সি-সেকশন প্রসবের পরে ডায়েট – খাওয়ার এবং এড়ানোর খাবারগুলি

সি-সেকশন প্রসবের পরে ডায়েট - খাওয়ার এবং এড়ানোর খাবারগুলি

জটিলতা বা অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতির ফলে প্রচুর সি-সেকশন বা সিজারিয়ান প্রসব ঘটে। সি-সেকশন দ্বারা প্রসবের প্রক্রিয়া কঠিন এবং বেদনাদায়ক হতে পারে, কারণ এটি মাকে মানসিক এবং শারীরিক উভয়ভাবে ক্লান্ত করতে পারে। অস্ত্রোপচার থেকে আরোগ্য লাভ করার জন্য, মায়ের পর্যাপ্ত বিশ্রাম এবং একটি নিয়ন্ত্রিত ডায়েটের প্রয়োজন হবে। সি সেকশনের প্রথম কয়েক সপ্তাহের মধ্যে মাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণ করা দরকার এবং প্রসবের স্ট্রেস থেকে মানসিক ও শারীরিকভাবে আরোগ্য হতে তাকে সহায়তা করা উচিত।

aniview

প্রসবের পরে পুষ্টি কেন গুরুত্বপূর্ণ?

প্রসবের পরে মায়ের ডায়েট খুব গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে, এটি কেবল তার দ্রুত আরোগ্যে সহায়তা করে তা-ই নয়, নবজাতক শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ানোতে হবে সেই কারণেও গুরুত্বপূর্ণ। প্রথম কয়েক মাসের মধ্যে মায়ের দুধই শিশুর পুষ্টির একমাত্র উৎস, তাই এটি নিশ্চিত করা গুরুত্বপূর্ণ যে মা স্বাস্থ্যকর ডায়েট পান। পর্যাপ্ত বিশ্রামের সাথে ভাল পুষ্টি তলপেটের প্রাচীর এবং জরায়ুর নিরাময়ের গতি বাড়িয়ে তুলবে যা সি-সেকশনের সময় কাটা ছেঁড়া হয়। সঠিক পুষ্টি গর্ভাবস্থায় বৃদ্ধি পাওয়া ওজনও হ্রাস করতে মাকে সহায়তা করবে।

সিজারিয়ান সেকশনের পর থেকেই যে ডায়েট অনুসরণ করতে হবে

বাচ্চাকে ভাল পুষ্টি সরবরাহ করা ও মায়ের দেহের নিরাময়ে সহায়তা করার পাশাপাশি সঠিক হজম এবং অন্ত্রের সহজ গতি বজায় রাখার জন্যও একটি ভাল ডায়েট গুরুত্বপূর্ণ যাতে পেটের উপর চাপ না পড়ে। সিজারিয়ান প্রসবের পরপরই যে ডায়েটটি অনুসরণ করা উচিত তা প্রোটিন, খনিজ, ক্যালসিয়াম, ফাইবার এবং আয়রনের মতো গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টিতে সমৃদ্ধ হওয়া উচিত।

প্রসবের পরে নারীরা যে বড় সমস্যাগুলির মুখোমুখি হয় তার একটি হ’ল কোষ্ঠকাঠিন্য। এর কারণ অনেকগুলি যেমন: প্রসবপূর্বক পরিপূরকগুলিতে লোহার উচ্চ মাত্রা, অস্ত্রোপচারের সময় ব্যবহৃত ওষুধ, ডিহাইড্রেশন এবং প্রসবের পরে দুর্বল পেলভিক পেশী। তবে নতুন মায়েদের কোষ্ঠকাঠিন্যে আক্রান্ত হওয়ার আরেকটি কারণ মনস্তাত্ত্বিক – তাদের সেলাইগুলি প্রভাবিত হতে পারে বা তারা আঘাত পেতে পারে এই ভয় থাকে।

প্রসবের পরের শারীরবৃত্তীয় পরিবর্তনগুলির কারণে কোষ্ঠকাঠিন্য হচ্ছে না তা নিশ্চিত করার জন্য, আপনি যা করতে পারেন তা এখানে দেওয়া হল –

১. গরম তরল পান করুন

২. ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার খান (বিস্তারিতভাবে নীচে ব্যাখ্যা করা হয়েছে)

৩. ক্যাফিন এড়িয়ে চলুন

সি-সেকশনের পরে সেরা ডায়েট

সিজারিয়ান প্রসবের পরে কী খাওয়া উচিত সেগুলি নিয়ে ডায়েট পরিকল্পনা বানান এবং কী কী এড়াতে হবে তা সাবধানতার সাথে পরিকল্পনা করতে হবে। ডায়েট এমন খাবারের মিশ্রণ হওয়া উচিত যা মাকে পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহ করবে। দ্রুত আরোগ্যের জন্য নিচে তালিকাভুক্ত আইটেমগুলি সি-সেকশনের পরে মায়ের ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত :

১. প্রোটিন, খনিজ এবং ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার

প্রোটিন নতুন টিস্যু কোষগুলির বিকাশে সহায়তা করে যা নিরাময় প্রক্রিয়াটিকে ত্বরান্বিত করে। প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবারগুলি টিস্যু মেরামত করতে সহায়তা করে এবং সার্জারির পর পেশী শক্তি বজায় রাখে। অন্যদিকে, ক্যালসিয়াম হাড় ও দাঁতকে শক্তিশালী করে, পেশীগুলি শিথিল করে, রক্ত জমাট বাঁধতে সহায়তা করে এবং অস্টিওপোরোসিস প্রতিরোধ করে। বুকের দুধ খাওয়ানোর সময়, 250 থেকে 350 মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম নবজাতকের শিশুর কাছে স্থানান্তরিত হয়।

  • কম ফ্যাটযুক্ত দুগ্ধজাত পণ্য যেমন স্কিমড মিল্ক, কম ফ্যাটযুক্ত দই, পনির, শুটি এবং শুকনো কড়াইশুঁটি প্রোটিন ও ভিটামিনগুলির দুর্দান্ত আধার।
  • ডালে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে।
  • তিলের বীজে প্রচুর পরিমাণে আয়রন, তামা, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস এবং ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে।

২. গোটা শস্য জাতীয় খাদ্য

গোটা শস্য জাতীয় খাবার যেমন পাস্তা, ব্রাউন ব্রেড ও ব্রাউন রাইস আপনার ডায়েটের একটি অংশ হওয়া উচিত কারণ এগুলি শর্করা সমৃদ্ধ যা শক্তির মাত্রা এবং বুকের দুধের উৎপাদন বজায় রাখতে সহায়তা করে। সমৃদ্ধ গোটা শস্য জাতীয় পণ্যগুলিতে আয়রন, ফাইবার এবং ফোলিক অ্যাসিড রয়েছে যা শিশুর বিকাশের প্রাথমিক পর্যায়ে প্রয়োজনীয়। নিদ্রাহীন রাত এবং রাতে জ্বালা অনুভব করা মায়েদের দিনটি গোটা শস্যের সিরিয়ালের প্রাতঃরাশ দিয়ে শুরু করা উচিত।

৩. ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবার

ভিটামিনগুলি অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে সমৃদ্ধ এবং টিস্যু মেরামতে সহায়তা করে। ভিটামিন শরীরে কোলাজেন তৈরিতে সহায়তা করে যা ক্ষতিগ্রস্ত টিস্যুকে নতুন করে বানায়, লিগামেন্ট এবং ত্বক তৈরিতে সহায়তা করে।

  • ব্রকলি, পালংশাক ও মেথি পাতার মতো সবজি ভিটামিন এ এবং সি, ডায়েটারি ক্যালসিয়াম এবং আয়রনের ভাল উৎস।
  • কমলালেবু, পেঁপে, তরমুজ, স্ট্রবেরি, আঙ্গুর এবং মিষ্টি আলু জাতীয় ফল ও সবজি ভিটামিন সি সমৃদ্ধ, যা সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা জোরদার করতে সহায়তা করে।

৪. ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার

কোষ্ঠকাঠিন্য ক্ষত ও কাটাস্থানগুলিতে চাপ দিয়ে নিরাময় প্রক্রিয়া বিলম্বিত করতে পারে, এবং ফাইবার হল সেই প্রয়োজনীয় পুষ্টি যা ঝামেলা মুক্ত অন্ত্রের গতি নিশ্চিত করে কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ করে।

  • কাঁচা ফল এবং শাকসবজি ডায়েটে রাফেজ যুক্ত করে কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি দেয়।
  • ওটস ও রাগিতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে এবং এটি শর্করা, ক্যালসিয়াম, প্রোটিন এবং আয়রনেরও সমৃদ্ধ উৎস।
  • মসুর ডাল, সবুজ কলাই ও অন্যান্য ডালও তাদের প্রোটিন এবং ফাইবার উপাদানের জন্য ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

৫. সহজে-হজমযোগ্য খাবারগুলি

জন্ম দেওয়ার পরে শরীরে গ্যাস জমে থাকে। নতুন মায়েদের উচিত গ্যাস এবং কোষ্ঠকাঠিন্য ঘটানো খাবারগুলি না খাওয়ার বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন করা। সি-সেকশনের পরের সময়কালে, আপনার জাঙ্ক ফুড ও কার্বনেটেড পানীয় গ্রহণ না করা উচিত এবং খাদ্য উপাদান যেমন স্যুপ, কটেজ পনির, ঝোল, দই এবং অন্যান্য এমন আইটেমগুলি খাওয়া উচিত যা শরীর সহজেই হজম করে।

৬. আয়রন সমৃদ্ধ খাবার

আয়রন দেহে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বজায় রাখে এবং প্রসবের প্রক্রিয়া চলাকালীন হারিয়ে যাওয়া রক্ত ফিরে পেতে সহায়তা করে। আয়রন ইমিউনো সিস্টেমের কাজকর্মেও সহায়তা করে। ডিমের কুসুম, লাল মাংস, ঝিনুক, গরুর লিভার এবং শুকনো ফল জাতীয় খাবারগুলি আয়রনের সমৃদ্ধ উৎস। 19 বছরের বেশি বয়সীদের মহিলাদের জন্য লোহা গ্রহণের প্রস্তাবিত পরিমাণটি হল প্রতিদিন 9 মিলিগ্রাম। অতিরিক্ত লোহা গ্রহণের ফলে কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে এবং এড়ানো উচিত।

৭. পানীয়

প্রচুর পরিমাণে তরল পান করা ডিহাইড্রেশন এবং কোষ্ঠকাঠিন্যকে দূরে রাখতে সহায়তা করে। ভাল পরিমাণে তরল পান করলে শল্য চিকিৎসার পরে আরোগ্যে এবং অন্ত্রের গতি মসৃণ করতে সহায়তা করে। নারকেলের জল, স্বল্প ফ্যাটযুক্ত দুধ, সাইট্রাস নয় এমন রস, ভেষজ চা, বাটার মিল্ক এবং স্যুপের মতো তরলগুলি প্রয়োজনীয় পুষ্টির ভাল উৎস। আপনার প্রতিদিন 8 থেকে 10 গ্লাস জল খাওয়া উচিত।

ক্যালসিয়াম-ফর্টিফায়েড পানীয়, কম ফ্যাটযুক্ত দই এবং দুধের মতো তরলগুলি আপনার বুকের দুধের সরবরাহকে উন্নত করে, যা শিশুর প্রতিদিনের ডায়েটের একটি প্রয়োজনীয় উপাদান। কফি, চা ও অ্যানার্জি ড্রিঙ্কস জাতীয় ক্যাফিনেটযুক্ত পানীয়গুলি এড়ানো উচিত কারণ তারা মায়ের দুধে প্রবেশ করতে পারে এবং আপনার শিশুর ঘুমকে প্রভাবিত করতে পারে।

৮. দুগ্ধজাত পণ্য

দুগ্ধজাত পণ্য

কম ফ্যাটযুক্ত দুগ্ধজাত পণ্য যেমন স্কিমড মিল্ক, কম ফ্যাটযুক্ত দই ও পনির প্রোটিন, ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন বি ও ডি-এর একটি ভাল ডোজ সরবরাহ করে। বুকের দুধ খাওয়ানো মায়েদের জন্য এই খনিজগুলি প্রয়োজনীয়, এবং প্রতিদিন অন্তত 500 মিলি দুগ্ধজাত পণ্য তাঁদের গ্রহণ করা উচিত।

৯. শাক – সবজী ও ফল

যদিও সমস্ত ফল এবং শাকসব্জি নতুন মায়েদের পক্ষে উপকারী, তবু সবুজ সবজিগুলি বিশেষভাবে ভাল কারণ এগুলিতে ভিটামিন, আয়রন এবং ক্যালসিয়াম ভর্তি রয়েছে। শুঁটি, পালং শাক এবং ব্রকলি ছাড়াও খাবারের পরিকল্পনায় পদ্ম কাণ্ড এবং মেথি অন্তর্ভুক্ত করাও ভাল আইডিয়া। মাশরুম এবং গাজর নিরামিষাশীদের জন্য প্রোটিনের ভাল উৎস। বুকের দুধ খাওয়ানো মায়েরা ব্লুবেরির অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ সিট্রাস ফলগুলির পুষ্টি থেকে উপকার পেতে পারেন।

১০. অন্যান্য খাবার

উপরের তালিকাভুক্ত খাবারগুলি ছাড়াও, মশলা এবং ফোড়ন যা ভারতীয় রান্নার অবিচ্ছেদ্য অংশ, একজন নতুন মাকে তার সন্তানের জন্মের পর তৈরি হওয়া শারীরিক চাহিদা মোকাবেলায় সহায়তা করবে। জিরা, মেথি, হলুদ, আদা ও রসুন এবং জোয়ান বীজ (অজওয়াইন) এমন কিছু মশলা যা ওষধি বৈশিষ্ট্যযুক্ত। যদিও অজওয়াইনের মতো কিছু মশলা অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ফাঙ্গাল, তবে হলুদের মতো অন্য মশলাগুলি প্রদাহ হ্রাস করতে সহায়তা করে।

সিজারিয়ান প্রসবের পরে ভারতীয় খাবারগুলি – আরোগ্যের জন্য মশলা

সিজারিয়ান প্রসবের পরে ভারতীয় খাবারগুলি - আরোগ্যের জন্য মশলা

ভারতীয় খাবারগুলি প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, আয়রন ও ভিটামিনের মতো পুষ্টিতে সমৃদ্ধ এবং ভারতীয় খাবার সমন্বিত একটি ভাল ডায়েট পরিকল্পনা আরোগ্যের পথে থাকা মায়ের পুষ্টির প্রয়োজনীয়তা পূরণ করতে পারে। ভারতে সাধারণত ব্যবহৃত খাবারের উপাদানগুলি যেমন মেথি বীজ, মৌরিবীজ, জিরা বীজ, ঝিঙ্গে, পালংশাক, মসুর ডাল, ওট এবং দালিয়া মায়ের দুধের উৎপাদন বাড়াতে সহায়তা করে।

ভারতীয় মশলা, যখন মায়ের ডায়েটে যুক্ত হয়, তখন সি-সেকশন প্রসবের পরে দ্রুত আরোগ্যে সহায়তা করে।

  • হিং / অসফোয়েটিডা: গর্ভাবস্থার পরে ডায়েটে হিং যুক্ত করলে ভাল হজমে সহায়তা করে এবং গ্যাস / পেট ফাঁপা সমস্যাটি ঠিক করতে সহায়তা করে যা প্রতিটি মা-ই প্রসবের পরে মুখোমুখি হন।
  • জিরা: জিরা হজমে সহায়তা করে এবং দুধ উৎপাদনে সহায়তা করে।
  • অজওয়াইন / জোয়ান বীজ: অজওয়াইন সেবন হজমেও সহায়তা করে এবং পরিপাক তন্ত্রের উপকার করে। অজওয়াইন থেকে বেরোনো সুগন্ধযুক্ত তেল স্তনের দুধের মধ্যে নিঃসৃত হয় যা শিশুর অন্ত্রের গতি এবং হজম নিয়মিত করতে সহায়তা করে।

সিজারিয়ান প্রসবের পরে কোন খাবারগুলি এড়ানো উচিত?

সিজারিয়ান প্রসবের পরে কোন খাবারগুলি এড়ানো উচিত?

সি-সেকশনের পরে, আপনাকে বিশ্রামের পরামর্শ দেওয়া হওয়ায় আপনার স্বাভাবিক ক্রিয়াকলাপগুলি সীমাবদ্ধ হয়ে পড়ে। যেহেতু আপনি কোনও শারীরিক ক্রিয়াকলাপ বেশি করে করতে সক্ষম হবেন না, তাই আপনি যা খান তা নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি এবং তেমন কোনও খাবার গ্রহণ না করা উচিত যা হজম করতে দীর্ঘ সময় লাগবে ও ক্লান্তি বৃদ্ধি করবে। এছাড়াও, প্রসবের স্ট্রেস থেকে নিরাময় করতে, শরীরের পুষ্টিকর ও হালকা খাবারের প্রয়োজন হয় যা প্রয়োজনীয় খনিজগুলির পরিপূরক হয় এবং কোনও প্রতিকূল প্রভাব এড়াতে সহায়তা করে। প্রস্তাবিত খাবারের তালিকার মতোই এমন খাবার আইটেমের তালিকাও রয়েছে যা প্রসবের পরে এড়ানো উচিত।

  • মশলাদার খাবার এড়িয়ে চলুন কারণ এটি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে এবং শিশুও দুধে এগুলির স্বাদ পেতে পারে।
  • কার্বনেটেড পানীয় এবং সাইট্রাস রস খাওয়া উচিত নয় কারণ তারা গ্যাস তৈরি করতে পারে।
  • ক্যাফিনযুক্ত পানীয় যেমন কফি এবং চা খাওয়া খাওয়া সীমিত করা উচিত কারণ ক্যাফিন শিশুর বৃদ্ধিতে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।
  • অ্যালকোহল এড়ানো উচিত কারণ এটি মায়ের বুকের দুধ খাওয়ানোর ক্ষমতাকে কম করে দেয় এবং শিশুর বৃদ্ধি ও বিকাশকে ব্যাহত করে।
  • গ্যাস তৈরি করে এমন খাবার থেকে দূরে থাকুন। প্রসবের দিন থেকে কমপক্ষে 40 দিন অবধি অরহর ডাল, ছোলা, চাওয়ালি, রাজমা, চানা, বেসন, আচার, সবুজ কড়াইশুঁটি, শুকনো মটরের মতো খাবারগুলি এবং ফুলকপি, বাঁধাকপি, ঢেঁড়স, ব্রোকলি ও পেঁয়াজের মতো সবজিগুলি এড়ানো উচিত।
  • ঠান্ডা এবং রান্না না করা খাবার মেনু থেকে বাদ দেওয়া উচিত।
  • গাঁজানো, ভাজা এবং ফাস্ট ফুড পুরোপুরি এড়ানো উচিত।
  • সি-সেকশনের পরে প্রথম 3-4 দিন ঘি এবং চাল এড়িয়ে চলুন।

আপনার সিজারিয়ান প্রসব পরবর্তী ডায়েট থেকে সর্বোত্তম উপকারিতা পাওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ

আপনার খাবার থেকে সেরাটি গ্রহণের জন্য আপনার ডায়েটের বিষয়ে কয়েকটি বুনিয়াদি পরামর্শ মাথায় রাখতে হবে:

  • দিনের বেলা তিনটি ভারী আহার গ্রহণের পরিবর্তে, সারা দিন ধরে আহারগুলি ভাগ করে নিন এবং পাঁচ থেকে ছয়টি ছোট আহার গ্রহণের চেষ্টা করুন।
  • আহারগুলির মধ্যে দুই ঘন্টা ব্যবধান বজায় রাখুন। আপনি ক্ষুধা বোধ করলে, অন্তর্বর্তী সময়ে কিছু ফল বা বাদাম নাস্তা বা জলখাবার হিসাবে খান।
  • স্বাচ্ছন্দ্যযুক্তভাবে খাবার খান। খাবার গপ গপ করে গেলার পরিবর্তে খাবারটি গিলে ফেলার আগে সঠিকভাবে চিবানোর জন্য সময় নিন। এই সময়ে আপনার পরিবারের সদস্যদের আপনার শিশুর যত্ন নিতে বলুন যাতে আপনি শান্তিতে খাবার খেতে পারেন।
  • যখনই সম্ভব ঘুমান। পাশে একটি নবজাতক শিশু থাকলে ভাল ঘুম হওয়া কঠিন হতে পারে, তবে অল্প অল্প করে ঘুমিয়ে নিন কারণ ঘুম আপনার শরীরের মেরামত করতে এবং আরও দ্রুত ও ভালো নিরাময় করতে সহায়তা করবে।
  • ঘরে রান্না না করা খাবার এড়িয়ে চলুন। কেবলমাত্র ঘরে রান্না করা খাবার গ্রহণ করুন এবং আপনার খাবারে প্রচুর তাজা উপাদান অন্তর্ভুক্ত করুন।

সি-সেকশন প্রসবের পরের সময়টি কঠিন এবং চ্যালেঞ্জিং হতে পারে। আরোগ্যের গতি বাড়ানোর জন্য ডায়েটে নিয়ন্ত্রণ রাখা জরুরি। একটি ভাল, পুষ্টিকর ডায়েট আপনাকে অস্ত্রোপচার থেকে আরোগ্য করতে এবং আপনাকে এবং আপনার শিশুকে সুস্থ রাখতে সহায়তা করতে পারে।