া, যুক্ত বিলিরুবিনের মাত্রার বৃদ্ধি ঘটায়। এই বেড়ে যাওয়া থেকে জন্ডিস হয় যা ফ্যাকাশে মল এবং গাঢ় প্রস্রাব দ্বারা চিহ্নিত করা হয়।
  • হলুদ রঙের চোখের সাদা অংশ এর আরেকটি প্রধান চিহ্ন। চরম ক্ষেত্রে, হাত পা এবং পেটও হলুদ রঙের দেখায়।

নির্ণয় এবং পরীক্ষা

আপনার ডাক্তাররা শিশুকে জন্ম থেকেই জন্ডিসের জন্য পরীক্ষা করবে। আদর্শগতভাবে, তারা জন্মের পর তিন থেকে পাঁচ দিন তাকে পর্যবেক্ষণ করবে, কারণ এই সময়ের মধ্যে নবজাতকের বিলিরুবিনের মাত্রা সর্বোচ্চ হতে পারে। নবজাতকদের মধ্যে জন্ডিস নির্ণয় করার জন্য বিভিন্ন পরীক্ষা আছে। এবার আমরা কিছু পরীক্ষার দিকে নজর দিই।

  • দেখার মাধ্যমে পরীক্ষা জন্ডিস নির্ণয় করার জন্য ব্যবহৃত এটাই প্রথম এবং সবচেয়ে সাধারণ পদ্ধতি। ডাক্তার শিশুকে অনাবৃত করেন এবং ভাল আলোর তলায় তার ত্বক পরীক্ষা করেন। তিনি চোখ এবং মাড়ি পরীক্ষা করে দেখতে পারেন। তিনি আপনাকে শিশুর প্রস্রাব এবং মলের রঙ সম্পর্কে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতে পারেন এটা জন্ডিস হতে পারে কিনা তা নির্ধারণ করার জন্য।
  • বিলিরুবিন টেস্ট যদি ডাক্তারের সন্দেহ থাকে যে শিশুর জন্ডিস আছে, তবে তিনি সন্দেহ নিরসন করার জন্য রক্ত পরীক্ষার নির্দেশ দেবেন। দুটি ধরনের রক্ত পরীক্ষা আছে:
    • ট্রান্সকিউটেনিয়াস বিলিরুবিনোমেট্রি এই পরীক্ষা সঞ্চালনের জন্য, ডাক্তার একটি যন্ত্র ব্যবহার করেন যার নাম বিলিরুবিনোমিটার। এই যন্ত্রের মাধ্যমে, আলোর একটি রশ্মি শিশুর ত্বকে ফেলা হয়। এই যন্ত্র, শিশুর ত্বকে আলোর প্রতিফলন বা ত্বকে আলোর শোষণের পরিমাণের উপর নির্ভর করে শিশুর রক্তে বিলিরুবিনের মাত্রা গণনা করে।
    • রক্তের একটি নমুনা ব্যবহার করে ডাক্তার আপনার শিশুর গোড়ালি থেকে রক্তের নমুনা গ্রহণ করেন এবং একজন প্যাথলজিস্ট সিরামের বিলিরুবিন মাত্রা পরীক্ষা করেন। সাধারণত, ডাক্তাররা পছন্দ করেন বিলিরুবিনোমিটার।

নির্ণয় এবং পরীক্ষা

নবজাতকদের মধ্যে বিলিরুবিনের মাত্রা

নবজাতকদের বিলিরুবিন পরীক্ষা করে বিলিরুবিনের মাত্রা নির্ধারণ করা হয়। নবজাতক শিশুদের বিলিরুবিনের স্বাভাবিক পরিসর 5 মিগ্রা /ডেসিলিটার থেকে কম। এই স্বাভাবিক মানের চেয়ে যদি বিলিরুবিনের মাত্রা বেশি হয়, তাহলে শিশুটির নবজাতক জন্ডিস আছে।

উৎস: https://www.caringforkids.cps.ca/handouts/jaundice_in_newborns

সুস্থ নবজাত শিশুর শরীরে বিলিরুবিনের মাত্রা

নিম্নোক্ত বিলিরুবিন চার্ট স্বাস্থ্যকর নবজাত শিশুদের সিরাম বিলিরুবিন মাত্রার ইঙ্গিত দেয় যাদের জন্ডিসের জন্য চিকিৎসা দরকার:

শিশুর বয়স

সিরাম বিলিরুবিন মাত্রা

24 ঘন্টার কম

10 মিলিগ্রামের উপরে

24 – 48 ঘন্টা

15 মিলিগ্রামের উপরে

49-72 ঘন্টা

18 মিলিগ্রামের উপরে

72 ঘন্টা চেয়ে বেশি

20 মিলিগ্রামের উপরে

প্রাকমেয়াদী নবজাতক শিশুর বিলিরুবিন মাত্রা

নিচের বিলিরুবিন চার্টটি প্রাকমেয়াদী নবজাত শিশুদের মধ্যে সিরাম বিলিরুবিনের মাত্রার ইঙ্গিত দেয় যাদের জন্ডিসের জন্য চিকিৎসা দরকার:

শিশুর বয়স

সিরাম বিলিরুবিন মাত্রা

24 ঘন্টা বয়সী

8 মিলিগ্রাম / ডিএল বা উচ্চতর

48 ঘন্টা বয়সী

13 এমজি / ডিএল বা উচ্চতর

72 ঘন্টা বয়সী

16 এমজি / ডিএল বা উচ্চতর

96 ঘন্টা বয়সী

17 এমজি / ডিএল বা উচ্চতর

অন্যান্য টেস্ট যদি ডাক্তার মনে করেন যে তীব্রতার উপর ভিত্তি করে আরো পরীক্ষা প্রয়োজন, তবে রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে নিম্নলিখিত পরীক্ষাগুলি করা হয়:

  • রক্তের গ্রুপের সামঞ্জস্যতা
  • শিশুর সম্পূর্ণ রক্ত গণনা
  • উৎসেচকের অভাব বা সংক্রমণ নির্ধারণ
  • লাল রক্ত কোষ পরীক্ষা করা এবং তাদের সাথে অ্যান্টিবডি সংযুক্ত কিনা পরীক্ষা করা

ঝুঁকির কারণ

যদিও নবজাতক জন্ডিস সাধারণ, তবে কিছু ঝুঁকিপূর্ণ উপাদান থাকলে, নবজাতকের জন্ডিসের প্রবণতা বেশি থাকে। ঝুঁকির কিছু কারণের মধ্যে রয়েছে :

  • শিশুটির ভাইবোনের যদি নবজাতক জন্ডিস হয়ে থাকে।
  • তারা যদি গর্ভধারণের 37 সপ্তাহ আগে জন্মগ্রহণ করেন তবে তারা দ্রুত বিলিরুবিন প্রক্রিয়া করতে সক্ষম হবে না। তারা কম খেতে পারে এবং এতে অন্ত্রের চলন কম হতে পারে, যা বিলিরুবিন নিঃসরণের পরিমাণ কমিয়ে দেয়।
  • যে বাচ্চাদের খাওয়ার সমস্যা আছে।
  • যে শিশুদের মায়েরা ডায়াবেটিক হয়।
  • আঘাতপ্রাপ্ত বাচ্চারা বা সেফালোহেমাটোমা থাকলে। যদি প্রসবের সময় বাচ্চা আঘাতপ্রাপ্ত হয়, তাহলে তার জন্ডিস হবার সম্ভাবনা থাকে।
  • ডিহাইড্রেশনের কারণে জন্ডিসের সূত্রপাত হতে পারে।
  • মাশিশুর রক্তের গ্রুপে অসঙ্গতি।
  • কনজেনিটাল সংক্রমণ।
  • নবজাতকের জন্ডিসের ঘটনা পূর্ব এশীয় ও আমেরিকান ভারতীয়দের মধ্যে সর্বোচ্চ এবং আফ্রিকানদের মধ্যে সর্বনিম্ন।

নবজাতকের জন্ডিসের সম্ভাব্য ঝুঁকি এবং জটিলতা কী?

মারাত্মক নবজাতক জন্ডিসের ঘটনায় প্রচুর জটিলতা হতে পারে। অতএব, আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা এবং সেই অনুযায়ী সময়মত চিকিৎসা করা প্রয়োজন।

নিম্নলিখিত কিছু জটিলতা, যা আপনার শিশুর হতে পারে:

1. অ্যাকিউট বিলিরুবিন এনসেফালোপ্যাথি

বিলিরুবিন মস্তিষ্কের কোষের জন্য ক্ষতিকর। গুরুতর জন্ডিস ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে এবং মস্তিষ্কে বিলিরুবিন  প্রবেশ করতে পারে। এই অবস্থাকে অ্যাকিউট বিলিরুবিন এনসেফ্যালোপ্যাথি বলা হয়। চিকিৎসা না করলে, এটি মস্তিষ্কের অপূরণীয় ক্ষতি করতে পারে। নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি ইঙ্গিত দিতে পারে যে শিশুটি তীব্র বিলিরুবিন এনসেফালোপ্যাথি দ্বারা প্রভাবিত :

  • জ্বর
  • ঘুম থেকে উঠতে অসুবিধা
  • বমি
  • চুষে খেতে সমস্যা
  • ঘাড় এবং শরীর পিছনের দিকে ঝুঁকে যাওয়া
  • চিৎকার করে কান্না

অ্যাকিউট বিলিরুবিন এনসেফালোপ্যাথি

2. কার্নিকটেরাস

যদি অ্যাকিউট বিলিরুবিন এনসেফালোপ্যাথির ফলে মস্তিষ্কের অপরিবর্তনীয় বা স্থায়ী ক্ষতি হয়, তবে এই অবস্থাকে  কার্নিকটেরাস বলা হয়। এই অবস্থা নিম্নলিখিত ক্ষতির কারণ হতে পারে:

  • স্থায়ী উর্ধ্বগামী দৃষ্টি
  • অনিয়ন্ত্রিত এবং অনিচ্ছাকৃত শারীরিক আন্দোলন যাকে আথেটয়েড বলে সেরিব্রাল পলসি
  • দাঁতের এনামেলের অযথাযথ বিকাশ
  • শ্রবণ ক্ষমতার হ্রাস

নবজাতকের জন্ডিসের জন্য চিকিৎসা পদ্ধতি

জন্ডিস হালকা থাকলে, এটি দুই থেকে তিন সপ্তাহের মধ্যে ঠিক হয়ে যাবে। যদি অবস্থা মাঝারি বা গুরুতর হয়, তাহলে শিশুর বিলিরুবিনের মাত্রা হ্রাস করার জন্য অবশ্যই চিকিৎসা করা উচিত। নিম্নলিখিত কিছু জনপ্রিয় চিকিৎসাপদ্ধতি  হল:

1. ফোটোথেরাপি

যদি আপনার শিশুর মাঝারি মানের সদ্যজাত জন্ডিস আছে, তাকে ফোটোথেরাপি দেওয়া হয়। এই চিকিৎসাতে বিলিরুবিনের মাত্রা নিরসনে আলো ব্যবহার করা হয়। এই আলো চিকিৎসার কারণে, ফটোঅক্সিডেসন ঘটে। ফোটোঅক্সিডেশনটি বিলিরুবিনে অক্সিজেন যোগ করে যাতে এটি জলে দ্রবীভূত হয়। এটি লিভারকে বিলিরুবিন বিপাকে সাহায্য করে এবং দেহ থেকে তা সরিয়ে ফেলতে সক্ষম করে। শিশুর জন্য ফটোথেরাপি নিরাপদ এবং প্রতি তিন চার ঘন্টা অন্তর প্রয়োগে, এটি দুই থেকে তিন দিন স্থায়ী হবে। এই অন্তর্বর্তী সময়ে, আপনি শিশুকে ভোজন করাতে পারেন। বিলিরুবিনের মাত্রা ক্রমাগত নিরীক্ষণ করা হয়। কখনও কখনও, শিশুর চামড়ায় দাগ দেখা যেতে পারে, কিন্তু শীঘ্রই তা অদৃশ্য হয়ে যাবে। দুই ধরনের ফটোথেরাপি আছে:

  • প্রচলিত ফটোথেরাপি

প্রচলিত ফোটোথেরাপিতে, শিশুকে হ্যালোজেন আলো বা উজ্বল আলোর নীচে রাখা হয়। এই চিকিৎসা পদ্ধতির সময়, শিশুদের চোখ ভাল করে ঢেকে রাখা হয়।

প্রচলিত ফটোথেরাপি

  • ফাইবার অপটিক ফোটোথেরাপি

ফাইবার অপটিক ফটোথেরাপিতে, শিশুদের একটি কম্বলের মধ্যে আবৃত করা হয় যাকে বিলিব্ল্যাংকেট বলে, যেটায় থাকে ফাইবার অপটিক তার। আলো এই তারের মাধ্যমে শিশুর শরীরে পড়ে। এই চিকিৎসা করতে এক থেকে দুই দিন লাগে। ডিহাইড্রেশন এড়ানোর জন্য শিশুকে দুই ঘন্টা অন্তর একবার খাওয়ানো হয়। এই চিকিৎসা অকালজাত শিশুদের জন্য ব্যবহার করা হয়।

2. নবজাতকের জন্ডিসের জন্য এক্সচেঞ্জ ট্রান্সফিউশন

যদি শিশুর বিলিরুবিনের মাত্রা ফোটোথেরাপি দ্বারা হ্রাস না পায়, ডাক্তার এক্সচেঞ্জ ট্রান্সফিউশান পদ্ধতি ব্যবহার করেন, যেখানে শিশুর রক্তের একটি ছোট পরিমাণ সরানো হয় এবং একটি রক্তদাতার রক্ত দিয়ে প্রতিস্থাপিত করেন। রক্তদাতার রক্তে বিলিরুবিন থাকে না এবং তাই এটি প্রতিস্থাপনের পরে বিলিরুবিনের মাত্রা হ্রাস পায়। নবজাতকের জন্ডিসের জন্য এক্সচেঞ্জ ট্রান্সফিউশান একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া। শিশুকে সাবধানে নিরীক্ষণ করা হয়। প্রক্রিয়াটির দুই ঘন্টা পরে, প্রক্রিয়া সফল হয়েছে কিনা তা নির্ধারণের জন্য রক্ত পরীক্ষা করা হয়।

বাড়িতে নবজাতক শিশুর জন্ডিস চিকিৎসা

হালকা জন্ডিসের ক্ষেত্রে, ডাক্তার নবজাতকদের জন্ডিসের জন্য ঘরোয়া প্রতিকারের পরামর্শ দিতে পারেন। নিম্নলিখিত কিছু ঘরোয়া প্রতিকার:

  • ডাক্তার বাচ্চাকে খাওয়ানোর ধরনের ক্ষেত্রে কিছু পরিবর্তনের পরামর্শ দিতে পারেন। ঘন ঘন খাওয়ানো অতিরিক্ত বিলিরুবিনকে নির্গমনের মাধ্যমে অপসারণে সহায়তা করে। স্তন্যপান করছে এমন শিশুদের অবশ্যই প্রতিদিন 8 থেকে 12 বার  খাওয়ানো উচিত।
  • বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় শিশুটি যদি সমস্যায় পড়ে তবে ডাক্তার বুকের দুধ বের করে খাওয়ানো বা ফরমূলা খাওয়ানোর পরামর্শ দিতে পারেন।
  • সূর্যালোকে দিতে পারলেও শিশুকে কিছুটা সাহায্য করতে পারে। আপনি একটি রৌদ্রজ্বল ঘরের মধ্যে শিশুকে রাখতে পারেন যাতে তারা উষ্ণতা অনুভব করতে পারে। সরাসরি সূর্যালোকে উন্মুক্ত করবেন না।
  • যদি স্তনদুগ্ধের কারণে জন্ডিস দেখা দেয়, তবে আপনার ডাক্তার আপনাকে এক বা দুই দিনের জন্য খাওয়ানো বন্ধ করতে পরামর্শ দিতে পারে।

প্রতিরোধ

জন্ডিস শিশুদের হওয়া স্বাভাবিক, তাই একে প্রতিরোধ করা সম্ভব নয়। তবে, আপনি সঠিক স্ক্রীনিং, পর্যবেক্ষণ এবং চিকিৎসা দ্বারা এটিকে গুরুতর হয়ে ওঠা থেকে বাধা দিতে পারেন। আপনার রেফারেন্সের জন্য নিম্নলিখিত কিছু পরামর্শ:

  • উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ শিশুদের ঘনিষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করা উচিত এবং জটিলতা প্রতিরোধ করার জন্য চিকিৎসা করা আবশ্যক।
  • গর্ভবতী মায়ের রক্তের গ্রুপ নির্ধারণ এবং অস্বাভাবিক অ্যান্টিবডির উপস্থিতি নির্ধারণের জন্য রক্তপরীক্ষা করা আবশ্যক। মাকে যদি আর.এইচ. নেতিবাচক বলে সনাক্ত করা হয়, তা হলে শিশুটি প্রভাবিত কিনা তা পরীক্ষা করে দেখে নেওয়া উচিৎ।
  • শিশুর জন্মের প্রথম কয়েক দিনের মধ্যে শিশুর শরীরে ভালোমত জলের যোগান দেওয়া উচিত যাতে অতিরিক্ত বিলিরুবিন বেরিয়ে যায়।
  • আপনার শিশুর ত্বকের রঙ এবং জন্ডিসের অন্যান্য উপসর্গের প্রতি লক্ষ্য রাখা আবশ্যক যাতে শিশুর সময়মত চিকিৎসা করা যায়।

কখন আপনার ডাক্তার ডাকা উচিত?

হাসপাতালগুলি নবজাতকদের ছুটি দেওয়ার আগে তাদের জন্ডিস চেক করে। প্রথম কয়েক দিনের মধ্যে ফলোআপ এপয়েন্টমেন্টগুলি গ্রহণের পরামর্শ দেওয়া হয় এবং শিশুটি ভাল আছে নিশ্চিত হওয়ার জন্য ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে বলা হয়। সাধারণত, ডাক্তাররা জন্মের পর তৃতীয় এবং সপ্তম দিনের মধ্যে শিশুদের পরীক্ষা করবেন কারণ এই সময়ের মধ্যে বিলিরুবিনের মাত্রা বেশি থাকে। হাসপাতাল থেকে ছাড়ার  আগে, পিতামাতাকে জন্ডিস সম্পর্কে শিক্ষিত করতে হবে এবং প্রয়োজন হলে, হাসপাতালে ফিরে আসতে পরামর্শ দেওয়া আবশ্যক।

জন্ডিসের লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি যদি আপনি খুঁজে পান তবে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিৎ। নিম্নলিখিত পরিস্থিতিতে আপনার চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করুন :

  • শিশুর ত্বক যদি হলুদ হয়ে যায়, বিশেষ করে তলপেট অঞ্চল,পা এবং পায়ের পাতা
  • শিশুর চোখের সাদা অংশ হলদেটে হয়ে যায়
  • শিশুকে ঘুম থেকে জাগানো কঠিন মনে হয়
  • শিশু চিৎকার করে কান্নাকাটি করে
  • যদি আপনার শিশুর তিন সপ্তাহের বেশি সময় ধরে জন্ডিস থাকে

উপসংহার

নবজাতক শিশুর জন্ডিস পিতামাতাকে উদ্বিগ্ন, চিন্তিত এবং বিরক্ত করে তোলে। যাইহোক, চিকিৎসা বিজ্ঞানের অগ্রগতি এটা নিশ্চিত করেছে যে আপনার শিশু যথাযথ চিকিৎসা পাবে। আপনি যদি নবজাতক জন্ডিসের লক্ষণগুলি সম্পর্কে সচেতন হন তবে আপনি প্রাথমিক কয়েক দিনের মধ্যেই শিশুটিকে পর্যবেক্ষণ করতে পারেন এবং তার চিকিৎসা করাতে পারেন। নবজাতকের জন্ডিস সম্পর্কে নিজেকে শিক্ষিত করা গুরুত্বপূর্ণ যাতে আপনি আতঙ্কিত না হন।

যদিও নবজাতক জন্ডিস ক্ষতিকারক নয়, কিছু বাচ্চাদের জন্য এটি গুরুতর হয়। বিলিরুবিনের উচ্চ মাত্রা মস্তিষ্ককে প্রভাবিত করে, তাই এটি শিশুর স্থায়ী ক্ষতির কারণ যাতে না হয়, তা নিশ্চিত করার জন্য শিশুকে পর্যবেক্ষণ করা, নির্ণয় করা এবং অবিলম্বে চিকিৎসা করানো উচিত। এই প্রবন্ধের  নির্দেশকগুলি বাবামায়েদের জন্ডিস সম্পর্কে সবকিছু বুঝতে এবং প্রয়োজন অনুসারে, সে অনুযায়ী কাজ করতে সাহায্য করবে।