বাচ্চাদের দাঁত বেরোনো – চিহ্ন এবং ঘরোয়া প্রতিকার

বাচ্চাদের দাঁত বেরোনো - চিহ্ন এবং ঘরোয়া প্রতিকার

একটি শিশুকে পাওয়ার মাধ্যমে একটি সুন্দর যাত্রার শুরু হয়, যার কয়েকটি মাইলফলক থাকে। প্রতিটি মুহুর্ত ভিন্ন, এবং আপনি প্রতিটি পদক্ষেপে নতুন কিছু শেখেন। আপনি মাতৃত্বে নতুন, যার থেকে এটি বোঝা যায় যে আপনার সন্তানের যে কোনো সমস্যা সম্পর্কেই আপনি উদ্বিগ্ন। দাঁত বেরোনো বাচ্চাদের কাছে বিরক্তিকর হয় এবং ফলে মারাও উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠেন। আপনার বাচ্চার দাঁত বেরোনোর পর্যায়টিকে কীভাবে মোকাবিলা করা যায় সে বিষয়ে আপনার পরামর্শ দেওয়ার অনেক লোক থাকতে পারে, কিন্তু তবুও আপনি হয়তো এই পর্যায়টিকে কীভাবে পরিচালনা করতে পারেন সে সম্পর্কে ব্যবহারিক পরামর্শের জন্য কোনো নির্ভরযোগ্য রিসোর্সের খোঁজ করছেন।

aniview

এখানে একটি গাইড রয়েছে যার উপর আপনি নির্ভর করতে পারেন। আপনি দাঁত বেরোনো কী থেকে শুরু করে কীভাবে এটির জন্য ঘরোয়া প্রতিকার করা যায় সেই সবকিছু শিখবেন। সুতরাং আমরা কিসের জন্য অপেক্ষা করছি? চলুন শুরু করি!

আপনার বাচ্চার প্রথম দাঁত বেরোনো মা হিসাবে আপনার যাত্রার অনেক আনন্দদায়ক মাইলফলকগুলির মধ্যে একটি। তবে, শিশুটি অস্বস্তিময় হওয়ার বিভিন্ন সময়গুলির মধ্যেও এটি একটি, এবং প্রায়ই আপনার সন্তান যখন বিরক্ত হবে এবং কাঁদবে, তখন আপনাকে তাকে শান্ত করতে হবে।

কখন বাচ্চাদের দাঁত বেরোনো শুরু হয়

প্রতিটি শিশু একটি অনন্য গতিতে বৃদ্ধি পায় এবং কোনো নির্দিষ্ট বয়স নেই যে সময় আপনার সন্তানের নিশ্চিতভাবে দাঁত বেরোনো শুরু হবে।

কোন মাসে শিশুদের দাঁত বেরোয়?

বাচ্চাদের 4 থেকে 7 মাসের মধ্যে তাদের প্রথম দাঁত বেরোতে শুরু করে। খুব বিরল ক্ষেত্রে, এক বছরেরও বেশি বয়সের পরে বাচ্চার দাঁত বেরোনো শুরু হয়। জন্মের সময় শিশুর প্রথম দাঁত দৃশ্যমান ছিল এমন কিছু ক্ষেত্রও আছে, তবে উভয়ই অতিমাত্রায় বিরল।

কত তাড়াতাড়ি একটি শিশুর দাঁত বেরোতে শুরু হতে পারে?

দাঁত বেরোনো সাধারণত চার মাসে শুরু হয়, তবে আপনার বাচ্চার তিন মাসের মধ্যেও শুরু হতে পারে। একটি শিশুর এমনকি দুই মাসেও দাঁত বেরোনো শুরু হতে পারে। যে বাচ্চাদের তাড়াতাড়ি দাঁত বেরোতে শুরু করে, তারা প্রাকদাঁত নামে পরিচিত সাদা উঁচু জায়গা নিয়েই জন্মায় যেগুলি তাদের মাড়িতে দেখা যায়। আপনি যদি দেখেন যে মাত্র দুই বা তিন মাস বয়সে আপনার শিশুর দাঁত বেরোচ্ছে, ভয় পাবেন না। এটা একেবারেই অস্বাভাবিক নয়।

মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে শিশু গর্ভে থাকার সময়ই দাঁত বিকশিত হতে শুরু করে। আসলে, এই সময়ে দাঁত মাড়ির মধ্যে জন্ম নেয়। দাঁত বেরোনোর প্রক্রিয়া শুরু হলে এবং প্রথম দাঁত বেরিয়ে এলে, সব দাঁত দৃশ্যমান হতে কয়েক মাস লাগে।

কোন দাঁতগুলি শিশুর প্রথম বেরোয়?

প্রথম যে দাঁতগুলি বেরোয় সেটি নীচের দিকে থাকে। নীচের দিক বরাবর দুটি দাঁত প্রথম দেখা যায়।

বাচ্চাদের দাঁতগুলি কোন ক্রমে বেরোয়?

এখানে শিশুর দাঁত বেরোনোর সময়সূচী রয়েছে যা আপনাকে মনে রাখতে হবে যাতে আপনি বিভিন্ন পর্যায়ের জন্য প্রস্তুত থাকেন

  • 4-7 মাস দাঁত বেরোনো শুরু হয়। প্রথমে, দুটি নীচের দাঁত একই সময়ে দেখা দিতে শুরু করে
  • 8-12 মাসউপরের মধ্য দাঁত উঠতে শুরু করে এবং দৃশ্যমান হয়
  • 9-16 মাস: মাঝখানের দাঁত উঠতে শুরু করে
  • 13-19 মাস: শিশুর উপর এবং নীচ বরাবর প্রথম কশের দাঁতগুলি আসে
  • 16-23 মাস: এটি ক্যানাইন নামে পরিচিত ধারালো এবং তীক্ষ্ণ দাঁতের সময়
  • 23-31 মাস: নীচ বরাবর দ্বিতীয় কশের দাঁত দেখা দেয়
  • 25-33 মাস: উপর বরাবর দ্বিতীয় কশের দাঁত দেখা দেয়

তিন বছরের মধ্যে, আপনার শিশুর প্রায় 20টি দাঁত থাকবে। 4 বছর বয়সে চোয়াল এবং মুখের হাড়গুলি বৃদ্ধি পায়, এভাবে স্থায়ী দাঁতগুলির বেরোনোর জন্য স্থান তৈরি হয়।

শিশুদের দাঁত বেরোনোর 13টি চিহ্ন

মা হিসাবে আপনি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব দাঁত বেরোনোর কিছু লক্ষণ দেখতে প্রস্তুত হতে পারেন। এর ফলে আপনি আপনার বাচ্চাকে সময়মত সাহায্য করতে পারবেন। সুতরাং, আপনি আপনার বাচ্চার মধ্যে নিম্নলিখিত যে 13 টি লক্ষণ খেয়াল করবেন সেগুলি সম্বন্ধে আপনাকে জানাই।

1. নাল পড়া

দাঁত বেরোনো শিশুদের নাল পড়াকে বাড়ায়। এটি আপনার প্রথম চিহ্ন। শিশুরা যখন দশ সপ্তাহ বয়সী হয় তখন থেকেই এটি শুরু হতে পারে। আপনার নাল পড়া শিশুকে একটি নালপোষ পড়িয়ে শুকনো থাকতে সাহায্য করুন। স্যাঁতসেঁতে জামাকাপড় শিশুকে আরো বিরক্ত করবে যে দাঁত বেরোনোর কারণে ইতিমধ্যেই অস্বস্তিতে আছে।

2. ফোলা মাড়ি

লাল, প্রদাহযুক্ত মাড়ি দেখলে বুঝবেন যে আপনার বাচ্চার দাঁত বেরোচ্ছে। ফোলা এলাকায় আপনার তর্জনী দিয়ে আলতোভাবে মালিশ করলে কিছু আরাম দিতে পারে।

3. মাড়িতে একটি দাঁতের সামান্য দেখা দেওয়া

আপনার শিশুর মাড়ির নিচে একটি অস্পষ্ট সাদাটে বস্তু দেখা গেলে তা নির্দেশ করে যে তার দাঁত বেরচ্ছে।

4. গোমড়ামুখো থাকা

শিশুদের দাঁত বেরোনোর আরেকটি চিহ্ন হল তাদের গোমড়ামুখো হয়ে থাকা। উঠতে থাকা দাঁত মাড়ি বরাবর চাপ দেয়, যা তাদের অস্বস্তিকর এবং কাঁদুনে করে তুলতে পারে।

5. ঘুমানোর সময় জ্বালাতন করা

হ্যাঁ, দাঁত বেরোলে আপনার বাচ্চাকে সারা রাত জাগিয়ে রাখতে পারে! দাঁত বেরোনোর অস্বস্তি আপনার শিশুকে সারা রাত জাগিয়ে রাখতে পারে!

6. চেবানোর জন্য প্রস্তুত

বাচ্চাদের যখন দাঁত বেরোনো শুরু হয়, তখন তারা তাদের হাতে যা পায় তাইই চিবাতে চায়।

7. খাওয়ার সমস্যা

দাঁত বেরোনোর সময় তাদের যে অস্বস্তি হয় তার জন্য তারা খাবার প্রত্যাখ্যান করতেও পারে।

8. কান টানা

অনেক সময়ে কান টানা কানব্যাথার একটি চিহ্ন, কিন্তু এটি শিশুদের দাঁত বেরোনোর কারণেও হতে পারে।

9. ফুসকুড়ি

দাঁত বেরোনোর ফলে মুখের কাছাকাছি ফুসকুড়িও হতে পারে। (লালা ঝড়া জনিত ফুসকুড়ি হিসাবেও পরিচিত)

10. কাঁদা

দাঁত বেরোনোর অস্বস্তি বাচ্চাদের জন্য অসহনীয় এবং ঘন ঘন তাদের কাঁদিয়ে তোলে। যদি আপনি পর্যবেক্ষণ করেন যে তারা কাঁদছে এবং তার কারণ খুঁজে পাচ্ছেন না, তবে নিশ্চিত করার জন্য দাঁত বেরোনোর অন্য লক্ষণগুলি চেক করুন।

11. গাল ঘষা

গালে দাঁতের সাথে যুক্ত স্নায়ু থাকে। এই স্নায়ুগুলি দাঁত বেরোনোর সময় কাঁপতে পারে বা কোমল হয়ে যেতে পারে। এই কারণে শিশুরা তাদের গাল ঘষতে থাকে।

12. কাশি

কিছু বাচ্চার দাঁত বেরোনোর সময় হালকা কাশি থাকে।

13. জ্বর

কিছু বাচ্চাদের দাঁত বেরোনোর সময় জ্বর হতে পারে। যদি গুরুতর হয়, আপনাকে একজন ডাক্তারের সাথে চেক করতে হবে।

দাঁত বেরোনোর সাথে কি সবসময় জ্বর এবং ডায়রিয়া হয়?

মা হিসাবে, আপনি অবশ্যই পড়ে থাকবেন যে দাঁত বেরোনোর সাথে জ্বর ও পেট খারাপের সংযোগ রয়েছে, এবং হয়তো ভাবতে পারেন যে দাঁত বেরোনোর সাথে সবসময় জ্বর ও ডায়রিয়া হয় কিনা। যাইহোক, এই ধরনের সংযোগ আছে বলে বা প্রতিটি বাচ্চার দাঁত বেরোনোর সময় এটি ঘটতে পারে বলে বিশ্বাস করার কোন দৃঢ় কারণ নেই। অনেক বাচ্চাদের দাঁত বেরোনোর সময় জ্বর হয়, কিন্তু অনেক বাচ্চাদের দাঁত বেরোনোর সময়টি সহজেই পেরিয়ে যায়। ডায়রিয়ার ক্ষেত্রে, এটি সম্ভব যে শিশুটি কিছু চিবাচ্ছে বা কামড়াচ্ছে যা পরিষ্কার নয়, যা গ্যাস্ট্রিক সমস্যা সৃষ্টি করছে। জ্বর বা ডায়রিয়া চলতে থাকলে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা সবসময় ভালো।

কিভাবে একটি দাঁত বেরোনো বাচ্চাকে শান্ত করতে হবে

আপনার শিশুকে শান্ত করার এবং দাত বেরোনোর অস্বস্তিকে উপশম করার অনেক উপায় আছে। কিছু সহজ কৌশল দিয়ে আপনাকে সাহায্য করা যাক।

একটি দাঁত বেরোনো শিশুকে সাহায্য করার উপায়

  • শিশুর মাড়ি বরাবর একটি পরিষ্কার আঙুল ঘষুন। এই ব্যথা কমাতে সাহায্য করবে।
  • মাড়ি ঘষার জন্য একটি ঠান্ডা ধোয়ার কাপড় ব্যবহার করুন। আপনি এমনকি মাড়িকে ঠাণ্ডা করতে একটি ঠান্ডা দাঁতের রিং বা একটি ঠান্ডা চামচ ব্যবহার করতে পারেন। আপনার ব্যবহার করা জিনিসটি যেন হিমায়িত না হয়।
  • যদি আপনার বাচ্চা ইতিমিধ্যেই চিবাতে শুরু করে থাকে এবং কঠিন খাবার খায়, তবে আপনি তাদের চিবানোর কিছু দিতে পারেন, যেমন একটি শসা।
  • নাল পড়ার ফলে ত্বকে ফুসকুড়ি এবং জ্বালা হতে পারে। নাল পরিষ্কার করার জন্য আপনি একটি কাপড় হাতের কাছে রাখুন, এইভাবে জ্বালা প্রতিরোধ করুন।

শিশুদের দাঁত বেরোনোর যন্ত্রনার উপশম

দাঁত বেরোনোর যন্ত্রনা উপশম করার জন্য কিছু ওভার দ্য কাউন্টার ওষুধ পাওয়া যায় যা আপনি আপনার শিশুকে দিতে পারেন। অ্যাসিটামিনোফেন, আইবুপ্রোফেন বা অ্যাডভিল আপনার সন্তানের ব্যথা মোকাবেলায় সাহায্য করতে পারে, শিশুদের জন্য মট্রিনও ব্যাথা উপশম করতে সহায়তা করতে পারে। আপনি এই ওষুধগুলি কেনার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা সবসময় ভালো। এছাড়াও, বাচ্চাদের দাঁত বেরোনোর ব্যাথার জন্য অনেকগুলি ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে যা এই পর্যায়ের চাপ কিছুটা কমাতে পারে।

  • আপনার শিশুকে একটি ডায়েট দিন যা প্রদাহ ঘটায় না। বিভিন্ন ধরনের তাজা ফল এবং সবজি দেওয়া একটি ভাল বুদ্ধি।
  • সে যেন যথেষ্ট বিশ্রাম পায় তা নিশ্চিত করুন। যে বাচ্চা স্বাস্থ্যকর খায় এবং ভালো ঘুমায়, সে দাঁত বেরোনোর কঠিন পর্যায় পেরিয়ে যাওয়ার জন্য বেশী প্রস্তুত।
  • আপনার শিশুর ইমিউন সিস্টেম শক্তিশালী কিনা নিশ্চিত করুন। আপনি আপনার শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে চেক করার পরে শিশুর খাদ্যে ভিটামিন ডি সম্পূরক যোগ করতে পারেন।
  • আপনি বুকের দুধ খাওয়ানো অবিরত রাখছেন তা নিশ্চিত করুন, কারণ এটি খুব সাহায্য করবে!
  • মাড়িকে শান্ত করতে সাহায্য করার জন্য, বাচ্চাকে হিমায়িত ধোয়ারকাপড় বা সবজি চিবাতে দিন।

আপনি এমনকি চিবাতে দেওয়ার জন্য প্রাকৃতিক কঠিন কাঠের খেলনা কিনতে পারেন।

বাচ্চাদের দেরীতে দাঁত বেরোনোর সমস্যা

কিছু বাচ্চাদের দেরীতে দাঁত বেরোনোর অনেক কারণ রয়েছে। আপনার বাচ্চার এক বছর বয়সের সময়ও দাঁত বেরোতে শুরু না হলে, হয় এটি বংশগত বা খারাপ পুষ্টির কারণে হতে পারে। হাইপারথাইরয়েডিজমও শিশুদের দেরীতে দাঁত বেরোনোর একটি কারণ হতে পারে। দেরীতে দাঁত বেরোনোর সঠিক কারণ জানতে একটি শিশু বিশেষজ্ঞের কাছে যান। এটি আসলে উদ্বিগ্ন হওয়ার মতো কোনও সমস্যা নয, তবে এটি কেন ঘটছে তা জানলে বিলম্বের সাথে মোকাবিলা করতে সহায়তা করবে।

কিভাবে শিশুর দাঁতের যত্ন নিতে হবে

দাঁতের যত্নকে আপনার শিশুর রুটিনের একটি নিয়মিত অংশ করে তুলুন এমনকি দাঁত ওঠা শুরুর আগে। দিনে দুইবার আপনার শিশুর মাড়িতে একটি ভেজা ওয়াশক্লথ বা গজের টুকরো দিয়ে ঘষুন, বিশেষ করে খাওয়ার পরে এবং তাকে ঘুম পাড়ানোর আগে। প্রথম দাঁত বের হওয়ার সময়, একটি ছোট মাথা এবং হ্যান্ডেল যুক্ত একটি নরম ব্রাশ কিনতে হবে, যা আপনার শিশুর মুখের ভিতরে আরামদায়কভাবে ফিট হয়ে যাবে। শিশুর তিন বছর হলে তবেই ফ্লোরাইড টুথপেষ্ট ব্যবহার শুরু করুন।

আপনার বাচ্চার 1 বছর বয়স হলে একবার দাঁতের ডাক্তারের কাছে যাওয়া ভালো।

দাঁত বেরোনো আপনার সন্তানের জন্য একটি মুখ্য বিকাশমূলক পর্যায়। ধৈর্যের সাথে আপনার শিশুর অস্বস্তি মোকাবিলা করুন এবং আপনাদের উভয়ের জন্য যাত্রাটি নিশ্চিতভাবে সহজ হয়ে উঠবে।