শিশু যাতে সারারাত ঘুমায় সে জন্য কী করতে হবে

How to Make Baby Sleep At Night

শিশুদের একটি ঘুমের প্যাটার্ন থাকে যা প্রায়ই রাতে অদ্ভুত সময়ে তাদের জাগিয়ে তোলে। আপনি যদি একজন নতুন মা হন, তবে এই অস্থির ঘুমের প্যাটার্নের জন্য আপনার অনেক ঘুম কেড়ে নিতে পারে। আপনার শিশু কয়েক মাস বয়সী হলে, আপনি আপনার শিশুর ঘুমের একটি প্যাটার্ন দেখতে পাবেন এবং আপনি রাতে তাকে বেশি ঘুমাতে এবং নিজের ঘুম কম হওয়া থেকে নিজেকে রক্ষা করতে সক্ষম হবেন।

aniview

কেন আপনার নবজাতক শিশু রাতে ঘুমাচ্ছে না?

আপনার শিশুর রাতে না ঘুমানোর অনেক কারণ থাকতে পারে। রাতে বাচ্চার জেগে উঠার সাধারণ কারণগুলির মধ্যে কয়েকটি হল,

  • আপনার শিশুকে খাওয়ানো প্রয়োজন
  • আপনার শিশু কিছু অস্বস্তির মুখোমুখি হতে পারে এবং হয়তো আপনার শরীরের সান্নিধ্যের আরাম পেতে চায়
  • দাঁত বেরোনো থেকে অনেক ব্যথা হতে পারে এবং শিশুকে ঘুমাতে বাধা দিতে পারে

বাচ্চাদের কি সারারাত ধরে না ঘুমানো স্বাভাবিক?

একটি শিশুর প্রতিদিন 16 ঘণ্টার জন্য ঘুম হবে, এবং এই ঘুমের বেশিরভাগই ভাঙা এবং অসংগঠিত হবে। যেহেতু আপনার বাচ্চা দিনে তার ঘুমের উল্লেখযোগ্য অংশ পাবে, তাই তার রাত্রির ঘুমের প্যাটার্নটি অনিশ্চিত হতে পারে। অতএব, রাতের মধ্যে কম ঘুমানো বাচ্চার জন্য মোটামুটি সাধারণ। সাধারণত, বাচ্চাদের রাতে নিয়মিত খাওয়ানোর প্রয়োজন হয় কারণ তাদের পেট অনেকক্ষণ ধরে ভরা থাকে না, ফলে অনিয়মিত ঘুমের প্যাটার্ন দেখা যায়।

রাতে কি অনেকক্ষণ ধরে জেগে থাকে?

অনেক বাবা-মা জানতে চান যে কখন থেকে বাচ্চারা রাতভর ঘুমাতে শুরু করবে যাতে তারা একটু ঘুমাতে পারেন। বেশিরভাগ শিশুর চতুর্থ মাসের কাছাকাছি সময়ে ঘুমের প্যাটার্ন চিনতে পারা যায়। তবে, কিছু বাচ্চা ছয় সপ্তাহ বয়সেও রাতে ঘুমাতে শুরু করতে পারে। অনেকে রাতে দীর্ঘ ঘন্টার জন্য ঘুমাতে বেশি সময় নেয়, তবে আপনার শিশুর চার থেকে ছয় মাস বয়সের মধ্যে এটি করতে পারা উচিৎ।

গভীর ঘুমের জন্য কিছু কার্যকর পদ্ধতি

এখানে এমন কিছু পদ্ধতি রয়েছে যা আপনার বাচ্চাকে রাতভর ঘুমাতে সাহায্য করতে পারে।

1. ফার্বারাইজিং

চিলড্রেন হাসপাতালের পেডিয়াট্রিক স্লিপ ডিসঅর্ডার সেন্টারের ডিরেক্টর রিচার্ড ফার্বারের নাম অনুযায়ী ফার্বার পদ্ধতি হল একটি জনপ্রিয় পদ্ধতি। এই কৌশলটি শিশুকে নিজে নিজে ঘুমিয়ে পড়তে শেখায়।

  • এই পদ্ধতির পিছনে ধারণাটি হল, শিশুরা কিছু নির্দিষ্ট কর্মকাণ্ড বা ঘটনা ঘুমের সাথে সম্পর্কযুক্ত করে এবং রাতে জেগে ওঠার পর আবার ঘুমানোর জন্য একইরকম ঘটনা খোঁজে। যদি আপনার শিশু বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় ঘুমায় বা আপনার শিশুর প্রতিরাতে ঘুমানোর জন্য তাকে দোলা দিতে হয়, তবে আপনার সন্তান ঘুমানোর জন্য সেই একই জিনিসের অপেক্ষা করবে। এই পদ্ধতিটি আপনার শিশুকে ঘুমিয়ে পড়া শেখানোর জন্য একটি সহজ কৌশল ব্যবহার করে।
  • আপনার বাচ্চাকে তার দোলনার মধ্যে রাখুন এবং শুভরাত্রি বলার পরে ঘর ছেড়ে বেরিয়ে যান।
  • প্রায় পাঁচ মিনিটের জন্য অপেক্ষা করুন, এমনকি যদি আপনার শিশু কান্না শুরু করে তবুও।
  • পাঁচ মিনিট পরে ঘরে ঢুকুন এবং তাকে না উঠিয়েই আদর করুন এবং আবার ঘরের বাইরে চলে যান। যদি সে আবার কাঁদতে শুরু করে, 10 মিনিটের জন্য অপেক্ষা করুন এবং ভিতরে ঢুকুন ও তাকে শান্ত করুন।
  • আপনার শিশু নিজে না ঘুমানো পর্যন্ত এটি পুনরাবৃত্তি করুন।
  • সে রাতে জেগে উঠার সময় এটি প্রতিবার পুনরাবৃত্তি করতে পারেন। আপনি ঘরে ঢোকার আগেকার সময়ের ব্যবধান বৃদ্ধি করতেও পারেন।

সুবিধাগুলি

  • ধারাবাহিকভাবে অনুসরণ করা হলে, পদ্ধতিতে কাজ করার জন্য প্রায় তিন থেকে সাত দিন সময় লাগে এবং শিশুর উপর কোনও প্রতিকূল প্রভাব পড়বে না, এমনকি যদি সে প্রথম কয়েক দিন ঘুমানোর জন্য কাঁদে, তবুও।
  • যেহেতু শিশু ঘুমের সাথে দোলনাটিকে সম্পর্কযুক্ত করা শুরু করে, তাই তাকে দোলনায় রেখে দিলে সে ঘুমিয়ে পড়বে।
  • সে বুঝতে শুরু করবে যে কাঁদলে তার বাবা-মা তাকে তুলে নেয় না।

অসুবিধাগুলি

  • এটি একটি দুর্বল হৃদয়ের বাবা-মার জন্য নয়। দীর্ঘ সময়ের জন্য আপনার শিশুর কান্না শোনা যদি আপনার পক্ষে কঠিন হয়, তবে পদ্ধতিটির সাথে আপনার সমস্যা হতে পারে। যাইহোক, এই পদ্ধতিতে, আপনি নিয়মিত বিরতিতে শিশুটিকে সান্ত্বনা দেন এবং কেবল তাকে ঘুমানোর জন্য কাঁদতে ফেলে রাখেন না।
  • পিতামাতার তরফ থেকে সামঞ্জস্যের অভাব পদ্ধতিটিকে অকার্যকরী করবে।
  • কিছু শিশু পদ্ধতিটিতে সাড়া দেবে না। যদি আপনার শিশু দুই সপ্তাহের মধ্যে এটিতে সাড়া না দেয়, তবে আপনি অন্য পদ্ধতি সম্পর্কে আপনার শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করতে পারেন।

আপনার সন্তান একটু বড় হলে আপনাকে এটির পুনরাবৃত্তি করতে হতে পারে, কারণ না হলে আবার আগের অবস্থায় চলে যেতে পারে।

2. নির্দিষ্ট সময়ে জেগে ওঠা

এই পদ্ধতিটিতে আপনি যখন নির্ধারিত সময়ে তাকে জাগিয়ে তোলেন, তখন আপনার শিশুর ঘুমের অভ্যাসগুলি পরিবর্তিত হয়।

এক সপ্তাহের জন্য আপনার শিশুর ঘুমের প্যাটার্নটি লক্ষ্য করুন। আপনার বাচ্চা জেগে ওঠার সময়টি মনে রাখবেন।

তার স্বাভাবিক সময়ের প্রায় 15 মিনিট আগে তাকে জাগিয়ে তুলুন। সে যদি রাত 1টায় এবং ভোর 5টায় জেগে ওঠে, তাহলে তাকে রাত 12.45-এ ও বিকেল 4.45-এ জাগিয়ে তুলুন।

ধীরে ধীরে, সময়টি বাড়ান। তার ঘুমের সময়ে 15 মিনিট যোগ করুন এবং তাকে আবার রাত 1টায় এবং ভোর 5টায় জাগানো শুরু করুন। তারপর তাকে রাত 1.15 টায়, এবং ভোর 5.15টায় জাগান এবং আপনার বাচ্চা সারারাত ঘুমানো পর্যন্ত এটি চালিয়ে যান।

15 মিনিট যোগ করা এবং আপনার বাচ্চাকে জাগিয়ে তোলা আপনার বাচ্চাকে বেশী সময় ধরে ঘুমাতে সাহায্য করে এবং পাশাপাশি সে জেগে ওঠার জন্য আপনার অপেক্ষা করে।

সুবিধাগুলি

  • যে সব শিশুদের জাগার সময়গুলির পূর্বাভাস পাওয়া যায় তাদের জন্য এটি ফার্বারাইজিং-এর তুলনায় একটি শালীন পদ্ধতি।
  • এখানে কান্নাকাটি কম, এবং বাচ্চার ঘুমানোর প্যাটার্ন, ও জেগে সময়ের উপর পিতামাতার নিয়ন্ত্রণ থাকে ।

অসুবিধাগুলি

  • বাচ্চাদের জাগিয়ে তোলার জন্য পিতামাতার দ্বিধা। বেশিরভাগ বাবা-মা শান্তভাবে ঘুমাতে থাকা বাচ্চাকে জাগিয়ে তুলতে মন থেকে সায় পান না।
  • কিছু ঘুম বিশেষজ্ঞ আছেন যারা এই পদ্ধতির বিরুদ্ধে কারণ এটিকে অকার্যকর মনে করেন। যুক্তি হল যে একটি শিশুর জাগার সময়সূচী বৈচিত্রময় হয় এবং কৌশলটিকে অদক্ষ প্রমাণ করতে পারে।
  • এই পদ্ধতিটির কাজ করার জন্য তিন থেকে চার সপ্তাহের বেশি সময় লাগে।

3. ঘুমের ছন্দ জোরদার করা

এই পদ্ধতিতে শিশুকে ঘুম পাড়ানোর জন্য শিশুর স্বাভাবিক ঘুমের প্যাটার্ন ব্যবহার করা হয়। মূল ব্যাপারটি হল আপনার বাচ্চাকে অতিরিক্ত ক্লান্ত হতে না দেওয়া এবং যখন আপনি তাকে ঢুলতে দেখবেন তখন তাকে ঘুমাতে দেবেন। রাতে আপনার শিশুকে ঘুমাতে সাহায্য করার জন্য এই পদ্ধতিতে নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি রয়েছে।

আপনার বাচ্চার জেগে থাকার সময়কালটি ছোট রাখা। প্রায় চার মাস বয়সী বাচ্চাকে প্রতি এক বা দু ঘণ্টা অন্তর ঘুম পাড়াতে হবে। বড় শিশুদের দিনে দুই থেকে তিনবার ঘুমাতে দিতে পারেন। আপনি কোনও ঘুমের কৌশল ব্যবহার করতে পারেন তবে আপনার বাচ্চাকে গাড়িতে বা স্ট্রলারে ঘুমাতে দেবেন না।

নজর রাখুন এবং আপনার শিশু কখন ঘুমের লক্ষণ দেখাতে পারে তা অনুমান করুন।

এই পদ্ধতির সমর্থক মার্ক উইসব্লুথ বিশ্বাস করেন যে ঘুমন্ত শিশুকে কখনও জাগিয়ে তুলতে নেই। এমনকি যখন পাঁচ থেকে বারো মাস বয়সী বড় বাচ্চারা প্রতিদিন দুই বা তিন বার এক ঘণ্টা বা দুই ঘণ্টা করে ঘুমায়, তখনও এটি তাদের রাতের ঘুমকে প্রভাবিত করে না।

আপনার শিশুর রাতের ঘুমকে সহজ করার জন্য তার ঘুমাতে যাওয়ার সময়টি এগিয়ে আনা দরকার। ড. উইসব্লুথের মতে, যে শিশুরা দেরিতে ঘুমাতে যায়, তাদের রাতে ঘুমাতে এবং ছোট ঘুম নিতে অসুবিধা হয়। বাচ্চাদের সন্ধ্যা 6 টা থেকে রাত 8 টার মধ্যে তাদের সময়সূচীর মাধ্যমে ঘুমানোর প্রয়োজন।

সুবিধাগুলি

  • এটা রাতের ঘুমকে আরো ভালো করার জন্য আপনার শিশুর স্বাভাবিক ঘুম চক্রকে ব্যবহার করে।
  • ড. উইসব্লুথের যুক্তি অনুযায়ী, আপনাকে ফার্বারাইজিং শুরু করতে বা অন্যান্য পদ্ধতি চেষ্টা করতে হবে না এবং আপনার শিশুর কোনো ঘুমের সমস্যা হবে না।

অসুবিধাগুলি

  • শিশুকে বেশী ক্লান্ত হতে না দেওয়া সহজ ব্যাপার নয়।
  • যদিও শিশুটি কাঁদে না, এটি কাজ করার জন্য অনেক সময় নেয়। যদি আপনার বাচ্চা রাতে জেগে উঠতে শুরু করে, তবে প্রক্রিয়াটির প্রভাব খুব ধীর হবে।

4. পারিবারিক বিছানা

এটি একটি সমঝোতা ব্যবস্থা যা বেশিরভাগ দেশে খুবই সাধারণ। এছাড়াও সংযুক্তি পেরেন্টিং নামে পরিচিত, এই পদ্ধতিতে শিশু প্রতি রাতে পিতামাতার সঙ্গে ঘুমাতে পারবে।

সুবিধাগুলি

  • শিশু নিরাপদ বোধ করে।
  • সে জেগে উঠে বাবা-মাকে চারপাশে দেখে স্বস্তি বোধ করে এবং তখনি আবার ঘুমিয়ে পড়ে।
  • এটি বুকের দুধ খাওয়ানোর জন্য সুবিধাজনক হতে পারে কারণ মা সেখানেই বুকের দুধ খাওয়াতে পারেন।

অসুবিধাগুলি

  • সম্ভাবনা থাকে যে পিতামাতার মাঝে শুয়ে শিশুর দমবন্ধ লাগতে পারে বা উল্টে যেতে পারে।
  • বিছানা যথেষ্ট প্রশস্ত হতে হবে যাতে সবাই আরামের সাথে এঁটে যেতে পারে এবং নরম বালিশ, গদি, কমফর্টার ইত্যাদি থাকতে হবে।
  • কোনো ওষুধ বা অ্যালকোহল যা আপনার তন্দ্রা সৃষ্টি করতে পারে, সেগুলি কোনও দুর্ঘটনা এড়ানোর জন্য না খাওয়া উচিত।
  • আপনার সন্তানের বয়স বাড়লে তাকে একা ঘুমিয়ে পড়তে শেখাতে হবে, এবং তারপরে আপনাকে একটি ভিন্ন কৌশল ব্যবহার করতে হবে।

আপনার শিশুর রাতে ঘুমানোর জন্য 10 টি কৌশল

আপনার সন্তান রাতে ভালো ঘুমালে তার পাশাপাশি আপনারও রাতে ভাল-বিশ্রাম হয়। রাতে দীর্ঘ সময় ধরে আপনার শিশুকে ঘুমাতে সাহায্য করার জন্য এখানে কিছু কৌশল দেওয়া হল।

1. একটি রুটিন প্রতিষ্ঠা করুন

আপনার শিশুকে প্রতিটি দিন একই সময়ে ঘুম পাড়ান, সে তখন যা-ই করুক না কেন। একটি ঘুমের প্যাটার্ন ঠিক করুন। সেটি ধরে রাখুন; এটি তাকে ধীরে ধীরে রুটিনে অভ্যস্ত হতে সাহায্য করবে।

2. আপনার শিশুকে সক্রিয় এবং ব্যস্ত রাখুন

শারীরিক ও মানসিকভাবে চ্যালেঞ্জিং কার্যক্রমগুলিতে আপনার শিশুকে জড়ালে, বিশেষ করে সন্ধ্যায়, তার ঘুমের সময়টিকে রাতের দিকে সরিয়ে নেওয়া যেতে পারে।

3. একই ঘুমের স্থান

আপনার বাচ্চার শোবার ঘর বা দোলনাটিকে ঘুমের সাথে যুক্ত করুন তাকে প্রতিদিন একই স্থানে ঘুম পাড়িয়ে। কোনো বিক্ষেপকারী বা খেলনা সরিয়ে রাখুন এবং আলো ও শব্দ প্রতিদিন একইরকম রাখুন।

4. মাঝ রাতে আপনার বাচ্চাকে কোলে তুলবেন না

যদি আপনার বাচ্চা রাতের মাঝখানে জেগে ওঠে, তাকে কোলে তুলবেন না বা তার সাথে খেলবেন না; বরং আস্তে আস্তে তার পিঠে চাপড় দিয়ে সান্ত্বনা দিয়ে আবার ঘুম পাড়ান।

5. শোওয়ার সময়ের ঠিক তার সাথে তার প্রিয় ক্রিয়াকলাপ উপভোগ করুন

ঘুমের আগে প্রতিদিন তার প্রিয় গান বাজানো, মালিশ করা ইত্যাদি করলে, তাকে শান্ত করতে সাহায্য করে এবং তাকে আরও ভাল ঘুমাতে সাহায্য করে।

ঘুমের আগে শেষ খাবার পেট ভর্তি করে করা উচিত

বেশির ভাগ শিশু রাতে খাবার জন্য জেগে উঠতে থাকে। ঘুমের আগে আপনার বাচ্চার পেট ভরে খাবার খাওয়া নিশ্চিত করতে পারলে, সে রাতে খাবার জন্য জেগে উঠবে না।

7. শোওয়ার আগে স্নান

ঘুমের আগে উষ্ণ স্নান আপনার শিশুকে শিথিল করতে এবং তাকে ঘুম পাড়াতে পারে। বাথরুমে কোন খেলনা রাখবেন না যাতে যে কোনো বিক্ষেপ এড়ানো যায়। তাকে স্নানের পর অবিলম্বে ঘুম পাড়ান যাতে সে ঘুমের সঙ্গে স্নানকে যুক্ত করতে শুরু করে।

8. সমস্ত বিক্ষেপ দূর করুন

শিশুর বিভ্রান্তি এড়ানোর জন্য পরিবারের প্রত্যেককে সে দিনের মতো সব কাজ বন্ধ করতে হবে। শিশুটির একটি রুটিন বিকাশ না হওয়া পর্যন্ত কয়েক সপ্তাহের জন্য এটি করা যেতে পারে।

9. সান্ত্বনা দেওয়াতে মনোযোগ দিন

আরামদায়ক ঘুমের কাপড় এবং বিছানা আপনার শিশুর জন্য অপরিহার্য। এই জামাকাপড়ের মধ্যে শিশুর খুব গরম বা খুব ঠান্ডা লাগছে না তা নিশ্চিত করুন। সুতীর কাপড় ব্যবহার করুন এবং ঘুমের সময়ের জন্য আলাদা সেট রাখুন।

10. ঘুমের খেলনা

একটি নরম, ছোট ঘুমের খেলনা যা সে ঘুমের সময়ের সাথে যুক্ত হতে পারে, তাকে শান্ত থাকতে এবং নিরাপদ বোধ করতে সহায়তা করবে।

আপনার শিশুর রাতে জেগে থাকা আপনার রুটিনকে বাধা না দিলে, আপনি আপনার সন্তানকে দীর্ঘ সময়ের জন্য ঘুমিয়ে পড়ায় অভ্যস্ত হতে কিছুটা সময় দিতে পারেন। তবে, আপনি যদি আপনার ঘুম কম হওয়াকে পরিপূরণ জন্য অতিরিক্ত কিছু সময় ঘুমাতে চান, তবে আপনি আপনার শিশুকে গভীরভাবে ঘুমাতে সাহায্য করার জন্য এই পদ্ধতিগুলি চেষ্টা করতে পারেন।