৯ মাস বয়সী শিশুদের জন্য খাবারের ধারণা

৯ মাস বয়সী শিশুদের জন্য খাবারের ধারণা

হাজার হাজার বিকল্প, একাধিক কণ্ঠের পরামর্শ, বাবা-মা হিসাবে জীবন শুরুর প্রাথমিক পর্যায় খুব একটা সহজ হয় না । সারা রাত জেগে থাকা ও ডায়পার বদলানোর দায়িত্ব পালন করার সময়, আপনার সন্তানকে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ানো কঠিন হতে পারে ।

aniview

এখানে আপনাকে এবং আপনার শিশুকে সুখী ও সন্তুষ্ট রাখার জন্য বিভিন্ন ধারনা, টিপস এবং রেসিপি রয়েছে ।

এই পর্যায়ে একটি শিশুর কতটা খাবার খাওয়া উচিত?

খাবারের উপর অপ্রয়োজনীয় চাপ দেবেন না এবং এটিকে পুষ্টিকর ও সম্ভব হিসাবে প্রাকৃতিক রাখার কথা মনে রাখবেন

যদিও আপনি যা কিছু খান, সেগুলি আপনার শিশু খেতে সক্ষম নাও হতে পারে, তবে তাদের স্বাদকোরকগুলি নতুন খাবার এবং স্বাদের সাথে আনন্দিত হবে । বেশিরভাগ নতুন বাবা-মায়েরা তাদের সন্তানকে কী দিতে হবে এবং কতটা দিতে হবে তা জানা ভয়ঙ্কর এবং বিরক্তিকর হয়, তবে জেনে রাখুন, আপনি পরিচালন করতে পারেন, এমন কোন সুবর্ণ নিয়ম নেই । খাবারের উপর অপ্রয়োজনীয় চাপ দেবেন না এবং এটিকে পুষ্টিকর ও সম্ভব হিসাবে প্রাকৃতিক রাখার কথা মনে রাখবেন ।

এই বয়সের বাচ্চারা সাধারণত যে কোন জায়গায় একটি সম্পূর্ণ চামচের অর্ধেকটা খেতে পারে । যেহেতু আপনার সন্তানের জন্য অভিজ্ঞতাটি নতুন, তাই সে খাবারের উপর ঝাঁপিয়ে পড়বে, যদি স্বাদ তাদের পছন্দ না হয়, তবে তা মুখ থেকে ফেলে দেবে । মনে রাখবেন যে, শিশুর শিশুর পেট একটি ব্যক্তির মুষ্টি আকারের হয় এবং এটি পূর্ণ হতে বেশি কিছু লাগে না । যেহেতু তাদের স্বাদকোরকগুলি এখনও উন্নয়নশীল, তারা আপনার দেওয়া বিভিন্ন ধরণের খাবার পছন্দ করতে নাও পারে । তাদের মধ্যে কয়েকজন শাকসবজি পছন্দ করবে, কয়েকজন ফল পছন্দ করবে, এবং আবার কয়েকজন তাদের পছন্দমতো খাবার ও তাঁর গথন বা টেক্সচার নির্ধারণ করবে । এটি পিউরি বা চটকানো, এমনকি ছোট ছোট টুকরোও হতে পারে । আপনার সন্তানের পছন্দ বুঝতে এই পর্যায়ে পরীক্ষা এবং ত্রুটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ।

এটা ভুলে যাবেন না যে, আপনার শিশু ফর্মুলা বা বুকের দুধ থেকে পাওয়া যায়, এমন প্রয়োজনীয় সব পুষ্টিও দরকার । দুধের পাশাপাশি আপনার বাচ্চা প্রতিদিন তিনবার খাবার খেতে পারে, তা নিশ্চিত করুন ।

৯ মাস বয়সী শিশুদের জন্য সেরা খাবার

আপনার বাচ্চা দুঃসাহসিক হয়ে উঠবে অথবা নতুন খাবারের প্রবর্তনের সাথে খাবার খাওয়ার বিষয়ে খামখেয়ালীতে পরিণত হতে পারে, তাই নিশ্চিত হোন যে আপনি তাকে সেরা এবং সুস্বাদু খাবার খাওয়ান ।

আপনার ৯ মাস বয়সী ভারতীয় শিশুর জন্য আপনি যে খাবারগুলি শুরু করতে পারেন তা হল:

১) ফল

ব্লুবেরি, তরমুজ, ক্রানবেরি, খেজুর এবং ডুমুর, চেরি, লেবুজাতীয় ফলগুলি তাদের আকারের ১/৪ ভাগ টুকরো করে আপনার সন্তানকে দেওয়া যেতে পারে । সর্বদা নিশ্চিত করুন যে, এইগুলি রান্না করা হয় এবং আপনার শিশুর খাওয়ার আগে পিউরি করে বা চটকে নেওয়া হয় ।

২) সবজি

ব্রোকোলি, শতমূলী, আলু, বেগুন, ফুলকপি, আলুর ভর্তা, পেঁয়াজ, পার্সনিপ (গাজরজাতীয় সবজি), যা কিছু রান্না করা যায় এবং চটকে মসৃণ করা যায় ।

৩) মাংস ও ডিম

ভালোভাবে পরিষ্কার এবং রান্না করা ডিম, মুরগির মাংস এবং মাছ পরিবেশন করা উচিত । কোন কাঁচা বা তরল ডিম দেবেন না ।

৪) জল এবং ফলের রস

আপনার শিশুর পাচক প্রণালীটি এখনও অনেকটা জলের জন্য বিকশিত হচ্ছে । প্রক্রিয়াজাত রসের পরিবর্তে বাড়িতে তৈরি প্রাকৃতিক রস তৈরি (কোন চিনি ছাড়া) করার চেষ্টা করুন ।

৫) চীজ বা পনির এবং অন্যান্য দুগ্ধজাত পণ্য

ক্রিম, পনির বা চীজ, কুটির পনির বা চীজ, দই বা ইয়োগার্ট, ঘি, মাখন আপনার শিশুকে খুব অল্প পরিমাণে দেওয়া যেতে পারে ।

৬) সিরিয়াল

রান্না করা কুইনোয়া, মিলেট, গোটা গমের পাস্তা (নরম), চাল এবং ওটমিল আপনার বাচ্চার জন্য সুস্বাদু বিকল্প ।

৭) শস্য

টোস্ট, ছোট ছোট টুকরো চাপাটি বা ফ্ল্যাট ব্রেড, ক্র্যাকার ।

৮) বিভিন্ন ডাল বা কলাই

মুসুর, বীনস-এর মতো ডালের ভর্তা ও স্যুপ ।

৯) মশলা

আপনার ছোট্টটির স্বাদগ্রহণ ক্ষমতা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে, তার খাবার তৈরির সময় সামান্য হিং, লবঙ্গ, ধনে, সরষে, মৌরি, জায়ফল, কারি পাতা, দারুচিনি, এলাচ, তেজপাতা, হলুদ, রসুনের ব্যবহার করতেপারেন ।

৯ মাস বয়সী শিশুর খাবারের তালিকা/ পরিকল্পনা

গলায় খাবার আটকানো প্রতিরোধের জন্য আপনার শিশুর খাবার যেন নরম হয় তা নিশ্চিত করবেন । এখানে আপনি খাবারের সময় এবং স্ন্যাকের সময় আপনার সন্তানকে কী দিতে পারেন তার বিশদ সময়সূচী দেওয়া হল:

দিন ব্রেকফাস্ট* মধ্য সকালের স্ন্যাক* লাঞ্চ* সন্ধ্যার স্ন্যাক* ডিনার*
সোমবার সিদ্ধ ডোসা সবজির স্যুপ সাধারণ পোঙ্গাল আপেল ফিঙ্গার বাড়িতে তৈরি সিরিয়াল
মঙ্গলবার পায়েস (সুজি) সিদ্ধ ডিম গাজরের খিচুড়ি আঙুর সাধারণ খিচুড়ি
বুধবার নরম, ফুলকো ইডলি চটকানো ন্যাসপাতি রুটি বা লুচির ছোট ছোট টুকরো এবং পনির পেঁপে গম ও আমন্ডের পরিজ
বৃহস্পতিবার অটের প্যানকেক ব্রেডস্টিক ঘি ভাত চটকানো সবেদা রাগি পরিজ
শুক্রবার চালের সিরিয়াল কুমড়ো রাভা স্টিক স্বাদযুক্ত ভাত গাজর ফিঙ্গার ওট আপেল পরিজ
শনিবার গমের পায়েস দই বা ইয়োগার্ট সবজির খিচুড়ি ঠাণ্ডায় জমানো কলা মুরগির মাংসের স্যুপ
রবিবার চটকানো কলার প্যানকেক ব্লুবেরি/ চেরি টমেটো খিচুড়ি/ সবজি ভাত মিষ্টি আলুর ফিঙ্গার বাদামী চালের সিরিয়াল

*অল্প ছোট্ট করে অংশ দিতে শুরু করুন এবং তারপর আপনার শিশুর স্বাদ এবং ক্ষিদে অনুযায়ী পরিমাণ বাড়াতে পারেন । খাবার শেষ করতে আপনার বাচ্চাকে কখনো বাধ্য করবেন না ।

যে খাবার এড়িয়ে চলতে হবে

আপনার শিশুকে পরিষ্কার এবং তাজা খাবার পরিবেশন করা গুরুত্বপূর্ণ । সতর্কতা অবলম্বন করুন এবং আপনার বাচ্চার পছন্দ করা খাবারের টেক্সচারটি লক্ষ্য করুন, যাতে আপনি পরবর্তী খাবারে এটি আরও অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন । যদিও আপনার সন্তান এখন আনন্দের সাথে পারিবারিক খাবারে আপনার সাথে যোগ দিতে পারে, এখানে কিছু খাবার উল্লেখ করা আছে, যা সবসময় এড়িয়ে চলতে হবে ।

১) মধু

এতে ব্যাকটেরিয়া রয়েছে, যা আপনার সন্তানের গুরুতর অসুস্থতার কারণ হতে পারে, অন্ত্রের ক্ষতি করে এবং শিশুর খাবারের বিরক্তির নামে বিরল সিন্ড্রোমের দিকে পরিচালিত করে । এটি একটি শিশুর উদীয়মান দাঁতের ক্ষতি হতে পারে ।

২) কিছু প্রকার মাছ

হাঙ্গর, সোয়ার্ডফিশ বা মার্লিনে পারদের পরিমাণ অনেকটা রয়েছে, যা শিশুর স্নায়ুতন্ত্রকে প্রভাবিত করতে পারে । এছাড়াও, খাদ্য বিষক্রিয়া এড়াতে শেলফিশ এড়ানো উচিত ।

৩) গোটা বাদাম

গলায় আটকে যাওয়া এড়ানোর জন্য, শিশুর বয়স পাঁচ বছর না হওয়া পর্যন্ত আপনার সন্তানকে গোটা বাদাম খেতে দেবেন না ।

৪) চিনি

চিনিযুক্ত খাবার আপনার বাচ্চাদের বাড়ন্ত দাঁতের জন্য খারাপ । এর মধ্যে আইসক্রিম, বিস্কুট এবং মিষ্টি অন্তর্ভুক্ত ।

৫) লবন

আপনার শিশুর খাবারে লবণ যোগ করবেন না, কারণ তাদের কিডনি এই খাবারগুলি সামলে উঠতে পারে না, এবং নমিকেস, চিপস-এর মতো খাবার এড়িয়ে চলুন । বাচ্চাদের দিনে ১ গ্রামের থেকে কম পরিমাণে লবণ রাখতে হবে ।

৬) লেবু বা অ্যাসিডিক ফল

কিছু বাচ্চা সাইট্রিক বা লেবুজাতীয় ফলের কারণে অম্লতা ভোগ করতে পারে । যাইহোক, সামান্য একটু লেবু পিউরিতে মেশানোর অনুমতি রয়েছে ।

৭) চীনাবাদাম/ গাছবাদাম

এটি একটি সংবেদনশীল খাবার এবং আপনার শিশুর অ্যালার্জি প্রতিক্রিয়া হতে পারে । এটি সাধারণত ১ বছর বয়সের পর চালু করা হয় ।

৮) সম্পূর্ণ দুধ

এতে পেটের সমস্যা হতে পারে এবং এছাড়াও বুকের দুধের সঙ্গে কোন সম্পূরক ব্যবহার করা উচিত নয় । এটি লোহার শোষণকে বাধা দেয়, যা শিশুটির বৃদ্ধির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ।

আপনার শিশুকে কি ফিঙ্গার ফুড এবং স্ন্যাক দেওয়া যেতে পারে?

নয় মাস বয়সী বাচ্চারা সাধারণত ফিঙ্গার ফুড এবং স্ন্যাকের জন্য প্রস্তুত । তাদের এমন একটি দক্ষতা থাকে, যা আপনি ‘পিনসার গ্রাস্প’ করতে পারেন, যার সাহায্যে তারা তাদের বুড়ো আঙুল এবং তর্জনীর সঙ্গে ছোট বস্তুগুলি বাছাই করতে পারে । যদি আপনার বাচ্চা কোন সাহায্য ছাড়াই তার আঙুলের সাথে ছোট বস্তুগুলি বাছাই শুরু করে এবং খাবারের ছোট টুকরো চিবোতে করতে পারে, তবেই ৯ মাসের শিশুর জন্য এটি ফিঙ্গার ফুড পরিবেশন করার সময় ।

এগুলি গাজর, আপেল, ন্যাসপাতি, শশা, পনির হতে পারে, যেগুলি রান্না করা যায়, যা শিশুরা দাঁত দিয়ে ভালভাবে চিবোতে পারে । এগুলিকে সব ছোট ছোট আকারে বাচ্চার ধরতে এবং খেতে সুবিধা হওয়ার জন্য কাটুন । সতর্ক থাকুন এবং তাদের ফিঙ্গার ফুড দিয়ে একা আপনার সন্তানকে ছেড়ে দেবেন না ।

যদি আপনার বাচ্চা এখনো আঙুল দিয়ে কিছু তুলে না নেয়, ফিঙ্গার ফুড শুরু করার আগে, এক বা দুই মাসের জন্য অপেক্ষা করুন ।

আপনি আপনার ৯ মাসের বাচ্চার জন্য খাবারের সময়গুলির মধ্যে এক বা দুটি স্ন্যাক অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন । নিয়মিত বিরতিতে অল্প পরিমাণে খাবার দিন ভবিষ্যতে খাওয়ানোকে আরও সহজ করতে সাহায্য করতে পারে । নিশ্চিত করুন, এই খাবার যেন বুকের দুধ খাওয়ানোকে প্রভাবিত করে না ।

৯ মাসের শিশুর জন্য বাড়িতে তৈরি খাবারের রেসিপি

বাড়িতে আপনার শিশুকে আনন্দিত করার জন্য দ্রুত তৈরি করার মতো এখানে কয়েকটি রেসিপি রয়েছে ।

১) কুমড়ো ও টাইমের (একটি সুগন্ধি লতা বিশেষ) পিউরি

বিটা-ক্যারোটিন, পটাসিয়াম এবং লোহা দ্বারা পূর্ণ একটি সহজ রেসিপি ।

উপকরণ:

  • ১টি ছোট অরগানিক কুমড়ো
  • অর্ধেক চা-চামচ টাইম
  • ১-২ কাপ জল, সবজির স্টক অথবা বুকের দুধ

কীভাবে তৈরি করতে হবে:

কুমড়ো কেটে এবং খোসা ছাড়িয়ে নিন । সব বীজ বের করে দিন এবং তারপর একটি ব্লেন্ডার বা ফুড প্রসেসরের মধ্যে রাখুন । আপনি পছন্দসই সামঞ্জস্য না হওয়া পর্যন্ত জল বা সবজির স্টক যোগ করুন । টাইম যোগ শুরু করুন এবং আরো কিছুটা সময় মেশান ।

পিউরি তৈরি হয়ে গেলে, একটি কুকারে ১০-১৫ মিনিটের জন্য (১টি বা ২টি শিটি) রান্না করুন ।

২) কুইনোয়া এবং কলার ভর্তা

পুষ্টি সমৃদ্ধ এবং ঘন খাবার যা লাঞ্চ বা ডিনারের জন্য খুব ভালো হতে পারে ।

উপকরণ:

  • ১/২ কলা
  • এক চুটকি দারুচিনি
  • ৩ টেবিল চামচ রান্না করা কুইনোয়া
  • ১ টেবিল চামচ দই

কীভাবে তৈরি করবেন:

একটি বাটির মধ্যে কলা চটকে নিন । আলাদাভাবে ৩ টেবিল চামচ কুইনোয়াঅন্য একটি প্যানে তেল ছাড়া রান্না করুন (১০-১২ মিনিট) । কলার সাথে রান্না করা কুইনোয়া, দই যোগ করুন এবং উপাদানগুলিকে একসঙ্গে মেশান ।

স্বাদের জন্য আপনি এক চুটকি দারুচিনি দিয়ে পরিবেশন করতে পারেন ।

৩) সাধারণ সবজির খিচুড়ি

আপনার সন্তানের জন্য একটি ভারতীয় প্রধানতম রেসিপি, যখন আপনি প্রথমে চাল এবং সবজি খাওয়ানো শুরু করেন ।

উপকরণ:

  • ১/২ কাপ চাল
  • ১/২ কাপ মুগ ডাল (সবুজ)
  • ভালোভাবে ধোয়া এবং ছোট্ট টুকরো করে কাটা বিভিন্ন সবজির ১ কাপ (গাজর, মটরশুঁটি, আলু এবং বীনস)
  • ১ চা-চামচ ঘি
  • এক চিমটি হলুদ
  • ১/২ চা-চামচ জিরে
  • ধনেপাতা কুচি

কীভাবে তৈরি করবেন:

ডাল এবং চাল পরিষ্কার করুন । ত্রিশ মিনিটের জন্য তাদের জলে ভিজিয়ে রাখুন । একটি প্রেসার কুকারে ঘি গরম করুন । এখন জিরা যোগ করুন এবং ফুটতে দিন । ডাল, ভাত এবং তারপর সবজি দিয়ে দিন । এই সব কিছুক্ষন নাড়াচাড়া করে এক চিমটি লবণ দিতে পারেন । জল দিন এবং প্রেসার কুকারে ৩-৪টি শিটি দেওয়া পর্যন্ত রান্না করুন, যাতে সবকিছু ভাল রান্না করা হয় ।

একটি চামচ দিয়ে খিচুড়ি চটকে নিন । একটু একটু করে খাওয়ান ।

৪) আটার হালুয়া

আটার হালুয়া বা পরিজ ৯ মাস বয়সী শিশুদের জন্য খাবারের একটি রেসিপি

উপকরণ:

  • ২ চা-চামচ আটা
  • ১/২ চা-চামচ ঘি
  • ২ কাপ গরম জল
  • ফর্মুলা বা বুকের দুধ

কীভাবে তৈরি করবেন:

  • একটি প্যানে ঘি গরম করুন ।
  • একটি প্যানে আটা রোস্ট করুন, ক্রমাগত নাড়তে থাকুন কারণ এটি পুড়ে যেতে পারে ।
  • যখন আটা অল্প রোস্ট হয়ে যাবে এবং একটি ভালো গন্ধ ছাড়তে শুরু করবে, গরম জল যোগ করুন ।
  • দলা যাতে না থাকে, তার জন্য নাড়তে থাকুন ।
  • আপনার পছন্দ মতো ঘনত্বে নিয়ে আসুন ।
  • আপনার শিশু এর টেক্সচার নিশ্চয়ই পছন্দ করবে ।
  • আঁচ বন্ধ করুন ।
  • আটার হালুয়া যখন অল্প ঠাণ্ডা হয়ে যাবে, ঘনত্ব সঠিক করতে এবং স্বাদ ভালো করতে দুধ যোগ করুন ।
  • মিষ্টি করার জন্য চটকানো কলা বা আপেলের সস যোগ করতে পারেন ।

৫) ফিঙ্গার সবজি

৯ মাস বয়সী শিশুদের মধ্য-সকাল অথবা সন্ধ্যার স্ন্যাক হিসাবে ফিঙ্গার ফুড দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় ।

উপকরণ:

  • ১টি গাজর
  • ১টি কুমড়ো
  • ১টি মিষ্টি আলু
  • শশা

কীভাবে তৈরি করবেন:

যে কোন একটি বা সব সবজি দীর্ঘ লম্বা আকারে কেটে দিন, যা আপনার সন্তান তার আঙুলের মধ্যে ধরতে পারে । একটি প্রেসার কুকারে সেগুলি ৫-৭ মিনিটের জন্য রান্না করুন । গরম গরম পরিবেশন করুন ।

খাওয়ানোর টিপস

  • আপনি আপনার শিশুকে কোন কঠিন খাবার খাওয়ানো শুরু করার সময় তাকে একটি গোটা চামচ খাবার না দিয়ে একটু একটু করে দিন ।
  • এই পর্যায়ে সবজি এবং ফল দেওয়া উচিত, তবে সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে একটি সময়সূচী তৈরি করুন এবং আপনার শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে আলোচনা করুন । এটি আপনার শিশুর যে কোনো অ্যালার্জি বা প্রতিক্রিয়া এড়াতে সাহায্য করতে পারে ।
  • একটি ‘৪ দিনের নিয়ম’ অনুসরণ করুন, অ্যালার্জি পরীক্ষা করার জন্য একটি নতুন খাদ্য প্রবর্তনের আগে ৪ দিন অপেক্ষা করুন ।

সময় খুব দ্রুত কেটে যায় এবং শীঘ্রই আপনার নয় মাস বয়সী শিশু হাঁটতে এবং ছুটতে শুরু করবে । এই সময়কে সঠিক গুরুত্ব দিন এবং তার স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন এবং তাদের শৈশবের ভিত্তি তৈরি করুন ।