শিশুদের মধ্যে ঠান্ডা: কারণ, চিকিৎসা এবং ঘরোয়া প্রতিকার

শিশুদের মধ্যে ঠান্ডা: কারণ, চিকিৎসা এবং ঘরোয়া প্রতিকার

শিশুদের প্রায়ই খুব ঠান্ডা লাগে এবং এটির প্রাথমিক কারণ হল তাদের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা অত্যন্ত অপরিণত। সাধারণ ঠান্ডার জন্য দায়ী ২০০টি ভাইরাসের কোন একটিতে উন্মুক্ত হলে একটি শিশুর ঠান্ডা লাগতে পারে। সদ্যজাত বা বাচ্চাদের জন্য ওষুধ ব্যবহার করা প্রয়োজনীয় না হওয়া পর্যন্ত পরামর্শ দেওয়া হয় না। আপনার ডাক্তারের অন্যথায় যদি মনে না হয় তবে আপনি আপনার বাচ্চার ঠান্ডার প্রতিকারের জন্য এই নিবন্ধটিতে তালিকাভুক্ত ঘরোয়া প্রতিকারগুলিকে ব্যবহার করতে পারেন।

aniview

বাচ্চাদের মধ্যে সাধারণ ঠান্ডা

শিশুদের মধ্যে সাধারণ ঠান্ডা খুব গুরুতর এবং সাধারণত সব ক্রমবর্ধমান বাচ্চাদের মধ্যেই দেখা যায়। বিশেষজ্ঞদের মতে, শিশুদের ২ বছর বয়স হওয়া পর্যন্ত ৮ থেকে ১০ বার ঠান্ডা লাগে। ছোট্ট শিশুদের খেতে এবং রাতে অস্বস্তিকর থাকতে দেখা হৃদয়বিদারক, কিন্তু আপনার শিশুর অস্বস্তির উপশম করার জন্য আপনি একাধিক জিনিস করতে পারেন, তাই এমন বিষয়ে চিন্তা করার মতো কিছুই নেই।

কিভাবে আপনি ফ্লু, অন্যান্য অসুস্থতা বা অ্যালার্জি থেকে ঠান্ডাকে আলাদা করতে পারেন?

ঠান্ডা এবং ফ্লুর মধ্যে পার্থক্য করা একটু কঠিন হতে পারে। আপনার ছোট্টটি যদি স্বচ্ছ শ্লেষ্মার সাথে প্রবাহী নাক থাকে যা পরবর্তী সপ্তাহগুলিতে ঘন হতে পারে, তাহলে আপনার শিশুর সম্ভবত ঠান্ডা লেগেছে। যদি ঠান্ডা জ্বরের সাথে থাকে তবে আপনার শিশুকে জ্বর নামার পর লক্ষ্য করুন। যদি আপনার শিশুটি জ্বর নেমে গেলে সক্রিয় এবং ক্রীড়নশীল হয়, তাহোলে এটি কেবল একটি ঠান্ডা, তবে যদি আপনার শিশু জ্বর নামার পরেও অস্থির ও দুর্বল হয়ে থাকে, তবে তার মানে আপনার শিশুর ফ্লু হয়েছে। এছাড়াও, যদি আপনার শিশুর জ্বর ছাড়া একটি প্রবাহী নাকের সঙ্গে কাশি থাকে, আপনার ছোট্টটির সম্ভবত ঠান্ডা লেগেছে।

ফ্লু বা বাচ্চাদের অন্য কোনো অসুস্থতা হঠাৎ করে আসবে এবং সম্ভবত ডায়রিয়া বা বমিভাবের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ হবে। অন্যদিকে অ্যালার্জির অনুরূপ উপসর্গ রয়েছে, তবে তা আলাদা করা সহজ। অ্যালার্জি আপনার ছোট্টটির জ্বরের কারণ হবে না। শিশুদের অ্যালার্জির সাধারণ লক্ষণগুলি হল চুলকানি এবং ছলছলে চোখ এবং প্রবাহী নাক। হাঁচি এবং ত্বকে চুলকানির কারণে হওয়া র‍্যাসের বিকাশ ঘটে। এছাড়াও, আপনি পর্যবেক্ষণ করবেন যে অ্যালার্জির ক্ষেত্রে আপনার শিশুর নাক থেকে বের হওয়া শ্লেষ্মা সবসময় স্বচ্ছ থাকবে এবং রঙ বা ঘনত্ব পরিবর্তন করবে না।

সাধারণ কারণগুলি কি কি?

নবজাতক শিশুর ঠান্ডা ২০০টি ভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট হতে পারে, তবে শিশুদের মধ্যে সাধারণ ঠান্ডার জন্য দায়ী সবচেয়ে সাধারণ ভাইরাস হল রাইনোভাইরাস। সাধারণ ঠান্ডা সাধারণত নাক এবং গলাকে সংক্রামিত করে। এখন, ঠান্ডা সম্পর্কে আকর্ষণীয় ঘটনাটি হল যে একবার একটি নির্দিষ্ট ঠান্ডার ভাইরাসে সংক্রামিত হলে, আপনার সন্তানটি সেই ভাইরাস থেকে মুক্ত হয়ে যায়। কিন্তু অনেক ঠান্ডা-সৃষ্টিকারী ভাইরাস আছে, তাই আপনার সন্তানটি ২ বছর বয়সের মধ্যে ঠান্ডার কয়েকটি সমস্যায় পড়তে পারে। যেহেতু ঠান্ডা একটি সংক্রামক রোগ, তাই এটি আপনার শিশুর সিস্টেমে প্রবেশ করে:

  • বায়ুর মাধ্যমে: সাধারণত যখন সংক্রামিত ব্যক্তির কাশি হয়, সে কথা বলে বা হাঁচি হয়, সে ভাইরাস ছড়িয়ে দিতে পারে
  • স্পর্শের মাধ্যমে: যখন সংক্রামিত ব্যক্তি আপনার শিশুকে স্পর্শ করে, তখন সে আপনার বাচ্চার কাছে ভাইরাসটি পাস করবে
  • সংক্রামিত পৃষ্ঠতলের মাধ্যমে: আপনার বাচ্চা সংক্রামিত খেলনা বা অন্য যে কোনও পৃষ্ঠ স্পর্শ করে ভাইরাস পেতে পারে, কারণ ভাইরাস ২ ঘন্টা বা তার বেশি সময় ধরে থাকে।

আপনার বাচ্চা তার অপক্ক প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার কারণে সাধারণ ঠান্ডা ধরার ঝুঁকি বেশি থাকবে। যেসব শিশুদের ইতিমধ্যেই ঠান্ডা লেগেছে, তাদের কাছে আপনার শিশুরকে উন্মুক্ত করলে তার ঠান্ডা ধরার ঝুঁকি হতে পারে। আবহাওয়া পরিবর্তনের সময়ও আপনার শিশু ঠান্ডার প্রতি সংবেদনশীল হয়।

শিশু ঠান্ডার উপসর্গ এবং লক্ষণ

যদি আপনার শিশু ঠান্ডায় সংক্রামিত হয় তবে আপনার সন্তানের নিম্নলিখিত লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি পর্যবেক্ষণ করতে পারেন:

  • কাশি
  • গলায় ব্যথা
  • লাল চোখ
  • প্রবাহী নাক
  • কানে ব্যথা
  • ১০১ ডিগ্রি ফারেনহাইট (৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস) জ্বর
  • ক্ষুধামন্দ
  • মাথার পিছনে এবং বগলের নীচে ফোলা লসিকা গ্রন্থি

আপনার শিশুর অস্থির হতে যাচ্ছে এবং বন্ধ নাকের কারণে জেগে থাকতে পারে। খাওয়ানো একটি সমস্যা হয়ে উঠবে। যেহেতু আপনার বাচ্চা তার নাক ঝাড়তে পারবে না, তাই আপনাকে শ্লেষ্মা পরিষ্কার করতে হবে। আপনার শিশুর নাক দিয়ে শ্বাস ফেলা কঠিন হবে এবং এটি শিশুকে উদ্বেগজনক করবে।

জটিলতা

প্রচলিত ঠান্ডা যখন গুরুতর কিছু অনিশ্চিত জটিলতা সৃষ্টি করে সেগুলি হতে পারে:

  • মারাত্মক কানের সংক্রমণ যা ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাস কানের পর্দার পিছনের স্থান প্রবেশ করলে হয়।
  • কিছু ক্ষেত্রে, ঠান্ডা বাঁশির মতো শব্দসহ শ্বাসের কারণ হয়। এটি আপনার সন্তানকে হাঁপানিতে (অ্যাস্থমা)ভোগাতে পারে। ঠান্ডার সময় হাঁপানি (অ্যাস্থমা)যুক্ত বাচ্চাদের ক্ষেত্রে আরও খারাপ হতে পারে।
  • একটি অচিকিৎসিত সাধারণ ঠান্ডা সাইনাসাইটিস নামে আরেকটি অবস্থার দিকে পরিচালিত করতে পারে।
  • অন্যান্য জটিলতাগুলিতে রয়েছে নিউমোনিয়া, ব্রঙ্কিওলাইটিস, এবং ক্রুপ।

ঠান্ডার জন্য চিকিৎসা

সাধারণ ঠান্ডায় খুব গুরুতর চিকিৎসার প্রয়োজন হয় না। আপনি উপসর্গ এবং দুর্দশার উপশম করে আরাম দিতে কিছু সহজ জিনিস করতে পারেন। যদি ঠান্ডা গুরুতর হয়ে যায় এবং এক সপ্তাহ পরও দূর না হয়, তবে এটি গুরুতর কিছু না হওয়া নিশ্চিত করার জন্য আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

  • আপনার শিশু যাতে অনেক বিশ্রাম পায় তা নিশ্চিত করুন।
  • চেষ্টা করুন এবং আপনার শিশুকে কিছু অতিরিক্তবার বুকের দুধ খাওয়ান। যদি আপনার শিশু সূত্র দুধ বা কঠিন খাবার খায়, তবে নিশ্চিত করুন যে সে প্রচুর জল পান করে। আপনি আপনার শিশুকে ভিটামিন সি-যুক্ত ফল বা ফলের রসগুলি সরবরাহ করতে পারেন।
  • আপনার শিশু ৩ মাস বা তার বেশি বয়সের হলে, আপনি আপনার শিশুর জ্বরের জন্য প্যারাসিটামল দিতে পারেন। কিন্তু এটি করার আগে আপনি আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা নিশ্চিত করুন। নিজে নিজে পছন্দ করা ওষুধ কখনই দেবেন না। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ঠান্ডার জন্য কোন ওষুধ দয়া করে দেবেন না।
  • সংকোচনের ক্ষেত্রে, তার মাথার নীচে দুটি নরম তোয়ালে রেখে আপনার শিশুর মাথা উঁচু করুন। বালিশ ব্যবহার এড়ানো উচিত কারণ এতে শিশুর দম বন্ধ হতে পারে।
  • প্রবাহিত শ্লেষ্মা অপসারণ করতে আপনার শিশুর নাক মুছে দিন। কোন ত্বকের জ্বালা এড়ানোর জন্য নাকের চারপাশে ত্বক আদ্র করতে একটি হালকা পেট্রোলিয়াম জেলি ব্যবহার করুন।
  • আপনার বাচ্চার যদি তার বন্ধ নাকের কারণে খাওয়া কঠিন হয়, তাহলে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন এবং নাকের ব্লক পরিষ্কার করার জন্য আপনার ডাক্তারকে লবণাক্ত নাসাল ড্রপ নির্ধারণের জন্য অনুরোধ করুন।

  • যে কোন বাহ্যিক পণ্য যা আপনি ব্যবহার করেন তা ঘরোয়া প্রতিকার নয়, তা নিশ্চিত করুন। যেমন- ভেপো-রাব, শুধুমাত্র একজন ডাক্তারের সুপারিশের পরে প্রয়োগ করা হয়।

যদি আপনার শিশুর সাধারণ ঠান্ডায় কোনো অন্যান্য লক্ষণ ছাড়া একটি বন্ধ নাক থাকে, তবে তার নাকেত ছিদ্র পরীক্ষা করে দেখুন যে কোন বাইরের জিনিস তাতে আছে কিনা।

শিশুর ঠান্ডার জন্য ঘরোয়া প্রতিকার

ঘরোয়া প্রতিকার কিছু ক্ষেত্রে জাদুর মত কাজ অরে শিশুকে ও প্রাপ্তবয়স্কদের আরাম দেয় এবং পাশাপাশি একটি কাশি ও ঠান্ডার উপশম করে। এখানে তাদের কিছু দেওয়া হল যা আপনার ছোট্টটিকে সাহায্য করতে পারে।

  • অতিরিক্ত তরল

আপনার বাচ্চা যদি সদ্যজাত হয় তবে নিশ্চিত করুন যে আপনি তাকে অতিরিক্তবার বুকের দুধ পান করার জন্য উৎসাহিত করেন এবং আপনার শিশু ৬ মাসের বেশি বয়সের হলে তাকে ভিটামিন সি, বাড়ির তৈরি রস এবং প্রচুর পরিমাণে জল দিয়ে সমৃদ্ধ করুন। সূত্র দুধ খায় মন শিশুদের জন্য, তাদের একটি পৃথক ফিডিং বোতলে জল দিন। এটি আপনার শিশুকে হাইড্রেটেড রাখতে সাহায্য করবে।

  • সালাইন স্প্রে করুন এবং শ্লেষ্মা শুষে বের করুন

আপনার বাচ্চার মাথার পিছন দিকে হেলান এবং শ্লেষ্মা নরম করার জন্য প্রতিটি নাক্র ছিদ্রে লবণাক্ত জলের দুই ফোটা দিন। এই অবস্থানে আপনার শিশুর মাথা প্রায় ২০ সেকেন্ড ধরে রাখুন। তারপর, সিরিঞ্জের বাল্বটি পিষে বা স্কুইজ করে নিন, একটি নাকের ছিদ্রের ভিতরে বাল্ব সিরিঞ্জের রাবারের টিপটি ঢোকান, এক আঙুল দিয়ে নাকের অন্য ছিদ্রটি বন্ধ করুন, শ্লেষ্মা এবং লবণাক্ত জল সংগ্রহ করতে বাল্বটি আস্তে আস্তে ছেড়ে দিন, তারপর আস্তে আস্তে সিরিঞ্জটি সরিয়ে দিন। শ্লেষ্মা চিপে বের করে সিরিঞ্জ পরিষ্কার করুন এবং নাকের অন্য ছিদ্রে একই জিনিস পুনরাবৃত্তি করুন।

  • হিউমিডিফায়ার ব্যবহার করুন

বাড়ির ভিতরে বায়ুকে আদ্র রাখুন। আপনার শিশুর ঘরে একটি হিউমিডিফায়ার ব্যবহার করুন। শুকনো জলবায়ু শিশুদের ঠান্ডা এবং কাশিকে আরও খারাপ করতে পারে।

  • বিশ্রাম নিতে উৎসাহিত করুন

আপনার শিশুকে যতটা সম্ভব ঘুমাতে এবং বিশ্রাম নিতে দিন। ঘুমানো না হলে, নিশ্চিত করুন যে আপনার বাচ্চাটি কিছুটা শান্ত ক্রিয়াকলাপে জড়িত থাকে। আপনার ছোট্টটিকে উত্তেজিত হতে দেবেন না। আপনার বাচ্চা যদি একটু বড় হয় তবে তার কাছে গল্প পড়ুন বা তার প্রিয় ভিডিওটি চালান। যত বেশি আপনার শিশুর বিশ্রাম নেবে, মনে রাখবেন, তত দ্রুত সে নিরাময় করবে।

  • সতর্কতার চিহ্নগুলির জন্য লক্ষ্য রাখুন

সতর্কতার লক্ষণের জন্য নজর রাখুন। যদি ঘরোয়া প্রতিকার আপনার বাচ্চার অবস্থা উন্নত করতে সাহায্য না করে তবে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন এবং তার পরামর্শ নিন। আপনার শিশু অত্যন্ত অস্বস্তিকর থাকলে, খাবার খাওয়ার সময় কান্নাকাটি করলে, ক্রন্দনরত অবস্থায় তার কান স্পর্শ করা, অথবা চোখে চুলকানি থাকলে আপনার শিশুর ঠান্ডার থেকে বড় কিছু হতে পারে।

  • শিশুকে কাশির মাধ্যমে শ্লেষ্মা বের করতে সাহায্য করুন

আপনার শিশুর গলা থেকে শ্লেষ্মা বের করা খুব কঠিন। ঘরের হিউমিডিফায়ার, নাকের ছিদ্রে লবণাক্ত ড্রপ এবং ডাক্তারের নির্দেশিত ভেপোরাইজারের সাথে বুকে একটি মৃদু ঘর্ষণ বুকের ভিতরের শ্লেষ্মাকে নরম করে তুলতে সাহায্য করতে পারে, যা আপনার বাচ্চা উগড়ে বের করে দিতে পারে। যদি প্রয়োজন হয়, আপনার ডাক্তার নেবুলিসাসনের সুপারিশ করতে পারেন।

ঠান্ডায় অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা হ্রাস করার টিপস

বাড়িতে এবং বাইরের মৌলিক স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে আপনি আপনার শিশুকে ঠান্ডায় আক্রান্ত হওয়ার সময়কে কমিয়ে আনতে সহায়তা করতে পারেন। এখানে কয়েকটি প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা রয়েছে যা আপনার ঠান্ডায় অসুস্থতার সম্ভাবনাকে কমিয়ে আনবে।

  • বাচ্চাকে নেওয়ার আগে পরিবার, বন্ধু ও বাইরের সকল সদস্য তাদের হাত ধুয়ে নেয় তা নিশ্চিত করুন।
  • শিশুর পোশাক পরিবর্তন এবং শিশুকে পরিষ্কার করার আগে সর্বদা আপনার হাত ধুয়ে নিন এবং স্যানিটিজার ব্যবহার করুন।
  • যত তাড়াতাড়ি সম্ভব অসুস্থ এবং সংক্রামিত মানুষ থেকে আপনার শিশুকে দূরে রাখুন। ঠান্ডা একটি সংক্রামক রোগ, অতএব, একজন সংক্রামিত ব্যক্তি আপনার সন্তানকে যেন স্পর্শ না করে, এতে আপনার সন্তানের কাছে ভাইরাস হস্তান্তর করতে পারে।
  • এছাড়াও, আপনার শিশুকে ধূমপানে উন্মুক্ত না করা হয় তা নিশ্চিত করুন। এটি আপনার ছোট্টটির শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা করতে পারে।
  • আপনার বাচ্চা যদি কঠিন খাবার খায় তবে আপনার বাচ্চাকে ভিটামিন সি-যুক্ত ফল বা ফলের রস দিয়ে প্রচুর পরিমাণে পুষ্ট করে দিন যাতে সে প্রচুর তরল পান করে।
  • যতবার পারবেম আপনি আপনার সন্তানকে বুকের দুধ খাওয়ান যাতে সে বুকের দুধের সব সুবিধা নিতে পারে।
  • শুষ্ক আবহাওয়ার অবস্থার সময় ঘরে থাকা বাতাসকে আদ্র রাখার জন্য একটি ঘরের হিউমিডিফায়ার ব্যবহার করুন।

কখন একজন ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে

৩ মাসের কম বয়সী শিশুদের জন্য, ঠান্ডা ও জ্বরের প্রথম সংকেতেই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। ৩ থেকে ৬ মাসের মধ্যে বাচ্চাদের জন্য, যদি জ্বর ১০১° F (৩৮° C) পর্যন্ত যায় তবে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। এবং ৬ মাসের উপরে বাচ্চাদের জন্য যদি আপনি জ্বরের ১০২ ডিগ্রি ফারেনহাইট (৩৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস)-এর উপরে গেলে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে। আপনার বাচ্চার বয়স নির্বিশেষে আপনাকে অবশ্যই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে যদি:

  • জ্বর ২ দিনের বেশী স্থায়ী হয়।
  • আপনি যদি দ্রুত শ্বাস নেওয়া, শ্বাসের সময় বাঁশির মতো শব্দ বা খাবি খেতে দেখেন।
  • কান্নাকাটি করার সময় আপনার বাচ্চা তার কান টানে বা চটকায় । যে বাচ্চারা খাওয়ার সময় কাঁদে বা অস্বাভাবিকভাবে তাৎক্ষণিক মনোযোগ প্রয়োজন হয়।
  • ছলছলে বা লাল চোখ, যার অর্থ হতে পারে যে আপনার শিশু পিঙ্কআই-তে ভুগছে।
  • চরম অস্বস্তি বা ঘুম বা খাওয়ার অভ্যাসের পরিবর্তন।
  • ঠান্ডার জন্য ব্যবহৃত প্রতিকার কাজ করতে ব্যর্থ হলে।
  • ঠান্ডার লক্ষণগুলি ঠান্ডা ভালো হওয়ার পরও ৫ থেকে ৭ দিন পর্যন্ত থাকলে বা আরও খারাপ হলে।

শিশুকে ওভার-দ্য কাউন্টার (ওটিসি) কাশি ও ঠান্ডার ওষুধ দেওয়া কি নিরাপদ?

ওটিসি ৬ মাসের নীচের শিশুদের জন্য কঠোরভাবে ‘না’। আসলে, এটি দেখা গেছে যে ওটিসি শিশুদের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। ঠান্ডা এবং কাশির ওষুধগুলি আপনার বাচ্চাকে ঠান্ডা লাগা থেকে ঠেকাতে পারে না বা ঠান্ডা লেগে থাকার সময়কেও কমাতে পারে না। এটি শুধুমাত্র আপনার শিশুকে কিছু অস্থায়ী আরাম দিতে পারে। তাই অবশ্যই ঝুঁকি নেওয়ার কোন মূল্য নেই।

সব বয়সের শিশুদের মধ্যে একটি সাধারণ সমস্যা, ঠান্ডা শিশুদের পক্ষে সামান্য কঠিন, কারণ তারা সাহায্য ছাড়া শ্লেষ্মা নির্গমন করতে অক্ষম। তাদের নিরীক্ষণ করা এবং প্রতিকারের জন্য ডাক্তারের কাছে কখন পৌঁছাতে হবে তা জানা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।