বুকের দুধ খাওয়ানো বন্ধ করার পরে স্তনে ব্যথা

বুকের দুধ খাওয়ানো বন্ধ করার পরে স্তনে ব্যথা

কিছু মায়েরা স্তন্যপান করানো বন্ধ করার পরেও স্তনে ব্যথা অনুভব করেন। হঠাৎ বুকের দুধ ছাড়ানোর ফলে প্লাগযুক্ত নালী, এনগোরজমেন্ট এবং মাসস্টাইটিসের মতো সমস্যা দেখা দেয়, আমরা আপনাকে ধীরে ধীরে দুধ খাওয়ানো ছাড়ার পরামর্শ দিই। তবে প্রথমে মা হিসাবে বুকের দুধ খাওয়ানো বন্ধ করার কিছু সাধারণ কারণগুলি দেখুন।

aniview

বুকের দুধ খাওয়ানো বন্ধ করার সাধারণ কারণ

মায়ের বুকের দুধ খাওয়ানো ছেড়ে দেওয়ার কিছু কারণ হল:

১. টনটনে বা বেদনাদায়ক স্তন

প্রথম যারা মা হয়েছেন তাঁরা স্তন্যপান করানোকে অস্বস্তিকর মনে করেন এবং ফলস্বরূপ, ফাটা স্তন এবং স্তনে ব্যথায় ভোগেন। এই ব্যথার কারণে তাঁরা বুকের দুধ খাওয়ানো বন্ধ করে দেন।

২. যথেষ্ট পরিমাণে দুধ না থাকা

কিছু মায়েরা উদ্বেগ প্রকাশ করেন যে তাঁরা যে দুধ উৎপাদন করছেন তা তাদের সন্তানের প্রয়োজনের জন্য পর্যাপ্ত নয়। সুতরাং, তাঁরা তাদের বাচ্চাদের ফর্মুলা দুধে ভরসা করে রাখেন।

৩. কর্মজীবন

প্রসবের পরপরই আবার নতুন করে কাজে যোগদান করতে চান এমন নতুন মায়েদের ক্ষেত্রে বুকের দুধ খাওয়ানো বাদ দেওয়া ছাড়া বিকল্প নেই। কাজে বা বাড়িতে যাওয়ার আগে দুধ খাওয়ানো সবসময় সম্ভব নাও হতে পারে।

৪. বেড়ে ওঠা শিশু

বুকের দুধ শিশুর প্রথম ছয় মাসে পুষ্টির একমাত্র উৎস। যখন তাদের বাচ্চারা এই মাইলফলকে পৌঁছেছে, মায়েরা তাদের কঠিন খাবারের সাথে পরিচয় করিয়ে দিতে পারেন।

স্তন্যপান করানো বন্ধ করার পরে স্তনে ব্যথার কারণ কী?

দুধ খাওয়ানো মায়ের দেহ নার্সিং বন্ধ করার কয়েক সপ্তাহ অবধি দুধ তৈরি করতে থাকে। বুকের দুধ খাওয়ানো মায়েরা যারা বেশি পরিমাণে দুধ উৎপাদন করেন তারা দুধ খাওয়ানো ছাড়ার পরেও দুধ তৈরি করতে পারেন। এই দুধের ফলে দুধের নালী প্লাগযুক্ত হয়। প্লাগড নালীগুলি ম্যাসাটাইটিস নামক একটি বেদনাদায়ক অবস্থার দিকে পরিচালিত করে যেখানে স্তনগুলি স্ফীত হয়ে যায়। আকস্মিকভাবে দুধ খাওয়ানো ছাড়া স্তনগুলিকে পূর্ণ ও ভারী করতে এবং এগুলিতে ব্যথা শুরু করতে পারে।

দুধ ছাড়ানোর পরে স্তনে ব্যথার সাথে থাকা উপসর্গগুলি

ম্যাসটাইটিস

স্তনে ব্যথার সাথে আপনি যে লক্ষণগুলি অনুভব করতে পারেন সেগুলি হল:

  • স্তনবৃন্তের আশেপাশের অঞ্চল বা এরিওলাতে ব্যথা
  • একটি বা উভয় স্তনেই পুনরাবৃত্তি হওয়া ব্যথা
  • দুধ ছাড়ানোর প্রাথমিক দিনগুলিতে তীব্র ব্যথা, যা সময়ের সাথে আস্তে আস্তে কমে যায়
  • বর্ধিত, ডেলাযুক্ত বা শক্ত স্তন
  • স্তনগুলি ভারী বা শক্ত হওয়া
  • ফ্লু জাতীয় উপসর্গগুলির মধ্যে গায়ে কাঁটা দেওয়া এবং শীত লাগা, ক্লান্তি, উচ্চ মাত্রার জ্বর, উদ্বেগ এবং হতাশার অনুভূতিও অন্তর্ভুক্ত
  • লাল স্তনবৃন্ত
  • ঘর্ষণজনিত কারণে স্তনবৃন্ত থেকে দুধ লিক হওয়া
  • স্তনে ব্যথা যদি ম্যাসটাইটিসের কারণে হয় তবে আক্রান্ত স্তন গরম, ফোলা ফোলা এবং একটি জ্বালার অনুভূতি সহ শক্ত হতে পারে।

স্তন্যপান বন্ধ করার পরে কত সময় স্তনে ব্যথা স্থায়ী হয়?

স্তনে ব্যথা বেশ কয়েক দিন বা সপ্তাহ ধরে চলতে পারে। বেশিরভাগ মহিলা দুধ খাওয়ানো ছাড়ার প্রাথমিক দিনগুলিতে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব করেন। স্তনের ব্যথা সময়ের সাথে হ্রাস বা অদৃশ্য হওয়া উচিত। তবে, যদি অনেক দিন পরেও স্তনে ব্যথা হ্রাস না ঘটে তবে স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ বা স্তন্যদান বিশেষজ্ঞের সাহায্য নিন।

বুকের দুধ খাওয়ানো বন্ধ করার পরে স্তনে ব্যথার প্রতিকার

আপনি যদি বুকের দুধ খাওয়ানো মা হন তবে স্তন্যপান বন্ধ করার পরে কীভাবে স্তনের ব্যথা উপশম করতে হয় তা আপনি জানতে চাইবেন। এখানে কিছু দরকারী ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে:

১. একটি উষ্ণ স্নান নিন

একটি উষ্ণ স্নান গ্রহণ বা এক টাব উষ্ণ জলে নিজেকে ভিজিয়ে দেওয়া স্তনের টিস্যুগুলিকে নমনীয় করে তুলতে পারে, সেগুলি থেকে জমে থাকা দুধের প্রবাহকে সহজ করে দেয়। এই গরম ব্যথা থেকে কিছুক্ষণ মুক্তিও দিতে পারে।

২. ব্রেস্ট পাম্প ব্যবহার করুন

আপনার স্তনগুলি খুব বেশি পরিপূর্ণ মনে হলে আপনি একটি ব্রেস্ট পাম্পও ব্যবহার করতে পারেন।

৩. আপনার স্তন ম্যাসাজ করুন

আপনি যদি ব্রেস্ট পাম্প ব্যবহার করতে না চান তবে দুধ বের করে দেওয়ার জন্য আপনার স্তনগুলি হালকা করে টিপুন। এটি করার জন্য সঠিক পদ্ধতির জন্য আপনি আপনার স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ বা স্তন্যদান বিশেষজ্ঞকে বলতে পারেন। এটি আপনাকে স্তনে ব্যথা থেকে কিছুটা বিরতি দিতে পারে। উষ্ণ শাওয়ার নেওয়ার সময় আপনি নিজের স্তনকেও আলতোভাবে ম্যাসাজ করতে পারেন।

৪. একটি কোল্ড প্যাক প্রয়োগ করুন

স্তনগুলিতে আইস প্যাক প্রয়োগ করলে ফোলাভাব এবং ব্যথা হ্রাস পায়।

৫. আপনার তরল গ্রহণ বাড়ান

ডিহাইড্রেশন ও জ্বর প্রতিরোধ করতে জল পান করুন এবং আপনার তরল গ্রহণের পরিমাণ বাড়িয়ে নিন।

৬. ওটিসি ওষুধ ব্যবহার করে দেখুন

আপনার স্তনে ব্যথা এবং ফোলাভাব কমাতে আপনি অ্যাসিটামিনোফেন বা প্যারাসিটামল জাতীয় ব্যথানাশক নিতে পারেন। তবে, কোনও ওষুধ খাওয়ার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

৭. সেজ চা পান করুন

দিনে দুবার সেজ (Sage) চা পান করেও স্বস্তি পেতে পারেন।

৮. আপনার স্তনের উপরে বাঁধাকপি রেখে দিন

আপনার স্তনের উপরে তাজা এবং ঠান্ডা বাঁধাকপি পাতা রাখা স্তনে ব্যথার জন্য একটি কার্যকর প্রতিকার। নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনি পাতাটি যখন নেতিয়ে যাবে তখন প্রতিস্থাপন করেন।

৯. একটি স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন বজায় রাখুন

সুষম ডায়েট খান এবং স্বাস্থ্যকর জীবনধারা গ্রহণ করুন। আপনার শরীরকে নতুন রুটিনের সাথে সামঞ্জস্য করতে সহায়তা করার জন্য প্রসবপূর্ব ভিটামিন গ্রহণ করুন।

১০. পর্যাপ্ত ঘুম পান

ঘুম হল সেই সময় যখন শরীর নিজেই সুস্থ হয়। সুতরাং, একটি ভাল রাতের ঘুমের সাথে আপোষ করবেন না।

১১. অন্যান্য মায়ের সাথে সংযোগ স্থাপন করুন

যদি আপনি এমন সমস্যার মুখোমুখি হয়ে থাকেন যা আপনি পরিবারের সদস্যদের সাথে ভাগ করে নিতে পারছেন না, তবে এই পর্যায়ে আসা অন্যান্য মায়ের সহায়তা চাইতে চেষ্টা করুন।

ব্যথা ছাড়াই স্তন্যদান বন্ধ করার টিপস

এই টিপসগুলি আপনাকে ব্যথা ছাড়াই স্তন্যদান বন্ধ করতে সহায়তা করবে:

  • প্রতিদিন ধীরে ধীরে স্তন্যপান করানোর সেশনের সংখ্যা হ্রাস করুন।
  • অস্বস্তি হ্রাস না হওয়া পর্যন্ত আপনার স্তন থেকে দুধ পাম্প করুন। একসাথে সমস্ত দুধ বের করে দেওয়া দুধের উৎপাদন হ্রাস করার পরিবর্তে বাড়িয়ে তুলতে পারে।
  • একটি শক্ত ব্রা দুধের নালীগুলিকে প্লাগ করতে পারে এবং স্তনের ফোলা আরো বাড়তে পারে। পর্যাপ্ত সমর্থন এবং আরাম সরবরাহ করে এমন নার্সিং ব্রা বেছে নিন।
  • আপনি ট্যাবলেটগুলি দিয়ে দুধের উৎপাদন হ্রাস করতে পারেন। এ সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

বুকের দুধ খাওয়ানো বন্ধ করা মা এবং শিশু উভয়ের জন্য একটি মানসিক ও শারীরিক চ্যালেঞ্জ। আপনার সন্তানকে বুকের দুধ ছাড়ানোর চেষ্টা করার সময় ধৈর্য ধরুন, কারণ এতে সময় এবং যথেষ্ট চেষ্টা দুটিই প্রয়োজন। আপনার শিশুর নতুন খাবারগুলিতে সামঞ্জস্য করতে অনেক সমস্যা হতে পারে এবং এখনও বুকের দুধের চাহিদা থাকতে পারে। এটি ধীরে ধীরে করুন এবং পরিবর্তনের সাথে মোকাবিলা করার জন্য আপনার শরীরকে সময় দিন।