যমজ বা তার বেশি শিশু সহ ৩০ সপ্তাহের গর্ভবতী

যমজ বা তার বেশি শিশু সহ ৩০ সপ্তাহের গর্ভবতী

যমজ সহ গর্ভাবস্থার ৩০ সপ্তাহে পদার্পণ করে আপনি জেনে খুশি হতে পারেন যে আপনার বাচ্চারা আর দেড় মাসের মধ্যেই আপনার কোলে আসবে। আপনার গর্ভাবস্থার সময়কালের একটি বড় অংশ পূর্ববর্তী মাসগুলিতে শেষ হয়েছে। আপনি যদি গর্ভধারণের কথা জানার ৪ সপ্তাহের সময় থেকে জার্নালটি ঠিক রেখে দিয়ে থাকেন, তবে আপনি আগের কঠোর সপ্তাহগুলি কিভাবে পেরিয়ে এসেছেন এবং আগের ত্রৈমাসিকে যে মজা পেয়েছিলেন তা দেখে আপনি অবাক হয়ে যাবেন। ক্লান্তি এবং পরিশ্রান্তি হয়তো আপনার মধ্যে আসবে এবং আপনি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব গর্ভাবস্থা সম্পন্ন করার অপেক্ষায় থাকবেন। সবকিছু নির্ধারিত সময়ে ঘটবে এবং আপনার শিশুরা প্রত্যাশার চেয়ে শীঘ্রই বাইরে বেরোনোর ​​সিদ্ধান্ত নিতে পারে, তাই প্রস্তুত থাকুন।

aniview

৩০ সপ্তাহে বাচ্চাদের বৃদ্ধি

আপনি একাধিক শিশুর সাথে গর্ভবতী এবং আপনার গর্ভাবস্থার ৩০ সপ্তাহের পর্যায়ে আছেন, আপনার বাচ্চাদের প্রসবের অনুভূতি আপনাকে ঢেকে ফেলতে পারে, উপযুক্ত কারণ সহ। বেশিরভাগ যমজ বা ট্রিপল্ট সহ গর্ভাবস্থার পুরো মেয়াদ পেরিয়ে আসে না এবং অকালে জন্ম গ্রহণ করে। যদিও এটি আপনাকে উদ্বেগের দিকে নিয়ে যেতে পারে, তবে ৩০তম সপ্তাহটি তাদের বিকাশের জন্য একটি দুর্দান্ত মাইলফলক এবং তাদের এখনই আপনার বাইরে বেরিয়ে বেঁচে থাকার সম্ভাবনা বেশ শক্তিশালী।

মস্তিষ্কের বিকাশ অন্য সবকিছুর থেকে বেশি হয়, বাচ্চা বাইরে বেরিয়ে যাতে ভালোভাবে থাকতে পারে তার জন্য এই সময় সবচেয়ে সম্ভাবনাময় রূপ হিসাবে যত দ্রুত সম্ভব কোঁচকানো এবং ভাঁজ হওয়ার বিকাশ ঘটায়। যদি সেই কার্যকারিতাটি নিশ্চিত করে যে সে তার সর্বোত্তম আচরণে রয়েছে, তবে বাহ্যিক পুষ্টি হজম করতে প্রস্তুত হওয়ার জন্য তাদের হজমতন্ত্র আরও নিজেকে প্রস্তুত করতে থাকে। ইতিমধ্যে বেশিরভাগ উন্নয়ন সম্পন্ন হয়েছে এবং যে কোন আবরণ পাওয়া এক বা দুই সপ্তাহের মধ্যে শেষ হবে।

হাড়ের দুর্বলতা শীঘ্রই তার সমাপ্তিতে পৌঁছে যাবে। এটি জেনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে জন্মের পরেও আপনার বাচ্চাদের হাড়গুলি আপনার মতো শক্তিশালী হবে না। তারা তুলনামূলকভাবে এখনও নরম, কিন্তু কার্যকরভাবে শরীরের গঠন সমর্থন করার পক্ষে যথেষ্ট শক্ত। এই নরম হাড়গুলি কোনওরকম ক্ষতি ছাড়াই সঙ্কীর্ণ প্রসব খালের মধ্য দিয়ে বাচ্চাদের আগমনকে সহজ করে দেয় এবং তাদের পরবর্তী জীবনে সহজে হাঁটা শিখতে সহায়তা করে।

নির্ধারিত তারিখটি খুব কাছাকাছি আসার সাথে সাথে ফুসফুসের বিকাশ তার চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছতে শুরু করবে। কিছু বাচ্চার ফুসফুস এই সপ্তাহেই পরিপক্ক হয় এবং তারা গর্ভের মধ্যেই শ্বাস-প্রশ্বাসের প্রক্রিয়াটি সঠিকভাবে অনুশীলন করতে শুরু করে। যদি আপনি আপনার শরীরের অভ্যন্তরে হেঁচকি তোলা অনুভব করেন, তবে জেনে রাখুন আপনার বাচ্চাদের ফুসফুসগুলি যথাযথভাবে কাজ করছে।

বাচ্চাদের আকার কেমন হবে?

বাচ্চাদের আকার কেমন হবে?

যদিও বাচ্চাদের দৈর্ঘ্য আগের সপ্তাহের তুলনায় আরও বাড়ে, তবে তারা এখনও ৩৮-৪০ সেন্টিমিটারের আশেপাশে থাকবে। তবে তাদের ওজন প্রায় ১.৩ কিলোগ্রাম বা তার বেশি হবে, যা আপনাকে আপনার ভিতরে তাদের উপস্থিতি সম্পর্কে খুব ভালভাবে অবহিত করে। আপনি যদি কখনও বাজারে বেশ বড় শসা দেখতে পান, তবে আপনার বাচ্চারা আপনার অভ্যন্তরে কতটা বড় তা আন্দাজ করতে পারবেন।

সাধারণ শারীরিক পরিবর্তন

আপনার গর্ভাবস্থার ৩০তম সপ্তাহের মধ্যে, শরীরের যে যে পরিবর্তন হবে তা আপনার জন্য আর নতুন কিছু হবে না। তবে এগুলি আপনার জন্য কিছু আচরণগত পরিবর্তন হতে পারে যা সম্পর্কে আপনার সচেতন হওয়া দরকার।

আপনি যদি গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে নিজের কোন ছবি তুলে থাকেন, তবে আপনি যে চমকপ্রদ আভা ও মসৃণ ত্বক পেয়েছিলেন তা দেখতে পাবেন। তবে নিজেকে এখন আয়নায় দেখলে আপনি আপনার জীবনে এইসবের অনুপস্থিতি দেখে অবাক হয়ে যাবেন। বেশিরভাগ দিন আপনি প্রচণ্ড ঘামছেন, আপনার মুখ ও বগলকে নিয়মিত মুছতে হবে এবং নিজেকে নিয়ে বিচলিত হবেন। হরমোনগুলিই আসলে আপনার সাথে এটি ঘটায়, তারাই আপনার সাথে লরাইয়ে জয়ের কাপটি পাবে, আপনার বিপাকীয় প্রক্রিয়াগুলির পরিবর্তনের সাথে মিলিত হয়ে প্রায়ই ঘাম হওয়ার কারণ হয়। ঘটনাটি বেশ স্বাভাবিক, তবে এর জন্য ডিহাইড্রেশন হতে পারে, তাই আরও বেশি জল পান করে এবং সমস্ত ধরণের তরল গ্রহণের মাধ্যমে ভারসাম্য বজায় রাখা দরকার।

বড় পেটের কারণে ইতিমধ্যে আপনাকে অন্যভাবে হাঁটাচলা শুরু করতে হবে, আপনার চলনভঙ্গি এবং দাঁড়ানো ও বসার ভঙ্গি যথেষ্ট পরিবর্তন সহকারে। দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকের শেষ মাস এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকের সূচনা এই সময়টা বেশ ঝুঁকিপূর্ণ, কারণ আপনার ক্ষুদে শয়তানরা এই সময়ে আরও শক্তিশালী হবে। এমনকি আপনি হাঁটার সময়ও, আপনার পেটটি কতটা এগিয়ে রয়েছে তার বিচার করা আপনাকে সমস্যাগুলির মধ্যে দিয়ে যেতে বা আপনি ঘুরে দাঁড়ালে তাদের পরাজিত করতে পারবে। এটি সাধারণত তেমন চিন্তার কিছু নয়, তবে কোন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে আপনি গণনা করা এবং ধীরে ধীরে সিঁড়ি বেয়ে চলাফেরার বিষয়টি নিশ্চিত করুন।

ভাবছেন যে প্রথম ত্রৈমাসিকটি আপনার জন্য অত্যন্ত ক্লান্তিকর ছিল? ক্লান্তিকে আবারও স্বাগত জানাতে হবে, যেহেতু আপনি আপনার তৃতীয় ত্রৈমাসিকের মাঝে থাকাকালীন নিজের শক্তি সংরক্ষণে নিজেকে ব্যর্থ হতে দেখবেন। আপনার দেহটি ইতিমধ্যে বর্ধিত ওজন ও অভ্যন্তরীণ চাহিদাগুলির সাথে লড়াই করছে এবং এটি আপনার কিছু করার জন্য খুব কম শক্তি থাকবে। কিছু সাধারণ কাজ করতে না পারার জন্য নিজেকে মানসিক কষ্ট দেবেন না। একজন মহিলার পক্ষে প্রকৃত প্রসব শ্রমের জন্য নিজের শক্তি সংরক্ষণ করা স্বাভাবিক এবং বেশ প্রয়োজনীয়। দিনের মধ্যে পর্যাপ্ত বিরতি নিন এবং যখনই পারেন আপনি ঘুমানো নিশ্চিত করুন।

সাধারণ শারীরিক পরিবর্তন

যমজ সহ গর্ভাবস্থার ৩০ সপ্তাহের লক্ষণ

এই সময়টি আপনার গর্ভাবস্থায় আপনার সাথে কি ঘটছে তা অবাক করার মতো নতুন কিছু নয়। আগের পর্যায়ের পুরানো বন্ধুরা (সমস্যাগুলি)এই সপ্তাহেও উপস্থিত থেকে আপনাকে ক্রমাগত বিরক্ত করে তুলবে।

যখন কোন শিশু এদিক ওদিক করতে শুরু হয়, তখন আপনি শরীরের বিভিন্ন অঞ্চলে ধীর ব্যথা অনুভব করেন সেগুলির সাথে আপনি অভ্যস্ত হয়ে উঠতে পারেন। এর মাধ্যমে আপনার পথ প্রশস্ত করার একমাত্র উপায় ধৈর্য এবং শান্ত। আপনার বাচ্চাদের বিকাশ যেমন গর্ভাবস্থার মধ্য দিয়ে চলে তেমন চলতে থাকবে এবং এই চূড়ান্ত পর্যায়ে আপনার শরীরের বোঝা আরও বাড়িয়ে তুলতে হবে। অনিদ্রা এবং শক্তি কমে যাওয়ার সাথে একত্রিত হয়ে ব্যথা কম করার ক্ষমতাও হ্রাস করতে পারে। নিজের যত্ন নিতে কোনও নিরাপদ ঘরোয়া প্রতিকার এবং প্রচুর বিশ্রাম ব্যবহার করুন।

আপনার দেহের অভ্যন্তরে সহজেই যমজ এবং ট্রিপল্টের অস্তিত্ব থাকতে পারে। প্রতিটি বাচ্চা নিজের জন্য কিছুটা ভাল জায়গা তৈরি করতে এবং আপনার জরায়ুকে প্রতিটি দিকে প্রসারিত করতে, অন্য কোনও অঙ্গকে দূরে ঠেলে দিয়ে ছোট বাচ্চাদের যতটুকু পছন্দ করতে পারে তা দিতে চাইবে। এটির অভিজ্ঞতা ফুসফুস এবং ডায়াফ্রামটি সবচেয়ে খারাপ, এগুলি তাদের ক্রিয়াকলাপ চালিয়ে যাওয়ার জন্য খুব কম জায়গা দিয়ে আপনার শরীরের মধ্যে আপনাকে একটি ক্ষুদ্র কোণে ফেলে দেয়। তাই সিঁড়ি দিয়ে একটু কম দূরত্বে উঠলে আপনি হাঁপিয়ে যাবেন, তবে অবাক হবেন না। আপনার স্ট্যামিনাতে কোনও সমস্যা নেই এবং বাচ্চাগুলি আপনার শ্রোণী অঞ্চলে নীচে নেমে গেলে আপনি গভীর শ্বাস নিতে সক্ষম হবেন।

জায়গা পাওয়ার জন্য দফায় দফায় আপনার গর্ভে শিশুদের ধাক্কাধাক্কি আপনার বেশ কিছু অঙ্গকে হতচকিত করতে পারে, যার ফলে তারা ভুলভাল কাজ করতে পারে। আপনার পাকস্থলী হল তাদের মধ্যে অন্যতম যা অত্যন্তই বিভ্রান্ত হয়ে যায় এবং এমনভাবে কাজ করতে থাকে যা উপকারের চেয়ে বেশি জ্বালা সৃষ্টি হয়। আপনার পছন্দসই খাবারের জিনিস খেলে হঠাৎ করে অম্লতা বৃদ্ধি পাবে বা আপনার গলায় অ্যাসিড রিফ্লাক্স বাড়িয়ে তুলতে পারে। হরমোনগুলি সবই আপনাকে সহায়তা করে এবং পুরো পরিস্থিতি আপনাকে আবার আপনার ডায়েটটিকে পুনরায় বিবেচনা করতে হতে পারে। এই জাতীয় পরিস্থিতিতে একটি নোট তৈরি করুন যাতে আপনি আপনার খাবার তালিকা সঠিকভাবে ডিজাইন করতে পারেন।

যমজ সহ গর্ভাবস্থায় পেট – ৩০ সপ্তাহ

পেটের অবিচ্ছিন্ন প্রসারণ এবং ত্বকের প্রসারণ এই পর্যায়ে আপনার পেটের আরও ভাল যত্ন নেওয়া প্রয়োজনীয় করে তোলে। পেটের অঞ্চলটি অভ্যন্তরীণভাবে প্রচুর পরিমাণে টান পেতে থাকে, এটি স্বাভাবিকের চেয়ে দুর্বল হয়ে পড়ে। ক্রিম ব্যবহার করে স্ট্রেচ মার্কস হওয়া থেকে বাধা দিতে এবং শক্তি অক্ষত রাখা প্রয়োজনীয়, কারণ আগে থেকে যত্ন নেওয়া না হলে প্রসবের পরে পেটের থলথলে ভাঁজগুলি কমিয়ে ফেলা কঠিন হতে পারে। পেটের উপর যে কোন চাপ কমানোর জন্য চেয়ার থেকে ওঠা বা শুয়ে থাকার পরে বসার মতো সাধারণ ক্রিয়াকলাপগুলি একটি নির্দিষ্ট উপায়ে পরিচালনা করা উচিত।

যমজ সহ গর্ভাবস্থায় আল্ট্রাসাউন্ড – ৩০তম সপ্তাহ

যমজ, ট্রিপল্ট বা তার বেশি শিশু বহন করা বেশিরভাগ মায়েদের গর্ভাবস্থার ৩০তম সপ্তাহের মধ্যে একটি আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যান করা হয়। কখনও কখনও, এই স্ক্যানটি সাধারণত একটি বায়োফিজিকাল পরীক্ষার সাথে যুক্ত হয়, যা ভ্রূণের হৃদস্পন্দন পরীক্ষা করার উপর নজর দেয় এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ পরামিতিগুলি পর্যবেক্ষণ করে। এটি অনাক্রমণাত্মক এবং কেবল আপনার অভ্যস্থ আল্ট্রাসাউন্ডগুলির একটি উন্নত সংস্করণ।

কি খেতে হবে?

প্রোটিন এবং জটিল কার্বোহাইড্রেটের প্রয়োজনীয়তা এই পর্যায়ে ব্যতিক্রমীভাবে বেশি। সিরিয়াল এবং চর্বিহীন মাংস সমৃদ্ধ একটি স্বাস্থ্যকর ডায়েট বজায় রাখা এটি অর্জনে সহায়তা করতে পারে। খাবারের গুণমান সর্বদা চূড়ান্ত হওয়া উচিত এবং কোন প্রিজারভেটিভযুক্ত বা কাঁচা খাবার জিনিস কঠোরভাবে এড়ানো উচিত।

কি খেতে হবে?

গর্ভাবস্থায় যত্নের টিপস

আপনি আপনার গর্ভাবস্থার যাত্রা সমাপ্ত করার কাছাকাছি রয়েছেন, সুতরাং আপনার যা করার দরকার তা হল কয়েকটি সতর্কতা অবলম্বন করা।

করণীয়

  • আপনার ওজন নিয়মিত নিরীক্ষণ করুন এবং কোন অসুবিধা হলে আপনার ডাক্তারের কাছে রিপোর্ট করুন।
  • হাসপাতালে পৌঁছাতে কত সময় লাগে তা দেখার জন্য একটি ট্রায়াল রান দিন।

অকরণীয়

  • আপনার পিঠে এবং পেটে স্ট্রেস কমাতে হাই হিল পরে হাঁটা এড়ানো উচিত।
  • অ্যালার্জেন থাকতে পারে এমন কোন খাবার জিনিস থেকে দূরে থাকুন।

আপনাকে কি কি কেনাকাটা করতে হবে

আপনি যেহেতু আপনার যাত্রা শেষ করার পথে, তাই এমন কিছু পণ্যে বিনিয়োগ করুন যা আপনার যত্ন নিতে পারে, যেমন:

  • ফোলা এবং ভেরিকোজ শিরা প্রতিরোধ করতে কমপ্রেশন মোজা
  • গর্ভাবস্থার পরের পেট ধরে রাখার জন্য একটি বেলি বেল্ট।

আপনার যমজ শিশুদের ওজনের উপর নজর রাখা এবং তাদের অগ্রগতিতে কোন জটিলতা ছাড়াই ৩০ সপ্তাহে প্রবেশ নিশ্চিত করা আপনাকে স্বাস্থ্যকর প্রসবের আশ্বাস দিতে পারে। আপনার ডাক্তারের সংস্পর্শে থাকুন এবং এখনই যে কোন সপ্তাহে আপনার শিশুদের আপনার কোলে জড়িয়ে ধরতে প্রস্তুত থাকুন।