মিথ্যে মিথ্যা নেতিবাচক গর্ভাবস্থা পরীক্ষা

মিথ্যে মিথ্যা নেতিবাচক গর্ভাবস্থা পরীক্ষা

প্রথম যে প্রশ্নটি মাথায় আসে তা হল যে আপনার গর্ভাবস্থা পরীক্ষার নেতিবাচক ফলাফল কি মিথ্যাও হতে পারে? আপনার পিরিয়ড মিস করে এবং নির্দিষ্ট লক্ষণগুলি লক্ষ্য করে, আপনি একটি গর্ভাবস্থার পরীক্ষার জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন, শুধুমাত্র নেতিবাচক ফলাফল পেতে। হয়তো আপনি স্বস্তি পাবেন বা মনমরা হবেন। কিন্তু তার পরেও আপনার পিরিয়ড না হলে, সেটি সবসময় আপনার গর্ভবতী হওয়ার দিকে ইঙ্গিত দিতে পারে এবং বেশিরভাগ মানুষকে এটি একটি মানসিক ধাক্কা দিতে পারে।

aniview

একটি মিথ্যা নেতিবাচক গর্ভাবস্থা পরীক্ষা কি?

আপনার গর্ভাবস্থার পরীক্ষা যদি নেতিবাচক ফলাফল দেয়, কিন্তু সেটি ভুল হয়, তবে এটিকে একটি মিথ্যা নেতিবাচক গর্ভাবস্থা পরীক্ষা, কিন্তু গর্ভবতী বলা হয়। এর মানে হল যে পরীক্ষাটি নির্দেশ করে আপনি গর্ভবতী নন, যেখানে আসলে আপনি গর্ভবতী। এটি বেশিরভাগই বাড়িতে গর্ভাবস্থার কিট দিয়ে করা পরীক্ষাগুলির ক্ষেত্রে ঘটে। এই কিটগুলি মূত্রে মানুষের কোরিওনিক গোনাডোট্রপিন হরমোনটির উপস্থিতি জানার জন্য নির্মিত হয়। যখন এটি হরমোনের সঠিক মাত্রা পড়তে ব্যর্থ হয়, তখন এটি সেই নারী গর্ভবতী নয় বলে জানায়।

মিথ্যা নেতিবাচক গর্ভাবস্থা পরীক্ষা কি অনেকক্ষেত্রেই ঘটে?

একটি মিথ্যা নেতিবাচক প্রস্রাব গর্ভাবস্থা পরীক্ষা বুঝতে হলে জানতে হবে যে মিথ্যা নেতিবাচক গর্ভাবস্থা পরীক্ষার সম্ভাবনা সত্যিই কতটা আছে? সাধারণত, মিথ্যা নেতিবাচকগুলি মিথ্যা ইতিবাচকগুলির তুলনায় বেশি ঘটার প্রবণনা থাকে, এটি প্রায় 10 শতাংশ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ক্লিনিকাল ট্রায়ালগুলিতে পরিচালিত হলে বেশিরভাগ বাড়ির গর্ভাবস্থার পরীক্ষা কিটগুলি সাধারণত সঠিক ফলাফল দেয়, 97.4% পর্যন্ত । বাস্তব জীবনে দৈনন্দিন মানুষের ক্ষেত্রে, সঠিক ফলাফল দিতে ব্যর্থ হয়।

মিথ্যা নেতিবাচক গর্ভাবস্থা পরীক্ষার কারণ

মিথ্যা নেতিবাচক গর্ভাবস্থার পরীক্ষার কারণ আবিষ্কার করতে গিয়ে দেখা গেছে, অনেকগুলি কারণ রয়েছে আপনি যার সম্মুখীন হতে পারেন, যার জন্য এইরকম ফলাফল ঘটে। কিছু ক্ষেত্রে, ডাক্তাররা নিজেরাই জানতে পারেন যে কোন ওষুধগুলি মিথ্যে নেতিবাচক পরীক্ষার কারণ হতে পারে এবং আপনার সাথে সেটি ঘটার সম্ভাবনাগুলি খতিয়ে দেখতে পারেন।

প্রয়োজনীয় সময়ের আগে ফলাফল পরীক্ষা করা: বাড়ির গর্ভাবস্থা কিটকে প্রস্রাবে প্রতিক্রিয়া দেওয়ার জন্য এবং ফলাফলটি যতটা সম্ভব সঠিকভাবে ফলাফল জানানোর জন্য কিছু সময় দিতে হয়। যথাযথ সময়ের আগে দেখলে আপনাকে একটি নেতিবাচক ফলাফল দিতে পারে, যেখানে ফলাফলটি আসলে ইতিবাচক। কিটের নির্দেশাবলী অনুসরণ করা ভাল এবং ফলাফলের জন্য প্রায় 10 মিনিটের মতো অপেক্ষা করুন।

অনেক আগেই পরীক্ষা করা: অনেক মহিলারা গর্ভধারণের পরীক্ষা প্রয়োজনের তুলনায় একটু বেশী আগে নিজেরাই করে ফেলেন। গর্ভাবস্থার প্রাথমিক পর্যায়ে, কিট যে হরমোন সনাক্ত করে, এইচসিজি, সেটি পরিমাণে খুব কম থাকে এবং এটি খুব কমই দৃষ্টিগোচর হয়। এই পর্যায়ে রক্ত পরীক্ষা ব্যর্থ হয়, তেমনই কিটগুলি স্বাভাবিকভাবেই এটি সনাক্ত করতে ব্যর্থ হয়।

কিটের নির্দেশাবলী অনুসরণ করতে ব্যর্থ হওয়া: একটি সঠিক ফলাফল পেতে কিটের উপর খুব নির্দিষ্ট নির্দেশাবলী উল্লেখ করা থাকে। যদি কিটের রেখাগুলি প্রস্রাবের সাথে সঠিকভাবে সম্পৃক্ত না হয়, অথবা যদি রেখাগুলির উপরে জল বা ওইরকম কিছু পড়ে পাতলা হয়ে যায়, তাহলে ফলাফলটি তার সঠিকতা হারাতে বাধ্য। সময়ই এখানে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। খুব তাড়াতাড়ি পরীক্ষা করলে বা অনেক ঘন্টা পরে এটি পরীক্ষা করলে আসল সঠিক ফলাফল পরিবর্তিত হয়ে যেতে পারে।

পরীক্ষা কিটের সংবেদনশীলতা: বাড়ির গর্ভাবস্থা পরীক্ষা কিটেরও সংবেদনশীলতার মাত্রা বিভিন্ন হয়। কিছু কিট অত্যন্ত সংবেদনশীল এবং এইচসিজি-র অত্যন্ত কম মাত্রাও সনাক্ত করতে পারে, যা রক্ত পরীক্ষার সমতুল্য। তবে, অন্যান্য কিটগুলি ওইরকম সংবেদনশীল নাও হতে পারে। অতএব, আপনি যে কিটটি ব্যবহার করেন সেটি যদি কম সংবেদনশীল হয় এবং এইচসিজি মাত্রা প্রয়োজনীয় মাত্রায় পৌঁছানোর আগে আপনি যদি এটি পরীক্ষা করেন, তাহলে একটি ভুল ফলাফলের সম্ভাবনা বেশি হতে পারে।

মূত্র পাতলা হওয়া: যেহেতু কিটগুলি প্রস্রাবের উপাদানগুলির উপর সম্পূর্ণভাবে কাজ করে, তাই এতে উপস্থিত কোনও অশুদ্ধতা কিটকে একটি ভুল উত্তর দেওয়ার দিকে চালিত করতে পারে। পরীক্ষাটি সকালের প্রথম প্রস্রাব ব্যবহার করে পরিচালিত করা উচিত। এটি অত্যন্ত ঘনীভূত এবং আপনি গর্ভবতী হলে এতে HCG এর ভাল মাত্রা থাকার সেরা সম্ভাবনা রয়েছে। এটি একটি মিথ্যা নেতিবাচক পরীক্ষার সম্ভাবনা হ্রাস করবে।

গর্ভাবস্থা কিটের মেয়াদ শেষ হওয়া: কিট কেনার আগে সেটির উপর উল্লিখিত মেয়াদ শেষের তারিখ দেখে নেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিটের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে, ফলাফল সঠিক হওয়ার কোনো নিশ্চয়তা নেই।

চলতে থাকা ওষুধগুলি: নির্দিষ্ট কিছু ওষুধ, বিশেষ করে অ্যালার্জির জন্য ওষুধগুলি, বা মৃগীরোগে খিঁচুনি প্রতিরোধ করার জন্য ওষুধগুলি, মূত্রবর্ধক এবং অন্যান্য ক্ষেত্রের ওষুধগুলি কিটকে তার সঠিক ফলাফল থেকে বিচ্যুত করার প্রবণতা রাখে। এইগুলি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মিথ্যা নেতিবাচক ফলাফল দেয়।

এক্টোপিক গর্ভাবস্থা: এটি বিরল এবং সাধারণত 35 বছরের বেশি বয়সী মহিলাদের ক্ষেত্রে ঘটে। একটি এক্টোপিক গর্ভাবস্থায়, ভ্রূণ ফ্যালোপিয়ান টিউবের ভিতরে তৈরি হয়, জরায়ুতে নয়। অতএব, গর্ভাবস্থা কিট এইচসিজি মাত্রা সনাক্ত করতে ব্যর্থ হয় এবং মিথ্যা নেতিবাচক ফল দেয়। এই অবস্থাটি এমনিতেই মারাত্মক এবং এই ধরনের গর্ভধারণ অবিলম্বে অপসারণ করা প্রয়োজন।

আপনি মিথ্যা নেতিবাচক ফলাফল পেলে, কী করতে পারেন?

মিথ্যা নেতিবাচক ফলাফলের পরে, করার মতো কিছু জিনিস এখানে দেওয়া হল।

পরীক্ষা পুনরাবৃত্তি করুন: আপনার করা প্রথম পরীক্ষাটি যদি নেতিবাচক হয় এবং পরীক্ষার এক সপ্তাহ পরেও আপনার পিরিয়ড না হয়, তবে আবার পরীক্ষা করতে হবে। আপনি যদি গর্ভবতী হন তবে আপনার শরীরের মধ্যে এইচসিজি মাত্রা বাড়তে 7 দিন যথেষ্ট সময়, যা সহজেই কিট দ্বারা সনাক্ত করা যাবে।

ডাক্তারের সাথে কথা বলুন: যদি আপনার ফলাফলটি নেতিবাচক হয় এবং তার পরে আপনার পিরিয়ড না হয়ে থাকে, তবে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন এবং পেশাদারের মতামত নিন। তিনি একটি আল্ট্রাসাউন্ড বা রক্ত পরীক্ষার সুপারিশ করতে পারেন এবং গর্ভাবস্থার পরিস্থিতি সম্পর্কে অত্যন্ত সঠিক ধারণা দিতে পারেন।

মাসিক চক্র স্বাভাবিক অবস্থায় আনুন: হতে পারে যে গর্ভাবস্থা কিট সঠিক এবং আপনি গর্ভবতী নন, কিন্তু তবুও আপনার পিরিয়ড না হতে পারে। এই ক্ষেত্রে, আপনার ডাক্তার বা স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞকে দেখান। গর্ভাবস্থার অনুপস্থিতির বিষয়ে নিশ্চিত হয়ে, মাসিক চক্রকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনার দিকে কাজ করুন।

মিথ্যা নেতিবাচক / ইতিবাচক পরীক্ষা এবং সত্যি নেতিবাচক / ইতিবাচক পরীক্ষার মধ্যে পার্থক্য

মিথ্যা নেতিবাচক / ইতিবাচক গর্ভাবস্থা পরীক্ষা

  • কিট নেতিবাচক দেখায়, যেখানে আসলে আপনি গর্ভবতী ।
  • কিট দেখায় যে আপনি গর্ভবতী, যেখানে আসলে, আপনি নন।

সত্যি নেতিবাচক / ইতিবাচক গর্ভাবস্থা পরীক্ষা

  • কিট দেখায় যে আপনি গর্ভবতী নন, এবং আপনি সত্যিই গর্ভবতী নন।
  • কিট দেখায় যে আপনি গর্ভবতী, এবং সত্যিই, আপনি গর্ভবতী!

পিরিয়ড মিস করার অন্যান্য কারণ কী কী হতে পারে?

পিরিয়ড মিস করার পরে মিথ্যা নেতিবাচক গর্ভাবস্থা পরীক্ষার ফলাফল পেলে, ডাক্তারের সাথে চেক করা এবং নিশ্চিত করা যেতে পারে। কিন্তু আপনি যদি সত্যিই গর্ভবতী না হন, তবে আপনার পিরিয়ড মিস করার অন্যান্য কারণ থাকতে পারে।

  • বাড়িতে বা অফিসে মানসিক চাপ স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করতে পারে এবং মাসিক চক্রে পরিবর্তন আনতে পারে।
  • আগে অনিয়মিত মাসিক চক্র ঘটে থাকলে, পরেও পিরিয়ড মিস হতে পারে।
  • অতিরিক্ত ওজন হ্রাস বা ওজন বৃদ্ধি হরমোনের ভারসাম্যহীনতা তৈরি করে, যা আপনার পিরিয়ডকে প্রভাবিত করে।
  • অসুস্থতা, অনিয়মিত খাদ্যাভ্যাস, এই সবকিছুই আপনার শরীর এবং মাসিক চক্রকে প্রভাবিত করে।
  • আপনি জন্ম নিয়ন্ত্রক ওষুধ নিলে, সেটি আপনার পিরিয়ডকে বিঘ্নিত করবে।
  • বেশী বয়সের নারীরা এবং যারা মেনোপজ-এর কাছাকাছি চলে এসেছেন, তাঁদের সাধারণত অনিয়মিত পিরিয়ড হয়।
  • খুব বেশী ব্যায়াম করলে, হরমোনের ভারসাম্যকে প্রভাবিত করে এবং মাসিকের বিলম্ব ঘটায়।
  • দীর্ঘ দূরত্ব এবং সময় জুড়ে ভ্রমণ, বায়ুমণ্ডলীয় পরিবর্তন, অনিয়মিত নিদ্রা চক্র এবং খাবার সময়, আপনার পিরিয়ডের দিনকে প্রভাবিত করে।
  • জীবনশৈলীর পছন্দগুলি, ব্যায়াম এবং নড়াচড়া, সবকিছুই, আপনার মাসিকের উপর প্রভাব ফেলে।
  • কিছু মহিলা প্রোল্যাক্টিনোমাতে ভোগেন, যা ইস্ট্রোজেন কমিয়ে দেয় এবং পিরিয়ডের বিলম্ব ঘটায়।
  • পিসিওস, যা পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম নামে পরিচিত, সেটি অযথাযথ ডিম্বস্ফোটন এবং হরমোনের সমস্যার কারণ। এটিও আপনার পিরিয়ডের বিলম্বও ঘটায়।

আপনি যদি গর্ভবতী হওয়ার পথ চেয়ে থাকেন, তখন কিটে নেতিবাচক ফলাফল দেখে আপনি হতাশ হতে পারেন। অস্থির হবেন না এবং কয়েকদিন অপেক্ষা করে পরীক্ষাটি আবার করুন। ভাগ্য সদয় হলে, আগেরটি একটি মিথ্যা নেতিবাচক হবে এবং পরবর্তীটি আপনাকে আপনার গর্ভাবস্থার যাত্রা শুরু করার জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসটি দেবে।