যমজ অথবা ততোধিক সন্তান সহ গর্ভাবস্থার সপ্তম সপ্তাহ

যমজ অথবা ততোধিক সন্তান সহ গর্ভাবস্থার সপ্তম সপ্তাহ

যমজ সন্তান সহ সাত সপ্তাহের গর্ভবতী হয়ে ওঠা একজন তরুণী মায়ের পক্ষে একটা দুর্দান্ত অনুভূতি এবং প্রথম বার হয়ে ওঠা মায়ের জন্য তা সম্পূর্ণ পৃথক একটি কার্যক্ষেত্র।গর্ভাবস্থার সূচনাতেই আপনার প্রত্যাশা করা সকল বিষয়গুলি এই সময়ে লক্ষ্যণীয় হয়ে উঠতে শুরু করবে।আপনার প্যান্টগুলি আরও আঁটসাঁট বা টাইট হয়ে যাওয়া থেকে আপনার অভ্যন্তরে কোনও কিছুকে বেড়ে ওঠাকে আপনি অনুভব করতে পারবেন, এই সকল অনুভূতিগুলি আপনার গর্ভাবস্থার সপ্তম সপ্তাহকে পরিচালিত ও নির্ধারিত করে।গর্ভস্থ শিশুরাও তাদের নিজস্ব বৃদ্ধির একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলকে থাকে, এবং তারা পূর্ব সপ্তাহের থেকে আকারে প্রায় দ্বিগুণ মত বৃদ্ধি পায়।

aniview

সাধারণ শারীরিক পরিবর্তনগুলি

যেহেতু একটি ক্রমবর্ধমান ভ্রূণ এই সময়ে তার বৃদ্ধির বৃহত্তম দৌড়ের অভিজ্ঞতাটি লাভ করে, তাই একজন গর্ভবতী মহিলার দেহে হওয়া পরিবর্তনগুলির অভিজ্ঞতা হওয়াটা বেশ সঙ্গতিপূর্ণ।

  • আপনি অন্যান্য ব্যক্তিদের তুলনায় কিছুটা গরম বোধ করতে পারেন এবং প্রায় ঘন ঘন ফ্যান বা এসি চালাতে চাইতে পারেন, যা এই সময় আপনার দেহে রক্ত সঞ্চালন বেড়ে যাওয়ার কারণে হয়ে থাকে।
  • অনেক মহিলার মধ্যেই আবার তাদের ত্বক কালো হয়ে যাওয়ার অভিজ্ঞতা দেখা যায়।সবচেয়ে বেশি লক্ষ্যণীয় হয়ে ওঠে তলপেটের নিকট গড়ে ওঠা একটি গাঢ় রেখা।শরীরের অন্যান্য অংশে পিগমেন্টেশনের ছোট ছোট প্যাচগুলি থাকতে পারে যা প্রসবের পর ধীরে ধীরে ম্লান হয়ে যায়।এমনকি আবার আপনার হাতের তালুগুলিও গাঢ় ছায়াচ্ছন্ন হয়ে যেতে পারে।
  • স্তনের ফোলাভাব এবং পূর্ণতা সেগুলিকে কোমল করে তুলবে।এমনকি সেই অঞ্চলে কিছু সূক্ষ্ম শিরা লক্ষ্য করারও সম্ভাবনা থাকতে পারে।স্তনবৃন্তগুলি আরও গাঢ় এবং আকারে বড় হয়ে ওঠার কারণে অ্যারিওলারগুলি গাঢ় হতে শুরু করে।স্তনবৃন্তের চারপাশে ছোট ছোট ফুসকুড়ির মত দেখা দিতে শুরু করবে।
  • জরায়ুটি আকারে বেড়ে যাওয়ার কারণে সেখানে একটি বড়সড় পরিবর্তন দেখা দেয় এবং সেটি বিকশিত হয়ে একটি ন্যাশপাতির আকার ধারণ করে।মাঝে মাঝে এটি আবার পেটের ডানদিকে ধীরে ধীরে সরে যেতে শুরু করতে পারে।এই ধরণের চলাচলটি আভ্যন্তরীণ লিগামেন্টগুলিকে স্বাভাবিকের তুলনায় শক্ত করে তুলতে পারে এবং আপনি যদি শরীরিটিকে দ্রুত ঘোরাতে চান তবে তা বেশ বেদনাদায়ক হয়ে উঠতে পারে।
  • এই পর্যায়ে ডিম্বোস্ফোটন সম্পূর্ণরূপে বন্ধ হয়ে যায় এবং নতুন ডিম্বাণুগুলির উৎপাদনও পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়।ডিম্বাশয় দ্বারা গঠিত সিস্টটি হরমোন উৎপাদনকে সমর্থন করে এবং গর্ভাবস্থাটিকে বজায় রাখতে সহায়তা করে।
  • রক্তবাহ দ্রুত গুণে বেড়ে যাওয়ার কারণে এই পর্যায়ের প্রায় আশেপাশে যোনি স্রাবও বেড়ে যেতে পারে।তাছাড়াও প্রসবের জন্য প্রস্তুতিতে যোনিকে পিচ্ছিল করার জন্যও এই স্রাব বৃদ্ধি পায়।স্বাভাবিকের তুলনায় যোনি সামান্য বেশি আম্লিক হয়ে ওঠার কারণে স্রাবটি ঘন এবং সাদা রঙের হবে।
  • জরায়ুতে অতিরিক্ত রক্ত প্রবাহ সরবরাহের জন্য দেহে রক্তের পরিমাণ বেড়ে যাবে।এই বর্ধিত রক্তের পরিমাণ গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকের সময় পালস রেটকে বাড়িয়ে তুলতে পারে।
  • দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকের মধ্যে আপনার শিশু আপনার দেহের ভিতরে আরও বেশি জায়গা অধিগ্রহণ করা শুরু করায়, আপনার অঙ্গাণুগুলি তাদের সাথে সামঞ্জস্যবিধানের জন্য চারিপাশে সরে যায়।আপনার হৃদযন্ত্রটি সামান্য বাম দিকে সরে যায়, অন্যদিকে ফুসফুস উপর দিকে সরে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে যাতে আপনার বুক কিছুটা প্রসারিত হয়।এটি ফুসফুসগুলিকে আগের চেয়ে অনেকটা বেশি উলম্বভাবে প্রসারিত করে, যার ফলে তারা সহজেই অনেক বেশি পরিমাণে প্রশ্বাস গ্রহণ এবং নিঃশ্বাস ত্যাগ করতে পারে।
  • দেহের ভিতরে এতগুলি পুষ্টি উপাদান বিনিময় হওয়ার সাথে বৃক্কগুলি ফুলে ওঠে এবং শেষ পর্যন্ত বেশি সময় ধরে কাজ করে।টক্সিন বা বিষাক্ত পদার্থগুলির নিঃসরণ এবং উদ্দীপ্ত হওয়ার প্রবণতা বেশি হওয়ার ফলে প্রস্রাবের পরিমাণ এবং সংবেদনশীলতা আরও বেড়ে যায়।
  • যদিও আপনি স্বাভাবিকের থেকে বেশি ক্ষুধার্থ বোধ করতে পারেন, কিন্তু আগের চেয়ে কম হারে পেট খালি হওয়ার প্রবণতার কারণে আপনি আহারের অল্প পরিমাণ গ্রহণের পরই খুব সম্ভবত পরিতৃপ্ত বোধ করবেন।এটি আবার এমনকি গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে অ্যাসিড রিফ্লাক্সের প্রকোপগুলি বাড়িয়ে তুলতে পারে।ফাইবার যুক্ত খাদ্যের অভাবের ফলে কোষ্ঠকাঠিণ্য দেখা দেয় যা আবার অবশ্যম্ভাবী রূপে হেমারয়েড বা অর্শের কারণ হয়ে ওঠে।

যমজ সন্তান গর্ভধারণের সপ্তম সপ্তাহের লক্ষণগুলি

যমজ সন্তান গর্ভধারণের সপ্তম সপ্তাহের লক্ষণগুলি

যমজ সন্তান গর্ভধারণের সপ্তম সপ্তাহের লক্ষণগুলি এই সময়ের মধ্যে বেশ কঠিন হয়ে ওঠার প্রবণতা থাকেঃ

  • বমি বমি ভাব এবং প্রাতঃকালীন অসুস্থতার পুনঃপুনঃ অনুভূতিগুলি তীব্র ভাবে বৃদ্ধি পাবে, বিশেষত একাধিক শিশু গর্ভধারণের ক্ষেত্রে যেহেতু হরমোনগুলি আগের চেয়ে বেশি পরিমাণে নিঃসৃত হয়।
  • তাদের খাবারের আকাঙ্খাগুলি এই সময় শীর্ষে পৌঁছতে পারে এবং আপনার দৃষ্টিতে আসা যেকোনও কিছু বা সবকিছুই আপনাকে সেটা গ্রহণের প্রতি কাঙ্খিত করে তুলতে পারে। আপনি যতক্ষণ স্বাস্থ্যকর ডায়েটের সাথে সংলগ্ন থাকেন ততক্ষণ স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি খাবার খাওয়া একেবারে ঠিক থাকে। বিপরীতে, কিছু মহিলা আবার কিছু নির্দিষ্ট খাদ্য পদগুলির প্রতি দৃঢ় বিতৃষ্ণা অনুভব করতে পারেন। এটি এমন খাবারগুলির সাথে ঘটতে পারে যেগুলির একটি বিশেষ গন্ধ বা সুগন্ধ থাকে এবং যা আপনার মধ্যে প্রাতঃকালীন অসুস্থতা দেখা দেওয়ার কারণ হতে পারে এবং আপনাকে তার কবলে ফেলে দিতে পারে।এর অধিকাংশ বিতৃষ্ণাগুলিই আসে হরমোনের ক্রম উত্থানপতনের ফলে, এবং যতক্ষণ মা বিকল্প উৎসগুলি থেকে পুষ্টি পেতে থাকেন ততক্ষণ এগুলি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক। হালকা স্বাদের শুকনো খাদ্য পদগুলি যেমন দই বা বিস্কুট এই ধরণের পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য একটি ভাল উপায় হয়ে উঠতে পারে।
  • গর্ভাবস্থায় কিছু মহিলার মধ্যে আবার ব্রণ বেরোতে দেখা যেতে পারে, যা তাদের মধ্যে ভীষণ এক অস্বস্তি সৃষ্টি করে।তবে এর চিকিৎসা করার জন্য যেকোনও বিকল্পকে বেছে নেওয়ার আগে অবশ্যই আপনার ডাক্তারবাবুর পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে।
  • লালার পরিমাণ মারাত্মক ভাবে বেড়ে যাবে যার একটি সাধারণ প্রবৃত্তি হিসেবে বারংবার থুতু ফেলার প্রবণতা দেখা দেবে।এমনকি আবার আপনার ঘুমের মধ্যেও মুখ থেকে লালা ঝরতে দেখা দিতে পারে।
  • ক্রম বর্ধিত জরায়ুর কারণে আবার কিছু মহিলা সামাণ্য ক্র্যাম্প বা খিঁচ লাগাও অনুভব করতে পারেন।যতক্ষণ সেই খিঁচ লাগা তীব্র হয়ে না ওঠে এবং বারংবার তার পুনরাবৃত্তি না হয়ে থাকে ততক্ষণ আপনি নিরাপদ।

যমজ সন্তান সহ গর্ভাবস্থার সপ্তম সপ্তাহের পেট

এক সপ্তাহের মধ্যে শিশুদের আকারের হঠাৎ বৃদ্ধি আপনার পেটের আকারকে প্রতীয়মান করে তুলতে পারে, যার উপস্থিতি এখন আগের থেকে আপনাকে বেশি অনুভব করাবে।কিছু মহিলা আবার তাদের ত্বকের উপর কিছু হালকা রেখা বা দাগ লক্ষ্য করতে পারেন যেগুলি সামাণ্য লালচে রঙের হয়ে থাকতে পারে।এগুলি আবার স্তন এবং থাই অঞ্চলেও দেখা দিতে পারে।এগুলি হল গর্ভস্থ ক্রমবর্ধমান শিশুর সাথে সমন্বয়সাধনের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করার ক্ষেত্রে আপনার দেহের ক্রমবিকশিত প্রসারণ রেখার সূচনা।

7ম সপ্তাহের যমজ সন্তানের আল্ট্রাসাউন্ড

মাবাবারা যদি জানতে প্রত্যাশা করেন তবে অধিকাংশ ডাক্তার এই সময় জানাতে সক্ষম হবেন যে তাদের গর্ভাবস্থায় একাধিক সন্তান আছে কিনাযমজ, তিনটি বা তারও বেশি!এমনকি দুই সপ্তাহ আগেই যদিও এর চূড়ান্ত প্রমাণ পাওয়া যেতে পারে, তবে এই পর্যায়টি সেই সত্যটিকে জেনে মেনে নেওয়ার পক্ষে মাবাবাকে সহজ করে তোলে, আর এই কারণেই বেশিরভাগ ডাক্তারবাবুই গর্ভাবস্থার সাত সপ্তাহ না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করেন এবং মাঝে মধ্যে এর আগের সপ্তাহগুলিতে দম্পতিদের এ ব্যাপারে প্রস্তুত করার জন্য কাজে লাগান।সপ্তম সপ্তাহের আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যানে গর্ভস্থ যমজ অথবা ততোধিক সন্তানের পৃথক থলিতে উপস্থিতিটি সহজেই চিহ্নিত করা যেতে পারে।যদিও আপনি শিশুদের আকারে খুব বেশি উন্নতি দেখতে সমর্থ নাও হতে পারেন, তবে তাদের প্রত্যেকেরই মূখ্য অঙ্গাণু এবং শারীরিক অঙ্গপ্রত্যঙ্গগুলি ক্রম বিকশিত হতে থাকার কারণে, আপনি নিশ্চিন্ত হতে পারেন।

কি খেতে হবে

গর্ভাবস্থার সপ্তম সপ্তাহটি হল এমন এক সময় যখন বেশিরভাগ মহিলাদের মধ্যেই তাদের খাদ্য বাসনাটি তীব্র হয়ে ওঠে যেটি আপনি শুনে এসেছেন!যে খাবারগুলি কোনোদিনই ভালো লাগত না সেগুলিকেই হঠাৎ করে সব সময়ের জন্য ভীষণ সুস্বাদু লাগা শুরু হতে পারে!কেউ কেউ বলেন যে খাদ্য বাসনাগুলি হল আপনার দেহে পুষ্টির প্রয়োজনীয়তাগুলি পুনঃ পুনঃ পূরণ করার প্রয়োজনীয়তাকে জানান দেওয়ার দৈহিক উপায়।উদাহরণস্বরূপ আইসক্রীম খাওয়ার ইচ্ছে হওয়ার অর্থ হতে পারে দেহে ক্যালসিয়ামের মাত্রা স্থির করা অথবা মাংসের পদগুলি খাওয়ার বাসনার অর্থ হতে পারে দেহে প্রোটিন গ্রহণের প্রয়োজনীয়তা পূরণ করার লক্ষ্য।

তীব্র অথবা নূন্যতম খাদ্য বাসনা নির্বিশেষে, আপনার প্রয়োজন মত সমস্ত উপাদান এবং পুষ্টি উপাদানের ভারসাম্য রক্ষার জন্য কিছু নির্দিষ্ট খাদ্য পদগুলিকে আপনার ডায়েটের একটি অংশ করে তোলা নিশ্চিত করুন।প্রাথমিকভাবে প্রাতঃকালীন অসুস্থতার জন্য তার বিরুদ্ধে লড়াই করার সময় সেটি পরিচালনা করার জন্য বিভিন্ন ধরণের খাদ্য পদগুলির সম্মুখীন হওয়া কঠিন হয়ে উঠতে পারে।এক্ষেত্রে কড়া স্বাদ ও গন্ধ হীন কিছু বিশেষ ফল অথবা বিকল্পগুলিকে বেছে নিন যা আপনাকে স্বাস্থ্যকর এবং সুস্থ রাখতে সহায়তা করতে পারে।

গর্ভাবস্থার যত্ন নেওয়ার পরামর্শ বা টিপস

আপনার গর্ভাবস্থার যত্ন নেওয়ার মধ্যে পড়ে স্বাস্থ্যকর ও সুষম আহার গ্রহণ এবং আপনার শরীরের যত্ন নেওয়া।কিছু করণীয় এবং করণীয় নয় এমন বিষয়গুলিও আপনাকে নিরাপদ রাখার জন্য অপরিহার্য।

করণীয়

  • সময়ানুযায়ী আপনার মেডিক্যাল চেকআপগুলি করান।ডাক্তারের কাছে যাওয়ার আগে আপনার মনে থাকা সন্দেহ এবং প্রশ্নগুলির একটি তালিকা প্রস্তুত করা নিশ্চিত করুন যাতে আপনি তার সকল উত্তরগুলি পেতে পারেন।
  • প্রতিদিন অথবা সপ্তাহে অন্তত দুবার কিম্বা তিনবার আপনার বর্ধিত পেটের ফটো তোলার কথা মাথায় রাখুন।এটি করার ফলে পূর্বের মাসের তুলনায় আপনার পেটের বৃদ্ধির অগ্রগতি কীভাবে এবং কতটা হয়েছে তার একটা ধারণা পেতে আপনাকে সাহায্য করবে।

করণীয় নয়

  • মাছ মাংসের মত কাঁচা খাদ্য পণ্যগুলিকে সেবন করা এড়িয়ে চলুন, এক্ষেত্রে আপনি সেগুলির প্রতি কতটা প্রলুব্ধ সেটি কোনও উদ্দেশ্যই নয়।যেকোনও সংক্রমণ থেকে নিরাপদ থাকাটাই বড় কথা।
  • আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য এই সময় কোনওরকম ওজন হ্রাসকারী পরিকল্পনাকে চয়ন করবেন না বা আপনার ডায়েটকে সীমিত করবেন না।এটি মারাত্মক এবং অপরিবর্তনীয় ভাবে আপনার শিশুর ক্ষতি করতে পারে।

আপনার কি কি কেনাকাটি করার প্রয়োজন পড়বে

আসন্ন সপ্তাহগুলিতে আপনার প্রাতঃকালীন অসুস্থতার লক্ষণগুলি আরও তীব্র হয়ে উঠবে, কিছু সুগন্ধি ধূপকাঠি এবং ভাল মানের চায়ের জন্য বিনিয়োগ করলে তা আপনার পক্ষে উপকারী হতে পারে।আপনার ত্বককে মসৃণ এবং স্বাস্থ্যকর রাখতে কিছু মৃদু স্ক্রাব এবং ময়েশ্চেরাইজার ক্রয় করুন।গর্ভাবস্থা এবং শিশুর বিকাশ সংক্রান্ত কিছু বই বা নিবন্ধ পড়া শুরু করুন।

যমজ সন্তানের হৃদ স্পন্দন শুনতে পাওয়াটা আবার কিছু মায়েদের ক্ষেত্রে তাদের গর্ভাবস্থার সপ্তম সপ্তাহেই সম্ভবপর হয়ে উঠতে পারে, আর সেই উপলব্ধিটি নিতান্তই মূল্যবান।শিশুদের নিরাপদে ভালভাবে বেড়ে উঠতে দেখাটা এমন এক জিনিস যা তৎক্ষণাৎ একজন মহিলাকে একজন মায়ে পরিণত করে তুলতে পারে, এবং সঠিক উপায়ে আপনার সন্তানদের যত্ন নেওয়ার আত্মপ্রত্যয়কে বহু গুণ বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে।